মিরপুরে আম্পায়ার কেলেঙ্কারি

মিরপুরে আম্পায়ার কেলেঙ্কারি

অবিশ্বাস্য বললেও কম বলা হয়। বাজে আম্পায়ারিং বললেও যথেষ্ট নয়। মিরপুরে আজ শনিবার শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে যা হলো, সেটা বাংলাদেশের আম্পায়ারিংয়ের মানটা দাঁড় করিয়ে দিল কাঠগড়ায়। এক ওভারে দুই নো বল ডেকেছেন তানভীর আহমেদ। অথচ ওশান টমাসের একটিও নো বল ছিল না। এর প্রতিবাদে খেলা বন্ধ ছিল মিনিট দশেকেরও বেশি। কার্লোস ব্রেথওয়েট ম্যাচ রেফারি থেকে তৃতীয় আম্পায়ারের সাথেও কথা বলেছেন। তুমুল প্রতিবাদের পরেও অবশ্য আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত মেনে চালিয়ে গেছেন খেলা।

ঘটনার শুরু চতুর্থ ওভারের চতুর্থ বল থেকে। টমাসের বলে নো ডাকলেন আম্পায়ার তানভীর, অথচ রিপ্লেতে দেখা গেছে টমাসের পা পুরোপুরি ক্রিজের বাইরে যায়নি। পরের বলে ফ্রি হিটে লিটন মারলেন ছয়। এক বল পরে আবার টমাসের বলে নো ডাকলে তানভীর, এবারও দেখা গেল তা নো ছিল না। লিটন অবশ্য মারতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দিয়েছিলেন। এদিকে রিপ্লে দেখার পর আম্পায়ারের দিকে প্রায় তেড়েই আসেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক কার্লোস ব্রাথওয়েট। আবেদন করেন রিভিউ নেওয়ার, কিন্তু নিয়ম অনুযায়ী নো বলের সিদ্ধান্তে আম্পায়ার সেই অনুমতি দেননি।

এরপর ব্রাথওয়েট দলের সবার সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ কথা বললেন, এর মধ্যে বাউন্ডারি সীমানায় চলে এসেছেন চতুর্থ আম্পায়ার শরিফুদ্দৌলা সৈকত। ম্যাচ রেফারি জেফ ক্রোও অনেকক্ষণ কথা বললেন ব্রাথওয়েটের সঙ্গে। নেমে এসেছিলেন সাকিবও। ব্রাথওয়েট এরপর ফিরে গিয়ে আবার খেলা শুরু করলেন। নিয়ম অনুযায়ী সিদ্ধান্তটা বদলানোর নিয়ম নেই, তাই সেটি নো হিসেবেই থাকল শেষ পর্যন্ত।

এমন বাজে আম্পায়ারিং এই সিরিজে এটাই প্রথম নয়। গত ম্যাচেও অন্তত চারটি ভুল সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন দুই আম্পায়ার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের দুই ব্যাটসম্যান এভিন লুইস ও শিমরন হেটমেয়ারকেও দুবার এলবিডব্লুতে আউট দিয়েছিলেন তানভীর ও গাজী সোহেল। কিন্তু দুবারই ব্যাট লেগে বল প্যাডে লেগেছিল, যেটি খালি চোখে স্পষ্টভাবেই দেখা গেছে। দুই ব্যাটসম্যানই রিভিউ নিয়ে বেঁচে গেছেন। এর আগে সাকিবের একটি আউটও দেননি, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফিল্ডাররা অবশ্য তার আপিলও করেননি। ওই ম্যাচেই নো বলের সংকেত নিয়েও একবার গড়বড় করেছিলেন সোহেল। ব্রাথওয়েট অবশ্য সেবারও প্রতিবাদ করেছিলেন। তার আগে সিলেটের ম্যাচে বৃত্তের ভেতর বাড়তি ফিল্ডার থাকার পরও নো দেননি আম্পায়ার। সেই বলে আউট হয়েছিলেন রভম্যান পাওয়েল, ব্রাথওয়েট তখনও বেশ কিছুক্ষণ কথা বলেছিলেন আম্পায়ারদের সাথে।

এসব কিছু নিয়ে প্রশ্ন উঠে গেছে বাংলাদেশের আম্পায়ারিংয়ের মান নিয়েই। তানভীরের অভিষেক হয়েছে এই সিরিজে, তার আগে বাংলাদেশের ঘরোয়া লিগে আম্পায়ারিং করেছেন অনেক দিন। আজকের ম্যাচের তৃতীয় আম্পায়ার গাজী সোহেলও দিয়েছেন একাধিক বিতর্কিত সিদ্ধান্ত। তাঁরও অভিষেক হয়েছে এই সিরিজেই।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD