টনটন স্টেডিয়ামের কথা

টনটন স্টেডিয়ামের কথা

চলতি বিশ্বকাপের তিনটি ম্যাচের ভেন্যু টনটনের সামারসেট কাউন্টি ক্রিকেট গ্রাউন্ড। ১৩৭ বছর আগে ক্রিকেট ভেন্যু হিসেবে যাত্রা শুরু করা এই স্টেডিয়ামটিতেই বাংলাদেশ খেলবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বে নিজেদের পঞ্চম ম্যাচ।

১৮৮২ সালে প্রতিষ্ঠিত এ স্টেডিয়ামটি সমারসেট কাউন্টি ক্রিকেট দলের নিজস্ব মাঠ। ১৩৭ বছরের ইতিহাসে বহু রেকর্ড গড়াÑভাঙা হলেও আন্তজাতিক ক্রিকেট হয়েছে মাত্র পাঁচটি। তাও আবার ১৯৮৩, আর ১৯৯৯ বিশ্বকাপ মিলে যেখানে ম্যাচ সংখ্যা ছিলো তিনটি, সেখানে এবারের বিশ্বকাপেই সমান সংখ্যক ম্যাচ খেলা হচ্ছে।

আকৃতিতে ছোট এই স্টেডিয়ামটির পাশে অত্যাধুনিক কিছু আবাসিক ভবন গড়ে ওঠায় তা এখন হয়ে উঠেছে স্টেডিয়াম সৌন্দর্য্যরে বড় অংশ। তবে এ স্টেডিয়ামের সবচেয়ে বড় আকর্ষণ হচ্ছে এর পাশ ঘেঁষে থাকা সেন্ট জেমস চার্চটি। বলা হয়, দিন রাতের ম্যাচে অনেক সময়ই খেলোয়াড়রা স্টেয়িামের ফ্লাড লাইটের আলোর চার্চের মিনারের আলোকে মিলিয়ে দ্বিদায় পড়েন।

এই স্টেডিয়ামটির দর্শক ধারণ ক্ষমতা মাত্র সাড়ে আট হাজার। বিশ্বকাপের তিনটি ম্যাচকে সামনে রেখে মাত্র চার মাষ আগেই সেখানে বসেছে অত্যাধুনিক ফ্লাড লাইট। টানা বারো মৌসুম সমারসেটের হয়ে খেলা ইংলিশ কিংবদন্তী অলরাউন্ডার স্যার ইয়ান বোথামের নামে আছে পৃথক একটি স্ট্যান্ড। এ পর্যন্ত হওয়া পাঁচটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের চারটিতেই সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছে সম্প্রতি কপার অ্যাসোসিয়েটস স্টেডিয়াম নামকরণ হওয়া স্টেডিয়ামটি। অনেকটা চতুষ্কোণ গড়ণের এই স্টেডিয়ামটিই ২০১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পঞ্চম ম্যাচের ভেন্যু।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD