এফএ কাপ জিতল লিভারপুল

এফএ কাপ জিতল লিভারপুল

রোমাঞ্চকর এক ফাইনালে চেলসিকে টাইব্রেকারে পরাজিত করে এফএ কাপ শিরোপা জিতলো লিভারপুল। ফাইনালে গোলশূন্য সমতায় নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষ হওয়ার পর টাইব্রেকারে চেলসিকে ৬-৫ ব্যবধানে হারিয়ে শিরোপা জেতে ইয়ুর্গেন  ক্লপের শিষ্যরা।

এফএ কাপ ফাইনালে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে নির্ধারিত সময়ের খেলায় গোল করতে পারেনি কেউই। অতিরিক্ত ৩০ মিনিটের খেলাতেও ম্যাচের ভাগ্য বদল হয়নি। অতঃপর টাইব্রেকারে বাজিমাত করে অল রেড‘রা। লিভারপুলের পক্ষে পেনাল্টি থেকে সাদিও মানে গোল করতে ব্যর্থ হলেও লিভারপুল জয় পায় চেলসির হয়ে সিজার আজপিকুয়েলতা ও ম্যাসন মাউন্ট গোল করতে ব্যর্থ হলে। তাতে এই টুর্নামেন্টে ১০ বছরের শিরোপা খরা কাটল অলরেডদের।

ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে চেলসির সামনে ছিল প্রতিশোধের হাতছানি। এই স্টেডিয়ামেই তিনমাস আগে লিভারপুলের বিপক্ষে টাইব্রেকারে হারতে হয়েছিল ক্যারাবাও কাপের ফাইনাল। মৌসুমের প্রথম শিরোপার লড়াইয়ে সেদিন লিভারপুল জয় পেয়েছিল ১১-১০ ব্যবধানে। কিন্তু প্রতিশোধ নিতে আজও ব্যর্থ টমাস টুখেলের বাহিনী। আবার টাইব্রেকারে ম্যাচ। এবারো জয়ী দল লিভারপুল।

এদিন শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ফুটবল খেলতে থাকে লিভারপুল। যার ফলও পেয়ে যাচ্ছিল ৮ মিনিটের মাথায়। চেলসির রক্ষণদুর্গে ঢুকে দারুণ শট নিয়েছিলেন লুইস দিয়াজ। কিন্তু তার শট কোনোমতে পা দিয়ে ঠেকিয়ে দেন চেলসির গোলরক্ষক মেন্দি। অবশ্য তারপরও গোল হতে পারত, কিন্তু গোললাইন থেকে বলটি ক্লিয়ার করা হলে বিপদমুক্ত হয় চেলসি।

এর মাঝেই গোলের সুযোগ আসে চেলসির সামনে। পুলিসিচের পাস থেকে মার্কাস আলনসোর নিচু শট রুখে দেন অ্যালিসন।

এদিন চোট শঙ্কায় লিভারপুলের তারকা মোহামেদ সালাহকে প্রথমার্ধের খেলা শেষ হবার আগেই তুলে নেন লিভারপুল কোচ জুর্গেন ক্লপ। পায়ে অস্বস্তি নিয়ে ৩৩ মিনিটেই মাঠ ছাড়েন সালাহ। অস্বস্তি নিয়ে খেলছেন গোলরক্ষক অ্যালিসনও। তিনি অবশ্য খেলেছেন ম্যাচের পুরো সময়ই।

দ্বিতীয়ার্ধেও সুযোগ তৈরি করেছিল দুদলই। কিন্তু গোলের দেখা পাওয়া হয়নি কারোরই।  ৫২তম মিনিটে আবারো একটুর জন্য জালের দেখা পাননি ম্যাচে দারুণ খেলা নতুন নেইমার খ্যাত লিভারপুল তারকা দিয়াজ। কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ডের দূরপাল্লার শট পোস্ট ঘেঁষে বেরিয়ে যায়। আট মিনিট পর আরেকবার হতাশায় পোড়েন তিনি। এই অর্ধে দিয়াজ ও জটার দুটি শট বারে লেগে ফিরে আসায় গোলের দেখা পাওয়া হয়নি লিভারপুলের।

অতিরিক্ত সময়ের প্রথমার্ধের খেলায় গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে চেলসি। এ সময়ে বেশ কয়েকটি আক্রমণ করেও ব্যর্থ হয় তারা। দ্বিতীয়ার্ধের খেলায় আর ঝুঁকি নিতে চায়নি কোনো দলই। তাই রক্ষণ সামলে বিক্ষিপ্ত আক্রমণেই বাকি ১৫ মিনিট অতিবাহিত করে দুদল।

এফএ কাপের ইতিহাসে তৃতীয়বারের মতো ফাইনাল গড়ায় টাইব্রেকারে। চেলসির পক্ষে প্রথম স্পট কিক নিতে আসেন মার্কাস আলনসো। অ্যালিসনকে বোকা বানিয়ে ভুল দিকে ঝাপিয়ে পড়তে বাধ্য করে বাম পাশের কর্নার দিয়ে বল জালে পাঠান তিনি।

লিভারপুলও গোল পায় প্রথম শটে। মিলনারের নেওয়া জোরাল শটে গ্লোভস ছোঁয়াতে পারলেও গোল ঠেকাতে পারেননি চেলসির গোলরক্ষক মেন্দি।

চেলসির পক্ষে দ্বিতীয় শট নিতে এসে মিস করে বসেন আজপিকুয়েলতা। তার নেওয়া শট ডানদিকে ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দেন অ্যালিসন।

পরের দুই শটে গোলের দেখা পান লিভারপুলের থিয়াগো ও চেলসির রেসে জেমস। ২-২ সমতায় লিভারপুলের পক্ষে তৃতীয় শট নেন ফিরমিনো। তিনি গোল করলে ব্যবধান দাঁড়ায় ৩-২।

চেলসির হয়ে চতুর্থ শটে গোল করেন বদলি নামা বার্কলি। গোল পান লিভারপুলের আলেক্সান্ডার আর্নল্ডসও। কিন্তু লিভারপুলের হয়ে পঞ্চম শট নিতে এসে মিস করে বসেন সাদিও মানে। ফলে সমতা দাঁড়ায় ৪-৪।

চেলসির পক্ষে ষষ্ঠ কিকটি নেন হাকিম জিয়েচ। তিনি গোল করে চেলসিকে এগিয়ে দেন। কিন্তু পরের শটে লিভারপুলকে সমতায় ফেরান দিয়েগো জটা। চেলসির পক্ষে এর পরের শটটি নিতে আসেন ম্যাসন মাউন্ট। কিন্তু তার শটটি ঠেকিয়ে দেন অ্যালিসন।

লিভারপুলের হয়ে শিরোপা নির্ধারণী স্পটকিকটি নেন বদলি নামা সিমিকাস। বাম কর্নার দিয়ে নেওয়া তার নিচু শটটি চেলসি গোলরক্ষক মেন্দিকে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়ালে শিরোপার উল্লাসে মেতে ওঠে লিভারপুল।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD