কন্ডিশনিং ক্যাম্পের আগেই ক্রিকেটারদের করোনা পরীক্ষা

কন্ডিশনিং ক্যাম্পের আগেই ক্রিকেটারদের করোনা পরীক্ষা

আসন্ন শ্রীলংকা সফরকে সামনে রেখে কন্ডিশনিং ক্যাম্পের জন্য ডাক পাওয়া সব ক্রিকেটারকে কোভিড-১৯ ভাইরাসের পরীক্ষা করাবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামুদ্দিন চৌধুরীর মতে শ্রীলংকার সফরসুচি চুড়ান্ত করার ভিত্তিতেই কন্ডিশনিং ক্যাম্পের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। নিজামুদ্দিন বলেন, ‘কন্ডিশনিং ক্যাম্পের তারিখ এখনো চুড়ান্ত হয়নি। শ্রীলংকা সফরের সুচি চুড়ান্ত করার পরই কেবল কন্ডিশনিং ক্যাম্পের দিনক্ষণ ঠিক করা হবে।' তাছাড়া সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল শ্রীলংকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

নিজামুদ্দিনের মতে আসন্ন সফরে নির্ধারিত তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের সাথে অক্টোবর-নভেম্বরে তিন ম্যাচের একটি টি-২০ সিরিজও হতে পারে।

বিসিবির এই শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা বলেন, ‘প্রত্যোক খেলোয়াড়ের জন্য কোভিড-১৯ পরীক্ষা বাধ্যতামুলক। কন্ডিশনিং ক্যাম্প শুরুর পরই আমরা কেবল তাদেরকে টেস্ট ও আইসোলেশনের ব্যবস্থা করতে পারব। কোভিড-১৯ টেস্ট করার পরই তারা আবাসিক ক্যাম্পে প্রবেশের অনুমতি পাবে।’ কোভিড-১৯ অ্যাপসের মাধ্যমে বিসিবি খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্যগত বিষয়গুলো নিবিড় ভাবে পর্যবেক্ষণ করছেন বলেও উল্লেখ করেন নিজামুদ্দিন।

তিনি বলেন, ‘কোভিড-১৯ সুস্থতা’ নামের অ্যাপস দিয়ে আমাদের চিকিৎসা বিভাগ নিয়মিত ভাবে খেলোয়াড়দের তদারকি করে চলেছে। এই অ্যাপসটি খেলোয়াড়দের অসুস্থতা ও সমস্যা শনাক্ত করতে কার্যকরি ভুমিকা রাখছে। তাই এই অ্যাপসের কল্যানে সবকিছু এখনো পর্যন্ত ভালভাবেই এগিয়ে চলেছে।'

বিসিবির এই নির্বাহী বলেন, তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের সঙ্গে তিনটি টি-২০ ম্যাচ আয়োজনেরও প্রস্তাব দেয়া হয়েছে লংকাকে। তবে সেটি এখনো চুড়ান্ত হয়নি। তিনি বলেন, ‘টেস্ট সিরিজের সঙ্গে তিনটি টি-২০ ম্যাচেরও প্রস্তাব করা হয়েছে। এটি নিয়ে লংকান বোর্ডের সঙ্গে অভ্যন্তরীন আলাপ আলোচনা চলছে। সেটি চুড়ান্ত হবার সঙ্গে সঙ্গে চুড়ান্ত সফরসুচি ঘোষণা করা হবে।’

পুর্বের সুচি মোতাবেক তিন ম্যাচের টেস্ট এর সময় ছিল জুলাই-আগস্টে। যেটি গত জুনে বিসিবি ও লংকান বোর্ড যৌথ আলোচনার মাধ্যমে নির্ধারন করেছিল। লংকানরা করোনা ভাইরাসকে সে দেশে নিয়ন্ত্রনে রাখতে সক্ষম হওয়ায় নির্ধারিত সুচিতেই টেস্টটি আয়োজন করতে চেয়েছিল। কিন্তু করোনার কারণে টাইগাররা ঘরের মধ্যে অবস্থানে বাধ্য হওয়ায় প্রস্তুতির ঘাটতিতে পড়ে বাংলাদেশ। ফলে ওই সুচি রক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

করোনাজনিত সংকটের কারণে এশিয়া কাপ ও আইসিসি টি-২০ বিশ্বকাপ স্থগিত হওয়ায় নতুন করে সুযোগ পেয়ে যায় দেশ দুটি। কোভিড-১৯ এর কারণে বাংলাদেশ আরো বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সুচি থেকে বঞ্চিত হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD