টোকি‌ও অলিম্পিকের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন

টোকি‌ও অলিম্পিকের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন

করোনা মহামারির কারণে বহু মানুষকে হারিয়েছে এই পৃথিবী। তাঁদের উদ্দেশে সমবেদনা জানিয়ে শুরু হলো টোকি‌ও অলিম্পিক গেমস। হলো ৩২তম অলিম্পিক গেমসের বর্নাঢ্য উদ্বোধন। গত বছর হওয়ার কথা থাকলেও করোনার জন্যই পিছিয়ে যায় অলিম্পিক গেমস। বহু অপেক্ষা ‌ও নানা অসঙ্গতি নিয়েই শুক্রবার থেকে শুরু হলো প্রতিযোগিতা।

দর্শকহীন স্টেডিয়ামেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবারের অলিম্পিক্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। ভিলেজের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ায় শেষ মুহূর্তেও অলিম্পিক বাতিল হতে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল আয়োজক প্রধানের কথায়। তবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আপাতত স্বস্তি দিল ক্রীড়াপ্রেমীদের।
 
বর্ণিল আলোকসজ্জা, জাপানের নানা সংস্কৃতি ফুটিয়ে তোলার মধ্যদিয়ে পর্দা উঠল টোকিও অলিম্পিকের। উদ্বোধন ঘোষণা করেন জাপানের রাজা নারুহিতো। করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে সতর্কতা অবলম্বন করে আনুষ্ঠানিকভাবে পর্দা উঠলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক ক্রীড়াযজ্ঞের। সাদা ও নীল আতশবাজির ঝলকানিতে বর্ণিল রূপ ধারণ করে টোকিওর আকাশ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জাপানের রাজা নারুহিতো ছাড়া ছিলেন আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রধান থমাস বাখসহ হাতে গোনা কিছু অতিথি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রো ও মার্কিন ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেন।

জাপানের টেনিস তারকা নাওমি ওসাকার হাতে জ্বলে উঠে অলিম্পিক মশাল। উইম্বলডন থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেও অলিম্পিকে নামবেন এই তারকা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁর হাতেই জ্বলে উঠে গেমসের মশাল।

শুরুতেই জাপানের প্রতিনিধিরা পতাকা হাতে স্টেডিয়ামের মাঠে ঢোকেন। তারপর করোনায় বিশ্বজুড়ে প্রাণ হারানো মানুষদের স্মরণে নীরবতা পালন করা হয়। ৬৮ হাজার আসনে নতুন জাতীয় স্টেডিয়াম খাঁ খাঁ করছে দর্শকশূন্যতায়। টোকিওতে এবারের গেমসে সব ভেন্যুতে নিষিদ্ধ করা হয়েছে দর্শকদের। টয়োটা ও প্যানাসনিকসহ গেমসের শীর্ষ স্পন্সরগুলো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাদের প্রতিনিধি পাঠায়নি। অনেক আগেই জাপানিরা এই গেমস আয়োজনের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন। তবে সব বাধা উপেক্ষা করে ১৫ দিনের এই ক্রীড়াযজ্ঞ শুরু হতে যাচ্ছে। এরই মধ্যে সফটবল, ফুটবল ও আর্চারির লড়াই শুরু হয়েছে।

১১ হাজারের বেশি অ্যাথলেট এই প্রতিযোগিতায় নামছেন ৩৩৯টি স্বর্ণ পদকের জন্য। এরই মধ্যে গেমস ভিলেজে ঢুকে পড়েছে করোনা। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১০৬। তবে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে এই আয়োজন শেষ করতে বদ্ধপরিকর আয়োজক কমিটি। করোনা উদ্বেগের মধ্যে ব্রাজিল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কেবল তাদের পতাকা বাহককে পাঠিয়েছে।

তবে অনুষ্ঠানে কী হচ্ছে তা দেখতে অলিম্পিক স্টেডিয়ামের বাইরে শতাধিক মানুষের উপস্থিতি দেখতে পাওয়া গেছে। কিছু মানুষ এসেছিলেন গেমস আয়োজনের বিরোধিতা করতে। বিতর্কিত মন্তব্যে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ডিরেক্টর কেনতারো কোবায়াশি বরখাস্ত হন গতপরশু। কর্মকর্তারা জানান, তার বরখাস্তের প্রভাব পড়েনি অনুষ্ঠানে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD