রিংয়ে ফিরছেন মাইক টাইসন!

রিংয়ে ফিরছেন মাইক টাইসন!

আবার রিংয়ে ফিরছেন মাইক টাইসন! নিজেই সেই খবর জানিয়েছেন আমেরিকার কিংবদন্তি বক্সার। প্রত্যাবর্তনের লক্ষ্যে রীতিমতো অনুশীলন‌ও শুরু করে দিয়েছেন তিনি। সাবেক বিশ্ব হেভিওয়েট বক্সিং চ্যাম্পিয়ন সম্প্রতি তাঁর ট্রেনিংয়ের একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে। প্র্যাকটিস শেষে তিনি ঘোষণা করেন, ‘আই অ্যাম ব্যাক’। বিশ্বের সর্বকালের সেরা এই হেভিওয়েট বক্সার কয়েকটি প্রদর্শনী বাউটে অংশ নিতে চান করোনাভাইরাসের কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য অর্থ সংগ্রহের লক্ষ্যে।

টাইসনের বয়স এখন ৫৩ বছর। তবে বয়স বাড়লেও টাইসনের ক্ষীপ্রতা ও পাঞ্চে এখনও মরচে ধরেনি। সঙ্গে রয়েছে প্রতিপক্ষকে ধরাশায়ী করার আগ্রাসী মনোভাব। ২০০৫ সালে কেভিন ম্যাকব্রাইডের কাছে হেরে অবসর নিয়েছিলেন টাইসন। দীর্ঘকাল তাঁর সঙ্গে বক্সিংয়ের কোনও সম্পর্ক ছিল না। কিন্তু সম্প্রতি নিজের ট্রেনিংয়ের যে ভিডিও তিনি পোস্ট করেছেন তা দেখে বোঝার উপায় নেই যে দেড় দশক আগে বক্সিংকে বিদায় জানিয়েছিলেন তিনি। ট্রেনারের বিরুদ্ধে বর্ষীয়ান এই ‘আয়রন ম্যান’ একের পর এক পাঞ্চ করেছেন বিদ্যুৎ গতিতে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যাওয়া সেই ভিডিও দেখে বেশ কিছু ট্রেনার বলেন, এই পাঞ্চে লোহার পাইপও ৯০ ডিগ্রি বেঁকে যেতে পারে। টাইসনের প্রশিক্ষক রাফায়েল কর্ডিরো জানান, ‘প্রায় ১৫ বছর‌ পর বক্সিং গ্লাভস পরলেন টাইসন। কিন্তু প্র্যাকটিসের সময় মনেই হচ্ছিল না যে তাঁর বয়স এখন ৫৩। আজও ২১-২২ বছর বয়সি একজন বক্সারের মতো গতি ও শক্তি ধরে রেখেছেন টাইসন।’ তিনি আরও জানান, করোনার জন্য ত্রাণ তহবিল গড়ার লক্ষ্যে অনুষ্ঠেয় প্রদর্শনী বাউটে টাইসনের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারেন নিউজিল্যান্ডের তারকা রাগবি প্লেয়ার সনি বিল উইলিয়ামস বা অস্ট্রেলিয়ার পল গালেন। রাগবির সঙ্গে বক্সিংয়েও দারুণ দক্ষ সনি। পেশাদার বক্সিংয়েও নেমেছেন তিনি। সনি’র পক্ষে ফল ৭-০। কিন্তু সনির মতো একজন রাগবি প্লেয়ারের বিরুদ্ধে লড়াই করতে নারাজ টাইসন। তিনি পুরোপুরি পেশাদার বক্সারের বিরুদ্ধে লড়তে চান। সেক্ষেত্রে পল গালেনের বিরুদ্ধেই তাঁর লড়াইয়ের সম্ভাবনা বেশি। পেশাদার বক্সিংয়ে পল জিতেছেন ৯টি বাউট। হেরেছেন একটিতে।

এদিকে, টেনিস তারকা সেরেনা উইলিয়ামসের কাছ থেকেই এই বয়সেও রিংয়ে ফেরার প্রেরণা পেয়েছেন টাইসন। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে ৩৮ বছর বয়সি সেরেনার সঙ্গে একটি ট্রেনিং সেশনের ভিডিও পোস্ট করেছেন টাইসন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আমার দেখা সর্বকালের সেরা ক্রীড়াবিদের নাম সেরেনা উইলিয়ামস।’ সেরেনার কোচ প্যাট্রিক বলেছেন, ‘সেরেনা যে জোর নিয়ে বলে হিট করে, ঠিক ততটাই জোরে পাঞ্চিং ব্যাগে আঘাত করেন টাইসন। তাই হয়তো সেরেনাকে এতবড় সার্টিফিকেট দিয়েছেন উনি।’

উল্লেখ্য, নিজের ফিটনেস বাড়াতে মাঝেমধ্যে বক্সিং চর্চাও করেন সেরেনা। কিছুদিন আগে ফ্লোরিডায় টাইসনের সঙ্গে এক ট্রেনিং সেশনেও অংশ নিয়েছিলেন ২৩টি গ্র্যান্ড স্ল্যামজয়ী মার্কিনী তারকা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD