রাত ৮:০১, বুধবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০১৯ ইং
/ ক্রিকেট

বিপিএলে দিনের প্রথম ম্যাচে রাজশাহী কিংসকে ৬ উইকেটে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে এলো চিটাগং ভাইকিংস। আগের ছয় ম্যাচের পাঁচটিতে জেতা দলটি দুই ম্যাচ কম খেলেও ঢাকার সমান ১০ পয়েন্ট নিয়ে ছিল দুইয়ে। আজ বুধবার জিতে শীর্ষে উঠেছে ভাইকিংসরা। টেবিলের শীর্ষে থেকেই তারা ঘরে যাচ্ছে। ঢাকা-সিলেট-ঢাকা ঘুরে বিপিএলের যাত্রা এবার বন্দরনগরী চট্টগ্রামে।

১৫৮ রানের টার্গেটে নেমে মুশফিকুর রহিমের ৬৪ ও মোসাদ্দেক হোসেনের ৪৩ রানের দুই অপরাজিত ইনিংসে ভর করে দুই বল আর ৬ উইকেট হাতে রেখে ম্যাচ জিতে নেয় চিটাগং। সাত ম্যাচের ছয়টিতে জিতে ১২ পয়েন্ট নিয়ে একনম্বরে এখন তারা। আট ম্যাচ খেলে ১০ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে ঢাকা ডায়নামাইটস। সমান ম্যাচে সমান ১০ পয়েন্ট থাকলেও রানরেটে পিছিয়ে তিনে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস।

রাজশাহীর মতো শুরুটা মনের মতো হয়নি ভাইকিংসেও। স্কোরবোর্ডে ৬ রান উঠতেই ফেরেন ক্যামরন ডেলপোর্ট (১)। সাউথ আফ্রিকান এই ব্যাটসম্যানকে ফেরান মেহেদী হাসান মিরাজ। ডেলপোর্টের পর ভাইকিংসদের পরের তিন ব্যাটসম্যানও ফেরেন রাজশাহীর স্পিন ফাঁদে পড়ে। তিনজনকেই তুলে নেন আরাফাত সানি। প্রথমে ৩ রান করা ইয়াসির আলিকে ক্যাচ বানান জাকির হোসেনের হাতে। এরপর ২৫ রান করা মোহাম্মদ শাহজাদ ফেরেন সৌম্যর হাতে ক্যাচ দিয়ে।

৩০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে দল যখন বিপদে, তখন এই ম্যাচে সানাকার বদলে দলে আসা নাজিবুল্লাহ জাদরানকে নিয়ে ৪১ রানের জুটি গড়েন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু ১৯ বলে ২৩ রান করে ক্রিস্টিয়ান জোঙ্কারের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন আফগান তারকা।

অন্যরা যখন নিয়মিত বিরতিতে সাজঘরে ফিরেছেন, তখন একপ্রান্তে জমে থাকেন মুশফিক। স্কোরবোর্ডেও ঠিকমতো চোখ রাখেন অধিনায়ক। একই সাথে যোগ্য সঙ্গী হিসেবে পান মোসাদ্দেক হোসেনকে। দলকে সামনে থেকে পথ দেখানোর সঙ্গে ৩৯ বলে হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন মুশফিক।

শেষ তিন ওভারে চিটাগংয়ের প্রয়োজন ছিল ২৬ রান। মুস্তাফিজুর রহমানের করা ১৮তম ওভারে ১২ রান নিয়ে ম্যাচ সহজ করে ফেলেন মুশফিজ ও মোসাদ্দেক। যদিও ওভারের শেষ বলে মুশফিকের ক্যাচ নিতে পারেননি জোঙ্কার। তার হাত ফঁসকে ছয় রানের জন্য বল চলে বাউন্ডারি বাইরে।

শেষ পর্যন্ত দুই বল বাকি থাকতে ৬ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় চিটাগং। ৪৬ বলে ছয়টি চার ও দুই ছক্কায় ৬৪ রানে অপরাজিত থাকেন মুশফিক। খুব একটা কম যানি মোসাদ্দেকও। শেষ বলে চার মেরে দল জেতানো মোসাদ্দেক ২৬ বলে ৪৩ রান করে অপরাজিত থাকেন।

আবার‌ও ‌ওয়ানডে দলে সাব্বির-তাসকিন

বাংলাদেশের ‌ওয়ানডে দলে আবার‌ও ফিরেছেন সাব্বির রহমান ‌ও তাসকিন আহমেদ। সবশেষ জাতীয় দল থেকে বাদ পড়েছেন চারজন ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড সফরের জন্য ১৫ সদস্যের আজ ঘোষিত দলে জায়গা হয়নি আরিফুল হক, নাজমুল ইসলাম, ইমরুল কায়েস ও আবু হায়দার রনির। নতুন মুখ স্পিনার নাঈম হাসান।

২০১৭ সালের অক্টোবরে শেষ ওয়ানডে খেলেছিলেন তাসকিন। ফিটনেস ও ফর্মহীনতায় জাতীয় দলে আর সুযোগ পাননি এই ডানহাতি পেসার। চলতি বিপিএলে বল হাতে দ্যুতি ছড়িয়ে তাসকিন ফিরেছেন ওয়ানডেতে।

এদিকে নিষেধাজ্ঞা কমিয়ে সাব্বির রহমানকে দলে রেখেছে বিসিবি। গত সেপ্টেম্বরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে ছয় মাসের জন্য নিষিদ্ধ হন সাব্বির। ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ হতো সেই নিষেধাজ্ঞা। কিন্তু জাতীয় দলের ‘স্বার্থে’ তাকে দলে রেখেছে টিম ম্যানেজম্যান্ট। দলে আছেন মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, মুস্তাফিজ, মিরাজ, রুবেল। সাকিবের সঙ্গী হয়েই নিউজিল্যান্ড যাবেন স্পিনার নাঈম হাসান।

নেপিয়ার, ক্রাইস্টচার্চ ও ডুনেডিনে ১৩, ১৬ ও ২০ ফেব্রুয়ারি হবে তিনটি ওয়ানডে ম্যাচ।

ওয়ানডে দল: মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাশ, সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, রুবেল হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, নাঈম হাসান, মোহাম্মদ মিথুন, সাইফউদ্দিন, তাসকিন আহমেদ ও সাব্বির রহমান।

খুলনাকে ৬ উইকেটে হারিয়ে চতুর্থ জয় পেলো রংপুর

বড় রান তাড়ায় উড়ন্ত সূচনা এনে দিলেন অ্যালেক্স হেলস। মাঝে রানের গতিটা ধরে রাখলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স। ফিফটি করলেন ক্রিস গেইল। টপ অর্ডারের দৃঢ়তায় রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে খুলনা টাইটানসকে হারালো রংপুর রাইডার্স। বিপিএলে আজ মঙ্গলবারের প্রথম ম্যাচে ৬ উইকেটে জিতেছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। ১৮২ রানের লক্ষ্য তিন বল বাকি থাকতে পেরিয়ে যায় গত আসরের চ্যাম্পিয়নরা।

মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি খুলনার। আল আমিন জুনিয়রকে প্রথম ওভারে কট বিহাইন্ড করে ফেরান মাশরাফি। আরেক ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিককে বিদায় করেন ফরহাদ রেজা।

ব্রেন্ডন টেইলরের সঙ্গে ৪৯ ও মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে ৫৬ রানের জুটিতে দলকে ৩ উইকেটে ১৩৪ রানের দৃঢ় ভিতের ওপর দাঁড় করান নাজমুল হোসেন শান্ত। ষোড়শ ওভারে পরপর দুই বলে মাহমুদউল্লাহ ও শান্তকে বিদায় করে খুলনাকে চাপে ফেলে দেন রেজা। এই অলরাউন্ডার দ্রুত ফেরান রানের জন্য সংগ্রাম করা আরিফুল হককেও।

একটি করে ছক্কা-চারে ২০ বলে ২৯ রান করা অধিনায়ক সীমানায় ধরা পড়েন নাজমুল ইসলাম অপুর হাতে। রেজাকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে শেষ হয় শান্তর ৩৫ বলে তিন ছক্কা আর দুই চারে গড়া ৪৮ রানের ইনিংস।

দ্রুত ৩ উইকেট হারানো খুলনাকে ১৮১ পর্যন্ত নিয়ে যান ডেভিড ভিসা। বোলারদের ওপর চড়াও হওয়া দক্ষিণ আফ্রিকার এই অলরাউন্ডার ১৫ বলে তিন চার আর দুই ছক্কায় অপরাজিত থাকেন ৩৫ রানে।

৩২ রানে ৪ উইকেট নেন রেজা। আঁটসাঁট বোলিংয়ে ১৭ রানে ১ উইকেট নেন অধিনায়ক মাশরাফি।

রান তাড়ায় হেলসের ব্যাটে উড়ন্ত সূচনা পায় রংপুর। গেইলের সঙ্গে ৭.৪ ওভার স্থায়ী উদ্বোধনী জুটিতে ৭৪ রান তোলেন এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান। বোলারদের তুলোধোনা করা হেলস ২৬ বলে পৌঁছান ফিফটিতে। সে সময় গেইল ছিলেন যেন দর্শক হয়ে। সতীর্থ পঞ্চাশ ছোঁয়ার সময় তার রান ছিল ১০ বলে চার!

এবারের আসরে প্রথমবারের মতো খেলতে নামা পাকিস্তানের লেগ স্পিনার ইয়াসির শাহ বোল্ড করে থামান হেলসকে। ডানহাতি এই ব্যাটসম্যানের ২৯ বলে খেলা ৫৫ রানের বিস্ফোরক ইনিংস গড়া আট চার ও তিন ছক্কায়।

আগের ম্যাচে মিডল অর্ডারে ব্যাট করা ডি ভিলিয়ার্স প্রমোশন পেয়ে নামেন তিনে। মারকুটে এই ব্যাটসম্যান ক্রিজে এসেই চড়াও হন বোলারদের ওপর। রান আসতে থাকে বানের স্রোতের মতো। খুলনার বোলাররা যেন ভেবেই পাচ্ছিলেন না বল ফেলবেন কোথায়।

মাহমুদউল্লাহকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে বলে-ব্যাটে করতে না পেরে এলবিডব্লিউ হয়ে যান ডি ভিলিয়ার্স। ২৫ বলে খেলা তার ৪১ ইনিংস গড়া চার ছক্কা ও তিন চারে। তার সঙ্গে ৪৩ রানের জুটিতে গেইলের অবদান মাত্র ২!

ডি ভিলিয়ার্সের বিদায়ের পর কিছুটা ভাটা পড়ে রানের গতিতে। মাহমুদউল্লাহকে তিন ছক্কা হাঁকিয়ে ডানা মেলেন গেইল। জুনাইদ খানকে চার হাঁকিয়ে এবারের আসরে প্রথমবারের মতো পৌঁছান ফিফটিতে।

পাকিস্তানের বাঁহাতি পেসারকে ছক্কা হাকাতে গিয়ে শেষ হয় গেইলের পথ চলা। ৪০ বলে ৫ ছক্কা ও দুই চারে বাঁহাতি এই ওপেনার করেন ৫৫ রান। তার বিদায়ের পর দ্রুত বিদায় নেন মোহাম্মদ মিঠুনও। তবে ইয়াসিরকে ছক্কা হাঁকিয়ে দলকে দারুণ জয় এনে দেন রাইলি রুশো। ৩ বলে ১০ রানে অপরাজিত থাকেন ছন্দে থাকা বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান।

আট ম্যাচে সপ্তম হারের তেতো স্বাদ পেলো খুলনা। সমান ম্যাচে চতুর্থ জয় পেলো রংপুর। আর ব্যাটিং সহায়ক পিচে ৪ উইকেট পাওয়া পেসার রেজা জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

বিরাট কোহলির বিরল রেকর্ড

ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলির সাফল্যের মুকুটে নতুন পালক যোগ হলো আজ মঙ্গলবার। আইসিসি’র বর্ষসেরা ২০১৮ পুরস্কার (স্যার গারফিল্ড সোবার্স ট্রফি) জিতলেন ভারত অধিনায়ক।

সেই সঙ্গে বর্ষসেরা টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটার‌ও নির্বাচিত হন কোহলি। ক্রিকেট ইতিহাসে বিরাটই প্রথম ক্রিকেটার যিনি একই বছরে এই তিন সম্মান একসঙ্গে পেলেন। এছাড়াও আইসিসি’র বর্ষসেরা টেস্ট ও বর্ষেসেরা ওয়ানডে দলের অধিনায়ক‌ও নির্বাচিত হয়েছেন বিরাট কোহলি। এই নিয়ে টানা দু’বছর ‘স্যার গারফিল্ড সোবার্স ট্রফি’ জিতলেন ভারত অধিনায়ক।

কোহলির সঙ্গে আইসিসি’র বর্ষসেরা ক্রিকেটার ও বর্ষসেরা টেস্ট ক্রিকেটারের লড়াইয়ে ছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার কাগিসো রাবাদা। ২০১৮ সালে টেস্টে সর্বাধিক ৫২ উইকেট তুলে নেন রাবাদা। অন্যদিকে বর্ষসেরা ওয়ানডে ক্রিকেটারের লড়াইয়ে কোহলির সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছিলেন আফগান স্পিনার রাশিদ খান। শেষ পর্যন্ত অবশ্য আইসিসি’র সেরা তিন পুরস্কারই জেতেন বিরাট কোহলি।

২০১৮ বর্ষে ১৩টি টেস্ট ম্যাচ খেলেন বিরাট। তাতে কোহলির সংগ্রহ ১৩২২ রান। সেঞ্চুরি পাঁচটি। গড় ৫৫.০৮। সেই সঙ্গে ১৪ ওয়ানডে ম্যাচে বিরাট করেন ১২০২ রান। ব্যাট থেকে ছটি সেঞ্চুরি এসেছে। ১০টি টি-টোয়েন্টিতে তার সংগ্রহ ২১১ রান।

আইসিসি’র সেরা তিন পুরস্কার জিতে ভিডিও বার্তায় বিরাট বলেন, ‘পরিশ্রমের ফলে পেলাম। সম্মানিত লাগছে। অবশ্যই আজ ক্রিকেট ক্যারিয়ারের অন্যতম গর্বের দিন। এই পুরস্কার আগামী দিনে আরও ভালো খেলার অনুপ্রেরণা জোগাবে।’

আইসিসি’র বর্ষসেরা টেস্ট দল

১. টম লাথাম (নিউজিল্যান্ড)

২. দিমুথ করুণারত্নে (শ্রীলঙ্কা)

৩. কেন উইলিয়ামসন (নিউজিল্যান্ড)

৪. বিরাট কোহলি (ভারত, অধিনায়ক)

৫. হেনরি নিকোলস (নিউজিল্যান্ড)

৬. রিশব পান্ট (ভারত, উইকেটরক্ষক)

৭. জ্যাসন হোল্ডার (ওয়েস্ট ইন্ডিজ)

৮. কাগিসু রাবাদা (দক্ষিণ আফ্রিকা)

৯. নাথান লিয়ন (অস্ট্রেলিয়া)

১০. জাসপ্রিত বুমরাহ (ভারত)

১১. মোহাম্মদ আব্বাস (পাকিস্তান)।

আইসিসির বর্ষসেরা ‌ওয়ানডে দলে মুস্তাফিজ

টেস্ট দলে না থাকলে‌ও আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে একাদশে জায়গা পেয়েছেন বাংলাদেশের পেসার 'কাটার মাস্টার' মুস্তাফিজুর রহমান। ১৮ ম্যাচে ৪ দশমিক দুই ইকোনমি রেটে ২৯ উইকেট নিয়ে গত বছরটা দুর্দান্ত কাটিয়েছেন এই কাটার মাস্টার।

ডেথ ওভারে নিয়মিতই ব্যাটসম্যানদের চমকে দিচ্ছেন বাঁহাতি এই পেসার। তাতে গত বছরের সেরা ওয়ানডে দলে জায়গা করে নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। বর্ষসেরা টেস্ট দলও ঘোষণা করেছে আইসিসি। তবে সেখানে জায়গা পাননি বাংলাদেশী কোন ক্রিকেটার।

আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে একাদশ (ব্যাটিং অর্ডার অনুযায়ী)

১. রোহিত শর্মা (ভারত)

২. জনি বেয়ারস্টো (ইংল্যান্ড

৩. বিরাট কোহলি (ভারত, অধিনায়ক)

৪. জো রুট ( ইংল্যান্ড)

৫. রস টেলর (নিউজিল্যান্ড)

৬. জস বাটলার (ইংল্যান্ড, উইকেটরক্ষক)

৭. বেন স্টোকস (ইংল্যান্ড)

৮. ‍মুস্তাফিজুর রহমান (বাংলাদেশ)

৯. রশিদ খান (আফগানিস্তান)

১০. কুলদীপ যাদব (ভারত)

১১. জাসপ্রিত বুমরাহ (ভারত)।

কুমিল্লাকে ৩৮ রানে হারাল রাজশাহী

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ-বিপিএলে দিনের প্রথম ম্যাচে আজ সোমবার তারকাবহুল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ৩৮ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে রাজশাহী কিংস। লরি ইভান্সের অপরাজিত সেঞ্চুরিতে রানের পাহাড় গড়ার পর বল হাতেও ঝলসে ‌ওঠে রাজশাহীর বোলাররা। ১০ রানে ৪ উইকেট নিয়ে কুমিল্লাকে ধরাশায়ী করেন পেসার কামরুল ইসলাম রাব্বি।

১৭৭ রানের বড় টার্গেটে নেমে কুমিল্লাকে ভালো শুরু এনে দেন, তামিম ইকবাল এবং এনামুল হক বিজয়। ২৪ বলে ২ চার ২ ছক্কায় ২৫ রান করে রাব্বির শিকার হন তামিম। এই বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে পারেনি ভিক্টোরিয়ান্স। আরাফাত সানির বলে ক্যাচ তুলে দেন শামসুর রহমান (১৫)। জিয়াউর রহমান (১২) শিকার হন ডয়েশ্চটের। ৫ নম্বরে নেমে ১০ বলে ১৫ রান করে কায়েস আহমেদের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন অধিনায়ক ইমরুল কায়েস।

বিধ্বংসী লঙ্কান অলরাউন্ডার থিসারা পেরেরা কোনো রান করার আগেই সাজঘরে ফেরেন। লিয়াম ডসনকে নিয়ে বিপদ কাটানোর চেষ্টা করেন শহিদ আফ্রিদী। কিন্তু পাকিস্তানি এই তারকা ১৫ বলে ১৯ রান করে কায়েস আহমেদের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন। তাতে ধসে পড়ে কুমিল্লার ইনিংস। ফিরতি ওভারে এসেই পরপর দুই বলে লিয়াম ডসন (১৭) এবং মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে (০) তুলে নেন রাব্বি।

মেহেদী হাসানকে (১) ফিরিয়ে শেষ পেরেকটা ঠুকে দেন মুস্তাফিজুর রহমান। ১৮.২ ওভারে কুমিল্লা গুটিয়ে যায় ১৩৮ রানে। কামরুল ইসলাম রাব্বি তুলে নেন ৪ উইকেট। আর দুটি করে উইকেট নেন কায়েস আহমেদ এবং ডয়েশ্চট।

এরআগে, মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে, টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শাহরিয়ার নাফিজ, অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ ‌ও মার্শাল আইয়ুবের উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে রাজশাহী কিংস।

এরপর ওপেনার লরি ইভান্সের সঙ্গে জুটি গড়েন টেন ডয়েশ্চট। ৪০ বলে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন ইভান্স। শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের এই তারকা ব্যাটসম্যান ৬ষ্ঠ বিপিএলে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে সেঞ্চুরি করেন। ৬১ বলে শতরান করার পর ৬২ বলে ৯ চার ৬ ছক্কায় ১০৪ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। টি-টোয়েন্টিতে এটা তার প্রথম সেঞ্চুরি।

ইভান্সের সঙ্গী ডয়েশ্চট অপরাজিত থাকেন ৪১ বলে ২ চার ৩ ছক্কায় ৫৯ রানে। দুজনের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে আসে ১৪৮ রান। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৩ উইকেটে ১৭৬ রান তোলে রাজশাহী কিংস।

বিপিএল আবার‌ও ঢাকায়

সিলেট পর্ব শেষে একদিনের বিরতি। তারপর আবারও ঢাকায় ফিরছে বিপিএল। আগামী সোমবার থেকে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হবে বিপিএলের খেলা। দিনের প্রথম ম্যাচে দুপুর দেড়টায় মুখোমুখি হবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রাজশাহী কিংস। সন্ধ্যা সাড়ে ছ’টায় দ্বিতীয় ম্যাচে লড়বে ঢাকা ডায়নামাইটস এবং চিটাগং ভাইকিংস।

৬ ম্যাচে ৪ জয় ও ২ হারে ৮ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয় স্থানে কুমিল্লা। ঢাকায় ৪টি ম্যাচে ২টি করে জয় ও হারের স্বাদ নিয়েছিল তারা। তবে সিলেটে ২টি ম্যাচে অংশ নিয়ে শতভাগ সাফল্য পায় ইমরুল কায়েসের দল। প্রথম ম্যাচে সিলেট সিক্সার্সকে ৬৮ রানে গুটিয়ে ৫৩ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটে জয় পায় তারা। আর দ্বিতীয় ম্যাচে ৩ উইকেটে হারায় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের দল খুলনা টাইটান্সকে।

৬ ম্যাচে ৩ জয় ও ৩ হারে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের পঞ্চমস্থানে রয়েছে রাজশাহী। ঢাকা পর্বে ৪ ম্যাচে ২টি জয় পেয়েছিল তারা। সিলেট পর্বে ২ ম্যাচে ১টি ম্যাচ জিতেছে মিরাজ বাহিনী। প্রথম ম্যাচে খুলনা টাইটান্সের কাছে ২৫ রানে হেরে গিয়েছিল। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেই ঘুড়ে দাঁড়ায় মিরাজের দল। জার্সিতে মায়ের নাম লিখে নামা কিংস একাদশ ২০ রানে হারিয়ে দেয় শক্তিশালী ঢাকা ডায়নামাইটসকে।

ইতোমধ্যে লিগ পর্বে একবার দেখা করে ফেলেছে কুমিল্লা ও রাজশাহী। সেই লড়াইয়ে ৫ উইকেটে জয় পায় কুমিল্লা। ম্যাচ মিরপুরের ভেন্যুতে হয়েছিল। তাই ফিরতি পর্বে জয় ছাড়া অন্য কিছুই ভাবছে না রাজশাহী। সিলেটের শেষ ম্যাচ থেকেই আত্মবিশ্বাস খুঁজে নিচ্ছে মেহেদী মিরাজের দল।

ডি ভিলিয়ার্স এখন বাংলাদেশে

রংপুর রাইডার্সের হয়ে বিপিএল মাতাতে বাংলাদেশে এখন দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স। প্রথমবারের মতো তিনি এবারই বিপিএলে অংশ নিচ্ছেন।

এরআগে, ২০১৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে বাংলাদেশ সফর করেন এই হার্ডহিটার। বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের হয়ে ছয়টি ম্যাচ খেলবেন ডি ভিলিয়ার্স। তবে সব ম্যাচেই দলের হয়ে অবদান রাখতে চান ডি ভিলিয়ার্স।

রাজশাহী কিংসের তৃতীয় জয়

বিপিএলে দিনের প্রথম ম্যাচে ঢাকা ডাইনামাইটসকে ২০ রানে হারিয়ে আসরে তৃতীয় জয় পেলো রাজশাহী কিংস। ১৩৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে আরাফাত সানি আর মেহেদী হাসান মিরাজের ঘুর্ণিবিষে ৫৩ রান তুলতেই প্রথম ৫ উইকেট হারায় ঢাকা। মোহাম্মদ নাঈম আর নুরল হাসান সোহান হাল ধরার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। শেষ পর্যন্ত ৯ উইকেটে ১১৬ রানে থামে তারা।

এর আগে, সিলেট আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে, প্রথম ওভারেই মেহেদী হাসান মিরাজের উইকেট হারায় রাজশাহী। মার্শাল আইয়ুব আর শাহরিয়ার নাফিসের ব্যাটে এরপর ঘুরে দাঁড়ায় তারা। তবে তাদের বিদায়ের পর আবারো ধ্বস নামে রাজশাহীর ইনিংসে। মার্শাল ৩১ বলে ৪৫ আর জাকির হাসানের ১৮ বলে ২০ রানের সুবাদে শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ১৩৬ রানে থামে মিরাজের দল। এই ম্যাচে মায়ের নামে জার্সি গায়ে মাঠে নেমেছিলেন রাজশাহীর ক্রিকেটাররা।

মুস্তাফিজ ম্যাজিকে রাজশাহীর জয়

বিপিএলের রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে শেষ ওভারে মুস্তাফিজের দুর্দান্ত বোলিংয়ে রংপুর রাইডার্সকে পাঁচ রানে হারিয়েছে রাজশাহী কিংস। রাজশাহীর দেয়া ১৩৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করে, ৬ উইকেটে ১৩০ রানে থামে রংপুরের ইনিংস। ম্যাচ সেরা, রাজশাহীর উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান জাকির হোসেন। এই জয়ে চার ম্যাচে রাজশাহীর পয়েন্ট বেড়ে হলো চার। আর পাঁচ ম্যাচে রংপুরের সংগ্রহও, চার পয়েন্ট।

শেষ ওভারের নাটকীয় জয় পেলো মেহেদী হাসান মিরাজের দল রাজশাহী কিংস। জয়ের জন্য মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার রংপুর রাইডার্সের প্রয়োজন ছিল ৯ রান। কিন্তু নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে রাজশাহীকে জিতিয়ে দেন, কাটার মাস্টার মুস্তাফিজ।

১৩৬ রানে জয়ের টার্গেটে ক্রিস গেইলের সঙ্গে ওপেনিংয়ে নামলেন রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা। কিন্তু জুটিটা জমলো না। রান করার আগেই প্যাভিলিয়নে রংপুর-অধিনায়। ক্যারিবিয় ব্যাটিং-দানব ক্রিস গেইলইকে ২৩ রানেই থামিয়ে দেন, তরুণ পেসার কামরুল ইসলাম রাব্বী।

তৃতীয় উইকেটে মিঠুন আর রিলে রুশো। ৪০ রানের জুটি গড়লেও দলকে জয়ের পথে রাখতে পারেননি। জয়ের জন্য শেষ ওভারে মাশরাফিবাহিনীর দরকার ছিল ৯ রান, হাতে ৪ উইকেট। কিন্তু মুস্তাফিজ দিলেন মাত্র ৩ রান। তাতে ৫ রানের দুর্দান্ত এক জয় পায় রাজশাহী কিংস।

এর আগে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে, দলের মাত্র ৩৬ রানে মেহেদী হাসান মিরাজ, মুমিনুল হক ও সৌম্য সরকারের উইকেট হারিয়ে কম গুটিয়ে যাওয়ার শংঙ্কা জাগে রাজশাহী শিবিরে। শেষ পর্যন্ত, চাপে থাকা রাজশাহী কিংসকে পথ দেখায় হাফিজ-জাকিরের ৪৪ রানের জুটি। ম্যাচ সেরা জাকির হাসানের ৩৬ বলে অপরাজিত ৪২ রানে, লড়াইর মতো পুঁজি পায় ৮ উইকেটে ১৩৫ রান করা রাজশাহী।

বিজয় দিবস ক্রীড়া

বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে ক্রীড়া পরিদপ্তরের আয়োজনে ঢাকা শারীরিক শিক্ষা কলেজ মাঠে প্রমিলা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট এবং সোনালী অতীত ক্লাবের খেলোয়াড়দের নিয়ে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

আজ বুধবার সকালে সরকারি শিশু পরিবার তেজগাঁও প্রমিলা দলের বিপক্ষে মাঠে নামে সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজ ঢাকা দল। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে সরকারি শিশু পরিবার সংগ্রহ করে ১২৭ রান। জবাবে, ৬২ রানে গুটিয়ে যায় সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজের খেলোয়াড়রা।

বিকেলে সোনালী অতীত ক্লাবের খেলোয়াড়দের নিয়ে প্রীতি ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করা হয়। লাল দলের অধিনায়ক ইমতিয়াজ আহম্মেদ নকিব এবং সবুজ দলের অধিনায়ক ছিলেন আলফাজ। লাল দল এবং সবুজ দলের এই ম্যাচ শেষ হয় ১-১ সমতায়। ম্যাচের প্রথমার্ধে আলফাজের গোলে এগিয়ে যায় সবুজ দল। দ্বিতীয়ার্ধে লাল দলের হয়ে ম্যাচের সমতা সূচক গোলটি করেন আপেল।

ম্যাচ শেষে বিজয়ীদের পুরষ্কৃর করেন যুব ও ক্রীড়া সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আনোয়ারুল ইসলাম সরকার এবং যুগ্ম সচিব ওমর ফারুক, সোনালী অতীত ক্লাবের সভাপতি হাসানুজ্জামান বাবলু এবং সাধারণ সম্পাদক সত্যজিত দাস রুপু, জাতীয় ক্রীড়া পুরষ্কারপ্রাপ্ত খেলোয়াড় কামরুন্নাহার ডানা।

আইপিএল ভারতেই শুরু ২৩ মার্চ

নির্বাচনের কারণে আগে দুবার দেশের বাইরে হয়েছিল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ-আইপিএল। এবার‌ও লোকসভা নির্বাচনকে ঘিরে তেমনই শংকা ছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আর সেটি হচ্ছেনা। সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে ঘোষণা এল আইপিএলের দ্বাদশ আসর হবে ভারতেই। টুর্নামেন্ট শুরু হবে ২৩ মার্চ। দেশে লোকসভা নির্বাচনের কারণে এই টি-টোয়েন্টি লিগের খেলা এবার দেশের মাটিতে হবে কি না, তা নিয়ে ক্রিকেটমহলে দেখা দিয়েছিল সংশয়। মঙ্গলবার সেই ধোঁয়াশা কেটে যায়। সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রশাসকরা এদিন নয়াদিল্লিতে আসন্ন আইপিএলের ভেন্যু ও সূচি নির্ধারণ বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেন।

সাধারণত এপ্রিল-মে মাসেই আইপিএলের আসর বসে। এবার সেদেশে নির্বাচনের কারণে টুর্নামেন্ট এগিয়ে এল আনা হয়। অবশ্য অতীতে দু’বার নির্বাচনের জন্য আইপিএল ভারতের বাইরে চলে গিয়েছিল। ২০০৯ সালে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের আসর বসেছিল দক্ষিণ আফ্রিকায়। আর ২০১৪ সালে আইপিএলের আংশিক আয়োজন করা হয় সংযুক্ত আরব আমিরাতে।

এবারও ধারণা করা হয়েছিল তেমনটাই হতে পারে। শেষে জানা যায় ভারতেই হচ্ছে খেলা। তবে টুর্নামেন্ট শুরুর কথা জানা গেল‌েও ফাইনালের তারিখ এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

৬৩ রানে অল আউট কুমিল্লা

বিপিএলে আজ মঙ্গলবার রাতের ম্যাচে রংপুর রাইডার্সকে মাত্র ৬৪ রানের টার্গেট দিয়েছে স্টিভেন স্মিথের দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। এই ম্যাচেই রংপুর রাইডার্সে হয়ে দলে ফিরেছেন বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান ক্রিস গেইল। কুমিল্লার একমাত্র শহিদ আফ্রিদি ছাড়া কোন ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কে পৗঁছাতে পারিনি।

কাগজে-কলমে ম্যাচটি কুমিল্লা ও রংপুরে হলেও, কুমিল্লার জন্য অনেকটা ছিলো প্রতিশোধের। কেননা গত বিপিএলে কোলিফাইং ফোরের ম্যাচে বিতর্কিতভাবে হেরের যায় তারা রংপুরে কাছে। টস জিতে বোলিং করার সিদ্ধান্ত নেন রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। শুরুতেই আগুন ঝড়া বোলিং করতে থাকেন মাশরাফী–শফিউলরা এতেই দ্রুত সাফল্য আসে।

তৃতীয় ওভারে মাশরাফির বলে বড় শট খেলতে গিয়ে ফরহাদ রেজার হাতে ক্যাচ দিয়ে মাত্র ৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ওপেনার তামিম ইকবাল। ওয়ান ডাউনে নামা ইমরুল কায়েস এবার‌ও ব্যর্থ। তিনিও বিদায় নেন মাশরাফীর বলে। ২ রান করে রবি বোপার হাতে ক্যাচ দিয়ে ইমরুলকে ফিরতে হয় মাঠের বাইরে। এরপর ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান এভিন লুইস বিধ্বংসী হবার আগেই ফিরেয়ে দেন মাশরাফী। তার বলে সুইপ করতে গিয়ে ফরহাদ রেজার কাছে ক্যাচ দিয়ে ব্যাক্তিগত ৮ রানে ফেরেন তিনি।

এরপর শফিউল, শোয়োব মালিককে শুন্য রানে এবং মাশরাফী, অধিনায়ক স্টিভ স্মিথকে শূন্য রানে ফেরালে ১৮ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে রংপুর। শেষ পর্যন্ত শহিদ আফ্রিদির ১৮ বলে ২৫ রানে মাত্র ৬৩ রানে শেষ হয় কুমিল্লার ইনিংস। মাশরাফী ১১ রানে তুলে নেন ৪ উইকেট। নাজমুল অপু তিনটি ও শফিউল নেনে দুটি করে উইকেট।

ঢাকার টানা দ্বিতীয় জয়

বিপিএলে ষষ্ঠ আসরে টানা দ্বিতৃীয় জয় তুলে নিলো সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডায়নামাইটস। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে আজ মঙ্গালবার দিনের ম্যাচে খুলনা টাইটান্সকে ১০৫ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে পয়েন্ট টেবিলে শীর্ষ আছে ঢাকা। ঢাকার দেওয়া ১৯২ রানের বড় টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে, সকিব-নারাইনদের বোলিংয়ের দাড়াতে পাড়েনি খুলনার ব্যাটসম্যানরা। মাত্র ১৩ ওভারে ৮৭ রানে আলআউট হয়ে যায় মাহামুদুল্লার দল।

খুলনার হয়ে সর্বোচ্চ ৩১ রান আসে ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকীর ব্যাট থেকে। এছাড়াও নাজমুল হাসেন শান্ত ১৩ এবং আরিফুল হক ১৯ রানে অপরাজিত থাকেন। খুলনার আর কোন ব্যাটসম্যানই দুই অঙ্কে পৌঁছাতে পারেননি। ঢাকার অধিনায়ক সাকিব আল হাসান তিন ওভারে ১৮ রানে তুলে নেন তিন উইকেট। সুনীল নারাইন নেন দুই উইকেট।

এরআগে টসে হেরে ব্যাট করে, দুর্দান্ত সূচনা করে ঢাকার দুই ওপেনার সুনীল নারাইন ও হযরতউল্লাহ জাজাইয়ের উদ্বোধনী জুটিতে আসে ৬১ রান। হযরতউল্লাহ জাজাই বিপিএলে টানা দ্বিতীয় ফিফটি (৫৭) তুলে নেন। এছাড়াও রনি তালুকদার ২৮, কাইরন পোলার্ড ২৭ এবং আন্দ্রে রাসেল করেন সর্বোচ্চ ২৫ রান।

অস্ট্রেলিয়ায় ভারতের সিরিজ জয়ের রেকর্ড

প্রায় একমাসের সিরিজে অস্ট্রেলিয়াকে ২-১-এ হারিয়ে জয় পেয়েছে ভারত। সিরিজের প্রথম তিন ম্যাচের মধ্যে দুইটি জিতে আগের সিরিজে লিড নিয়েছিল ভারত। সিডনিতে শেষ টেস্ট জিতলে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জেতার রেকর্ড হতো তাদের। কিন্তু বৃষ্টির কারণে ম্যাচের শেষ তিনদিন ঠিকঠাক খেলা না হওয়ায় ড্র দিয়েই শেষ হয়েছে সিরিজ।

গৌরবদীপ্ত এই জয়ে মাঠেই বিরাট কোহলিকে অভিনন্দন জানান বলিউড অভিনেত্রী ‌ও স্ত্রী আনুস্কা। বিরাট বরাবরই বলেন, আনুস্কা তাঁর জীবনের অন্যতম অনুপ্রেরণা। আর বিরাটের অধিনায়কত্বে ভারতের এই ঐতিহাসিক সিরিজ জয়ের সাক্ষী রইলেন স্ত্রীও। আবেগপ্রবণ হয়ে তিনি শুভেচ্ছা জানান বিরাটকে।

এতে অবশ্য মন খারাপের কিছু নেই ভারতীয় ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলির। তার অধীনেই প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জেতার রেকর্ড গড়লো ভারত। এরআগে অজিদের মাটিতে ১১টি সিরিজ খেললেও সর্বোচ্চ সাফল্য ছিলো ১৯৮১ সালে ১-১ ব্যবধানে সিরিজ ড্র করা।

সে সাফল্যকে ছাড়িয়ে এবারের ৪ ম্যাচের সিরিজটি ২-১ ব্যবধানে জিতে নিলো বিরাট কোহলির ভারত। সিরিজের প্রথম ম্যাচে অ্যাডিলেড টেস্টে ৩১ রানে জয়ের পর পার্থ টেস্টে ১৪৬ রানে হেরে গিয়েছিল ভারত। তবে মেলবোর্নে বক্সিং ডে টেস্টে ১৩৭ রানের ব্যবধানে জিতে সিরিজ জয়ের পথে এগিয়ে যায় তারা।

আর সবশেষ সিডনি টেস্ট বৃষ্টিতে ভেসে যাওয়ায় সিরিজের ট্রফি হাতে নিয়েছেন কোহলিই। ম্যাচের প্রথম ইনিংসে চেতেশ্বর পুজারা এবং রিশাভ পান্তের সেঞ্চুরিতে ৭ উইকেট হারিয়ে ৬২২ রান করেছিল ভারত। জবাবে ৩০০ রানে অলআউট হয়ে ফলোঅনে পড়ে স্বাগতিকরা। দ্বিতীয় ইনিংসে ৪ ওভার ব্যাট করে ৬ রান তুলতেই নামে বৃষ্টি। এর পর আর কোনো খেলা হয়নি।

পুরো সিরিজজুড়ে ব্যাট হাতে দুর্দান্ত পারফর্ম করে সিরিজসেরার পুরষ্কার জিতেছেন চেতেশ্বর পুজারা। সিডনি টেস্টেও জিতেছেন ম্যাচসেরার পুরষ্কার। সবমিলিয়ে ৪ ম্যাচে ৩ সেঞ্চুরিতে প্রায় ৭৫ গড়ে ৫২১ রান করেছেন তিনি।

জয়ে শুরু কুমিল্লার

জয় দিয়েই বিপিএলের শিরোপা পুনরুদ্ধারের মিশন শুরু করল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় দিনে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সিলেট সিক্সার্সকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে তারা। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে আজ রোববার দিনের প্রথম এই ম্যাচে সিলেটকে ১২৭ রানে বেঁধে রেখে কুমিল্লার জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছিলেন বোলাররা। পরে তামিম ইকবালের দৃঢ়তাপূর্ণ ব্যাটিং ও শহীদ আফ্রিদির শেষের ঝড়ে এক বল বাকি থাকতেই ম্যাচ জিতে নেয় ভিক্টোরিয়ান্স।

কাগজে-কলমে ম্যাচটা কুমিল্লা ও সিলেটের হলেও লড়াই ছিল স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারের। গত বছরের মার্চে কেপটাউন টেস্টে বল টেম্পারিং কেলেঙ্কারির পর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন অধিনায়ক ও সহ-অধিনায়ক। মার্চের শেষ দিকে নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলে জাতীয় দলে ফিরতে পারেন তারা। এর আগে দুজনের নিজেদের প্রস্তুত করার বড় জায়গা বিপিএল।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ওয়ার্নারের সিলেটের শুরুটা মোটেই ভালো হয়নি। দ্বিতীয় ওভারেই অফ স্পিনার মেহেদী হাসানকে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে বল আকাশে তোলেন লিটন দাস। ক্যাচ নেন স্মিথ। ওয়ার্নার শুরুটা করেছিলেন দারুণ। চতুর্থ ওভারে মেহেদীকে হাঁকান তিনটি চার। পরের ওভারেই তৌহিদ হৃদয়ের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউটে কাটা পড়েন তিনি।

চারে নামা আফিফ হোসেন ১৯ রান করে বোল্ড হন। তৌহিদ হৃদয় আর সাব্বির রহমানের বিদায়ে দলের ৫৬ রানেই ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে সিলেট।

ষষ্ঠ উইকেটে ৫৫ রানের দারুণ এক জুটি গড়ে তোলেন নিকোলাস পুরাণ ও অলোক কাপালি। তারা দলের স্কোর একশ’ পার করেন। এই জুটির ৫৫ রানের জুটিতেই শেষ পর্যন্ত লড়াইয়ের পুঁজি পায় সিলেট। ২৬ বলে ৫ চার ২ ছক্কায় সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন পুরাণ। ২০ বলে ১৯ রান করেন কাপালি।

কুমিল্লার বোলারদের মধ্য দুটি করে উইকেট তুলে নেন সাইফউদ্দিন, মেহেদী ও মোহাম্মদ শহীদ।

১২৮ রানে জয়ের টার্গেটে নেমে কুমিল্লার শুরুটা ভালো হয়নি। হার্ডহিটার এভিন লুইস ৫ রানের বেশি সংগ্রহ করতে পারেননি। ব্যর্থ ইমরুল কায়েসও। ২১ রানেই ২ উইকেট হারিয়ে চাপে কুমিল্লা। এরপর দলকে এগিয়ে নেন তামিম ও স্মিথ। দুজন দলের স্কোর পার করেন পঞ্চাশ। এরপরই স্মিথের বিদায়ে ভেঙে ৩০ রানের জুটি।

এরপর মালিক উইকেটে থিতু হলেও ইনিংস বড় করতে পারেননি। উইকেট ছুড়ে দিয়ে আসেন এনামুল হক বিজয়। নিজের পরপর দুই ওভারে দুজনকেই ফিরিয়েছেন সন্দ্বীপ লামিচানে। নেপালের এই লেগ স্পিনারকে উড়াতে গিয়ে মিড উইকেটে ক্যাচ দেন মালিক (১৩)। গুগলিতে স্লগ সুইপ করতে গিয়ে বোল্ড বিজয় (৫)।

শেষ পাঁচ ওভারে ৫ উইকেট হাতে রেখে কুমিল্লার দরকার ছিল ৪৫ রান। তখনো একপ্রান্তে ৩৩ রানে অপরাজিত তামিম। ১৭তম ওভারে ইরফানকে বিশাল এক ছক্কা হাঁকান আফ্রিদি। পরের বলেই রান আউটে কাটা পড়েন তামিম। ইরফানকে কাভারে খেলেছিলেন আফ্রিদি। নন স্ট্রাইক থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন তামিম। ফেরার আগেই সরাসরি থ্রোয়ে স্টাম্প ভেঙে দেন পুরাণ। ৩৪ বলে একটি করে চার ও ছক্কায় ৩৫ রান করেন তামিম।

শেষ তিন ওভারে কুমিল্লার দরকার ছিল ২৭ রান। ১৮তম ওভারে তাসকিনকে আফ্রিদির একটি করে চার ও ছক্কায় আসে ১৫ রান। শেষ ওভারে ৪ রানের সমীকরণে কাপালি প্রথম চার বলে অবশ্য শুধু ৩ রান দিয়েছিলেন। তবে পঞ্চম বলে চার হাঁকিয়ে এক বল বাকি থাকতেই কুমিল্লার জয় নিশ্চিত করেন আফ্রিদি। ২৫ বলে ৩৯ রানে অপরাজিত ছিলেন সাবেক পাকিস্তান অধিনায়ক।

বিপিএলে ঢাকার বড় জয়

বিপিএলে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে রাজশাহী কিংসকে ৮৩ রানে হারিয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস। সাকিবদের দেয়া ১৯০ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ১০ বল বাকি থাকতে ১০৬ রানেই থামে রাজশাহীর ইনিংস। এরআগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ম্যাচসেরা হযরতউল্লাহ জাজাইয়ের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ১৮৯ রান করে ৫ উইকেটে হারানো ঢাকা ডায়নামাইটস।

রাজশাহী কিংসকে উড়িয়ে দিয়ে বিপিএলে শুভ সূচনা করলো ঢাকা ডায়নামাইটস। প্রথম দিনে বোলারদের স্বর্গ বনে যাওয়া মিরপুরের উইকেটে ব্যাটিং দাপটেই জয় পেয়েছে সাকিবের দল।

ঢাকার দেয়া ১৯০ রানের কঠিন টার্গেটে খেলতে নেমে রানের বোঝাটা সামলাতে পারেনি রাজশাহীর ব্যাটসম্যানরা। ১১ তম ওভারে ৫৯ রান তুলতে ৭ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকেই ছিটকে পড়ে মিরাজের দল। শেষ পর্যন্ত ১০৬ রানেই গুটিয়ে যায় রাজশাহীর ইনিংস। ঢাকার পেসার রুবেল হোসেন নিয়েছেন তিন উইকেট।

এরআগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে সুনিল নারাইন ও হযরতউল্লাহ জাজাইয়ের ১১৬ উদ্বোধনী জুটিতে উড়ন্ত সূচনা পায় ঢাকা ডায়নামাইটস। মাত্র ২২ বলে ফিফটি করে বিপিএলে নিজের অভিষেকটা রঙ্গিন করে তোলেন আফগানী ব্যাটসম্যান জাজাই।

৭ ছক্কায় ৪১ বলে ৭৮ রানে জাজাইয়ের বিদায়ের পরই ধ্বসে পড়ে ঢাকার মিডলঅর্ডার। দলের ১৩৬ রানে ৫ উইকেট উইকেট তুলে নিয়ে ঢাকাকে চাপে ফেলে রাজশাহী। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। শুভাগত হোমের ১৪ বলে ৩৮ রানের ঝড়ো ইনিংসে রাজশাহীকে ১৯০ রানের কঠিন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় গতবারের রানার্সআপ দল। শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেটে ১৮৯ রান করে ঢাকা। এই স্কোরে বড় ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সাকিবের দল।

বিপিএলের উদ্বোধনীতে চিটাগংয়ের জয়

বিপিএলের ৬ষ্ঠ আসরের লো স্কোরিং উদ্বোধনী ম্যাচ জিতে শুভ সূচনা করল চিটাগং ভাইকিংস। মাত্র ৯৯ রানের টার্গেট দিয়ে‌ও চিটাগংয়ের বিপক্ষে দারুণ প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিল বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। শেষ পর্যন্ত ৫ বল এবং ৩ উইকেট হাতে রেখে ম্যাচ জিতে নেয় মুশফিকুর রহিমের দল।

রংপুর রাইডার্সের দেওয়া ৯৯ রানের টার্গেটের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে চিটাগংয়ের দলীয় ১৫ রানে ক্যামেরন ডেলপোর্টকে তুলে নেন নবনির্বাচিত সাংসদ ‌ও রংপুরের অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। তবে ৫ বছর পর বিপিএলে প্রত্যাবর্তনটা সুখকর হয়নি আশরাফুলের। মাত্র মাত্র ৩ রান করে শফিউলের বলে অ্যালেক্স হেলসের তালুবন্দি হন তিনি। অপর ওপেনার মোহাম্মদ শেহজাদ বিদায় নেন ২৭ রান করে।

মাশরাফীর বলে মিডলস্টাম্প উড়ে যায় নাঈম হাসানের (১০)। একপ্রান্ত অবিচল থেকে দলকে টানতে থাকেন অধিনায়ক মুশফিক। জয়ের কাছাকাছি গিয়ে নাজমুল অপুর ঘূর্ণিতে থামে তার ৩১ বলে ২৫ রানের ইনিংস। ম্যাচের শেষটা আরও নাটকীয়। কম পুঁজি নিয়েও দারুণ ফাইট দিচ্ছিল রংপুর। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ৫ বল এবং ৩ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় চিটাগং।

এর আগে উদ্বোধনী ম্যাচে টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯৮ রানে অল-আউট হয় রংপুর রাইডার্স। চিটাগং বোলারদের তোপের মুখে ১৪ রানেই হারায় ৪ উইকেট। ধ্বংসের সূচনা করেছেন প্রোটিয়া পেসার রবি ফ্র্যাইলিং। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে অ্যালেক্স হেলসকে (০) দিয়ে শুরু করেন তিনি। একে একে তুলে নেন মোহাম্মদ মিথুন (০) এবং মেহেদী মারুফকে (১)। তার উদ্বোধনী সঙ্গী আবু জায়েদ শিকার করেছেন রাইলি রুশোকে (৭)। নাঈম হাসানের ঘূর্ণিতে হাওয়েল আবু (৭) জায়েদের হতে ধরা পড়লে রংপুরের পঞ্চম উইকেটের পতন ঘটে । দলীয় ৩১ রানে সেই নাঈমের বলেই ফিরেন ফরহাদ রেজা (৩)।

অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও আজ ঝড় তুলতে পারেননি। খালেদ আহমেদের বলে ক্যাচ দিয়েছেন ২ রানে। একপ্রান্ত আগলে লড়াই করে গেছেন রবি বোপারা। ইনিংসের অর্ধেক রানই তিনি করেছেন। আবু জায়েদের শিকার হওয়ার আগে খেলেন ৪৭ বলে ৩ চার ২ ছক্কায় ৪৪ রানের ইনিংস। রাইডার্স। সোহাগ গাজীও ২১ রানের কার্যকরী ইনিংস খেলেন। তাদের ব্যাটেই নির্ধারিত ২০ ওভারে অল-আউট হওয়ার আগে ৯৮ রান তুলতে পারে রংপুর বল হাতে ফ্র্যাইলিং নিয়েছেন ৪ উইকেট। আবু জায়েদ এবং নাঈম ২টি করে এবং খালেদ আহমেদ ১ উইকেট নিয়েছেন।

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ-বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে আজ শনিবার চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে মাত্র ৯৮ রানে অলআউট হয়েছে আগের আসরের চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। নবনির্বাচিত সাংসদ মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার দল রংপুর রাইর্ডাস, এবি ডি ভিলিয়ার্স ‌ও ক্রিস গেইলকে ছাড়াই মাঠে নামে।

তবে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে তারা মোটেই সুবিধা করতে পারেনি। দলের মাত্র ৩ রানে ইংলিশ ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স হেলসের উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়ে রংপুর। ওই ওভারেই মাত্র দুই বল মেকাবলা করে কোনো রান সংগ্রহের আগেই ফ্রাইলিঙ্কের বলে বোল্ড আউট হন মোহাম্মোদ মিঠুন। এরপর দক্ষিন আফ্রিকান ব্যাটসম্যান রিলি রসুকে ৭ রানে প্যাভিলিয়নে পাঠান আবু জায়েদ।

দলে ৪ রান যোগ করতে না করতে মেহিদী মারুফের উইকেট হারায় রংপুর। এরপর একর পর এক চপ সৃষ্টি করতে থাকে চিটাগংসের বোলারা। দলের স্কোর তখন ৩৫ রানে ৭ উইকেট। এরপরে রবি বোপারা ও সোহাগ গাজী গড়েন ৪৯ রানের জুটি। বোপারা ৪৭ বলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করে আবু জায়েদের বলে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়েনে ফেরেন। সোহাগ গাজী করেন ১৭ বলে ২১ রান। শেষ পর্যন্ত মাত্র ৯৮ রানে অলআউট হয় রংপুর রাইডার্স। ফ্রাইিলিঙ্ক ১৪ নেন ৪ উইকেট নিয়ে রংপুরের ধ্বস নামান।

বৃষ্টি ঠেকিয়ে দিল অস্ট্রেলিয়ার অলআউট

ভারতীয় স্পিনে ধুকতে থাকা অস্ট্রেলিয়াকে অলআউট হ‌ওয়া থেকে বাচিয়ে দিয়েছে বৃষ্টি। আলোর অভাবে খেলা বন্ধ হওয়ার পর বৃষ্টি নামে সিডনীতে। তাতে শনিবার চতুর্থ টেস্টের তৃতীয় দিনে নষ্ট হয় ১৬.৩ ওভার। তখন ৬ উইকেটে স্বাগতিকদের সংগ্রহ ২৩৬।

অবশ্য খেলার চা বিরতির মধ্যেই অস্ট্রেলিয়ার ৫ উইকেট তুলে নিয়ে আজ শনিবার দিনটি নিজেদের করে নিয়েছিল ভারতের বোলাররা। তখন দুই স্পিনার কুলদীপ-জাদেজা নিয়েছিলেন ২ করে উইকেট। চা বিরতির পরে প্রথম ওভারেই অজি অধিনায়ক টিম পেইনকে বোল্ড করেন কুলদীপ। তার সংগ্রহ ৫ রান। ১৯৮ রানে ৬ উইকেটে পরিণত হয় অজিরা। সেখান থেকে সপ্তম উইকেটে অবিচ্ছিন্ন ৩৮ রান যোগ করেন পিটার হ্যান্ডসকম্ব (২৮) ও প্যাট কামিন্স (২৫)। ভারতের থেকে এখনও ৩৮৬ রানে পিছিয়ে অস্ট্রেলিয়া। হাতে আছে ৪ উইকেট।

শুক্রবার ৭ উইকেটে ৬২২ তুলে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে ভারত। ফলোঅন বাঁচানোর জন্যও তাই চারশ’র ওপর রান তুলতে হতো অস্ট্রেলিয়াকে। তৃতীয় দিন শেষে তাদেরকে ফলোঅন এড়াতে হলে আরো করতে হবে ১৮৭ রান। বোর্ডার-গাভাস্কার ট্রফিতে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে থাকা ভারতের নিয়ন্ত্রণেই এখন সিডনি টেস্ট। এই টেস্ট জিতলেই ইতিহাসে প্রথমবার অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টেস্ট সিরিজ জিতবে ভারত।

৯৮ রানেই অলআউট চ্যাম্পিয়ন রংপুর

মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ-বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের উদ্বোধনী ম্যাচে আজ শনিবার চিটাগং ভাইকিংসের বিপক্ষে মাত্র ৯৮ রানে অলআউট হয়েছে আগের আসরের চ্যাম্পিয়ন রংপুর রাইডার্স। নবনির্বাচিত সাংসদ মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার দল রংপুর রাইর্ডাস, এবি ডি ভিলিয়ার্স ‌ও ক্রিস গেইলকে ছাড়াই মাঠে নামে।

তবে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে তারা মোটেই সুবিধা করতে পারেনি। দলের মাত্র ৩ রানে ইংলিশ ব্যাটসম্যান অ্যালেক্স হেলসের উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়ে রংপুর। ওই ওভারেই মাত্র দুই বল মেকাবলা করে কোনো রান সংগ্রহের আগেই ফ্রাইলিঙ্কের বলে বোল্ড আউট হন মোহাম্মোদ মিঠুন। এরপর দক্ষিন আফ্রিকান ব্যাটসম্যান রিলি রসুকে ৭ রানে প্যাভিলিয়নে পাঠান আবু জায়েদ।

দলে ৪ রান যোগ করতে না করতে মেহিদী মারুফের উইকেট হারায় রংপুর। এরপর একর পর এক চপ সৃষ্টি করতে থাকে চিটাগংসের বোলারা। দলের স্কোর তখন ৩৫ রানে ৭ উইকেট। এরপরে রবি বোপারা ও সোহাগ গাজী গড়েন ৪৯ রানের জুটি। বোপারা ৪৭ বলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করে আবু জায়েদের বলে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়েনে ফেরেন। সোহাগ গাজী করেন ১৭ বলে ২১ রান। শেষ পর্যন্ত মাত্র ৯৮ রানে অলআউট হয় রংপুর রাইডার্স। ফ্রাইিলিঙ্ক ১৪ নেন ৪ উইকেট নিয়ে রংপুরের ধ্বস নামান।

কাল শুরু বিপিএল

আগামীকাল শনিবার থেকে ঢাকার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসর। তবে বরাবর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান নামে বিশেষ আয়োজন থাকলে‌ও এবার সেটা থাকছেনা। প্রথম ম্যাচে দুপুর দেড়টায় চিটাগং ভাইকিংসের মুখোমুখি হবে রংপুর রাইডার্স। আর সন্ধ্যা সাড়ে পাচটায় ঢাকা ডায়নামাইটসের প্রতিপক্ষ রাজশাহী কিংস।

বিপিএলের এবারের আসরে খেলছেন সব থেকে বেশি আন্তর্জাতিক তারকা খেলোয়ার। আর এই আসরকে ঘিরে ইতিমধ্যেই ঢাকায় বসেছে তারকা ক্রিকেটারদের মেলা। গত বুধবারই (২ জানুয়ারি) ঢাকায় এসেছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার ডেভিট ওয়ার্নার। শুক্রবার সন্ধ্যায় এসেছেন স্টিভেন স্মিথ। ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার ক্রিস গেইল আসবেন উদ্বোধনের দিন অর্থাৎ আজ শনিবার। ইতিমধ্যে ঢাকায় এসেছেন তারকা ক্রিকেটার ইয়ান বেল, রবি বোপারা, অ্যালেক্স হেলস, ডেভিড মালান, এভিন লুইস, আন্দ্রে ফ্লেচার, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, আন্দ্রে রাসেল, কাইরন পোলার্ড এবং সুনিল নারায়ন।

এছাড়া নিজেদের দলের সাথে যোগ দিয়েছেন শহীদ আফ্রিদি, শোয়েব মালিক, মোহাম্মদ ইরফান, সোহেল তানভীর, ব্রেন্ডন টেইলর, রিলে রুশো, সন্দ্বীপ লামিচানে, রায়ান টেন ডেসকাট, নাজিবুল্লাহ জাদরানসহ বিভিন্ন দেশের বেশ কয়েকজন তারকা ক্রিকেটার।

বিপিএলের এই ষষ্ঠ আসর চলতি মাসের ৬ তারিখ থেকে শুরু হয়ে চলবে আগামী মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত।

সিলেটের হয়ে বিপিএল শিরোপা চান ওয়ার্নার

বিপিএলের প্রথম অংশ নিয়েই বাজিমাত করতে চান অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার। আগের দিনই ঢাকায় এসেছেন এই ব্যাটিং বিস্ময়। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে অনুশীলন করেছেন সিলেট সিক্সার্সের খেলোয়াড়দের সাথে।

রাজধানীর ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে ডেভিড ওয়ার্নারকে অধিনায়ক হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেন সিলেট সিক্সার্সের চেয়ারম্যান শাহেদ মুহিত। এ সময় ওয়ার্নার বলেন, ‘এক ঝাঁক পরীক্ষিত দেশী-বিদেশী ক্রিকেটার দলে রয়েছে। অনেকেই এই ফরমেটের জন্য বেশ অভিজ্ঞ। আমার ব্যাক্তিগত একটা লক্ষ্য আছে, বিপিএলে নিজের প্রথম অংশগ্রহণ স্মরণীয় করে রাখতে চাই। তাই শিরোপা জয়ই আমাদের লক্ষ্য।’

সিলেট সিক্সার্সের চেয়ারম্যান শাহেদ মুহিত জানান, ‘বিপিএলের জৌলুস বাড়াবে এমন ক্রিকেটারের খোঁজে আমরা ছিলাম। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যাস্ত সুচির পরও অনেক তারকা এবারকার বিপিএল খেলবেন। আমরা খুব লাকি ওয়ার্নার আমাদের দলে আছেন। গেলোবার দারুণ শুরুর পরও শিরোপার শেষ লড়াইয়ে আমরা ছিলাম না। এবার শিরোপা জেতার লক্ষ্যে সম্ভাব্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছি। বিশ্বসেরা কোচ, বিশেষজ্ঞ কোচ, ট্রেনার, ফিজিও, অ্যানালিস্ট সিক্সার্সে যুক্ত হয়েছে। এখন মাঠের লড়াইয়ের অপেক্ষা।’

এবারকার বিপিএলে সিলেট সিক্সার্সের প্রথম ম্যাচের প্রতিপক্ষ কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আগামী ৬ জানুয়ারি দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে দু’দল।

ভারতীয় নারী ক্রিকেটের নতুন হার্টথ্রব

খেলার সাথে দর্শক-সমর্থকদের মন ভোলাতে‌ও এবার হাজির ভারতীয় নারী ক্রিকেটার প্রিয়া পুনিয়া। ২২ বছরের এই তরুণী ইতোমধ্যেই ক্রিকেট ফ্যানদের মধ্যে ঝড় তুলেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল‌ও হয়েছেন তিনি। ভারতীয় নারী ক্রিকেট দলে আঞ্জুম চোপড়া, মিতালি রাজ কিংবা স্মৃতি মন্ধনার মতো সুন্দরী ক্রিকেটার থাকলেও তাঁরা কোনওদিন হার্টথ্রব হয়ে উঠতে পারেননি। এরা থেকেছেন মিষ্টিমেয়ের তালিকাতেই। কিন্তু ২২ বছরের তরুণী দিল্লীর ক্রিকেটের প্রিয়া পুনিয়া ইতিমধ্যেই ফ্যানদের হার্টথ্রব হয়ে উঠেছেন।

বাঁহাতি এই ক্রিকেটার টপ অর্ডারে ব্যাট করেন। ২০১৯ সালে নিউজিল্যান্ডে টি-টোয়েন্টি সিরিজে দলে সুযোগ‌ও পেয়েছেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটে অসাধারণ পারফরম্যানসের জন্যই জাতীয় দলের দরজা খুলেছে এই তরুণীর। তবে এই জায়গায় পৌঁছনোর জন্য তাঁকে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। দলে সুযোগ পাওয়ার পরেই তাঁর বাবার লড়াইয়ের কাহিনী তাঁকে খবরের কেন্দ্রে এনে দেয়। ২০১০ সালে জয়পুরের একটি ক্রিকেট প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে ভর্তি করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু প্রিয়া মেয়ে হওয়ার জন্য সুরেন্দ্র পুনিয়াকে অপমান করা হয় ওই কোচিং সেন্টার থেকে। তখনই জয়পুরের শহরতলি হর্মদা অঞ্চলে ২২ লক্ষ টাকা দিয়ে দেড় বিঘা জমি কেনেন তিনি। এর জন্য তাঁকে সম্পত্তি বিক্রি করা ছাড়াও ঋণ নিতে হয়। যদিও তাঁর প্রথমে স্পোর্টস কমপ্লেক্স গড়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু ক্রিকেটের প্রতি মেয়ের ভালবাসা দেখে ক্রিকেট মাঠ এবং তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেন। সেখানেই মেয়েকে খেলা শেখান। প্রতি মাসে মাঠ সংরক্ষণের জন্য খরচ হত ১৫ হাজার টাকা। সংসারের খরচ সামলে সেই টাকাটাও জোগাড় করতেন সুরেন্দ্র।

অবশেষে প্রিয়া পুনিয়ার বাবার পরিশ্রম সার্থক হয়েছে। গত দুই মৌসুম ধরে তিনি দিল্লির সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীদের অন্যতম। ভারতীয় ‘এ’ দলের হয়েও ভালো পারফরমেনস করেছেন এই ব্যাটসম্যান। তবে ব্যাটে-বলের লড়াইয়ে নয়, এবার আলোচনার কেন্দ্রে প্রিয়া নিজ রূপে।

সিডনীতে সুবিধাজনক অবস্থায় ভারত

সিরিজের চতুর্থ ‌ও শেষ টেস্টের প্রথম দিন শেষে চেতেশ্বর পুজারার সেঞ্চুরিতে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সুবিধাজনক অবস্থানে আছে ভারত। অ্যাডিলেড ও মেলবোর্ন টেস্টে সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। সিডনি টেস্টেও সেঞ্চুরির ধারাবাহিকতা ধরে রাখলেনে পুজারা। ক্যারিয়ারের ১৮তম টেস্ট সেঞ্চুরিটি করলেন পুজারা মিচেল স্টার্কের বলকে ফাইনলেগ দিয়ে সীমানার বাইরে পাঠিয়ে। তাতে দিন শেষে ভারতের সংগ্রহ, ৪ উইকেটে ৩০৩ রান। পুজারা ১৩০ এবং হনুমান বিহারী ৩৯ রানে অপরাজিত আছেন।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে, চা বিরতিতে ২ উইকেটে ১৭৭ রান তোলে ভারত। চেতেশ্বর পুজারার রান তখন ৬১। সঙ্গে ছিলেন অধিনায়ক বিরাট কোহালি (২৩)। কিন্তু চা বিরতির ঠিক পরেই ফিরলেন কোহালি। জশ হেজেলউডের বলে ক্যাচে পরিণত হন অজি অধিনায়ক ও উইকেটকিপার টিম পেনের। দ্বিতীয় উইকেটে কোহালি-পূজারা যোগ করেন ৫৪ রান।

এরপর মিচেল স্টার্কের বলে সাজঘরে ফেরেন অজিঙ্কা রাহানে। ভারতের রান তখন ৩ উইকেটে ২২৮। পুজারা ৯৪ রানে অপরাজিত। জুটি বাঁধেন তিনি হনুমান বিহারীর সাথে। দিনশেষে ২৫০ বলে ১৬ বাউন্ডারিতে ১৩০ রানে অপরাজিত পুজারা। আর অপর অপরাজিত ব্যাটসম্যান হনুমান বিহারী ৫৮ বলে ৩৯ রানে।

টি-টোয়েন্টি সমস্যা কাটিয়ে উঠবে বাংলাদেশ: বিসিবি সভাপতি

আগামী দুই বছরের মধ্যে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশ দল র্দুবলতা কাটিয়ে উঠবে বলে মনে করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আম্পারিংসহ ক্রিকেটের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে সচেষ্ট থাকবেন বলে জানান বোর্ড সভাপতি। আজ বুধবার দুপুুরে ধানমন্ডিতে ব্যক্তিগত অফিসে এসব কথা বলেন তিনি।

ওয়ানডেতে শক্তিশালী দল, টেস্টেও উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশের। তবে টি-টোয়েন্টিতে এখনও নিজেদের সমর্থ্যরে আলোটা বিশ্বজুড়ে ছড়াতে পারেনি টাইগাররা। র‌্যাংকিংয়ে ১০ নম্বরে থাকায় ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে বাছাই পর্বে উত্তীর্ণ হতে হবে বাংলাদেশকে। তবে আগামী দুই বছরের মধ্যে টি-টোয়েন্টির সমস্যা কটিয়ে উঠবে সাকিবের দল, এমনাই প্রত্যাশা বিসিবি সভাপতির। তিনি জানান, টেস্ট ‌ও ‌ওয়ানডেতে বাংলাদেশ ভাল করলে‌ও টি-টোয়েন্টিতে তেমন সাফল্য পাচ্ছেনা। জয়ের খুব কাছে গিয়ে‌ও হতাশ হতে হচ্ছে। তবে আমার ধারণা আগামী দুই বছরের মধ্যে এই সমস্যা কেটে যাবে। কারণ বাংলাদেশ ক্রিকেট এখন সঠিক পথেই আছে। সুতরাং একটু অপেক্ষা করেন, দেখবেন অন্য দুই সংস্করণের মতো টি-টোয়েন্টিতে‌ও নিজেদেরকে ঠিক মতোই চেনাতে পারবে টাইগাররা।

ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিং নিয়ে প্রায় সময়ই প্রশ্ন থাকে। ঘরোয়া টুর্নামেন্টের মান নিয়েও সমালোচনার শেষ নেই। এবছর এসব সমস্যা কাটিয়ে উঠতে চায় ক্রিকেট বোর্ড। তাছাড়া খেলার মানোন্নয়নে অ্যাথলেটদের মান বাড়াতে হবে বলেও মনে করেন বিসিবি সভাপতি।

তাছাড়া সংসদ সদস্য হিসেবে মাশরাফি বিন মুর্তজার অভিষেক নিয়েও কথা বলেন নাজমুল হাসান। তিনি বলেন, এটি তো একটি সাংঘাতিক ব্যাপার। আমার মনে হয় ক্রিকেট ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো এটি হতে যাচ্ছে। আমার জানা নেই বা কখনো শুনিনি যে একজন পার্লামেন্ট সদস্য ক্রিকেট খেলছে মাঠে এবং অধিনায়কত্ব করছে। সুতরাং এটি পুরোপুরি নতুন হবে এবং আমি অনেক রোমাঞ্চিত এটি নিয়ে।

নাজমুল হাসান পাপন জানান, আমার মনে হয় এর চেয়ে ভালো কিছু আর হতে পারে না। কারণ একটি জিনিস মনে রাখবেন, মাশরাফি রাজনীতিতে এসেছে এবং সে অনেক বেশি সিরিয়াস। ওর কিন্তু রাজনীতি করার পেছনে বড় কোনো চিন্তা নেই। একটাই চিন্তা ওর মাথায়, সেটি হলো এলাকার (নড়াইল) কাজ করা।

রাজনীতিতে অংশ নিলেও, মাশরাফির খেলায় কোন ধরনের প্রভাব পড়বেনা বলেও মনে করেন বিসিবি সভাপতি।

বিপিএলের টিকিটের দাম

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ-বিপিএলের টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করেছে গর্ভনিং কাউন্সিল। এবারের বিপিএলে সবচেয়ে কম মূল্যের টিকিটের দাম ২০০ টাকা। আর সর্বোচ্চ টিকিটের দাম ধরা হয়েছে ২০০০ টাকা। তবে এলিমিনেটর, কোয়ালিফায়ার এবং ফাইনালের দাম এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।

বিপিএলের ষষ্ঠ আসরে টিকিটের দাম

ক্রমিক ক্যাটাগোরি রাউন্ড
১. গ্যালারি (সাধারণ) ২০০
২. গ্যালারি (শেড)  ৩০০
৩. ক্লাব হাউজ ৫০০
৪. ভিইপি স্ট্যান্ড ৫০০
৫. গ্র্যান্ড স্ট্যান্ড ২০০০

 

এদিকে, এলিমিনেটর, কোয়ালিফায়ার এবং ফাইনালের টিকিটের দাম পরে জানানো হবে বলে জানিয়েছে বিপিএল গর্ভনিং কাউন্সিল। আগামী ৫ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে এবারের বিপিএলের আসর।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ‌ও সিলেট সিক্সার্সের অনুশীলন

এবারের বিপিএলকে জাতীয় দলে জায়গা করে নেয়ার লক্ষ্য হিসেবে দেখছেন এনামুল হক বিজয় এবং সাব্বির রহমান। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ- বিপিএলকে সামনে রেখে মিরপুরে অনুশীলন শেষে এমনটাই জানালেন, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স এবং সিলেট সিক্সার্সের এই দুই ক্রিকেটার।

সিলেট সিক্সার্সের ক্রিকেটার সাব্বির রহমান

আগামী ৫ জানুয়ারী টুর্নামেন্ট শুরুর আগে আনুষ্ঠানিকভাবে আজ মঙ্গলবার থেকে অনুশীলন শুরু করেছে দলগুলো। প্রথম দিন সিলেট সিক্সার্স এবং রাজশাহী কিংসের ক্রিকেটাররা মিরপুরে একাডেমী মাঠে ব্যাটিং-বোলিংয়ে সময় কাটান। আর কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে ঐচ্ছিক অনুশীলন করেন তামিম ইকবাল এবং এনামুল হক বিজয়। মিরপুরে রংপুর রাইডার্স এবং চিটাগং ভাইকিংসের ম্যাচ দিয়ে শনিবার মাঠে গড়াচ্ছে বিপিএলের ষষ্ঠ আসর।

বাছাইপর্ব খেলতে হবে বাংলাদেশকে

অস্ট্রেলিয়ায়, ২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ক্রিকেটে অংশ নিতে বাংলাদেশকে বাছাইপর্বে অংশ নিতে হবে। স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া সহ ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত র‌্যাংকিংয়ে শীর্ষ আটটি দল সরাসরি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেবে। ২০২০ সালের ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার আটটি ভেন্যুতে হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। এই আসরে অংশ নেবে ১৬টি দল।

আইসিসি’র নিয়ম অনুযায়ী আগেই সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে ৮টি দল। তারা হলো- পাকিস্তান, ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তান। তবে সাবেক চ্যাম্পিয়ন ও তিনবারের ফাইনালিস্ট শ্রীলংকা ও বাংলাদেশকে বাছাইপর্ব খেলে আসা ছয়টি দলের সঙ্গে গ্রুপ পর্ব খেলে সুপার টুয়েলভে জায়গা করে নিতে হবে। আজ মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি।

সুপার টুয়েলভের আগে, আরো একটি পরীক্ষা দিতে হবে এশিয়ার দুই দেশকে। ২০২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব থেকে গ্রুপপর্বে আসবে ছয়টি দল। এই আট দল মিলে খেলবে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব। সেখান থেকে চারটি দল উঠবে সুপার টুয়েলভে।

আইসিসি’র টি-টোয়েন্টি দলে রুমানা

আইসিসি’র বর্ষসেরা নারী টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা করে নিয়েছেন বাংলাদেশ দলের অলরাউন্ডার রুমানা আহমেদ। আজ সোমবার দুপুরে ২০১৮ সালের সেরা ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি নারী দল ঘোষণা করেছে আইসিসি। ওয়ানডে দলে বাংলাদেশের কেউ সুযোগ পাননি। তবে টি-টোয়েন্টি দলে প্রতিনিধিত্ব করছেন রুমানা আহমেদ।

২০১৮ সালে ২৪ ম্যাচ খেলে তিনি তুলে নেন ৩০টি উইকেট। দেশের হয়ে ৫৮টি টি-টোয়েন্টিতে রুমানা নিয়েছেন ৫২ উইকেট। ব্যাট হাতে করেছেন ৬৬৩ রান। আইসিসি ঘোষিত এই দলে অস্ট্রেলিয়ার ৪ জন, ভারতের ৩ জন, নিউজিল্যান্ডের ২ জন, আর ইংল্যান্ড এবং বাংলাদেশের একজন করে ক্রিকেটার জায়গা পেয়েছেন।