নারী বিশ্বকাপের স্বাগতিক নাম ঘোষণা কাল

নারী বিশ্বকাপের স্বাগতিক নাম ঘোষণা কাল

২০২৩ নারী ফিফা বিশ্বকাপের জন্য অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড যৌথভাবে বিডে অংশ নিয়েছে। তাদের বিপক্ষে বিডে একমাত্র দেশ হিসেবে রয়েছে কলম্বিয়া। আগামীকাল বৃহস্পতিবার ফিফা কাউন্সিলে এ ব্যপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। ধারনা করা হচ্ছে ২০২২ পুরুষ বিশ্বকাপ আয়োজনের স্বত্ব পেতে অস্ট্রেলিয়া যেভাবে কোটি কোটি ডলার ব্যয় করেও সফল হতে পারেনি এবার নারী ফুটবলের ক্ষেত্রে তা হবে না।

সোমবার ২০১১ নারী বিশ্বকাপ বিজয়ী জাপান বিড থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছে। আর সে কারণেই বড় প্রতিদ্বন্দ্বী চলে যাওয়ায় অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডকেই ফেবারিট হিসেবে মানা হচ্ছে।

গত বছর ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত নারী বিশ্বকাপ ছিল ফিফার ইতিহাসে নারীদের একটি সফল টুর্নামেন্ট। বিশ্বজুড়ে প্রায় ১.১২ বিলিয়ন মানুষ নারীদের এই আসর উপভোগ করেছিল। পরবর্তী বিশ্বকাপে এই প্রথমবারের মত ২৪ থেকে বাড়িয়ে ৩২ দেশ করা হয়েছে। যে কারণে আয়োজকদের ওপর চাপটা অন্য পর্যায়ে চলে গেছে।

অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড দুটি দেশেরই বড় ইভেন্ট আয়োজনের অভিজ্ঞতা রয়েছে। ফিফার পর্যবেক্ষন রিপোর্ট অনুযায়ী তাদের বিডকে বেশ শক্তিশালী হিসেবেই বিবেচনা করা হচ্ছে।

অস্ট্রেলিয়া ফুটবল ফেডারেশনের চেয়ারম্যান ক্রিস নিকো বলেছেন, ‘যখন কেউ আমাদের বিডের দিকে তাকাবে তখন এর প্রতি সর্বোচ্চ ভোট পড়তে বাধ্য। অবকাঠামো, সুযোগ-সুবিধা, সবদিক থেকে ফিফার কাছে এর গ্রহনযোগ্যতা রয়েছে। নারীদের ক্ষেত্রে একটি বিষয় সত্যিকার অর্থেই বলা যায় অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ড ভ্রমনের জন্যও দারুণ দুটি জায়গা। সে কারণেই পুরো প্যাকেজ বিবেচনায় এটি একটি পরিপূর্ণ বিড।’

২০১০ সালে মাত্র এক ভোটের জন্য কাতারের কাছে পুরুষ বিশ্বকাপের স্বত্ব হারিয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। যদিও এই বিড নিয়ে পরবর্তীতে যথেষ্ট সমালোচনা হয়েছে। ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা হিসেবে ফিফার বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ ওঠে।

নিকো জানিয়েছেন এবারের প্রেক্ষাপটটা সম্পূর্ণ ভিন্ন। ফিফা নতুন সভাপতি গিয়ান্নি ইনফান্তিনো এবং এর নতুন সংবিধানের ওপর সকলেরই আস্থা রয়েছে। প্রতিটি ভোটই এখানে গুরুত্ব বহন করবে। তিনি আরো বলেন, ‘দুটি ভিন্ন আমলের কথা তুলনা করলে আমার মনে হয় এখানে আপেলের সাথে কমলার তুলনা করা হচ্ছে। ফিফা এখন স্বচ্ছতার ব্যপারে দারুন কঠোর। পুরো প্রক্রিয়াটি এখানে উন্মুক্ত যা সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ।’

নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া যদি বিডে জয়ী হতে পারে তবে সিডনি অলিম্পিকের ২০ বছর পর এখানে ক্রীড়ার সবচেয়ে বড় কোন ইভেন্ট আয়োজিত হতে যাচ্ছে।

দুটি দেশ ১২টি শহরে এই টুর্নামেন্ট আয়োজনের পরিকল্পনা করেছে। অকল্যান্ডে উদ্বোধনী ম্যাচ হলেও ফাইনাল হবে সিডনিতে। টিকিটের দামও মাত্র ৫ মার্কিন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রায় দেড় মিলিয়ন সমর্থকের উপস্থিতি আশা করছে আয়োজকরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD