শ্রীলঙ্কায় ভাল কিছু করার ভাল সুযোগ আছে: তামিম

শ্রীলঙ্কায় ভাল কিছু করার ভাল সুযোগ আছে: তামিম

শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজে ভালো কিছু করার সুযোগ আছে বলে মনেকরেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ‌ও ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল। এছাড়া চারমাসের ঘরবন্দি সময় পেছনে ফেলে অনুশীলনে ফিরতে পেরে অন্য সবার মতোই তিনি‌ও উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন।

করোনাকালের এই সময়টাতে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে সবচেয়ে কঠিন গেছে তামিম ইকবালের। মা, বড় ভাই ও ভাইয়ের স্ত্রী এবং ভাতিজি-ভাতিজা সবাই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তামিম নিজেও শারীরিক সমস্যায় পড়েছিলেন। চিকিৎসার জন্য তাকে ইংল্যান্ড পর্যন্ত যেতে হয়েছে। তবে সব সঙ্কট কাটিয়ে জাতীয় দলের বাকিদের মতো তামিমও ফিরেছেন একক অনুশীলনে।

গতকাল রোববার মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে করোনাকালের এই সময়টায় প্রথমবারের মতো একক অনুশীলনে অংশ নেন। আজ সোমবারও এসেছিলেন। এদিন নিজের করোনাকালের কঠিন অভিজ্ঞতা এবং মাঠে ফেরার স্বস্তির বিস্তারিত জানান তামিম।

তিনি বলেন, ‘প্রায় চার-পাঁচ মাস পরে অনুশীলনে ফিরলাম। ভেবেছিলাম ব্যাটিংয়ের ক্ষেত্রে একটু বেশি জড়তা থাকবে। তবে আশ্চর্যই বলতে হবে ব্যাটিং করতে নেমে তেমন কিছু মনে হলো না আমার। ব্যাটিংটা মোটামুটি ঠিকই আছে। ফিটনেসের দিক থেকেও আমি ভাল অবস্থায় আছি। বাসায় ট্রেডমিলে নিয়মিত ফিটনেস ঠিক রাখার চেষ্টা করেছি। তবে বাসার ট্রেডমিলে আর মাঠের খোলা বাতাসে ফিটনেসের সেশন পুরোপুরি আলাদা। সবকিছুর সঙ্গে মানিয়ে নিতে সপ্তাহখানেক সময় হয়তো লাগবে। যেভাবে নিয়ম মেনে সামনে বাড়ছি আমরা, আশা করি সবকিছুই ইতিবাচক হবে। এখন তো সবাই জানি যে আমাদের খেলা কখন শুরু হবে, সেই অনুযায়ী সবাই সবার প্রস্তুতি নিচ্ছে।’

ক্রিকেট শুরুর পর এক নাগাড়ে এত লম্বা সময়ে কখনো পরিবারের সঙ্গে কাটাননি তামিম। তবে সেই অভিজ্ঞতা তার কাছে সুখকর না বরং কঠিন বলেই মনে হয়েছে। তামিম জানান, ‘পেছনের এই সময়টা আমাদের সবার বেশ কঠিনই গেছে। সবাই বাসায় ছিল। পরিবারের সঙ্গে ছিল। কিন্তু একটা মানসিক চাপ তো অবশ্যই ছিল। বাসা থেকে বের হতে পারছি না। খেলায় যেতে পারছি না। সবাই নিজের এবং পরিবারের সদস্যদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে চিন্তিত ছিল। তবে এখন আমরা যে কাজের মানুষ, অর্থাৎ খেলায় ফিরে আসতে পেরেছি, তাতে বেশ লাগছে। স্বস্তি মিলছে।’

করোনাকালের ক্রিকেটহীন এই সময়টায় বিসিবি ক্রিকেটারদের মানসিকভাবে চাঙ্গা রাখতে বেশকিছু কার্যকর উদ্যোগ নিয়েছিল। সেই সেশন ক্রিকেটারদের বেশ ভাল কাজে লেগেছে উল্লেখ করে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক জানান, ‘এই চার-পাঁচ মাসে বিসিবি অনলাইনে আমাদের বেশ কয়েকটি সেশন ঠিক করে দিয়েছিল। আমি তাতে অংশ নিয়েছিলাম। সেই সেশন আমাদের সবাইকে খুব ভাল সহায়তা করেছে। এখন মানসিকভাবে সবাইকে আরো ভাল প্রস্তুতি নিতে হবে। সামনে আমাদের বড় সিরিজের সফর আসছে। শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজে আমাদের ভাল কিছু করার ভাল সুযোগ আছে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD