বার্সেলোনা আর লিভারপুলের জয়

বার্সেলোনা আর লিভারপুলের জয়

এমনিতেই আত্মঘাতি, তার উপর আবার জোড়া- এমনটা হলে কোনো দল জয়ের স্বপ্নই দেখতে পারেনা। পারলোনা ইটালির এএস রোমা‌ও।এম ম্যাচে তাদেরকে ৪-১ ব্যবধানে বিধ্বস্ত করে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেমিফাইনালের পথে এগিয়ে গেলো স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। অন্যম্যাচে, দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ম্যানচেস্টার সিটিকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে আরেক ইংলিশ ক্লাব লিভারপুল।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে বোধহয় এর আগে এতটা নির্ভার দেখা যায়নি কোনো কোচকে। আর্নেস্তো ভালভার্দের যেনো জানাই ছিলো, তার শিষ্যরা বড় জয় পাবে ইতালিয়ান ক্লাব রোমার বিপক্ষে।

নিজেদের মাঠে ন্যু ক্যাম্পে, ম্যাচের শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে মাঠে নামা বার্সা খেলোয়াড়দের হানায় নাজেহাল হয়ে পড়ে ইতালিয়ানদের রক্ষণভাগ। একবার অফসাইডের অজুহাতে আর গোটা তিনেকবার রোমা গোলরক্ষক অ্যালিসন রক্ষা করেছেন অতিথিদের।
কিন্তু ৩৮ মিনিটে ঠিকই এগিয়ে যায় বার্সা। তবে এবার রোমা অধিনায়ক ড্যানিয়েল ডি রসি’ই বল পাঠিয়ে দেন নিজেদের জালে।

৫৫ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণও হয়েছে অনেকটা একইভাবে। জয়ের সুবাস পেতে শুরু করা ক্যাটালানদের হয়ে জেরার্ড পিকে আর লুইস সুয়ারেজ আরও দুই গোল করে ব্যবধানটা বড় করে নেন। এর মধ্যে ৮৭ মিনিটে এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজের প্রথম গোলের দেখা পান লুইস সুয়ারেজ।

এদিকে, একাটি হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আশায় বসে থাকা দর্শকদের এক তরফা আর দারুণ এক জয় উপহার দিয়েছে লিভারপুল। দুই ইংলিশ ক্লাবের লড়াই শুরুর আগেই সিটির বাসে দর্শকদের হামলায় জানালার কাঁচ ভাঙে। তাতেই যেনো ভেঙে পড়ে, অ্যানফিল্ডে এদিন চেনা ছন্দে পাওয়াই গেলো না পেপ গার্দিওলার শিষ্যদের। বলের দখলে এগিয়ে থাকলেও গোটা ম্যাচে সিটিজেনদের কোনো আকমণই লক্ষ্যে ছিলো না।
উল্টো ম্যাচের ১২ মিনিটেই লিভারপুলকে এগিয়ে দেন মিশরের তারকা মোহাম্মদ সালাহ।

৮ মিনিট পর চেম্বারলিন ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। ম্যাচের আধঘন্টা পার হতেই সাদিও মানের আরও এক গোলে প্রথমার্ধেই জয় নিশ্চিত করে ফেলে অল রেডরা। তাতে ঘরের মাঠে ফিরতি লেগটা বাঁচা-মরার ম্যাচে পরিণত হলো ম্যানচেস্টার সিটির জন্য।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD