দিল্লিকে হারিয়ে আইপিএলে টিকে রইল হায়দরাবাদ

দিল্লিকে হারিয়ে আইপিএলে টিকে রইল হায়দরাবাদ

দিল্লির বিরুদ্ধে ৮৮ রানের বড় জয় পেলো হায়দরাবাদ। তাতে টিকে রইল তাদের আইপিএলে প্লে অফে খেলার স্বপ্ন। দুবাইয়ে ব্যাট হাতে ‘সুপারম্যান’ হয়ে উঠলেন ঋদ্ধিমান সাহা। ভাগ্য সহায় না হওয়ায় মঙ্গলবার নিশ্চিত সেঞ্চুরি মাঠে ফেলে এলেন। ডেভিড ওয়ার্নার এবং ঋদ্ধির জন্য হায়দরাবাদ ২০ ওভারে করল ২১৯ রান। সেই রান তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই উইকেট পড়ল দিল্লির। শেষ পর্যন্ত শ্রেয়াস আইয়ারের দল থামল ১৩১ রানে।

ওয়ার্নারের সঙ্গে ব্যাটিং ওপেন করতে নামেন ঋদ্ধিমান সাহা। সহজ, সাবলীল ইনিংস দেখে কে বলবে দ্বিতীয় ম্যাচ খেলছেন বাংলার উইকেটকিপার। দিল্লি বোলারদের ছন্দ নষ্ট করার কাজটা প্রথমে শুরু করেন ঋদ্ধিই। ওয়ার্নার ঝড় তুলে ফেরার পরে তাণ্ডব শুরু করেন তিনি। হায়দরাবাদের রানের গতি কোনও সময়তেই কমতে দেন নি। রাবাদা-নরতিয়ের মতো দ্রুতগামী বোলারদের নিয়ে ছেলেখেলা করেন তিনি। ৪৫ বলে ৮৭ রানের ইনিংসে তাই ম্যাচের সেরা ঋদ্ধিমান সাহা।

অথচ এই ম্যাচ দিল্লির কাছে ছিল শীর্ষে পৌঁছনোর। জিতলেই প্লে অফেরও টিকিট পেয়ে যেত শ্রেয়াসের দল। কিন্তু অন্য কিছু ভেবেছিলেন ওয়ার্নাররা। মনে প্রাণে চেয়েছিলেন প্রথমে ব্যাট করতে। প্রথমে ব্যাট করে স্কোর বোর্ডে বড় রান করাই ছিল লক্ষ্য। শ্রেয়াস আইয়ার টস জিতে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠান হায়দরাবাদকে।

৬ ওভারে ওয়ার্নার ও ঋদ্ধির দাপটে ৭৭ রান করে ফেলে হায়দরাবাদ। শুরুর দিকে ঋদ্ধির সামনে ওয়ার্নারকে ম্লান দেখালেও, পরে অজি ওপেনার নিজের ছন্দে ফেরেন। ২৫ বলে ৫০ পূর্ণ করেন। দুই ওপেনার ১০৭ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। অশ্বিনের বলে ব্যক্তিগত ৬৬ রানে আউট হন ওয়ার্নার।

ওয়ার্নার ফেরার পরে দিল্লি বোলারদের শাসন করতে থাকেন ঋদ্ধিমান। নরতিয়ের পেসে ঠকে না গেলে এ দিন সেঞ্চুরিও করতে পারতেন তিনি। আউট হওয়ার আগে মাণীশ পাণ্ডের সঙ্গে জুটিতে ৬৩ রান যোগ করেন। শেষ পর্যন্ত মাণীশ পাণ্ডে (৪৪) ও কেন উইলিয়ামসন (১১) হায়দরাবাদকে পৌঁছে দেন ২০ ওভারে ২১৯ রানের বিশাল স্কোরে।

হায়দরাবাদের পাহাড়প্রমাণ এই রান তাড়া করতে নেমে প্রথম ওভার থেকেই উইকেট পড়ে দিল্লির। ফর্মে থাকা শিখর ধাওয়ান খাতা না খুলেই আউট। দ্রুত রান তোলার জন্য আগে পাঠানো হয়েছিল স্টোইনিসকে। তিনিও বেশি ক্ষণ টেকেননি। নিজের প্রথম ওভারেই হেটমায়ার (১৬) ও অজিঙ্ক রাহানেকে (২৬) ফিরিয়ে দিয়ে দিল্লিকে আরও সমস্যায় ফেলেন রশিদ খান। অধিনায়ক শ্রেয়াস আইয়ার (৭) ব্যর্থ। ঋষভ পান্ট দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৬ রান করেন। বাকিরা কেউই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেন নি।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD