কোহলিরদের বিরাট জয়

কোহলিরদের বিরাট জয়

শারজায় ‘বিরাট’ জয় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের। কোলকাতা নাইট রাইডার্সকে ৮২ রানে হারাল বিরাট কোহালির দল। নির্ধারিত ২০ ওভারে ব্যাঙ্গালোর করেছিল ২ উইকেটে ১৯৪ রান। জবাবে আরসিবির বোলিংয়ের সামনে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়া কেকেআর ১১২ রানেই থেমে যায়।

সুনীল নারায়নের বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় কেকেআর ক্যারিবিয়ান তারকাকে খেলানোর ঝুঁকি নেয়নি। তার বদলে দলে ঠাঁই পান ইংল্যান্ডের মারকুটে ব্যাটসম্যান টম ব্যান্টন। প্রথমবার মাঠে নেমে এই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেন নি তিনি। আগের ৩ ম্যাচে ওপেন করা রাহুল ত্রিপাঠীকে নামানো হল ৭ নম্বরে। রাসেল আবার‌ও নামলেন ৬ নম্বরে। কিন্তু তাতে ফলাফলের কোনো পরিবর্তন হলো না। যথারীতি ব্যর্থ তারা।

টস জিতে শারজায় সোমবার প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বিরাট কোহলি। শুরুটা ভালই করেছিল আরসিবি। উদ্বোধনী জুটিতে ৬৭ রান ওঠে। জুটি ভাঙেন আন্দ্রে রাসেল। তিনি ফেরান দেবদত্ত পাডিক্কালকে (‌৩২)‌। রান পেলেন অ্যারন ফিঞ্চ। ৩৭ বলে চার চার ‌ও এক ছক্কায় করেন ৪৭ রান। অসি অধিনায়ককে বোল্ড করেন প্রসিধ কৃষ্ণা। ম্যাচের বাকিটা এবি ডি’‌ভিলিয়ার্সের। প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান ৩৩ বলে করেন অপরাজিত ৭৩। ইনিংসে রয়েছে ৫টি চার ও ৬টি ছয়। আর বিরাট কোহলি অপরাজিত থাকেন ২৮ বল ৩৩ রান করে। ২০ ওভার শেষে আরসিবি তোলে ২ উইকেটে ১৯৪ রান। এবিডি’‌র দুরন্ত ব্যাটিংয়ের সঙ্গে কেকেআর ব্যাটসম্যানদের ভরাডুবিই নাইটদের হারের কারণ।

শারজার ছোট মাঠের কথা ভেবে কলকাতা এক স্পিনারে খেলায়। প্রথম একাদশে বরুণ চক্রবর্তী ভালো বল করেন। তবে কুলদীপ যাদবের জায়গা হয়নি দলে। কৃষ্ণা ও রাসেল একটি করে উইকেট পেলেও অনেক রান দেন।

১৯০-র বেশি রান তাড়া করে জিততে গেলে শুরুটা ভালো হতে হয়। কেকেআর সেখানেই ব্যর্থ। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়তে থাকায় রানের গতি কখনোই বাড়ানো যায়নি। শুভমান গিল (‌৩৪)‌ ছাড়া বাকিরা ব্যর্থ। আরসিবির দুই স্পিনার ওয়াশিংটন সুন্দর ২০ রানে ২ উইকেট ও যজুবেন্দ্র চাহাল ১২ রানে ১ উইকেট তুলে নেন। ক্রিস মরিস নেন ২ উইকেট। কলকাতার ইনিংস থামে ৯ উইকেটে ১১২ রানে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD