তিন ফিফটিতে দিন পার বাংলাদেশের

তিন ফিফটিতে দিন পার বাংলাদেশের

জিম্বাবুয়ে-বাংলাদেশ সিরিজ

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের শুরুর দিনে প্রতি সেশনেই ভুগতে হয়েছে বাংলাদেশ দলকে। প্রথম দুই সেশনে সমান ৩টি করে ৬টি উইকেট হারিয়েছে টাইগাররা। পরে লিটন দাস ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ গড়েন ১৩৮ রানের পার্টনারশিপ। তবুও শেষ সেশনে ২ উইকেট হারিয়েছে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। বাকিদের ব্যর্থতার দিনে লিটন, রিয়াদের সঙ্গে অধিনায়ক মুমিনুল হকের ফিফটিতে তিনশ'র কাছাকাছি রান তুলেছে বাংলাদেশ। প্রথম দিনশেষে মুমিনুলদের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২৯৪ রান।

হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে একমাত্র টেস্টে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। তামিম ইকবালের ইনজুরিতে ভাগ্য খোলে সাদমান ইসলামের। তবে সুবিধা করতে পারেননি এই ওপেনার। ফিরেছেন ২৩ রান করে। তার আগেই আরেক ওপেনার সাইফ হাসান রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফেরেন। তিনে নেমে নাজমুল হোসেন শান্ত ২ রানে আউট হলে ৩ উইকেট হারিয়ে ৭০ রান তুলে প্রথম সেশনের খেল শেষ করে টাইগাররা।

দ্বিতীয় সেশনে নেমে ইনিংসের ২৭তম ওভারে নিজের টেস্ট ক্যারিয়ারের ১৪তম ফিফটি তুলে নেন মুমিনুল হক। আউট হন ৭০ রান করে। ৯২ বল খেলে ১৩টি চার মারেন তিনি। মুমিনুলের আগেই সাজঘরের পথ ধরেন মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হসান। ১১ রানে থাকা মুশফিককে লেগ বিফোরের ফাদে ফেলে ফেরান জিম্বাবুয়ান পেসার মুজারাবানি। সাকিব আউট হন ৩ রান করে। ভিক্টর নিয়াউচির করা অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের বল খেলতে গিয়ে উইকেটের পিছনে ধরা পড়েন তিনি।

১৩২ রান তুলতেই ৬ উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে বাংলাদেশ দল। সেখান থেকে হাল ধরেন লিটন ও মাহমুদউল্লাহ। সপ্তম উইকেটে দুজনের পার্টনারশিপ থেকে আসে ১৩৮ রান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বরাবরই বড় ইনিংস খেলতে ভালোবাসেন লিটন। এবারও দলের দুঃসময়ে দেওয়াল হয়ে দাঁড়ালেন তিনি। খেললেন টেস্ট ফরম্যাটে নিজের ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। তবুও আক্ষেপ লিটনের। সেঞ্চুরির জন্য মাত্র ৫ রান দূরে থেকে ৯৫ রান করে আউট হন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

ইনিংসের ৭৯তম ওভারে ডোনাল্ড তিরিপানোর বলে সাজঘরে ফেরেন লিটন। ১৪৭ বলের ইনিংসটি সাজান ১৩টি বাউন্ডারির সাহায্যে। এর আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সর্বোচ্চ ৯৪ রান ছিল তার। আজ আক্ষেপ নিয়ে মাঠে ছাড়ার দিনে ৯৫ রানের ইনিংসটি সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের ইনিংস। লিটন আউট হলে পরের বলেই সাজঘরে ফেরেন নতুন ব্যাটসম্যান মেহেদী হাসান মিরাজ। ১৬ মাস পর টেস্টে খেলতে নেমে রানের দেখা পেয়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। প্রায় ২৭ মাস পর ফিফটির দেখা পেয়েছেন তিনি।

আলো স্বল্পতায় ৭ ওভার আগেই দিনের খেলা শেষ হয়। ৮ উইকেট হারানো বাংলাদেশ দলের সংগ্রহ ২৯৪ রান। আগামীকাল বৃহস্পতিবার ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে মাহমুদউল্লাহ ৫৪ ও তাসকিন আহমেদ ১৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD