চেন্নাইয়ের বিপক্ষে আবাহনীর জয়

চেন্নাইয়ের বিপক্ষে আবাহনীর জয়

রোমাঞ্চকর এক জয় ঢাকা আবাহনীর। এই জয়ে এএফসি কাপে প্রথমবারের মতো দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলার স্বপ্ন জিইয়ে রাখলো আকাশী-হলুদ শিবির। অ্যাওয়ে ম্যাচে হারলেও ঘরের মাঠে তারা হারায় চেন্নাইয়ান এফসিকে। আজ বুধবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ফিরতি লেগের ম্যাচে ঢাকা আবাহনী ৩-২ গোলে পরাজিত করে চেন্নাইয়ের দলকে। এই জয়ে চার ম্যাচে ঢাকা আবাহনীর পয়েন্ট বেড়ে হল সাত।

স্বপ্ন ছিল নিজেদের মাঠে চেন্নাইন এফসিকে হারিয়ে এএফসি কাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে এগিয়ে থাকার। সেটাই করে দেখালেন বেলফোর্ট, মাসিহ ও মামুনুলরা। নিজেদের মাঠে, আত্মঘাতি গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়লেও অ্যাওয়ে ম্যাচে হেরে গেছে সফরকারীরা। এই জয়ে চার ম্যাচে সাত পয়েন্ট ঢাকা আবাহনীর। সমান ম্যাচে সমান পয়েন্ট চেন্নাইন এফসির।

গুরুত্বপূর্ণ দু’ফুটবলার তপু বর্মণ ও আতিকুর রহমান ফাহাদ নেই। ডিফেন্ডার টুটুল হোসেন বাদশাও খেলতে পারেননি। ঢাকা আবাহনীকে দেখে বুঝার উপায় ছিল না দলটি চোটজর্জর। পুরো মাঠ জুড়ে খেলেছে তারা। আক্রমণের দিক দিয়েও এগিয়ে ছিলেন নাবীব নেওয়াজ জীবনরা। কিন্তু গোল মিসের মহড়াই দিয়েছে আকাশী-হলুদ শিবির। বার বার আক্রমন করেও গোলের দেখা পাননি জীবন। দলকে গোল এনে দিতে পারেননি নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড সানডে সিজোবাও।

তাছাড়া বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে আবাহনীর শুরুটা‌ও ছিল একেবারে ম্যাড় ম্যাড়ে। তবে সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে খেলার তেজও বেড়েছে। প্রতিপক্ষের উপর বার বার হানা‌ও দিয়েছে তারা। তবে তুলনামূলক বল পজিশনে পেছনে থেকেও গোলের দেখা পেয়ে যায় চেন্নাইন এফসি। ম্যাচের ছয় মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে কর্ণার কিক নেন ইসাক ভানমালসাওয়া। জটলা তৈরী হয় আবাহনীর গোল সীমানায়। উড়ে আসা বল ঠেকাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন সবাই। সেই ফাকে শট করে গোলকিপার শহিদুল আলম সোহেলকে বোকা বানিয়ে গোল আদায় করে নেন ভিনিথ (১-০)। এক গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় চেন্নাইয়ের দলটি।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমন পাল্টা আক্রমনে জমে ‌ওঠে খেলা। ৬৪ মিনিটে প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়ের সঙ্গে দৌঁড়ে এগিয়ে যান হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড বেলফোর্ট। বক্সের ভেতরে ঢুকেই ডানপায়ে শট করে পরাস্ত করে ম্যাচে ১-১-এ সমতা আনেন তিনি।

এই গোলের ৫ মিনিট পরই ফ্রিকিক থেকে আফগানিস্তানের মাসিহ সাইঘানি গোল করে ২-১ ব্যবধানে আবাহনীকে এগিয়ে দেন। উল্লাসে মেতে উঠে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম। কিন্তু তাদের সেই উল্লাস স্থায়ী হয়নি বেশিক্ষণ। ৭৪ মিনিটে আরও এক গোল করে ম্যাচে সমতা আনে চেন্নাইন। জযের অপেক্ষায় থাকা আবাহনীর কাছ থেকে পয়েন্ট ছিনিয়ে নেয় তারা। আকাশী-হলুদল শিবিরের বিপদ সীমানায় জটলা থেকে ইসাক ভানমালসাওয়া ডান পায়ের শটে বল জালে জাড়িয়ে দেন (২-২)।

এরপর আবার‌ও এগিয়ে যায় আবাহনী। এবার নায়ক মামুনুল ইসলাম। ঘরোয়া আসরে নিস্প্রভ সেই মামুনুলই দলকে জয় এনে দিলেন। বক্সের ডান প্রান্ত দিয়ে দুরপাল্লার এক শটে জাল কাঁপান এই মিডফিল্ডার (৩-২)।

" class="prev-article">Previous article

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD