বড় স্কোর গড়েও হার বাংলাদেশের

বড় স্কোর গড়েও হার বাংলাদেশের

তিনশ’র বেশি করেও জয় পেলো না বাংলাদেশ। সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে স্বাগতিক জিম্বাবুয়ের কাছে ৫ উইকেটে পরাজিত হলো তামিম ইকবালের দল। টি-টোয়েন্টি সিরিজের পর বাংলাদেশ এবার হেরে গেলো প্রিয় ফরম্যাট ওয়ানডেতেও। এই ফরম্যাটে বড় দলগুলোর সঙ্গে পাল্লা দেওয়া টাইগাররা এবার জিম্বাবুয়ের কাছে পরাজয় মানলো ৩০৩ রান করেও।

হারারেতে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে শুক্রবার সিকান্দার রাজা আর ইনোসেন্ট কায়ার জোড়া সেঞ্চুরিতে ভর করে ৩০৪ রানের লক্ষ্য ৫ উইকেট আর ১০ বল হাতে রেখেই পেরিয়ে গেছে জিম্বাবুয়ে।

ছক্কা মেরে ম্যাচ শেষ করেন রাজা। ১০৮ বলে ৮ বাউন্ডারি আর ৫ ছক্কায় তিনি অপরাজিত থাকেন ১৩৫ রানে। এই জয়ে তিন ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেছে স্বাগতিকরা। এতে দীর্ঘ নয় বছর এবং ১৯ ম্যাচ পর জিম্বাবুয়ের কাছে ওয়ানডেতে হারলো বাংলাদেশ।

৩০৪ রানের টার্গেটে নেমে জিম্বাবুয়ের শুরুটা একদমই ভালো ছিল না। প্রথম ওভারেই আঘাত হানেন মুস্তাফিজুর রহমান। কাটার মাস্টারকে কাট করতে গিয়ে স্টাম্পে বল টেনে আনেন জিম্বাবুইয়ান অধিনায়ক রেগিস চাকাভা। ২ রান করেই ফেরেন সাজঘরে।

এর পরের ওভারে উইকেট তুলে নেন শরিফুল ইসলাম। তারিসাই মুসাকান্দাকে মোসাদ্দেক হোসেনের সহজ ক্যাচে পরিণত করেন। ৬ রানে ২ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।

শুরুর সেই ধাক্কা সামলে নেন মেদভেরে আর ইনোসেন্ট কায়া। ৬৮ বলে ৫৬ রানের এই জুটিতে। তবু ১৪তম ওভারে দলের ৬২ রানে ৩ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।

এরপরই কায়া আর সিকান্দার রাজার প্রতিরোধগড়া জুটি। জুটিটা ভাঙতে পারতো ৮১ রানে। রানআউটের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল। কিন্তু একটুর জন্য বেঁচে যান কায়া।

সিকান্দার রাজা আর ইনোসেন্ট কায়া জুটিই ম্যাচ জিম্বাবুয়ের হাতে তুলে দেয়। ১৭২ বলে তাদের ১৯২ রানের জুটিটি শেষ পর্যন্ত ভাঙেন মোসাদ্দেক। আউট হওয়ার আগে, ইনোসেন্ট কায়া ১২২ বলে ১১ চার আর ২ ছক্কায় খেলেন ক্যারিয়ার সেরা ১১০ রানের ইনিংস।

এর আগে তামিম ইকবাল, লিটন দাস, এনামুল হক বিজয়ের পর মুশফিকুর রহিম- টপ অর্ডারের প্রথম চার ব্যাটারের ফিফটিতে ২ উইকেটেই ৩০৩ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করিয়েছিল বাংলাদেশ।

ওয়ানডেতে দ্বিতীয়বারের মতো টপ অর্ডারের প্রথম চার ব্যাটারই হাফসেঞ্চুরি করেন।

হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজের তিন ম্যাচের মতো প্রথম ওয়ানডেতেও টস হেরেছে বাংলাদেশ। স্বাগতিক জিম্বাবুয়ের আমন্ত্রণে আগে ব্যাট করতে নামে তামিমের দল। লিটনকে নিয়ে বাংলাদেশের ইনিংসের গোড়াপত্তন করেন তামিম।

রিচার্ড এনগারাভার করা প্রথম ওভারের প্রথম পাঁচ বলই ছিল ডট। শেষ বলে ফ্লিক করে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে রানের খাতা খোলেন তামিম। অভিষিক্ত ভিক্টর নিয়ুচির করা পরের ওভার পুরোটা মেইডেন খেলেন লিটন। তবে নিয়ুচির পরের ওভারে বাউন্ডারি হাঁকিয়েই নিজের রানের খাতা খুলেছেন এ ডানহাতি ওপেনার।

নিয়ুচি-এনগারাভার আঁটসাঁট বোলিংয়ের মাঝে নেতিবাচক ছিল ওয়েসলে মাধভেরের ওভারথ্রো থেকে দেওয়া বাউন্ডারি। ইনিংসের তৃতীয় ওভারে নন স্ট্রাইক প্রান্তে লক্ষ্যভ্রষ্ট থ্রো করে বাংলাদেশকে বোনাস চার রান দেন মাধভের। এছাড়া নিয়ুচি লেগসাইডের অনেক বাইরে বল করে ওয়াইডসহ বাউন্ডারি দিয়ে বসেন।

এরপর ওয়ানডে ক্রিকেটে বাংলাদেশের হয়ে নতুন মাইলফলক উন্মোচন করেন বর্তমান অধিনায়ক তামিম ইকবাল। সবার আগে ৮ হাজার রানের মাইলফলকে প্রবেশ করলেন তিনি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে ৫৭তম রান নেওয়ার মাধ্যমে ক্যারিয়ারের ৮ হাজার রান পূরণ হয় তামিমের।

বাংলাদেশের আর কোনো ব্যাটারের ওয়ানডেতে সাত হাজার রানও নেই। স্বাভাবিকভাবেই সবার আগে এই মাইলফলকে ঢুকলেন তামিম। এর আগে ৫ হাজার, ৬ হাজার ও ৭ হাজার রানেও বাংলাদেশের ব্যাটারদের মধ্যে সবার আগে নাম লিখিয়েছেন দেশসেরা এই ওপেনার।

তবে মাইলফলকে প্রবেশ করার পর বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারেননি তামিম। ইনিংসের ২৬তম ওভারে সিকান্দার রাজার বলে আউট হওয়ার আগে ৮৮ বল থেকে নয় চারের মারে ৬২ রান করেছেন টাইগার অধিনায়ক। যা তার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৫৪তম হাফসেঞ্চুরি।

লিটন দাস দারুণ ব্যাটিং করছিলেন। এগিয়ে যাচ্ছিলেন সেঞ্চুরির দিকে। কিন্তু ব্যক্তিগত ৮১ রানে এসে হঠাৎ পায়ে টান পড়ে ডানহাতি এই ব্যাটারের।এমনই অবস্থা যে উঠে দাঁড়াতেও পারলেন না। ফলে স্ট্রেচারে শুয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে তাকে।

এরপর মুশফিকুর রহিমকে নিয়ে ৭৬ বলে ৯৬ রানের ঝড়ো এক জুটি গড়েন এনামুল হক বিজয়। ছক্কা মেরে ৪৭ বলে ফিফটি পূরণ করেন বিজয়। ব্যক্তিগত ৭১ রানে সহজ ক্যাচ দিয়েছিলেন ডিপ কভারে। কিন্তু এনগারাভার বলে সেই ক্যাচ ফেলে দেন মাদভেরে।

যদিও সেই সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি তিন বছর পর ওয়ানডে দলে ফেরা বিজয়। নিজের নামের সঙ্গে আর দুই রান যোগ করেই ফের ক্যাচ তুলে দেন লংঅনের আকাশে। মুসাকান্দা সেটা তালুবন্দী করলে উইকেট পান নিয়াচি। ৬১ বলে বিজয়ের ৭৩ রানের ঝড়ো ইনিংসে ছিল ৬ বাউন্ডারি আর ৩ ছক্কার মার।

এরপর মাহমুদউল্লাহ আর মুশফিকুর রহিম ২৫ বলে ৩৬ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে দলকে তিনশো পার করে দেন। মুশফিক ৪৯ বলে ৫ বাউন্ডারিতে অপরাজিত থাকেন ৫২ রানে। ১২ বলে ২ চারের সাহায্যে ২০ করেন মাহমুদউল্লাহ।

তবে এই রানও বাংলাদেশের জয়ের জন্য যথেষ্ট ছিলো না। সর্বশেষ তারা জিম্বাবুয়ের কাছে রেছিল ২০১৩ সালের ৮ মে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD