করোনাভাইরাসে থমকে আছে ক্রীড়াঙ্গন

করোনাভাইরাসে থমকে আছে ক্রীড়াঙ্গন

করেনাভাইরাসের ভয়াবহতা ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে। থেমে গেছে চাকা, কর্মমুখর জীবন, ব্যস্ত সময়, সবকিছু। পৃথিবীর অন্যান্য দেশের মতো আমাদের বাংলাদেশও এর বাইরে নয়। করোনাভাইরাসের কারণে স্থবির হয়ে আছে জনজীবন। বন্ধ খেলাধুলা, প্রাণহীন অফিসপাড়া। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও থমকে গেছে অনির্দিষ্টকালের জন্য। সরকারী অফিসগুলোতেও ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এখন করোনা-আতঙ্কে ঘর থেকে বের হওয়াই দায়। জনসমাগম হয় এমন স্থানে যেতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। ভয়ংকর ছোঁয়াচে এই ভাইরাস যে জনবহুল জায়গাতেই বেশি ছড়ায়। সতর্কতার অংশ হিসেবে এই সময় লোক-সমাবেশ এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। যতোটা সম্ভব নিজেদেরকে গৃহবন্দি করে রাখা যায়, সবার জন্যই সেটাই ভালো। আর এই করোনাভাইরাসের কারণে বিভিন্ন খেলার তারকা থেকে শুরু করে মোটামুটি সবাই ঘরের ভেতরে নিজেদেরকে আটকে রেখেছেন। নিজেদের পাশাপাশি ভক্তদেরও বলছেন এই মারণঘাতি ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন হতে। নিজেকে আর পরিবারের অন্যান্যদেরকে সুস্থ-সবল রাখতে পরামর্শ দিচ্ছেন ঘরবন্দি হতে।

প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনে অচলাবস্থা। সংক্রমণ মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। একের পর এক স্থগিত হয়ে গেছে বিশ্বের সব টুর্নামেন্ট। গত আড়াই মাসে মহামারীর আকার পাওয়া করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বিশ্বের ১২৩টি দেশ ও অঞ্চলে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৬৬ হাজার ছাড়িয়েছে। আর মৃতের সংখ্যা ১৬ হাজারেরও বেশি। চীনের পর ইতালিতে সবচেয়ে বেশি ছড়িয়েছে এই করোনাভাইরাস। যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন ও জার্মানিতে দেখা দিয়েছে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব। ইউরোপ ও আমেরিকায় এর সংক্রমণ বাড়ছে দ্রুত। এই ভাইরাসের প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়েছে ইউরোপের ফুটবল লিগগুলোতে। একে একে বন্ধ হয়ে গেছে মহাদেশটির শীর্ষ পাঁচটি লিগই।

লিগ বন্ধ শুরু ইটালির সিরি আ দিয়ে, আগামী ৩ এপ্রিল পর্যন্ত দেশটিতে সব ধরনের খেলা স্থগিত করা হয়েছে। আক্রান্তের তালিকায় আছেন জুভেন্টাসের খেলোয়াড় ড্যানিয়েল রুগানি, ব্লেইস মাতৌদি এবং পাওলো দিবালা। এরপর ক্লাবটির সব ফুটবলারকে রাখা হয় কোয়ারেন্টিনে। জুভেন্টাসের পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো আছেন নিজ শহর মাদেইরায় অন্যদের থেকে নিজেকে আলাদা হয়ে। সময়ের সাথে সাথে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে ইটালিতে। আর ফুটবল ক্লাবগুলোতেও সংক্রমণ দেখা দেয়। এসি মিলানের সাবেক তারকা খেলোয়াড় ও বর্তমান টেকনিক্যাল ডিরেক্টর পাওলো মালদিনি এবং তার ছেলে ড্যানিয়েল মালদিনি আক্রান্ত হন করোনাভাইরাসে।

গত ৫ মার্চ রিয়াল মাদ্রিদের একজন বাস্কেটবল খেলোয়াড়ের শরীরে করোনাভাইরাস ধরা পড়ার পর ক্লাবটির সব অনুশীলন বাতিল করা হয়। কোয়ারেন্টিনে আছে তাদের সব খেলোয়াড়। পরে সেদিনই স্পেনের লা লিগা কর্তৃপক্ষ সব ম্যাচ আগামী দুই সপ্তাহের জন্য স্থগিত করেছে। এরপর আরো ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস ফুটবলাঙ্গনে। ২১ মার্চ মারা যান রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক সভাপতি লরেঞ্জো সাঞ্জ। পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, লরেঞ্জো মারা গেছেন করোনাভাইরাসের কারণে। গত বৃহস্পতিবার তিনি করোনা-আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। আর শনিবারই পৃথিবী ছেড়ে পাড়ি দেন তিনি পরলোকে।

এমনি অবস্থায় ৬ মার্চ অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত হয়ে যায় ফ্রান্সের লিগ ওয়ানের খেলা। নেইমার-থিয়াগো সিলভা ফিরে আসেন ব্রাজিলে। এরপরই স্থগিত ঘোষণা করা হয় ইংলিশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগ। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগসহ সব ধরনের ফুটবল নিষিদ্ধ করে ইংল্যান্ড। আর প্রথম ম্যানেজার হিসেবে আর্সেনালের মিকেল আর্তেতা করোনাভাইরাসে পজেটিভ হন। আক্রান্ত হয়েছেন চেলসি ও ইংল্যান্ড জাতীয় দলের ফরোয়ার্ড ক্যালাম হাডসন-ওডোই। প্রিমিয়ার লিগের কোনো খেলোয়াড় হিসেবে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। আর উপসর্গ দেখা দেওয়ায় লেস্টারসিটির তিন ফুটবলার স্বেচ্ছায় অন্যদের থেকে নিজেদের আলাদা থাকছেন।

এদিকে, বুন্দেশলিগাও সব ম্যাচ স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে। ২ এপ্রিল পর্যন্ত লিগের সব ম্যাচ স্থগিতের সুপারিশ করেছে জার্মান ফুটবল লিগ কর্তৃপক্ষ। আগামী ১৭ ও ১৮ মার্চ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ও ১৯ মার্চ ইউরোপা লিগে যেসব ম্যাচ হওয়ার কথা ছিল, সবগুলো স্থগিত করা হয়েছে আগেই। কবে হবে সে ব্যাপারে চূড়ান্ত কোনো ফয়সালা করতে পারেনি উয়েফা কতৃপক্ষ। নতুন করে উফেয়া চ্যাম্পিয়ন্স লিগ, ইউরোপা লিগ কিংবা নারী চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শুরু করার কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে পারেনি উয়েফা। তবে আগামী বছর পর্যন্ত ইউরো ২০২০ স্থগিত করার কথা জানিয়েছিছে তারা।

করোনাভাইরাসের বিরূপ প্রভাব পড়েছে বিশ্বকাপের বাছাইপর্বেও। চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে মাঠে গড়নোর কথা ছিল লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের কাতার বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচ। কিন্তু তা অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করেছে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফা। নিজের ৫০তম জন্মদিনে, ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো ইটালির এক দৈনিক পত্রিকার কাছে সাক্ষাতকারের, করোনাভাইরাসকে পৃথিবী থেকে কিক আউট করার জন্য সবাইকে এক সাথে কাজ করার আহ্বান জানান। এ সময় তিনি বলেন, করোনাভাইরাস পৃথিবীব্যাপি এখন মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়েছে। এসময় এই ভাইরাসকে কিক আউট করার জন্য সবাইকে একতাবদ্ধ থাকতে হবে। আর করোনাভাইরাস উত্তর পরিস্থিতিতে প্রতিযোগিতা এবং দলের সংখ্যা কমানো উচিত বলে আমি মনেকরি।

‘নগর পুড়িলে দেবালয় কি এড়ায়’- এমন অবস্থা ক্রীড়াঙ্গনেও। ফুটবলের মতো থেমে গেছে ক্রিকেটের চাকাও। স্থগিত হয়ে গেছে ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার মধ্যকার তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজও স্থগিত হয়ে গেছে। বন্ধ আছে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। একই কারণে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে আইপিএল। ২৯ মার্চ শুরু হওয়ার কথা ছিল এবারের আসর। পাকিস্তান সুপার লিগ-পিএসএলও স্থগিত করা হয়েছে। ম্যাচগুলো দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিলেও বিদেশী খেলোয়াড়রা দেশে ফেরত যাওয়ায় সেমিফাইনালের আগেই বন্ধ করা হয় পিএসএল। এরই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের তৃতীয় দফা পাকিস্তান সফরও স্থগিত হয়ে গেছে। আগামী ১ এপ্রিল পাকিস্তান-বাংলাদেশের একমাত্র ওয়ানডে। এবং ৫ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়ার কথা টেস্ট ম্যাচটি। টেনিস বিশ্বেও আঘাত হেনেছে করোনাভাইরাস। এটিপি ট্যুর ও এটিপি চ্যালেঞ্জ ট্যুরের সব টুর্নামেন্ট ছয় সপ্তাহের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। এর আগেই স্থগিত হয়েছে ফেডারেশন কাপ ফাইনালস, ইন্ডিয়ান ওয়েলস ও মায়ামি ওপেন টেনিস।

করোনাভাইরাসের কারণে টোকিও অলিম্পিক এক বছরের জন্য পিছিয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছেন, আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটি- আইওসির সদস্য ডিক পাউন্ড। আগামী জুলাইয়ে গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে ব্রিটেন দল পাঠাবে না- ব্রিটিশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যানের এমন মন্তব্যের পর পাউন্ড এবারের আসর পিছিয়ে দেওয়ার সম্ভাবনার কথা জানান। এর আগেই অবশ্য কানাডা ও অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছিলো যে, জুলাই মাসে অলিম্পিক হলে তারা দল পাঠাবে না। আগামী ২৪ জুলাই শুরু হওয়ার কথা টোকিও অলিম্পিক গেমসের। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে প্রতিযোগিতা স্থগিতের চাপ বাড়তে থাকায় আইওসি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাতে চার সপ্তাহ অপেক্ষা করার কথা জানায়।

বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনেও পড়েছে করোনাভাইরাসের করাল থাবা। স্থগিত করতে হয়েছে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ গেমস। ২০টি ভেন্যুতে ৩১টি ডিসিপ্লিনে প্রায় ১২ হাজার অ্যাথলেট নিয়ে ১ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়ার কথা এই আসরের। বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে বছরব্যাপি বিভিন্ন ফেডারেশনের কর্মসুচিও স্থগিত রয়েছে করোনাভাইরাসের কারণে। একটা সময় পর নিশ্চয়ই করোনাভাইরাস মুক্ত হবে মানুষের এই পৃথিবী। তখন আবারও খেলাধুলাময় হয়ে উঠবে দেশ-বিদেশের ক্রীড়াঙ্গন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD