নকআউটে কলম্বিয়ার সঙ্গে জাপান

নকআউটে কলম্বিয়ার সঙ্গে জাপান

সেনেগালকে একমাত্র গোলে হারিয়ে ‘এইচ’ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে রাশিয়া বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে উঠে গেলো কলম্বিয়া। অন্য ম্যাচে, পোল্যান্ডের কাছে হেরে ১-০ গোলে হেরেও ফেয়ার প্লে পয়েন্টের সুবিধা নিয়ে শেষ ষোলতে জাপান। তাতে ২০০২ সালেরর পর আবারও বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠলো এশিয়ার এই দল।

ড্র করলেই বিশ্বকাপের নকআউট পর্ব নিশ্চিত এমন সমীকরনের ম্যাচে শুরুতেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল জাপানের কিন্তু ইউশিনি মুতার চেষ্টা বিফল করে দেন পোল্যান্ডের গোলকিপার।

অবশ্য পোলিশদের বিপক্ষে আগের দুই মোকাবেলায় জিতেছিল জাপানই। তবে ভলগোগ্রাদে, বল পজিশনে পোলিশরা এগিয়ে থাকলেও প্রথমার্ধে গোলে শট নেওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে থাকে ‘সামুরাই ব্লু’রা। কোনো দল গোলের মুখ খুলতে না পারায় গোলশূণ্য অবস্থায় বিরতিতে যায় দু’দল।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমনের ধার বাড়ায় জাপান। তবে তাদের প্রচেষ্টাগুলো সফল হয়নি। উল্টো খেলার ৫৯ মিনিটে রাফাল কুরজাওয়ার দারুণ ফ্রিকিক থেকে আনমার্কড জাঁ বেডনারেক এগিয়ে দেন পোল্যান্ডকে। তাতে ২০০২ সালের পর আবারও নকআউট পর্বে ওঠার আশা ক্ষীণ হতে থাকে জাপানের।

শেষ পর্যন্ত এক গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে পোল্যান্ড। তাতে বিশ্বকাপে গ্রুপে টানা তিন ম্যাচে না হারার রেকর্ডটা অক্ষন্ন রইলো রবার্ট লিওনডস্কির দলের। আর সমান গোল গড় হওয়ায় ‘ফেয়ার প্লে’ রেকর্ডে সেনেগালকে পেছনে ফেলে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌছে যায় এশিয়ান প্রতিনিধি জাপান।

সামারায় অন্য ম্যাচে, সেনেগালকে শেষ ষোলতে জায়গা করে নিতে কলম্বিয়ার সঙ্গে ড্র করলেই চলতো। খেলার গতি-প্রকৃতি তেমনই ছিল। গোল শূন্য অবস্থাতেই শেষ হয় প্রথমার্ধ। দ্বিতীয়ার্ধে দু’দলই গোলের চেষ্টা করতে থাকে।

খেলার ৭৪ মিনিটে ইয়েরে মিনা যে গোলেটি করেন তাতেই গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে মাঠ ছাড়ে কলম্বিয়া। আর তাতেই গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে শেষ ষোলয় জায়গা পাকা করে হামেস রড্রিগেজের দল। আর পয়েন্ট এবং গোল ব্যবধান সমান হলেও জাপানের চার হলুদ কার্ডের বিপরীতে ছয় হলুদ কার্ড পা‌ওয়ায় বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়, সাদিও মানের দল সেনেগাল।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD