বাংলাদেশের ক্যাচ মিসে লঙ্কানদের জয়

বাংলাদেশের ক্যাচ মিসে লঙ্কানদের জয়

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ক্রিকেট

হার দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভ পর্ব শুরু করলো বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার কাছে ৫ উইকেটে হেরেছে টাইগাররা। শারজায় আগে ব্যাট করে ৪ উইকেটে ১৭১ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে রাসেল ডোমিঙ্গোর শিষ্যরা। কিন্তু লিটন দাসের ক্যাচ মিসের পাশাপাশি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বাজে অধিনায়কত্বের সুযোগ কাজে লাগিয়ে ৭ বল হাতে রেখেই ম্যাচ জিতে নেয় লঙ্কানরা। 

ম্যাচটা বহুদিন মনে থাকবে লিটন দাসের। বুকে বাংলাদেশ ধারণ করা কোটি ক্রিকেট প্রেমীর মন থেকেও হয়তো এমন হারের ক্ষত শুকাবে না। সমীকরণটা যখন ৪৮ বলে ৮২ – ওই সময় নিশ্চিতভাবেই ম্যাচ ফিল্ডিং সাইডের অনুকূলে। কিন্তু ১৪ রানে থাকা ভানুকা রাজাপাকসের ক্যাচ ছাড়লেন লিটন। ঠিক ১২ বলের মাথায় আবারো দিনাজপুরের ছেলে লিটনের পিচ্ছিল হাতে ক্যাচ ফসকালো। মুস্তাফিজুর রহমানের ওভারে চারিথ আসালাঙ্কা জীবন পেলে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় বাংলাদেশ।

বিশ্বকাপের মহামঞ্চে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের বোলিং পরিবর্তনের সিদ্ধান্তগুলোও শেষ পর্যন্ত প্রশ্নবিদ্ধ হয়েই রইলো। সাকিব আল হাসান, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মোস্তাফিজদের মতো বোলারদের ওভার রেখে আক্রমণে গেলেন রিয়াদ নিজে। আনলেন আফিফ হোসেনকে। ওই তিন ওভারে শ্রীলঙ্কা যোগ করে ৩৬ রান। এরপর ২২ রান দিয়ে ১৬তম ওভারে ম্যাচটাকে লঙ্কানদের হাতে তুলে দিয়ে আসেন সাইফুদ্দিন। জীবন পাওয়া আসালাঙ্কা খেলেন ৪৯ বলে ৮০ রানের হার না মানা বিধ্বংসী ইনিংস। আর রাজাপাকসে আউট হওয়ার আগে করেন ৩১ বলে ৫৩ রান। 

ফিল্ডিংয়ে দলকে ডোবানো লিটন এর আগে ব্যর্থ হন ব্যাটিংয়েও। ১১ ইনিংসে সাতবার দুই অংক ছোয়ার আগেই সাজঘরে ফেরা ওপেনার প্যাভিলিয়নে ফেরেন ব্যক্তিগত ১৬ রানে। এরপর নাইম শেখ আর মুশফিকুর রহিমের লড়াকু ব্যাটিং বাংলাদেশকে পাইয়ে দেয় ফাইটিং স্কোর। ক্যারিয়ারের চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি হাঁকানো নাইম খেলেন ৫২ বলে ৬২ রানের ইনিংস। 

১১ ইনিংস পর অর্ধশতক তুলে নিয়ে মুশফিক অপরাজিত ছিলেন ৩৭ বলে ৫৭ রানে। ৪ উইকেটে ১৭১ রান তুলে টাইগারদের জয়টা তখন হাতের নাগালেই মনে হয়েছিলো। 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD