চট্টগ্রামে জয়ের সুবাস পাচ্ছে আফগানরা

চট্টগ্রামে জয়ের সুবাস পাচ্ছে আফগানরা

বৃষ্টির বদান্যয়তায় চট্টগ্রাম টেস্টকে শেষ দিন পর্যন্ত নিতে পেরেছে বাংলাদেশ। দফায় দফায় বৃষ্টির বাঁধায় চতুর্থ দিন মাত্র ৩২ ওভারের কিছু বেশি খেলা হতে পেরেছে। তাতেই ৩৯৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে নেমে অসহায় আত্মসমর্পণ করেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। দিনশেষে সাকিবদের সংগ্রহ, ৬ উইকেটে ১৩৬ রান। ম্যাচ জিততে আরো ২৬২ রান প্রয়োজন স্বাগতিকদের। হাতে আছে ৪ উইকেট। আফগানিস্তানের ৩৪২ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে ২০৫ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসে আফগানদের সংগ্রহ, ২৬০ রান।

ম্যাচ বাঁচাতে হলে রেকর্ড তো বটেই অসম্ভবের চেয়েও বেশি কিছু করতে হবে বাংলাদেশকে। তবে ব্যাট হাতে দ্বিতীয় ইনিংসে সতর্ক সূচনা দুই ওপেনার সাদমান ইসলাম ও লিটন দাসের। লাঞ্চ বিরতি থেকে ফিরে আর ধৈর্য ধরে রাখা যায়নি। এক বল আগে রিভিউ নিয়ে রা পাওয়ার পরই জহির খানের পাতা লেগ বিফোরে কাটা পড়েন লিটন। প্রমোশন পেয়ে তিন নম্বরে উঠে আসা মোসাদ্দেক হোসেনও সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেননি, ১৭ বলে ১২ রান করে জহির খানের দ্বিতীয় শিকার তিনি।

এরপর উইকেট শিকারে নামেন আফগান অধিনায়ক রশিদ খান। প্রথমে ২৫ বলে ২৩ রানে থাকা মুশফিককে, পরে মুমিনুল হক তার শিকার হলে, ৮২ রানে ৪ উইকেট হারায় বাংলাদেশ।

সতীর্থদের আসা-যাওয়ার মাঝে একপ্রান্ত আগলে রেখেছিলেন সাদমান ইসলাম। ৪১ রান করে তিনি, মোহাম্মদ নবীর ফাঁদে পড়েন। ব্যর্থদের কাতারকে আরো লম্বা করেন ৭ রান করা মাহমুদুল্লাহ।

তাতে একদিন আগেই টেস্টের নবীন সদস্য আফগানিস্তানের কাছে পরাজয়ের শঙ্কায় পড়ে বাংলাদেশ। ১৩ ওভার বাকী থাকা অবস্থায় বৃষ্টিতে চতুর্থ দিনের খেলা পরিত্যাক্ত ঘোষণা করা হয়। তখন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ৩৯ ও সৌম্য সরকার ক্রিজে ছিলেন।

এর আগে, আবহাওয়ার পূর্বাভাসই ছিল, চট্টগ্রাম টেস্টের শেষ দুই দিনে বৃষ্টি হবে। চতুর্থ দিনে বৃষ্টিতে দুইঘন্টা পরে শুরু হয় খেলা। ৮ উইকেটে ২৩৭ রান নিয়ে দিন শুরু করা আফগানিস্তান থামে ২৬০ রানে। তাতে লিড পায় ৩৯৭ রানের।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD