চতুর্থ দিনের শুরুতেই বিপদে বাংলাদেশ

চতুর্থ দিনের শুরুতেই বিপদে বাংলাদেশ

চতুর্থ দিনের শুরুতেই বিপদে বাংলাদেশ। ভরসার মুশফিকুর রহিমের বিদায়, পরে অভিষিক্ত ইয়াসির আলী মাথায় আঘাত পেয়ে মাঠের বাইরে গেলে প্রথম সেশনেই বিপদে পড়ে বাংলাদেশ। মাঠে আসা দর্শকরা নিজ নিজ আসনের ধুলোবালি ঝেড়ে পরিষ্কার করে হয়তো বসছিলেন খেলাটা মন দিয়ে দেখার জন্য। কেউ কেউ স্টেডিয়ামের প্রবেশ পথে অপেক্ষমান গ্যালারিতে ঢোকার জন্য। আর টিভিতে যারা খেলা দেখছেন, তারা কেউ কেউ কেবল টিভির সুইচটা অন করতে যাচ্ছেন- পাকিস্তানি বোলারদের বিপক্ষে মুশফিক আর ইয়াসির আলী রাব্বির প্রতিরোধ দেখার জন্য।

কিন্তু সবাইকে যারপরনাই হতাশ করে দিলেন মুশফিকুর রহিম। চার দিয়ে শুরু করেলো দিনের তৃতীয় বলেই পাকিস্তানি পেসার হাসান আলীর বলে উইকেট হারিয়ে সাজঘরে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম। দুটি লুজ বল দেয়ার পর তৃতীয় বলটি পারফেক্ট কর্কার ছিল হাসান আলির। মুশফিক ভেবেছিলেন অফ স্ট্যাম্প মিস করে যাবে বলটি। এ কারণে তিনি ব্যাট দিয়ে বল না ঠেকিয়ে ছেড়ে দেন; কিন্তু না, অফস্ট্যাম্পকে উড়িয়ে নিয়েই চলে গেলো বল।

স্রেফ বোকামি ছাড়া আর কিছুই নয়। অফ স্ট্যাম্পের ওপর থাকা বলটাকেই সঠিকভাবে বিচার করতে পারলেন না মুশফিক। দিনের প্রথম বলে একটি বাউন্ডারি মেরে যেন আত্মবিশ্বাসটা আকাশে উড়তে চাইছিল তার। সেটাই শেষ পর্যন্ত কাল হয়ে দাঁড়ালো। হাসান আলির ট্রিকসটাই বুঝতে পারলেন না তিনি। ৩৩ বল মোকাবেলায় ১৬ রান করে আউট হলেন তিনি।

বিপদের ওপর বিপদ। এমনিতেই দিনের প্রথম ওভারে বোকামি করে বোল্ড হয়ে গেলেন মুশফিকুর রহিম। এরপর লিটন দাসকে নিয়ে ভালোই একটি জুটি গড়ার চেষ্টা করছিলেন অভিষিক্ত ব্যাটার ইয়াসির আলী রাব্বি। ৪৭ রান যোগ‌ও করেছিলেন তারা। কিন্তু শাহিন শাহ আফ্রিদির একটি শট বল রাব্বির হেলমেটে আঘাত হানে। যার ফলে মাটই ছেড়ে যেতে বাধ্য হলেন তিনি।

ম্যাচের ৩০ ওভারের পঞ্চম বলটি শট লেন্থে করেছিলেন পাকিস্তানি পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি। প্রচণ্ড গতির বলটিকে ডাক করে মাথার ওপর দিয়ে চলে যেতে দিয়েছিলেন ইয়াসির আলী রাব্বি। কিন্তু বল এতটা উপরে উঠলো না। ফলে সেটি গিয়ে আঘাত হানে রাব্বির হেলমেটে, চোখের কোনের কাছে।

সঙ্গে সঙ্গে দলীয় চিকিৎসক এসে রাব্বিকে শশ্রুষা দেয়ার চেষ্টা করেন। এরপর শাহিনের ওভারের শেষ বলটিও মোকাবেলা করেন রাব্বি। পরের ওভারটি করতে আসেন স্পিনার নৌমান আলি।

তার পুরো ওভারটাও খেলেন ইয়াসির আলি। কিন্তু মাথার যন্ত্রণায় আর টিকতে না পেরে শেষ পর্যন্ত মাঠের বাইরেই চলে যেতে বাধ্য হন তিনি। রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে গেলেন তিনি ৩৬ রানে। যদিও শেষের দিকে মাঠে নামার সুযোগ রয়েছে তার। কিন্তু আঘাতটা কেমন, আদৌ মাঠে নামতে পারবেন কি না, নাকি কনকাশন করতে হয় – সেটা এখন দেখার বিষয়।

রাব্বির পরিবর্তে মাঠে নামলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ২৩ রান নিয়ে ব্যাট করছেন লিটন দাস।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD