করোনায় সুমো কুস্তিগীরের মৃত্যু

করোনায় সুমো কুস্তিগীরের মৃত্যু

করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে একমাস ধরেই লড়াই চলছিল। ভর্তি ছিলেন টোকি‌ও হাসপাতালে। চিকিত্‍‌সকদের সব প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে, বুধবার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন সুমো কুস্তিগীর শোবুশি। সুমো কুস্তিগীর হিসেবে তিনিই প্রথম করোনার বলি।

শক্তি আর কৌশলের সুচতুর মিশেলে সুমোর আখড়ায় বিপক্ষে বহুবার ধরাশায়ী করলেও মারণভাইরাসের কাছে হার মানলেন শোবুশি। করোনার থাবায় এই প্রথম কোনও সুমো কুস্তিগীরের মৃত্যু হল। বয়স হয়েছিল মাত্র ২৮ বছর। হাসপাতাল কতৃর্পক্ষ জানায়, মাল্টি অরগ্যান ফেলিয়োরে মৃত্যু হয়েছে শোবুশির।

জাপান সুমো অ্যাসোসিয়েশন বুধবার শোবুশির মৃত্যু সংবাদ নিশ্চিত করেছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণে জাপানে এই প্রথম কোনও সুমো কুস্তিগীরের প্রাণ গেল। আসল নাম কিয়োতকা সুটাকে হলেও সুমোর আখড়ায় শোবুশি নামেই সমাদৃত ছিলেন।

জানা গেছে, ডায়াবেটিসের সমস্যা ছিল এই সুমো কুস্তিগীরের। ১০ এপ্রিল কোভিড-১৯ সংক্রমণ ধরা পড়ায় টোকি‌ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল এই সুমো কুস্তিগীরকে। অবস্থার অবনতি হলে, ১৯ এপ্রিল তাঁকে আইসিইউতে স্থানান্তরিত করতে হয়। ডাক্তাররা আপ্রাণ চেষ্টা করেও শোবুশিকে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেননি। দীর্ঘ প্রায় একমাস ধরে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে, বুধবার তিনি মারা যান।

জাপান সুমো অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান জানান, একজন কুস্তিগীরের মতোই মৃত্যুর আগে পর্যন্ত সাহসের সঙ্গে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়েছেন শোবুশি। ওঁর আত্মার শান্তি কামনা করি।

সুমোর পেশাদার মঞ্চে শোবুশির অভিষেক ২০০৭ সালে। ‘মজাদার’ চরিত্রের মানুষ ছিলেন তিনি।

জাপানে করোনায় মৃত্যুহার বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় কম। এ পর্যন্ত ৬৭৮ জন মারা গেছে। করোনা আক্রান্ত হয়েছে ১৬,০৪৯ জন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD