বিকাল ৪:১৯, রবিবার, ২৮শে মে, ২০১৭ ইং

পর্যটন নগরী কক্সবাজারের পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের লাবনী পয়েন্টে তিনদিন ব্যাপী ব্র্যাক চিকেন জাতীয় সার্ফিং প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন।
প্রাথমিকভাবে ১৫০ জন নিবন্ধন করলেও যাচাই-বাছাই শেষে প্রতিযোগিতায় সিনিয়র, জুনিয়র ও মহিলা ইভেন্টে ৯০ জন সার্ফার এই টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে। যার মধ্যে ৮০ জন ছেলে ও ১০ জন মেয়ে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, সার্ফিং নতুন জলক্রীড়া। এটি পরিবেশ বান্ধব ক্রীড়া, এতে পরিবেশ রক্ষা হয়। পর্যটকদের চিত্ত বিনোদনের কাজও করে এটি। আমার মতে, এটি জীবন রক্ষাকারী পেশা, শারীরিক চর্চাও হচ্ছে। খুবই গুরুত্বপূর্ণ জলক্রীড়া। আমি সার্ফারদের বলবো, এরা সাগর যোদ্ধা। আশা করি আগামীতে সার্ফিং সারা বিশ্বে বাংলাদেশকে তুলে ধরবে।
সার্ফিং অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, কক্সবাজার সার্ফিংয়ের হেড কোয়ার্টার হওয়া উচিত। সরকারই ক্রীড়া মন্ত্রণালয়কে বলে সার্ফিংয়ের পাশে দাঁড়াতে পারে। সার্ফিংকে জনপ্রিয় করতে আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি। সার্ফাররাই ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে গোটা বিশ্বে পরিচিত করবে।
টুর্নামেন্টের প্রধান পৃষ্ঠপোষক ব্র্যাক ডেইরি অ্যান্ড ফুড এন্টারপ্রাইজের পরিচালক তৌফিকুর রহমান বলেন, সার্ফিংয়ের প্রস্তাব যখন আমাদের কাছে আসে, তখনই মনে হয়েছে এটি বাংলাদেশের জন্য একটি সুযোগ। তখনই আমরা আগ্রহ পেয়েছিলাম। আমরা চুক্তি করেছি। আরো দুই বছর চুক্তির মেয়াদ আছে। এখন দ্বিতীয় বছরে এসে বুঝেছি, আমাদের ভুল ছিল না।
প্রতিযোগিতায় কো স্পন্সর নভোএয়ারের পক্ষ থেকে সার্ফারদের জন্য পুরস্কার ঘোষণা করা হয়। প্রতিযোগিতার তিন ইভেন্টের বিজয়ীকে নভোএয়ারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের অভ্যন্তরের রুটে একটি করে টিকিট দেয়ার ঘোষণা দেন নভোএয়ারের মার্কেটিং ম্যনেজার একে এম মাহফুজুল আলম।
সার্ফিং দ্য নেশনস এর প্রতিষ্ঠাতা টম বাওয়ার, শিল্পোদ্যোক্তা হাজী দেলোয়ার হোসেন, ট্যুরিস্ট পুলিশের এএসপি রায়হান কাজেমী, কক্সবাজার জেলার এডিসি জেনারেল ড. অনুপম সাহা, কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অনুপ বড়ূয়া অপু, বাংলাদেশ সার্ফিং অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি জেহাদউদ্দিন ও জামাল রানা, সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী এবং সদস্য সারওয়ার হোসেন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।
এছাড়া প্রতিযোগিতার টাইটেল স্পন্সর ব্র্যাক চিকেন, কো স্পন্সর নভোএয়ার লিমিটেড, পৃষ্ঠপোষক বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন, ওশ্যান প্যারাডাইজ হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট, বেস্ট ওয়েস্টার্ন, নিসর্গ রিসোর্ট, অ্যাকোয়াফিনা এবং সেন্ট মার্টিন পরিবহনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।