হকির উন্নয়নকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি: রশীদ শিকদার

হকির উন্নয়নকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি: রশীদ শিকদার

পাঁচ ম্যাচের সিরিজ খেলতে চলতি মাসেই ঢাকায় আসছে কেনিয়া নারী হকি দল। মালয়েশিয়ায় এশিয়ান হকি ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা শেষে দেশে ফিরে একথা জানিয়েছেন, হকি ফেডারেশনের সহ-সভাপতি আবদুর রশীদ সিকদার। তিনি আরো জানান, আগামী বছর চ্যাম্পিয়নস ট্রফি এবং জুনিয়র এশিয়া কাপ‌ও আয়োজন করবে বাংলাদেশ।

বিষয়টি মেয়েদের হকির জন্য সুখবরই বটে! প্রথমবারের মতো কোন দ্বি-পাক্ষিক সিরিজে খেলার সুযোগ তৈরি হয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা দলের জন্য। আগামী সেপ্টেম্বরে সিঙ্গাপুরে জুনিয়র এশিয়ান হকিতে অংশ নেয়ার আগে অনেকগুলো ম্যাচ আয়োজন করছে হকি ফেডারেশন। তারই অংশ হিসেবে এ মাসের শেষ সপ্তাহে আসছে কেনিয়া মহিলা দল। ফেডারেশনের সহ-সভাপতি আবদুর রশীদ সিকদার জানান, ‘এশিয়ান হকি ফেডারেশনের মিটিংয়ে অনেকের সাথে কথা বলেছি। মেয়েদের হকি নিয়ে। কিভাবে তাদের দেশের বাইরে পাঠানো যায়। কিংবা আমাদের দেশে আনা যায়। তারই অংশ হিসেবে চলতি মাসের শেষের দিকে ২২ থেকে ২৭ তারিখ পর্যন্ত ৫ টা ম্যাচ খেলতে কেনিয়া হকি দল আসছে। এরপর আমরা তাদের দেশে খেলতে যাবো। এছাড়া এশিয়ার অন্যান্য দল- যেমন শ্রীলঙ্কা, ভারত, নেপালের সাথে এই এক-দেড় মাস, সিঙ্গাপুরে সেপ্টেম্বরে জুনিয়র এশিয়ান হকির আগে ম্যাচ খেলানোর চেষ্টা করছি।’

নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথমবারের মত এশিয়ান হকির কার্যনিবাহী কমিটির সভাতে গিয়েই সুখবর পেলেন ফেডারেশন কর্মকর্তারা। বাংলাদেশকে বিশ্বের সেরা র‌্যাংকধারী দলগুলোকে নিয়ে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আর জুনিয়র এশিয়া কাপ আয়োজনের দায়িত্ব দিয়েছে এশিয়ান হকি ফেডারেশন। রশীদ সিকদার বলেন, ‘হকির জন্য সুখবর। চ্যাম্পিয়নস ট্রফি আয়োজন করছি আমরা। জুনিয়র এশিয়া কাপ, যা বিশ্বকাপের বাছাইপর্বও, সেটাও আগামী বছর বাংলাদেশে হবে। ২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে এই দুটি বড় ইভেন্ট আয়োজন করছি আমরা।’

২০২২ সালের হকি বিশ্বকাপে খেলতে চাইলে বাংলাদেশকে র‌্যাংকিংয়ের সেরা ২০ দলের মধ্যে আসতে হবে। র‌্যাংকিং বাড়ানোর লক্ষ্যে বেশি ম্যাচ খেলাকেই গুরুত্ব দিচ্ছে হকির বর্তমান কমিটি। এ প্রসঙ্গে রশীদ শিকদার বলেন, ‘আন্তর্জাতিক ম্যাচ যত খেলবো ততোই মঙ্গল। আমরা যেহেতু চ্যাম্পিয়নস ট্রফি খেলতে পারিনা। স্বাগতিক দেশ হিসেবে অংশগ্রহন করায় সে সুযোগটা তৈরি হয়েছে। এটা হকির জন্য বড় সুবিধা। আর বিশ্বকাপ খেলার স্বপ্নও যেহেতু দেখছি। যদি জুনিয়র এশিয়া কাপে ফাইনালে যেতে পারি। জুনিয়রদের বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবো, তাতে ভবিষ্যতে অনেক বেশী ম্যাচ খেলার সুযোগ তৈরি হবে।

হকি ফেডারেশনের এই মেধাবী কর্মকর্তা জানান, হকির উন্নয়নকে তাদের নির্বাচিত কমিটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে। তাদের প্রত্যাশা পরিকল্পনা অনুযায়ী সবাইকে নিয়ে কাজ করতে পারলে, নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌছাতে কোনো সমস্যা হবে না।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD