মেসি-নেইমারদের সামনে স্বপ্ন বাস্তবায়নের পালা

মেসি-নেইমারদের সামনে স্বপ্ন বাস্তবায়নের পালা

দলবদলে চমক দিয়েই বারবার আলোচনায় চলে এসেছে প্যারিস সেন্ট জার্মেইঁ। এবা‌রও তার ব্যতিক্রম হলোনা। ইউরোপিয়ান ফুটবলে এর আগেও দলবদল চমক দিয়েছে এই ক্লাবটি। সেবারও বার্সেলোনা থেকে নেইমার এসেছিলেন প্যারিসে। বিশ্ব রেকর্ড গড়ে, ২০০ মিলিয়ন পাউন্ডে। 

অবশ্য লিওনেল মেসিকে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইঁ পেয়েছে একেবারে বিনামূল্যে। মানে ট্রান্সফার ফি ছাড়া। মেসির সঙ্গে বার্সেলোনার চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ায় আর বাড়তি অর্থ দিতে হয়নি পিএসজি'র সভাপতি কাতারের নাসের আল খেলাইফিকে। 

এর আগে পিএসজিতে এসেছেন রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক তারকা সার্জিও রামোস। তিনিও এসেছেন ট্রান্সফার ফি ছাড়া। এছাড়া মরোক্কোর রাইট ব্যাক আচরাফ হাকিমি এবং ইউরো ২০২০ এর সেরা গোলকিপার ইতালির ডোন্নারুমা‌ও এসেছেন ট্রান্সফার ফি ছাড়া। সব পজিশনে এমন ভালো ভালো ফুটবলার বিনিময় মূল্য ছাড়া দলে নিয়ে আসা অনেক ফুটবল ক্লাবের জন্য স্বপ্নের ব্যাপার।

এতো ভালো ভালো খেলোয়াড় দলে থাকায় স্বাভাবিকভাবে ক্লাব কর্মকর্তা এবং দর্শক-সমর্থকদের চা‌ওয়াটাো হয়েছে আকাশচুম্বি। আরো সাফল্য পেতে মুখিয়ে আছেন তারা। এবার জেনে নে‌ওয়া যাক, লি‌ওনেল মেসি প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ে যোগ দে‌ওয়ায় কেমন হয়েছে তাদের দল।  

গোলকিপার: ডোন্নারুমা ইতালির ইউরো জয়ের নায়ক, একই সাথে তিনি ভবিষ্যৎও বটে, বয়স মাত্র ২২ বছর। যদিও গোলকিপার হিসেবে এখন‌ও ১ নম্বর জার্সি কেইলর নাভাসের কাছে। তবে এই মৌসুমেই বিনামূল্যে এসেছেন জিয়ানলুইজি ডোন্নারুমা। অর্থাৎ এই দুজন ভাগাভাগি করে গোলবার সামাল দেবেন। নাভাস টানা তিনবার রিয়াল মাদ্রিদের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ের নায়ক। আর ডোন্নারুমা মাত্রই ইতালির ইউরো জয়ের নায়ক। 

রক্ষণভাগ: প্যারিস সেইন্ট জার্মেইঁয়ের রক্ষণভাগেও এখন তারুণ্য আর অভিজ্ঞতার মিশেল, আচরাফ হাকিমি এসেছেন ২২ বছর বয়সে ইতোমধ্যে ডর্টমুন্ড ও ইন্টার মিলানে দুটি সফল মৌসুম কাটিয়েছেন তিনি। তার সঙ্গে যোগ দিয়েছেন সার্জিও রামোস, ইউরো, বিশ্বকাপ, লা লিগা, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ জয়ী স্প্যানিশ তারকা ডিফেন্ডার। আর আগে থেকেই ছিলেন ব্রাজিলের মারকুইনোস এবং ফ্রান্সের কিমবেপে।

মধ্যমাঠ: তবে পিএসজি'র মধ্যমাঠ ঠিক ততটা দামি নয় যতটা তাদের অন্য পজিশনগুলো। আনহেল দি মারিয়ার সঙ্গে আছেন আর্জেন্টাইন সতীর্থ লেয়ান্দ্রো পারেদেস, মার্কো ভেরাত্তি এবং ব্রাজিলের রাফিনিয়া‌ও আছেন। দলবদলে নাটকীয়তা করে যোগ দিয়েছেন ডাচ মিডফিল্ডার জর্জিনিও উইনালডাম। তাছাড়া ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড সাবেক তারকা অ্যান্ডার এরেরা এবং স্প্যানিশ পাবলো সারাবিয়া ও জুলিয়ান ড্র্যাক্সলার তো আছেনই।

ফরোয়ার্ড: মেসি-নেইমার-এমবাপে- এই ত্রয়ী নামই যথেষ্ট পিএসজির নতুন ফরোয়ার্ড লাইনআপের বর্ণনায়। কিলিয়ান এমবাপে ২০১৮ সাল থেকেই সময়ের অন্যতম সেরা তরুণ ফুটবলার। ফ্রান্সের বিশ্বকাপ জয়েও তার বড় ভূমিকা ছিল, এছাড়া গত মৌসুমেই বার্সেলোনাকে তাদের মাঠে গিয়ে ধরাশায়ী করে হ্যাটট্রিক করেছেন কিলিয়ান এমবাপে। লিওনেল মেসির জাতীয় দল আর্জেন্টিনাকেও বিশ্বকাপে গতির ঝলক দেখিয়েছেন তিনি। আছেন নেইমার, অবশ্য প্রত্যাশা ও সম্ভাবনার তুলনায় ব্রাজিল বা ক্লাব ফুটবলে অবদান রাখতে পারেননি তিনি। যুগের সেরাদের তালিকায় নেইমারের নাম আসে, বর্তমান ব্রাজিল ফুটবল দলেরও পোস্টারবয় তিনিই। ১০ নম্বর জার্সি গায়ে খেলবেন বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলার নেইমার। আর লিওনেল মেসি এই লাইন আপের ঔজ্জ্বল্য বহুগুণে বাড়িয়েছেন, ছয়টি ব্যালন ডি অর জেতা এই ফুটবলারের জন্য এটা একেবারেই নতুন এক অভিজ্ঞতা।

নতুন মৌসুমে পরিকল্পনা কীভাবে সাজান দলটির আর্জেন্টাইন কোচ মরিসিও পচেত্তিনো সেটা সময়ই বলে দেবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD