সফল সমাপ্তি এশিয়ান গেমসের

সফল সমাপ্তি এশিয়ান গেমসের

কবিরুল ইসলাম, ইন্দোনেশিয়া থেকে

জাকার্তা-পালেম্বাং এশিয়ান গেমসের উদ্বোধনের মতো সমাপনীতেও আয়োজনের কোন কমতি ছিল না। স্থানীয় আয়োজকরা নিজেদের যোগ্যতার প্রমান করতে কতো চেষ্টাই না করেছেন। তাদের সে চেষ্টাতে কিছুটা বাগড়া দিয়েছিল প্রকৃতি। কিন্তু কোন বাঁধাই হার মানাতে পারেনি সফল এ সমাপ্তির। রাতের কালো আঁধার ভেদ করে হাজারো লাল-নীল রশ্মির আলোকচ্ছ্বটায় আলোকিত হয়ে উঠে জাকার্তার আকাশ। করুন সুরে বিদায় জানানো হয় গেমসের তিন মাসকটকে (অতুন, বিনবিন, কাকা) বিদায় জানানো হয়। একই সঙ্গে স্বাগত জানানো হয় ২০২২ সালে চীনের হ্যানসো শহরে অনুষ্ঠেয় এশিয়ান গেমসকে। ওসিএ’র পতাকা ইন্দোনেশিয়ার পক্ষ থেকে চায়নিজ অলিম্পিক কমিটিকে দেয়া হয়। হ্যানসো প্রদেশের মেয়র ওসিএ’র পতাকা গ্রহণ করেন।

বিকেল থেকেই আচমকা কালো হতে শুরু করে জাকার্তার আকাশ। হঠাৎকরেই বিকেল পাঁচটায় শুরু হয় বৃষ্টি। কিন্তু প্রকৃতির কোন বাঁধাই মানেননি দর্শকরা। দল বেঁধে ঠিক সময়েই হাজির হন গেলোরা বুকার্নো ক্রীড়া কমপ্লেক্সের মূল স্টেডিয়ামে। স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটায় শুরু হয় মূল অনুষ্ঠান। মূল অনুষ্ঠান শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ আগে বৃষ্টি বন্ধ হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানের মঞ্চটা ছিল ভিন্ন রকম। গান ও নাচের জন্য বড় মঞ্চ। মঞ্চের দুই পাশ থেকেই গান হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ইন্দোনেশিয়ার সংস্কৃতি, জীবনযাত্রার বৈচিত্র্য তুলে ধরলেও সমাপনী অনুষ্ঠান ছিল অনেকটাই সঙ্গীত নির্ভর। গিগি, আইকন, বিসিএলের মতো জনপ্রিয় শিল্পিরা গান গেয়ে জিবিকে মাতিয়ে তোলেন। ইন্দোনেশিয়ান সঙ্গীতের পাশাপাশি আরবি, হিন্দি গানও পরিবেশন করাও হয়। সঙ্গীতের সাথে প্রযুক্তির ছোয়া ছিল চোখে পড়ার মতো। সঙ্গীতের মাঝেমাঝে মঞ্চে বড় ডিসপ্লে হয়েছে। সাথে আলোর ঝলকানি ও আতশবাজি ছিল।

ইন্দোনেশিয়ার জাতীয় সংগীত দিয়ে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাতটায় শুরু হয় অনুষ্ঠান। একটি সঙ্গীত ডিসপ্লের পর হয় মার্চ পাস্ট। বাংলাদেশের পতাকা বহন করেন সদ্য অবসরে যাওয়া জাতীয় দলের তারকা হকি খেলোয়াড় মামুনুর রহমান চয়ন।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আগে আনুষ্ঠানিক পর্ব ছিল। আনুষ্ঠানিক পর্বে অলিম্পিক কাউন্সিল অফ এশিয়ার সভাপতি আহমেদ ফাহাদ আল সাবাহ স্থানীয় সময় রাত আটটায় গেমসের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

ট্রাফিকের শহর হিসেবে খ্যাত জাকার্তা। তার বক্তব্যে জাকার্তার ট্রাফিক ও নিরাপত্তা কর্মীদের বিশেষ ধন্যবাদ দিয়েছেন, ‘ট্র্যাফিক অনেক পরিশ্রম করেছে গেমস সুষ্টভাবে আয়োজনের জন্য। তারা বিশেষ ধন্যবাদ প্রাপ্য।’ উদ্বোধনী অনুষ্টানে থাকলেও সমাপনী অনুষ্টানে ছিলেন না রাষ্ট্রপতি জোকো ইউদো। লম্বক থেকে ভিডিও বার্তা দিয়েছেন অবশ্য। ভিডিও বার্তায় গেমস সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন আইওসি সভাপতি ড. টমাস বার।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD