আবার‌ও ড্র ম্যানচেস্টারের

আবার‌ও ড্র ম্যানচেস্টারের

পরপর দু’ম্যাচে পয়েন্ট হারানোর পর জয়ে ফিরল ম্যানচেস্টার সিটি। শনিবার ইপিএলের ম্যাচে তারা পিছিয়ে পড়েও ২-১ জয় পায় ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের দল চেলসির বিপক্ষে। অন্য ম্যাচে নাটকীয়ভাবে ড্র ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। দু’গোলে পিছিয়ে থেকে ৩-২ এগিয়ে গিয়েছিল তারা। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। ৩-৩ গোলে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে রেড ডেভিলরা, শেফিল্ড ইউনাইটেডের সঙ্গে।

ম্যাচের শেষদিকের সাত মিনিট ওলে সোলসকায়ারের টিমের ঝড়। তাতেই তিন পয়েন্ট ঘরে তোলার দিকে এগিয়ে গিয়েছিল ম্যানচেস্টার। বিরতির সময় এক গোলে পিছিয়ে র‍্যাশফার্ডের টিম। দ্বিতীয়ার্ধে শেফিল্ডের গোল যেন ইউনাইটেডের কফিনে শেষ পেরেক। কিন্তু সেখান থেকে যেভাবে ফিরল, তা অবিশ্বাস্য বললে কম বলা হয়। খোদ ইউনাইটেড সমর্থকরাও ভাবতে পারেননি টিম সমতা ফিরিয়ে জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবে। ৯০ মিনিটে শেফিল্ডের মিডফিল্ডার ম্যাক বার্নের অনবদ্য গোল তিন পয়েন্ট কেড়ে নিল ম্যানচেস্টারের কাছ থেকে। ম্যাচ শেষে তাই হতাশায় ডুবেছে ম্যানচেস্টারের সমর্থকরা। কিন্তু শেফিল্ড সমানতালে লড়াই করেছে। ইপিএলের আট নম্বর টিমের বিরুদ্ধে খেলতে গিয়ে কিছুই ঠিক হচ্ছিল না ম্যানচেস্টারের। রক্ষণে ভুলের পর ভুল। সেই ভুলের মাশুল দিতে গিয়ে গোল হজম করেছে। ফরোয়ার্ডদের চেষ্টায় ম্যাচে ফিরে এসে এক পয়েন্ট নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হল লাল ম্যানচেস্টারকে।

এদিকে, চেলসিকে পিছনে ফেলে লিগ টেবিলের তিনে উঠে এলেও স্বস্তিতে নেই নীল ম্যানচেস্টার সিটিজেনদের কোচ পেপ গার্দিওয়ালা। কারণ তাঁর টিমের সেরা স্কোরার সের্জিও আগুয়েরো পায়ের মাসলে টান লেগে মাঠের বাইরে চলে যান ৭৭ মিনিটে। এই আর্জেন্টিনিয় ফরোয়ার্ড চলতি মৌসুমে সিটির হয়ে ১৩ গোল করেছেন। ম্যাচের পর গার্দিওয়ালা বলেছেন, ‘মনে হচ্ছে আগুয়েরোর চোটটা বেশ ভালোই। অন্তত তিন সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকবে। যে সময়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সহ আমার টিমের মোট ৬ ম্যাচ রয়েছে। তাই চিন্তা বাড়ছেই।’

আগুয়েরোর বদলে সিটির গোল করার ভরসা গ্যাব্রিয়েল জেসুস আর রহিম স্টার্লিং। স্টার্লিংয়ের এদিন একটি গোল বাতিল হয় ভিডিয়ো অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির মাধ্যমে। যা নিয়ে তুমুল বিতর্ক। স্টার্লিং নিজেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, ‘আমার গোলকে প্রায়ই এভাবে হত্যা করা হচ্ছে। ছবিই বলছে, আমি গোল করার সময় অফসাইডে ছিলাম না।’

ল্যাম্পার্ডের টিমই খেলার শুরুতে এনগোলো কোন্তের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল। তবে প্রথমার্ধেই গোল শোধ করেন কেভিন ডি ব্রুইন। বিরতির আগেই টিমকে এগিয়ে দেন রিয়াদ মাহরেজ। গোল করার আরও সুযোগ পেয়েছিল সিটি। মাহরেজের শট পোস্টে লেগে ফেরে। ফাঁকা জালে বল পাঠাতে ব্যর্থ জেসুস। এই গোলগুলো হলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে শাখতারের বিরুদ্ধে ম্যাচের আগে আরও কিছুটা স্বস্তি বাড়ত গার্দিওয়ালার।

ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের পয়েন্ট টেবিলে লিভারপুলের কাছে ধারে কেউ নেই(৩৭)। দ্বিতীয় স্থানে লেস্টারসিটি(২৯)। তারপরই ম্যানচেস্টার সিটি ও চেলসি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড আছে দশে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD