থুথুর বিকল্প খুঁজছে বাংলাদেশী বোলাররা

থুথুর বিকল্প খুঁজছে বাংলাদেশী বোলাররা

উজ্জ্বলতা ধরে রাখতে বলে থুথু ব্যবহারে আইসিসি ক্রিকেট কমিটির নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাবের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ দলের কোচ ও বোলাররা বলেছেন সিদ্বান্তটি কার্যকর হলে ক্রিকেটে টিকে থাকার জন্য নতুন উপায় খুঁজে বের করতে হবে। কোভিড-১৯ ভাইরাসের ঝুঁকি হ্রাস করতে এবং খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে বেশ কিছু পরিবর্তন আনবে আইসিসি।

থুথুর মাধ্যমে ভাইরাসের সংক্রমন বিস্তারে অত্যন্ত ঝুঁকির বিষয়ে আইসিসির মেডিকেল উপদেষ্টা কমিটির চিকিৎিসক পিটার হারকোর্টের কাছ থেকে বিস্তারিত শুনে আইসিসি ক্রিকেট কমিটির প্রধান ভারতের অনিল কুম্বলে বলে থুথু ব্যবহার নিষিদ্ধ করার পরামর্শ দিতে সম্মত হন।

কমিটি তাদের মেডিকেল পরামর্শে বলেছে, ঘামের মাধ্যমে সংক্রমন হবার সম্ভাবনা নেই এবং ঘাম দিয়ে বল পলিশ করার ব্যবহার নিষিদ্ধ করার দরকারও নেই, কিন্তু নিরাপদ স্বাস্থ্যকর পদক্ষেপের সুপারিশগুলো খেলার মাঠে ও তার আশেপাশে বাস্তবায়িত করা হয়।

বাংলাদেশের সবচেয়ে খ্যাতিমান কোচ সারওয়ার ইমরান বলেন, বলের ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে ঘামের ব্যবহার কার্যকর হতে পারে, তবে বিশ্বের অনেক বোলারই আবার এতে কোন কার্যকারীতা দেখেন না। ইমরান বলেন, ‘আমার খেলোয়াড়ি জীবনে, আমি বলের এক পাশ উজ্জল রাখতে কখনো থুতু ব্যবহার করিনি। তবে আমি বলটি আমার ট্রাউজারে ঘষতাম।’

২০০০ সালে ভারতের বিপক্ষে অভিষেক টেস্টে বাংলাদেশ দলের কোচের দায়িত্ব পালন করা ইমরান বলেন, ‘ঘাম উপকারী হতে পারে। যদিও আধুনিক সময়ে, বোলাররা থুথু ব্যবহার করে, কিন্তু আমাদের সময়ে এটি ব্যবহারের কথা ভাবিনি। তবে বোলাররা ঘাম ব্যবহার করতো। হ্যাঁ, যে দেশে গ্রীষ্মের মৌসুম স্বল্প মেয়াদের, সেখানে বোলাররা ঘামের অভিজ্ঞতা পান না। তাই ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকার বোলাররা কখনো ঘাম ব্যবহারের চিন্তা করেন না। ’

পেস বোলার হিসেবে খেলা ইমরান মনে করেন, থুথু ব্যবহার নিষিদ্ধ হলে বোলাররা লড়াই করার জন্য অবশ্যই কোন উপায় খুঁজে পাবে। ‘বোলাররা অবশ্যই নতুন কোন উপায় বের করবে। বিশ্বে পরিবের্তন হয়েছে, সুতরাং ক্রিকেটেও হবে’ বলে উল্লেখ করেন তিনি। কারণ ব্যাটসম্যান-বোলারদের যুদ্ধের জন্য সুইং ও রির্ভাস সুইং অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। টেস্ট ক্রিকেটে থুথু ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আধুনিক যুগে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে, বেশিরভাগ বোলারই স্লোয়ার ডেলিভারি, কাটারের উপর নির্ভর করে। ইর্য়রকারে বলে এক পাশের উজ্জলতার খুব বেশি গুরুত্বপূর্ন নয়।

ঘরোয়া ক্রিকেটে বিভিন্ন ক্লাবে কোচের দায়িত্ব পালন করা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন, থুুথু ব্যবহার করে বল যতটা উজ্জল করা যায়, ঘামে তা করা যায় না। তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি বল উজ্জল করার জন্য থুথুই নর্বোত্তম পন্থা। হ্যাঁ আপনি ঘাম ব্যবহারের কথা বলতে পারেন আমি অভিজ্ঞতা থেকে বলছি এতে বল ভারী হয়ে যেতে পারে।’

লংগার ভার্সনের বাংলাদেশ দলের নিয়মিত পেসার এবাদত হোসেন বলেন থুথু ব্যবহার না করে টেস্ট ক্রিকেটে টিকে থাকা কঠিন হবে। এবাদত বলেন, ‘থুথু ছাড়া টেস্ট ক্রিকেটে টিকে থাকা কঠিন হবে। তবে আইসিসি যদি এটি নিষিদ্ধ করে, তবে আমাদের টিকে থাকতে হলে নতুন উপায় খুঁজে বের করতে হবে। নতুন পদ্ধতিতে বল উজ্জল করা বিষয়টি অভ্যাসে পরিণত করতে হবে।’

বাংলাদেশের আরেক পেসার তাসকিন আহমেদ, বল উজ্জল করার বিকল্প পদ্ধতি হিসেবে নতুন উপায় সন্ধানের উপর জোর দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ক্রিকেটে খেলার ধরন ও নীতি বারবার পরিবর্তন হচ্ছে। এটিও অন্য একটি পরিবর্তন, তাই এটির জন্য আমাদের অভ্যাস থাকতে হবে। আমি মনে করি, বোলারদের টিকে থাকার জন্য একটি বিকল্প উপায় উদঘাটিত হবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD