ভারতকে রুখে দিল ১০ জনের বাংলাদেশ

ভারতকে রুখে দিল ১০ জনের বাংলাদেশ

প্রথমার্ধেই পিছিয়ে পড়ার পর বিশ্বনাথ ঘোষের লালকার্ডে ১০ জনের দলে পরিণত হয় বাংলাদেশ। হারের শঙ্কা। কিন্তু রোমাঞ্চের তখনও বাকি। দারুণ এক হেডে উৎসবে মাতলেন ইয়াসিন আরাফাত। তাতে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের রেকর্ড সাতবারের চ্যাম্পিয়ন ভারতকে রুখে দিল অস্কার ব্রুজনের দল।

মালদ্বীপের রাজধানী মালের রাশমি ধান্দু স্টেডিয়ামে দুই দলের ম্যাচটি ১-১ ড্র হয়েছে। সুনীল ছেত্রী প্রথমার্ধে ভারতকে এগিয়ে নেওয়ার পর ৭৪ মিনিটে বাংলাদেশকে সমতায় ফেরান ইয়াসিন।

অবশ্য শ্রীলঙ্কাকে ১-০ গোলে হারিয়ে এবারের সাফ চ্যাম্প্রপিয়নশীপ শুরু করা অস্কার ব্রুজনের দলের দুই ম্যাচের পয়েন্ট ৪। নিজেদের প্রথম ম্যাচের ড্রয়ে ১ পয়েন্ট ভারতের।

প্রথমার্ধে আক্রমণ সামলে মাঝেমধ্যে প্রতিপক্ষের রক্ষণে হানা দেয় বাংলাদেশ। ষষ্ঠ মিনিটে জামাল ভূইয়ার পাসে ইয়াসিন আরাফাতের দূরপাল্লার শট পোস্টের অনেক বাইরে দিয়ে যায়। তিন মিনিট পর মতিনের ক্রস ক্লিয়ার করেন রাহুল ভেকে। একাদশ মিনিটে মোহাম্মদ ইব্রাহিমের ক্রসে শট নিতে পারেননি কিংস ফরোয়ার্ড মতিন।

২১ মিনিটে জামালের কর্নার ফেরান গোলরক্ষক গুরপ্রিত সিং সান্ধু। একটু পর অধিনায়কের ফ্রি কিকে সাদউদ্দিনের প্রচেষ্টা যায় পোস্টের অনেক বাইরে দিয়ে। বাংলাদেশের রক্ষণে চির ধরে ২৬ মিনিটে। ডান দিক দিয়ে আক্রমণে ওঠা উদান্ত সিংয়ের কাটব্যাক খুঁজে নেয় ছেত্রীকে। প্লেসিং শটে জাল খুঁজে নেন ভারতের সর্বোচ্চ গোলদাতা।

পরের মিনিটেই সমতায় ফেরার দারুণ সুযোগ এসেছিল বাংলাদেশের সামনে। দ্রুত পাল্টা আক্রমণে ওঠা মতিনের কাটব্যাকে শটও নিয়েছিলেন বিপলু আহমেদ। কিন্তু বল বেরিয়ে যায় দূরের পোস্টের বাইরে দিয়ে।

৩৫ মিনিটে লিস্টন কোলাকোর শট সরাসরি জিকো বরাবর যায়। একটু পর ছেত্রির বাঁ পাঁয়ের বাঁকানো শট জিকোর গ্লাভস ছুঁয়ে কর্নার হয়।

কর্নার ফেরানোর পরই দ্রুত আক্রমণে ওঠে বাংলাদেশ। মাঝমাঠ থেকে মতিনের থ্রু পাস ধরে সাদউদ্দিন আড়াআড়ি ক্রস বাড়ান বিপলুর উদ্দেশে। কিন্তু এ ফরোয়ার্ডের কোনাকুনি শট ঝাঁপিয়ে আটকান ভারতের অভিজ্ঞ গোলরক্ষক গুরপ্রিত।

৫১ মিনিটে সাদউদ্দিনের কাটব্যাকে বক্সে ফাঁকায় থাকা রাকিব হোসেন পা ছোঁয়ালেও বল বেরিয়ে যায় বাইরে দিয়ে। এর পরপরই ওয়ান টু ওয়ান পজিশনে কোলাকোকে পেছন থেকে টেনে ফেলে দিয়ে লাল কার্ড দেখেন বিশ্বনাথ ঘোষ। ১০ জনের দলে পরিণত হয় বাংলাদেশ।

জিকোর দৃঢ়তায় ৬১ মিনিটে ব্যবধান বাড়েনি। বাঁ দিক থেকে নেওয়া মানভির সিংয়ে শট ফেরানোর পর উদান্তার শটও আটকান বসুন্ধরা কিংসের এই গোলরক্ষক।

সাত মিনিটের মধ্যে তিনটি বদলি নামান ব্রুজন। ইব্রাহিমকে তুলে মাহবুবুর রহমান সুফিলকে নামানোর পর বিপলু ও মতিনের জায়গায় সোহেল রানা ও সুমন রেজাকে নামান। ১০ জনের দলে পরিণত হলেও লড়তে থাকে বাংলাদেশ। ৭৪ মিনিটে মেলে গোলের দেখা।

বাঁ দিক থেকে নেওয়া জামালের কর্নারে লাফিয়ে ওঠা রাকিবের মাথা ছুঁয়ে বল চলে যায় দূরের পোস্টে। ইয়াসিন ছিলেন প্রস্তুত। কিছুটা ডাইভিং হেডে লক্ষ্যভেদ করেন তিনি। সমতায় ফেরার উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়ে বাংলাদেশের ডাগআউট; গ্যালারিতে আসা বাংলাদেশের সমর্থকরাও।

৮৫ মিনিটে মানভিরের শট ব্লক করেন তপু। বাকিটা সময় ভারত চাপ দিলেও বাংলাদেশের জালের নাগাল পায়নি। শেষের বাঁশি বাজতেই র‌্যাঙ্কিংয়ে ৭২ ধাপ এগিয়ে থাকা ভারতের বিপক্ষে মহামূল্যবান ১ পয়েন্ট পাওয়ার উৎসবে মাতে বাংলাদেশ। ২০০৩ সালের পর সাফে ভারতের বিপক্ষে জয়ের চাওয়াটা পূরণ হয়নি বটে। কিন্তু সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে গত তিন ম্যাচে ছেত্রিদের দুইবার রুখে দিলেন জামাল-জিকোরা।

রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতির এবারের আসরে আগামী বৃহস্পতিবার স্বাগতিক মালদ্বীপের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ওই ম্যাচেই দলের সামনে সুযোগ থাকবে ২০০৫ সালের পর এই প্রতিযোগিতার ফাইনালের ওঠা অনেকটাই নিশ্চিত করার।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD