বাংলাদেশ দলে অবদান রাখতে চান সানজামুল

বাংলাদেশ দলে অবদান রাখতে চান সানজামুল

ব্যাটিং, বোলিং এবং ফিল্ডিং সব বিভাগেই বাংলাদেশ দলে অবদান রাখতে চান সানজামুল ইসলাম। অনেকদিন পর জাতীয় দলে ফেরার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে নিয়মিত হতে চান তিনি। মিরপুরে অনুশীলন শেষে টাইগার স্পিনার আরো বলেন, ত্রিদেশীয় সিরিজে প্রতিপক্ষের দুর্বলতা এবং শক্তিমত্তা বিবেচনায় রেখেই দল সাজাবে বাংলাদেশ।

গত বছর আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের দলে প্রথমবার সুযোগ পেয়েছিলেন সানজামুল ইসলাম। কিন্তু মাত্র একটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পান। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সেই ম্যাচে ৫ ওভার বোলিং করে ২২ রানে তুলে নেন ২টি উইকেট। এরপর আর জাতীয় দলে খেলার সুযোগ আসেনি। সম্প্রতি জাতীয় ক্রিকেট লিগ (এনসিএল) ও বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ৫ম আসরে ভালো পারফর্ম করার সুবাদে সুযোগ পেয়েছেন জাতীয় দলের ১৬ জনের স্কোয়াডে। বিপিএলে চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে ১১ উইকেট পেয়েছিলেন এই বামহাতি স্পিনার।

প্রায় ৮ মাস পর জাতীয় দলের স্কোয়াডে ফিরে নিজের অবস্থান শক্তপোক্ত করার কথা জানান সানজামুল। আজ বুধবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন দলে সুযোগ না পাওয়ায় মোটেই হতাশ নন। ‘হতাশা না আসলে। আমি ওখানে একটা ম্যাচ খেলার পর আর সুযোগ পাইনি কন্ডিশনের কারণে। বাইরে বসে থেকে অনেক কিছু শেখার চেষ্টা করেছি। ওটা অ্যাপ্লাই করে এখন সুযোগ পেয়েছি সো দ্যাট, এখন যেন আমি ভালো কিছু করতে পারি। দলে এখন নিয়মিত ক্রিকেটার হতে পারি। এটাই আমার টার্গেট।’

মিরপুরের একাডেমী মাঠে নেটের এক প্রান্তে ব্যাট করছিলেন মুশফিকুর রহিম। অন্যপ্রান্তে ঘাম ঝড়াচ্ছিলেন বোলার মোস্তাফিজুর রহমান, সানজামুলরা। যাদের মুল দায়িত্ব উইকেট তুলে নেয়া হলেও, ব্যাট হাতেও যেনো জ্বলে উঠতে পারেন, সেই অনুশীলনটাই করলেন ক্রিকেটাররা। সানজামুল বললেন, আধুনিক ক্রিকেটে লোয়ার অর্ডারদেরও ব্যাটিং জানতে হয়।

আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজে মূল একাদশে থাকাই সানজামুলের লক্ষ্য পাশাপাশি টাইগার দলে নিয়মিত হতে চান এই বামহাতি স্পিনার, ‘এটা তো অবশ্যই টার্গেট থাকবে। আমার লক্ষ্য যে এগারজনে থাকা এবং ওখানে থেকে ভালো খেলে দলে নিয়মিত থাকা।’ আসন্ন ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশ দলে সাকিব আল হাসানের পাশাপাশি দ্বিতীয় বামহাতি স্পিনার হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন সানজামুল ইসলাম।

আগের দিন হাতে ব্যাথা পাওয়া অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সব শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন। রিচার্ড হ্যালসেল সময় দিয়েছেন ফিল্ডিংয়ে, আর সবকিছুর তদারকিতে ছিলেন খালেদ মাহমুদ সুজন।

প্রতিপক্ষ দুই দলের কোচ হিথ স্ট্রিক এবং চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বাংলাদেশের শক্তিমত্তা, এবং দুর্বলতা সবই জানা। তবু টাইগার ক্রিকেটাররা বলছেন, অভিজ্ঞতাই বাকিদের চেয়ে তাদের এগিয়ে রাখবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD