সকাল ১১:৪০, বুধবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০১৭ ইং

এরআগে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি হিসেবে নিজের অনীহার কথাই জানিয়েছেন নাজমুল হাসান। তাই কে হবেন বিসিবি’র পরবর্তী সভাপতি, এমন জল্পনা-কল্পনা চলছিলো। এদিকে, আলোচিত সাবেক সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী নিজের ইচ্ছায় কাউন্সিলরই হননি। তবে সবার ইচ্ছাতে আবার‌ও বিসিবিতে সভাপতি হিসেবে থাকার ইঙ্গিত দিলেন সবশেষ সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

৩১ অক্টোবর নির্বাচন। প্রিমিয়ার লিগের ক্লাব আবাহনী লিমিটেড থেকে কাউন্সিলর হয়েছেন তিনি। আগামীতেও বোর্ড সভাপতি হিসেবে দেখা যাবে কিনা-এমন প্রশ্নে তিনি পাপন বললেন, ‘সবাই চাচ্ছে এটাই। আগে বোর্ড পরিচালক হিসেবে নির্বাচিত হই, তারপর দেখা যাবে।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) নির্বাচিত সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের নেতৃত্বাধীন কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ১৭ অক্টোবর। এই চার বছর বর্তমান কমিটির আছে অনেক সাফল্য। সাফল্যের বড় অংশজুড়ে জাতীয় দলের আন্তর্জাতিক ময়দানে ভাল করা। তার সময়ই ওয়ানডে ক্রিকেটে নিজেদের সেরা র‌্যাঙ্কিংয়ে (ছয়) উঠেছে বাংলাদেশ। এখন অবশ্য একধাপ নেমে মাশরাফীবাহিনীর অবস্থান সাত।

বিসিবির বিদায়ী বোর্ড সভাপতি আশায় বুক বেঁধেছিলেন তার সময়েই র‌্যাঙ্কিংয়ে পাঁচে উঠবে বাংলাদেশ। সেটি না হওয়ায় আক্ষেপ ঝরল তার কণ্ঠে, ‘র‌্যাঙ্কিংয়ের একটা স্বপ্ন তো রয়েই গেল। আমার ইচ্ছা ছিল পাঁচে যাব। বলেছিলামও আপনাদের। পাঁচ হয়নি, পাঁচ হওয়া উচিত ছিল। না হওয়ার কোনো কারণ দেখি না। আমি আত্মবিশ্বাসী ছিলাম আমরা পাঁচে উঠে যাব। সামনে এটাই হবে চ্যালেঞ্জ; পাঁচের মধ্যে চলে আসা।’

নাজমুল হাসানের মতে, তার সময়ে বাংলাদেশ দল যে সাফল্য পেয়েছে তা ছিল অকল্পনীয়। আজ মঙ্গলবার বিসিবি কার্যালয়ে চার বছরের সফলতার ফিরিস্তি তুলে ধরে পাপন সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, ‘টিম ভাল খেলেছে, এটা তো অস্বীকার করার কোনো পথ নেই। আবার খারাপও খেলেছে। ওয়ানডেতে আমরা খুব ভালো খেলেছি। বিশ্বকাপে আমরা কোয়ার্টার ফাইনালে গেলাম। ভারতকে হারানো, চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সরাসরি গিয়েই সেমিফাইনালে যাওয়া এগুলোই মাইলস্টোন।’

‘দেশের মাটিতে আমরা অনেক ভাল খেলেছি। পাকিস্তানের সাথে সিরিজ জিতেছি, এটা তো একটা বিরাট ব্যাপার,’ মন্তব্য করে নাজমুল হাসান বলেন, ‘ভারত, সাউথ আফ্রিকার সাথে সিরিজ জিতেছি। এটা তো অকল্পনীয় ছিল আগে।’