চ্যাম্পিয়নরা ফিরেছে দেশে

চ্যাম্পিয়নরা ফিরেছে দেশে

সাফ অনুর্ধ্ব-১৮ ফুটবলের শিরোপা জিতে আজ সোমবার সকালে দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল। এই জয় পরবর্তী টুর্নামেন্টের আগে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে বলে জানালেন দলের কোচ এবং ফুটবলাররা। দক্ষিণ এশিয়ার অনুর্ধ্ব-১৮ ফুটবলের শ্রেষ্ঠ দলের স্বীকৃতি এখন বাংলাদেশের।

যাদের হাত ধরে এই সম্মান, একগুচ্ছ ফুল দিয়ে তাদের বরণ করে নেয়াটা হয়তো যথেষ্ট মনে হয়নি কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনের। তাই যাদের ছোট থেকে কখনও গুরুর ভুমিকায় আবার কখনও বাবার স্নেহে গড়ে তুলেছেন। দাড়িয়ে তাদেরকেই স্যালুট দিলেন নারী ফুটবলর দলের এই কোচ। পরে তিনি জানান, অনেক প্রতিকূলতার মধ্যদিয়ে এগিয়ে চলছে এদেশের নারী ফুটবল। অনেক প্রতিবন্ধকতা ছিলো। তারা ভালো খেলেই টুর্নামেন্টগুলোর ফাইনালে উঠতো। কিন্তু অজানা কী এক কারণে শিরোপা বঞ্চিত হতে হতো। এবার সেই অচলায়তন ভেঙেছে মেয়েরা। এতে প্রমান হয় যে বাংলাদেশের নারী ফুটবল এখন উন্নতির দিকে। ভবিষ্যতে আরো ভালো ফল বয়ে আনতে সক্ষম তারা দেশের জন্য।

আগস্টে ভুটানের চাংলিমিথাং স্টেডিয়ামেই অনুর্ধ্ব-১৫ সাফের ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে যে যন্ত্রনায় পুড়েছিলো বাংলাদেশ। এই জয় তাতে প্রলেপ দিয়েছে বলে মনে করেন ফুটবলাররা। মারিয়া মান্ডা বলেন, 'সেই টুর্নামেন্টে আমরা ভালো খেলেছি। কিন্তু ফাইনালে এসে আগের খেলা আর ধরে রাখা যায়নি। আমরা হেরে গিয়ে অনেক কষ্ট পেয়েছিলাম তখন। এবার শুরু থেকেই আমরা সতর্ক ছিলাম, যেন ফাইনালে আর কোনো বিপর্যয়ে না পড়ি।' আর অধিনায়ক মিশরাত জাহান মৌসুমী বলেন, 'চ্যাম্পিয়ন হ‌ওয়ার অানন্দটা ভাসায় প্রকাশ করা যাবে না। আমরা শিরোপা জিতে অনেক খুশি।'

২১ অক্টোবর তাজিকিস্তানে এএফসি অনুর্ধ্ব-১৯ বাছাইয়ের গ্রুপ পর্ব খেলতে তাজিকিস্তান যাবে মেয়েরা। এই শিরোপা জয়ের অভিজ্ঞতা সেখানে কাজে লাগবে বলে মনে করেন দলের ম্যানেজার আমিরুল ইসলাম বাবু। তিনি বলেন, 'আমাদের মেয়েরা এখন মানসিকভাবে অনেক ভালো আছে। তারা খেলার মধ্যে আছে। নিশ্চয়ই এএফসি কাপে তাদের পক্ষে ভালো কিছু করা সম্ভব।

অনুর্ধ্ব-১৫, ১৬ কিংবা ১৮ বয়সভিত্তিক ফুটবলে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম শ্রেষ্ঠ দল হিসেবে নিজেদের প্রমান করে চলেছে মেয়েরা। এবার লক্ষ্য মার্চে সাফ ফুটবলের শিরোপা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD