আমাদের ব্যাটিং-বোলিং আপ টু দ্য মার্ক ছিল না

আমাদের ব্যাটিং-বোলিং আপ টু দ্য মার্ক ছিল না

গেলো ২৮ ফেব্রুয়ারি সব শেষ বাংলাদেশ টস জিতেছিল এশিয়া কাপে। যেখানে তাদের প্রতিপক্ষ ছিল শ্রীলঙ্কা। এরপর টানা ৫টি ম্যাচ মাঠে গড়িয়েছে, তবে একটিতেও টস জিততে পারেনি মাশরাফিরা। পাঁচ ম্যাচের পর বুধবার (১৬ মার্চ) বিশ্বকাপের মূল পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচেও পাকিস্তানের বিপক্ষে টস না জেতায় টানা ছয় ম্যাচ টস হারের একটা ছোটখাটো রেকর্ড বয়ে বেড়াতে হচ্ছে টাইগার দলপতি মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। আগের ম্যাচগুলো বাদ। পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বমঞ্চের ম্যাচে টস না জেতাটা দলের জন্য কিছুটা ক্ষতির কারণ হয়েছে বলে জানালেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।
বুধবার সন্ধ্যায় ইডেন গার্ডেন্সে ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে টাইগার দলপতি এমনটিই জানালেন। পাকিস্তানের বিপক্ষে টস জয়ের গুরুত্ব তুলে ধরে ম্যাশ বলেন, টস হারায় আমরা আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পারিনি। পরিকল্পনা ছিল টস জিতলে আগে ব্যাটিং করবো। সেটি আমরা পারিনি। তাই আমার মনে হয় টস জিতলে ম্যাচের দৃশ্য অন্যরকম হলেও হতে পারতো।
উল্লেখ্য, আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মূল পর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৫৫ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি মাশরাফি এও মনে করেন, পাকিস্তানের ব্যাটিং ইনিংসের প্রথম ছয় ওভার গুরুত্বপূর্ণ ছিল।
‘ওরা প্রথম ছয় ওভারে যে শটগুলো খেলেছে সেই চাপ আমরা নিতে পারিনি।’
এদিন আহমেদ শেহজাদ ও মোহাম্মদ হাফিজের ব্যাট বেশ ভুগিয়েছে টাইগার বোলারদের। শেহজাদের ৩৯ বলে ৫২ ও হাফিজের ৪২ বলে ৬৪ রানের ইনিংস পুরো পাক টিমকে দিয়েছে ২০১ রানের এক সমৃদ্ধ স্কোর, যা দিন শেষে তাদের জয়ের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই ম্যাশ বললেন, হাফিজ প্রথম ছয় ওভারে যে ব্যাটিং করেছে, তাতেই ওরা ২০১ রানের বড় সংগ্রহ পেয়েছে। তবে আমরা ওদের ১৫০-৬০ রানের মধ্যে বেঁধে ফেলতে পারলে ফলাফল অন্যরকম হতে পারতো।
একথা অনস্বীকার্য যে, টুর্নামেন্টের শুরুর ম্যাচটি সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ। এই ম্যাচের জয়টি পরবর্তী ম্যাচগুলোতেও বেশ প্রভাব ফেলে। তাই টাইগার অধিনায়ক মনে করেন, পাকিস্তান পরের ম্যাচগুলেতেও ভালো করবে।
‘পাকিস্তানে টুর্নামেন্টের শুরটা ভালো করেছে তাই পরের ম্যাচ গুলোতেও ভালো করবে। ওদের আত্ববিশ্বাস ভালো থাকবে।’
পাকিস্তানের ক্ষুরধার ব্যাটিং তাদের জয়ের কারণ একথা যেমন ঠিক তেমনি একথাও ঠিক যে টাইগারদের দুর্বল বোলিংই তাদের এই সংগ্রহে সাহায্য করেছে। এ বিষয়ে মাশরাফি বললেন, আমাদের বোলিং ও ব্যাটিং আপ টু দ্য মার্ক ছিল না। ব্যাটসম্যানদের কথা বলবো না কারণ ২০০ রান চেজ করতে হলে রিস্ক নিতে হবে। আর আমির, ইরফানকে যে কোনো উইকেটে ফেস করা কঠিন। আমি মনে করি ওরা যে স্কোরটা করেছে সেটি আমাদের জন্য বড় চাপ ছিল।
তুবে মাশরাফি মনে করেন এদিন পরিকল্পনা অনুযায়ী খেললে দলের ফলাফল ভিন্ন হতে পারতো।
‘আমরা আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পারিনি, যেমন যদি আমাদের বোলাররা কিছু রান আটকাতে পারতো তাহলে আমাদের ব্যাটসম্যানদের জন্য সুবিধা হতো। হয়ত বা খেলাটা অন্যরকমও হতে পারতো।
এদিকে পাকিস্তানের বিপক্ষে এই ম্যাচে দারুণ সম্ভাবনা থাকার পরও খেলতে পারেনি মুস্তাফিজ। তবে পরের ম্যাচে তিনি ফিরবেন বলে জানালেন ম্যাশ। ‘ওর সম্ভাবনা অনেক ক্লোজ ছিল, সামনের ম্যাচে ও আসরে সম্ভাবনা আছে দেখা যাক। তবে প্রথম ম্যাচ সব সময়ই গুরুত্বপূর্ণ আমি চাচ্ছিলাম ও খেলুক।’

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD