শিরোপার আরো কাছে রিয়াল মাদ্রিদ

শিরোপার আরো কাছে রিয়াল মাদ্রিদ

শিরোপা লড়াইয়ে রিয়াল মাদ্রিদ আর বার্সেলোনা চলছে সমান তালে। শনিবার বার্সেলোনার জয়ের রাতে, জিতেছে রিয়াল মাদ্রিদও। গ্রানাডার মাঠে লা ব্লাঙ্কেরা জিতেছে ৪-০ গোলে। দুটি গোল করেন হামেস রড্রিগেজ আর আলভারো মোরাতা। সবকটি গোলই হয় খেলার প্রথমার্ধে।
ইনজুরির কারণে এই ম্যাচে ছিলেন না রিয়াল মাদ্রিদের গ্যারেথ বেল, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকেও রাখা হয় বিশ্রামে। আর নিয়মিত গোলকিপার নাভাসও ছিলেন এই ম্যাচের দর্শক হিসেবে। তবে এইসব তারকোদের অভাব মোটেই বুঝতে দেননি বাকীরা। দুর্দান্ত খেলে প্রথমার্ধেই ৪-০ গোলে এগিয়ে যায় জিনেদিন জিদানের দল।
রিয়ালের গোল উৎসবের শুরু খেলার ৩ মিনিটেই। ডান প্রান্ত থেকে লুকাস ভাসকেসের বাড়ানো ক্রস রড্রিগেজের পায়ে লেগে জালে জড়ায়। এই গোলের রেশ কাটতে না কাটতেই, আট মিনিট পর বাঁ-দিক থেকে পর্তুগালের ফ্যাবিও কোয়েন্ত্রাওয়ের ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে দলকে ২-০ গোলের লিড এনে দেন কলম্বিয়ান এই মিডফিল্ডার হামেস রড্রিগেজ।
কিছুক্ষণ পর চার মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করে ব্যবধান চারগুণ করেন মোরাতা। ৩০ মিনিটে ড্যানিলোর কাছ থেকে বল পেয়ে রিয়াল মাদ্রিদকে ৩-০ গোলে এগিয়ে দেন মোরাতা। ৩৫ মিনিটে একক নৈপুণ্যে দলের চতুর্থ গোলটি করেন মোরাতা; ডি-বক্সের মধ্যে বাঁ-দিকে এক জনকে কাটিয়ে কোনাকুনি শটে চলতি লিগে নিজের ১৫তম গোলটি করেন তিনি।
খেলার বাকী সময়টা দুই দলই চেষ্টা করে গোল সংখা বাড়ানো আর গোল পরিশোধের। কিন্তু কোনো দল সফল হয়নি। ৪-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে রিয়াল মাদ্রিদ। এই জয়ে এক ম্যাচ কম অর্থাৎ ৩৫ ম্যাচ খেলে বার্সার সমান রিয়াল পয়েন্ট ৮৪। তবে মুখোমুখি লড়াইয়ে পিছিয়ে দ্বিতীয় স্থানে তারা। শিরোপা ভাগ্য অবশ্য রিয়ালের নাগালেই। সেভিয়া, সেল্টা ভিগো ও মালাগার বিপক্ষে নিজেদের বাকি তিন ম্যাচে ৭ পয়েন্ট পেলেই ২০১২ সালের পর আবারও লা লিগার শিরোপা জিতবে মাদ্রিদের ক্লাবটি। শিরোপাধারী বার্সেলোনার শেষ দুই প্রতিপক্ষ লাস পালমাস ও এইবার।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD