পর্দা নামলো টোকি‌ও অলিম্পিক গেমসের

পর্দা নামলো টোকি‌ও অলিম্পিক গেমসের

কেনিয়ার এলিউড কিপচোগের ম্যারাথনে শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখার মধ্যদিয়ে শেষ হলো জাপান অলিম্পিক গেমস। ‘দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের’ সমাপনী অনুষ্ঠান উদযাপনে অলিম্পিক স্টেডিয়ামে, জাপানের ক্রাউন প্রিন্স আকিশিনো আসেন আইওসি প্রেসিডেন্ট থমাস বাখকে সঙ্গে নিয়ে। বিদায় বেদনায় ভরা থাকলেও ২০২৪ সালে প্যারিসে দেখা হওয়ার আহ্বান ছিলো সমাপনী অনুষ্ঠানে। ৩৯টি স্বর্ণ পদক জিতে শেষ দিনে চীনকে টপকে সবার শীর্ষে উঠে যায় যুক্তরাষ্ট্র। তৃতীয় হয়েছে জাপান।

কখনো আলোকোজ্জ্বল, কখনো নৈপূণ্য ভাস্কর। আবার কখনো ক্লান্তিকর, কখনোবা রুদ্ধশ্বাস উত্তেজনার চরমে ছিলো টোকিও অলিম্পিক গেমস।

শত প্রতিবন্ধকতা থাকলেও, চাইলেই ভালো কাজ করা অসম্ভব নয়, আমাদের চৈতন্যে এমনটাই জানান দিয়ে গেলো, এবারের ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’। হাসি-কান্না-আনন্দ-বেদনার মহামারীময় এই গেমসে হয়েছে রেকর্ড ভাঙা-গড়ার খেলা। করোনাময় এই নাজুক সময়ে আয়োজন করায়, জাপানবাসীর বিরোধিতা সত্ত্বেও বিশ্ববাসী দেখলেন একটি চমকপ্রদ গেমসের সফল পরিসমাপ্তি।

গেমসের সমাপ্তি ঘোষণার আগে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রেসিডেন্ট টমাস বাখ গেমসের প্রশংসা করে বলেন, 'মহামারী শুরুর পর প্রথমবারের মতো পুরো বিশ্ব এই টোকিও অলিম্পিক গেমসের মাধ্যমে একত্রিত হয়েছিলো। আপনারা শ্রেষ্ঠত্ব দিয়ে, আনন্দাশ্রু দিয়ে টোকিও অলিম্পিককে মহিমান্বিত করেছেন। আমি এই গেমসের সমাপ্তি ঘোষণা করছি। তিনবছর পর ২০২৪ সালে প্যারিসে বিশ্বের কোটি কোটি মানুষ আবেগ আর আনন্দ নিয়ে উপভোগ করবে ৩৩তম অলিম্পিয়াড।'

টোকিও অলিম্পিকের সমাপনী অনুষ্ঠানটি আরো স্মরণীয় করে রাখার জাপানের ইতিহাস-ঐতিহ্য ফুটিয়ে তোলেন শিল্পী ও কলাকুশলীরা। ফুটিয়ে তোলেন মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লে। শেষে আতশবাজির বর্ণিলচ্ছটায় রঙিন হয়ে ওঠে টোকিও অলিম্পিক স্টেডিয়ামের রাতের আকাশ।

নাওমি ওসাকা যে গেমসের মশাল জ্বালিয়েছিলেন, বিশ্বব্যাপি ১৭দিন আনন্দ লহরি ছড়িয়ে সেই গেমসের পর্দা নামলো এবার। অ্যাথলেটরা আশায় বুক বাঁধবেন, ২০২৪ সালে প্যারিস অলিম্পিকের জন্য। যেখানে নিজেদের পারফরমেন্সে তাক লাগিয়ে দেবেন বিশ্বকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD