সিরিজে সমতা আনল ভারত

সিরিজে সমতা আনল ভারত

ঝড়ের পূর্বাভাস ছিল রাজকোটে। প্রাকৃতিক সেই ঝড় আসল না ঠিকই কিন্তু উইকেটে ঝড় তুললেন অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তাতে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি জিতে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-১ এ সমতা আনলো ভারত।

সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে টস জিতে, বাংলাদেশকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায় ভারত। নির্ধারিত ২০ ওভারে টাইগাররা ৬ উইকেটে ১৫৩ রান তোলে। জবাবে ভারত, ২৬ বল হাতে রেখেই ২ উইকেট হারিয়ে ১৫৪ রান তুলে জয় পায়। ৮ উইকেটের এই দাপুটে জয়ে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে ১-১ সমতা ফেরায় টিম ইন্ডিয়া।

নিজের শততম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ রাঙিয়ে দিলেন ভারত অধিনায়ক রোহিত শর্মা। নয়াদিল্লিতে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ভারতকে মাটিতে নামিয়ে এনেছিল বাংলাদেশ। রাজকোটের দ্বিতীয় ম্যাচের আগে চাপ বাড়ছিল ‘টিম ইন্ডিয়া’র উপরে। দ্বিতীয় ম্যাচ জিতলেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতে নেবে বাংলাদেশ। এ রকম কঠিন পরিস্থিতিতেই জ্বলে ওঠেন তারকারা। রোহিতও তাই করলেন। মাহমুদুল্লাহদের রান তাড়া করতে নেমে তিনি একাই ম্যাচ বের করে আনেন।

আবহাওয়া-অফিসের পূর্বাভাস ছিল রাজকোটে আছড়ে পড়বে সাইক্লোন ‘মাহা’। তার দাপটে পণ্ড হয়ে যেতে পারে ম্যাচ, এমন আশঙ্কাও ছিল। শেষ পর্যন্ত ঝড় ওঠেনি। বৃষ্টিও নামেনি। কিন্তু, ব্যাট হাতে মহা-ঝড় তুললেন ‘হিটম্যান’। ৪৩ বলে করলেন ৮৫ রান। যেভাবে তিনি এগোচ্ছিলেন, তাতে শততম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে সেঞ্চুরি অবধারিত ছিল। ভাগ্য খারাপ, তাই বৃহস্পতিবার সেঞ্চুরি মাঠে রেখেই প্যাভিলিয়নে ফেরেন রোহিত। বাকি কাজটা সারেন লোকেশ রাহুল ও শ্রেয়াস আইয়ার।

এর আগে, টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং নেন রোহিত। রান তাড়া করতে বরাবরই দক্ষ ভারত। কিন্তু, প্রথমে ব্যাট করে রান ধরে রাখার ক্ষেত্রে ভারতের দুর্বলতা রয়েছে। কিন্তু, নয়াদিল্লিতে হারের পরে পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝে আগে বাংলাদেশকে ব্যাট করতে পাঠায় ভারত।

শুরুটা বেশ ভালই করেছিলেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার লিটন দাস ও নাঈম। বড় রানের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছিলেন দু’ জনেই। সেই জায়গায় ২০ ওভারে বাংলাদেশ করল ৬ উইকেটে ১৫৩ রান। আরও বেশি রান করতেই পারত বাংলাদেশ। ওপেনিং জুটিতে লিটন ও নাঈম দলের স্কোরে যোগ করেন ৬০ রান। প্রায় বছরখানেক পরে কোনও টি-টোয়েন্টি ম্যাচ বাংলাদেশ ওপেনিং জুটিতে পঞ্চাশের বেশি রান তুলল। বৃহস্পতিবার একাধিকবার জীবন ফিরে পান লিটন। একবার ঋষভ পান্টের ভুলে বেঁচে যান। আর একবার রোহিত শর্মা তাঁর ক্যাচ ফেলে দেন। শেষ পর্যন্ত ২৯ রানে রান আউট হন লিটন। নাঈমও বেশ ভালই খেলছিলেন। ব্যক্তিগত ৩৬ রানে তাঁকে ফেরান ওয়াশিংটন সুন্দর। দ্রুত রান তুলতে গিয়ে যুজবেন্দ্র চাহালের বলে ফেরেন মুশফিকুর (৪)। এই মুশফিকুরই প্রথম ম্যাচ জিতিয়েছিলেন বাংলাদেশকে। অভিজ্ঞ মুশফিকুর দ্রুত ফিরলেও সৌম্য সরকার (৩০) ও মাহমুদ্দুল্লাহ (৩০) বাংলাদেশকে টানতে থাকেন। বাকিরা অবশ্য রান পাননি। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতা এখানেই। আরও কিছুটা রান তাঁরা বাড়াতেই পারতেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ওপেনিং জুটিতে রোহিত ও শিখর ধা‌ওয়ান করেন ১১৮ রান। তার মধ্যে সিংহভাগ রানই এসেছে রোহিতের চওড়া ব্যাট থেকে। ভারত অধিনায়ক শুরু থেকেই শাসন করতে থাকেন বাংলাদেশ বোলারদের। ধা‌ওয়ানও ছন্দে ফিরছিলেন। কিন্তু বিপ্লবের বল বুঝতে না পেরে ধা‌ওয়ান বোল্ড হন ৩১ রানে।

তাতে অবশ্য ম্যাচ জিততে সমস্যা হয়নি ভারতের। আগামী রবিবার নাগপুরে হবে সিরিজের তৃতীয় ‌ও শেষ ম্যাচ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD