পাকিস্তানে আপাতত টেস্ট নয়: বিসিবি সভাপতি

পাকিস্তানে আপাতত টেস্ট নয়: বিসিবি সভাপতি

পাকিস্তানে টেস্ট খেলতে আপাতত ইচ্ছুক নয় বাংলাদেশ। তবে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে আগ্রহী। তবে মধ্যপ্রাচ্য পরিস্থিতির উন্নতি হলে পরে পাকিস্তানে টেস্ট ম্যাচ খেলতে যাবে বাংলাদেশ। বিসিবি কার্যালয়ে সভা শেষে একথা জানান বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

ক্রিকেটার থেকে শুরু করে টিম ম্যানেজমেন্টের কেউই সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য ছাড়া পাকিস্তানে যেতে চায় না। এ কারণে পাকিস্তানে প্রথমে তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলে এসে পরে কোনও এক সময় টেস্ট খেলার প্রস্তাব দিয়েছিলো বিসিবি, পিসিবিকে। সেই প্রস্তাব পেয়ে পিসিবি বিসিবিকে দেয় পাল্টা প্রস্তাব। তাতে টি-টোয়েন্টি বাদ দিয়ে আহ্বান জানানো হয়, আগে টেস্ট সিরিজ খেলে আসার। দুই বোর্ডের আলোচনায় শুধু টেস্ট সিরিজ খেলার ব্যাপারে একটু ইতিবাচক অগ্রগতি থাকলে জিও (সরকারি অনুমতি) না পাওয়ায় পাকিস্তানে দীর্ঘ সফর করার কোনও সুযোগ থাকছে না! অর্থাৎ পাকিস্তান যদি টি-টোয়েন্টি সিরিজের ব্যাপারে রাজি না হয়, তাহলে বাংলাদেশের পাকিস্তান সফর আপাতত বাতিল বলেই ধরে নেওয়া যায়।

মূলত পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতি ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যের চলমান অস্থিরতা বিসিবিকে এমন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে। রবিবার (১২ জানুয়ারি) বোর্ড সভা শেষে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান জানিয়েছেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যে বর্তমানে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে তাতে লম্বা সময়ের জন্য পাকিস্তান সফরে যেতে সরকার আমাদের অনুমতি দিচ্ছে না। লম্বা সময়ের জন্য আমরা তাই পাকিস্তান যেতে পারছি না। আমরা এখন টি-টোয়েন্টি খেলে আসতে চাই। আমরা সরকারের কাছ থেকে জেনেছি। তবে চিঠি পাওয়ার পর পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডকে আবার প্রস্তাব দেবো। এরপর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারবো। আপাতত তাদের মৌখিকভাবে জানিয়েছি।’

মধ্যপ্রাচ্যে চলমান ঘটনার প্রভাব পাকিস্তানেও পড়তে পারে। দুর্ঘটনা ঘটতে একটি দিনই যথেষ্ট। তবে পাকিস্তানে সংক্ষিপ্ত সফরই বা কেন? বিসিবিও চায় পাকিস্তানে ক্রিকেট ফিরুক। কিন্তু বর্তমান সময়কে সেখানে গিয়ে টেস্ট খেলার জন্য আদর্শ মনে করছেন না নাজমুল হাসান, ‘ওয়াকওভার দিতে চাই না। অন্যরা খেলে আসার পর না করাও কঠিন। পাকিস্তানে ক্রিকেট ফিরুক সেটা আমরাও চাই। কিন্তু টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টি এক না। তিনটি টি-টোয়েন্টি খেলতে সময় লাগবে মাত্র ১২০ ওভার। অন্যদিকে একটি টেস্ট খেলতেই কিন্তু সময় লাগবে ৪৫০ ওভার। টি-টোয়েন্টি খেলে আমরা দেখে আসতে চাই সেখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা কেমন। খেলোয়াড়দেরও একটু আত্মবিশ্বাস বাড়ুক। এরপর আমরা যেকোনও সময়ে গিয়ে টেস্ট খেলে আসলাম। দুই বছরের মধ্যে দুটি টেস্ট খেললেই হলো।’

এদিকে, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নামে এবার চলছে বিশেষ বিপিএল। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোকে বাদ দিয়ে বিসিবির নিজস্ব তত্ত্বাবধানে এই বিপিএলের আয়োজন। আগামী বছর থেকে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো ফিরবে, তবে একটি বিষয় অপরিবর্তিত থাকবে। রোববার বোর্ড সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, বিপিএল এখন থেকে বঙ্গবন্ধুর নামেই মাঠে গড়াবে।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বোর্ড সভা শেষে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান বলেছেন, ‘এবার বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর নামে বিশেষ বিপিএল আয়োজন করা হয়েছে। আমরা আলোচনা করেছি এখন থেকে প্রতিটি বিপিএল বঙ্গবন্ধুর নামেই অনুষ্ঠিত হবে। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ হিসেবে এর নামকরণ হবে। এবার যেমনটি হয়েছে।’

বঙ্গবন্ধু বিপিএলে স্থানীয় ক্রিকেটারদের পারফরম্যান্স দেখে উচ্ছ্বসিত বিসিবি প্রধান, ‘এবারের আসরের প্রতিটি দলই ছিলো ব্যালান্সড। শেষ পর্যন্ত বোঝা যায়নি কে প্রথম, দ্বিতীয় হবে। এ ছাড়া স্থানীয় ক্রিকেটাররা যেভাবে পারফরম্যান্স করেছে, সেটাও দারুণ। এখন তো দল নির্বাচন করতেই আমাদের কষ্ট হয়ে যাবে! আফিফ, মেহেদী, ইমরুল, লিটন, তামিম, শান্ত সবাই ওপেনিংয়ে দুর্দান্ত খে্লেছে। সব মিলিয়ে তাই নির্বাচকদের কঠিন পরীক্ষায় পড়তে হবে।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD