সকাল ৯:৫৪, রবিবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৭ ইং

এজবাস্টন টেস্টের তৃতীয় দিনে ১৯টি উইকেট তুলে নিলো ইংল্যান্ড। তাতেই দিন-রাতের এই টেস্ট ইনিংস ‌ও ২০৯ রানে জিতে নিলো ইংল্যান্ড। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ছন্নছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিং। প্রতিরোধ গড়তে পারলেন না কেউই। তিন দিনেই অতিথিদের গুঁড়িয়ে দিয়ে ইংল্যান্ডের মাটিতে প্রথম দিন-রাতের টেস্ট জিতল জো রুটের দল। তাতে তিন ম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেলো ইংল্যান্ড।
শনিবার ম্যাচের তৃতীয় দিন ৪৭ ওভারে ১৬৮ রানে অলআউট হয়ে ফলোঅনে পড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। দ্বিতীয় ইনিংসে অতিথিদের ব্যাটিং আরও দিশাহীন। ১৩৭ রানে গুটিয়ে যায়। নেই কোনো কোনো ফিফটি, জুটি বেধেও স্পর্শ করতে পারেনি পঞ্চাশ।
বুক চিতিয়ে একাই লড়লেন জার্মেইন ব্ল্যাকউড, তাতে কাজ হল না। জেমস অ্যান্ডারসনের সঙ্গে উইকেট শিকারে যোগ দিলেন স্টুয়ার্ট ব্রড, টরি রোল্যান্ড-জোন্স আর মইন আলি। উড়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের সব প্রতিরোধ।
ইংল্যান্ডকে আবার ব্যাটিংয়ে নামাতে ৩৪৬ রান দরকার ছিল অতিথিদের। কিন্তু ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপদের শুরু জেমস অ্যান্ডারসনের হাত ধরে। কাইরন পাওয়েলকে বিদায় করে প্রথম আঘাত হানেন তিনিই। অন্য উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ক্রেইগ ব্রেথয়েট খানিকটা প্রতিরোধ গড়েন। ৭৬ বল টিকে থেকে করেন ৪০ রান।

৫০ এর বেশি বল খেলতে পারেননি ওয়েস্ট ইন্ডিজের আর কোনো ব্যাটসম্যান। প্রথম ইনিংসে শূন্য রানে আউট হওয়া রোস্টন চেইস এবার ৪৭ বলে করেন ২৪ রান। বিশের ঘরে যেতে পারেনি অতিথিদের আর কোনো ব্যাটসম্যান।
প্রথম ইনিংসে দলকে ৮ উইকেটে ৫১৪ রানের বিশাল সংগ্রহ এনে দিতে ২৪৩ রানের দারুণ ইনিংস খেলা ইংলিশ উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান অ্যালিস্টার কুক জিতেছেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।
দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৪ রানে ৩ উইকেট নিয়েছেন পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড। তাতে তিনি ইয়ান বোথামকে ছাড়িয়ে উঠে গেছেন উইকেট শিকারে দ্বিতীয় স্থানে। ইংলিশদের মধ্যে ব্রডের আগে আছেন জেমস অ্যান্ডারসন। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন অ্যান্ডারসন, টবি রোল্যান্ড-জোন্স ও মইন আলি।
আগামী শুক্রবার হেডিংলিতে শুরু হবে দ্বিতীয় টেস্ট।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৫১৪/৮ ইনিংস ঘোষণা
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস: ১৬৮
ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২য় ইনিংস: ১৩৭ (ব্রেথয়েট ৪০, পাওয়েল ২০; অ্যান্ডারসন ২/১২, ব্রড ৩/৩৪, রোল্যান্ড-জোন্স ২/১৮, মইন ২/৫৪)

মুমিনুল মানেই বাংলাদেশ ক্রিকেট নয় : হাথুরুসিংহে

‘আমরা কোনো ক্রিকেটারকে আলাদা করছি না। সবাইকে সমানভাবে বিবেচনা করি। সবাইকে সমান সুযোগ দিচ্ছি।’- কথাগুলো বলছিলেন জাতীয় দলের কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। তাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, সৌম্য সরকার যে পরিমাণে সুযোগ পেয়েছেন। মুমিনুল হক কি সমান পরিমাণে সুযোগ পেয়েছেন? ফ্রন্টফুটে এসে বেশ সাবলীলভাবেই প্রশ্ন সামলেছেন হাথুরুসিংহে!

আজ প্রশ্ন উঠেছিল, মুমিনুল হককে বাদ দেয়ায়। মুমিনুল হক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঢাকা টেস্টে বাদ পড়েছেন। বাংলাদেশের সবথেকে নির্ভরযোগ্য টেস্ট ব্যাটসম্যানকে বাদ দেয়ায় একের পর এক প্রশ্নে জর্জরিত ছিল নির্বাচক প্যানেলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু ও প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথরুসিংহে।

হাথুরুসিংহে মুমিনুলকে বাদ দেয়া নিয়ে আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘এসব প্রশ্ন তুলে আপনারা ক্রিকেটারদের কাজ কঠিন করে দিচ্ছেন। আমাদের চোখে প্রত্যেকেই সমান। সবাইকে সমান সুযোগ দেয়া হচ্ছে। তাদের সেরাটা বের করে আনার চেষ্টা করি সব সময়। এক মুমিনুল মানেই পুরো বাংলাদেশ ক্রিকেট নয়। আমাদের শুধু মুমিনুলকে নিয়ে ভাবলেই হবে না। আমাদের ১১জন ক্রিকেটারকে নিয়ে ভাবতে হবে। আপনারা একজন-দুজনকে নিয়ে বেশি চিন্তিত।’

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের বাংলাদেশ দলে রাখা হয়নি মুমিনুলকে। সাম্প্রতিক ফর্ম ভালো না হলেও বাংলাদেশের বর্তমান দলের প্রত্যেকের থেকে তার গড় সবথেকে বেশি এবং ঈর্ষণীয়। কিন্তু কপাল পুড়ল দেশের সেরা ব্যাটসম্যানের। কোথায় সমস্যা কোচের কাছে জানতে চাইলে বলেন, ‘সে রান করছে না। একই পজিশনে যারা আছে তারা রান পাচ্ছে।’

সিরিজ ঘিরে তিন স্তরের নিরাপত্তা

ভিভিআইপি নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দেয়ার পরই অবশেষে ১১ বছর পর বাংলাদেশে টেস্ট খেলার জন্য আসলো অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। শুক্রবার রাত পৌনে ১১টায় ঢাকায় এসে পা রাখলো স্টিভেন স্মিথের দল। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজকে ঘিরে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। মিডিয়াকে এমনটাই জানিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া।

আজ (শনিবার) বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের নিরাপত্তা ব্যবস্থা কেমন হবে- এ নিয়ে শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন ডিএমপি কমিশনার।

এ সময় তিনি জানান, সিরিজের পুরো নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। আসাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ‘আমরা এই সিরিজের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে তিন ভাগে ভাগ করেছি। এক. স্টেডিয়ামের নিরাপত্তা, দুই. রাস্তার আসা-যাওয়ার নিরাপত্তা এবং তিন. হোটেলের নিরাপত্তা।’

আসাদুজ্জামান মিয়া দাবি করেন, কোন ধরনের বিশৃঙ্খল অবস্থা সৃষ্টি হওয়ার সুযোগ দেয়া হবে না। খেলা চলাককালীন সময়ে বন্ধ থাকবে স্টেডিয়ামের আশে-পাশের সকল দোকান-পাট।

এছাড়াও ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘এবার টিকেটে যার যে সিট থাকবে, নিরাপত্তার স্বার্থে তাকে সেই সিটেই বসতে হবে। এর কোন নড়চড় হবে না।’

এর আগে ডিএমপি কমিশনার মিরপুর স্টেডিয়ামে এসে পুরো নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শন করেন। নিরাপত্তার জন্য পুলিশের বিশেষ বাহিনী সোয়াটের পাশাপাশি ডিএমপির ডগ স্কোয়াডও মোতায়েন করা হয়েছে।

বিশ্বাস ছিল দলে ফিরব : নাসির

জাতীয় দলে দীর্ঘদিন উপেক্ষিত। ঘরোয়া ক্রিকেটে একের পর এক দারুণ খেলা উপহার দেয়ার পরও কেন যেন নাসির হোসেন জাতীয় দলে ডাক পাচ্ছিলেন না। নির্বাচক, কোচ কিংবা টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে বরাবরই উপেক্ষিত থাকতে হচ্ছে নাসির হোসেনকে। শেষ পর্যন্ত ভাগ্যের সিঁকে ছিঁড়ল নাসিরের। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের জন্য ঘোষিত ১৪ জনের দলে জায়গা পেলেন নাসির।

আজ জাতীয় দলের কোনো অনুশীলন ছিল না। ক্রিকেটাররা যে যার মতো নিজের বাসা কিংবা বাড়িতেই অবস্থান করছিল। মোট কথা, আজ ছিল বিশ্রামের দিন। এ কারণে দল ঘোষণার দিন মাঠে দেখা যায়নি কোনো ক্রিকেটারকে। দলে ফেরার খবর সবার আগে জাগো নিউজের কাছ থেকেই জানতে পারেন নাসির।

টিম ম্যানেজমেন্ট কিংবা নির্বাচক- কারও কাছ থেকে আগে থেকে কোনো ইঙ্গিতও পাননি নাসির। যদিও নিজের ভেতর বিশ্বাস ছিল- কেন যেন এবার আর তাকে উপেক্ষা করা হবে না। দলে ডাকা হবে। অন্তত ১৪ জনের দলে থাকবেন তিনি। সে কথাই জাগো নিউজকে জানান নাসির, ‘কেউ আমাকে আগে থেকে কিছু বলেনি। তবে বিশ্বাস ছিল, ১৪ জনের মধ্যে থাকতে পারি।’

কেন এই এমন বিশ্বাস তৈরি হয়েছে নাসিরের? সেই হেতু নিজেই জানালেন তিনি। বললেন, ‘গত এক বছরের বেশি সময় জাতীয লিগ এবং প্রিমিয়ার লিগসহ ঘরোয়া ক্রিকেটে সাধ্যমত চেষ্টা করেছি ভালো খেলার। আমার বিশ্বাস সেই ভালো খেলাটাকেই মানদণ্ড ধরেছেন নির্বাচকরা। তাই তাদের বিবেচনায় এসেছি। আমার মূল্যায়ন হচ্ছে, ভালো খেলার পুরস্কারই আবার দলে ফিরে আসা।’

জাগো নিউজের সঙ্গে ফোনে যখন কথা বলছিলেন, যখন প্রথম শুনলেন দলে ফিরে এসেছেন তখনও তাকে খুব বেশি উচ্ছ্বাসিত মনে হয়নি। একটা নির্লিপ্ত ভাব। এমন দেখে প্রশ্নই করা হলো, তাহলে কি আপনি উচ্ছসিত কিংবা উল্লসিত নন?

নাসিরের উত্তর, ‘না, তেমন না। এমনিতে খুশি। তবে একদম উল্লসিত হওয়ার মত ঘটনা তো কিছু ঘটেনি। আমার বিশ্বাস ছিল, যে দলে থাকতে পারি এবং সেটাই হয়েছে। যদি বিশ্বাস না থাকতো এবং দলে চলে আসতাম, তাহলে উচ্চসিত হওয়ার কিছু থাকতো।’

আপনাকে নিয়ে তো এর মধ্যে অনেক কথা হচ্ছিল। আবার দলে নেয়া হতে পারে এমন গুঞ্জন আগেই ছড়িয়ে পড়েছিল। টিম ম্যানেজমেন্ট এবং নির্বাচকদের পক্ষ থেকে কী কোনো ইঙ্গিত পেয়েছিলেন? প্রধান নির্বাচক কিংবা কোচ কি এ কথা বলেছিলেন যে, অস্ট্রেলিয়া সিরিজে তুমি থাকছ?

জাগো নিউজের কাছ থেকে এমন প্রশ্ন শুনে নাসির বললেন, ‘না ভাই এমন কোনো আভাস কিংবা ইঙ্গিত কেউ দেননি। তবে যখন নেটে ব্যাট করতাম, তখন কোচ খুব মনযোগ দিয়ে আমার ব্যাটিং দেখেছেন এবং প্রায় দিনই ব্যাটিং শেষে বলতেন, ভালো ব্যাটিং করেছ। এটাই ছিল আমার এক রকমের আত্মবিশ্বাসের দাওয়াই যে, কোচ আমার ব্যাটিংয়ের প্রশংসা করেছেন।’

মুমিনুল-মাহমুদউল্লাহ নেই, নাসির এসেছেন দলে। তাকে কী একাদশে রাখা হবে কিংবা টিম কম্বিনেশনে নাসিরের জায়গা কোথায় হবে? তা নিয়ে এখনই জ্বল্পনা-কল্পনার ফানুস উড়তে শুরু করেছে। জাগো নিউজের কাছ থেকে ঠিক সে প্রশ্নই পেলেন নাসির, ‘একাদশে থাকার ব্যাপারে কতটা আশাবাদী আপনি?’

নাসিরের আত্মবিশ্বাসী উচ্চারণ, ‘আমি অনেক আশাবাদী। তবে, আমার খেলা না খেলা নির্ভর করবে উইকেট ও টিম কম্বিনেশনের ওপর। যদি পেস বোলিং সহায়ক উইকেটে খেলা হয়, তাহলে আমার এগার জনে থাকার সম্ভাবনা অনেক কম। স্লো ও স্পিনিং ট্র্যাকে খেলা হলে টিম কম্বিনেশনে আমি হয়তো বিবেচনায় থাকতে পারি।’

 

‘ইনশাআল্লাহ আবার কামব্যাক করব’

তার যে কৃতিত্ব আছে, বাংলাদেশের কোন ব্যাটসম্যানের তা নেই। শুধু বাংলাদেশের কথা বলা কেন, মমিনুল হক হচ্ছেন বিশ্বের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান, যিনি দক্ষিণ আফ্রিকার এবি ডি ভিলিয়ার্সের পর টানা ১১ টেস্টে অন্তত একবার পঞ্চাশ বা তার বেশি রান করার দুর্লভ রেকর্ড গড়েছেন।

কিন্তু এমন টানা ১০-১২ টেস্ট খুব ভাল খেলার পুরষ্কার কি পেলেন তিনি? হঠাৎ এক বা দুই টেস্টে রান করতে না পারলেই বাদ! তার আগের সব কৃতিত্ব, সাফল্য, অর্জন ও প্রাপ্তি শেষ? আগের পারফরমেন্সের কোনই মূল্য নেই?

যে কেউ বলবেন, কেন থাকবে না? অবশ্যই থাকবে। থাকা উচিৎ। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে সম্ভবত এই উচিৎ-অনুচিতের বালাই নেই। থাকলে বাংলাদেশের মুমিনুল হক ঘরের মাঠে টেস্ট ইতিহাসের সফলতম ব্যাটসম্যান কলম্বোয় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শততম টেস্টে দল থেকে বাদ পড়তেন না।

এরপর ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্ট স্কোয়াডেরও বাইরে থাকতে হতো না তাকে। টেস্ট ক্যারিয়ার শুরু হাফ সেঞ্চুরি (২০১৩ সালের মার্চে, ৫৫) দিয়ে। একই সফরে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে আবার হাফ সেঞ্চুরি (৬৪)। তৃতীয় টেস্টটাই শুধু হাফ সেঞ্চুরিশূন্য (২৩+২৯)।

২০১৩ সালের অক্টোবরে চট্টগ্রাম টেস্টে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১৮১ রানের বিশাল ইনিংস দিয়ে শুরু। তারপর টানা ১১ টেস্টে তিন শতক আর অন্তত একটি ফিফটি। এমন দুর্লভ কৃতিত্বেও অধিকারি মুমিনুল হক এখন টেস্ট দলের বাইরে।

প্রধান নির্বাচক ও হেড কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে মুমিনুলের বাদ পড়া নিয়ে অনেক কথাই বলেছেন। আনুষ্ঠানিক দল ঘোষণার সময় প্রধান নির্বাচক ও কোচ নানা ব্যাখ্যা দিয়েছেন। যার সারমর্ম হলো, ‘মমিনুলের সাম্প্রতিক পারফরমেন্স তেমন ভাল নয়। তার ব্যাটে রান নেই। তাই নেই মুমিনুল।’

খালি চোখে এ মন্তব্য ও ব্যাখ্যাকে অসাড় মনে হলেও পরিসংখ্যান কিছুটা তাই জানাচ্ছে। মুমিনুল ২০১৫ সালের জুলাই থেকে গত মার্চে গল টেস্ট (৫+৭) পর্যন্ত ৬ টেস্টে ১২ ইনিংসে করেছেন মাত্র ২৭৮ রান। (৫+৭+২৭+১২+২৩+৬৪+১+৬৬+২৭+০+৪০+৬ = ২৭৮)।

তারপরও ২২ টেস্টের ছোট্ট ক্যারিয়ারের প্রায় ১৫-১৬ টেস্টে অনেক বেশি ভাল খেলার পর এমন হতেই পারে। নির্বাচকরা ও টিম ম্যানেজমেন্ট সেটা বিবেচনায় আনতেই পারতেন। এই না আনা ভক্ত ও সমর্থকদের মনোকষ্টের কারণ। অগনিত মুমিনুল ভক্ত যারপরনাই হতাশ।

বাংলাদেশ সমর্থকদের একটা উল্লেখযোগ্য অংশ মুমিনুলের বাদ পড়া মেনে নিতে পারেননি। আজ দুপুরে দল ঘোষণার আনুষ্ঠানিক প্রেস কনফারেন্সর প্রায় পুরোটা জুড়েই ছিলেন মুমিনুল। কেন নেই মুমিনুল? কোন বিবেচনায় তাকে বাইরে রাখা হলো? প্রশ্নের পর প্রশ্ন। প্রশ্ন বাণে জর্জরিত প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু ও হেড কোচ হাথুরুসিংহে।

তবে যাকে নিয়ে এত কথা, যার বাদ পড়া রীতিমত ‘টক অফ দ্যা কান্ট্রি’ সেই মুমিনুল কি হতাশ? তার অনুভুতি কি? খুব জানতে ইচ্ছে করছে তাই না। তাহলে শুনুন, মুমিনুল মোটেই হতাশ নন। মন খারাপ কিন্তু অভিব্যক্তি স্বাভাবিক।

জাগো নিউজের সাথে শনিবার বিকেলে একান্ত আলাপে এ বাঁ-হাতি উইলোবাজ জানিয়ে দিয়েছেন হতাশা তাকে গ্রাস করতে পারেনি। কেন হতাশ নন? কথা বার্তায় পরিষ্কার মুমিনুল নিজেও মনে করেন, তার ফর্মটা মাঝে ভাল যায়নি।

তাইতো সে ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে মমিনুল জানালেন, ‘আমি হতাশ নই। বাদ পড়াটাকে নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখতে চাই না। আমি বাদ পড়া নিয়ে ভেবেছি। তাতে যে খুব হতাশ হয়েছি, তা নয়। হ্যাঁ দলে না থাকায় খারাপ লাগছে। তাই বলে হতাশায় মুষড়ে পড়িনি। বরং বাদ পড়াটাকে অন্যভাবে দেখার চেষ্টা করছি। তাতে একটা নতুন বোধোদয় হয়েছে। আমার মনে হয় নিকট অতীত ও সাম্প্রতিক সময়টা আমার খুব একটা ভাল যায়নি। তবে সেটাও অস্বাভাবিক না। এটা অনেকেরই যায়। ক্যারিয়ারে কখনো কখনো এমন সময় আসে, যখন ফর্ম ও পারফরমেন্স একটু খারাপ হয়। ছন্দপতন ঘটে। আমারও হয়ত তেমন হয়েছিল।’

এ কারণেই মুমিনুলের অনুভব, ‘আমার মনে হয় আমাকে আরও বেশি ভাল খেলতে হবে। আমাকে বর্তমানের চেয়ে দ্বিগুণ পরিশ্রম করতে হবে। এখন যা পরিশ্রম করি, তার চেয়ে অনেক বেশি পরিশ্রম করতে হবে। সে সাথে পারফরমেন্সের গ্রাফটাও আরও উঁচুতে টেনে তুলতে হবে। আমি জান-প্রাণ দিয়ে চেষ্টা করবো আবার সেরাটা উপহার দিতে।’

অনেকেরই মত, শুধু মাত্র টেস্ট দলে থাকা এবং বছরে মাত্র একটি-দুটি টেস্ট খেলার কারণে মনোযোগ-মনোসংযোগে চিড় ধরেছে মুমিনুলের। ছন্দপতনও ঘটছে। বছরের বেশির ভাগ সময় তার সতীর্থরা ব্যস্ত সময় কাটান ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি ফরম্যটের প্র্যাকটিসে। আর তখন সাদা বলে প্র্যাকটিসের প্রহর গোনেন মমিনুল। এটা কি ভাল খেলায় বড় অন্তরায়?

বেশিরভাগ সময় দলের বড় অংশ যখন প্র্যাকটিস করে তখন আপনি একা একা থাকেন। এটা কি মনোযোগ-মনোসংযোগে চিড় ধরায়? বিনয়ী মমিনুল অবশ্য তা মানতে নারাজ। তার ব্যাখ্যা, ‘নাহ তেমন কোন অজুহাত দিতে চাই না। তবে এটা সত্য, আমরা বছরে মাত্র ২-৩টা টেস্ট খেলি।’

মুমিনুলের শেষ কথা, ‘ইনশাল্লাহ আবার কামব্যাক করতে পারবো। আমি বিশ্বাস করি ভাল খেললে আবার ফিরে আসবো।’ এ সিরিজে দলে ফেরার আশা করেন? মুমিনুল বলেন, ‘হ্যাঁ, সে চেষ্টা তো থাকবেই। প্রস্তুতি ম্যাচে ভাল খেলতে সাধ্যমত চেষ্টা করবো। সেখানে ভাল খেলতে পারলে দ্বিতীয় টেস্টে দলে জায়গা মিলতেও পারে।’

বাংলাদেশের বিপক্ষে এই সিরিজ এক কঠিন চ্যালেঞ্জ: স্টিভেন স্মিথ

বাংলাদেশের বিপক্ষে এই সিরিজকে কঠিন চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। বোর্ডের সাথে ঝামেলার কারণে জুলাই মাসে মাঠে নামা হয়নি অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটারদের। ভিন্ন কন্ডিশনে নিজেদের মানিয়ে নেয়া আর বাংলাদেশের স্পিনিং উইকেটের কারণে এই সিরিজকে বেশ চ্যালেঞ্জিং মনে করছেন অজি অধিনায়ক।
তার আেগ, দুপুরের তপ্ত রোদ মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামের পুরো মাঠ জুড়ে। রোদের তাপে দাঁড়ানো কঠিন। সেই উত্তপ্ত রোদে হঠাৎ মিরপুরের শেরে বাংলার উইকেটের দিকে এগিয়ে যেতে দেখা গেল অস্ট্রেলিয়ার অনুশীলনের জার্সি পরা তিনজনকে। ভালোভাবে তাকাতেই দেখা গেল উইকেট দেখতে আসেন অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার। খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে উইকেট দেখেন তারা। বুঝতে চান তারা উইকেটের আচরণ। এই উইকেটেই আগামী ২৭ তারিখ প্রথম টেস্টে মাঠে নামবে অস্ট্রেলিয়া দল।
উল্লেখ্য, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে গতকাল শুক্রবার রাতে ঢাকায় পা রাখে স্মিথ বাহিনী। আগামী ২২ আগস্ট শুরু হবে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। আর ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় শুরু হবে প্রথম টেস্ট। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর।
দীর্ঘ এগারো বছর পর দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে গতকাল (শুক্রবার) রাতে ঢাকায় পৌঁছায় অস্ট্রেলিয়া দল। আর এ সিরিজকে সামনে রেখে এরই মধ্যে পুরো ঢাকা জুড়ে নেয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
তবে নিরাপত্তাটা যেন সবচেয়ে বেশ মিরপুরের ‘হোম অফ ক্রিকেটে।’ কয়েকদিন ধরেই নিয়মিত নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য স্টেডিয়ামের ভেতর ও বাহিরে রয়েছে র্যা ব ও পুলিশের টহল দল। সাদা পোশাকে রয়েছে পুলিশের গোয়েন্দা শাখার লোক। প্রস্তুত রাখা হয়েছে সোয়াট বাহিনীও।

প্রস্ততি ম্যচের দলে মমিনুল ও রিয়াদ

দুই ম্যাচ সিরিজ শুরুর আগে সফরকারী দলের বিপক্ষে দুদিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বিসিবি একাদশ। এই দলের হয়ে মাঠে নামবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুমিনুল হক।
এছাড়া প্রথম টেস্টের দলে ডাক পাওয়া নাসির হোসেন, লিটন দাস ও মোসাদ্দেক হোসেনও রয়েছেন এ দলে।
এর আগে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম টেস্টের জন্য ১৪ সদস্যের দল ঘোষণা করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টের স্কোয়াডে জায়গা পেয়েছেন নাসির। তার সঙ্গে ফিরেছেন পেসার শফিউল ইসলাম। বাদ পড়েছেন মাহমুদউল্লাহ, মুমিনুল হক ও দুই পেসার রুবেল হোসেন ও পেসার শুভাশিস রায়।
এদিকে ফতুল্লার খান সাহেব উসমান আলী স্টেডিয়ামে প্রস্তুতি ম্যাচ হওয়ার কথা থাকলেও বৃষ্টির পানি আটকে থাকায় ওই মাঠে খেলা নিয়ে সংশয় রয়েছে। তবে বিকল্প ভেন্যু হিসেবে আরও দুটি মাঠ দেখানো হয়েছে অস্ট্রেলিয়া প্রতিনিধি দলকে।
উল্লেখ্য, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে শুক্রবার ঢাকায় পা রেখেছে স্মিথ বাহিনী। ২২ আগস্ট শুরু হবে দুদিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। আর ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরেবাংলায় শুরু হবে প্রথম টেস্ট। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর।

১৪ সদস্যের প্রস্তুতি ম্যাচের দল
নাজমুল শান্ত, লিটন দাস, মুমিনুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), নাসির হোসেন, মোসাদ্দেক সৈকত, ইরফান শুকুর, সাইফুদ্দীন, শুভাশিস রয়, আবু জায়েদ রাহী, তানভীর হায়দার, জুবায়ের হোসেন লিখন, আবুল হাসান রাজু।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দল ঘোষনা

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আসন্ন সিরিজের প্রথম টেস্টের দলে ফিরছেন নাসির হোসেন ‌ও পেসার শফিউল ইসলাম। এবং মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মমিনুল হক সৌরভ বাদ পড়েছেন। তাদের বাদ পড়া নিয়ে গত কয়েকদিন ধরেই মিরপুরে গুঞ্জন চলছিল। অবশেষে বাস্তবেও এর সত্যতা মিললো। দলে জায়গা হয়নি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুমিনুল হকের। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টেস্টের ১৪ সদস্যের দলে জায়গা হয়নি ওয়ানডেতে টাইগারদের ব্যাটিংয়ের নির্ভরতার প্রতীক হয়ে ওঠা মাহমুদউল্লাাহ রিয়াদের। তারচেয়েও অবাক করা ছিল, মুমিনুল হকের বাদ পড়া। বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যান বাংলাদেশ টেস্ট দলের অন্যতম সফল ক্রিকেটার।
তবে দু’বছর পর দলে ফিরেছেন মিস্টার ফিনিশার খ্যাত নাসির হোসেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে শুরু করে সব জায়গায় ছিল নাসিরকে দলে ফেরানো নিয়ে আলোচোনা। বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের সে আশার প্রতিফলন ঘটেছে দলে নাসিরকে স্থান দিয়ে। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে দল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। এসময় উপস্থিত ছিলেন অপর নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন ও জাতীয় দলের কোচ হাথুরুসিংহে। তিনি নিজেও আছেন নির্বাচক প্যানেলে।
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচের সিরিজে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুমিনুল হক থাকছেন না- এ খবর সংবাদ মাধ্যমে আগেই ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশ ছাড়িয়ে বহির্বিশ্বেও। শততম টেস্টে নাটকীয়ভাবে বাদ পড়া রিয়াদের উপর নির্বাচকদের আস্থা কমেছে আগেই। ওয়ানডে ফরমেটে সফল রিয়াদকে কেন যেন টেস্টে মানানসই মনে করেন না কোচ ও নির্বাচকরা। তাই প্রথম টেস্টে নেই রিয়াদ। তবে ব্যাটসম্যান হিসেবে টেস্টে যিনি সবচেয়ে সফল, সেই মুমিনুল হকের উপরও আস্থা হারিয়ে ফেলেছেন কোচ ও নির্বাচকরা।
গত প্রিমিয়ার লিগে তুখোড় ফর্মে থাকা নাসিরের প্রতি তাই আস্থা রেখেছেন কোচ হাথুরুসিংহে। তবে ভেতরের খবর প্রথম টেস্টের জন্য ১৪ জনের দলে থাকলেও মূল একাদশে থাকছেন না নাসির। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের হয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে শেষ টেস্ট খেলেন নাসির। মাঝে প্রায় দুই বছর জাতীয় দলে উপেক্ষিত নাসির ঘরোয়া ক্রিকেটে পারফর্ম করেই আবার দলে ফেরার দাবিদার হয়েছিলেন।
আগেই জানা ১৪ জনের দলে তিন জন পেসার ও তিন জন স্পেশালিষ্ট স্পিনার থাকবেন। অধিনায়ক মুশফিকের ব্যাকআপ হেসেবে একজন কিপারও রাখা হবে।
উল্লেখ্য, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে শুক্রবার রাতে ঢাকায় পা রেখেছে স্মিথ বাহিনী। আগামী ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর।
১৪ সদস্যের বাংলাদেশ দল:
তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, নাসির হোসেন, লিটন দাস, সাব্বির রহমান, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান, শফিউল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদ।

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজের স্পন্সর রকেট

প্রায় এক যুগ পর বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট মাঠে গড়াবে ২৭ আগস্ট। দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে আগামীকাল শুক্রবার ঢাকায় আসছে অস্ট্রেলিয়া দল। সিরিজ শুরুর আগে আগামী মঙ্গলবার একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে সফরকারী দল। আজ বৃহস্পিতবার দুপুরে মিরপুরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের মিডিয়া সেন্টারে সিরিজের টাইটেল স্পন্সরের নাম ঘোষনা করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সিরিজের টাইটেল স্পন্সর ও গ্রাউন্ড স্পন্সরশিপ রাইটস হোল্ডার ইমপ্রেস-মাত্রা কনসোর্টিয়ামের পক্ষে সানাউল আরেফিন, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সিইও নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সুজন ও ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আবুল কাশেম । দুই বছরের জন্য বিসিবি স্পন্সর স্বত্ব বিক্রি করেছে ইমপ্রেস-মাত্রা কনসোর্টিয়ামের কাছে। চুক্তির আওতায় সিরিজের নামকরণ, স্টাম্প, সাইটস্ক্রিন, বাউন্ডারি, গ্যালারি, ট্রফি, বিভিন্ন পুরস্কার, টিম বাস ও প্রবেশপথসহ মাঠের অনেক কিছুরই স্বত্ব মাত্রা কনসোর্টিয়ামের। অস্ট্রেলিয়া সিরিজে এসব কিছুর সত্ত্ব পাবে ডাচ বাংলা ব্যাংক। ইমপ্রেস-মাত্রা কনসোর্টিয়ামের পক্ষে সানাউল আরেফিন ডাচ-বাংলা ব্যাংককে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আমরা অতীতেও দেখেছি ক্রিকেটে তাদের এগিয়ে আসতে। আমার মনে পড়ে ২০০০ সালে বাংলাদেশের অভিষেক টেস্ট ম্যাচে তারাই স্পন্সর করেছিল। সে সময় সব ধরনের স্বত্বই ছিল তাদের। ক্রিকেটের সঙ্গে তারা সবসময় আছে, থাকবে এই আশা করি।
অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্যে বক্তারা সারা দেশে বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তারা বলেন, যদিও দেশের এমন পরিস্থিতিতে খেলা হওয়াটা অস্বাভাবিক হলেও আগে থেকে ঠিক থাকায় আমাদের খেলা আয়োজন করতেই হচ্ছে। ইমপ্রেস-মাত্রা কনসোর্টিয়ামের সানাউল আরেফিন বৃষ্টি নিয়েও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন, আবহাওয়ার যে অবস্থা তাতে সিরিজ কেমন হবে তা এখনও বলা যাচ্ছে না। তবে আশা করছি শেষ পর্যন্ত এটি ভালোই হবে। এক প্রশ্নের জবাবে বিসিবি সিইও নিজাম উদ্দিন চৌধুরী জানান, ম্যাকগিল সিরিজের আগে আসতে পারবেন কি পারবেন না, তা জানাতে আরও দু-একদিন সময় লাগবে। তবে কিছু জটিলতা থাকায় ম্যাকগিলের এখনই আসা সম্ভব হচ্ছে না। সংবাদ সম্মেলন শেষে ‘রকেট বাংলাদেশ বনাম অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ’ এর লোগো উন্মোচন করা হয়।

প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু এখনও চূড়ান্ত হয়নি

ফতুল্লা, বিকেএসপি আর ইউল্যাবের মাঠ পরিদর্শনের পরও দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু চূড়ান্ত করতে পারেননি অস্ট্রেলিয়ার পরিদর্শক দল। এ বিষয়ে বিসিবি’র সাথে আলোচনা করে তবেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা জানান তারা। অন্যদিকে, এই সিরিজকে সামনে রেখে নিশ্চিদ্র্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সকালে কমান্ডো মহড়া দেয় সেনাবাহিনীর প্যারাকমান্ডোরা।
সফরসূচী করার সময়ই জানানো হয়েছিলো ফতুল্লায় হবে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের দলের দু’দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। কিন্তু টানা বর্ষন আর জলাবদ্ধতার কারণে তা অনিশ্চিত হয়ে পড়ায় পরিদর্শক দলকে বুধবারই ইউল্যাব খেলার মাঠ বিকল্প ভেন্যু হিসেবে দেখানো হয়েছিলো। বৃহস্পতিবার সকালে তারা পূর্বনির্ধারিত ফতুল্লা আর অন্য বিকল্প ভেন্যু বিকেএসপি পরিদর্শণ করে। ফতুল্লা নিয়ে বেশ সন্তোষ প্রকাশও করেছিলেন অজি নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণ দলের প্রধান শন ক্যারল। মাঠ নিয়ে সন্তুষ্ট হলেও পূর্ণ নিরাপত্তা, নির্বিঘ্ন যাত্রাপথ আর পারিপার্শিক পরিস্থিতি মিলে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারেন নি। তাই আবারো বিসিবি’র সাথে আলোচনা করতে চায়, অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা পর্যবেক্ষক দল।
এখনও পর্যন্ত প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু চূড়ান্ত না হলেও শুক্রবার অজি দলের ঢাকা আসা নিশ্চিত। তাই খেলার সময় শতভাগ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার অংশ হিসেবে বাংলাদেশ টেস্ট দলের অনুশিলন ম্যাচের ফাঁকে হয়ে গেলো সেনাবাহিনীর কমান্ডো মহড়া। কমান্ডো দলটির প্রধান লে. কর্নেল. এম. এম. ইমরুল হাসান জানালেন, নিরাপত্তার বিষয়ে কোনো ছাড় দেয়া হবে না।
এদিকে, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের টাইটেল স্পন্সর হয়েছে রকেট। টাইটেল স্পন্সর ঘোষণার অনুষ্ঠানে এসে বিসিবি’র প্রধান নির্বাহী নিজামুদ্দিন চৌধুরী জানান, দেশে চলমান বন্যা পরিস্থিতির কারণে হয়তো উৎসবমুখর পরিবেশে সিরিজটি হবে না। তবে আইসিসির এফটিপি মেনে চলতেই এমন দুর্যোগময় সময়েও ম্যাচ দুটি আয়োজন করছেন তারা।

বৃষ্টির শঙ্কায় বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ

বৃষ্টির শঙ্কায় পড়েছে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ। বর্ষা মৌসুম চলে গেলে‌ও টানা বৃষ্টিতে জনজীবন বিপর্যস্ত। অনেকবার পিছিয়ে‌ও অবশেষে বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। যদিও এই সফরটি হওয়ার কথা ছিল প্রায় দুই বছর আগে। নিরাপত্তা-ব্যবস্থাকে কারণ হিসেবে দেখিয়ে দুই দফা সিরিজ পেছানোর পর বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে বোর্ড-খেলোয়াড় দ্বন্দ্ব। যদিও সবকিছু শেষে বর্তমানে পরিস্থিতি আছে স্বাভাবিক, সিরিজও মাঠে গড়াচ্ছে যথা সময়েই। আর এই সিরিজ খেলতে আগামীকাল শুক্রবার বাংলাদেশ সফরে আসছে স্টিভেন স্মিথের নেতৃত্বাধীন অজি-রা।
তবে সিরিজ শুরুর আগে দুশ্চিন্তার কারণ হয়েছে বৃষ্টি। বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের মতে, ঢাকা শহরে চলমান বৃষ্টিপাত ১৭ আগস্টের দিকে কমে গেলেও এর পাঁচ-ছয়দিন পর থেকে মাসের শেষ পর্যন্ত চলবে বৃষ্টি। এই হিসেবে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া প্রথম টেস্টেও হানা দেবে বৃষ্টিপাত। এ বিষয়ে আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস বিভাগের কর্মকর্তা বলেন, ‘বর্তমানে যে বৃষ্টিপাত হচ্ছে তা ১৭ আগস্ট কমে যাবার সম্ভাবনা আছে। তারপর ২২ আগস্ট থেকে হয়তো আবার‌ও হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি শুরু হতে পারে। সেদিক থেকে বলা যেতে পারে ২৭ তারিখ থেকে বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার ম্যাচে বৃষ্টি ও রোদ দুটোই থাকবে। অর্থাৎ বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচ হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। মাসের শেষে প্রতিদিনই কিছুটা হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাত হবে।’
অতিবৃষ্টির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে আসন্ন বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া দ্বিপাক্ষিক দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজও।

পর্যবেক্ষক দলের ফতুল্লা পরিদর্শন

বাংলাদেশ সফরে অস্ট্রেলিয়া দলের প্রস্তুতি ম্যাচের ভেন্যু ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়াম পরিদর্শন করেছেন, সেদেশের ক্রিকেট বোর্ডের নিরাপত্তা পর্যবেক্ষক দল।
সকালে, ফতুল্লা স্টেডিয়ামের আউটফিল্ড, ড্রেসিং রুম, গ্যালারীসহ সবকিছু পরিদর্শন করেন। বিসিবি প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা এবং নারায়নগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, স্টেডিয়ামের বিভিন্ন জায়গা ঘুরিয়ে দেখান অস্ট্রেলিয়ার নিরাপত্তা পর্যবেক দলকে। বৃষ্টিতে আউট ফিল্ডের বেশ কিছু জায়গায় পানি জমে আছে ফতুল্লার মাঠে।

এতে প্রস্তুতি ম্যাচের বিকল্প ভেন্যু বিকেএসপি পরিদর্শন করেই ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানান, পর্যবেক দলের প্রধান শন ক্যারল।
এ সময় তিনি বলেন, মাঠটি খুবই ভালো। এই স্টেডিয়ামে আগেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ হয়েছে। আমরা সব কিছুই দেখলাম। বৃষ্টির কারণে মাঠের অনেক জায়গাতেই পানি জমে আছে। এটাই বড় সমস্যা। তবে বৃষ্টির উপর কারো হাত নেই। আমরা বিকেএসপি পরিদর্শন করে, পরবর্তী ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবো।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে গ্রুপ সি-তে বাংলাদেশ

আগামী বছর নিউজিল্যান্ডে আসন্ন অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের সুচি প্রকাশ করেছে আইসিসি। ১৬ দলের এই টুর্নামেন্টে ‘সি’ গ্র“পে বাংলাদেশের প্রতিপ ইংল্যান্ড, নামিবিয়া ও কানাডা।
২০১৮ সালের ১৩ জানুয়ারি প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী দিনে, বাংলাদেশ নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে নামিবিয়ার। ১৫ জানুয়ারি কানাডা এবং গ্র“পের শেষ ম্যাচে ১৮ জানুয়ারি মুখোমুখি হবে ইংল্যান্ডের। আগামী ১৩ জানুয়ারি থেকে ৩ ফেব্র“য়ারি পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডে চারটি শহরের সাতটি ভেন্যুতে হবে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আসর।
গ্রুপে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আেগ আফগানিস্তান ো পাকিস্তানের সঙ্গে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশের তরুণরা। গ্র“পের শীর্ষ দুটি করে মোট আটটি দল খেলবে সুপার লিগে। অন্য আটটি দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে প্লেট পর্বে।

প্রথম দিনে আজ মাঠে নামবে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ

ক্রিকেট
ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ
প্রথম টেস্ট, প্রথম দিন
সরাসরি, সন্ধ্যা ৭টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ২
ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ
গায়ানা আমাজন-জ্যামাইকা
সরাসরি, রাত ৪টা
সনি সিক্স

টেনিস
সিনসিনাতি ওপেন
চতুর্থ দিন
সরাসরি, রাত ৯টা
সনি ইএসপিএন

বলের আঘাতে প্রাণ গেল পাকিস্তানি ক্রিকেটারের

ফের ক্রিকেটে নেমে এলো শোকের ছায়া। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ম্যাচে খেলতে গিয়ে প্রাণ হারালেন পাকিস্তানের তরুণ উদীয়মান খেলোয়াড় জুবায়ের আহমেদ। নিজ শহর মারদানে ফখর জামান একাডেমির হয়ে খেলার সময় বোলারের বাউন্সারের আঘাতে লুটিয়ে পড়েন জুবায়ের। পরে তাকে হাসপাতালে নেয়া হলেও আর বাঁচানো যায়নি।

পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) তাদের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে উদীয়মান এই ক্রিকেটারের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে শোক প্রকাশ করেছে। তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের অফিসিয়াল টুইটার পেজে লেখা হয়, ‘জুবায়ের এই মর্মান্তিক মৃত্যু আমাদের আরও একবার মনে করিয়ে দিল সব সময় সুরক্ষার জন্য হেলমেট পরা উচিত। জুবায়েরের পরিবারের প্রতি পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড সমবেদনা জ্ঞাপন করছে।’

এর আগে ২০১৪ সালের ২৫ নভেম্বর ফিলিপ হিউজের মৃত্যু ক্রিকেট বিশ্বকে কাঁদিয়েছিল। নিউ সাউথ ওয়েলসের পেসার শন অ্যাবোটের বাউন্সার হুক করতে গিয়ে বল ফিলিপ হিউজের মাথায় লাগে। হিউজকে নিয়ে যাওয়া হয় সিডনি হাসপাতালে। দুদিন পর ২৭ নভেম্বর তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

মাঠ পছন্দ সিদ্ধান্ত হয়নি খেলার

অনেক মাঠ দেখার পর অবশেষে বিকল্প ভেন্যু ‘পছন্দ’ হয়েছে অস্ট্রেলিয়া প্রতিনিধি দলের। লিবারাল আর্টস বিশ্ব বিদ্যালয়-ইউল্যাবের মাঠটি পছন্দ হয়েছে অজি প্রতিনিধি দলের। তবে মাঠ পছন্দ মানেই খেলার নিশ্চয়তা নয়। বর্ষা মৌসুমে বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া দল। আর শ্রাবণ চলে গেলেও বর্ষাকাল যেন যাচ্ছেই না। আবহাওয়ার অবস্থা দেখে এটা বলে দেওয়া যায় যে, দুই টেস্টের সিরিজে‌ও হানা দেবে বৃষ্টি। এই বৃষ্টির কারণেই ডোবায় রূপ নিয়েছে অজিদের একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচের নির্ধারিত ভেন্যু নারায়নগঞ্জের ফতুল্লা স্টেডিয়াম।
আগামীকাল বৃহস্পতিবার অজি প্রতিনিধি দল যাবে ফতুল্লা খান সাহেব ওসমানী আলী স্টেডিয়াম পরিদর্শনে। তবে এমন বৃষ্টির মাঝে ফতুল্লা স্টেডিয়ামকে প্রস্তুত করা বলতে গেলে অসম্ভব। তাই বিকল্প হিসেবে সাভারের বিকেএসপিতে প্রস্তুতি ম্যাচ অনুষ্ঠিত করার প্রস্তাব করেছিল বিসিবি। কিন্তু দুরত্ব বেশি হওয়ায় যানজটের ক্লান্তি এড়াতে সেই প্রস্তাবে সম্মত হয়নি অজি বোর্ড। আজ বুধবার দুপুরে আরও একটি বিকল্প ভেন্যুর উদ্দেশ্যে বের হয় অস্ট্রেলিয়া প্রতিনিধি দল। সঙ্গে ছিলেন বিসিবির কর্মকর্তারা।
রাজধানীর মোহম্মদপুর বেড়িবাঁধের রামচন্দ্রপুর এলাকায় অবস্থিত ইউল্যাব ইউনিভার্সিটির স্থায়ী ক্যাম্পাসে প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজনের একটি প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল তাদের। সেই মাঠ দেখতে গিয়ে আজ ২ সদস্যের প্রতিনিধি দল সাংবাদিকদের কাছে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন। তবে ম্যাচ খেলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দুই দিন পরে জানাবেন বলে তারা জানিয়েছেন। ফলে প্রস্তুতি ম্যাচ কোথায় হচ্ছে তা জানতে সবাইকে অপেক্ষা করতে হবে আরও দুই দিন।

পাকিস্তানে ধারাভাষ্য করতে আগ্রহী ডিন জোন্স

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট নিষিদ্ধ পাকিস্তানে গিয়ে ধারাভাষ্য দিতে আগ্রহের কথা জানিয়েছেন ডিন জোন্স। পিসিএলে ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের কোচ ও অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই ক্রিকেটার জানান, শ্রীলঙ্কার পাকিস্তান সফর এবং বিশ্ব একাদশের সঙ্গে খেলার কথা শুনে তিনি বেশ উৎফুল্ল। তিনি এই সফওে ধারাভাষ্যও করতে যেতে চাইছেন।
ডিন জোন্স বলেন, ‘পাকিস্তানে শ্রীলঙ্কার সফরের কথা শুনে আমি বেশ খুশি। তারা সেখানে টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলতে গেলে আমি লাহোরে যেতে আগ্রহী। এটা একটা দারুণ সংবাদ।’ পাকিস্তানের দৈনিক পত্রিকা ডন-কে টেলিফোনে এ কথা জানান, জোন্স। তিনি বলেন, ‘বিশ্ব একাদশ এবং শ্রীলঙ্কার সফর পাকিস্তান ক্রিকেটের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। সবকিছু ঠিকমতো শেষ হলে বলা যেতে পারে পাকিস্তানে আবারও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরার দরোজা উন্মুক্ত হবে।
এরআগে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড পাকিস্তান সফর অনুমোদন করে। আট বছর আগে সন্ত্রাসী হামলায় পাকিস্তান সফর শেষ না করেই দেশে ফিরে এসেছিলো লংকান দল। ২০০৯ সালের সেই সন্ত্রাসী আক্রমনে আট জন নিহত হয়েছিলো।

দ. আফ্রিকার কোচ হচ্ছেন ওটিস গিবসন

ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক পেসার ওটিস গিবসন দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ হচ্ছেন। তবে ইংল্যান্ডের বোলিং কোচের দায়িত্বে থাকা গিবসন এখনই প্রোটিয়াদের সঙ্গে যোগ দিতে পারছেন না। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে আসন্ন টেস্ট সিরিজ শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার দায়িত্ব নেওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে তার।
অবশ্য ২০১৮ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে চুক্তি ছিলো গিবসনের। কিন্তু দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেট বোর্ড এবং ইসিবি-ও আলোচনার প্রেক্ষিতে ক্যারিবিয় সিরিজ শেষে তাকে ছাড়া হবে বলে জানা যায়। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে তিন টেস্টের প্রথম ম্যাচটি শুরু হবে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর।
এদিকে, আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে বাংলাদেশকে আতিথ্য দেবে দক্ষিণ আফ্রিকা। সেই সময় প্রোটিয়াদের হেড কোচের দায়িত্বে থাকার কথা গিবসনের। রাসেল ডমিংগোর কাছ থেকে দায়িত্ব নেবেন সাবেক এই ক্যারিবিয় পেসার।

ফিরতি লেগে রাতে মাঠে নামবে রিয়াল-বার্সা

ফুটবল

স্প্যানিশ সুপার কাপ
রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনা
সরাসরি রাত ৩ টা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগ : প্লে-অফ
নাপোলি-নিস
সরাসরি, রাত ১২.৪৫ মি.
সনি টেন ২
ইস্তানবুল-সেভিয়া
সরাসরি, রাত ১২.৪৫ মি.
সনি টেন ১

ক্রিকেট

ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্ট
ল্যাঙ্কাশায়ার-ওস্টারশায়ার
সরাসরি, রাত ১১.৩০ মি.
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ২

টেনিস

সিনসিনাতি ওপেন
তৃতীয় দিন
সরাসরি, রাত ৯টা
সনি ইএসপিএন

দেশে ফিরেছেন সাকিব-মিরাজ

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রস্তুতির জন্য ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) মাঝ পথেই দেশে ফিরেছেন টাইগার দুই তারকা সাকিব আল হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ। সাকিব সোমবার রাতেই আর মিরাজ ফিরেন মঙ্গলবার সকালে।

সিপিএলে জ্যামাইকা তালাওয়াহসের হয়ে খেলেছেন সাকিব। তিন ম্যাচে করেছেন ৬১ রান। পাশাপাশি ২টি উইকেটও নিয়েছেন তিনি। অপরদিকে মিরাজ ছিলেন ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সে। তবে কোন ম্যাচেই খেলার সুযোগ হয়নি তার।

এদিকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ তারিখ ঢাকায় পা রাখবে স্মিথ বাহিনী। আর ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। আর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর। তবে এর আগে ২২ আগস্ট দুই দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া।

গুরুতর নয় ওয়ার্নারের চোট

বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে দুই দলে বিভক্ত হয়ে তিন দিনের এক প্রস্তুতি ম্যাচের মধ্য দিয়ে নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া দল। আর এ প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাট করতে নেমে হ্যাজেলহুডের বল হুক করতে গিয়ে মিস করেন ওয়ার্নার। বল গিয়ে আঘাত হানে তার ঘাড়ে। তবে বড় কোন দুর্ঘটনা হয়নি। সুস্থ আছেন অস্ট্রেলিয়ার এই ওপেনার।

ডারউইনে দুই দলে বিভক্ত হয়ে নিজেদের ঝালিয়ে নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া দল। স্টিভেন স্মিথ একাদশের বিপক্ষে ব্যাট করতে নেমে হ্যাজেলহুডের বল হুক করতে গিয়ে মিস করেন ওয়ার্নার। আর বল গিয়ে আঘাত হানে তার ঘাড়ে। সঙ্গে সঙ্গে সে মাটিতে বসে পড়েন। পরে অস্ট্রেলিয়া দলের ডাক্তার রিচার্ডের সঙ্গে ওয়ার্নার মাঠ থেকে বেরিয়ে যান।

এদিকে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া জানিয়েছে, ‘ ব্যাট করতে নেমে গলায় আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়ার পর ডেভিড ওয়ার্নার সুস্থ আছেন। মেডিক্যাল পরীক্ষায় সে পাস করেছেন। বুধবার সকালে মাঠে নামতে পারেন তিনি।’

উল্লেখ্য, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ তারিখ ঢাকায় পা রাখবে স্মিথ বাহিনী। আর ২৭ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় শুরু হবে দুই দলের প্রথম টেস্ট। আর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর।

ভাল খেলার অপেক্ষায় মুমিনুল

দারুণ ধারাবাহিকতায় নাম হয়ে গিয়েছিল ‘বাংলাদেশের ব্র্যাডম্যান’। তারপর টানা ৫ ইনিংসে তেমন রান না পাওয়াতেই বিপত্তি। শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশের শেষ টেস্ট দলের একাদশে ছিলেন না। শুধু টেস্টই খেলেন। ৫ দিনের ক্রিকেটে দারুণ সৌরভ ছড়ানো সৌরভ ডাকনামের মুমিনুল হক। ছোটোখাটো ব্যাটসম্যানের হৃদয়ের ওজনটা অবশ্য অনেক বেশি। এই যে একাদশ থেকে ছিটকে পড়া, অস্ট্রেলিয়ার সাথে আসন্ন সিরিজে খেলতে পারবেন নি কি পারবেন না সেই অনিশ্চিয়তা, এসব নাকি স্পর্শ করে না তাকে। মুমিনুল অতো শত না ভেবে নিজের কাজটা করে যান।
দেশের মাটিতে শেষ সিরিজে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে মুমিনুল করেছিলেন ০, ২৭, ৬৬, ১। সব মিলিয়ে মুমিনুলের ওপর তাই সামনের সিরিজে চাপ থাকবে। কিন্তু তিনি ঠিক দলে থাকা না থাকা নিয়ে ভাবছেন না। বললেন, ‘আমি ওভাবে চিন্তা করিনি। অনুশীলন করছি, প্র্যাকটিসের পাশাপাশি যেসব কাজ করা দরকার করছি। খেলবো কি খেলবো না এটা টিম ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। আমার হাতে যেটা আছে সেটা হলো আরো একটি প্র্যাকটিস ম্যাচ আছে সেখানে ভাল খেলতে চেষ্টা করবো।’ সোমবারের অনুশীলন শেষে মিরপুরে এমনটাই বললেন ২৫ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান।
২০১৩ সালে টেস্ট ক্যারিয়ার শুরু করা মুমিনুল অবশ্য এই সংস্করণে বেশ এগিয়ে এখনো। ২২ টেস্টে ৪৬.৮৮ গড়ে ১৬৮৮ রান। সেঞ্চুরি ৪টি। আর চট্টগ্রামে কদিন আগে খেলে আসা প্রস্তুতি ম্যাচও একটা আক্ষেপ রেখে গেছে। একমাত্র ইনিংসে করেছিলেন ৭৩ রান। তিন অংকের আশা জাগিয়ে তা না পাওয়ার ব্যাপারে প্রশ্ন আসতেই মুমিনুল বললেন, ‘আক্ষেপ সবসময়ই থাকে। ১০০ করে আউট হলে ২০০’র আক্ষেপ থাকে। ২০০ করে আউট হলে ৩০০’র আক্ষেপ থাকে। তো ১০০ যেহেতু করতে পারিনি অবশ্যই আক্ষেপ আছে। আমার মনে হয় এসব জায়গায় আউট না হওয়া ভাল। তবে পরবর্তীতে এই সমস্যা কাটিয়ে উঠবো।’
খুব স্বাভাবিকভাবে অস্ট্রেলিয়াকে ইংল্যান্ডের মতো স্পিনে বধ করতে চাইবে বাংলাদেশ। তবে মুমিনুল উইকেট নিয়ে ভাবছেন না, ‘আমি জানি না উইকেট স্পিন নাকি ফ্ল্যাট হবে। আমার নিজের উপর চ্যালেঞ্জ নিতে হবে। উইকেট যেমনই হোক নিজের জন্য ও দলের জন্য ভালো খেলতে হবে।’
যদি সুযোগ হয় তাহলে অন্যদের মতো তিনিও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথমবারের মতো খেলবেন। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার সাথে খেলার রোমাঞ্চ নয়, ভালো খেলার প্রেষণাই তাড়িয়ে বেড়ায় মুমিনুলকে, ‘(অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলা) অন্যান্য আট দশটা ম্যাচের মতোই। যদি আমি ভাল খেলি তাহলে ভাল লাগবে।’

অনুশীলন-আড্ডায় মজে থাকা মাশরাফী

বাংলাদেশ ক্রিকেটে ক্যাপ্টেন বলতে এখনও তাকেই বোঝায়। যদিও মাশরাফী বিন মোর্তুজা ওয়ানডে ছাড়া অন্য দুই ফরম্যাটে খেলেন না। টেস্ট খেলার স্মৃতিতে তো ধুলোই জমেছে। বাংলাদেশ দল তাই যখন অস্ট্রেলিয়া সিরিজের প্রস্তুতিতে মগ্ন, মাশরাফী তখন হাই-পারফরম্যান্স ইউনিটের সঙ্গে।
চট্টগ্রামে সাতদিনের ক্যাম্প শেষে ঢাকায় ফিরে আবারও ব্যাট-বলের কঠোর অনুশীলন শুরু করেছেন মুশফিক-তামিমরা। অজিদের মোকাবেলায় চোখ রেখে টেস্ট ইউনিট যখন মিরপুরের ইনডোরে ঘাম ঝরাচ্ছে। ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফী সেসময় একাডেমি মাঠে পাল্লা দিয়ে রানিং করলেন সাইফউদ্দিন, মারুফ, সাদমান, রাহীদের সঙ্গে। মাশরাফী টেস্ট খেলেন না ২০০৯ সাল থেকে। আর কখনও টেস্ট খেলা হবে কিনা; জানেন না সেটিও। টি-টুয়েন্টি থেকেও নিয়েছেন অবসর। সেপ্টেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকায় পুর্ণাঙ্গ সিরিজে তিনটি ওয়ানডে আছে বাংলাদেশের। যার জন্য এখন থেকেই সিরিয়াস দেশের ক্রিকেটের অন্যতম সফল এই অধিনায়ক। এতটা গুরুত্ব দিয়ে অনুশীলনের কারণ জানালেন মাশরাফী নিজেই, ‘বেশ কয়েকদিন অনুশীলন করতে পারিনি। সেটা পুষিয়ে নিতে চেষ্টা করছি।’ এবিপি মিডিয়ার আমন্ত্রণে সেরা বাঙালি খেলোয়াড়ের পুরস্কার নিতে কলকাতায় গিয়ে পাঁচদিন ছিলেন তিনি। বোঝাচ্ছেন সেই সময়টার কথাই। বাংলাদেশ দলের ক্যাম্পে থাকা ক্রিকেটাররা তখন ফিটনেস অনুশীলনে ঘাম ঝরিয়েছেন।
দীর্ঘসময় রানিংয়ের পর এইচপি ক্রিকেটারদের সঙ্গে গোল হয়ে বসে মাশরাফী আড্ডার আসরে মাতিয়ে রাখলেন সবাইকে। তার কথা শুনে হাসতে হাসতে দমবন্ধ হয়ে যাওয়ার অবস্থা রাহী, সাইফউদ্দিন, আজমীরদের। কঠোর অনুশীলনের পাশাপাশি একাডেমি মাঠে আড্ডায় এভাবেই কাটছে টেস্ট না খেলা মাশরাফীর সময়।

ভারতের কাছে ‘হোয়াইট ‌ওয়াশ’ শ্রীলংকা

পাল্লেকেলেতে তৃতীয় টেস্টে দুই ইনিংসেই দুশ’ রানের নিচে স্বাগতিক শ্রীলংকাকে অল আউট করলো বিরাট কোহলির ভারত। আর তাতেই তিনদিনে জয় পেলো ভারত। সেই সঙ্গে শ্রীলঙ্কাকে ইনিংস ও ১৭১ রানে হারিয়ে হোয়াইট ওয়াশের লজ্জা দিলো রবি শাস্ত্রীর দল। ফলো অনে পড়ে ব্যাট করতে নেমে ম্যাচের তৃতীয় দিন ১৮১ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকদের দ্বিতীয় ইনিংস।
এর আগে ১ উইকেটে ১৯ রান নিয়ে খেলা শুরু করে শ্রীলঙ্কা। তবে দিনের প্রথম সেশনেই, মোহাম্মদ শামি আর রবিচন্দ্রন অশ্বিনের বোলিংয়ে ৩৮ রানে চার উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পরে তারা। পঞ্চম উইকেটে ৬৩ রান যোগ করে কিছুটা প্রতিরোধের আভাস দিয়েছিলেন দিনেশ চান্দিমাল এবং ডিকওয়েলা। কিন্তু শেষ রক্ষা হয় নি।
দলের ১০১ রানে ডিকওয়েলার বিদায়ের সাথে সাথে ভেঙ্গে পড়ে স্বাগতিকদের ইনিংস। শেষ পর্যন্ত চা বিরতির আগেই অলআউট হয়ে মাঠ ছাড়ে চান্দিমালের দল। এর আগে প্রথম ইনিংসে ভারতের ৪৮৭ রানের জবাবে, শ্রীলঙ্কা তুলেছিলো মাত্র ১৩৫ রান। এতে ৩-০ তে সিরিজ জিতলো বিরাট কোহলির দল। ম্যাচ সেরা হন হার্দিক পান্ডিয়া। আর সিরিজ সেরা শিখর ধাওয়ান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ভারত প্রথম ইনিংস ৪৮৭ (শিখর ধা‌ওয়ান ১১৯, হার্দিক পান্ডিয়া ১০৮, সান্দাকান ৫/১৩২)
শ্রীলংলকা প্রথম ইনিংস ১৩৫, দ্বিতীয় ইনিংস ১৮১ (ডিকওয়েলা ৪১, রবিচন্দ্রন অশ্বিন ৪/৬৮)।
ফল: ভারত ইনিংস ‌ও ১৭১ রানে জয়ী।

তৃতীয় দিনে আজ মাঠে নামবে শ্রীলঙ্কা-ভারত

ক্রিকেট

শ্রীলঙ্কা-ভারত
তৃতীয় টেস্ট, তৃতীয় দিন
সরাসরি, সকাল ১০.৩০ মি.
সনি সিক্স ও টেন ৩

ফুটবল

জার্মান কাপ
রসটক-বার্লিন
সরাসরি, রাত ১২.৩০ মি.
টেন ২

টানা ফিফটিতে রাহুলের ইতিহাস

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে কলম্বো টেস্টে হাফ সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে ভারতের হয়ে টেস্টে টানা ছয় ফিফটির রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছিলেন লোকেশ রাহুল। আজ পাল্লেকেলেতে আরও এক ফিফটিতে ভারতীয় প্রাক্তন ব্যাটসম্যান গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ ও  রাহুল দ্রাবিড়দের ছয় ফিফটির রেকর্ড ছাড়িয়ে গেলেন রাহুল।

টেস্টে টানা সাত ফিফটিতে এবার সাঙ্গাকারা-চন্দরপলদের কাতারে দাঁড়ালেন ভারতীয় এ ওপেনার।ভারতের টেস্ট ইতিহাসে এর আগে মাত্র দুই ব্যাটসম্যানই টানা ছয়টি হাফ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন। ১৯৭৭-৭৮ সালে প্রথমে গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথ ভারতের হয়ে টেস্টে টানা ছয়টি অর্ধশতক হাঁকান। তার ২০ বছর পর টানা ছয় ফিফটিতে ১৯৯৭-৯৮ সালে বিশ্বনাথের পাশে দাঁড়ান রাহুল দ্রাবিড়। এবার স্বদেশী এই দুই গ্রেটকে ছাড়িয়ে টেস্টে টানা সাত ফিফটিতে ভারতের হয়ে রেকর্ড গড়লেন রাহুল।

টেস্টে টানা সাত ফিফটির রেকর্ড রয়েছে বিশ্বের পাঁচ ব্যাটসম্যানের। এরা হলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্যার এভারটন ও শিবনারায়ণ চন্দরপল, জিম্বাবুয়ের অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার, শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা এবং অস্ট্রেলিয়ার ক্রিস রজার্স। ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান হিসেবে আজ তাদের পাশে এসে দাঁড়ালেন রাহুল। আজ পাল্লেকেলে টেস্টে ওপেনিংয়ে ব্যাট করতে নেমে ৬৭ বল মোকাবেলা করে ৫০ পূরণ করেন ২৫ বছর বয়সি এ তারকা।

কুমিল্লায় বাটলারকে সঙ্গী পেলেন তামিম

ক্রিকেট বিশ্বে মারকুটে ব্যাটসম্যান হিসেবে পরিচিত জস বাটলার। ইংল্যান্ড জাতীয় দলে খেলেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান হিসেবে। টি-টোয়েন্টির আদর্শ ক্রিকেটার তিনি। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সে সেই বাটলারকে সঙ্গী হিসেবে পেলেন তামিম ইকবাল।

তবে এটা নতুন খবর নয়। কয়েকদিন আগেই (৬ আগস্ট) কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়। আজ ব্রিটিশ দৈনিক গার্ডিয়ানের খবর, প্রথমবারের মতো বিপিএলে খেলতে আসছেন বাটলার।

ইংলিশ এই উইকেটরক্ষকে দলে ভেড়াতে কুমিল্লা খরচ করেছে ২ লাখ পাউন্ড। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় দাঁড়ায় প্রায় ২ কোটি ১০ লাখ টাকা। বাটলারকে নাকি চেয়েছিল বেশ কয়েকটি দল। অর্থের পরিমাণ বাড়িয়ে বাটলারকে কিনে নিয়েছে কুমিল্লা।

টস জিতে ব্যাট করছে কোহলির ভারত

তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। প্রথম দুটিতে জয় পেয়েছে ভারত। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, টেস্ট সিরিজটি (২-০ ব্যবধানে জিতে) বগলদাবা করে ফেলেছে বিরাট কোহলির দল। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আজ তৃতীয় টেস্ট খেলতে মাঠে নেমেছে ভারত। লক্ষ্য- হোয়াইটওয়াশ।

পাল্লেকেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ভারত অধিনায়ক কোহলি। তার সিদ্ধান্ত যথার্থ প্রমাণ করতে চলেছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভারত কোনো উইকেট হারায়নি। ১০ ওভার ব্যাট করেছে টিম ইন্ডিয়া। দ্রুতগতিতে রান তুলছেন ভারতীয় দুই ওপেনার। বিনা উইকেটে সফরকারীদের স্কোরশিটে জমা পড়েছে ৫৩ রান। শিখর ধাওয়ান ২৭ ও লোকেশ রাহুল ২৪ রানে ব্যাট করছেন।

এদিকে, শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে তৃতীয় টেস্টে নেই রবীন্দ্র জাদেজা। তার পরিবর্তে ভারতীয় একাদশে জায়গা পেয়েছেন কুলদীপ যাদব। চায়নাম্যান খ্যাত এই বোলারে ভরসা রাখছে টিম ইন্ডিয়া। কুলদীপও চাইবেন আস্থার প্রতিদান দিতে।

সাকলাইন মোস্তাককে কৃতিত্ব দিলেন মঈন

মঈন আলির পরিচয়- একজন অলরাউন্ডার হিসেবে। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফর্ম করে থাকেন এই ইংলিশ ক্রিকেটার। সম্প্রতি দুর্দান্ত ফর্মেই আছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছেন মঈন।

ওই সিরিজে ব্যাটিংয়ের চেয়ে বোলিংয়ে উজ্জ্বল ছিলেন মঈন আলি। তবে তিনি নিজেকে প্রথমত একজন ব্যাটসম্যানই ভাবেন। পরে একজন বোলার। দুইয়ে মিলে অলরাউন্ডার।

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ২৫টি উইকেট লাভ করেছেন মঈন। তার স্পিন ঘূর্ণিতে কুপোকাত হয়েছে প্রোটিয়া। আর ইংল্যান্ড চার ম্যাচের টেস্ট সিরিজটি জিতে নিয়েছে ৩-১ ব্যবধানে।

বল হাতে সাফল্য পাওয়ার পেছনে সাকলাইন মোস্তাককে কৃতিত্ব দিলেন মঈন। সাবেক পাকিস্তানি এই স্পিনারের প্রশংসায় মঈন বলেন, ‘সাকি (সাকলাইন মোস্তাক) আমাকে সাহায্য করেছেন কিভাবে ভালো বোলিং করা যায়। আমার বোলিংটা তিনি ভালো বোঝেন। আগে বল করতাম ঠিকই, অতটা ভেবে-চিন্তে বোলিং করতাম না। আগে অধিনায়কই ফিল্ডিং সাজাত। এখন নিজে অনেক ভেবেই ফিল্ডিং সাজাতে পারছি। এই সিরিজই তার বড় প্রমাণ।’

৬ বলে ৬ উইকেট : অনন্য কীর্তি রবিনসনের

তার বাবাও একজন ক্রিকেটার। ক্যারিয়ারে হ্যাটট্রিক রয়েছে। তবে ছেলের কীর্তিটা কখনো গড়তে পারেননি। সেটা আক্ষেপও বটে। ছেলের কীর্তিতে বোধ হয় সেই আক্ষেপ ঘুচে গেল স্টিফেনের। ছেলে লুক রবিনসন ৬ বলে ৬ উইকেট নেয়ার অনন্য কীর্তিটা গড়ে ফেলেছে।

রবিনসনের বয়স ১৩ বছর। খেলছে ফিলাডেলফিয়া ক্রিকেট ক্লাবের অনূর্ধ্ব-১৩ দলের হয়ে। ইংল্যান্ডের উত্তর-পূর্বে ডারহাম শহরের অদূরে ল্যাংলি পার্কে একটি ম্যাচে এক ওভারেই প্রতিপক্ষের ৬ ব্যাটসম্যানকে পরাস্ত করে রবিনসন।

রবিনসনের দারুণ এই কীর্তির সাক্ষী হয়ে থাকল তার পরিবারের সদস্যরা। তাও আবার ম্যাচেই। রবিনসন যখন বোলিং করছিল, সেই প্রান্তের আম্পায়ার তার বাবা স্টিফেন। ফিল্ডিংয়ে ছিল ছোট ভাই ম্যাথু। রবিনসনের মায়ের ভূমিকা ছিল স্কোরারের। দাদা গ্লেন ছিলেন দর্শকের ভূমিকায়।

ছেলের কীর্তি নিয়ে বাবা স্টিফেন বলেন, ‘দারুণ অভিজ্ঞতা ছিল এটি। আমি তিন বছর ধরে খেলেছি। নামের পাশে হ্যাটট্রিক রয়েছে আমার। কিন্তু এই কীর্তি (৬ বলে ৬ উইকেট) কখনো গড়া হয়নি। সময় থমকে দাঁড়িয়েছে, আর ভেবেছিলাম, এমনটা কি সত্যিই ঘটেছে?’

রাতে মাঠে নামবে হ্যাম্পশায়ার

ক্রিকেট

ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্ট
হ্যাম্পশায়ার-গ্ল্যামারগান
সরাসরি, রাত ১১.৩০ মি.
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ১

ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ
সেন্ট লুসিয়া-বার্বাডোজ
সরাসরি, আগামীকাল ভোর ৬টা
সনি সিক্স

কাবাডি

ইন্ডিয়ান প্রো কাবাডি
পুনেরি-জয়পুর
সরাসরি, রাত ৮.২০ মি.
ব্যাঙ্গালুরু-তামিল
সরাসরি, রাত ৯.৩০ মি.
স্টার স্পোর্টস ২

টানা দ্বিতীয় জয় পেল সাকিবের জ্যামাইকা

সাকিবের সামনে সুযোগ ছিল দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়ার। তবে সাকিব না পারলেও জয় পেতে কোন সমস্যা হয়নি জ্যামাইকা তালাওয়াসের। মিরাজের দল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সকে চার উইকেটে হারিয়ে টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে কুমার সাঙ্গাকারার দল।

বাংলাদেশের দর্শকদের আগ্রহের কেন্দ্রে আছে এই ম্যাচটি। কেননা, সিপিএলে খেলতে যাওয়া দুই বাংলাদেশি ক্রিকেটার সাকিব ও মিরাজের মুখোমুখি লড়াই দেখার অপেক্ষায় আছে সবাই। তবে জ্যামাইকা দলে সাকিব থাকলেও আগের দুই ম্যাচের ন্যায় এ ম্যাচেও ত্রিনবাগোর জার্সি গায়ে মাঠে নামা হয়নি মিরাজের।

আগের দুই ম্যাচে জয় পাওয়া ত্রিনবাগো টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ঝড় তোলেন ম্যাককালাম। তবে ৯ বলে ১৬ রান করে বিদায় নেন কিউই এই তারকা। এরপর দ্রুত বিদায় নেন নারিন। তৃতীয় উইকেটে ব্রাভোকে সঙ্গে নিয়ে ৫৭ রানের জুটি গড়ে বড় সংগ্রহের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন মুরনো।

তবে এই দুইজনের বিদায়ের পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে নাইট রাইডার্স। শেষ দিকে আর কেউ রান করতে না পারলে ১৪৭ রানেই থামে ত্রিনবাগোর ইনিংস। সর্বোচ্চ ৪১ রান আসে কলিন মুরনোর ব্যাট থেকে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে জ্যামাইকাকে দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন সিমন্স। ১৮ বলে ৪ চার ৩ ছয়ে ৩৮ রান করেন এই ওপেনার। এছাড়া কুমার সাঙ্গাকারা ৪৭, সাকিব ১৬ ও শেষ দিকে জনাথোন ফোর ১৯ রানের উপর ভর করে দ্বিতীয় জয় তুলে নেয় জ্যামাইকা।

পিসিবি-র নতুন চেয়ারম্যান নাজাম শেঠি

নাজাম শেঠিকে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হয়েছে। পাকিস্তান ক্রিকেটের ১০ সদস্যের গর্ভনিং বোর্ড ৬৯ বছর বয়সী নাজাম শেঠিকে সর্বসম্মতিক্রমে পিসিবি-র চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেন।
তিনি শাহরিয়ার খানের স্থলাভিষিক্ত হলেন। অবশ্য এর আগেই স্বাস্থগত কারণে সভাপতির পদ ছাড়েন শাহরিয়ার খান। গঠণতন্ত্র অনুযায়ী পিসিবি-র চেয়ারম্যানকে অবশ্যই গর্ভনিং বোর্ডের পছন্দ মোতাবেক নির্বাচিত করা হবে।
এর আগে, ২০১৪ সাল থেকে নাজাম শেঠি পিসিবি-র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। পাকিস্তানের আদালত তৎকালীন চেয়ারম্যান জাকা আশরাফের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করলে, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে বোর্ডের দেখ-ভাল করেন শেঠি। পরে জাকা আশরাফ অভিযোগমুক্ত হলে, নাজাম শেঠি পদ হারান।

তাসকিনের কাছে সাঁতার শিখছে তামিম পুত্র

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে চট্টগ্রামে বলে-ব্যাটে বেশ ঘাম ঝড়াচ্ছেন মুশফিকবাহিনী। তবে বল-ব্যাটের অনুশীলনের ফাঁকেও সময়টা ভালোই কাটছে তাসকিনের। সুইমিংপুলে তামিম পুত্রকে সাঁতার শেখাচ্ছেন টাইগার এই পেসার।

মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ডানহাতি ফাস্ট বোলার তাসকিনের অফিশিয়াল পেজে একটি ছবি পোষ্ট করেন। সেখানে দেখা গেছে তামিম পুত্র আরহাম ইকবালকে নিয়ে সুইমিংপুলে সাঁতার কাটছেন তাসকিন। ছবির ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘আজ সুইমিংপুলে আনন্দে কাটলো তামিম ভাইয়ের রাজকুমার আরহামের সাথে।’

সব কিছু ঠিকঠাক থাকলে ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে আসবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। ২৭ আগস্ট থেকে দুইম্যাচ টেস্ট সিরিজ শুধু হবে। তার আগে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে আজ (বুধবার) থেকে তিন দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে টাইগাররা।

বৃহস্পতিবার সিপিএলে মুখোমুখি সাকিব-মিরাজ

ক্রিকেট

ইংল্যান্ড অনূর্ধ্ব ১৯-ভারত অনূর্ধ্ব ১৯
প্রথম ওয়ানডে
সরাসরি, সন্ধ্যা ৭টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ১
ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ
ত্রিনবাগো-জ্যামাইকা
সরাসরি, আগামীকাল ভোর ৬টা
সনি সিক্স

কাবাডি

ইন্ডিয়ান প্রো কাবাডি
ব্যাঙ্গালুরু-ওয়ারিয়র্স
সরাসরি, রাত ৮.২০ মি.
স্টার স্পোর্টস ২

সাকিবকে সরিয়ে শীর্ষে জাদেজা

আইসিসি টেস্ট অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ের রাজত্ব হারালেন সাকিব আল হাসান। তাকে সরিয়ে প্রথমবারের মতো শীর্ষে উঠেছেন ভারতের রবীন্দ্র জাদেজা।
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইংল্যান্ডের টেস্ট সিরিজ জয়ের নায়ক মঈন আলী ব্যাটসম্যান, বোলার ও অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে ক্যারিয়ার সেরা অবস্থানে আছেন।
সোমবার ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা ওল্ড ট্র্যাফোর্ড টেস্ট শেষে মঙ্গলবার নতুন র‍্যাঙ্কিং প্রকাশ করেছে ক্রিকেটের ‍সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি।
মঈন টেস্ট ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে তিন ধাপ এগিয়ে ২১তম স্থানে উঠে এসেছেন। তার রেটিং পয়েন্ট এখন ক্যারিয়ার সেরা ৬৫৫। বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে তিনি ক্যারিয়ার সেরা ১৮তম স্থান ধরে রেখেছেন। পয়েন্ট ক্যারিয়ার সেরা ৬২৫। অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে আছেন চারে। যেখানে তিনি প্রথমবারের মতো চারশ পয়েন্ট ছাড়িয়েছেন (৪০৯)।
ওল্ড ট্র্যাফোর্ড টেস্টে মঈন দুই ইনিংসে রান করেন ১৪ ও ৭৫। হাত ঘুরিয়ে নেন ৭ উইকেট। টেস্ট ইতিহাসের ১৪০ বছরের ইতিহাসে প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে চার ম্যাচের কোনো সিরিজে ২৫০ রান ও ২৫ উইকেট নেওয়ার অনন্য কীর্তি গড়েছেন ৩০ বছর বয়সি এই অলরাউন্ডার। তিনি এই সিরিজ শুরু করেছিলেন র‍্যাঙ্কিংয়ে ২৭তম ব্যাটসম্যান, ৩০তম বোলার এবং ষষ্ঠ অলরাউন্ডার তালিকায় থেকে।
ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে ১০ ধাপ এগিয়ে ক্যারিয়ার সেরা সপ্তম স্থানে উঠে এসেছেন ইংলিশ উইকেটকিপার জনি বেয়ারস্টো। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে তিনি প্রথম ইনিংসে করেন ৯৯। ম্যাচে ৭ উইকেট নিয়ে রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে হটিয়ে বোলারদের র‍্যাঙ্কিংয়ে দুইয়ে উঠেছেন জেমস অ্যান্ডারসন। তিনে নেমেছেন অশ্বিন।
কলম্বো টেস্টে ভারতের দুই সেঞ্চুরিয়ান চেতেশ্বর পূজারা ও অজিঙ্কা রাহানের উন্নতি হয়েছে বেশ। ক্যারিয়ার সেরা ৮৮৮ পয়েন্ট নিয়ে তিনে উঠে এসেছেন পূজারা। পাঁচ ধাপ এগিয়ে ছয়ে আছেন রাহানে। ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ দুটি স্থানে কোনো পরিবর্তন হয়নি। শীর্ষে আছেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ, দুইয়ে ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট।
কলম্বোয় ব্যাট হাতে ৭০ রান ও হাত ঘুরিয়ে ৭ উইকেট নেন জাদেজা। সাকিবকে সরিয়ে তিনি প্রথমবারের মতো অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষে উঠেছেন। দুইয়ে নেমে গেছেন সাকিব। জাদেজার রেটিং পয়েন্ট এখন ক্যারিয়ার সেরা ৪৩৮। সাকিবের পয়েন্ট ৪৩১। ৪১৮ পয়েন্ট নিয়ে তিনে অশ্বিন।
বেশ কিছুদিন ধরেই টেস্টের এক নম্বর বোলার জাদেজা। শীর্ষস্থানটা তিনি ধরে রেখেছেন। পাল্লেকেলে টেস্টে নিষিদ্ধ হওয়া জাদেজা ব্যাটসম্যানদের র‍্যাঙ্কিংয়ে ৯ ধাপ এগিয়ে ৫১তম স্থানে উঠেছেন।

দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে টেস্ট সিরিজও জিতল ইংল্যান্ড

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির পর টেস্ট সিরিজও নিজেদের করে নিয়েছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। সিরিজের শেষ টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ১৭৭ রানে হারিয়ে চার ম্যাচের সিরিজ ৩-১ ব্যবধানে জিতে নেয় স্বাগতিক ইংল্যান্ড।

ইংল্যান্ডের দেওয়া ৩৮০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আবারও ব্যর্থ দক্ষিণ আফ্রিকার টপ অর্ডার। ৪০ রান তুলতেই টপ অর্ডারে সেরা ৩ ব্যাটসম্যানকে হারায় প্রোটিয়ারা। তবে চতুর্থ উইকেট জুটিতে আমলা- ডু প্লেসি ১২৩ রান করে খেলায় ফেরার ইঙ্গিত দেয়। দলীয় ১৬৩ রানে ব্যক্তিগত ৮৩ রান করা আমলা বিদায় নেন।

এরপর শেষ ৩৯ রান তুলতেই বাকি ৭ উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। ৬১ রান করে সাজঘরে ফেরেন ডু প্লেসি। ফলে ২০২ রানেই শেষ হয় দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস। ইংল্যান্ডের হয়ে মঈন আলী একাই নেন পাঁচ উইকেট। আর অ্যান্ডারসন ৩ উইকেট নেন ১৬ রানে।

এর আগে ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে করা ৩৬২ রানের জবাবে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রথম ইনিংসে অলআউট হয়ে যায় ২২৬ রানে। মঈন আলি অপরাজিত ছিলেন ৭৩ রানে। দ্বিতীয় ইনিংসে ইংল্যান্ড অলআউট হয়ে যায় ২৪৩ রানে। মরনে মরকেল ৪টি এবং ডুয়ানে অলিভিয়ের ৩ উইকেট নেন।

মিরাজকে ছাড়াই টানা দ্বিতীয় জয় ত্রিনবাগোর

প্রথমবার বিদেশি কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্ট ক্যারিবিয়ান সুপার লিগে (সিপিএল) খেলতে গিয়ে এখনো মাঠে নামা হয়নি মেহেদী হাসান মিরাজের। তবে তাকে ছাড়াই টানা দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পেয়েছে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। মঙ্গলবার তারা ৪ উইকেটে হারিয়েছে সেন্ট লুসিয়া স্টারসকে।

মঙ্গলবার পোর্ট অব স্পেনে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ত্রিনবাগোর বোলারদের বোলিং তোপে শুরু থেকেই ধুঁকতে থাকে সেন্ট লুসিয়া। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ১১৮ রান করে স্যামির দল। সেন্ট লুসিয়ার পক্ষে দুই অঙ্কে পৌঁছাতে পেরেছেন কেবল আন্দ্রে ফ্লেচার, কামরান আকমল ও ড্যারেন স্যামি। ফ্লেচার ৪৫ বলে করেন ৪০। কামরান আকমল করেন ১৭ রান। আর স্যামির ব্যাট থেকে আসে ১৯ বলে ২৫ রানের ইনিংস। ত্রিনবাগোর পক্ষে কেভন কুপার ২১ রানে নেন ৩ উইকেট। আর ব্রাভো ৩৩ রানে পান দুই উইকেট।

১১৯ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৫২ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে হারতে বসেছিলো ব্রাভোর দল। তবে ব্যাট হাতে দায়িত্ব নিয়ে খেলে দলকে জয় এনে দেন পাকিস্তানি তারকা শাদাব। তাকে সঙ্গ দেন জেবন সিয়ারলেসকে। ম্যাচ সেরা শাদাব অপরাজিত ছিলেন ৩৩ রানে, সিয়ারলেসের সংগ্রহ ২৭।

শ্রীলঙ্কায় প্রথম ইনিংস ব্যবধানে জিতেলো ভারত

দিমুথ করুনারত্নের ১৪১ এবং কুশল মেন্ডিসের ১১০ রান‌ে‌ও ইনিংস পরাজয় এড়াতে পারলো না স্বাগতিক শ্রীলংকা। কলম্বোতে দ্বিতীয় টেস্টে, শ্রীলঙ্কাকে ইনিংস ও ৫৩ রানে হারিয়ে, এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতে নিলো ভারত। ফলোঅনে পড়ে ম্যাচের চতুর্থ দিন ব্যাট করতে নেমে, দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৮৬ রানেই অলআউট হয় স্বাগতিকরা। ২ উইকেটে ২০৯ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামা শ্রীলঙ্কা তৃতীয় উইকেট হারায় দলীয় ২৩৮ রানে। করুনারতেœর সেঞ্চুরিতে স্বাগতিকরা কিছুটা প্রতিরোধ গড়লেও, ১৪১ রান করে লঙ্কান ওপেনারের বিদায়ের পরই ভেঙ্গে যায় স্বাগতিকদের ইনিংস। এরপর ৭৬ রানে শেষ পাঁচ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে চা বিরতির আগেই ৩৮৬ রানে থামে চান্দিমালদের ইনিংস। এর আগে, প্রথম ইনিংসে ভারতের ৬২২ রানের জবাবে, শ্রীলঙ্কা অলআউট হয় ১৮৩ রানে। আর তাতে ভারতীয়দের টানা অষ্টম টেস্ট সিরিজ জয়ের রেকর্ড হয়ে রইলো এই টেস্টটি । সেই সঙ্গে প্রথমবারের মতো শ্রীলঙ্কার মাটিতে ইনিংস জয়ের স্বাদ পায় টিম ইন্ডিয়া।
আগামী ১২ আগস্ট থেকে পাল্লেকেলেতে শুরু হেব সিরিজের তৃতীয় ‌ও শেষ টেস্ট ম্যাচটি।

ক্রিকেট আমার কাছে ধর্মের মতো: মুশফিকুর রহিম

: ত‌ওসিয়া ইসলাম :

মাশরাফী বিন মোর্ত্তজার নেতৃত্বে বাংলাদেশের ক্রিকেট বদলে গেছে। আর গেলো তিন বছরে বাংলাদেশ ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলছে ক্রিকেটের সব ফরম্যাটেই। ঘরের মাটিতে ইংল্যান্ড কিংবা শ্রীলংকায় গিয়ে তাদের টেস্টে হারানোতে মুশফিকুর রহিমকেও কৃতিত্ব দিতে হবে। ক্রিকেট বোর্ডের নিয়মের কড়াকড়িতে সব সময় খেলোয়াড়দের সাথে ব্যক্তিগতভাবে কথা বলার সুযোগ পাওয়া যায় না। টেস্ট অধিনায়ক নিজেই কিছুটা সাহায্য করলেন একান্ত এই আলাপচারিতার বিষয়ে। তারই চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো।
২০০৫ সালে ইংল্যান্ড সফরে হঠাৎই দলে জায়গা পেয়ে যান। ২০ জনের প্রাথমিক দলে না থেকেও হঠাৎ করেই দুই টেস্ট আর ইংল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ছয় ওয়ানডের দলে খালেদ মাসুদের সাথে বিকল্প উইকেটকিপার হিসেবেই মূল স্কোয়াডে মুশফিকুর রহিম। সে সময় জোর আলোচনা ছিলো, রাজনৈতিক কারণে তাকে দলে নেয়া হয়েছে। কিছুটা নড়বড়ে সুচনার পর অল্প দিনেই মুশফিকুর রহিম হয়ে উঠেছিলেন বাংলাদেশ দলের অপরিহার্য অংশ। জায়ান্টদের বিপক্ষে বাংলাদেশ মাঠে নামার সুযোগ কম পাওয়াতেই টেস্ট অভিষেকের এক যুগ পার করেও ম্যাচ খেলেছেন মাত্র ৫৪টি। তার মতে, কেবল মুশফিক নিজে নন, দলের আরো কয়েকজন খেলোয়াড় আছেন, যারা ডিজার্ভ করেন আরো বেশি টেস্ট খেলার। কারণ সমসাময়িকদের মধ্যে অ্যালিস্টার কুক, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসরা শততম টেস্টও খেলে ফেলেছেন। অবশ্য এ পর্যন্ত খেলা ৫৪ টেস্টেই নিজের জাতটা ঠিকই চেনাতে পেরেছেন বগুড়ার এই সন্তান। ব্যাটিং গড় ৩৫-র বেশি। তবে গেলো কয়েক বছরে বাংলাদেশের পারফরমেন্স আর র‌্যাংকিংয়ের উন্নতিতে এখন বড় বড় টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোও আগ্রহী বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে। তাতেই ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল’ আশা করেন হয়তো বারো বছরে যে কয়টি টেস্ট খেলেছেন, আগামী কয়েক বছর খেললেই ক্যারিয়ার শেষে সংখ্যাটা দ্বিগুণ হবে। আর সে কারণেই ব্যক্তিগত লক্ষ্যটাও ডানা মেলে। অবসরের আগে নিজের ব্যাটিং গড় দেখতে চান কম করে হলেও ৪৫-র বেশি। সাথে নিজের নামের পাশে আরো কয়েকটি সেঞ্চুরিও চাই তার।

ব্যক্তিগত লক্ষ্য আর স্বপ্ন নিয়ে কথা বলতে গিয়েই জানালেন, ক্যারিয়ারে অন্তত একটি ডাবল বা ট্রিপল সেঞ্চুরির স্বপ্ন ছিলো। কিন্তু কখনওই ভাবেন নি, তিনিই হবেন বাংলাদেশের প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান। বিশেষ করে গল টেস্টের ওই সময়টায় তার চেয়েও আগ্রাসী ব্যাট করতে থাকা আশরাফুলই প্রথম ওই মাইলফলকে পৌঁছানোর দাবিদার ছিলেন বলে মনে করেন তিনি। নিজের নামের পাশে এমন কৃতিত্বেও অহংবোধ নেই তার। ডাবল সেঞ্চুরির পর নাকি তার মনে হয়েছে, তিনি কেবল একটা কাজের সুচনা করেছেন। এরপর বাংলাদেশের আরো অনেক ব্যাটসম্যান করবেন ডাবল সেঞ্চুরি। তার বিশ্বাসটা এরই মধ্যে সত্যি হয়েছে। তামিম আর সাকিব ঠিকই বাংলাদেশকে এনে দিয়েছেন এই সম্মান। মুশফিকও এখন আশা করেন আবারো সে কীর্তি গড়ার।
অধিনায়কত্ব এমন একটি বিষয়, যে মুদ্রার দুই পিঠই দেখেছেন মুশফিক। ব্যাটিং আর উইকেট কিপিং করে অধিনায়কত্বের চাপ নিতে পারছেন নাÑÑ এমন অভিযোগেই ২০১৪ সালের শেষ দিকে সীমিত ওভারের ক্রিকেটে মুশফিকুর রহিমের কাছ থেকে অধিনায়কের দায়িত্ব সরিয়ে নেয় বিসিবি। এরপর মাশরাফী বিন মোত্তর্জার শ্রেষ্ঠত্বের ছায়ায় ঢাকা পড়ে মুশফিকের অধিনায়ক দর্শন। কিন্তু তারও আছে, পৃথক এক দর্শণ। গেলো তিন বছরে তারই অধিনায়কত্বে উন্নতি হয়েছে টেস্টে বাংলাদেশের পারফমেন্স। অধিনায়ক হওয়াকে সম্মানের বলে মনে করলেও তার মতে, “একাদশে থাকাটাই বড় কথা। পারফরমেন্স ভালো থাকলে একদিকে যেমন একাদশে জায়াগা পাওয়ার নিশ্চয়তা থাকে, তেমনি আস্থা রেখে বোর্ড অতিরিক্ত দায়িত্ব দিয়ে সম্মান জানায়। তবে কোনো খেলোয়াড়ই সবসময় অধিনায়ক থাকতে পারে না। এটা একটা সময়ের ব্যাপার।”

মুশফিকুর রহিম: ব্যস্ত আলাপচারিতায়

তবে যতদিন অধিনায়ক হিসেবে আছেন, নিজের দায়িত্বটা ভালোই জানা ৩০ বছর বয়সী এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের। তার চোখে, একজন অধিনায়কের সবচেয়ে বড় দায়িত্বই হচ্ছে সতীর্থদের পাশে থাকা। বিশেষ করে বলেন, সামর্থ্যবান ফর্মহীন খেলোয়াড়দের পাশে থাকার কথা। মুশফিক মনে করেন, ফর্ম ভালো থাকলে তাকে আলাদা করে সমর্থন করার প্রয়াজন পড়ে না। কিন্তু যার সামর্থ্য আছে কিন্তু সময়টা খারাপ যাচ্ছে, তাকে সাহস আর সমর্থন দিয়ে তার সেরাটা বের করে আনাতেই অধিনায়কের স্বার্থকতা। উদাহরণ হিসেবে বললেন, প্রায় দু’বছর ফর্মে না থাকার পরও, একরকম উল্টো স্রোতে হেঁটেও তামিমকে একাদশে খেলিয়ে গেছেন তিনি; যার ফল এখন পাচ্ছে বাংলাদেশ দল। মাহমুদুল¬াহ রিয়াদকে দীর্ঘদিন একাদশে খেলানো নিয়ে তাকে ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছ থেকে শুনতে হয়েছে ব্যক্তিগত সম্পর্কের খোটা। তবে তিনি বলছেন, একজন তামিম বা একজন রিয়াদ ২০-৩০ বছরেও তৈরি হয় না। আর ব্যক্তিগত কারণে ক্রিকেটকে ক্ষতিগ্রস্থ করার তো প্রশ্নই আসে না। চমকে দিয়ে বললেন, ক্রিকেটটা তার কাছে ধর্মের মত। বিশ্বাস করেন, মানুষের কাছে যদি পার পেয়েও যান, মৃত্যুর পর তো সৃষ্টিকর্তার কাছে জবাবদিহি করতেই হবে। তাই এখানে তিনি শতভাগ সৎ। ক্রিকেটের সাথে কখনও প্রতারণা করেন নি; করবেনও না।
মুশফিকের চোখে, গেলো কয়েক বছরে বদলে যাওয়া বাংলাদেশের সাফল্যের মূলে দলের মধ্যে বর্তমানে বিরাজ করা দৃঢ় বন্ধন। কেবল অধিনায়ক, কোচ বা ম্যানেজমেন্ট নয়, কোন খেলোয়াড়ের খারাপ সময় গেলে যেমন ড্রেসিং রুমের সব খেলোয়াড় তার পাশে থাকে। তেমনি, একজনের ভালো পারফরমেন্সে সতীর্থরা উল্লাসে মাতে বেশি। তাই তো বিশ্বকাপে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে মাহমুদুল্লাহ’র সেঞ্চুরি হোক, কিংবা তৃতীয় বাংলাদেশি হিসেবে সাকিব আল হাসানের ডাবল সেঞ্চুরি; উদযাপনটা আগে করেন অন্যপ্রান্তে থাকা মুশফিকুর রহিম। আর আগামী কয়েক বছরে এই বন্ধনের কারণেই বাংলাদেশ র‌্যাংকিংয়ে আরও ওপরে উঠে যাবে বলে বিশ্বাস মুশফিকের।

হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরেছেন মাশরাফি

হটাৎ করেই শনিবার কফের সঙ্গে খানিকটা রক্ত বের হয়ে আসায় রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে যান মাশরাফির। সেখানে ফুসফুসের পরীক্ষা করা হয়। অবশ্য পরীক্ষায় গুরুতর কোনো সমস্যা ধরা পড়েনি। ফলে রিপোর্ট পেয়ে ডাক্তার দেখিয়ে আবার বাসায় ফিরে গেছেন টাইগার এই অধিনায়ক।

বিসিবির চিকিৎসক ডা. দেবাশীষ চৌধুরী জানান, ‘গুরুতর কিছু হয়নি মাশরাফির। সকালে কফের সঙ্গে একটু রক্ত আসায় সতর্কতাবশতই হাসপাতালে যান মাশরাফি। ফুসফুসের একটি পরীক্ষায় খারাপ কিছু পাওয়া যায়নি। তাই আর হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়নি।’

অস্ট্রেলিয়া সিরিজকে সামনে রেখে চট্টগ্রামে অনুশীলন ক্যাম্প করছে মুশফিকরা। তবে টেস্ট ক্রিকেট থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখায় চট্টগ্রামের ক্যাম্পে যাননি মাশরাফি।

হার দিয়ে শুরু সাকিবের সিপিএল যাত্রা

ক্যারিবিয়ান সুপার লিগে (সিপিএল) শুরুটা ভালো হল না সাকিবের। নিজের প্রথম ম্যাচেই বল হাতে উইকেট পেলেও ব্যাটে পুরোপুরি ব্যর্থ এই তারকা। আর ব্যর্থতার দিনে তার দল জ্যামাইকা তলাওয়াস ১২ রানে হেরে গেছে বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টসের কাছে।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বার্বাডোজ। তবে জ্যামাইকার বোলারদের বোলিং তোপে খুব বেশি সুবিধা করতে পারেনি বার্বাডোজের ব্যাটসম্যানরা। নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৪২ রান করে তারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৩ রান করেন শোয়েব মালিক। এছাড়া ডুয়াইন স্মিথ ২৮ ও পার্নেলের ব্যাট থেকে আসে ২৫ রান। জ্যামাইকার হয়ে সান্তোকি ও ইমাদ ওয়াসিম নেন ২ টি করে উইকেট। আর সাকিব পান ১ উইকেট।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিদায় নেন সাঙ্গাকারা। এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে জ্যামাইকা। সাকিবের ব্যাট থেকে আসে ১ রান। তবে ওপেনার সিমন্স এক প্রান্ত ধরে দলকে জয়ের দিকে নিয়ে যায়। ব্যক্তিগত ৫৩ রানে এই ওপেনার আউট হলে জ্যামাইকার জয়ের স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ১৩০ রানেই থামে তাদের ইনিংস। ফলে ১২ রানের হার নিয়ে মাঠ ছাড়ে সাকিবের জ্যামাইকা।

এন্ডারসনের বোলিংয়ে লিড ইংল্যান্ডের

মাত্র ১ রানের জন্য সেঞ্চুরি হাতছাড়া জনি বেয়ারস্টোর। তবে ব্যাটেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সাড়ে তিনশ ছাড়ানো পুঁজি নিয়ে জেমস অ্যান্ডারসনের দারুণ বোলিংয়ে ১৪২ রানের লিড নিয়েছে ইংল্যান্ড। তবে প্রোটিয়াদের হাতে এখন‌ও রয়েছে ১ উইকেট।
ম্যানচেস্টার টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৯ উইকেটে ২২০। এখনও ১৪২ রানে পিছিয়ে অতিথিরা। মরনে মর্কেল ১৮ রানে অপরাজিত। আজ রোববার তার সঙ্গে ব্যাটিংয়ে নামবেন ডায়ানে অলিভিয়ের।
ইংল্যান্ডের ৩৬২ রানের জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে, নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারানোর ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকা। নয় ব্যাটসম্যান পৌঁছেছেন দুই অঙ্কে; কিন্তু পঞ্চাশ ছুঁতে পারেননি কেউই। আর দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংসে পঞ্চাশ রানের জুটি নেই একটিও। জমে উঠার আগেই বারবার জুটি ভেঙেছেন অ্যান্ডারসন, স্টুয়ার্ট ব্রড, মঈন আলীরা।
মিডল অর্ডারের দুই আস্থা টেম্বা বাভুমা ও ফ্যাফ ডু’প্লেসিকে বিদায় করা অ্যান্ডারসনের চতুর্থ শিকার টিউনিস ডি ব্রুইন।
৩৩ রানে ৪ উইকেট নিয়ে অ্যান্ডারসনই ইংল্যান্ডের সেরা বোলার। দুটি করে উইকেট নেন ব্রড ও মঈন।
এর আগে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ৬ উইকেটে ২৬০ রান নিয়ে খেলা শুরু করে ইংল্যান্ড। প্রায় একার লড়াইয়ে দলকে ৩৬২ রানে নিয়ে যান বেয়ারস্টো। এদিন ১৮.৪ ওভারে ১০২ রান সংগ্রহ করে স্বাগতিকরা, যার ৬৬ রানই আসে তার ব্যাট থেকে।
নাইটওয়াচম্যান টবি রোল্যান্ড-জোন্স, মইন, ব্রড কেউই খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ৯৯ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন বেয়ারস্টো।
কেশভ মহারাজের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে থামেন তিনি। ইংলিশ এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানের ১৪৫ বলের ইনিংসটি গড়া ১৪টি চার ও একটি ছক্কায়।
৯১ রানে ৪ উইকেট নেন কাগিসো রাবাদা। দুটি করে উইকেট নেন মহারাজ, অলিভিয়ের ও মর্কেল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ইংল্যান্ড ১ম ইনিংস: ৩৬২ (রুট ৫২, স্টোকস ৫৮, বেয়ারস্টো ৯৯*; রাবাদা ৪/৯১)

দক্ষিণ আফ্রিকা ১ম ইনিংস: ২২০/৯ (আমলা ৩০, বাভুমা ৪৬; অ্যান্ডারসন ৪/৩৩)

ভারতের লংকা জয়ে কুশলের পর করুনারত্নের প্রতিরোধ

সকালে ভারতের বোলাররা ধরে ছিলেন রুদ্রর্মূতি। বিশেষ করে স্পিনাররা। রবিচন্দ্রন অশ্বীন আর রাবিন্দু জাদেজা মিলে ৭ উইকেট তুলে নিয়ে ধরাশায়ী করেন স্বাগতিক শ্রীলংকাকে। তাতে ১৮৩ রানেই অল আউট স্বগতিকরা। অবশ্য ফলো অনে পড়া শ্রীলংকা দ্বিতীয় ইিনংসে জ্বলে ওঠে। কলম্বো টেস্টের তৃতীয় দিন শেষে ভারতের চেয়ে ২৩০ রানে পিছিয়ে আছে ফলো অনে পড়া শ্রীলংকা, হাতে আছে ৮ উইকেট। আগের দিনের, ২ উইকেট ৫০ রান নিয়ে খেলতে নেমে, ভারতের ঘূর্ণিবলে পথ হারায় স্বাগতিক শ্রীলংকা। অশ্বীন ও রাবিন্দু জাদেজা ৭ উইকেট তুলে নিয়ে ধ্বস নামান লংকান শিবিরে। মাত্র ১৮৩ রানে অল আউট হয়ে ফলো অনে পড়ে তারা। অশ্বীন ৬৯ রানে ৫টি উইকেট তুলে নেন। ভারত লিড পায়, ৪৩৯ রানের। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করে কুশল মেন্ডিসের ১১০ রান এবং ওপেনার করুনারত্নে অপরাজিত ৯২ রানে তৃতীয় দিন শেষে ২ উইকেটে ২০৯ রান তোলে দিনেশ চান্দিমালের দল। এর আগে, ৯ উইকেটে ৬২২ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে বিরাট কোহলির দল ভারত।

তৃতীয় দিন শেষে সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ভারত প্রথম ইংনিংস ৬২২/৯ (ডিক্লে.)।
শ্রীলংকা প্রথম ইনিংস ১৮৩।
শ্রীলংকা দ্বিতীয় ইনিংস ২০৯/২।

অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ভালো কিছুর প্রত্যাশা তাসকিনের

অস্ট্রেলিয়া সিরিজে ভালো কিছু করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ দল। চট্টগ্রামে এক সপ্তাহের কন্ডিশনিং ক্যাম্পের প্রথম দিনেই এমন মন্তব্য করেন দলের পেসার তাসকিন আহমেদ। এছাড়া এই সিরিজে ভালো কিছু করতে পারলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশ একটি সম্মানজনক অবস্থান অর্জন করতে পারবে বলেও জানান টাইগারদের এই পেসার। আজ শনিবার সকালে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে কন্ডিশন ক্যাম্প চলাকালে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তাসকিন এসব কথা বলেন।
সাফল্য অর্জনে ব্যতিক্রম কিছু করতে হবে বলে উল্লেখ করে, জাতীয় দলের এ পেসার বলেন, ‘টেস্ট ক্রিকেট পেস বোলারদের জন্য কঠিন বিষয়। এছাড়া চট্টগ্রামের কন্ডিশনটা ভিন্ন। তাই আমরা ভিন্ন কিছু করার চেষ্টা করছি। আশাকরি আমরা ভালো কিছু করতে সমর্থ হবো। অস্ট্রেলিয়া সিরিজে ভালো কিছু করতে পারলে তা পরবর্তী সিরিজে কাজে দিবে।
এসময় তাসকিন আরও জানান, ‘পেসে রিভার সুইয়িং অস্ত্র হিসেবে কাজ করতে পারে। তাই আমরা সেই বিষয়ে কাজ করছি। বলকে কিভাবে মুভ করানো যায় এবং অস্ট্রেলিয়াকে কিভাবে ঘায়েল করা যায় তার সবকিছু করতে আমরা কঠোর পরিশ্রম করছি।’
সকাল সাড়ে নয়টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত কোচ চান্ডিকা হাথুরোসিংহের তত্ত্বাবধানে চলে প্রথমদিনের কন্ডিশন ক্যাম্প। সাতদিনের ক্যাম্পিং শেষে ৯ থেকে ১১ আগস্ট হবে প্রস্তুতি ম্যাচ।
আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে আসবে অজি ক্রিকেট দল। ২৭ আগস্ট মিরপুরে এবং ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে টেস্ট ম্যাচ খেলবে এই দুই দল।

তৃতীয় দিনে আজ মাঠে নামবে শ্রীলঙ্কা-ভারত

ক্রিকেট

শ্রীলঙ্কা-ভারত
দ্বিতীয় টেস্ট, তৃতীয় দিন
সরাসরি, বেলা ১১.৩০ মি.
সনি সিক্স ও টেন ৩
ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা
চতুর্থ টেস্ট, দ্বিতীয় দিন
সরাসরি, বিকাল ৪টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ১

ফুটবল

ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপ
টটেনহাম-জুভেন্টাস
সরাসরি, রাত ১০.৩০ মি.
টেন ২

কাবাডি

ইন্ডিয়ান প্রো কাবাডি
মুম্বা-দাবাঙ্গ
সরাসরি, রাত ৮.২০ মি.
ব্যাঙ্গালুরু-যোদ্ধা
সরাসরি, রাত ৯.৩০ মি.
স্টার স্পোর্টস ১

মোস্তাফিজকে শুভকামনা ওয়ার্নারের

সব শঙ্কা দূর করে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে নির্ধারিত সময়েই বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া। আর সেই লক্ষ্যে ঢাকা পর্বের পর এক সপ্তাহের অনুশীলন ক্যাম্প করতে বর্তমানে চট্টগ্রামে অবস্থান করছে বাংলাদেশ দল। চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ার পূর্বে জাতীয় দলের পেসার পেনসেশন মোস্তাফিজুর রহমান একটি ছবি তার নিজস্ব টুইটারে পোস্ট করেন। আর এই ছবিটি রিটুইট করে টাইগার এই বোলারকে শুভকামনা জানিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার।

বাংলাদেশ বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশ, সৌম্য সরকারকে সাথে নিয়ে একটি ছবি টুইটারে পোস্ট করে মোস্তাফিজ লেখেন, “আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজের প্রস্তুতির জন্য সাত দিনের জন্য চট্টগ্রাম যাচ্ছি।” আর এই টুইটটি রিটুইট করে ওয়ার্নার লিখেন, “শুভকামনা চ্যাম্পিয়ন, দ্রুতই দেখা হবে।”

 

চলতি মাসের ১৮ তারিখ বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া। ১৯-২১ তারিখ পর্যন্ত মিরপুর শেরে-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন করবে সফরকারীরা। এরপর ২২-২৩ আগস্ট ফতুল্লায় দুই দিনের একটি অনুশীলন ম্যাচ খেলার কথা অস্ট্রেলিয়ার। এরপর মিরপুর শেরে-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু হবে ২৭ আগস্ট রোববার। আর সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর, চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে।

বাংলাদেশ সফরে স্টার্কের পরিবর্তে সোয়েপসন

বাংলাদেশ সফরের জন্য গত জুনেই ১৩ সদস্যের দল ঘোষণা করেছিল অস্ট্রেলিয়া। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ‘এ’ দলের পারফরমেন্স দেখে বাংলাদেশ সফরে স্টার্কের পরিবর্তে আরও একজনকে নেওয়ার কথা ছিল। আজ বাকি সদস্য হিসেবে ২৩ বছর বয়সী লেগ স্পিনার মিচেল সোয়েপসনের নাম ঘোষণা করেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া।

মূলত বাংলাদেশের কন্ডিশনের কথা বিবেচনা করেই অ্যাশটন অ্যাগার ও নাথান লায়নের পর তৃতীয় স্পিনার হিসেবে দলে এসেছেন সোয়েপসন। এ নিয়ে নির্বাচক প্যানেলের প্রধান ট্রেভর হনস বলেন, ‘বাংলাদেশের কন্ডিশনের কথা বিবেচনা করেই দলে আরেকজন স্পিনার নেওয়া হয়েছে। আর মিচেল (সোয়েপসন) অসাধারণ তরুণ একজন লেগ স্পিনার। আমরা মনে করি, উপমহাদেশের অভিজ্ঞতা থেকে সে উপকৃত হবে।’

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ১৮ তারিখ বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া। ১৯-২১ তারিখ পর্যন্ত মিরপুর শেরে-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুশীলন করবে সফরকারীরা। এরপর ২২-২৩ আগস্ট ফতুল্লায় দুই দিনের একটি অনুশীলন ম্যাচ খেলার কথা অস্ট্রেলিয়ার। এরপর মিরপুর শেরে-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সিরিজের প্রথম টেস্ট শুরু হবে ২৭ আগস্ট রোববার। আর সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু হবে ৪ সেপ্টেম্বর, চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে।

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সুচি

অবশেষে টেস্ট সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। বেতন-ভাতা নিয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও ক্রিকেটারদের মধ্যে চলমান বিতর্কের পর সমঝোতা করতে রাজি হয়েছে দুই পক্ষই। এই সুবাদে নির্ধারিত সময়সূচি অনুযায়ী বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া দল।
বোর্ড ও ক্রিকেটারদের মধ্যে টান-টান উত্তেজনার কয়েক সপ্তাহ পর সমঝোতায় পৌঁছেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন। সে অনুযায়ী আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশ সফরে আসছে তারা।

ঢাকার মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে। আর দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে ৪ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে।

লংকানদের বিপক্ষে রানের পাহাড়ে ভারত

দুই সেঞ্চুরি আর চার ফিফটিতে কলম্বো টেস্টে রানের পাহাড় গড়েছে ভারত। ৯ উইকেটে ৬২২ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি।
দ্বিতীয় দিন শেষে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ২ উইকেটে ৫০ রান। কুশল মেন্ডিস ১৬ ও দিনেশ চান্দিমাল ৮ রানে অপরাজিত আছেন। এখনো ৫৭২ রানে পিছিয়ে আছে স্বাগতিকরা।
শ্রীলঙ্কায় সফরকারী দলের এর চেয়ে বড় সংগ্রহ আছে আর মাত্র দুটি। ২০১০ সালে ভারতই কলম্বোর এই মাঠেই করেছিল ৭০৭ রান। ২০১২-১৩ মৌসুমে গলে বাংলাদেশ করেছিল ৬৩৮।
আগের দিনের ৩ উইকেটে ৩৪৪ রানে ব্যাট করতে নামে ভারত।
আগের রানের সঙ্গে আরও ৫ রান যোগ করে ১৩৩ রান করে সাজঘরে ফেরেন পূজারা। তার বিদায়ে ভাঙে ২১৭ রানের জুটি।
রাহানেও ফিরে যান লাঞ্চের প্রায় আধা ঘণ্টা আগে। অভিষিক্ত বাঁহাতি স্পিনার মিলিন্ডা পুষ্পকুমারার বলে ডিকভেলার হাতে স্টাম্পড হওয়ার আগে তিনি করেন ১৩২। ভারতের সংগ্রহ তখন ৫ উইকেটে ৪১৩।
এরপর রবিচন্দ্রন অশ্বিন, ঋদ্ধিমান সাহা ও রবীন্দ্র জাদেজা-র ফিফটিতে ৯ উইকেটে । অশ্বিন ফিফটি পূরন করার পাশপাশি ২ হাজার রানের মাইলফলকও ছুঁয়ে ফেছেন।
সেই সঙ্গে তিনি টেস্ট ইতিহাসে সবচেয়ে দ্রুততম ২ হাজার রান ও ২৫০ উইকেটের অসাধারণ ‘ডাবল’ অর্জন করেন।
জবাবে, ২০ ওভার খেলার সুযোগ পাওয়া শ্রীলঙ্কা উপুল থারাঙ্গা ও দিমুথ করুনারত্নের উইকেট হারিয়ে তোলে ৫০ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ভারত প্রথম ইনিংস: ৬২২/৯ ডিক্লে. (পূজারা ১৩৩, রাহানে ১৩২, জাদেজা ৭০*, ঋদ্ধিমান ৬৭, রাহুল ৫৭, অশ্বিন ৫৪; হেরাথ ৪/১৫৪, পুষ্পকুমারা ১/১৫৬, করুনারত্নে ১/৩১, দিলরুয়ান ১/১৪৭)।
শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংস: ৫০/২ (করুনারত্নে ২৫, কুশল মেন্ডিস ১৬)।

সিএ-এসিএ চুক্তির শর্তগুলো

অবশেষে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশেনর মধ্যে সমঝোতা হওয়ায় স্বস্তি নেমেছে ক্রিকেট বিশ্বে। তাতে ১০ মাসের টানাপোড়েনেরও হলো অবসান। আর্থিক চুক্তি না হওয়ায় ‘এ’ দলের দক্ষি আফ্রিকা সফরে যাননি খেলোয়াড়রা। হুমকিতে ছিল বাংলাদেশ সফর, ভারত সফর এবং দেশের মাটিতে অ্যাশেজ সিরিজও। শেষ পর্যন্ত বৃহস্পতিবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া, তাদের খেলোয়াড়রা ও খেলোয়াড়দের সংগঠন সমস্যা মিটিয়ে ঐকমত্যে পৌঁছালো। নতুন চুক্তির শর্ত চূড়ান্ত হলো। এখন দেখে নেওয়া যাক নতুন চুক্তির আদ্যোপান্ত।

* পাঁচ বছরের চুক্তি।
* পুরুষ ও নারী ক্রিকেটার, সবার জন্য একই চুক্তি। অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটে যা ঘটলো প্রথমবারের মতো।
* আয় ভাগাভাগির নতুন মডেল। এতে করে পুরুষ-নারী সব ক্রিকেটারই ক্রিকেট পার্টনার হলো।
* লিঙ্গ বৈষম্য দূর করা সবার সমান অধিকারের চুক্তি।
* অস্ট্রেলিয়ার নারীদের ক্রীড়া ইতিহাসে আয়ের সর্বোচ্চ উন্নতি এটি।
* রাজস্ব বা আয় ভাগাভাগির এই মডেলে খেলোয়াড়রা ৩০ শতাংশ পাবেন। ২৭.৫ ভাগ খেলোয়াড়দের বেতন-ভাতা। ২.৫ শতাংশ পারফরম্যান্সের ভাতা। আনুমানিক ৫০০ মিলিয়ন ডলার হবে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার এই ব্যয়।
* ঘরোয়া ও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সব নারী ও পুরুষ ক্রিকেটার আয়ের ভাগ পাবেন। তৃণমূল ক্রিকেটের উন্নতির তহবিলে সরাসরি যোগ হবে ২৫ মিলিয়ন পাউন্ড। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তৃণমূল পর্যায়ের জন্য ২৫ মিলিয়নের একটি সঞ্চয় থাকবে। সেটি আগামী ৫ বছরের খেলার উন্নতির জন্য। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও ক্রিকেটারদের সংগঠন এসিএর সমান ব্যক্তির অংশগ্রহণে এই তহবিল চালানো হবে। এই কমিটি উন্নতির পরিকল্পনা নিয়ে ৫ বছরের জন্য কাজ করে যাবে।
* এসিএ বানিজ্যিক কার্যক্রমের জন্য ‘দ্য ক্রিকেটার্স ব্র্যান্ড’ ফিরে পাচ্ছে।
* খেলার সূচি নির্ধারণে খেলোয়াড়দের বড় ভূমিকা থাকবে। সূচি নির্ধারণের জন্য শক্ত একটি গ্রুপ করা হবে খেলোয়াড়দের নিয়ে।
* খেলোয়াড়দের অবসর তহবিলের উন্নতি। এটা করবে সিএ ও এসিএর একটি কার্যকরী গ্রুপ। প্রথমবারের মতো অবসর তহবিলে অস্ট্রেলিয়ার নারী ক্রিকেটাররা যুক্ত হচ্ছেন।
* দুই পক্ষ এই সমঝোতায় পৌঁছেছে যে ২০১২-২০১৭ পর্যন্ত হওয়া এই চুক্তি ফুরোলে নতুন করে আবার চুক্তির শর্ত ঠিক করার প্রয়োজন পড়বে না, তখন এই চুক্তি আরো আধুনিকায়ন করে নিলেই চলবে।
* বেকার হয়ে পড়া সব ক্রিকেটার ১ জুলাই পর্যন্ত সব টাকাই পেয়ে যাবেন। সেটা চুক্তি সইয়ের পর।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ গেলেন সাকিব

অবশেষে বৃহস্পতিবার রাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের পথে রওনা হলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। অবশ্য ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (সিপিএল) অংশ নিতে গত শনিবার রাতেই ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাওয়ার কথা ছিল সাকিবের। কিন্তু ভিসা জটিলতায় তিনি যেতে পারেননি।
সিপিএলে অভিষেকের অপেক্ষায় আছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। তার দল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। ত্রিনবাগোর হয়ে পাঁচ ম্যাচ খেলার কথা মিরাজের। আগামীকাল শনিবার বাংলাদেশ সময় সকাল ৭ টায় সিপিএলের পর্দা উঠবে।
সিপিএলে সাকিব খেলবেন জ্যামাইকা তালাওয়াসের হয়ে। ১৫ আগস্ট পর্যন্ত সিপিএলে খেলার অনুমতি পেয়েছেন। এরপর দেশে ফিরে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের ক্যাম্পে যোগ দিবেন তিনি।
সিপিএলে সাকিব আল হাসান নিয়মিত মুখ। জ্যামাইকা তালাওয়াসে গত আসরেও খেলেছিলেন। এর আগে খেলেছিলেন বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টসে। সব মিলিয়ে সিপিএলে ২১ ম্যাচে সাকিব বল হাতে নিয়েছেন ২৩ উইকেট। সেরা বোলিং ৬ রানে ৬ উইকেট। ব্যাট হাতে করেছেন ১৮২ রান।

কাইফের পর মঈন আলী

সূর্য প্রণাম হারাম। অনুমোদন নেই দাবা খেলার। এরকম একাধিক অভিযোগে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে হেনস্তার শিকার হয়েছিলেন ভারতের ক্রিকেটার মোহাম্মদ কাইফ। এবার পালা ইংল্যান্ডের ক্রিকেটার মঈন আলীর।
সোশ্যাল মিডিয়ায় আঁকা-আঁকির একটি ছবি পোস্ট করেছিলেন মঈন আলী। আর তাতেই পড়তে হল সমালোচনার মুখে। নেটিজেনরা জানিয়ে দিলেন, ইসলামে আঁকা-আঁকির কোনো অনুমোদন নেই।

ইসলামের নামে একাধিক বিষয়েই আপত্তি জানান, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীরা। তাতেই বাড়ে বিপত্তি। যার সাম্প্রতিক শিকার মঈন আলী। কিংবদন্তি ভিভ রিচার্ডসের ছবি নিজের হাতে এঁকে পোস্ট করেছিলেন তিনি। কারণটাও ছিল বেশ মহৎ। এ ছবি আঁকার জন্য শুধু ক্রিকেটের প্রতি আবেগই তাঁকে তাড়িত করেনি।
আসলে ক্রিকেটারদের ভালর জন্যই ‘ক্রিকেট ইউনাইটেড’ নামে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বিশেষ ক্যাম্পেনের আয়োজন করেছিল। সেখানেই নিজের হাতে ছবি এঁকে সেটি নিলামের জন্য দিয়েছিলেন ইংল্যান্ডের এই ক্রিকেটার। উদ্দেশ্য ছিল, অর্জিত অর্থ তিনি সংস্থায় দান করবেন, যাতে ক্রিকেটারদের স্বার্থ রক্ষিত হয়। কিন্তু উল্টো তাঁর আঁকা নিয়েই কট্টরপন্থী মুসলিমদের রোষের মুখে পড়তে হয় মঈন আলীকে।
বেশ কয়েকজন নেটিজেন রীতিমতো ক্রুদ্ধ হয়ে তাঁকে জানান যে, ইসলামে আঁকাজোকা করা বেআইনি। অর্থা ইসলামিক আইনে এ ধরনের কাজের কোনও অনুমোদন নেই। একাধিক ব্যক্তি এ নিয়ে তুলোধোনা করেন ক্রিকেটারকে। যদিও এ নিয়ে মঈন আর কোনও প্রতিক্রিয়া জানাননি।

টাইগারদের অনুশিলন এবার চট্টগ্রামে

অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজকে সামনে রেখে মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে চলছে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের চলছে প্রস্তুতি ক্যাম্প। ঢাকার পর্ব শেষে এবার বন্দর নগরী চট্টগ্রামে প্রস্তুতি ক্যাম্প করবে টাইগাররা। শুক্রবার (৪ আগস্ট) জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে এই ক্যাম্প, চলবে প্রায় এক সপ্তাহ।
আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে ঢাকা আসবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। সিরিজের প্রথম টেস্টটি হবে ঢাকায় এবং দ্বিতীয়টি চট্টগ্রামে। আর তাই দ্বিতীয় ম্যাচটির জন্যই মূলত সাগর-পাড়ের স্টেডিয়ামটিতে অনুশীলন করবেন মুশফিক-সাকিবরা।
প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানান, ‘(শুক্রবার) বিকেলে চট্টগ্রাম যাবে জাতীয় দল। সেখানে এক সপ্তাহ অবস্থান করবে। তারপর ১২ আগষ্ট আবার ঢাকায় ফিরে আসবে দল।’
৭ আগষ্ট সোমবার পর্যন্ত টানা তিনদিন সকাল-বিকেল দুই বেলা অনুশীলন। ৮ আগষ্ট শুধু জিম আর ফিজিক্যাল ট্রেনিং। ৯ থেকে ১১ আগষ্ট তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। ওয়ার্ম আপ ম্যাচ শেষে ১২ আগষ্ট জাতীয় দল ফেরত আসবে ঢাকায়।
রাজধানী ফেরার পরদিন মানে ১৩ আগষ্ট বিশ্রাম। ১৪, ১৫ ও ১৬ আবার টানা অনুশীলন। এরপর একটি দু’দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ। সেটা হবে ১৭-১৮ আগষ্ট। ঐ ম্যাচ শেষেই প্রথম টেস্ট স্কোয়াড চূড়ান্ত হবে।

স্বস্তিতে বিসিবি

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানালেও অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়ে টেনশনে ছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। কারণ, স্টিভেন স্মিথরা বারবার হুমকি দিচ্ছিলেন যে ক্রিকেটারদের বেতন-ভাতা ইস্যুতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (এসিএ) মধ্যে চুক্তি না হওয়া পর্যন্ত তারা কোনও সিরিজে অংশ নিবেন না।
অবশেষে সেই সমস্যার সমাধান হয়েছে। বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়ে এসব শঙ্কা কেটে গেছে। চুক্তি স্বাক্ষর করেছে সিএ ও এসিএ। অস্ট্রেলিয়া দলের এই সমস্যার সমাধানের কথা শুনে আনন্দিত বিসিবিও।
বৃহস্পতিবার বিসিবি’র মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস বলেছেন, ‘আমরা খুব খুশি। আমাদের জন্য এটি বড় সিরিজ। আমরা এমনিতে খুব বেশি টেস্ট ম্যাচ খেলার সুযোগ পাই না। দেশের মাটিতে আমরা দুইটি টেস্ট ম্যাচ খেলব। এটি অনেক বড় কিছু’।
তিনি আরও বলেন, ‘যদিও তারা আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানায়নি। কিন্তু তাদের কাছ থেকে আমরা কোনও নেতিবাচক খবর পায়নি। এই সিরিজ আয়োজনের ব্যাপারে আমরা সবসময় আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে নেতিবাচক কোনও খবর দেয়নি। আমরা আত্মবিশ্বাসী ছিলাম’।
বাংলাদেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়া সর্বশেষ টেস্ট সিরিজ খেলেছে ২০০৬ সালে। আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে পৌঁছানোর কথা অস্ট্রেলিয়া দলের। আর ২২-২৩ আগস্ট স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে দুইদিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে তারা। মিরপুরে প্রথম টেস্ট শুরু হবে আগামী ২৭ আগস্ট। আর আগামী ৪ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামে শুরু হবে দ্বিতীয় টেস্ট।

দ্বন্দ্বের অবসান নির্ধারিত সময়েই বাংলাদেশে আসবে অস্ট্রেলিয়া

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও ক্রিকেটারদের মধ্যে দ্বন্দ্বের অবসান হয়েছে। দুপক্ষের চুক্তি হওয়ায় বাংলাদেশ সফর নিয়ে শংকা দূর হয়ে গেলো। অস্ট্রেলিয়ার গণমাধ্যম জানিয়েছে, দুই পক্ষের মধ্যে আলোচনা শেষে সমোঝতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে।
আজই সংবাদ সম্মেলন করে চুক্তি সম্পর্কে বিস্তারিত জানাবেন ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান নির্বাহী।
সিএ তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে নির্ধারিত সময়েই বাংলাদেশ সফর করবেন স্মিথ-ওয়ার্নাররা। এজন্য ১০ আগস্ট ডারউইনে শুরু হবে অজিদের ক্যাম্প। ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে আসবে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল।

চুক্তি হলেই কেবল বাংলাদেশ সফর: স্মিথ

পারিশ্রমিক চুক্তি হলেই কেবল বাংলাদেশ সফর। পুরনো কথাই নতুন করে বললেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। গতকাল মঙ্গলবার তিনি জানান, পারিশ্রমিক দ্বন্দ্বে বোর্ডের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) না হলে বাংলাদেশ সফরে যাবেন না ক্রিকেটাররা। দুই টেস্টের সিরিজ খেলতে আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশে আসার কথা ছিলো অস্ট্রেলিয়া দলের।
সিএর প্রস্তাবিত নতুন আর্থিক কাঠামো মেনে সমঝোতা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেননি অসি ক্রিকেটাররা। যে কারণে চুক্তিহীন হয়ে পড়ায় গত ১ জুলাই থেকে ‘বেকার’ জাতীয় দল থেকে রাজ্যদলের ২৩০ ক্রিকেটার। ক্রিকেটারদের দাবি ছিল, বোর্ডের আয়কৃত রাজস্বের ভাগ জাতীয় দলের পাশাপাশি রাজ্যদলের ক্রিকেটাররাও পাবেন। কিন্তু সিএ খেলোয়াড়দের এ দাবি মেনে না নেয়ায় সংকটের মুখে পড়ে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেট। নিজেদের অবস্থানে অনড় থেকে এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করেছে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দল। পাশাপাশি দোদুল্যমান অস্ট্রেলিয়া দলের বাংলাদেশ সফর, সেপ্টেম্বরে ভারতের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ ও নভেম্বর-ডিসেম্বরে অ্যাশেজ। যদিও বোর্ড-খেলোয়াড় দ্বন্দ্বের অবসানে এরই মধ্যে কয়েক দফা আলোচনায় বসেছে এসিএ-সিএ। অসি গণমাধ্যম জানিয়েছে, সন্ধির খুব কাছাকাছিও পৌঁছে গেছে দুই পক্ষ।
চলমান দ্বন্দ্বের পরিপ্রেক্ষিতে দুই পক্ষ যখন আলোচনার টেবিলে, ঠিক তখনই নিজেদের পুরনো দাবিটা মনে করিয়ে দিলেন স্মিথ। তিনি বলেন, ‘অবশ্যই যেতে চাই (বাংলাদেশে), কিন্তু আমরা বেশ আগে থেকেই বলে এসেছি, সবার আগে চুক্তিটা হওয়া দরকার। ‘এ’ দলের ছেলেরা নিজেদের অবস্থানে অনড় থেকে তাদের সফর বাতিল করার পর মনে হয় না যে, আমাদের সফর করাটা ভালো দেখায়। ওরা সফর বয়কট করার পর আমাদের বেরিয়ে পড়াটা আমার চোখে অন্যায্য।’
২০০৬ সালের পর আর কখনো বাংলাদেশ সফরে আসেনি অস্ট্রেলিয়া। চলতি মাসে যে সফরসূচি রয়েছে, তা আসলে গত বছর মাঠে গড়ানোর কথা ছিল। কিন্তু নিরাপত্তা ঝুঁকির অজুহাতে সেবার সফর বাতিল করে অস্ট্রেলিয়া।

এবার টেস্টে ফেরার লড়াই রুবেলের

চলতি বছরের জানুয়ারীতে নিউজিল্যান্ডের পর বাংলাদেশ টেস্ট ম্যাচ খেলেছে ভারত ও শ্রীলঙ্কার বিপ।ে তবে শেষ তিন টেস্টেই দলের বাইরে ছিলেন পেসার রুবেল হোসেন। আসন্ন অস্ট্রেলিয়ার বিপে সিরিজে দলে জায়গা করে নিতে নিজের সর্বোচ্চ চেষ্টাটাই করবেন বলে জানান তিনি। মিরপুরে অনুশীলন শেষে টাইগার পেসার বলেন, ‘এখনো অনেকদিন সময় আছে, আমি সুযোগটা কাজে লাগাতে চেষ্টা করবো। যেহেতু বেশ কয়েকটা দিন আমার বোলিং সেশন মিস হয়েছে। বাকি যে ক’টা দিন অনুশীলন আছে খুব মনোযোগ দিয়ে কাজ করতে চেষ্টা করবো।’
আসলেই বোলিংয়ের মনোযোগটা বড্ড দরকার বাংলাদেশের ক্রিকেট দলের অন্যতম এই গতি তারকার। টেস্ট পরিসংখ্যানটা মোটেও তাকে স্বস্তি দেবেনা। ২০০৯ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত ২৪ ম্যাচ খেলে ৭৭.৯৩ গড়ে নিয়েছেন ৩২ উইকেট। পারফরম্যান্সের অধারাবাহিকতা তাকে প্রায় সময়ই রেখেছে দলের বাইরে।
সরাসরি না বললেও দলে ফিরতে নিজের ভেতরে যে একটা তাড়না কাজ করছে তা স্পস্ট হলো রুবেলের বক্তব্যে। এবার গুরু কোর্টনি ওয়ালশের কাছ থেকে পরামর্শ পেতে চান তিনি, ‘টেস্ট ক্রিকেটে ওয়ালশের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। তার টেস্ট ক্যারিয়ার অনেক ভালো, কিভাবে লাইন-লেংথে ঠিকভাবে বল করা যায় এবং অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় দলের বিপে কিভাবে উইকেট বের করতে হবে এটা নিয়ে তার (ওয়ালশের) সাথে আলাপ করবো।’
সবকিছু ঠিক থাকলে শ্রীলঙ্কান চম্পকা রমানায়েকে কিছুদিনের মধ্যেই যোগ দিচ্ছেন এইচপি দলের কোচ হয়ে। একই সাথে দুই গুরুর কাছে তালিম নিতে কোন সমস্যা হবে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে রুবেল বরং বিষয়টিকে ইতিবাচকভাবেই দেখলেন, ‘আমি জানিনা তিনি জাতীয় দলের হয়ে কাজ করবেন কিনা। আমার প্রথম কোচ ছিলেন চম্পকা। তার কাছ থেকে অনেক কিছু শিখেছি। আবারো যদি তিনি আসেন, আশা করি নিজের বোলিংয়ের টেকনিক্যাল কোন ভুলভ্রান্তি থাকলে শিখতে পারবো।’
তবে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের অধীনে শুধু বোলিং নয়, ব্যাটিংটাতেও মনোযোগ দিতে হয় বোলারদের। ইনজুরি থেকে ফিরে নিজের দ্বিতীয় কাসে ব্যাটিং অনুশীলন করলেন রুবেল। যদিও এদিন মার্ক ও’নিলের সাাত পাননি, পেলে ঠিক কি করবেন, সেটাও জানিয়ে দিলেন রুবেল হোসেন, ‘আমার সাথে যদি একজন সেট ব্যাটসম্যান থাকে, তাকে সাপোর্ট করার জন্য কি করা উচিৎ, এটা নিয়ে কথা বলবো। কোন পরিস্থিতিতে কি করতে হবে, এই ধরনের বাড়তি কিছু টিপস নেয়ার চেষ্টা করবো।’

অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে টেস্ট সিরিজ ড্র করার স্বপ্ন মুশফিকের

অস্ট্রেলিয়ার বিপে আসন্ন টেস্ট সিরিজ ড্র করার সামর্থ্য আছে টাইগারদের, এমনটাই মনে করে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ-বিপিএলে রাজশাহী কিংসের আইকন ক্রিকেটার ঘোষণার অনুষ্ঠানে একথা বলেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল। বিপিএলের চার মৌসুমে ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ রানের মালিক হলেও এখন পর্যন্ত শিরোপা জয়ের স্বাদ পাননি মুশফিক। এবার রাজশাহী কিংসের হয়ে সেই শিরোপা ুধা মেটাতে চান তিনি।
বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের গত আসরে রানার্স-আপ হয়েছিল ড্যারেন সামির নেতৃত্বাধীন রাজশাহী কিংস। সে আসরে দলের আইকন ছিলেন টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান। বিপিএলের এবারের আসরে রাজশাহীতে আসছেন না স্যামি। পরিবর্তন হয়েছে আইকন প্লেয়ারেও। গত আসরে বরিশাল বুলসের আইকন ও অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম এবার দল বদলে, রাজশাহীর আইকন। টেস্ট দলের অধিনায়ক মুশফিক বিপিএলে সেরা পারফরমার হলেও শিরোপা ভাগ্যে বরাবরই বিপরীতে। এবার নিজের পারফরমেন্সের পাশাপাশি তিনি চান রাজশাহীর অপূর্নতাকে (গত আসরের শিরোপার কাছ থেকে ফিরে আসা) পূর্নতা দিতে। মুশফিক ছাড়া রাজশাহী গত আসরের দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে ফরহাদ রেজা ও মমিনুল হক সৌরভকে রেখে দিয়েছে।
আজ মঙ্গলবার তেজগাঁওয়ে রাজশাহী ফ্রাঞ্চাইজির পে দলের আইকন মুশফিককে পরিচয় করিয়ে দেন চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান খান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিচালক মোহাম্মদ সাইদ। এবারের আসরে পাচজন বিদেশী প্রসংগে মুশফিক বলেন, এতে স্থানীয় খেলোয়াড়দের খেলার সুযোগ কিছুটা কমলেও মান সম্পন্ন যেসব খেলোযাড় আসবে তাদের কাছ থেকে অনেক কিছুই শিখতে পারবে আমাদের ক্রিকেটাররা। টি-টোয়েন্টি ভার্সনে মাঠে যে দল ভালো খেলবে জয় তাদেরই হবে। তাতে শিরোপা জয়ের দৌড়ে সবারই সুযোগ থাকে। তবে রাজশাহীর প থেকে বলা হয় তারা চারজন বিদেশী খেলোয়াড়ের পে ছিলেন। বিপিএল গভর্নিং বডির সঙ্গে বিদেশী খেলোয়াড় কোটা বাড়ানোর বিষয়ে যখন আলোচনা হয়েছে, তখন রাজশাহীসহ আরো দুটি ফ্রাঞ্চাইজি (তাদের নাম প্রকাশ করেননি) চার বিদেশীর পে থাকলেও অপর পাঁচ দল কোটা বাড়ানোর পে থাকায় শেষ পর্যন্ত পাঁচজন করা হয়েছে।

ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের হয়ে অনুশীলনে মিরাজ

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে চমক জাগিয়ানা অভিষেক হয়েছিল মেহেদী হাসান মিরাজের। তার অসাধারণ বোলিং নৈপুণ্যে টেস্টে প্রথমবারের মতো ইংল্যান্ডকে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। নিজের নামের প্রতি সুবিচার করা অলরাউন্ডার মিরাজ এবার সুযোগ পেয়েছেন বিদেশি লিগেও। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঘরোয়া টি-টোয়েন্টিতে (ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ) শাহরুখ খানের মালিকানাধীন ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলতে এরই মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজে পৌঁছে অনুশীলন শুরু করে দিয়েছেন ১৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার।

গতকাল নিজের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে অনুশীলনের তিনটি ছবি পোস্ট করেছেন মিরাজ। ক্যাপশনে লিখেছেন, আমার সতীর্থদের সঙ্গে অনুশীলনের সময়। এই প্রথমবার বিদেশি কোনো ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে খেলতে গেলেন মিরাজ।

সিপিএলে ট্রিনবাগোর হয়ে খেলতে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঢাকা ছাড়েন বাংলাদেশের তরুণ এ অলরাউন্ডার। দলে সতীর্থ হিসেবে মিরাজ পাচ্ছেন হাশিম আমলা, ব্রেন্ডন ম্যাককালাম, কলিন মানরো, ব্রাভো, সুনীল নারিনের মতো ক্রিকেটারদের।

উল্লেখ্য, আগামী ৫ আগস্ট বাংলাদেশ সময় সকাল ৭টায় সেন্ট লুসিয়া স্টারসের বিপক্ষে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলবে মিরাজের দল ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্স।

‌ওভালে ইংল্যান্ডের ঐতিহাসিক জয়

হ্যাটট্রিক করলেন মঈন আলি । গড়র হলো ইতিহাস। আর তাতে ওভাল টেস্ট ২৩৯ রানের বিশাল ব্যবধানে জিতে নিলো স্বাগতিক ইংল্যান্ড। সোমবার শেষদিনে তুলে নেওয়া এই জয়ে চার ম্যাচের এই সিরিজে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ২-১ এ এগিয়ে গেলো জো রুটের দল। ইংলিশদের সামনে থাকলো সিরিজ জয়ের সুযোগ। তবে প্রোটিয়াদের সামনে থাকছে সিরিজ ড্র করার সুযোগও। শেষ টেস্টে জিতলেই সিরিজ ড্র।
অফ স্পিনার মঈন আগেই ক্রিস মরিসের উইকেট নিয়েছিলেন। নিজের ১৫তম ওভারে রুখে দাঁড়ানো ডিন এলগার তার হ্যাটট্রিকের প্রথম শিকার। অষ্টম সেঞ্চুরি করা এলগার আগের দিন থেকে দলকে টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন প্রোটিয়াদের। অফ স্টাম্পের বাইরে ঝুলিয়ে দেওয়া ডেলিভারিটাকে ড্রাইভ করতে গিয়ে ফার্স্ট স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন এলগার। এই ক্যাচ নেওয়া বেন স্টোকসেরর হাতেই জমেছে পরের বলটি। কাগিসো রাবাদাকে শিকার করে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনার সামনে দাঁড়ান মঈন। পরের ওভারের জন্য অপেক্ষা।
এমন পরিস্থিতিতে অনেক হ্যাটট্রিক হয় না। কিন্তু রিভিউ সিস্টেমের কারণে বঞ্চিত হতে হয় না মঈনকে। নাটকীয় এক পরিস্থিতিতে হ্যাটট্রিকটা তুলে নেন তিনি। মঈনের ১৬তম ওভারের প্রথম বল। জোরের ওপর দেওয়া ডেলিভারিটি মিডল-লেগ স্টাম্প বরাবর ছিল। মরনে মর্কেল খেলতে পারলেন না। সোজা তার প্যাডে আঘাত করলো। ইংল্যান্ডের প্রবল আপিল। কিন্তু আম্পায়ার জোয়েল উইলসন আউট দিলেন না। ইংলিশরা রিভিউ নিল। রিপ্লেতে দেখা গেল বল লেগ স্টাম্পে আঘাত করছে। সিদ্ধান্ত পাল্টায়। মঈনের হ্যাটট্রিকে তাকে ঘিরে স্বাগতিকদের উৎসব শুরু হয়। এর সাথেই শেষ খেলা। ২৫২ রানে শেষ প্রোটিয়াদের দ্বিতীয় ইনিংস।
ঐতিহাসিক ওভালে এটি শততম টেস্ট। কিন্তু এর আগে ওভাল কখনো হ্যাটট্রিক দেখেনি। মঈন সেটা দেখালেন। স্টুয়ার্ট ব্রডের টেস্টে দুবার হ্যাটট্রিকের কীর্তি আছে। ১৯৩৮ সালের পর এই প্রথম কোনো ইংলিশ স্পিনার হ্যাটট্রিক করলেন। সেই বছর দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে হ্যাটট্রিক করেছিলেন টম গডার্ড।
৪৯১ রানের লক্ষ্য ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার। ৪ উইকেটে ১১৭ রান নিয়ে এই দিন শুরু তাদের। সামনে কঠিন পথ। জিততে আরো ৩৭৫ রান দরকার। হার এড়াতে টিকে থাকতে হবে ৩ সেশন। কিন্তু এদিন ৪০ ওভারের আগেই সব শেষ তাদের। এলগার জেদি ১৩৬ রানের ইনিংস খেলেছেন। ৩২ রান বাভুমার। এরপর মরিস ২৪ এবং মাহরাজ অপরাজিত ২৪ রানের ইনিংস খেলেন। ইংল্যােন্ডর ৩৫৩ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে দিক্ষণ আফ্রিকা ১৭৫ রানে অল আউট হয়েছিল। দ্বিতীয় ইনিংসে ইংলিশরা ৮ উইকেটে ৩১৩ রানে ইংনিংস ঘোষণা করে।

বরফ গলছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার

অবশেষে বরফ গলছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার। ক্রিকেটারদের দাবীর প্রতি সম্মান জানাতে রাজি হয়েছে তারা। আগামীকাল মঙ্গলবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া-সিএ ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন-এসিএ এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ ব্যাপারে যৌথ বিবৃতি দেবে বলে জানানো হয়।
তেমনটা হলে, অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ এবং ভারত সফর নিয়ে অনিশ্চয়তার কালো মেঘ কেটে যাবে। মেলবোর্নে আজ সিএ-র প্রধান নির্বাহী জেমস সাদারল্যান্ড ও এসিএ-র অ্যালিস্টার নিকোলসন এক বৈঠক শেষে এ কথা জানানো হয়। বেতন-ভাতা বৃদ্ধির জন্য গত কয়েক মাস ধরে সিএ ও এসিএ-র মধ্যে চলমান বিবাদের অবসান ঘটবে বলে মনে করা হচ্ছে। নতুন এমওইউ-তে খেলোয়াড়দের রাজস্ব ভাগের মডেল পাওয়া পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এবং তৃণমূল পর্যায়ে খেলা পরিচালনার জন্য আর্থিক সহায়তাও বাড়াতে পারে বলে জানা যায়।
১৮ আগস্ট দুই টেস্টের সিরিজের জন্য বাংলাদেশে আসার কথা অস্ট্রেলিয়া দলের। ১০ আগস্ট থেকে তাদের ডারউইনে ক্যাম্প শুরু করার কথা। কিন্তু গেল এক মাস ধরেই চুক্তি নিয়ে রশি টানাটানি হচ্ছে দুই পক্ষের মধ্যে। ক্রিকেটারদের পক্ষ থেকে বয়কট করা হয় অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফর। হুমকিতে ছিল ঠিক পরের সফর, বাংলাদেশে টেস্ট সিরিজ।
অস্ট্রেলিয়ার ডেইলি টেলিগ্রাফ জানায়, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জেমস সাডারল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট সংস্থার প্রধান নির্বাহী অ্যালিস্টেয়ার নিকোলসন চুক্তির গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোতে ঐকমত্যে পৌঁছেছেন। তারা মঙ্গলবার মেলবোর্নে একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলন করবেন। চুক্তি সংক্রান্ত সমঝোতার ঘোষণাটা সেখানেই আসবে বলে জানিয়েছে। এতে করে বাংলাদেশ সফর ও অ্যাশেজ বাঁচানো গেলো বলে তাদের ভাষ্য।
গত জুনে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া তাদের খেলোয়াড়দের জন্য নতুন চুক্তির প্রস্তাব দেয়। কিন্তু স্টিভেন স্মিথের দলের খেলোয়াড়রা এবং শীর্ষ ক্রিকেটাররা তা মানেননি। তাদের দাবি, এতে করে রাজস্ব ভাগাভাগিতে বৈষম্য আসছে। শীর্ষ ক্রিকেটারদের আয় বাড়বে কিন্তু তৃণমূলের ক্রিকেটারদের আয় কমবে। সুতরাং তারা ৩০ জুন পর্যন্ত চুক্তিতে সই করার ডেডলাইন মানেননি। তাতে ১ জুলাই থেকে অস্ট্রেলিয়ার ২৩০ ক্রিকেটার বেকার। বোর্ডের সাথে খেলোয়াড় সংস্থার বিরোধ আরো জমে ওঠে দুই পক্ষই একে অন্যের প্রস্তাব বাতিল করলে। কিন্তু সব ভোগান্তি শেষে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট শান্তির মধ্যে ফিরছে বলা যায়।

উন্নত চিকিৎসার জন্য সুজনকে রাতে সিঙ্গাপুর নেয়া হবে

উন্নত চিকিৎসার জন্য সাবেক অধিনায়ক ‌ও বিসিবি পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজনকে আজ সোমবার রাতে সিঙ্গাপুর নেয়া হবে। ইউনাইটেড হাসপাতালে তাকে দেখতে গিয়ে এবং চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে এমনটাই জানান, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।
এদিকে, আগের চেয়ে কিছুটা উন্নতি হলেও জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও বিসিবির পরিচালক খালেদ মাহমুদ সুজনের অবস্থা এখনো আশঙ্কামুক্ত নয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শে রোগীকে তাঁর মস্তিষ্কের এমআরআই পরীক্ষা করানো হচ্ছে। যদিও এখনো তিনি তন্দ্রাচ্ছন্ন অবস্থায় রয়েছেন। তবে কিছুটা সাড়াও দিচ্ছেন খালেদ মাহমুদ সুজন। রোববার দুপুরে সেভেরি রেসপিরেটরি ডিসট্রেস-এর কারণে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় তাঁকে।

পঞ্চম দিনে মাঠে নামবে ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা

ক্রিকেট
ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা
তৃতীয় টেস্ট, পঞ্চম দিন
সরাসরি, বিকাল ৪টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ১
শ্রীলংকা-ভারত
প্রথম টেস্ট
পুনঃপ্রচার, সন্ধ্যা ৭.৩০ মি.
সনি সিক্স

ফুটবল
ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপ
রিয়াল মাদ্রিদ-বার্সেলোনা
পুনঃপ্রচার, রাত ৯টা
টেন ২

হারের সামনে দক্ষিণ আফ্রিকা

জিততে হলে দক্ষিণ আফ্রিকাকে করতে হতো রেকর্ড ৪৯২ রান। তবে উল্টো চতুর্থ দিনের শেষ সেশনে প্রথম সারির চার ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে হারের সামনে সফরকারী দলটি। দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৪ উইকেটে ১১৭ রান। ডিন এলগার ৭২ ও টেম্বা বাভুমা ১৬ রানে অপরাজিত আছেন। ম্যাচ বাঁচাতে কাটিয়ে দিতে হবে পুরো একটি দিন আর জিততে এখনও করতে হবে ৩৭৫ রান।

৪৯২ রানের পাহাড়সম লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুতেই কুনকে হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। ব্যক্তিগত ১১ রান করে ব্রডের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন এই ওপেনার। এরপর দ্রুত আমলাকে ফিরিয়ে দেন অভিষেকে পাঁচ উইকেট নেওয়া পেসার টবি রোল্যান্ড-জোন্স। দলীয় ৫৪ রানে স্টোকসের পরপর দুই বলে ডি কক ও ডু প্লেসি সাজঘরে ফিরলে বিপদে পড়ে প্রোটিয়া শিবির। তবে বাকি সময়ে ৬৫ রানের জুটি গড়ে এলগার ও বাভুমা ক্ষতি হতে দেননি।

এর আগে ১ উইকেটে ৭৪ রান নিয়ে খেলা শুরু করে ইংল্যান্ড। দুই সেশন খেলে ৮ উইকেটে ৩১৩ রানে দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে তারা। চার ম্যাচ সিরিজে এখন ১-১ সমতায় আছে দুই দল।

এমআরআই রিপোর্ট ভালো, রাতে সুজনকে সিঙ্গাপুর পাঠানো হবে

আগেই জানা খালেদ মাহমুদ সুজনের শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। আজ সকালে তার লাইফ সাপোর্ট খুলে নেওয়া হয়। তারপর সকাল সাড়ে দশটায় এমআরআই করানো হয়। সর্বশেষ খবর, তার এমআরআই রিপোর্ট ভালো। এ খবর জানিয়ে বিসিবি পরিচালক ও মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস জাগো নিউজকে বলেন, ‘এমআরআই রিপোর্টে খারাপ কিছু পাওয়া যায়নি। এক কথায় রিপোর্ট ভালো। তবে এরপরও উন্নত চিকিৎসার জন্য আমরা (বিসিবি) সুজনকে সিঙ্গাপুরে পাঠানোর ব্যবস্থা করছি। আজ রাতেই এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে সিঙ্গাপুর পাঠানো হবে।’

শারীরিক অসুস্থতার কারণে খালেদ মাহমুদ সুজন রোববার বোর্ড মিটিংয়ে উপস্থিত হতে পারেননি। গতকাল (রোববার) সকাল থেকেই শরীর খারাপ থাকলেও বিকেলে অবস্থা খারাপ হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ডাক্তার ইকবালের অধীনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন। সন্ধ্যায় তার বড় ভাই ইয়াফি বিষয়টি বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকে জানান। বোর্ড সভা শেষে বিসিবির সভাপতিসহ বোর্ডের অন্যান্য পরিচালকরা তাকে দেখতে ছুটে যান ইউনাইটেড হাসপাতালে।

‘চাচা’ খ্যাত জাতীয় দলের প্রাক্তন অধিনায়ক বোর্ডের অত্যন্ত প্রিয়মুখ। তিনি শুধু জাতীয় দলের ম্যানেজারই নন, বিসিবি পরিচালক এবং গেম ডেভেলপমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান। একই সঙ্গে ঢাকা আবাহনীর কোচ। এছাড়া বিপিএল ঢাকা ডাইনামাইটসেরও কোচের দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

উল্লেখ্য, শনিবার ওয়ালটন মাস্টার্স ক্রিকেট কার্নিভালের দ্বিতীয় আসরে অংশ নিয়ে কক্সবাজার থেকে ঢাকায় ফিরেন খালেদ মাহমুদ। র-নেশন ঢাকা মেট্রো মাস্টার্সকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।

সেপ্টেম্বরে বিসিবি-র এজিএম

কোর্টের রায়ের কপি এখনও হাতে পায়নি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি)। তবে মামলা রায়ের যা শুনেছে তাতে এজিএম, ইজিএম ও গঠনতন্ত্রের পরিবর্তন করতে পারবে তারা। আর তাই আগামী সেপ্টেম্বরের প্রথম দুই সপ্তাহের মধ্যেই এজিএম ও ইজি এম করবে বিসিবি। এমনটাই জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।
রববার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের বিসিবি কার্যালয়ে এক গুরুত্বপূর্ণ সভা শেষে পাপন বলেন, ‘আমরা এখনও কোর্টের রায়ের কপি হাতে পাইনি। তবে জেনেছি মামলা নিষ্পত্তি হয়ে গেছে। আমরা এজিএম ও ইজিএম করতে পারবো। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি আগামী সেপ্টেম্বরের প্রথম দুই সপ্তাহের মধ্যেই এজিএম ও ইজিএম করবো আমরা।’
২০১৩ সালের ২৭ জানুয়ারি বিসিবি সংশোধিত গঠনতন্ত্র অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। পরে সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে বিসিবি। বুধবার বিসিবির গঠনতন্ত্র সংশোধন বৈধ ঘোষণা করে রায় দেয় সুপ্রিম কোর্ট । রবিবারের সভায় নির্বাচনের একটি রোডম্যাপ তৈরি করে বিসিবি।

ক্রিকেট নির্বাচকদের মেয়াদ বাড়লো আরও এক বছর

গত কয়েক বছরে দারুণ বদলে গেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। মাঠের কাজটা ক্রিকেটাররা করলেও নির্বাচক প্যানেলের অবদানও অনস্বীকার্য। তাই তাদের কাজে সন্তুষ্ট হওয়ায় জাতীয় ক্রিকেট দলের নির্বাচক প্যানেলের মেয়াদ বেড়েছে আরও এক বছর। মেয়াদ বেড়েছে বয়স ভিত্তিক নির্বাচক প্যানেলেরও। তবে বয়সভিত্তিক নির্বাচক থেকে একজন জাতীয় নির্বাচক হতে পারেন বলে জানান বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।
রবিবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বোর্ডের নানা গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে আলোচনা সভা করে বিসিবি পরিচালকরা। সভা শেষে নির্বাচক প্যানেল নিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘নির্বাচক প্যানেলের মেয়াদ আমরা আরও এক বছর বাড়িয়েছি। তবে জুনিয়র লেভেল থেকে একজন সিনিয়র লেভেলে আসতে পারে।’
গত বছরের জুনে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক পদ থেকে ফারুক আহমেদ পদত্যাগ করার পর বড় রদবদল হয় নির্বাচক প্যানেলে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাচকের দায়িত্ব দেয়া হয় জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুকে। তিন সদস্যের নির্বাচক প্যানেলে আগে থেকেই ছিলেন হাবিবুল বাশার। সঙ্গে বয়সভিত্তিক নির্বাচক থেকে যোগ দেন সাজ্জাদ আহমেদ শিপন।
আর বয়সভিত্তিক দলের প্রধান নির্বাচক হিসেবে আছেন হাসিবুল হোসেন শান্ত। তার সঙ্গে আরও দুই নির্বাচক এহসানুল হক সেজান ও হান্নান সরকার। বিসিবিতে জোর গুঞ্জন চলছে সেজান জাতীয় নির্বাচক প্যানেলে ঢুকতে যাচ্ছেন। সেক্ষেত্রে শিপনকে হয়তো বয়সভিত্তিক দলের নির্বাচক হিসেবে ফিরিয়ে আনা হবে।

অজিদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজ হবে: সাকিব

বোর্ডের সঙ্গে চলমান সমস্যা সমাধান করে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল বাংলাদেশ সফরে আসবে বলে প্রত্যাশা, টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে আজ রবিবার সাকিব বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া দলের সফর দিয়েই আমাদের মৌসুম শুরু হবে। আশা করি, অস্ট্রেলিয়া আসবে এবং তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ একটা সিরিজ হবে।’
বোর্ডের সাথে দেনা-পাওনা নিয়ে ঝামেলা থাকায় অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর নিয়ে এখনও ধোয়াশা কাটেনি। বোর্ডের সঙ্গে চুক্তি না হলে শুধু বাংলাদেশ সফর নয়, ভারত সফর এবং অ্যাশেজ সিরিজও বয়কট করার হুমকি দিয়ে রেখেছেন অসি ক্রিকেটাররা।

তবে অস্ট্রেলিয়া দল না আসলে বাংলাদেশের বড় ক্ষতি হবে মনে করা বিশ্ব সেরা এ অলরাউন্ডার বলেন, ‘আগে অস্ট্রেলিয়া আসুক। বড় একটা বিরতি গেলো। আশা করি, অস্ট্রেলিয়া আসবে এবং ভালো একটা সিরিজ হবে। তারা যদি না আসে, তাহলে সরাসরি দক্ষিণ আফ্রিকা গিয়ে খেলতে হবে। আর সেখানে আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জটা কঠিন হয়ে যাবে।’
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজে নিজের ৫০তম টেস্ট খেলার পথে থাকা সাকিব বলেন, ‘গত কিছুদিন ধরে আমরা বেশ কিছু টেস্ট খেলেছি। নতুবা এখন আমার ৩০ টেস্ট সংখ্যা থাকতো। সে হিসেবে মনে হয় ঠিক আছে! আশা করি অস্ট্রেলিয়া আসবে, আমিও ফিট থাকবো এবং ভালো একটা সিরিজ হবে।’
প্রতিটি সিরিজের আগে কন্ডিশনিং ক্যাম্প অত্যন্ত জরুরি বলে মনে করেন সাকিব। তিনি বলেন, ‘প্রতিটি সিরিজের পর যদি দুই-তিন সপ্তাহের ব্রেক হয়, কন্ডিশনিং ক্যাম্প করা যায়, তাহলে খেলোয়াড়দের জন্য ভালো হয়। এতে ফিটনেস বা ব্যক্তিগত বিভিন্ন ভুল-ত্রুটি নিয়ে নানা কাজ করা যায়। তখন একজন খেলোয়াড় তার ত্রুটিপূর্ণ ব্যাপারগুলো চিহ্নিত করে কাজ করতে পারেন। খেলার মধ্যে থাকলে এগুলো করা যায় না।’
অস্ট্রেলিয়া সিরিজে আরও ভালো ক্রিকেট খেলার ইচ্ছা পোষণ করলেন সাকিব, ‘অবশ্যই উন্নতি চাইবো। গত বছরের তুলনায় আরও ভালো করতে চেষ্টা করবো। উন্নতির তো শেষ নেই। যে জায়গাগুলোতে এখনো আমার মন মতো অনেক কিছু হয়নি। এ সিরিজে আরও ভালো করতে চাই।’

ভিসা জটিলতার কারণে সাকিব এখনও ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ বা সিপিএলে খেলতে দেশ ছাড়তে পারেননি। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামীকাল সোমবার সন্ধ্যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের পথে রওনা হওয়ার কথা বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারের। বাংলাদেশের অন্যতম অভিজ্ঞ ক্রিকেটার হলেও এবারের সিপিএলে নতুন অভিজ্ঞতা অর্জনের সংকল্প সাকিবের। তিনি বলেন, ‘আইপিএলে প্রতি দলে ১০ জন বিদেশি খেলোয়াড় থাকে। এ কারণে সেখানে প্রতিযোগিতা বেশি হয়। প্রতি দলে চার জনের বেশি বিদেশি খেলার সুযোগ পায় না। তাই ভালো খেললেও পরের ম্যাচে কম্বিনেশনের কারণে দল থেকে বাদ পড়তে হয় কোনো কোনো বিদেশিকে। কিন্তু সিপিএল বা পিএসএলে চার বিদেশি মোটামুটি নির্দিষ্ট থাকে। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে তাদের পরিবর্তন করা হয় না। এছাড়া আর কোনও পার্থক্য আমি দেখি না। সব জায়গার পরিবেশ এবং খেলার মান ভালো।’
গতবারের মতো এবারও সিপিএলে সাকিবের দল জ্যামাইকা তালাওয়াস। সিপিএলে এর আগে তিন মৌসুম খেললেও এবারের প্রতিযোগিতা নিয়ে সাকিব যথেষ্ট রোমাঞ্চিত। সাকিব বলেন, ‘প্রতিটি টুর্নামেন্টেই নতুন নতুন অভিজ্ঞতা হয়। মজা থাকে, রোমাঞ্চ থাকে। গত ১০-১৫ বছর ধরে ক্রিকেট খেলছি। যেখানেই খেলি, ভালো লাগে। এই কারণেই খেলে যাচ্ছি। অন্য টুর্নামেন্টের চেয়ে এখানকার পরিবেশ অন্যরকম। খেলার সময় সবাই সিরিয়াস থাকে। কিন্তু মাঠের বাইরে নির্ভার থাকে সবাই। ক্যারিবিয়ানে অনেক সুন্দর-সুন্দর জায়গা আছে। তাই সব কিছু মিলে ওখানে খেলাটা অনেক বেশি উপভোগ্য।’
এবারের সিপিএলে বাংলাদেশ থেকে শুধু সাকিব ও মিরাজ খেলার সুযোগ পেয়েছেন। তবে সাকিবের ধারণা, অস্ট্রেলিয়া সিরিজ না থাকলে সিপিএলে আরও কয়েকজন বাংলাদেশিকে দেখা যেতো এবার, ‘এ বছর পুরো টুর্নামেন্ট খেলার সুযোগ থাকলে বাংলাদেশ থেকে আরও কয়েকজন যেতে পারতো। দুই-একজনের নাম আলোচনাও হচ্ছিল। কিন্তু আমাদের তো খেলা আছে, সফরকারী দল কবে আসবে তা ফিক্সড থাকে। তাই অন্যদের প্রতি আগ্রহ দেখায়নি সিপিএলের দলগুলো।’
সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ১৮ আগস্ট বাংলাদেশ সফরে আসার কথা অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের। আর ঢাকা ও চট্টগ্রামে দু’টি টেস্ট খেলবে সফরকারীরা।

বিকেলে মাঠে নামবে ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা

ক্রিকেট
ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা
তৃতীয় টেস্ট, চতুর্থ দিন
সরাসরি, বিকাল ৪টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ১

ফুটবল
ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপ
রোমা-জুভেন্টাস
সরাসরি, রাত ২টা
টেন ২

টেনিস
আল্টিম্যাট টেবিল টেনিস
সরাসরি, রাত ৮.১০ মি.
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট এইচডি ২

সেরা বাঙালির পুরস্কার নিলেন মাশরাফি

‘আনন্দবাজার সেরা বাঙালি-২০১৭’ এর পুরস্কার গ্রহণ করলেন মাশরাফি। শনিবার রাতে কলকাতায় এক জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে টাইগার এই অধিনায়কের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ভারতীয় নারী ক্রিকেটার ও মেয়েদের ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারি ঝুলন গোস্বামী।

মাশরাফির হাতে পদক তুলে দেওয়ার আগে তার ক্রিকেট পরিসংখ্যান নিয়ে একটি ভিডিও চিত্র প্রদর্শন করা হয়। যেখানে মাশরাফিকে সৌরভ গাঙ্গুলির পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সবচেয়ে সফল বাঙালি হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

গত দুই বছর ধরে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে বাংলাদেশ। টাইগারদের উন্নতি চোখে পড়ার মতোই। নিজেদের গড়ে তুলেছে ‘টিম বাংলাদেশ’ হিসেবে। আর সেটা সম্ভব হয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজা নামক জিয়নকাঠির ছোঁয়ায়! তার নেতৃত্বে ২০১৫ সালে বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছিল বাংলাদেশ।

এবার তারই অধীনে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে খেললেন টাইগাররা। আইসিসির বৈশ্বিক আসরে প্রথমবারের মতো সেমিতে খেলার কৃতিত্ব দেখাল বাংলাদেশ। তারই স্বীকৃতি পেলেন নড়াইল এক্সপ্রেস। ‘আনন্দবাজার সেরা বাঙালি-২০১৭’- এর সেরা খেলোয়াড় হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি।

প্রসঙ্গত, এর আগে বাংলাদেশের দুজন কীর্তিমান ক্রিকেটার ‘আনন্দবাজার সেরা বাঙালি’- এর সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন। তারা হলেন- হাবিবুল বাশার ও সাকিব আল হাসান। হাবিবুল বাশারের হাতে এ পুরস্কার উঠেছিল ২০০৯ সালে। আর সাকিব জিতেছিলেন ২০১২ সালে।

বড় লিডের পথে ইংল্যান্ড

অভিষেকেই ইংল্যান্ডের হয়ে পাঁচ উইকেট তুলে নিলেন টবি রোল্যান্ড। তার দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়টায় তৃতীয় দিন শেষে প্রোটিয়াদের থেকে স্বাগতিকরা এগিয়ে ২৫২ রানে। বৃষ্টির দাপটে এদিন খেলা কম হয়েছে ৫৮.৪ ওভার।

প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের করা ৩৫৩ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে দ্বিতীয় দিন দারুণ বিপদে পড়ে প্রোটিয়ারা। ১২৬ রান তুলতেই ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলে তারা। সেখান থেকে ভাবুমা কিছুক্ষণ ঠেকিয়ে রেখেছিলেন ইংল্যান্ডের বোলারদের। ৫২ রানে শেষ পর্যন্ত আউট হন বাভুমা। মরনে মরকেল ১৭ রানে ফিরলে ১৭৫ রানেই শেষ দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস। ভারনন ফিল্যান্ডার অপরাজিত থেকে যান ১০ রানে।

টবি রোল্যান্ড জোন্স ৫৭ রানে ৫ উইকেট নেন। জেমস অ্যান্ডারসন ২৫ রানে নেন ৩ উইকেট। ১টি করে উইকেট নেন স্টুয়ার্ট ব্রড এবং বেন স্টোকস।

বৃষ্টির বাধায় দ্বিতীয় ইনিংসে লিড খুব একটা বাড়িয়ে নিতে পারেনি জো রুটের দল। ২১.২ ওভার ব্যাট করার সুযোগ পেয়ে তারা অ্যালেস্টার কুককে হারিয়ে সংগ্রহ করেছে ৭৪ রান। তৃতীয় দিন শেষে ইংল্যান্ড এগিয়ে ২৫২ রানে।

এখনই টেস্ট থেকে অবসর নয়: মোহাম্মদ আমির

সংক্ষিপ্ত ভার্সনে ক্যারিয়ারকে দীর্ঘায়িত করতে আমির টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর কথা ভাবছেন বলে কিছু দিন আগে বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদে বলা হয়েছিল। তবে এবার নিজেই এ ধরনের গুঞ্জনের অবসান ঘটালেন পাকিস্তানের বাঁ-হাতি এই পেসার।
আমির বলেন, ‘এ ধরনের গুজবের ভিত্তি কি আমি জানিনা। আমি ফিট, সামর্থ্যবান, আমার স্বাস্থ্যগত কোন সমস্যা নেই এবং ক্রিকেটের কোন ভার্সন থেকে এখনই অবসর নেয়ার কোন ইচ্ছে আমার নেই। ইতোপূর্বে আমি বলেছিলাম, একজন ক্রিকেটার হিসেবে আপনাকে নিজের শরীরের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে এবং ফিটনেস লেবেল নিয়ে সজাগ থাকতে হবে। আমার এমন বক্তব্যকেই কেউ কেউ আমি টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিতে চাই বলে গুঞ্জন ছড়িয়েছে।’
তিনি আরো বলেন, ‘এটা একদম মিথ্যা এবং যত দিন পর্যন্ত ফিট থাকব ততদিন আমি সব ভার্সনেই খেলতে চাই।’
২০১০ সালে পাকিস্তান দলের ইংল্যান্ড সফরে লর্ডস টেস্টে ইচ্ছাকৃত নোবল করে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় আমির, তার তৎকালীন অধিনায়ক সালমান বাট এবং আরেক পেসার মোহাম্মদ আসিফ পাঁচ বছরের জন্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হন।
নিষিদ্ধাদেশ কাটিয়ে গত বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরে পাকিস্তানের হয়ে এ পর্যন্ত ১৪ টেস্টে ৪৩ উইকেট শিকার করেছেন আমির। যা তার অসাধারণ প্রত্যাবর্তনের প্রমাণ পাওয়া মেলেনা।
তবে বাঁ-হাতি এ বোলার জানান, তিনি নিজের সেরা ফর্মে ফেরার আভাস পাচ্ছেন।
তিনি বলেন, নিষিদ্ধ থাকার সময় এমনকি তিনি একটা বল পর্যন্ত স্পর্শ করতে পারেননি এবং সমর্থকরা আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পর তাৎক্ষণিক একটা প্রভাব বিস্তারের প্রত্যাশা করছিলেন।
বর্তমানে পাকিস্তানের সেরা এ পেসার বলেন, ‘যা ছিল অসম্ভব একটা কাজ এবং আমি ফেরার পর সমালোচকরা সরাসরি আমাকে বাদ দিতে চেয়েছিলেন।’
তিনি আরো বলেন, ‘আমি ফিরেছি দেড় বছর হলো এবং আমি মনে করছি কঠোর পরিশ্রমের ফল আমি দেখাতে শুরু করেছি। জনগণকে ধৈর্য্য ধরতে হবে এবং সব কিছু শুরু করতে আমাকেও ধৈর্য্য ধরতে হয়েছে।’

স্টোকসের সেঞ্চুরির পর ধুঁকছে দক্ষিণ আফ্রিকা

বেন স্টোকসের সেঞ্চুরিতে বড় পুঁজি পেয়েছে ইংল্যান্ড। নিজেদের প্রথম ইনিংসে স্বাগতিকরা সবকটি উইকেট হারিয়ে তুলেছে ৩৫৩ রান। জবাবে ব্যাট করতে নেমে রীতিমতো ধুঁকছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

ইংলিশ বোলারদের তোপে কোণঠাসা হয়ে পড়েছে ফাফ ডু প্লেসিসের দল। ওভাল টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৮ উইকেটে ১২৬ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়েছে প্রোটিয়ারা। ইংল্যান্ডের চেয়ে এখনও ২২৭ রানে পিছিয়ে সফরকারী দল।

দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটিংয়ের শুরুটাই ছিল বাজে। ডিন এলগার ৮ রান করতেই ফিরে যান প্যাভিলিয়নে। আরেক ওপেনার হেইনো কুক থেমেছেন ১৫ রানে। হাশিম আমলার ব্যাট থেকে এসেছে মাত্র ৬ রান। কুইন্টন ডি ককের অবদান ১৭। এই চার ব্যাটসম্যানকে সাজঘরের পথ দেখান অভিষিক্ত রোল্যান্ড-জোন্স।

অধিনায়ক ডু প্লেসিস তো নামের প্রতি সুবিচারই করতে পারেননি। ১ রান করতেই জেমস অ্যান্ডারসনের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন। ক্রিস মরিস (২) ও কেশব মহারাজ (৫) ছুঁতে পারেননি দুই অঙ্ক।

পেসার কাগিসো রাবাদা করেছেন ৩০ রান। টেম্বা বুভুমা ৩০ রানের অপরাজিত আছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার আরেক অপরাজিত ‘ব্যাটসম্যান’ মরনে মরকেল। ৮ বলে করেছেন ২ রান।

১১ ওভারে ৩টি মেডেনসহ ৩৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিয়েছেন রোল্যান্ড-জোন্স। জেমস অ্যান্ডারসন পকেটে জমা করেছেন দুটি। আর একটি করে উইকেট লাভ করেছেন স্টুয়ার্ট ব্রড ও বেন স্টোকস।

এর আগে ইংল্যান্ডের পক্ষে সর্বোচ্চ ১১২ রানের ইনিংস খেলেন স্টোকস। সাবেক অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুক করেন ৮৮ রান। আর কোনো ব্যাটসম্যান ফিফটি করতে পারেননি। জনি বেয়ারস্টো করেছেন ৩৬ রান।

ইংলিশ অধিনায়ক জো রুটের ব্যাট থেকে আসে ২৯ রান। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে তিনটি করে উইকেট নেন মরনে মরকেল ও কাগিসো রাবাদা। ভারনন ফিল্যান্ডার নিয়েছেন দুটি। ক্রিস মরিস ও মহারাজ নিয়েছেন একটি করে উইকেট।

চট্টগ্রামেও হবে মুশফিকদের অনুশীলন

অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল বাংলাদেশ সফরে আসবে কিনা, তা নিয়ে রয়েছে শঙ্কা। বেতন-ভাতা নিয়ে বনিবনা না হলে সফরটি বাতিল করতে পারেন স্টিভেন স্মিথ, ডেভিড ওয়ার্নাররা। তবে অস্ট্রেলিয়া আসুক আর না-ই আসুক, প্রস্তুতিটা সেরে রাখতে চায় বাংলাদেশ।

ঢাকায় অনুশীলন করছেন মুশফিকুর রহীম, সাব্বির রহমান, মোস্তাফিজুর রহমানরা। সূচি অনুযায়ী নিজেদের ঝালিয়ে নেয়ার কাজটা চালিয়ে যাচ্ছেন চণ্ডিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যরা।

এবার চট্টগ্রামেও অনুশীলন করবেন টাইগাররা। ৪ আগস্ট থেকে সপ্তাহখানেকের জন্য ক্যাম্প হবে। কারণ সেখানেও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে একটি টেস্ট খেলবেন মুশফিকরা। চট্টগ্রামের উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নিতেই এই উদ্যোগ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি)। এমনটাই জানিয়েছেন বোর্ডের ক্রিকেট অপারেশন্স বিভাগের চেয়ারম্যান আকরাম খান।

মাস্টার্স কার্নিভাল উপলক্ষে কক্সবাজারে রয়েছেন আকরাম খান। সেখানে সাংবাদিকদের বলেন, ‘চট্টগ্রামে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে একটা টেস্ট খেলব আমরা। তাই সেখানে আরও বেশি অভ্যস্ত হওয়ার দরকার। ঘরের মাঠের সুযোগ হাতছাড়া করা উচিত নয়। চট্টগ্রামের উইকেটের সঙ্গে মানিয়ে নেয়া ও কন্ডিশনের সঙ্গে আগেভাগে অভ্যস্ত হয়ে ওঠাই লক্ষ্য।

কোহলির সেঞ্চুরিতে শ্রীলঙ্কার লক্ষ্য ৫৫০ রান

তৃতীয় দিনেই ৪৯৮ রান এগিয়ে ছিল ভারত। অপেক্ষা ছিল বিরাট কোহলির সেঞ্চুরির। ৭৬ রানে অপরাজিত ছিলেন ভারত অধিনায়ক। আজ সেঞ্চুরিটা পেয়ে গেলেন কোহলি। টেস্টে ক্যারিয়ারে এটি তার ১৭তম শতক।

কোহলির সেঞ্চুরিতে ভর করে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ৩ উইকেটে ২৪০ রান তোলে ভারত। এরপরই ইনিংস ঘোষণা করে সফরকারীরা। আর তাতে গল টেস্ট জয়ের জন্য শ্রীলঙ্কার সামনে লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ৫৫০ রানের।

৩ উইকেটে ১৮৯ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে ভারত। আজ আর কোনো উইকেট হারায়নি সফরকারীরা। ৫১ রান যোগ করেই ইনিংস ঘোষণা করে তারা। বিরাট কোহলি ১০৩ রানে অপরাজিত থাকেন। আর আজিঙ্কা রাহানের হার না মানা ইনিংসটি ২৩ রানের।

এর আগে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে দ্রুত গতিতে রান তোলার চেষ্টা করে ভারত। ওয়ানডে স্টাইলে ব্যাট করেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান শিখর ধাওয়ান। ১৪ বলে ৩টি চারের সাহায্যে ১৪ রান করতেই ধাওয়ান ধরাশায়ী হন দিলরুয়ান পেরেরার কাছে।

প্রথম ইনিংসের আরেক সেঞ্চুরিয়ান চেতেশ্বর পুজারাও সুবিধা করতে পারেননি। থেমেছেন ১৫ রানে। তাকে প্যাভেলিয়নের পথ দেখান লাহিরু কুমারা। অভিনব মুকুন্দ ৮১ রান করে গুনাথিলাকার শিকারে পরিণত হন।

প্রসঙ্গত, শিখর ধাওয়ানের ১৯০ এবং চেতেশ্বর পুজারার ১৫৩ রানের ওপর ভর করে প্রথম ইনিংসে ৬০০ রানের বিশাল স্কোর গড়ে ভারত। জবাব দিতে নেমে ২৯১ রানে অলআউট শ্রীলঙ্কা। ৩০৯ রানে এগিয়ে থেকেও স্বাগতিকদের ফলোঅন করাননি কোহলিরা। নেমে পড়েন নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসের জন্য ব্যাট করতে।

পঁচিশেই আমিরের অবসর!

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসেছিলেন চমক নিয়েই। ১৭ বছর বয়সেই তো বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানের ঘুম হারাম করে দিয়েছিলেন মোহাম্মদ আমির। তার এই সাফল্য আর কীর্তিতে কলঙ্কের তিলক লাগে লর্ডস টেস্টে স্পট-ফিক্সিংয়ের সঙ্গে নাম জড়িয়ে।

ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িয়ে জেলেও যেতে হয়েছিল আমিরকে। ক্রিকেটে নির্বাসিত ছিলেন দীর্ঘ ৫ বছর। লর্ডস টেস্ট দিয়েই আবার ফিরেছেন টেস্ট ক্রিকেটে। আমিরের বয়স এখন পঁচিশ বছর। এই বয়সেই নাকি টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিচ্ছেন। এমন গুঞ্জনই চাউর হয়েছে।

মিডিয়ার এমন খবরে রীতিমতো চটেছেন আমির। গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘এমন হাস্যকার কাহিনী বানানোর নেপথ্যে মানুষের কী উদ্দেশ্য; তা আমার জানা নেই। আমি একজন সুস্থ-সবল ও পুরোপুরি ফিট ক্রিকেটার। কোনো ফরম্যাটই ছাড়ার পরিকল্পনা নেই আমার। কেউ হয়তো ভুয়া খবর দিয়েছে। আমার নাম দিয়ে বলেছে, আমি নাকি টেস্ট ক্রিকেট ছাড়ছি!’

প্রসঙ্গত, ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয় আমিরের। এখন পর্যন্ত ২৮টি টেস্ট খেলেছেন তিনি। নামের পাশে যোগ করেছেন ৯৪টি উইকেট। ৩৬টি ওয়ানডে খেলা আমির পকেটে পুরেছেন ৫৫ উইকেট। ৩১টি টি-টোয়েন্টি খেলে উইকেট নিয়েছেন ৩৪টি।

সিপিএলে খেলতে আজ ঢাকা ছাড়ছেন সাকিব

ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (সিপিএল) খেলতে একদিন আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজে গেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ২৭ জুলাই ঢাকা ছেড়েছেন তিনি। শাহরুখ খানের মালিকানাধীন ট্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের হয়ে খেলবেন ১৯ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার।

বাংলাদেশের আরেক অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও খেলবেন সিপিএলে। তার দল- জ্যামাইকা তালওয়াশ। সিপিএলে খেলতে আজ রাতে ঢাকা ছাড়ছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

সিপিএলের পঞ্চম আসর মাঠে গড়াবে ৪ আগস্ট। পর্দা নামবে ১০ সেপ্টেম্বর। সবকটি ম্যাচ হয়তো খেলতে পারবেন না সাকিব-মিরাজ। কারণ সামনেই রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের টেস্ট সিরিজ। দুই ম্যাচের ওই টেস্ট সিরিজে অংশ নিতে হচ্ছে তাদের।

১৫ আগস্ট পর্যন্ত সিপিএলে খেলতে পারছেন সাকিব-মিরাজ। আর বেতন-ভাতা নিয়ে ঝামেলার কারণে অস্টেলিয়া দল বাংলাদেশ সফরে না আসলে সিপিএলের গোটা আসরই খেলতে আসতে পারছেন বাংলাদেশি এই দুই ক্রিকেটার।

যৌথ চ্যাম্পিয়ন এক্সপো অল স্টার্স ও একমি রাজশাহী

ওয়ালটন মাস্টার্স ক্রিকেট কার্নিভালের দ্বিতীয় আসরে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হলো এক্সপো অল স্টার্স ও একমি রাজশাহীকে।
জয়ের জন্য ১৩৫ রানের টার্গেটে ব্যাট করে, একমি রাজশাহী, ২ ওভারে ১ উইকেটে ২১ রান তোলার পর বৃষ্টিতে খেলা পন্ড হয়। পরে দুই দলকে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয়।
কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে, টস জিতে ব্যাট করে নির্ধারিত ওভারে ৩ উইকেটে ১৩৬ রান তোলে হাসিবুল হোসেন শান্তর দল। ২১ রানে মেহরাব হোসেন অপির বিদায়ের পর দ্বিতীয় উইকেটে এহসানুল হক সিজার ও রাশেদুল হক সুমন ৫৫ রানের জুটি গড়ে দলকে বড় স্কোরের পথে নিয়ে যান। দলে ৭৬ রানে সিজান ২৪ রান করে সাজঘরে ফেরেন। জহিরুল অল্প রানে বিদায় নিলে, মাসুদুর রহমান মুকুলকে নিয়ে আরো ৫৩ রান যোগ করে দলকে ১৩৪ রানের বড় সংগ্রহ এনে দেন সুমন। এরই মাঝে তিনি তুলে নেন ফিফটি। শেষ পর্যন্ত সুমন ৪২ বলে ৫৮ রানে অপরাজিত থাকেন। মুকুল করেন অপরাজিত ১৬ রান।

মাস্টার্স ক্রিকেটের ফাইনালে একমি রাজশাহী ও এক্সপো অল র্স্টাস

ওয়ালটন মাস্টার্স ক্রিকেট কার্নিভালের দ্বিতীয় আসরের ফাইনালে উঠেছে একমি রাজশাহী এবং এক্সপো অল স্টার্স। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ প্রথম সেমিফাইনালে একমি রাজশাহী ৩ রানে হারায় টাইটান্স খুলনাকে। আর এক্সপো অল স্টার্স ১৬ রানে বসুন্ধরা ঢাকাকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে।
কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে, আগে ব্যাট করে ৬ উইকেটে ৯২ রান তোলে একমি রাজশাহী। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৪ রান করেন অধিনায়ক খালেদ মাসুদ পাইলট। ১৭ রান আসে আলমগীর কবিরের ব্যাট থেকে। জবাবে, টাইটান্স খুলনা ৭ উইকেটে তোলে ৮৯ রান। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১৪ রান করেন পল্টু। অধিনায়ক হাবিবুল বাশার ১২ রান করেন। রাজশাহীর বোলারদের মধ্যে মঞ্জুরুল ইসলাম ও ম্যাচসেরা আলমগীর কবির ২টি করে উইকেট নিয়ে টাইটার্স খুলনার ধ্বস নামান। এদিকে, দ্বিতীয় সেমিফাইনালে, এক্সপো অল স্টার্স ১৬ রানে বসুন্ধরা ঢাকাকে হারিয়ে ফাইনালে ওঠে। প্রথমে ব্যাট করে, এহসানুল হক সেজানের ৪০ বলে ৬৪ রানের ঝড়ো ইনিংসে ৮ উইকেটে ১১৩ রানের বড় সংগ্রহ পায় এক্সপো অল স্টার্স। জবাবে, ৯৭ রানে অল আউট হয় বসুন্ধরা ঢাকা। আগামীকাল শনিবার সকাল ১০টায় শুরু হবে প্রতিযোগিতার ফাইনাল খেলাটি।

সকালে মুখোমুখি শ্রীলঙ্কা-ভারত

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ
আবাহনী-সাইফ স্পোর্টিং
সরাসরি, বিকেল ৪টা ৩০ মিনিট
বাংলা টিভি

শ্রীলঙ্কা-ভারত
প্রথম টেস্ট তৃতীয় দিন
সরাসরি, সকাল ১০টা ৩০ মিনিট
সনি সিক্স ও টেন ৩

ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা
তৃতীয় টেস্ট দ্বিতীয় দিন
সরাসরি, বিকেল ৪টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট ১ ও সিলেক্ট এইচডি ১

ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্ট
সাসেক্স-মিডলসেক্স
সরাসরি, রাত ১২টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট ২ ও সিলেক্ট এইচডি ২

বৃষ্টির বাধা সামলে কুক-স্টোকসের লড়াই

ওভালে বাগড়া বসায় বৃষ্টি। তার ফাঁকে যে ওভারগুলো (৫৯) মাঠে গড়িয়েছে, তাতে সংগ্রাম করতে হয়েছে ইংল্যান্ডকে। চড়ে বসেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার বোলাররা। বিশেষ করে অলরাউন্ডার ভারনন ফিল্যান্ডার দুর্দান্ত বোলিং করেছেন।

বৃষ্টির বাধা আর ফিল্যান্ডারকে সামলে লড়ে যাচ্ছেন অ্যালিস্টর কুক ও বেন স্টোকস। প্রথম দিন শেষে এই দুই ব্যাটসম্যান অপরাজিত আছেন। আর স্বাগতিক ইংল্যান্ডের প্রথম দিনের পুঁজি ৪ উইকেটে ১৭১ রান।

ওভালের শততম টেস্টে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে ইংল্যান্ড। কিটন জেনিংসকে রানের খাতাই খুলতে দেননি ফিল্যান্ডার। ৯ বল খেলে ফিরে গেছেন শূন্য হাতে। অভিষিক্ত টম ওয়েস্টলি থেমেছেন ২৫ রানে। তিনি শিকার ক্রিস মরিসের।

অধিনায়ক জো রুট সাবধানে পা ফেলছিলেন। তবে খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। পা ফসকে গেছে। ২৯ রান করতেই ফিল্যান্ডারের বলে কুইন্টন ডি ককের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়েছেন। ডেভিড মালানের ব্যাট থেকে এসেছে ১ রান।

দিন শেষে ইংল্যান্ডের ‘আশার ফুল’ হয়ে থাকলেন অ্যালিস্টার কুক। অপরাজিত আছেন ৮২ রানে। তাকে আজ সঙ্গ দেবেন বেন স্টোকস। ইংলিশ তারকা এই অলরাউন্ডার অপরাজিত আছেন ২১ রানে।

প্রথম দিনে দক্ষিণ আফ্রিকার সেরা বোলার ভারনন ফিল্যান্ডার। ১২ ওভারে ৫টি মেডেনসহ ১৭ রান দিয়ে পকেটে পুরেছেন দুই উইকেট। আর একটি করে উইকেট দখলে নিয়েছেন কাগিসো রাবাদা ও ক্রিস মরিস।

সেরার পুরস্কার নিতে কলকাতা যাচ্ছেন মাশরাফি

গত দুই বছর ধরে দুর্দান্ত ক্রিকেট খেলছে বাংলাদেশ। টাইগারদের উন্নতি চোখে পড়ার মতোই। নিজেদের গড়ে তুলেছে ‘টিম বাংলাদেশ’ হিসেবে। আর সেটা সম্ভব হয়েছে মাশরাফি বিন মর্তুজা নামক জিয়নকাঠির ছোঁয়ায়! তার নেতৃত্বে ২০১৫ সালে বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে খেলেছিল বাংলাদেশ।

এবার তারই অধীনে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে খেললেন টাইগাররা। আইসিসির বৈশ্বিক আসরে প্রথমবারের মতো সেমিতে খেলার কৃতিত্ব দেখাল বাংলাদেশ। তারই স্বীকৃতি পেলেন নড়াইল এক্সপ্রেস। ‘আনন্দবাজার সেরা বাঙালি-২০১৭’- এর সেরা খেলোয়াড় হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি।

বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় ‘সেরা’ বাঙালিদের পুরস্কার দিয়ে থাকে কলকাতাভিত্তিক দৈনিক আনন্দবাজার পত্রিকা। শনিবার জমকালো এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সেরাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হবে।

মাশরাফিও থাকছেন সেই অনুষ্ঠানে। সেই লক্ষ্যে আজ (শুক্রবার) বিকেলে কলকাতায় যাচ্ছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক। পুরো পরিবার নিয়েই সেখানে যাচ্ছেন মাশরাফি। ৩ আগস্ট দেশে ফেরার কথা।

প্রসঙ্গত, এর আগে বাংলাদেশের দুজন কীর্তিমান ক্রিকেটার ‘আনন্দবাজার সেরা বাঙালি’- এর সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন। তারা হলেন- হাবিবুল বাশার ও সাকিব আল হাসান। হাবিবুল বাশারের হাতে এ পুরস্কার উঠেছিল ২০০৯ সালে। আর সাকিব জিতেছিলেন ২০১২ সালে।

ওয়ার্নারদের ‘পজেটিভ রিপোর্ট’ দেবে বাংলাদেশে আসা প্রতিনিধি দল

দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে আগস্টে বাংলাদেশ সফরে আসছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দল। তার আগে বাংলাদেশ সফরে এসেছে তাদের প্রতিনিধি দল। নিরাপত্তা ব্যবস্থা তো থাকছেই। বিশেষ করে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি দল এবার পর্যবেক্ষণ করেছে আসন্ন সিরিজের লজিস্টিক সাপোর্ট।

ঢাকা ও চট্টগ্রাম ভেন্যু পরিদর্শন করে এবং আয়োজকদের সার্বিক নিরাপত্তা ব্যবস্থার ছক দেখে সন্তুষ্ট অস্ট্রেলিয়ার পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধি দল। অস্ট্রেলিয়ায় ফিরে গিয়ে বাংলাদেশের নিরাপত্তা ও লজিস্টিক সাপোর্ট নিয়ে স্মিথ-ওয়ার্নারদের ‘পজেটিভ রিপোর্ট’ দেবে প্রতিনিধি দলটি।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়াম পরিদর্শন করে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি দল। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার ম্যানস টিম ম্যানেজার গেভিন ডুভে সাংবাদিকদের বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর উপলক্ষে আয়োজকদের নিরাপত্তা ব্যবস্থার পরিকল্পনা দেখে আমরা সন্তুষ্ট। নিরাপত্তাজনিত কোনো বিষয় নিয়ে আমাদের আপত্তি নেই। দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজের জন্য ঢাকা ও চট্টগ্রামের ভেন্যুর প্রস্তুতি ও সার্বিক সুযোগ-সুবিধা দেখেও আমরা খুশি। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডকে ধন্যবাদ।’

‘ঘরের মাঠে টেস্ট সিরিজ আয়োজনে কোনো ধরনের কমতি রাখেনি বিসিবি। দেশে ফিরে আমরা অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফরের ব্যাপারে পজেটিভ রিপোর্টই দেব। আশা করছি, ঠিক সময়ই বাংলাদেশ সফরে আসবে স্মিথ-ওয়ার্নাররা। এই সফর নিয়ে কোনো বাধা দেখছি না।’- যোগ করেন গেভিন ডুভে।

অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধি দলটির সদস্যরা হলেন- ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সিনিয়র ম্যানেজার টিম অপারেশন্স অ্যাডাম ফ্রেশার, ম্যানস টিম ম্যানেজার গেভিন ডুভে, সিকিউরিটি অ্যান্ড অ্যান্টিকরাপশন ম্যানেজার শন ক্যারল, ম্যানস টিম সিকিউরিটি ম্যানেজার ফ্রাঙ্ক ডিমাসি এবং অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি নিকোলাস চার্লস পেলিসার কোটনি।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে ওই প্রতিনিধি দলের সঙ্গে ছিলেন ন্যাশনাল ম্যানেজার আবদুল বাতেন, ক্রিকেট অপারেশন্স ম্যানেজার সাব্বির খান, বিসিবির সিকিউরিটি প্রধান মেজর ইমাম এবং চট্টগ্রাম জহুর আহমদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের ভেন্যু ম্যানেজার ফজলে বারী খান রুবেল।

প্রসঙ্গত, দুটি ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল বাংলাদেশে আসার কথা ১৮ আগস্ট। টেস্ট মাঠে গড়ানোর আগে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া। প্রস্তুতি ম্যাচটা দুই দিনের। ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে এই ম্যাচটি গড়াবে ২২ আগস্ট। চলবে ২৩ আগস্ট পর্যন্ত।

টেস্টের লড়াইটা শুরু হবে ২৭ আগস্ট। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে গড়াবে প্রথম টেস্ট। ম্যাচটি শেষ হবে ৩১ আগস্ট। দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। ৪ সেপ্টেম্বর শুরু হয়ে চলবে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

পরের প্রজন্মের অনুপ্রেরণা ঝুলন-মিতালিরা

মহিলাদের ক্রিকেট বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ডের কাছেই হেরে রানার্স হয়ে ফিরছে ভারতের মেয়েরা। কিন্তু তা নিয়ে হতাশা থাকলেও কোনও আক্ষেপ নেই ক্রিকেটপ্রেমীদের। বরং ভারতের মেয়েরা দেশে ফিরে বিজয়ীর সম্মানই পেলেন। ছিল একরাশ আফসোস। একটাই শব্দ এতদিন ইকো হচ্ছিল সর্বত্র, ‘ইস্, অল্পের জন্য হল না।’
গত বুধবার তাঁদের বরণ করে নিতে এয়ারপোর্টেও হাজির হয়েছিল প্রচুর মানুষ। দেশের মেয়েদের সম্মান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘‘আমাদের মহিলা ব্রিগেড অসাধারণ খেলেছে। যে কোনও প্রশংসাই তাদের জন্য কম। রানার্স হলেও আমার মনে হচ্ছে মেয়েরা চ্যাম্পিয়ন হয়েই ফিরেছে। কারন ওরা মন জিতে নিয়েছে সবার।’’
এর মধ্যে ক্রীড়ামন্ত্রী তুলে এনেছেন রিও অলিম্পিক্স থেকে প্যারালিম্পিক্স, হকি থেকে কুস্তি, ব্যাডমিন্টনে ভারতের মেয়েদের সাফল্যের কথা। ভারতের মেয়েরা যে ভাবে বিশ্ব ক্রীড়া জগতে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন তার প্রশংসাও করেছেন তিনি।
তাঁর মতে, ভারতের মেয়েদের এই খেলা ফিফা অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল বিশ্বকাপকেও অনুপ্রাণিত করবে। তিনি এও জানিয়ে দিয়েছেন, ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের দরজা ক্রীড়াবিদদের জন্য ২৪ ঘণ্টাই খোলা। প্লেয়ারদের পাশাপাশি সাপোর্ট স্টাফদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে ক্যাপ্টেন মিতালি রাজ, জয়ের জন্য দলের সকলের ভূমিকাকেই সমানভাবে তুলে ধরেন।

সব দায় ওয়াকারের

তিনি দুই মেয়াদে পালন করেন পাকিস্তানের প্রধান কোচের দায়িত্ব। ১৪ বছরের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারে দীর্ঘদিন অধিনায়কও ছিলেন তিনি পাকিস্তানের। এমন একজন অগ্রজকে তুলোধুনো করলেন পাকিস্তানের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান কামরান আকমল। তার অভিযোগ, পাকিস্তানের ক্রিকেটকে ডুবিয়েছেন ওয়াকার। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার কারণ হিসেবে ওয়াকারের নাম বলেছেন কামরান।
২০১৪ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত দ্বিতীয় মেয়াদে পাকিস্তানের কোচের দায়িত্বে ছিলেন ওয়াকার ইউনুস। ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দলের ব্যর্থতার পর দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় তাকে। এর আগের বছরই বাংলাদেশ সফরে চরম ভরাডুবি হয়েছিলো পাকিস্তানের।
প্রস্তুতি ম্যাচ থেকে শুরু করে তিনটি ওয়ানডে ও একমাত্র টি-টোয়েন্টিতে হার মানে ওয়াকারের শিষ্যরা। খুলনা টেস্টেও পাকিস্তানকে চমকে দিয়েছিলো স্বাগতিক বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ঢাকা টেস্টে সান্ত্বনার জয় নিয়ে দেশে ফেরে পাকিস্তান।
বাংলাদেশ সফরে পাকিস্তানের ওই ব্যর্থতার দায় ওয়াকারের ওপর চাপিয়ে আকমল বলেন, ‘বিশ্বকাপের পর তিনি ছয়, সাতজন নতুন খেলোয়াড় নিয়ে বাংলাদেশ সফরে গেলেন। তারই ভুল সিদ্ধান্তের কারণে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো আমরা হেরে গেলাম। যার ফলে পাকিস্তান র‍্যাংকিংয়ে পিছিয়ে পড়েছিলো।’
নিজের সময়ের সেরা বোলাদের একজন ছিলেন ওয়াকার ইউনুস। আকমলের অবশ্য তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু ওয়াকারকে কোচ হিসেবে সম্পূর্ণ ব্যর্থ বলে উল্লেখ করেন তিনি। কেবল ব্যর্থ বলেই থামেননি, তিনি পাকিস্তান ক্রিকেটের অনেক বড় ক্ষতি করে গেছেন বলেও মন্তব্য করেছেন উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান, ‘উৎসাহ নিয়ে দিনের পর দিন খেলোয়াড়দের উপর তিনি পরীক্ষা চালাতেন। এ জন্য প্রতিষ্ঠিত খেলোয়াড়দের দলের বাইরে রাখতেন। এভাবে জাতীয় দলকে দুই থেকে তিন বছর পিছিয়ে দিয়েছেন তিনি।’

সমস্যার সমাধান চায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া

বাংলাদেশ সফরের আগেই খেলোয়াড়দের সঙ্গে সৃষ্ট দেনা-পাওনা সমস্যার সমাধান চায় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। দেশটির ক্রিকেট কর্তৃপক্ষ আজ জানিয়েছে, বাংলাদেশ সফর খুব কাছে চলে আসায় আগামী সপ্তাহের শুরুর দিকেই খেলোয়াড়দের সঙ্গে দেনা-পাওনা নিয়ে চলমান সমস্যার কোন সুরাহা না হলে তারা একটি স্বাধীন সালিশী প্যানেল গঠন করবে।
সিএ প্রধান নির্বাহী জেমস সাদারল্যান্ড বলেন, আগামী কয়েক দিনের মধ্যে সমস্যার সমাধান না হলে তারা একটি নিরপেক্ষ বিচার প্যানেলের দ্বারস্থ হবে। সমস্যা সমাধানে একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারককে নিয়োগ করা হতে পারে।
অস্ট্রেলিয়া দলের বাংলাদেশ সফরে দুই টেস্টের সিরিজে আগামী ২২ আগস্ট প্রথম ম্যাচ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। এরপর আগামী নভেম্বরে নিজ মাঠে এ্যাশেজ সিরিজ শুরু হওয়ার আগে সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে ভারত সফরের সুচি রয়েছে অসিদের।
মেলবোর্নে সাদারল্যান্ড সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা এখন এমন একটা পর্যায়ে আছি যেখানে আমাদের এই অবস্থার সমাধান দরকার এবং ক্রিকেটের দরকার খেলায় ফেরা।’
‘কেবল আসন্ন সফরগুলোর দিকে নয়, মূলত আসন্ন একটি চিত্তাকর্ষক ক্রিকেট মৌসুমের আগে খেলোয়াড়দের চাকুরি, চুক্তির প্রতি আমাদের নজর দেয়া উচিত।’
তিনি বলেন, ‘কেবলমাত্র বাংলাদেশ সফর নয়, ভারতে ওয়ানডে সফর এবং এমনকি আসন্ন এ্যাশেজ সিরিজকে সামনে রেখেই মূলত অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স এসোসিয়েশন (এসিএ) এ কঠিন প্রস্তাব দিয়েছে বলে আমরা মনে করছি।’
দীর্ঘ এক মাস সমঝোতার চেষ্টার পরও খেলোয়াড় ও এসিএ নতুন চুক্তি নিয়ে কোন সমঝোতায় পৌঁছতে ব্যর্থ হয়েছে। ফলে চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় জুন মাসের পর থেকেই ২৩০ জন ক্রিকেটার বেকার হয়ে পড়ে।
এমন অবস্থায় এসিএ’র নির্দেশে এ মাসের দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করেছে অস্ট্রেরিয়া-‘এ’ দল। এমনকি কতিপয় সিনিয়র খেলোয়াড় এখন বাংলাদেশ সফর বয়কটেরও হুমকি দিচ্ছে।
সাদারল্যান্ড বলেন, সমস্যা সমাধানের মধ্যস্ততা হিসেবে সিএ একটা বিকল্প প্রস্তাব দিচ্ছে এবং এসিএ’র কাছে তাদের পরবর্তী পদক্ষেপ জানতে চেয়েছে।
তবে ক্রিকেটের স্বার্থেই আশু এ সমস্যার সমাধান আশা করছে সিএ।

মার্স্টাস ক্রিকেটের সেমিতে মুখোমুখি খুলনা ও রাজশাহী এবং অল স্টার্স ও ঢাকা

ওয়ালটন মার্স্টাস ক্রিকেট র্কানিভালের সেমিফাইনালে উঠেছে বসুন্ধরা ঢাকা বিভাগ, একমি রাজশাহী, টাইটান্স খুলনা ও এক্সপো অলর্স্টাস।
অল স্টার্স ২৮ রানে পরাজিত করে র’নেশনস ঢাকা মেট্রো একাদশকে। বসুন্ধরা ঢাকা বিভাগ ৬ উইকেটে হারিয়েছে ইস্পাহানি চিটাগাং মাস্টার্সকে।
বিকেলে কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামের মুল মাঠে অনুষ্ঠিত ম্যাচে এ’ গ্রুপের এ ম্যাচে হাসিসবুল হোসেন শান্তর নেতৃত্বাধীন অল ষ্টার্স আগে ব্যাটিং করতে নেমে ওপেনার এহসানুল হক সেজানের ৭৬ রানের সুবাদে নির্ধারিত ১৫ উইকেটে মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ১৬৪ রানের পাহাড় গড়ে। চার বাউন্ডারি ও ছয় ওভার বাউন্ডারিতে ৪৩ বলে এ পর্যন্ত টুর্নামেন্টর ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান করে ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হন সেজান। অপর ওপেনার মেহরাব হোসেন অপি ৩৫ বলে দলের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৮ রান করেন। এছাড়া জহিরুল হক রাশেদ মাত্র ১৩ বলে ৩২ রান করে দলের বড় সংগ্রহে বড় ভুমিকা রাখেন।
বড় রানের বিপক্ষে জয়ের জন্য নির্ধারিত ১৫ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে শেষ পর্যন্ত ১৩৬ রান করতে সক্ষম হয় ঢাকা মেট্রো।

দলের পক্ষে সর্বোচ্চ অপরাজিত ৪৮ রান করেন নিয়ামুর রশিদ রাহুল। ১৮ বল মোকাবেলায় একটি চার ও ছয়টি ছক্কা হাকান তিনি। এছাড়া রাব্বানি ৩২, ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স করেন ২৩ রান।
একাডেমী মাঠে অনুষ্ঠিত দিনের শেষ ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ১৮ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ১২৭ রান করে ইস্পাহানি চিটাগাং মাস্টার্স।
মুশফিকুর রহমান বাবু ৪৬ বলে দু’টি করে চার ও ছয় হাকিয়ে দলের সর্বোচ্চ ৫২ রান করেন। এ ছাড়া আজম ইকবাল ২৬ ও আহসানউল্লাহ করেন ২৩ রান।
জয়ের জন্য খেলতে নেমে হুমায়ুন কবিরের ৪৮ বলে ৬২ এবং জুবায়ের ইশতিয়াকের ৩৩ রানের সুবাদে ১৪.১ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে জয় নিশ্চিত করে বসুন্ধরা ঢাকা বিভাগ।
এরআগে, ওয়ালটন মাষ্টার্স ক্রিকেট কার্নিভাল ২০১৭ আসরে সবার আগে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে খলেদ মাসুদ পাইলটের নেতৃত্বাধীন একমি রাজশাহী মাষ্টার্স। শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে চলমান টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় দিনে আজ একডেমী মাঠে অনুষ্ঠিত প্রথম ম্যাচে র’নেশনস ঢাকা মোট্রোকে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়ে আসরের প্রথম দল হিসেবে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে রাজশাহী।
টসে জিতে আগে ব্যাটিং করে ফয়সাল হোসেন ডিকেন্সের অপরাজিত ৫৯ রানের সুবাদে নির্ধারিত ১৫ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১২৫ রানের বড় সংগ্রহ করে খালেদ মাহমুদ সুজনের নেতৃত্বাধীন র’নেশনস ঢাকা মেট্রো। ৩০ বল মোকাবেলায় একটি বাউন্ডারি ও সাতটি ওভার বাউন্ডারিতে অসাধারন ইনিংসটি সাজান ডিকেন্স। এ ছাড়া আনিসুর রহমান দলের হয়ে দ্বিতীয় সর্বো”চ ২৩ রানের ইনিংস খেলেন।
জয়ের জন্য ১২৬ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে খেলতে নেমে হান্নান সরকারের অপরাজিত ৬৫ ও ওপেনার জাভেদ ওমরের অপরাজিত ৩৭ রানের সুবাদে এক ওভার হাতে রেখেই মাত্র ২ উইকেট হারিয়ে ১২৬ রান সংগ্রহ করে জয়ী হওয়ার পাশাপাশি সেমিফাইনালের টিকিট নিশ্চিত রাজশাহী।
দুই ওপেনার জাভেদ ওমর ও হান্নান সরকার উদ্বোধনী জুটিতে অস্টম ওভারে ৮৯ রানের জুটি গড়লে দলের জয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যায়। ২৮ বল মোকাবেলায় পাঁচ বাউন্ডারি ও সাত ওভার বাউন্ডারিতে হান্নান সরকার ৬৫ রানে আউট হলে ৩৭ রানে শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে যান জাভেদ ওমর। তিনি পাঁচটি বাউন্ডারি হাঁকান।
সকালে প্রধান মাঠে অনুষ্ঠিত অপর ম্যাচে টাইটান্স খুলনা মাষ্টার্স ৪ উইকেটে হারিয়েছে বসুন্ধরা ঢাকা মেট্রো মাষ্টার্সকে। এই জয়ের ফলে সেমিফাইনালের দৌঁড়ে টিকে থাকল হাবিবুল বাশার সুমনের খুলনা।
টস জিতে প্রথমে ব্যাটিং করে নির্ধারিত ১৮ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১১৫ রানের মামুলি সংগ্রহ দাঁড় করায় বসুন্ধরা ঢাকা মেট্রো। ২টি করে চার ছক্কায় ১৯ বলে দলের পক্ষে সর্বো”চ ৩০ রান করেন হুমায়ুন কবির। এ ছাড়া শাফাক আল জাবির দ্বিতীয় সর্বো”চ অপরাজিত ১৯ রান করেন। ২৪ বল মোকাবেলায় ১৭ রান করেন সানোয়ার হোসেন। খুলনার জামাল বাবু নির্ধারিত ৪ ওভার বোলিং করে ২১ রানে ৪ উইকেট শিকার করেন।
জয়ের জন্য ১১৬ রানের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে খেলতে নেমে অধিনায়ক হাবিবুল বাশার সুমনের ৩৩ রানের সুবাদে এক বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় খুলনা। ৩৩ বল মোকাবেলায় ২টি করে চার-ছক্কা হাকান সুমন। এ ছাড়া নিয়াজ মোর্শেদ পল্টু ২২ বল মোকাবেলায় এক চার ও তিন ছক্কায় দলের দ্বিতীয় সর্বো”চ ২৮ রান করেন। ১৯ বলে ২৬ রানে অপরাজিত থাকেন হাসানুজ্জামান ঝরু।
২ ওভার বোলিং করে ৯ রানে ২ উইকেট শিকার করে বসুন্ধরার সবচেয়ে সফল বোলার ছিলেন হুমায়ুন কবির।

গ্রুপ পর্ব শেষে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে রাজশাহী, খুলনা, এক্সপো অল স্টার্স ও বসুন্ধরা ঢাকা বিভাগ।
আগামীকাল সকালে প্রথম সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে খুলনা ও রাজশাহী। দ্বিতীয় সেমিতে লড়বে এক্সপো অল স্টার্স ও বসুন্ধরা ঢাকা।

মাস্টার্স ক্রিকেটের সেমিফাইনালে একমি রাজশাহী

ওয়ালটন মাস্টার্স ক্রিকেট কার্নিভালে টানা দ্বিতীয় জয়ে সেমিফাইনালে উঠে গেলো একমি রাজশাহী। অন্য ম্যাচে, টাইটান্স খুলনা ৪ উইকেটে পরাজিত করে বসুন্ধরা ঢাকাকে। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে একমি রাজশাহী ৮ উইকেটে হারায় ঢাকা মেট্রোকে।
কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে, ১২৬ রানে জয়ের টার্গেটে নেমে, ৬ বল হাতে রেখেই ২ উইকেট হারিয়ে জয় পায় একমি রাজশাহী। তাতে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সেমিফাইনালে উঠে যায় তারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৫ রান করেন জাতীয় দলের সাবেক ওপেনার হান্নান সরকার। আরেক ওপেনার জাভেদ ওমর বেলিম ৩৭ রানে অপরাজিত থাকেন।
এরআগে, টস জিতে ব্যাট করে ৫ উইকেটে ১২৫ রান তোলে ঢাকা মেট্রো। ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৯ রানে অপরাজিত থাকেন। অন্য ম্যাচে, প্রথমে ব্যাট করে বসুন্ধরা রাজশাহী ৮ উইকেটে তোলে ১১৫ রান। জবাবে, হাবিবুল বাশারের টাইটান্স খুলনা ৬ উইকেটে ১২০ রান তুলে জয় নিশ্চিত করে।

পাকিস্তানে ক্রিকেট ফেরাতে আশাবাদী আর্থার

অনেক বলে-কয়ে সবশেষ ২০১৫ সালে জিম্বাবুয়েকে ঘরের মাঠে সিরিজ খেলতে আনতে পেরেছিল পাকিস্তান। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কান টিম বাসের পর ওপর সন্ত্রাসী হামলার পর বড় কোনো দল দেশটিতে সফর করতে আগ্রহী হচ্ছে না।

এ বছরের শেষের দিকে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের সঙ্গে বিশ্ব ক্রিকেট একাদশের একটি সিরিজ খেলার কথা রয়েছে। কিন্তু সন্ত্রাসী হামলায় সেটি মাঠে গড়ানো নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে। তবে পাকিস্তান কোচ মিকি আর্থার এ ব্যাপারে আশাবাদী। বিশেষ করে উপমহাদেশের ক্রিকেটাররা পাকিস্তানে যেতে আগ্রহী হবেন বলে বিশ্বাস দক্ষিণ আফ্রিকান এ কোচের।

সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে বিশ্ব একাদশের পাকিস্তান সফরের কথা রয়েছে। কিন্তু গত সোমবার লাহোরে ভয়াবহ বোমা হামলার কারণে ওই সফর নিয়ে আবারও সন্দেহ তৈরি হয়েছে। এই হামলায় ২৬ জন মানুষ নিহত হয়েছেন।

তবে আশার কথা ব্যক্ত করে পাকিস্তান কোচ মিকি আর্থার এএফপিকে জানান, ‘ঘরের মাঠে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে অবিশ্বাস্য সব প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। আমি আশা করছি বিশ্ব একাদশ এখানে সফরে আসবে। পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। প্রতিটি আন্তর্জাতিক ম্যাচই আমরা বিরুদ্ধ পরিবেশে খেলে থাকি। যা নিঃসন্দেহে কঠিন। আমি মনে করি এটা পুরো ক্রিকেটকেই প্রভাবিত করে। এখানকার প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটাররা তাদের তারকা খেলোয়াড়দের ঘরের মাঠে খেলতে দেখে না। আশা করছি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারদের পাকিস্তানে দেখতে পাবো।’

সকালে মুখোমুখি শ্রীলঙ্কা-ভারত

ক্রিকেট
শ্রীলঙ্কা-ভারত
প্রথম টেস্ট, দ্বিতীয় দিন
সরাসরি, সকাল ১০-৩০ মিনিট
সনি সিক্স ও টেন থ্রি

ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকা
তৃতীয় টেস্ট, প্রথম দিন
সরাসরি, বিকেল ৪টা
স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট ওয়ান

তামিলনাড়ু প্রিমিয়ার লিগ
সরাসরি, সন্ধ্যা ৭-৪০ মিনিট, স্টার স্পোর্টস ওয়ান

ফুটবল
ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়নস কাপ
ম্যানচেস্টার সিটি-রিয়াল মাদ্রিদ
সরাসরি, সকাল ৯-৩০ মিনিট, টেন টু

বায়ার্ন মিউনিখ-ইন্টার মিলান
সরাসরি, বিকেল ৫-৩০ মিনিট, টেন টু

টেনিস
এটিপি ওয়ার্ল্ড ট্যুর, জার্মান চ্যাম্পিয়নশিপ
সরাসরি, বিকেল ৩টা, সনি ইএসপিএন

ধাওয়ানের সেঞ্চুরিতে এগোচ্ছে ভারত

দুর্দান্ত ফর্মে আছেন শিখর ধাওয়ান। তার প্রমাণ রাখলেন গল টেস্টেও। তুলে নিয়েছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। শুরুতে খেই হারিয়ে ফেলা ভারতকে টেনে তোলেন ধাওয়ান। তার ব্যাটিংয়ে ভর করে বড় সংগ্রহের পথে এগোচ্ছে ভারত।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভারতের সংগ্রহ ১ উইকেটে ১৭৪ রান। টস জিতে ব্যাট করতে নামা ভারত ভালো অবস্থানেই আছে।

এদিকে ব্যাট করতে নেমে ভারতের সূচনাটা ভালো ছিল না। দলীয় ২৭ রানের মাথায় অরবিন্দ মুকুন্দকে হারিয়ে ফেলে ভারত। ব্যক্তিগত ১২ রানেই থামেন তরুণ এই ওপেনার। নুয়ান প্রদীপের বলে নিরোশান ডিকভেলার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন মুকুন্দ।

দ্বিতীয় উইকেটে চেতশ্বর পুজারাকে নিয়ে জুটি বাঁধেন ধাওয়ান। এখন পর্যন্ত ১৪৮* রানের জুটি গড়েছেন দুজন। শিখর ধাওয়ান ১১৯ বলে ১৭টি চারে ১১১ রানে ব্যাট করছেন। আর পুজারা ব্যাট করছেন ৪৯ রান নিয়ে।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট অভিষেক হয় ধাওয়ানের। ২৩টি টেস্ট ম্যাচ (গল টেস্ট বাদে) খেলেছেন তিনি। ৩৮.৫২ গড়ে করেছেন ১৪৬৪ রান। হাফ সেঞ্চুরি ৩টি, আর সেঞ্চুরি ৪টি। গল টেস্টের সেঞ্চুরিসহ তার শতকের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৫টি।

স্মিথ-ওয়ার্নাররা বাংলাদেশে আসবেন, আশাবাদী ম্যাকগ্রা

বাংলাদেশ সফরে আসবে তো অস্ট্রেলিয়া? এমন প্রশ্নই ক্রিকেটপ্রেমীর। কারণ বেতন-ভাতা নিয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) এবং অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (এসিএ) মধ্যে বনিবনা হচ্ছে না। গত নভেম্বরে শুরু হয়ে দ্বন্দ্ব চলছে। সমঝোতায় আসতে পারেনি এখনও।

৩০ জুনের মধ্যে ক্রিকেটারদের সঙ্গে নতুন চুক্তি হওয়ার কথা ছিল ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার। সেটা হয়নি। সেদিন থেকে অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটাররা হয়ে যান বেকার! ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে বেতন-ভাতা সংক্রান্ত সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত না হওয়ায় পূর্ব নির্ধারিত অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করেন ক্রিকেটাররা।

অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (এসিএ) এই তথ্য দেয়ার পরই প্রশ্ন ওঠে, বাংলাদেশ সফরে আসবে তো অস্ট্রেলিয়া? হবে কি অস্ট্রেলিয়ার ভারত সফর?

আগস্টে বাংলাদেশ সফরে আসার কথা স্মিথ-ওয়ার্নারদের। গ্লেন ম্যাকগ্রারও বিশ্বাস, বেতন-ভাতা নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছে ঠিক সময়ে মাসেই বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া দল। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) এবং অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশনের (এসিএ) মধ্যে বেতন-ভাতা নিয়ে দ্বন্দ্বটাকে তিনি দেখছেন চরম ‘লজ্জা’ হিসেবে।

অস্ট্রেলিয়ার সাবেক পেসার ম্যাকগ্রা বলেন, ‘এখন যা (বেতন-ভাতা নিয়ে দ্বন্দ্ব) চলছে, তা লজ্জারও বটে। আমি আশাবাদী, তারা এই সমস্যা দ্রুতই সমাধান করবে। ছেলেরা খেলতে পারবে। ভক্তরা পারবেন খেলা উপভোগ করতে। আসন্ন বাংলাদেশ ও ভারত সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া।’

অলিম্পিক ডে রানের র‌্যালি শুক্রবার

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে প্রতি বছর ২৩ জুন পালন করা হয় অলিম্পিক ডে রান। কিন্তু রমজানের কারণে এবার ২৩ জুন অলিম্পিক ডে রান উদযাপন হয়নি বাংলাদেশে। আইওসির অনুমোদন নিয়ে দিবসটি পালন হবে এক মাস ৫ দিন পর, ২৮ জুলাই। ওই দিন সকালে ডে রানের প্রধান আকর্ষণ র‌্যালি থাকছে। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন পরের দিনও কিছু কর্মসূচি রেখেছে। রাজধানী ছাড়াও বিভাগ ও জেলা শহরে থাকছে র‌্যালিসহ নানা অনুষ্ঠান।

শুক্রবার সকাল ৭টায় রমনা টেনিস কমপ্লেক্স থেকে ডে রান শুরু হয়ে শেষ হবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে। প্রতি বছরের মতো এবার ডে রানে অংশগ্রহণকারীদের জন্য টি-শার্ট, সনদ প্রদান করবে বিওএ। ডে রানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার। বিশেষ অতিথি থাকবেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়।

বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের মহসাচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা বুধবার সংবাদ সম্মেলনে দুই দিনব্যাপী ডে রান কর্মসূচি নিয়ে বলেছেন, ‘আশা করি, ক্রীড়াঙ্গনের মানুষের সরব উপস্থিতিতে ডে রান সফল হবে।’ সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিওএ’র সহসভাপতি মিসেস মাহাবুব আরা গিণি,উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু, আসাদুজ্জামান কোহিনুর ও কোষাধ্যক্ষ কাজী রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল।

র‌্যালি ছাড়াও দুই দিনব্যাপী কর্মসূচিতে আরও থাকবে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, রক্তদান, সেমিনার এবং খেলার মেলা অলিম্পিক নামের একটি বইরে মোড়ক উম্মোচন।

পুরো আয়োজনের সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৯ লাখ ৩০ হাজার টাকা। আয়োজনের সঙ্গে পৃষ্ঠপোষক হিসেবে থাকছে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান। বড় অংকের একটা অনুদান আসছে আইওসি থেকে।

‘মুশফিক-ভুলু ইস্যু ছিল নিছক ভুল বোঝাবুঝি

দেরিতে হলেও আগেরবারের অধিনায়ক মুশফিকুর রহীমের কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছেন বরিশাল বুলস ফ্র্যাঞ্চাইজির অন্যতম মালিক আব্দুল আওয়াল চৌধুরী ভুলু।

এর আগে এক টেলিভিশন ইন্টারভিউয়ে মুশফিকের ঢালাও সমালোচনা করেছিলেন ভুলু। মুশফিকের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগ এনে বলেছিলেন, ‘মুশফিক বাজে অধিনায়ক। তার দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধে ঘাটতি আছে।’

মুশফিক বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের কাছে অভিযোগসহ সংবাদমাধ্যমের সামনে আবেগাপ্লুত হয়ে কান্না বিজড়িত কণ্ঠে আব্দুল আওয়াল চৌধুরী ভুলুর ওই নেতিবাচক আচরণ ও নেতিবাচক কথাবার্তার বিচার চান। এরই আলোকে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল ভুলুকে কারণ দর্শানো নোটিশ পাঠায়। কদিন আগে ভুলু সে নোটিশের জবাবও দিয়েছেন।

এদিকে আজ বিকেলে মুশফিকুর রহীম ইস্যুতে সংবাদমাধ্যমের সাথে কথা বলেছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক। তার কথার সারমর্ম হলো, ঘটনাটি নিছক ভুল বোঝাবুঝি। ভুলু নাকি মুশফিককে ছোট করে বা তাকে অপমান-অসম্মান করার অভিপ্রায়ে ওসব কথা বলেননি। বিষয়টি ভুল বোঝাবুঝি।

মল্লিক বলেন, ‘বরিশাল বুলসের মালিক ভুলুর সাথে একটি মন্তব্য নিয়ে মুশফিকের ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। যাতে মুশফিক একটু কষ্টও পেয়েছিল। যাই হোক আমরা ওই বিষয়ে গভর্নিং কাউন্সিল থেকে একটি চিঠিও দিয়েছিলাম। ভুলুও তার উত্তর দিয়েছেন।’

‘তারই আলোকে আমরা দু’পক্ষের সঙ্গে কথাও বলেছি। এমনকি মুশফিকের সাথেও বসেছি। ভুলু দুঃখ প্রকাশ করেছেন, এটা ভুল বোঝাবুঝি। তিনি কোনো কিছু মিন করে বলেননি। মুশফিকও স্পোর্টিংলি নিয়েছে। মোদ্দা কথা, আমার মনে হয় বিষয়টি এখানেই শেষ হয়ে গেছে।’

তবে মল্লিক বলেন, তার মানে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলে ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে সেজন্য সজাগ ও সচেতন। আমরা সবাইকে বলব, প্রত্যেকে নিজ নিজ দায়িত্ব নিয়ে কথা বলবেন। তাহলে আর এমন ভুল বোঝাবুঝি হবে না।

মুশফিক ইস্যুতে ভুলুর দুঃখ প্রকাশ

অবশেষে মুশফিক সম্পর্কে অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্ক্ষিত মন্তব্য নিয়ে মুখ খুললেন আব্দুল আওয়াল চৌধুরী ভুলু। আজ বিকেলে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে বরিশাল বুলস ফ্র্যাঞ্চাইজির অন্যতম এই মালিক পুরো ঘটনাকে দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেন।

বরিশাল বুলসের অন্যতম এই মালিক বলেন, ‘আমি চেয়েছিলাম মুশফিককে রেখে দল সাজাতে। যখন শুনলাম মুশফিক থাকবে না, তখন মনের দুঃখে ওই মন্তব্য করেছি। তবে সেটা জাতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে নয়। আমার দলের অধিনায়ক ও ক্রিকেটার হিসেবে ও মালিক হিসেবে।’

ভুলু আরও বলেন, ‘আমি তো স্পোর্টসম্যান। দীর্ঘদিন খেলার সাথে জড়িত। প্লেয়ার অফিসিয়াল ছিলাম। প্লেয়ারদের অবশ্যই ভালোবাসি এবং জানি। মালিক হিসেবে হঠাৎ যখন শুনলাম, মুশফিক আমাকে না বলে চলে যাবে, তখন নিজের কাছে খুব খারাপ লাগল। শেষ মুহূর্তে আমি এটা বলেছি। ওইভাবে মিন করে বলিনি। আমি নিজেও দুঃখিত ওই ব্যাপারে। সেটা নিছকই আমার অধিনায়ক সম্পর্কে মালিক হিসেবে বলা।’

‘জাতীয় দলের প্লেয়ার কিংবা অধিনায়ক হিসেবে আমি ওমন মন্তব্য করিনি। আমি বোর্ড পরিচালক হিসেবেও বলিনি। আমার প্রত্যাশা ছিল মুশফিককে নিয়েই দল গড়ব। এবার হঠাৎ করে যখন শুনলাম মুশফিক আমাদের দলে খেলবে না, তখন বেশ আঘাত পেয়েছি। এই আর কি!’-যোগ করেন ভুলু।

মাস্টার্স ক্রিকেটে জয় পেলো একমি রাজশাহী ও ইস্পাহানী চট্টগ্রাম

ওয়ালটন মাস্টার্স ক্রিকেট কার্নিভালের প্রথম ম্যাচে এক্সপো অল স্টার্স একাদশকে ৪৫ রানে হারিয়েছে একমি রাজশাহী।

কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে, টসে হেরে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১১৪ রান তোলে একমি রাজশাহী। ১৪ বলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২১ রান করেন এম এইচ রানা।

ওপেনার জাভেদ ওমর বেলিম, হান্নান সরকার উভয়েই করেন ১৮ রান করে। জবাবে, মাত্র ৬৯ রানে অরআউট হয় হাসিবুল হোসেন শান্তর এক্সপো অল স্টার্স। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২১ রান করেন জহিরুল। একমির বোলারদের মধ্যে গোলাম মুস্তফা ৫টি এবং আলমগীর কবির ৪টি করে উইকেট নিয়ে অল স্টার্সের ধ্বস নামান।
এদিকে, অন্য ম্যাচে ইস্পাহানী চট্টগ্রাম ৫ উইকেটে হারিয়েছে টাইটান্স খুলনাকে।

গম্ভীর কোহলিকে ভালো অধিনায়ক মানবেন যখন…

গৌতম গম্ভীর আর বিরাট কোহলি। একে অপরকে খুব একটা মেনে নিতে পারেন না! কেন যেন লেগে যায় কোহলি-গম্ভীরের! মাঠে কিংবা মাঠের বাইরে। অনেকে তো দুজনের সম্পর্কটাকে ‘সাপে-নেউলে সম্পর্ক’ হিসেবেই দেখছেন।

আন্তর্জাতিক বা ঘরোয়া ক্রিকেট- মাঠে কথার লড়াই সব জায়াগাতেই হয়। আইপিএলে দুজনকে তর্কে জড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে কয়েকবার। এবার আর মাঠে নয়, ক্রিকইনফোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে কোহলিকে নিয়ে কথা বলেন গম্ভীর।

ভারতের ক্রিকেটে এ যেন চিরকালের এক অপবাদ- দেশের মাটিতে বাঘ, বিদেশে গেলেই বিড়াল। সেই অপবাদ মুছতে পারলে কোহলিই হবেন ভারতের সেরা অধিনায়ক। শুধু ভারত নয়, উপমহাদেশের বাইরে বেশি বেশি জিততে পারলেই কিনা কোহলিকে ভালো অধিনায়ক মানবেন গম্ভীর!

ক্রিকইনফোকে গম্ভীর বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় টেস্ট সিরিজে ফেবারিট ভারত। সেখানে জিততে পারে কোহলির দল। তবে উপমহাদেশের বাইরে (টেস্ট) জয়ের অভ্যাস গড়ে তুলতে হবে কোহলিকে। তাহলেই কিনা তাকে অধিনায়ক করার মান রাখতে পারবে। নিজেকে প্রমাণ করতে পারবে, সে ভালো অধিনায়ক।’

ভারতকে চূড়ায় রাখতে পারবেন তো শাস্ত্রী?

অনেক নাটকের অবসান ঘটিয়ে ভারতের প্রধান কোচের দায়িত্ব পেয়েছেন রবি শাস্ত্রী। কোচিংয়ের দায়িত্ব নেয়ার পরই টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষেই পেলেন ভারতকে। তার প্রথম মিশন শ্রীলঙ্কায়।

ভারতীয় দল নিয়ে এখন শ্রীলঙ্কায় রয়েছেন শাস্ত্রী। লঙ্কা সফরে তিনটি টেস্ট খেলবে ভারত। প্রথম টেস্টটি মাঠে গড়াবে আগামীকাল বুধবার, গলে। শাস্ত্রী চাইবেন, জয় দিয়েই তার মিশন শুরু করতে।

এবার প্রশ্ন হচ্ছে, ভারতকে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ের চূড়ায় রাখতে পারবেন তো শাস্ত্রী? তবে র্যাংকিং নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামাতে চাইলেন না। পূর্বসূরী অনিল কুম্বলের রেখা যাওয়া অবস্থানটা ধরে রাখাই যে শাস্ত্রীর লক্ষ্য, এটা বলা বাহুল্য। সেজন্য ভালো এবং ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলার বিকল্প দেখছেন না ভারতের নতুন এই কোচ।

অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডকে হারানো ভারত দলের সবাই এখন আত্মবিশ্বাসী। শাস্ত্রীর ভাষায়, ‘ছেলেরা তাদের কাজটা ভালোভাবেই করে যাচ্ছে। তারা পেশাদার ক্রিকেটার। মাঠে পিছিয়ে পড়লেও কিভাবে ঘুরে দাঁড়াতে হয়, তা জানে। আমার কাজ হচ্ছে ছেলেদের থেকে সেরাটা বের করে নিয়ে আসা এবং ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলতে পথ দেখানো।’

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মাহমুদুল্লাহর দশ বছর

বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়দের মধ্যে অন্যতম মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ২০০৭ সালের ২৫ জুলাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে পা রাখেন তিনি। অর্থাৎ জাতীয় দলের জার্সিতে মাহমুদুল্লাহর ১০ বছর পূর্ণ হলো আজ।
কলম্বোতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওডিআই দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। এরপর একই বছরের ১ সেপ্টেম্বর কেনিয়ার বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেন তিনি। ক্যারিয়ারের প্রথম ওডিআইতে হারলেও প্রথম টি-টোয়েন্টিতে জয়ের স্বাদ পান বাংলাদেশের এই অলরাউন্ডার।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এক দশক পূর্ণ হলেও মাত্র ১৪৫টি ওডিআই এবং ৫৮টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছেন মাহমুদুল্লাহ। অন্যদিকে গত ৮ বছরে মাত্র ৩৩টি টেস্ট ম্যাচ খেলেছেন তিনি। ২০০৯ সালের ৯ জুলাই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট খেলেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের আনসান হিসেবে পরিচিত মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। বেশ কয়েকটি ম্যাচে দলের জয়ে দারুণ ভূমিকা রাখলেও অন্য কোনো সতীর্থের কীর্তির আড়ালে বার বার হারিয়ে গেছে তার ভূমিকা। এখন পর্যন্ত ওডিআইতে ম্যাচসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেয়েছেন মাত্র ৪ বার। টি-টোয়েন্টিতে একবার ম্যাচসেরার পুরস্কার পেলেও দীর্ঘ ফরম্যাটের কোনো ম্যাচে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পাননি তিনি।

২০১৫ সালের অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে ক্যারিয়ারের প্রথম শতক করেন মাহমুদুল্লাহ। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম শতকের পর পরের ম্যাচেই নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অপরাজিত ১২৮ রানের ইনিংস খেলেন তিনি। এখন পর্যন্ত ওডিআইতে মাহমুদুল্লাহর সর্বোচ্চ রানের ইনিংস সেটি।
অন্যদিকে ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে সর্বোচ্চ ৬৪ (অপরাজিত) রানের ইনিংস রয়েছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের। আর টেস্টে সর্বোচ্চ ১১৫ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি।
বাংলাদেশ দলের এই অলরাউন্ডার ৩৩ টেস্টে ১ হাজার ৮০৯ রান; ১৪৫ ওয়ানডেতে ৩ হাজার ১৫৫ রান এবং ৫৮ টি-টোয়েন্টিতে ৮১০ রান করতে সক্ষম হন। অন্যদিকে বল হাতে টেস্টে ৩৯ উইকেট; ওডিআইতে ৭০ উইকেট এবং টি-টোয়েন্টিতে ২২ উইকেট নিয়েছেন মাহমুদুল্লাহ।

বিপিএলে প্রতিম্যাচে পাঁচ বিদেশি

এবারের বিপিএলে, একাদশে চারজন না পাঁচজন বিদেশি ক্রিকেটার খেলানো হবে সেটা নিয়ে তুমুল আলোচনা চলছিল। বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিকই কয়েকমাস আগে এই বিতর্ক উস্কে দিয়েছিলেন, আমাদের দেশে ‘কোয়ালিটি ক্রিকেটারের সংখ্যা কম’ বলে।
এ বিষয়ে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই ফ্রাঞ্চাইজিগুলোর সঙ্গে বৈঠক করেছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। সেই বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হয়, পাঁচজন করে বিদেশি খেলানোর। অবশেষে, গভর্নিং কাউন্সিলের পক্ষ থেকেই আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হলো পাঁচজন খেলানোর।
বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের এক সংবাদ সম্মেলনে সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক জানান, প্রতিটি ম্যাচে একাদশে পাঁচজন করে বিদেশি খেলাতে হবে। বাকি ৬ জন থাকবেন দেশি ক্রিকেটার।
আইপিএল, সিপিএল, পিএসএল থেকে শুরু করে সবগুলো ফ্রাঞ্জাইজি লিগের নিয়মই হচ্ছে, চারজন করে বিদেশি ক্রিকেটার এবং সাতজন করে দেশি ক্রিকেটার খেলানোর। বিপিএলের আগের চার আসরেও ছিল এই নিয়ম।
কিন্তু এবার একটি দল বেড়ে যাওয়ার কারণেই নাকি এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ১টি দল বেড়ে যাওয়ার কারণে এখন বিপিএলে মোট দলের সংখ্যা ৮টি। চারজন করে বিদেশি খেলানো হলে, বাকি আরও সাতজন করে আট দলে মোটামুটি মানের মানসম্পন্ন ক্রিকেটার প্রয়োজন ৫৬ জন।
এই মুহূর্তে বাংলাদেশে এতগুলো মানসম্পন্ন ক্রিকেটার নেই যে, তাদেরকে দিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক ক্রিকেট খেলানো যাবে এবং বিপিএলকে আকর্ষণীয় করে তোলা যাবে। ফ্রাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে প্রতিদ্বন্দ্বিতাই আসল। সেটাই যদি না থাকে তাহলে বিপিএলের আকর্ষণও হারাবে।
সংবাদ সম্মেলনে মল্লিক জানান, ‘বৈঠকে আটটি ফ্রাঞ্চাইজির মধ্যে ৫টিই চেয়েছে ৫জন করে বিদেশি ক্রিকেটার। বাকি ৩টি চেয়েছে চারজন করে। মেজরিটি ভিত্তিতে আমরা ৫জন বিদেশি খেলানোর পক্ষেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

২ নভেম্বর শুরু বিপিএল

বিশ্বের অন্যান্য টি-টোয়েন্টি লিগের সঙ্গে যেন শুরুর সময়ের সংঘাত না হয় সেজন্য বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) শুরুর তারিখে পরিবর্তন আনা হয়েছে। আজ সোমবার বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের এক সংবাদ সম্মেলনে, সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক জানান, ২ দিন এগিয়ে আনা হয়েছে বিপিএলের পঞ্চম আসর শুরুর তারিখ। অর্থাৎ ২ নভেম্বর থেকে শুরু হবে এবারের বিপিএল। তবে এর দুইদিন আগে হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। বিপিএলের জমজমাট উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের জন্য তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে ৩১ অক্টোবর।
কল্যাণপুরে একমি কার্যালয়ে, বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ইসমাইল হায়দার মল্লিক। তিনি বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিগ ব্যাশ কিংবা দক্ষিণ আফ্রিকার গ্লোবাল টি-টোয়েন্টি লিগের সময়ের সঙ্গে আমাদের বিপিএলের সময়ের একটা সংঘাত দেখা দিচ্ছে। এ কারণেই আমরা বিপিএলকে দুইদিন এগিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’
প্রথম আসর থেকেই নভেম্বরকে বিপিএল আয়োজনের জন্য নির্ধারণ করা হয়। এবারের বিপিএলে অংশ নিচ্ছে সবচেয়ে বেশি, ৮টি দল। নতুন ফ্রাঞ্চাইজি হিসেবে এবার যোগ হয়েছে সিলেট।

হরমনপ্রীতের প্রতিবাদী ৮৪

৭ জুলাইয়ে জন্মানো মহেন্দ্র সিং ধোনি লাকি নম্বর হিসেবে জার্সিতে ৭ নম্বরটি বেছে নিয়েছেন। শচীন টেণ্ডুলকার থেকে বিরাট কোহলি, প্রত্যেকেরই জার্সি নম্বরের পিছনে লুকিয়ে রয়েছে ব্যক্তিগত কোন না কোনও কারণ। কিন্তু হরমনপ্রীত এক্কেবারে আলাদা, অন্যরকম। তাঁর জার্সির নম্বর ৮৪। এটা তার জন্ম সাল নয়, এই নম্বরের সঙ্গে ব্যক্তিগত রানের কোনও ইতিহাসও নেই। আসলে, ১৯৮৪ সালের দাঙ্গার প্রতিবাদেই ৮৪ নম্বর জার্সিটি গায়ে চাপান তিনি।

হরমনপ্রীত কাউর

হরমনপ্রীত কাউরই ভারতের একমাত্র ক্রিকেটার যিনি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে সর্বোচ্চ ১৭১ রান (অপরাজিত) করে রেকর্ড গড়েন। পুরুষ ক্রিকেটেও এই রেকর্ড নেই। ভারতীয় মহিলা দলে তিনি হয়ে উঠেছেন লেডি বীরেন্দ্র শেবাগ।
১৯৮৪ সালে শিখ-বিরোধী দাঙ্গায় উত্তাল হয়েছিল পুরো ভারত। শিখ দেহরক্ষীর হাতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর হত্যার ঘটনার পরই পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল। কংগ্রেস আমলে সেই সময় প্রাণ হারিয়েছিলেন বহু শিখ সম্প্রদায়ের ব্যক্তি। তাঁদের উৎসর্গ করেই ৮৪ নম্বর জার্সি গায়ে মাঠে নামেন হরমনপ্রীত। শুধু দেশের জার্সির নম্বরই নয়, বিগ ব্যাশ লিগেও ৮৪ নম্বর জার্সি গায়ে খেলেন এই ভারতীয় নারী তারকা ক্রিকেটার।

মাহমুদুল্লাহ্ পিঠে ব্যথা

অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজকে সামনে রেখে কন্ডিশনিং ক্যাম্পে অনুশীলনের সময় পিঠের ইনজুরিতে পড়েছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। আক্রান্ত হওয়ার পর হাসপাতালে নেয়া হয়েছে জাতীয় দলের অন্যতম নির্ভরযোগ্য ক্রিকেটারকে।
রোববার সকালে জিমনেশিয়ামে ওয়েট তুলতে গিয়ে পিঠে টান পড়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের। ব্যথা অনুভব করায় মাহমুদউল্লাহকে দ্রুত হাসপাতালে নেয়া হয়। অ্যাপোলো হাসপাতালে তার পিঠের এক্স-রে করা হয়েছে। তবে বিসিবির সহকারী চিকিৎসক মইনুল আমিন জানান, মারাত্মক কোনো ব্যথা নয় এটা।

টাকার জন্য পাকিস্তানে ক্রিকেটাররা

দেশের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরাতে মরিয়া পাকিস্তান। তার জন্য নানা চেষ্টা চালাচ্ছে সেদেশের ক্রিকেট বোর্ড। জিম্বাবুয়ে দলের সফরের পর পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) ফাইনাল হয় লাহোরে। সেখানে বেশ কয়েকজন বিদেশি খেলোয়াড় অংশ নেন।
সফরভাবে সেই ফাইনাল সস্পন্ন করার পর নতুন পরিকল্পনা হাতে নেয় পিসিবি। আইসিসির পূর্ণ তত্তাবধায়নে বিশ্বের তারকাদের নিয়ে গঠিত একটি দল পাকিস্তানে টি-টুয়েন্টি ম্যাচ খেলানোর আয়োজন করতে যাচ্ছে তারা। অংশ হিসেবে ‘বিশ্ব একাদশে’র হয়ে পাকিস্তান খেলতে যাবেন সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্ক ও সাউথ আফ্রিকার হাশিম আমলার মতো ক্রিকেটাররা।
তিন ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে আগামী ১২-১৯ সেপ্টেম্বরে। সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করার পর পিসিবি এখন সরকারের সবুজ সংকেতের অপেক্ষায়। ম্যাচ হবে পিএসএলের ফাইনালে হওয়া সেদেশের সবচেয়ে বড় লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে।
পিসিবি চেয়ারম্যান শাহারিয়ার খান পাকিস্তান টেলিভিশনকে বলেছেন, ‘বিশ্ব একাদশের কোচের দায়িত্ব পালন করবেন বর্তমান পাকিস্তান দলের ব্যাটিং কোচ অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার।
আর পাকিস্তানে যাচ্ছেন মাইকেল ক্লার্ক, হাশিম আমলা, নিউজিল্যান্ডের লুক রনকি, অস্ট্রেলিয়ার টিম পেইনের মতো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাররা।
২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কা খেলোয়াড়দের বহন করা বাসে বন্দুকধারীরা হামলা চালানোর পর আর কোনো টেস্ট দল পাকিস্তান সফর করেনি। শুধু ২০১৫ সালে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে পাকিস্তান সফর করে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল।

সরে গেলেন রাহুল দ্রাবিড়

ভারত ক্রিকেট দলের ব্যাটিং পরামর্শকের পদ থেকে সরে গেলেন রাহুল দ্রাবিড়। শনিবার বিসিসিআইয়ের সঙ্গে বৈঠক শেষে কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটর্স (সিওএ)-এর প্রধান বিনোদ রাই জানান, সিনিয়ার দলের সঙ্গে বিদেশ সফরে অংশ নিতে পারবেন না রাহুল। তিনি বলেন, “দ্রাবিড়ের চুক্তি সম্পর্কিত সব সমস্যাই মিটে গিয়েছিল। কিন্তু তিনি নিজেই জানিয়ে দিয়েছেন দলের সঙ্গে বিদেশ সফরে অংশ নেবেন না।”
বর্তমানে ইন্ডিয়া ‘এ’ এবং অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় দলের কোচ রাহুল। আগামী বছরে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের জন্য দলকে আরও ভালও ভাবে তৈরি করতেই যে রাহুলের এই সিদ্ধান্ত তা এ দিন জানিয়ে দেন বিনোদ। তিনি বলেন, “আগামী বছর অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের জন্য নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন রাহুল। তবে, সিনিয়র দলের কোচ রবি শাস্ত্রী যদি চান তা হলে, ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে বিরাটদের পরামর্শদাতা হিসেবে যোগ দিতে পারেন দ্রাবিড়।” তবে, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপই রাহুলের সরে যাওয়ার মূল কারণ নয় বলে মনে করছেন অধিকাংশ ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ। তাঁদের মতে, কোচ নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অপমানিত হওয়ার কারণেই নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন রাহুল।

শ্রীলঙ্কার বোলিং কোচ চামিন্দা ভাস

শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটে সাম্প্রতিক যে ব্যর্থতার ধারাবাহিকতা, এর অন্যতম কারণ বোলিংয়ে দুর্বলতা। এই দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠার লক্ষ্যেই সাবেক পেসার চামিন্দা ভাসের সরণাপন্ন হয়েছে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড (এসএলসি)। বোলিং কোচ হিসেবে ভাসকে নিয়োগি দিতে যাচ্ছে তারা। চম্পকা রামানায়েকের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি।

জিম্বাবুয়ে সিরিজের পরই লঙ্কান ক্রিকেট দলের বোলিং কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন চম্পকা রামানায়েকে। ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে তিনি পদত্যাগের ঘোষণা দেন। দুই বছর দায়িত্ব পালন করার পর রামানায়েকে লঙ্কান দলের বোলিং কোচের পদ ছাড়লেন।

চম্পকা রামানায়েকে পদত্যাগ করার পর শুক্রবারই নতুন বোলিং কোচ হিসেবে চামিন্দা ভাসের নাম ঘোষণা করে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। নিয়োগ দেয়ার সময়ই এসএলসি জানিয়ে দেয়, ভারতের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কান পেস অ্যাটাককে গাইড করবেন তিনি। তবে ২০১৬ সাল থেকেই নানাভাবে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন ভাস।

কী কারণে রামানায়েকে লঙ্কান জাতীয় দলের বোলিং কোচের দায়িত্ব ছাড়লেন সেটা তিনি জানাননি। বলেছেন, তার কয়েকটি গন্তব্য রয়েছে। তবে এসবই মুখের কথা। রামানায়েকের পরবর্তী গন্তব্য বাংলাদেশ। জাগো নিউজেই সবার আগে এই খবর প্রকাশিত হয়েছে। এইচপি দলের বোলিং কোচ হিসেবে দায়িত্ব নেবেন তিনি। বিসিবির সঙ্গে কথা পাকাপাকি হওয়ার পরই তিনি লঙ্কান বোলিং কোচের চাকরিটা ছেড়ে দেন।

২০০৮ সালেই প্রথম বিসিবি চম্পকা রামানায়েকেকে বোলিং কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়। এর আগে সাত বছর তিনি লঙ্কান ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে কাজ করেছেন। বাংলাদেশের পেস বোলারদের কাছে তিনি বেশ প্রিয়। কারণ, তারা নিজেদের উঠতি সময়টাতে পেয়েছে রামানায়েকেকে। বিশেষ করে রুবেল এবং শফিউলকে খুঁজে বের করার কৃতিত্ব দেয়া হয় রামানায়েকেকে।

এক গোল দিয়ে তিনটি হজম যুবাদের

তাজিকিস্তান জাতীয় দলের বিরুদ্ধে একটি জয় আছে বাংলাদেশের। ২০১০ সালে শ্রীলংকায় এএফসি চ্যালেঞ্জ কাপে তাজিকদের ২-১ গোলে হারিয়েছিল লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। সাত বছর আগের বড়দের ওই জয় কিছুটা হলেও সাহস জুগিয়েছিল অনূর্ধ্ব-২৩ দলকে।

ফিলিস্তিনে এএফসি চ্যাম্পিয়নশিপের দ্বিতীয় ম্যাচের শুরুটাও ছিল সুন্দর। প্রথম ম্যাচে জর্ডানের কাছে ৭-০ গোলে বিধ্বস্ত হওয়ার পর তাজিকিস্তানকে হারিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টাও ছিল লাল-সবুজ জার্সিধারী যুবাদের, কিন্তু কে জানতো প্রথমার্ধে ১-০ গোলে থেকে দ্বিতীয়ার্ধে ৩ গোল খেয়ে মাঠ ছাড়বে?

বাস্তবে হয়েছেও তাই। প্রথমার্ধে তাজিকদের চেয়ে ভালো খেলেই এগিয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। ৩৩ মিনিটে ডান দিক থেকে নেয়া কর্নার কিক এক ডিফেন্ডার ফিরিয়ে দিলে বল পান বক্সের বাইরে সোহেল রানা। তিনি বলটি থামিয়ে শট নেন বা পায়ে। তাজিকিস্তানের এক ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে বল চলে যায় সোহেল মিয়ার সামনে। তিনি ভুল করেননি- প্লেসিং শটে বল পাঠিয়ে দেন তাজিকিস্তানের জালে।

পিছিয়ে পড়া তাজিকিস্তান দ্বিতীয়ার্ধে আহত বাঘের মতো ঝাঁপিয়ে পড়ে বাংলাদেশের উপর। ৫৫ মিনিটে ম্যাচে সমতা আনেন তাজিকিস্তানের আমিরঝোন সাফারভ। তিন ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে গোল করেন তিনি। ৬৬ মিনিটে পেনাল্টি গোলে তাজিকিস্তানকে এগিয়ে দেন নোজিম বাবাদজানভ। তার নেয়া পেনাল্টি শট গোলরক্ষক জিকো বাম দিকে ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দিলেও শেষ রক্ষা হয়নি। বাবাদজানভ ফিরতি বল পাঠিয়ে দেন জালে।

তাজিকিস্তান জয়ের ব্যবধান বাড়িয়ে নেয় ৮৬ মিনিটে। আবদুগাফারভের পাস থেকে গোল করেন জইর জোরাবায়েভ। বাংলাদেশের শেষ ম্যাচ রোববার স্বাগতিক ফিলিস্তিনের বিপক্ষে। পর পর দুই ম্যাচ হারা বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দলের কাছে শেষ ম্যাচটা এখন শুধুই আনুষ্ঠানিকতা।

প্রত্যাশিত শিক্ষা পাওয়াতেই খুশি এইচপি দলের খেলোয়াড়রা

সব ম্যাচে জয় নয়, বরং কন্ডিশনিং ক্যাম্প থেকে প্রত্যাশিত শিক্ষা নিয়ে আসতে পেরেই বেশি খুশি বিসিবির হাই পারফর্মেন্স দলের খেলোয়াড়রা। অস্ট্রেলিয়ার নর্দার্ন টেরিটরিতে ১৫ দিনের কন্ডিশনিং ক্যাম্পে ৫ ওয়ানডে আর একটি তিনদিনের ম্যাচের সবগুলো জিতে দেশে ফেরার পর নিয়মিত অনুশিলন শেষে একথা জানান দলের অধিনায়ক লিটন ও পেসার সাইফুদ্দিন।
দুই সপ্তাহের সফর শেষে সোমবার রাতে দেশে ফেরে বিসিবি এইচপি দল। ডারউইনে নর্দান টেরিটরি আমন্ত্রিত একাদশের বিপে পাঁচটি একদিনের ম্যাচ ও একটি তিন দিনের ম্যাচের সবকটি জিতেছে বাংলাদেশের দলটি। তবে জয়ের চেয়ে বেশি কন্ডিশনিং ক্যাম্প থেকে নিজেদের কাঙ্খিত শিাটা অর্জন করে আসতে পারাতেই বরং সন্তুষ্টি অধিনায়ক লিটন কুমার দাস ও পেসার সাইফুদ্দিন আহমেদের। তবে বিরুপ আবহাওয়ায় কিভাবে মানিয়ে নিতে হয় সে শিাটাও তারা নিয়েছেন অস্ট্রেলিয়া সফরে। এইচপি দলের অধিনায়ক লিটন কুমার দাস সেটাই বললেন, ‘বাংলাদেশে প্রচুর সোয়েটিং হয়। ওখানেও হয়েছে। কিন্তু সেখানে প্রচুর বাতাস থাকে। তাতে ঘাম খুব একটা অসুবিধা করতে পারে নি। আমরা নিজেদেরকে খাপ খাইয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেছি।’
এই দুই তরুণই আছেন অস্ট্রেলিয়া ও দণি আফ্রিকার বিপে সিরিজের জন্য ঘোষিত প্রাথমিক স্কোয়াডে। এই সফরে অলরাউন্ডারের ভূমিকায় আর্বিভূত হন পেসার সাইফুদ্দিন। তিনি একটি ম্যাচে সেঞ্চুরিও করেন। তাতে দল পায় সহজ জয়। জাতীয় দলের হয়ে খেলার স্বপ্ন থাকলেও এ মুহূর্তে ভাবনা জুড়ে কেবলই বর্তমানের দায়িত্বটুকু। জাতীয় দলের পাইপলাইনে থাকা এই ক্রিকেটার জানান, ‘জাতীয় দলে খেলার ভাবনা নিয়ে তো খেলি নি। খেলেছি দলের নিজের দায়িত্বটা ভালোভাবে পালন করার জন্য। সেটা করতে পেরেই আমি সন্তুষ্ট। আর ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলতে পারলে এমনিতেই জাতীয় দলে খেলার সুযোগ আসবে।’
বেলিং নিয়ে উচ্ছ্বাস থাকলেও ব্যাটিং নিয়ে আছে কিছুটা হতাশা। আরও ভালো হতে পারত ব্যাটিং। উন্নতির সুযোগ আছে ফিটনেস ও ফিল্ডিংয়ে। বোর্ডের সাথে চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারদের দ্বন্দ্বে এবারের সফরে খেলতে পারেন নি অস্ট্রেলিয়ার নর্দার্ন টেরিটোরির নিয়মিত খেলোয়াড়রা। তারপরও একম্যাচ ছাড়া বাকি কোনোটিতেই বড় স্কোর করতে না পারায় দলের ব্যাটিং নিয়ে কিছুটা হতাশা আছে দুজনেরই।

নিজের ব্যাটে খেলতে পারবেন না গেইল ওয়ার্নার ও ধোনী-রা

ক্রিস গেইল, কাইরন পোলার্ড, ডেভিড ওয়ার্নার এবং মহেন্দ্র সিং ধোনী তাদের পছন্দের ব্যাট দিয়ে আর খেলতে পারবেন না। আগামী অক্টোবর থেকেই নিজেদের প্রিয় ব্যাটটি দূরে রাখতে হবে তাদের। মেরিলিবোন ক্রিকেট কাব-এমসিসি যারা ক্রিকেটের নিয়মগুলো করে থাকে তারা ব্যাটের আকারে পরিবর্তনের নিয়ম এনেছে।
সেই হিসেবে ব্যাটের প্রস্থ ১০৮ মিলিমিটারের বেশি হতে পারবে না। সর্বোচ্চ ৬৭ মিলিমিটার পুরো হবে ব্যাট। আর তার কানারা হতে হবে সর্বোচ্চ ৪০ মিলিমিটার। আর ক্রিস গেইল, কাইরন পোলার্ড, ডেভিড ওয়ার্নার এবং মহেন্দ্র সিং ধোনীর ব্যাটের কিনারা তো ৪০ মিলিমিটারের চেয়ে বেশি। তাই আগামী ১ অক্টোবর থেকে চালু হতে যাওয়া নিয়ম অনুযায়ী তারা নিজেদের প্রিয় ব্যাট দিয়ে খেলতে পারবেন না।
অস্ট্রেলিয়ার ডেভিড ওয়ার্নার, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল এবং পোলার্ডের ব্যাটের কিনারা ৫০ মিলিমিটারের ওপরে। ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনীর ব্যাটের কিনারা হলো ৪৫ মিলিমিটার। আর এই ব্যাট দিয়েই তারা বোলারদের আঁছড়ে ফেলেন মাঠ কিংবা গ্যালারির বাইরে। জানা গেছে, নতুন ব্যাটে অভ্যস্ত হতে এখন থেকেই অনুশীলন শুরু করেছেন কাইরন পোলার্ড।

সনির ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হলেন শচীন টেন্ডুলকার

ক্রিকেটের জীবন্ত কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারকে ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিলো ভারতের সনি পিকচার নেটওয়ার্ক। তাদের দুটি নতুন চ্যানেলের অ্যাম্বাসেডর হিসেবে কাজ করবেন টেস্ট ও ওয়ানডে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রানের মালিক শচীন টেন্ডুলকার। মুম্বাইয়ে চ্যানেল দুটির অ্যাম্বাসেডর হিসেবে টেন্ডুলকারকে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। এ সময় তিনি আসন্ন ফিফা অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপকে সফল করে তোলার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ক্রিকেটকে যেমন ভালোবাসে ভারতের জনগণ তেমনি দেশের অন্যান্য খেলাকেও ভালোবাসেন, এটাই এবার প্রমানের সময়। আগামী অক্টোবর মাসে ভারতে শুরু হবে অনূর্ধ্ব-১৭ বিশ্বকাপ ফুটবল আসর।

নারী বিশ্বকাপের ফাইনালে ইংল্যান্ড

চরম নাটকীয় ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২ উইকেটে হারিয়ে মহিলা বিশ্বকাপের ফাইনালে জায়গা করে নিলো স্বাগতিক ইংল্যান্ড। ভারতের কাছে হার দিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করা দলটি এখন প্রতিযোগিতার ফাইনালে। মঙ্গলবার টসে জিতে ব্যাটিংয়ের নেমে ৬ উইকেটে ২১৮ রান তোলে প্রোটিয়ারা। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে বড় রান করেন লরা উলভার্ট(৬৬) এবং মিগনন ডু’প্রেজ(৭৬)।
জবাবে ২ উইকেট হাতে নিয়ে ৪৯.৪ ওভারে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় ইংল্যান্ড। ৮ উইকেট হারিয়ে হিথার নাইটের দল তোলে ২২১ রান। ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান সারা টেলর(৫৪)। সারা ছাড়াও এই জয়ের নেপথ্যে অবদান রাখেন ফ্রান উইলসন(৩০), নাইট(৩০), জেনি গান(২৭)। দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দু’উইকেট উইকেট পান শাবনিম আয়বঙ্গা খাকা এবং সান লুস। এ দিনের ম্যাচের সেরা নির্বাচিত হয়েছেন ইংরেজ উইকেটরক্ষক সারা টেলর।

টেস্টে অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর আশা মুমিনুলের

গত কিছুদিন যাবত টেস্টে যেভাবে খেলছে বাংলাদেশ তাতে ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়াকেও হারানো সম্ভব। এমনটাই মনে করেন টাইগারদের মিডলঅর্ডার ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে অনুশীলন শেষে এমনটাই জানান তিনি।
স্টিভেন স্মিথের নেতৃত্বে অস্ট্রলিয়ার সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স খারাপ নয়। তারপরও সেই দলটিকেই হারাতে চান বাংলাদেশের টেস্ট স্পেশালিষ্ট ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক। সাম্প্রতিক সময়ে ওয়ানডের পাশাপাশি টেস্টেও বাংলাদেশের দুর্দান্ত পারফরম্যান্স এই আশা যোগাচ্ছে বাংলাদেশের ‘দ্যা ওয়াল’কে। আগামী মাসের ১৮ তারিখে ঢাকায় আসার কথা অস্ট্রেলিয়ার। তাদের বিপক্ষে প্রস্তুতি নিতে চলছে কন্ডিশনিং ক্যাম্প। আজ মঙ্গলবারের অনুশীলন শেষে মুমিনুল বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আমার ইচ্ছা ২-০ তে জেতা। গত কয়েক বছরে আমরা যেভাবে টেস্ট খেলেছি তাতে করেই আমার এ বিশ্বাস। ১-১ হলেও খারাপ হয় না। তবে আমার দৃঢ় বিশ্বাস আমাদের দুটি ম্যাচই জেতার সামর্থ্য রয়েছে। কেননা আগের চেয়ে আমাদের টেস্ট দলটা অনেক ভালো।’
গত বছর থেকে ওয়ানডের পাশাপাশি টেস্ট ম্যাচেও ভালো খেলছে বাংলাদেশ। ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়। এরপর নিউজিল্যান্ড সিরিজে হারলেও দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে টাইগাররা। ভারতেও টাইগারদের পারফরম্যান্স ছিল উল্লেখ করার মতোই। এরপর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে নিজেদের শততম টেস্ট জয়। এ সকল কারণেই মুমিনুল আত্মবিশ্বাস অনেক তুঙ্গে। যুক্তি তুলে ধরে মুমিনুল জানান, ‘বলছি না আমরা ২-০ তেই জিতবো। তবে আমরা যেভাবে ক্রিকেট খেলছি এবং যদি এভাবে ভালো ক্রিকেট খেলতে পারি তাহলে ২-০ তে জেতা সম্ভব।’
অবশ্য অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আগে খেলা ৪ ম্যাচেই হেরেছে টাইগাররা। হোম সিরিজে টাইগাররা তুলনামূলকভাবে সুবিধা পাবে বলে মনে করেন মুমিনুল। বলেন, ‘আমার মনে হয় ইংল্যান্ডের চেয়ে খানিকটা কঠিন হবে। কিছুদিন আগে অস্ট্রেলিয়া ভারতের কন্ডিশনে খেলে এসেছে। আর ইংল্যান্ড আমাদের বিপক্ষে খেলে ভারতে গিয়েছিল। সবকিছু মিলিয়ে আমার মনে হয় অস্ট্রেলিয়া সিরিজ খানিকটা কঠিন হবে। ওরা এই কন্ডিশনে খেলে অভ্যস্ত। আমাদের সেভাবেই প্রস্তুত হতে হবে।’

রেকর্ড গড়া জয়ে জিম্বাবুয়েকে ৪ উইকেটে হারালো শ্রীলঙ্কা

নিজেদের মাটিতে সর্বোচ্চ ৩৮৮ রান তাড়া করার রেকর্ড গড়ে কলম্বো টেস্টে জিম্বাবুয়েকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কা। শ্রীলঙ্কার মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩৭৭ রানের লক্ষ্য তাড়ার রেকর্ড পাকিস্তানের। ২০১৫ সালে পালেকেল্লের সেই টেস্ট ৭ উইকেট জিতেছিল অতিথরা। দেশের মাটিতে লঙ্কানরা সর্বোচ্চ ৩৫২ রানের লক্ষ্য তাড়া করে জিতেছে, ২০০৬ সালে পি সারা ওভালে। এটা সবমিলিয়ে পঞ্চম সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড।

ষষ্ঠ উইকেটে ডিকাভেলা ও গুনারত্নের ১২১ রানই জয়ের পথ দেখায় শ্রীলঙ্কাকে।

রীতিমত অবিশ্বাস্য। লঙ্কানদেরও সম্ভবত কেউ বিশ্বাস রাখতে পারেননি, তারা জিততে পারেন। ওয়ানডে সিরিজে অবিশ্বাস্যভাবে ৩-২ ব্যবধানে হারের পর মানসিকভাবে জিম্বাবুয়ে যেভাবে এগিয়ে গিয়েছিল, তাতে কলম্বো টেস্ট জয় যেন তাদের জন্য খুব সহজ একটি কাজ; কিন্তু শেষ দিনে এসে কিছুটা বুড়ো হাঁড়ের ভেলকি দেখাল শ্রীলঙ্কা। যদিও দলের ক্রিকেটাররা অনেক তরুণ।
শেষ মুহূর্তে অ্যাসেলা গুনারত্নে এবং নিরোশান ডিকভেলার দারুণ একটি জুটিতেই ঐতিহাসিক জয় পেয়ে গেলো শ্রীলঙ্কা।
জয়ের জন্য দ্বিতীয় ইনিংসে শ্রীলঙ্কার সামনে লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছিল ৩৮৮ রান। নিজেদের মাঠে এত বড় লক্ষ্য তাড়া করে জয়ের রেকর্ড লঙ্কানদের তো ছিলই না। এমনকি এশিয়া মহাদেশেও এত বড় রান তাড়া করার রেকর্ড নেই। শ্রীলঙ্কার মাটিতে ২০১৫ সালে ৩৮২ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ছিল পাকিস্তানের। এবার সেটাকেও পার হয়ে গেলেন দিনেশ চান্দিমালরা।
লাঞ্চের পরই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় শ্রীলঙ্কা। একমাত্র টেস্টের এই সিরিজে জয়ের মধ্য দিয়ে অধিনায়ক হিসেবে দারুণ অভিষেক হলো দিনেশ চান্দিমালেরও।
কলম্বো টেস্টের শেষদিনে ৬ উইকেটে ৩৯১ রান তোলে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা। ম্যাচ সেরা আসেলা গুনারত্নে ৮০ রানে এবং দিলরুয়ান পেরেরা ২৯ রানে অপরাজিত থাকেন। এর আগে, দ্বিতীয় ইনিংসে ৩৭৭ রান করে লঙ্কাকে ৩৮৮ রানে জয়ের টার্গেট দেয় জিম্বাবুয়ে। প্রথম ইনিংসে জিম্বাবুয়ের ৩৫৬ রানের জবাবে ৩৪৬ রানে অল আউট হয়েছিলো শ্রীলঙ্কা।
টেস্টের ১৪০ বছরের ইতিহাসে এটি তৃতীয় ঘটনা যে ম্যাচের চারটি ইনিংসই ৩০০-৪০০ র মধ্যে রান হয়েছে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
জিম্বাবুয়ে : ৩৫৬ ও ৩৭৭।
শ্রীলংকা : ৩৪৬ ও ৩৯১/৬(ডিকভেলা ৮১, গুনারুত্নে ৮০*, ক্রেমার ৪/১৫১)।
ফল : শ্রীলংকা ৪ উইকেটে জয়ী
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : আসেলা গুনারত্নে (শ্রীলংকা)
ম্যান অব দ্য সিরিজ : রঙ্গনা হেরাথ (শ্রীলংকা)

বৃহস্পতিবার থেকে নারী ক্রিকেটারদের অনুশীলন

২০ জুলাই থেকে শুরু হবে নারী ক্রিকেটারদের অনুশীলন ক্যাম্প। এই ক্যাম্পের জন্য ৪২ ক্রিকেটারকে ডাকা হয়েছে। ১৯ জুলাই বিকেল ৫টায় ক্রীড়া পল্লিতে তাদেরকে রিপোর্ট করতে বলা হয়েছে।
ক্যাম্প চলাকালে ৪২ ক্রিকেটারকে ৩টি দলে বিভক্ত করা হবে। পদ্মা একাদশ, মেঘনা একাদশ ও যমুনা একাদশ। এই তিন দল ২২ থেকে ২৮ জুলাই পর্যন্ত প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে।
ক্যাম্পে ডাক পাওয়া ৪২ নারী ক্রিকেটার হলেন : রুমানা আহমেদ, জাহানারা আলম, সানজিদা ইসলাম, সালমা খাতুন, ফারাজানা হক, রিতু মনি, নিগার সুলতানা, সুরাইয়া আজমিন, পান্না ঘোষ, শারমিন আক্তার সুপ্তা, আয়শা রহমান, খাদিজাতুল কুবরা, শায়লা শারমিন, নাহিদা আক্তার, ফাহিমা খাতুন, শারমিন সুলতানা, মোর্শেদা খাতুন, জান্নাতুল ফেরদৌস সুমনা, নুজহাত তাসনিয়া টুম্পা, লতা মন্ডল, তৃপ্তি মন্ডল, শামীমা সুলতানা, সানজিদা জান্নাত, লিলি রানি, শবনম মুস্তারি, তাজ নাহার, ইশমা তানজিম, পাব্রিতা রায়, লাবনি আক্তার, সানদিহা ইসলাম, ইসমত জাহান ইমু, বৈশাখি সুলতানা ইয়াসমিন, বৃষ্টি রায়, ইসমত আরা, সামিয়া আক্তার সালমা, জান্নাতুল ফেরদৌস তিথি, পূজা চক্রবর্তী, আয়েশা আক্তার, নিপা আক্তার, তানিয়া সরকার ইলা, হ্যাপি আলম ও সোহেলি আক্তার।

সমতায় ফিরলো দক্ষিণ আফ্রিকা, ধরাশায়ী ইংল্যান্ড

নটিংহাম টেস্টে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকে ৩৪০ রানের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। এই জয়ে ৪ ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা আনলো প্রোটিয়ারা। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে রান ব্যবধানে এটি প্রোটিয়াদের দ্বিতীয় বড় জয়।
তৃতীয় দিনই ইংল্যান্ডের সামনে জয়ের জন্য ৪৭৪ রানের টার্গেট ছুঁড়ে দেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। শেষ বেলায় ৪ ওভারে বিনা উইকেটে ১ রান তুলে দিন শেষ করেছিলো ইংল্যান্ড। চতুর্থ দিন দক্ষিণ আফ্রিকার বোলারদের সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করে ইংলিশদের ব্যাটসম্যান। ফলে ১৩৩ রানে নিজেদের ইনিংস গুটিয়ে নেয় স্বাগতিকরা। দলের পক্ষে সাবেক অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুক সর্বোচ্চ ৪২ রান করেন। দক্ষিণ আফ্রিকার ভারনন ফিল্যান্ডার ও কেশব মহারাজ ৩টি করে উইকেট নেন।
ওভালে আগামী ২৭ জুলাই হবে সিরিজের তৃতীয় টেস্ট।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
দক্ষিণ আফ্রিকা : ৩৩৫ ও ৩৪৩/৯(ডি)।
ইংল্যান্ড : ২০৫ ও ১৩৩(কুক ৪২, ফিলান্ডার ৩/২৪)।
ফল : দক্ষিণ আফ্রিকা ৩৪০ রানে জয়ী।
সিরিজ : ৪ ম্যাচের সিরিজে ১-১ সমতা।

আরও এক ইতিহাসের সামনে জিম্বাবুয়ে

কলম্বো টেস্টের পঞ্চম দিনে জয়ের জন্য শ্রীলঙ্কার দরকার ২১৮ রান আর জিম্বাবুয়ের প্রয়োজন ৭ উইকেট। ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের কাছে ৩-২ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজ হারের পর এবার একমাত্র টেস্টেও পরাজয়ের লজ্জার মুখে লঙ্কানরা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে কলম্বো টেস্ট জিততে হলে এখন রীতিমত রেকর্ড গড়তে হবে।
সিকান্দার রাজার অসাধারণ এক সেঞ্চুরির ফলে দ্বিতীয় ইনিংসে রানের পাহাড় গড়ে জিম্বাবুয়ে। অলআউট হওয়ার আগে স্কোরবোর্ডে জিম্বাবুয়ের রান ওঠে ৩৭৭। প্রধম ইনিংসে ১০ রানে লিডসহ মোট ৩৮৭ রানের লিড নিয়ে নেয় জিম্বাবুয়ে। জিততে হলে শ্রীলঙ্কাকে করতে হবে ৩৮৮ রান।

টেস্টের যে পরিস্থিতি, তাতে লঙ্কানদের জন্য এই ৩৮৮ রান বলতে গেলে অসম্ভবই। আবার নিজেদের মাটিতে জিততে হলে লঙ্কানদের রীতিমত রেকর্ডই গড়তে হবে। কারণ, চতুর্থ ইনিংসে শ্রীলঙ্কার মাটিতে সর্বোচ্চ ৩৮২ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড রয়েছে পাকিস্তানের। ২০১৫ সালে ইউনিস খানের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে এই রান তাড়া করে জিতেছিল পাকিস্তান। এবার পাকিস্তানের করা রেকর্ডটি গুঁড়িয়ে দিতে হবে দিনেশ চান্দিমালদের।
তবে ইতিহাস গড়া লঙ্কানদের পক্ষে সম্ভব হবে কি না তাতে যথেষ্টই সন্দেহের। কারণ ১৩৩ রানের মধ্যেই ৩ উইকেট হারিয়ে বসেছে শ্রীলঙ্কা। ফিরে গেছেন দুই ওপেনার উপুল থারাঙ্গা, দিমুথ করুনারত্নে এবং অধিনায়ক দিনেশ চান্দিমাল। করুনারত্নে আর থারাঙ্গা মিলে ৫৮ রানের জুটি গড়ার পর স্পিনার ক্রেমারের হাতে ভাঙে ওপেনিং জুটি। ২৭ রানে ফিরে যান থারাঙ্গা। এরপর ৪৯ রান করে করুনারত্নে এবং ১৫ রান করে আউট হয়ে যান। তবে চতুর্থ উইকেট জুটিতে অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউজ আর কুশল মেন্ডিসের ব্যাটে ভালোই ঘুরে দাঁড়িয়েছে স্বাগতিকরা। চতুর্থ দিন শেষে লঙ্কানদের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৭০ রান। ৬০ রান নিয়ে কুশল মেন্ডিস এবং ম্যাথিউজ অপরাজিত আছেন ১৭ রানে।

মিরাজের ‌ওযেস্ট ইন্ডিজ যাত্রা ২৭ জুলাই

আনুষ্ঠানিক অনুমতি পাওয় গেছে। রোববার অনাপত্তিপত্রে সই করেছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। সবকিছু ঠিক থাকলে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) খেলতে আগামী ২৭ জুলাই রাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়বেন মেহেদী হাসান মিরাজ।
পুরো টুর্নামেন্ট অবশ্য খেলতে পারবেন না মিরাজ। দেশে ফিরতে হবে অস্ট্রেলিয়া সিরিজের আগেই। অনাপত্তিপত্র পেয়েছেন ১৫ অগাস্ট পর্যন্ত। ত্রিনবাগো তাকে পাবে তাই প্রথম ৫ ম্যাচে। এদিকে, সিপিএলে দল পেয়ে সে সময় দারুণ উচ্ছ্বসিত ছিলেন মিরাজ।
জানিয়েছিলেন, অনেক ভালো ভালো ক্রিকেটারের সঙ্গে খেলতে পারার কথা। তাদের কাছ থেকে শিখে নিজের খেলায় উন্নতি করার কথাও।
সিপিএলে মিরাজ খেলবেন ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সে। অস্ট্রেলিয়ান চায়নাম্যান বোলার ব্র্যাড হগের বদলে বাংলাদেশের অফ স্পিনিং অলরাউন্ডারকে নিয়েছে দলটি।
সিপিএলের এবারের আসর শুরু হবে ৪ অগাস্ট। উদ্বোধনী দিনেই মিরাজের দল খেলবে সেন্ট লুসিয়া স্টার্সের বিপক্ষে।
একই আসরে জ্যামাইকা তালাওয়াহসের হয়ে খেলবেন সাকিব আল হাসান। তার দেশ ছাড়ার কথা ২৯ জুলাই।

সৌম্যর চোখে অস্ট্রেলিয়া বধের স্বপ্ন

২০১৫ সালে অভিষেকের বছরটা বেশ ভালই কেটেছিলো বাংলাদেশের ওপেনার সৌম্য সরকারের। আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে সেবছরই অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপে সবার প্রশংসাও পেয়েছিলেন বাঁহতি এই ওপেনার। কিন্তু বর্তমান সময়টা মোটেও ভাল যাচ্ছেনা তার। চলিত বছর খেলা ১১ ওয়ানডেতে প্রায় ২১ গড়ে তার রান মাত্র ২৩৫। তবে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের আগেই নিজের পুরেণা সেই ছন্দে ফিরতে প্রত্যয়ী সৌম্য সরকার। দক্ষিণ এশিয়ার বাইরে মাত্র ১টি টেস্ট খেলেছেন, সেটি নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। সেই সৌম্যর টার্গেট এবার অস্ট্রেলিয়া। সোমবার মিরপুরে অনুশীলন শেষে স্টিভেন স্মিথের দলের বিপক্ষে দারুণ কিছু করার প্রত্যয় তার কণ্ঠে, ‘এটা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আমার প্রথম টেস্ট সিরিজ হবে। আমি এটাকে স্মরণীয় করে রাখতে চাই। আমার ব্যাটিংয়ের মাধ্যমে যেন আমরা দেশের মাটিতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম কোন টেস্ট জিততে পারি সেই চেষ্টাই করব।’
টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেকের পর প্রায় ১৭ বছর কাটিয়ে দিলেও অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের খেলা মোট ম্যাচের সংখ্যা মাত্র ৪টি। সবশেষ টেস্ট সিরিজটি ছিলো ২০০৬ সালের এপ্রিলে, বাংলাদেশেই। এরপর কেটে গেছে ১১ বছরের বেশি সময়। অসিদের বিপক্ষে শেষ টেস্ট খেলা দলের মধ্যে একমাত্র মাশরাফি বিন মুর্তজা এখনও ক্রিকেট খেলেন। তবে শুধু মাত্র ওয়ানডে। টেস্টে নেই তিনি। তাই স্বাভাবিকভাবেই অসিদের বিপক্ষে এটাই হবে বর্তমান দলের সবার জন্যই প্রথম টেস্ট।
কদিন আগেই আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে অস্ট্রেলিয়ার মোকাবেলা করেছিল বাংলাদেশ। সেই ওয়ানডেতে দলে ছিলেন সৌম্য। এর আগে ভারতে আইসিসি টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপেও অসিদের বিপক্ষে খেলেছেন তিনি। তাই এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলা তার জন্য খুব নতুন কিছু না। তবে ওদের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেট খেলার অভিজ্ঞতা তো আর নেই। তা সত্ত্বেও জয়টাই লক্ষ্য থাকবে বলে জানালেন সৌম্য, ‘এটা আমার জন্য অনেক বড় সুযোগ। আমাদের এখানে তারা আসবে। তাদের বিপক্ষে খেলতে আমরা মুখিয়ে আছি। আশা করি আমরা ভালো ক্রিকেট খেলে অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারব।’ টেস্ট ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে হারানো বাংলাদেশের জন্য প্রায় অসম্ভব ভাবনা। কিন্তু সময়টা তো বাংলাদেশেরও বদলেছে। সৌম্যও জানালেন সেই কথা, ‘আমরাতো এমনিতেই টেস্ট কম খেলি। তার মধ্যে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে আরও কম খেলি। তবে গত কিছুদিন ধরে আমরা টেস্ট ভালো খেলছি। সর্বশেষ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আমরা টেস্ট সিরিজে ভালো করেছি।’

অনুশীলনে নামার অপেক্ষায় সাকিব

গত সপ্তাহে ইনজুরিতে পড়েছিলেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ইনজুরির কারণে ফিটনেস ক্যাম্পেও কয়েকদিন ধরে যোগ দিতে পারছেন না তিনি। তবে শীঘ্রই ইনজুরি সেরে মাঠে ফিরছেন এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।
জানা যায়, বাসার সিড়ি থেকে নামতে গিয়ে পায়ের গোড়ালিতে আঘাত পান সাকিব। এই চোটের কারণে বেশ কয়েকদিন বিশ্রামে থাকতে বলা হয়েছে তাকে। তবে এখন আগের চেয়ে অনেকটাই সুস্থ সাকিব। আশা করা যাচ্ছে ৫-৬ দিনের মধ্যেই সেরে উঠবেন তিনি। প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে না আসার কারণে এখনো অস্ট্রেলিয়া সিরিজের জন্য পুরোদমে অনুশীলন শুরু করেনি বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারা। কোচ আসার পরেই ব্যাটিং-বোলিং অনুশীলন শুরু করবে ক্রিকেটাররা। তাই পুরোপুরি সুস্থ হয়েই অনুশীলন শুরু করতে পারবেন সাকিব আল হাসান।
এদিকে, বাংলাদেশদ দলের ফিজিও এবং ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারায়ান আশা করছেন অতি শীঘ্রই পুরোদমে সুস্থ হয়ে দলের সঙ্গে ক্যাম্পে যোগ দেবেন সাকিব। ট্রেনার মারিও আরো জানান, সম্পূর্ণ সুস্থ না হলেও দুই-তিন দিনের মধ্যে হালকা অনুশীলন করবেন সাকিব এবং মঙ্গলবার থেকে সাইক্লিং করবেন তিনি।

সিকান্দার রাজার ব্যাটে জিম্বাবুয়ের লিড- চাপে শ্রীলঙ্কা

প্রথম সেঞ্চুরির পথে থাকা সিকান্দার রাজার ক্যারিয়ার সেরা ব্যাটিংয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে লড়াইয়ের পুঁজি পায় জিম্বাবুয়ে। রঙ্গনা হেরাথের চমৎকার বোলিংয়ের পরও কলম্বো টেস্টে বিপদে শ্রীলঙ্কা।
তৃতীয় দিনের খেলা শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ২৫২ রান। সিকান্দার রাজা ৯৭ ও ম্যালকম ওয়ালার ৫৭ রানে অপরাজিত আছেন। সপ্তম উইকেটে তাদের অপরাজিত ১০৭ রানের জুটিতে ২৬২ রানের লিড নিয়েছে অতিথিরা, হাতে আছে ৪ উইকেট।
৫৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপর্যয়ে পড়ে জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং। লঙ্কান স্পিনে কুপোকাত জিম্বাবুয়ে। দ্রুত রান তুলে দলের ওপর চাপ সরিয়ে দেন সিকান্দার রাজা। পরে ব্যাট করেছেন পরিস্থিতি অনুযায়ী। রাজার ৯৭ রানের ইনিংসটি গড়া ১৫৮ বলে ৭টি চার ও একটি ছক্কায়।
এরআগে কলম্বায়, ১০ রানের লিড পেয়ে ব্যাট করতে নামা জিম্বাবুয়েকে শুরুতে কাঁপিয়ে দেন হেরাথ। প্রথম ইনিংসে পাঁচ উইকেট নেওয়া বাঁহাতি স্পিনারের দারুণ বোলিংয়ে মাত্র ২৩ রানে চার উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে অতিথিরা।
দিনের বাকি সময়টুকু শ্রীলঙ্কার অভিজ্ঞ স্পিনারের জন্য শুধুই হতাশার। খুব সহজেই তাকে খেলেছেন রাজা, পিটার মুর ও ওয়ালার। অন্য স্পিনার পেরেরাও খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। বাড়তি গতির জন্য যা একটু ভুগিয়েছেন পেসার লাহিরু কুমারা।
এই পেসারই ভাঙেন মুরের সঙ্গে রাজার ৮৬ রানের জুটি। মুরের সংগ্রহ ৪০ রান। ৮৫ রানে ৪ উইকেট নিয়েছেন হেরাথ। কুমারা ও পেরেরার শিকার একটি করে।
এর আগে রোববার আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ৭ উইকেটে ২৯৩ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করা শ্রীলঙ্কা, ৩৪৬ রানে অলআউট হয়। ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো পাঁচ উইকেট জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
জিম্বাবুয়ে ১ম ইনিংস: ৩৫৬
শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ৩৪৬
জিম্বাবুয়ে ২য় ইনিংস: ২৫২/৬ (রাজা ৯৭*, ওয়ালার ৫৭*; হেরাথ ৪/৮৫)

অন্যের সমালোচনা নয় খেলা নিয়েই বেশি ভাবনা নাসিরের

পত্রিকা খুব একটা পড়া হয়ে ওঠে না জাতীয় দলের অলরাউন্ডার নাসির হোসেনের। ফেসবুকও খুব কম ব্যবহার করেন তিনি। তাতে সমালোচনা নজরে আসে কম। সমালোচনা নিয়ে নয়; খেলা নিয়েই ভাবতে চান এই ডানহাতি অলরাউন্ডার। আজ (রোববার) বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) লাউঞ্জে বসে এ কথা বলেন তিনি।
নাসির আরও বলেন, ‘যাদের নাম হয়, তাদের বদনামও হয়। আর আপনি আমাকে এক চোখে দেখবেন আর অন্যজন অন্য চোখে দেখবে এটাই স্বাভাবিক।’

অলরাউন্ডার নাসির হোসেন

ফিটনেস ক্যাম্প নিয়ে নাসির বলেন, ‘ভালো পারফর্ম করার জন্য ফিটনেস ৬০ ভাগ সাহায্য করে। আমি আমারটা ফিটনেস ট্রেনিং ক্যাম্প থেকে ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করছি। মনোযোগ আর প্রস্তুতি এখন ফিটনেস ট্রেনিং নিয়ে। ব্যাটিং-বোলিং শুরু করার পর সেখানেও ভালো করার চেষ্টা করব।’
দলে ফেরার ব্যাপারে এই টাইগার ক্রিকেটার বলেন, ‘দলে ফেরার জন্য আমি সিরিয়াস অনুশীলন করছি। দলে প্রবেশের সুযোগ আমার হাতে নেই। আমার করণীয় যেটা, সেটা আমি করছি। এতটুকু বিশ্বাস আছে, আমি যেভাবে খেলছি সেভাবে খেলতে পারলে অবশ্যই জাতীয় দলে ঢুকব।’
অস্ট্রেলিয়া সিরিজের চেয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর নিয়েই ভাবছেন নাসির। তিনি আশা করছেন, জাতীয় দলের জার্সিতে সেখান থেকেই সূচনা হতে পারে নাসিরের । তার মতে, ‘টেস্ট সিরিজ নিয়ে তেমন কোনো লক্ষ্য নেই। ওয়ানডেতে যদি আমি খেলি অবশ্যই দল আমার থেকে যা চায়, সেটাই করার চেষ্টা করব।’
মাঠের বাইরের জীবনযাপন নিয়ে এদেশে সবচেয়ে আলোচিত ক্রিকেটারের নাম নাসির হোসেন। বরাবরই আলোচনায় থাকেন ফিনিশার খ্যাত এই অলরাউন্ডার। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাশরাফির পর সবচেয়ে জনপ্রিয় ক্রিকেটারও এই নাসির।

সৌরভের মূর্তি বসানো নিয়ে সমস্যা

নিজের মূর্তি উন্মোচন নিয়েই ব্যস্ত ছিলেন মহারাজ। নিরাপত্তা থেকে ভক্তদের উচ্ছ্বাস, সবই ছিল প্রত্যাশা মাফিক। কিন্তু মূর্তি উন্মোচন করতে গিয়েই দেখা দিল আরেক সমস্যা।
শনিবার বালুরঘাট ছিল সৌরভময়। ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বকালের অন্যতম সেরা অধিনায়কের জন্য ব্যানার ও পোস্টারে সেজে উঠেছিল বালুরঘাট। সৌরভের উপস্থিতির জন্য স্টেডিয়াম জুড়ে ছিল তিন স্তরের নিরাপত্তা। বালুরঘাট স্টেডিয়ামে নিজের মূর্তি উন্মোচনের কথা ছিল সৌরভের। যথারীতি সেই মূর্তিও এসে যায়। অথচ তা বালুরঘাট স্টেডিয়ামে বসানো সম্ভব হয়নি। কেন? আসলে বালুরঘাট স্টেডিয়ামের যে কমিটি রয়েছে তার প্রধান হলেন এই জেলার ডিএম। তিনি আইনিগত সমস্যাকে তুলে ধরে জানিয়ে দেন, এখনই মূর্তি বসানোর অনুমতি দেওয়া তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। এতে নিজের মূর্তি উদ্বোধন করে গেলেও তা কোথায় বসানো হবে তা নিয়ে জটিলতা রয়ে যায়। এই ব্যাপারে সৌরভ হাসতে হাসতে বলেন, ‘তেমন হলে আমি এই মূর্তি নিয়ে চলে যাব।’
শিলিগুড়ির শিল্পী সুশান্ত পাল প্রায় ৩ মাস ধরে সৌরভের এই মূর্তিটি তৈরি করেছেন। ২০০৩ বিশ্বকাপে অধিনায়ক সৌরভের আদলে মূর্তিটি তৈরি করা হয়। গত সোমবার মূর্তিটি বালুরঘাটে এসে পৌঁছায়।

রবি শাস্ত্রীর বেতন বছরে ৭ কোটি রুপি

ভারতের নতুন কোচ রবি শাস্ত্রীকে বছরে দেওয়া হবে ৭ কোটি রুপিরও বেশি। বিসিসিআই এমনই জানিয়েছে। প্রাক্তন কোচ অনিল কুম্বলেও সমপরিমাণ টাকাই দাবি করেছিলেন বোর্ডের কাছে। এর আগে শাস্ত্রী যখন টিম ডিরেক্টর ছিলেন তখনও বছরে ৭ কোটির বেশি পেতেন তিনি।
এক বোর্ড কর্তা জানিয়েছেন, ‘‌রবি শাস্ত্রীকে বছরে ৭ কোটিরও বেশি দেওয়া হবে। অনিল কুম্বলেও গত মে মাসে এই টাকাই দাবি করেছিলেন। তবে শাস্ত্রীকে সাড়ে ৭ কোটির বেশি যে দেওয়া হবে না এটুকু নিশ্চিত।’‌ শাস্ত্রীর সাপোর্ট স্টাফরা বছরে পাবেন ২ কোটির কাছাকাছি। যে তালিকায় সঞ্জয় বাঙ্গার ছাড়াও ভরত অরুণরা রয়েছেন। খুব শীঘ্রই বোর্ড শাস্ত্রী ও সাপোর্ট স্টাফদের সঙ্গে চুক্তি সেরে ফেলবে।
তবে ভরত অরুণের চুক্তি এখনও নিশ্চিত নয়। ভরত অরুণ আবার বেঙ্গালুরু রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ও হায়দরাবাদ রনজি দলের বোলিং কোচের দায়িত্বে রয়েছেন। ভারতীয় দলের বোলিং কোচ নিযুক্ত হলে এই দায়িত্ব ছেড়ে আসতে হবে অরুণকে। বাঙ্গার যেমন কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের দায়িত্ব ছাড়ার পরই জাতীয় দলের সহকারী কোচ নিযুক্ত হন। আবার রাহুল দ্রাবিড় যেমন ভারতীয় এ এবং অনূর্ধ্ব-১৯ দলের দায়িত্বের জন্য প্রথম বছরে পাবেন সাড়ে চার কোটি। দ্বিতীয় বছর পাঁচ কোটি। বিদেশ সফরে ভারতীয় দলের ব্যাটিং পরামর্শদাতা হওয়ায় বাড়তি টাকা পাবেন রাহুল। জাহির খানকে নিয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি বোর্ড। জাহিরকে কতদিন পাওয়া যাবে তার উপর নির্ভর করছে চুক্তির টাকার অঙ্ক। গতবারও জাহিরকে বোলিং পরামর্শদাতা হওয়ার কথা বলা হয়েছিল। সেবার ১০০ দিনের জন্য ৪ কোটি চেয়েছিলেন জাহির।

একটু সম্মানের আশা মুশফিকের

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-টোয়েন্টির আসন্ন আসরকে ঘিরে নিজেদের মতো করে দল সাজাচ্ছে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো। তবে দল নিয়ে এখনই ভাবছে না বরিশাল বুলস। গত আসরে তাদের আইকন ক্রিকেটার ছিলেন বাংলাদেশ টেস্ট দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। বিপিএল চলাকালে ক্রিকেটারদের সঙ্গে বরিশাল বুলসের মালিক পক্ষের সাথে সম্পর্কের টানাপোড়েনও লেগেছিলো, যার প্রভাব পড়েছে মাঠেও।
তবে এবারের আসরে আইকন ক্রিকেটার হিসেবে মুশফিককে পছন্দ নন বলে জানান, বরিশাল বুলসের অন্যতম কর্ণধার এম এ আউয়াল চৌধুরী। তিনি বলেন, মুশফিকের কারণেই ভালো ফলাফল পায়নি বরিশাল বুলস। শুধু মুশফিকের অধিনায়কত্বই নয়, প্রশ্ন তোলেন দলের ক্রিকেটারদের প্রতি মুশফিকের দায়িত্ববোধ নিয়েও।
বাংলাদেশ টেস্ট দলের সফল অধিনায়ককে নিয়ে এমন মন্তব্য কতটা রুচিকর ছিলো সেটা নিয়ে ঝড় উঠেছে সামাজিক মাধ্যমগুলোতে। মুশফিককে বলা হয় দলের সবচেয়ে পরিশ্রমী ক্রিকেটার। অনুশীলন থাক বা না থাক, সবার আগে মাঠে হাজির হয়ে অনুশীলনে নেমে পড়েন দলের এই সফল উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান। এমন দায়িত্ববান ক্রিকেটারের সম্পর্কে তার দায়িত্বজ্ঞান নিয়ে প্রশ্ন তোলাতে বিব্রত সবাই। নিজের সম্পর্কে এমন মন্তব্য শুনে হতাশা মুশফিকও। বিষয়টি জানান বিসিবিকে মুশফিক। পরবর্তীতে সংবাদ সম্মেলনে
আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন মুশফিক। বলেন, দীর্ঘদিন দলের হয়ে খেলার সুবাদে অন্তত এটুকু সম্মান তো পেতে পারেন। জানান,
‘আমার সম্পর্কে যেকোন টিম মালিক এটুকু বলতে পারে, আমি খেলোয়াড় হিসেবে ভালো না কিংবা অন্যকিছু। কিন্তু আমার কোন দায়িত্বজ্ঞান নেই, খেলোয়াড়দের উৎসাহ দিতে পারি না, টিম মিটিংয়ে কথা বলতে পারি না বা আমি নিয়ম-শৃঙ্খলা মেনে চলি না।’
তিনি বলেন, ‘আমাদের দলের খেলোয়াড়রা জানে বা বাংলাদেশের অনেকেই জানে আমি কেমন এবং কতটুকু করতে পারি। তিনি যে ভাষ্য (বরিশাল বুলসের কর্ণধার) গুলো দিয়েছেন সেগুলো খুবই খারাপ লেগেছে।’
‘ক্রিকেট খেলছি দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে এবং আন্তর্জাতিক খেলছি ১২ বছর ধরে। দীর্ঘদিন জাতীয় দলের খেলার সুবাদে, অন্তত এইটুকু সম্মান তো পেতে পারি।’

ইনজুরিতে সাকিব আল হাসান

জাতীয় ক্রিকেট দলের কন্ডিশনিং ক্যাম্পে এসে ইনজুরিতে পড়লেন জাতীয় দলের অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তবে বিষয়টি এখনও নিশ্চিত নয়। মিরপুর স্টেডিয়াম এলাকায় গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে সাকিব ইনজুরিতে পড়েছেন। তবে এ নিয়ে সাকিব নিজে তো না’ই, অন্য কেউও কিছু বলছেন না।
জানা যায়, সাকিব যখন গাড়ি থেকে নেমে মাঠে প্রবেশ করছিলেন, তখন দেখা গেলো তিনি খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটছেন। ডান পায়ে ব্যান্ডেজ বাধা।
অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ এবং দক্ষিণ আফ্রিকায় পূর্ণাঙ্গ সফরের লক্ষ্যে মিরপুরে শুরু হয়েছে ক্রিকেটারদের কন্ডিশনিং ক্যাম্প। আজ ছিল ক্যাম্পের ৬ষ্ঠ দিন। সকাল থেকেই গুঞ্জন ছিল সাকিব ইনজুরিতে পড়েছেন।
যদিও ইনজুরির ধরন সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি। তিনি নাকি ডান পায়ের গোড়ালিতে আঘাত পেয়েছেন তিনি। আঘাতের ধরণ দেখতে স্ক্যান করা হবে। রিপোর্ট পাওয়ার পরই পুরোপুরি বিষয়টা জানা যাবে। তবে কমপক্ষে ৪৮ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে থাকতে হবে তাকে।

আরভিনের সেঞ্চুরিতে শক্ত অবস্থানে জিম্বাবুয়ে

শ্রীলংকার বিপক্ষে টেস্টের প্রথম দিনের নায়ক জিম্বাবুয়ের ক্রেইগ আরভিন। কলম্বোতে সিরিজের একমাত্র টেস্টের প্রথম দিনই সেঞ্চুরি করে ১৫১ রানে অপরাজিত তিনি। তার এমন দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে লংকানদের বিপক্ষে ৮ উইকেটে ৩৪৪ রান তুলে দিন শেষ করেছে জিম্বাবুয়ে।
পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ৩-২ ব্যবধানে জিতে উজ্জীবিত জিম্বাবুয়ে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো করতে পারেনি। ৩৮ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারায় তারা। দুই ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ১৯ ও রেগিস চাকাভা ১২ রান করে লংকান বাঁ-হাতি স্পিনার রঙ্গনা হেরাথের শিকার হন।
তিন নম্বরে নামা তারিসাই মুসাকান্দা ৬ রান করে পেসার লাহিরু কুমারার বলে আউট হন। ১৩ ওভারের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে বেশ চাপে পড়ে জিম্বাবুয়ে।
চতুর্থ উইকেটে আরভিন ও সিন উইলিয়ামস সেই চাপ দূর করার চেষ্টা করে‌ও সফল হননি। দলীয় ৭০ রানে আউট হ‌ওয়ার আগে উইলিয়ামস করেন ২২ রান। তবে সিকান্দার রাজার সাথে পঞ্চম উইকেট জুটি গড়ে সফল হন আরভিন। বেশ স্বাচ্ছন্দ্যে খেলে দলের স্কোর দেড়শ পার করেন তারা। কিন্তু এরপরই ঘটে ছন্দপতন।
ম্যাচের ৪০তম ওভারে আক্রমণে এসেই আরভিন-রাজার জুটিতে ভাঙ্গন ধরান জিম্বাবুয়ের প্রথম দুই উইকেট শিকারী হেরাথ। এতে দেশের মাটিতে ৪৪তম ম্যাচে নিজের ২৫০ উইকেটও পূর্ণ করেন তিনি। দেশের মাটিতে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারে পঞ্চমস্থানে আছেন হেরাথ।
হেরাথের শিকার হবার আগে ২টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪৭ বলে ৩৬ রান করেন রাজা। আরভিনের সাথে ১৯ ওভারে ৮৪ রানের জুটি গড়েছিলেন তিনি।
দলীয় ১৫৪ রানে পঞ্চম উইকেট হারানোর পরও ভড়কে যায়নি জিম্বাবুয়ে। কারণ ব্যাট হাতে অবিচল ছিলেন আরভিন। তাকে দেখে সাহস পান উইকেটরক্ষক পিটার মুর।
আরও একটি বড় জুটির স্বপ্ন দেখছিলেন আরভিন-মুর। তাদের স্বপ্নে বাঁধা হয়ে দাঁড়ান শ্রীলংকার মিডিয়াম পেসার আসলে গুনারতেœ। ১৯ রানে থাকা মুরকে আউট করে শ্রীলংকাকে খেলায় ফেরান গুনারতেœ।
এরপর দলকে বড় জুটির স্বাদ দিয়েছেন আরভিন ও ম্যালকম ওয়ালার। সেই সাথে টেস্ট ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন ১২তম ম্যাচ খেলতে নামা আরভিন। ২০১৬ সালের আগস্টে বুলাওয়েতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরিটি পেয়েছিলেন তিনি
আরভিনের সেঞ্চুরির কিছুক্ষণ পরই আউট হন ওয়ালার। দারুন জমে উঠা জুটিতে ভাঙ্গন ধরান হেরাথ। ৪টি চারে ৩৯ বলে ৩৬ রান করা ওয়ালারকে নিজের চতুর্থ শিকার বানান হেরাথ।
ওয়ালারের বিদায়ের পর উইকেটে গিয়ে আরভিনকে বেশিক্ষণ সঙ্গ দিতে পারেননি অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার। মাত্র ১৩ রান করে আউট হন তিনি।
তবে দশ নম্বরে ব্যাট হাতে নামা ডোনাল্ড তিরিপানোকে নিয়ে দিনের বাকী খেলা ভালোভাবেই শেষ করে দেন আরভিন। ১৫১ রানে অপরাজিত থাকেন আরভিন। তার ২৩৮ বলের ইনিংসে ১৩টি চার ও ১টি ছক্কা ছিলো। অন্যপ্রান্তে ৪৫ বলে ২৪ রান করে অপরাজিত ছিলেন তিরিপানো। শ্রীলংকার হেরাথ ১০৬ রানে ৪ উইকেট নেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
জিম্বাবুয়ে : ৩৪৪/৮, ৯০ ওভার (আরভিন ১৫১*, ওয়ালার ৩৬, হেরাথ ৪/১০৬)।

লিড নিয়েছে নর্দান টেরিটোরি

অস্ট্রেলিয়া সফরে নর্দান টেরিটোরি একাদশের বিপক্ষে তিন দিনের একমাত্র ম্যাচটির প্রথম দিন নিজেদের করে নিয়েছিলেন বাংলাদেশ হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের ব্যাটসম্যানরা। ৬ উইকেটে তুলেছিল ৩১২ রান। কিন্তু শুক্রবার দ্বিতীয় দিনটা মনের মতো কাটাতে পারলো না লিটন কুমার দাশ, এনামুল হক বিজয়রা। ওভার নাইট ইনিংস ঘোষণা করেন অধিনায়ক লিটন কুমার দাশ। ব্যাটিংয়ে নেমে নর্দান টেরিটোরি সারাদিন কেবল হতাশাই উপহার দিয়েছে বিসিবি এইচপি একাদশের বোলারদের। দ্বিতীয় দিন শেষে ৩ উইকেটে তুলেছে ৩১৬ রান। ৭ উইকেট হাতে রেখে ৪ রানের লিড নিয়েছে স্বাগতিকরা।
ডারউইনের মারারা ক্রিকেট গ্রাউন্ডে, নর্দান টেরিটরি ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে তোলে ৮৪ রান। ন্যাথান ম্যাকসুইনিকে ৪০ রানে ফিরিয়ে ভয়ংকর হয়ে ওঠা এ জুটিটি ভাঙ্গেন নিহাদ-উজ-জামান। এরপর নর্দান টেরিটরি অধিনায়ক আলেক্সান্ডার গ্রেগোরিকে ফিরিয়েছেন তানবীর হায়দার। কিন্তু জ্যাকব ডিকম্যানকে সঙ্গে দারুণ এক জুটি গড়ে বাংলাদেশি বোলারদের হতাশা বাড়িয়ে তোলেন রায়ান হ্যাকনি। তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৯৯ রান তোলেন এ দুই ব্যাটসম্যান।
রায়ান হ্যাকনি অবশ্য ৯৭ রান করে ফিরেছেন তানবীরের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে। তবে জ্যাকব ডিকম্যান তুলে নিয়েছেন সেঞ্চুরি। চতুর্থ উইকেটে জ্যাক ডয়েলের সঙ্গে অবিচ্ছিন্ন ১০৫ রানের জুটি গড়ে দিনটি নিজেদের করে নেন এনটি একাদশের ব্যাটসম্যানরা। ১০২ রান অপরাজিত আছেন ডিকম্যান। ১৭০ বলের ইনিংসটি ৯টি চার ও ১টি ছক্কার সাহায্যে সাজান এ ব্যাটসম্যান। ডয়েল অপরাজিত আছেন ৪৬ রানে।
বাংলাদেশের বোলারদের বিবর্ণ দিনে একমাত্র উজ্জ্বল ছিলেন তানবীর। ২৯ রানের খরচায় তুলে নিয়েছেন ২টি উইকেট। আর নিহাদ-উজ-জামান ৩২ রানের বিনিময়ে পেয়েছেন ১টি উইকেট।
তিন দিনের ম্যাচের আগে এই নর্দান টেরিটোরির বিপক্ষেই ৫টি একদিনের ম্যাচ খেলেছে বিসিবি এইচপি একাদশ। ৫ ম্যাচের সবকটিতেই জয় পায় লিটন-বিজয়রা। তিন দিনের ম্যাচেও প্রথম দিন প্রাধান্য বিস্তার করার পর দ্বিতীয় দিনে পিছিয়ে পড়েছে তারা। শনিবার ম্যাচের তৃতীয় ও শেষ দিন।
দ্বিতীয় দিনশেষে সংক্ষিপ্ত স্কোর :

এইচপি বিসিবি : ৩১২/৬ (ইনিংস ঘোষণা)
নর্দান টেরিটোরি : ৩১৬/৩ (ডিকম্যান ১০২*, হ্যাকনি ৯৭, ডয়েল ৪৬, ম্যাকসুইনি ৪০, গ্রেগোরি ১৭; তানবীর ২৯/২, নিহাদ-উজ-জামান ৩২/১)

টি-টোয়েন্টির সেরা পাঁচে সাকিব-রিয়াদ

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্তা আইসিসি-র নতুন র‍্যাংকিংয়ে টি-টোয়েন্টিতে অলরাউন্ডার ক্যাটাগোরিতে প্রথমবারের মতো সেরা পাঁচে জায়গা করে নিয়েছেন দুই বাংলাদেশি ক্রিকেটার। এরা হলেন- সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।
ভারত ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার একমাত্র টি-টোয়েন্টি শেষে র‍্যাংকিং আপডেট করেছে আইসিসি। নতুন এই র‍্যাংকিংয়ে ৩৫৩ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছেন সাকিব। ২০৩ রেটিং পয়েন্টি নিয়ে তালিকার পঞ্চম স্থানে উঠে এসেছেন রিয়াদ। এবারই প্রথমবারের মতো কোন নির্দিষ্ট ফরম্যাটের অলরাউন্ডার র‍্যাংকিংয়ে সেরা পাঁচেও জায়গা করে নিয়েছেন রিয়াদ।
সেরা টি-টোয়েন্টি অলরাউন্ডারে তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন অজি অলরাউন্ডার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তার রেটিং পয়েন্ট ৩৪৩। ২৭৫ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে আছেন যথাক্রমে মারলন স্যামুয়েলস ও আফগান নবী। পাঁচ থেকে ছয়ে নেমে গেছেন ভারতীয় অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং।

শুরুতেই শাস্ত্রী বিরোধী উপদেষ্টা কমিটি

ভারতীয় কোচ হিসেবে নাম ঘোষণার ৪৮ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই ঘোর বিপাকে শাস্ত্রী। সুপারিশ না মেনে নিজের পছন্দের সহকারী চেয়ে বোর্ড প্রধানের কাছে আবেদন জানানোয় শাস্ত্রীর উপর ক্ষুব্ধ সৌরভ গাঙ্গুলি, শচীন টেন্ডুলকার ও ভিভিএস লক্ষণের সমন্বয়ে গড়া তিন সদস্যের উপদেষ্টা কমিটি।
নতুন নিয়োগ পাওয়া ভারতীয় এই কোচের বিরুদ্ধে কাজকর্মে হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলে বোর্ড প্রধান ও সুপ্রিম কোর্ট নিযুক্ত পর্যবেক্ষকের দল কমিটি অব অ্যাডমিনিস্ট্রেটরসকে (সিওএ) লিখিত চিঠি পাঠিয়েছেন সৌরভ গাঙ্গুলি। সঙ্গে আছেন শচীন-লক্ষণও।
লিখিত সেই অভিযোগে তারা জানান, জহির খানকে বোলিং কোচ হিসেবে বেছে নেওয়ার পরও শাস্ত্রী নিজের পছন্দের ভরত অরুণকে বোলিং কোচ করতে চাইছেন। এমনকি সেইজন্য ক্রিকেটের অ্যাডভাইজারি কমিটির কাজেও নাক গলাচ্ছেন। বলা হয়ে থাকে, সৌরভ গাঙ্গুলী শাস্ত্রীকে কোচ হিসেবে বেছে নিতে মোটেই রাজি ছিলেন না। পরে তাকে করানো হয় শাস্ত্রীর সঙ্গে জহির খান, রাহুল দ্রাবিড়কে জুড়ে দিয়ে।

সৌরভ গাঙ্গুলি, ভিভিএস লক্ষণ ও শচীন টেন্ডুলকার (বাম থেকে)।

কিন্তু শাস্ত্রী পরিষ্কার জানিয়েছেন, হেড কোচ হওয়ার সুবাদে তিনি সাপোর্ট স্টাফ নিয়োগের অধিকারী। ভারতের টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর অনুযায়ী, কোচ নির্বাচিত হওয়ার পর শাস্ত্রী তার পুরনো কোচিং স্টাফ ফেরানোর জন্য চেষ্টা করেন।
প্রথমবার যখন শাস্ত্রী কোচ ছিলেন তখন ব্যাটিং কোচ ছিলেন সঞ্জয় বাঙ্গার এবং বোলিং কোচ ছিলেন ভরত অরুণ। বিষয়টি মোটেই ভালোভাবেই নেননি শচিন-সৌরভ-লক্ষণরা। তারা সরাসরি কমিটি অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর্স ও বোর্ড প্রধানকে মেইল করে পুরো বিষয়টা জানিয়েছেন।
আগামী ১৫ জুলাই শনিবার বোর্ডের প্রশাসকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কথা শাস্ত্রীর।

নৃত্যশ্পিল্পী থেকে বিশ্বরেকর্ডধারী ক্রিকেটার

বরাবরই তাঁকে মহিলা ক্রিকেটের শচীন টেন্ডুলকার বলা হয়। তিনি মহিলাদের বিশ্ব ক্রিকেটে যে দাপট দেখিয়েছেন তা এক কথায় অনন্য। ব্যাটসম্যান হিসেবে একেরপর এক শৃঙ্গ জয় করেছেন। বলছি, ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক তথা সবচেয়ে সেরা ব্যাটসম্যান মিতালি রাজের কথা। প্রথম মহিলা ক্রিকেটার হিসেবে একদিনের বিশ্ব ক্রিকেটে ৬ হাজার রান করেন তিনি। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে চলতি বিশ্বকাপের ম্যাচে ব্রিস্টলে এই রেকর্ড গড়েছেন মিতালি রাজ। এই রেকর্ডের ফলে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যান শার্লট এডওয়ার্ডসকে পিছনে ফেললেন তিনি। শার্লট একদিনের ম্যাচে ৫৯৯২ রান করে এতদিন শীর্ষস্থান ধরে রেখেছিলেন। মিতালি নিজের কেরিয়ারের ১৮৩ তম একদিনের ম্যাচে এই কৃতিত্ব অর্জন করলেন। অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ৩৪ রান করে মিতালি নতুন কৃতিত্ব অর্জন করেন। সেই ম্যাচে শেষপর্যন্ত ৬৯ রান করে মিতালি আউট হন।

মিতালি রাজ

সবচেয়ে কমবয়সে একদিনের ক্রিকেটে সেঞ্চুরির রেকর্ড রয়েছে মিতালির। এছাড়া অভিষেকেই শতরান করেছিলেন তিনি। এর পাশাপাশি ১৮ বছরের আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে মিতালি টেস্ট ম্যাচেও দ্বিশতরান করেছেন। প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে পরপর সাতটি একদিনের ম্যাচে অর্ধশতরানের রেকর্ডও রয়েছে এই তারকা মহিলা ক্রিকেটারের।
তবে ছোটবেলায় ক্রিকেট খেলা বা খেলোয়াড় হওয়ার প্রতি সেরকম আগ্রহ ছিল না। ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটের ‘শচীন তেন্ডুলকার’ মিতালি রাজ ভরতনট্যম নৃত্যশিল্পী হওয়ার স্বপ্নে বিভোর তখন। তবে একটু বয়স হতেই ক্রিকেটের প্রতি টান তৈরি হয়। পরে বদলে যায় ভালোবাসায়। মিতালিকে ভারতীয় ক্রিকেটকে উপহার দেওয়ার কৃতিত্ব মূলত দুজনের। একজন প্রাক্তন হায়দরাবাদী পেসার জ্যোতি প্রসাদ, অন্যজন প্রয়াত এনআইএস কোচ সম্পত কুমার। জ্যোতি দশবছর বয়সী মিতালির মধ্যে ট্যালেন্ট দেখেন। সম্পত অ্যাকাডেমিতে মিতালিকে গড়ে তোলেন।

মিতালি রাজ

মিতালির বাবা ডোরাই রাজ ভারতের বিমানবাহিনীর প্রাক্তন সেনা। পরে ব্যাঙ্কে চাকরি নেন। তিনিই হাতে ধরে মেয়েকে সেকেন্দ্রাবাদে সেন্ট জন্স কোচিং ক্যাম্পে নিয়ে যেতেন। তখন মিতালির বয়স মাত্র ১০ বছর। সেখানেই জ্যোতি প্রসাদ চিনে নেন মিতালির প্রতিভাকে। সঙ্গে প্র্যাকটিস করতেন মিতালির ভাইও। কয়েকমাস পরে ডোরাই রাজকে ডেকে জ্যোতি প্রসাদ বলেন, ছেলে নয়, মেয়ের প্রতি বেশি মনোনিবেশ করতে। কারণ মিতালি বেশি প্রতিভাবান। তবে জ্যোতি প্রসাদের ক্যাম্পে বেশিদিন ক্রিকেট শেখা হয়নি মিতালির। সেখানে ছেলেদের ক্রিকেট শেখানো হতো। ফলে জ্যোতির পরামর্শেই মিতালিকে নিয়ে বাবা ডোরাই রাজ হাজির হন সম্পত কুমারের কাছে। কিছুদিনের মধ্যেই মিতালির প্রতিভা দেখে মুগ্ধ সম্পত জানিয়ে দেন, এই মেয়ে শুধু ভারতের হয়ে খেলবেই না, বহু রেকর্ড ভেঙে দেবে।

মিতালি রাজ

১৯৯৯ সালের ২৬ জুন মাত্র ১৬ বছর ২০৫ দিন বয়সে সবচেয়ে কমবয়সী হিসেবে একদিনের ক্রিকেটে সেঞ্চুরি করে, মিতালি যে রেকর্ড গড়েন তা আজও অটুট।
একদিনের ক্রিকেটে সর্বাধিক রান
কয়েক দিন আগে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে বিশ্বকাপের ম্যাচে ব্যক্তিগত ৬ হাজার রানের মাইলস্টোন টপকে গেছেন মিতালি। এর আগে মহিলাদের একদিনের ক্রিকেটে সর্বাধিক রান সংগ্রাহক ছিলেন ইংল্যান্ডের শার্লট এডওয়ার্ডস। তাঁর করা ৫৯৯২ রান টপকে মিতালি আপাতত ৬০২৮ রানে দাঁড়িয়ে। আর আশেপাশে তাঁকে ধরার মতো কেউ নেই।
একদিনের ক্রিকেটে সর্বোচ্চ গড়
ওয়ানডে ক্রিকেটে গড়ের হিসেবেও সকলকে টপকে গেছেন ভারত অধিনায়ক মিতালি রাজ। অন্তত তিন হাজার রান করেছেন এমন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ব্যাটিং গড়ে সবার উপরে রয়েছেন মিতালি। তাঁর গড় ৫১.৫২। তাঁর পরে আছেন অস্ট্রেলিয়ার কারেন রল্টন (৪৮.১৪ গড়) ও বেলিন্ডা ক্লার্ক (৪৭.৪৯)। তবে এরা মিতালির চেয়ে অনেকটাই পিছিয়ে।
সবচেয়ে বেশি অর্ধশতরান
দীর্ঘ ১৮ বছরের আন্তর্জাতিক কেরিয়ারে মিতালি মাত্র ১৬৪টি ম্যাচ খেলেছেন। তবে তার মধ্যে ৪৯টি অর্ধশতরান করেছেন তিনি। তাঁর পিছনে রয়েছেন শার্লট এডওয়ার্ডস (৪৬টি) ও কারেন রল্টন (৩৩টি)।
মিতালি খেলা মানে ভারত জেতা। মহিলা ক্রিকেটে এটাই দস্তুর। মিতালি দলের জয়ে ভূমিকা নিয়েছেন অনেক বেশি। দল জিতেছে এমন ম্যাচে মিতালির ব্যাটিং গড় ৭৫.৭২। অনেক পিছনে রয়েছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের স্টেফানি টেলর (৬৬.১৩ গড়) ও অস্ট্রেলিয়ার মেগ ল্যানিং (৬৩.৪০ গড়)।

সরাসরি বিশ্বকাপ খেলার আশা গেইলের

পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে জিম্বাবুয়ের কাছে স্বাগতিক শ্রীলংকার অনাকাঙ্ক্ষিত পরাজয়ে কিছুটা আশাবাদী হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এই সুযোগে সরাসরি আগামী ২০১৯ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলার স্বপ্ন দেখছে তারা। দলের ওপেনার ক্রিস গেইল তো আবার এককাঠি সরেস। ইংল্যান্ডে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ের ইচ্ছেও পোষণ করেন তিনি।
বৃহস্পতিবার বেঙ্গালুরুতে গেইল জানান, ‌’আমরা ২০১৯ বিশ্বকাপ জিততে চাই। তবে এটা সত্যি যে টুর্নামেন্টের অংশিদার হতে আমাদেরকে প্রচুর কষ্ট করতে হবে।’
তবে এখন দলের বাইরে আছেন ক্রিস গেইল সহ বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়। নতুন করে দলে নেওয়া হয়েছে ক্যারিবিয় বোর্ড প্রেসিডেন্ট ডেভ ক্যামেরনকে ‘বিগ ইডিয়ট’ বলে গত নভেম্বর মাসে বহিস্কার হওয়া ড্যারেন ব্রাভোকে। ধারণা করা হচ্ছে, ক্রিস গেইল, সুনীল নারাইন, কাইরন পোলার্ড এবং ডোয়াইন ব্রাভোকেও শিগগিরই ফিরিয়ে আনা হবে। বর্তমানে ওয়ানডে র‌্যাকিংয়ের নবমস্থানে আছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। আসন্ন ইংল্যান্ড সফরে তাদেরকে অনেক ভালো করে র‌্যাকিংয়ে উন্নতি ঘটাতে হবে। কারণ ২০১৯ বিশ্বকাপে আগামী ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে শীর্ষস্থানীয় আটটি দল সরাসরি খেলবে। পরের চারটি দলের মধ্যে কোয়ালিফাইং রাউন্ড শেষে দুটি দল চূড়ান্ত পর্বে খেলবে। অর্থাৎ ১০টি দল নিয়ে হবে ২০১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেট।

স্ত্রীর ওপর হামলার কথা অস্বীকার তামিমের

স্ত্রীর ওপর হামলার কথা অস্বীকার করলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ওপেনার তামিম ইকবাল। তিনি এক টুইট বার্তায় জানান, লন্ডনে তার স্ত্রীর উপর এসিড হামলার বিষয়ে যে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে তা সঠিক নয়। ব্যক্তিগত কারণেই তিনি এসেক্সে খেলার সময়টা কমিয়ে এনেছেন।
ইংলিশ কাউন্টি লিগ ‘ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টের’ জন্য এসেক্সের সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়া বাংলাদেশ জাতীয় দলের উদ্বোধনি ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ব্যক্তিগত কারণে দেশে ফিরে আসছেন।
এরআেগ, ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করে আকস্মিকভাবে দেশে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেন দেশসেরা ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল। তার ফিরে আসার খবর নিশ্চিত করে এসেক্সের পক্ষ থেকে বলা হয়, “এসেক্স কাউন্টি ক্লাবের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা যাচ্ছে যে বিদেশি ক্রিকেটার তামিম ইকবাল ব্যক্তিগত কারণে ফিরে যাচ্ছেন।”
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের পর ছয় বছরের দীর্ঘ বিরতির পর আবারো ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে খেলার সুযোগ মেলে তামিম ইকবালের। সুযোগ পেয়ে তা হাতছাড়া করেননি তিনি। আট ম্যাচের জন্য এসেক্স ঈগলসের সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পক্ষ থেকে আসরে অংশগ্রহণ করার জন্য অনাপত্তি পেয়ে গত শনিবার দেশ ছাড়েন তিনি।
এর একদিন বাদে কেন্টের বিপক্ষে একটি ম্যাচ খেলেন তামিম। চলতি আসরে নিজের প্রথম ম্যাচে নামের প্রতি সুবিচার করতে পারলেও পরবর্তী ম্যাচগুলোতে জ্বলে ওঠতে আত্মপ্রত্যায়ী ছিলেন তামিম। তবে হঠা, তার ফিরে আসায় এখন তা আর হচ্ছে না। প্রসঙ্গত, এসেক্স অভিষেকে কেন্টের বিপক্ষে আউট হওয়ার আগে ৭ বলে ৭ রান করেন তিনি।

চান্দিমাল শ্রীলঙ্কার টেস্ট অধিনায়ক আর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে উপুল থারাঙ্গা

দিনেশ চান্দিমালকে শ্রীলঙ্কার টেস্ট অধিনায়ক আর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক হিসেবে উপুল থারাঙ্গাকে দায়িত্ব দিয়েছে লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। জিম্বাবুয়ে সিরিজের ব্যর্থতায় দায় নিয়ে, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস অধিনায়কত্ব থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ২৪ ঘন্টার মধ্যে, নতুন অধিনায়কের নাম ঘোষণা করলো এসএলসি। তবে চান্দিমাল এবং থারাঙ্গা দুজনই এর আগে জাতীয় দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। প্রতিক্রিয়ায় শ্রীলঙ্কার টেস্ট অধিনায়ক আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ম্যাথিউস দায়িত্ব ছাড়লেও, দলের যে কোন প্রয়োজনে তার কাছ থেকে পরামর্শ নেয়া হবে।

আগস্টেই সিপিএল খেলতে যাওয়ার কথা

বাংলাদেশ যুবদলে ছিলেন ব্যাটিং অলরাউন্ডার। আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তিনিই এখন বিশেষজ্ঞ অফস্পিনার, যিনি কিনা প্রয়োজনে ব্যাটিংও করে দিতে পারেন। দেশের মাটিতে সব শেষ টেস্ট সিরিজে ধূমকেতুর মতো আবির্ভূত এ তরুণের সামনেই রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই টেস্টের সিরিজ। নিজেদের মাঠে খেলা মানেই মেহেদী হাসান মিরাজের ওপর ভরসা। তবে তিনি নিজেকে তৈরি করা নিয়েই ব্যস্ত। আছেন ফিটনেস ট্রেনিংয়ে। নিজের ভাবনার কথা বলেছেন, মেহেদী হাসান মিরাজ।

প্রশ্ন : ফিটনেস ক্যাম্প শুরু হয়েছে। একটানা এত দিন ফিটনেস নিয়ে কাজ করার সুযোগ তো খুব একটা পান না। ক্যাম্পটা কেমন হচ্ছে?
মেহেদী হাসান মিরাজ : আসলেই আমরা ফিটনেস নিয়ে কাজ করার সময় তো খুব বেশি পাই না। বছরে যদি ফিটনেসের জন্য ২০-২৫ দিন সময় পাই, তাহলে সেটা ফিটনেসের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। শেষবার জাতীয় দলের ক্যাম্প দেখেছি, তখন আমার অভিষেক হয়নি। ওই একটা ক্যাম্প করে আমরা এক বছর ক্রিকেট খেলেছি। ওটা খুব ভালো কন্ডিশনিং ক্যাম্প ছিল। আমি দেখেছি, তখন এইচপির ক্যাম্পে ছিলাম। তো, ওই ক্যাম্পের পর থেকে সবাই টানা ক্রিকেট খেলে যাচ্ছে। এখন আবার নতুন করে শুরু হয়েছে।

প্রশ্ন : এখন টেস্টেও উন্নতি করছে বাংলাদেশ। সব শেষ হোম সিরিজে ইংল্যান্ডের মতো দলকে হারিয়েছে। আসন্ন অস্ট্রেলিয়া সিরিজ নিয়ে কোনো ভাবনা?
মেহেদী মিরাজ : এটা কিন্তু এখন সবাই জানে যে শুধু ওয়ানডে না, টেস্টেও আমরা ভালো খেলছি। গত এক বছর ধরে ভালো খেলছি, টেস্টও জিতেছি। ইংল্যান্ডকে হারিয়েছি, শ্রীলঙ্কার মাটিতে টেস্ট জিতেছি। আমার মনে হয়, বিশ্বের বড় দলগুলোর বিপক্ষে আমরা ভালোমতো লড়াই করতে পারব। আমরা বিশ্বাস রাখি, আমরা বড় বড় দলকে হারানোরও ক্ষমতা রাখি, যেটা আমরা প্রমাণ করেছি।
প্রশ্ন : অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে হোম সিরিজে নিশ্চয়ই স্পিনসহায়ক উইকেট চাইবেন?
মেহেদী মিরাজ : যে উইকেটেই খেলি না, আমাদের টার্গেট থাকবে ভালো ক্রিকেট খেলা। উইকেট তো আর আমাদের হাতে নেই। তবে আমরা যদি ইংল্যান্ড সিরিজের মতো উইকেট পাই, তাহলে আমাদের স্পিনারদের জন্য ভালো হবে।
প্রশ্ন : আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার কেবলই শুরু হলো। এরই মধ্যে বিশ্বের বড় দলগুলোর বিপক্ষে খেলার চ্যালেঞ্জ নিতে হলো। কিভাবে সামলাচ্ছেন নিজেকে?
মেহেদী মিরাজ : আসলে আমি সব সময়ই চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করি। আমাদের সামনে অনেকটি ভালো সিরিজ আছে। আশা করছি ভালো কিছু হবে। এ কন্ডিশনিং ক্যাম্পটা খুব কাজে দেবে। তিন সপ্তাহের এ ক্যাম্পে আমরা নিজেদের ঝালাই করে নিতে পারব। ক্যাম্পে কষ্ট করলে ফিটনেসে উন্নতির পাশাপাশি স্কিল বাড়ানোর কাজটাও সহজ হবে।

প্রশ্ন : আপনার ক্যারিয়ার প্রিমিয়ার লিগ খেলতে যাওয়ার কী হলো?
মেহেদী মিরাজ : ১ আগস্ট সিপিএল খেলতে যাওয়ার কথা। সিইও (নিজাম উদ্দিন চৌধুরী) স্যারকে জানিয়ে রেখেছি। বোর্ড থেকে একটা চিঠি (অনুমতিপত্র) নিতে হয়। আশা করি দ্রুতই সেটা পেয়ে যাব। কোচ, আকরাম স্যার, সুজন স্যার বলেছেন ফিটনেস ক্যাম্প শেষ করে আমি যেতে পারব। চিঠি পেলেই যাব।

অনেক নাটকের পর রবি শাস্ত্রীই ভারতের কোচ

কোচ নিয়োগ নিয়ে চূড়ান্ত নাটকের পর রবি শাস্ত্রীকেই ফিরিয়ে আনলো ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই।
শুধু তা-ই নয়, শাস্ত্রীকে হেড কোচ করা হলেও তাঁর সঙ্গে বোলিং কোচ হিসেবে জাহির খান এবং বিদেশে ব্যাটিং কোচ হিসেবে রাহুল দ্রাবিড়কে আনা হয়েছে। দ্রাবিড়কে বরাবরই খুব পছন্দ করেন শাস্ত্রী। এমনিতে জাহির খানকে নিয়েও তাঁর কোনও অসুবিধে নেই। কিন্তু শাস্ত্রীর সময় উনিশ মাস ভারতীয় দলের বোলিং কোচ ছিলেন ভরত অরুণ। তিনি খুব বড় নাম না হলেও অশ্বিনদেরও আস্থা জিতে নিয়েছিলেন। আইপিএলে কোহালির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বোলিং কোচ তিনি। কুম্বলে হেড কোচ হয়ে আসার পর তাঁকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। শোনা যাচ্ছিল শাস্ত্রী ফিরলে অরুণও ফিরবেন। সেটা আপাতত স্থগিত।
এরআগে, ২০১৪ সালের আগস্ট থেকে ২০১৬-এর এপ্রিল পর্যন্ত ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচিং ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসের পদত্যাগ

দুদিন আগেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন, ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত অধিনায়ক নাও থাকতে পারেন। তবে দিনটি যে এত দ্রুত এসে যাবে, ভাবেননি হয়ত তিনি নিজেও। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ হারই ত্বরান্বিত করল সিদ্ধান্ত। শ্রীলঙ্কার অধিনায়কত্ব ছাড়লেন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস।
সোমবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পঞ্চম ওয়ানডেতে হেরে সিরিজও হেরে বসে শ্রীলঙ্কা। ম্যাচ শেষে ম্যাথিউস জানিয়েছিলেন, এটি তার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বাজে সময়ের একটি। বলেছিলেন, নির্বাচকদের সঙ্গে আলোচনার পর চূড়ান্ত করবেন নিজের নেতৃত্বের ভবিষ্যত। তার সিদ্ধান্তই বলে দিচ্ছে আলোচনার ফলাফল। মঙ্গলবারই ম্যাথিউস জানিয়ে দিলেন তার সিদ্ধান্ত।
আন্তর্জাতিক অভিষেকের বেশ আগে থেকেই লঙ্কান ক্রিকেট সার্কিটে ম্যাথিউসকে মনে করা হতো ভবিষ্যত শ্রীলঙ্কান অধিনায়ক। সেটিই বাস্তব হয়ে আসে ২০১৩ সালে। ২৫ বছর বয়সে অধিনায়কত্ব পান ম্যাথিউস। নেতৃত্ব দিয়েছেন ৩৪ টেস্ট, ৯৮ ওয়ানডে ও ১২টি টি-টোয়েন্টিতে।
টেস্টে তার নেতৃত্বে স্মরণীয় কিছু সাফল্য পেয়েছে শ্রীলঙ্কা। ২০১৪ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে সিরিজ জয় সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য। দারুণ পারফরম্যান্সে সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ম্যাথিউস। যে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সব মিলিয়ে আগে মাত্র একটি টেস্ট জিততে পেরেছিল শ্রীলঙ্কা, সেই অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করে ম্যাথিউসের শ্রীলঙ্কা।
ছিল হতাশাও। তার নেতৃত্বে নিউ জিল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকায় হোয়াইটওয়াশড হয় শ্রীলঙ্কা। বরাবরই যেখানে বেশি উজ্জ্বল শ্রীলঙ্কা, সেই রঙিন পোশাকেই বেশি বিবর্ণ ছিল দল। ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুরুতে লাসিথ মালিঙ্গার নেতৃত্বে চ্যাম্পিয়ন হয় শ্রীলঙ্কা। কিন্তু ম্যাথিউসের নেতৃত্বে ২০১৫ বিশ্বকাপ, ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ও ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে পারফরম্যান্স ছিল হতাশাজনক।
তার নিজের পারফরম্যান্সেও ছিল উঠানামা। বাজে সময়ের ধারাবাহিকতায় সবশেষ সংযোজন ছিল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ। যে দলের বিপক্ষে দেশের মাটিতে আগে কখনোই কোনো সংস্করণে একটি ম্যাচও হারেনি শ্রীলঙ্কা, এবার তদের বিপক্ষে হেরে বসল সিরিজই।

রবি শাস্ত্রীই কী তবে ভারতের কোচ!

শেষ পর্যন্ত রবি শাস্তরীকেই ভারতীয় ক্রিকেট দলের কোচ হিসেব নিয়োগ দেয়া হলো। কমিটি অফ অ্যাডিমিনিস্ট্রেটরের চাপে শেষ পর্যন্ত কোচের নাম ঘোষণা করেই দিতে বাধ্য হল বিসিসিআই। বিরাট কোহালির জন্য আর অপেক্ষা করা হল না। কিন্তু বিরাট কোহালির পছন্দের কথা মাথায় রেখেই বেছে নেওয়া হয় রবি শাস্ত্রীকে। তাঁকে সরিয়েই গত বছর নিয়ে আসা হয়েছিল অনিল কুম্বলেকে। এবার কুম্বলেকে সরিয়ে ভারতীয় দলের দায়িত্ব দেয়া হলো শাস্ত্রীর হাতে। জয় হল কোহালি-শাস্ত্রী জুটির। কিন্তু এই খবর প্রকাশের কিছুক্ষণের মধ্যেই ভারতের একটি অনলাইন পত্রিকা (ওয়ানইন্ডিয়া) জানায়, বিসিসিআই বলেছে যে, চূড়ান্তভাবে এখনো কাউকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়নি।
সাক্ষাৎকার দিয়েছেন আরও চারজন—বীরেন্দর শেবাগ, টম মুডি, রিচার্ড পাইবাস ও লালচাঁদ রাজপুত। কোচের নামটাও ঘোষণা করার কথা ছিল গতকাল। কিন্তু প্রথমে তা পিছিয়ে দেওয়া হলেও শেষ পর্যন্ত আজই ঘোষণা করে দেওয়া হলো। বিসিসিআই জানিয়েছে, ২০১৯ সালের বিশ্বকাপ পর্যন্ত ভারতীয় দলের কোচের দায়িত্ব পালন করবেন সাবেক অলরাউন্ডার রবি শাস্ত্রী।

সাকিব-ইমরুলের নতুন পথচলা

একজন জাতীয় দলের ওপেনিং ব্যাটসম্যান, অন্যজন ব্যাট করেন মিডল অর্ডারে। মাঠের ক্রিকেটে দু’জনের জুটিটা তাই খুব একটা দেখা যায় না। বলছি, বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান ও জাতীয় দলের বাঁ-হাতি ওপেনার ইমরুল কায়েসের কথা।
মাঠে হোক বা মাঠের বাইরে, দু’জনই খুব ভালো বন্ধু। তবে মাঠের ক্রিকেটে এই জুটির ব্যাটিং খুব একটা দেখা না গেলেও মাঠের বাইরে ঠিকই জুটি বেঁধেছেন জাতীয় দলের এই দুই ক্রিকেটার। সাকিব এবং ইমরুল মিলে নেমেছেন রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়। রাজধানীর মিরপুর এক নম্বর সেকশনে খুলেছেন সাকিব’স ৭৫ রেস্টুরেন্ট অ্যান্ড কনভেনশন হল।
মঙ্গলবার (১১ জুলাই) থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে সাকিব-ইমরুলের এই যৌথ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এদিন দুপুরে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাকিব’স ৭৫- এ ঢল নামে জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটারদের। মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে ফিটনেস ক্যাম্প শেষ করে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন জাতীয় দলের অধিকাংশ ক্রিকেটার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা, টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম, ইমরুল কায়েস, সৌম্য সরকার, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, নাসির হোসেন, মুমিনুল হক, মেহেদী হাসান মিরাজ, নুরুল হাসান সোহান, তাইজুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, আল আমিন হোসেন এবং সানজামুল ইসলাম। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সাকিব ও ইমরুলের আত্মীয়-স্বজন ও পরিবারের অন্যন্য সদস্যরা। তবে ব্যক্তিগত কারণে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি রেস্টুরেন্টের অন্যতম কর্ণধার সাকিব আল হাসান।

সাকিব উপস্থিত না থাকলেও জাতীয় দলের সতীর্থ এবং আমন্ত্রিত অতিথিদের নিয়ে কেক কেটে সাকিব’স ৭৫ এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করা হয়। এর আগে গেল ১২ এপ্রিল পহেলা বৈশাখকে সামনে রেখে সাকিব’স ৭৫ এর উদ্বোধন করা হয়। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) খেলতে ভারতে থাকায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেও যোগ দিতে পারেননি সাকিব। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাকিবের প্রতিনিধি হিসেবে কন্যা আলাইনা হাসান অউব্রিকে নিয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাকিব পত্নী উম্মে আহমেদ শিশির।

ব্যক্তিগত কারণে দেশে ফিরছেন তামিম

ইংলিশ কাউন্টি লিগ ‘ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টের’ জন্য এসেক্সের সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়া বাংলাদেশ জাতীয় দলের উদ্বোধনি ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল ব্যক্তিগত কারণে দেশে ফিরে আসছেন।
তামিম ইকবালের দেশে ফিরে আসার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে এসেক্স ঈগলসের পক্ষ থেকে। ব্যক্তিগত কারণ উল্লেখ করা হলেও ঠিক কি কারণে আকস্মিকভাবে দেশে ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দেশসেরা এ ব্যাটসম্যান তা জানা যায়নি। তামিমের ফিরে আসার খবর নিশ্চিত করে এসেক্সের পক্ষ থেকে বলা হয়, “এসেক্স কাউন্টি ক্লাবের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা যাচ্ছে যে বিদেশি ক্রিকেটার তামিম ইকবাল ব্যক্তিগত কারণে ফিরে যাচ্ছেন।”
উল্লেখ্য, ২০১১ সালের পর ছয় বছরের দীর্ঘ বিরতির পর আবারো ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে খেলার সুযোগ মেলে তামিম ইকবালের। সুযোগ পেয়ে তা হাতছাড়া করেননি তিনি। আট ম্যাচের জন্য এসেক্স ঈগলসের সাথে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পক্ষ থেকে আসরে অংশগ্রহণ করার জন্য অনাপত্তি পেয়ে গত শনিবার দেশ ছাড়েন তিনি।
এর একদিন বাদে কেন্টের বিপক্ষে একটি ম্যাচ খেলেন তামিম। চলতি আসরে নিজের প্রথম ম্যাচে নামের প্রতি সুবিচার করতে পারলেও পরবর্তী ম্যাচগুলোতে জ্বলে ওঠতে আত্মপ্রত্যায়ী ছিলেন তামিম। তবে হঠা, তার ফিরে আসায় এখন তা আর হচ্ছে না। প্রসঙ্গত, এসেক্স অভিষেকে কেন্টের বিপক্ষে আউট হওয়ার আগে ৭ বলে ৭ রান করেন তিনি।

নর্দান টেরিটোরি হোয়াইটওয়াশ

অস্ট্রেলিয়া সফরে নর্দান টেরিটোরি একাদশকে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশই করলো বাংলাদেশ হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) দল। ডারউইনের মারারা স্টেডিয়ামে, শেষ ওয়ানডেতে নর্দান টেরিটোরিকে ১৪১ রানের বড় ব্যবধানে হারায় এনামুল-লিটনরা।
আগে ব্যাট করা এইচপি একাদশকে ২৫৯ রানে থামিয়ে দিয়েও শেষ হাসি হাসতে ব্যর্থ হয় স্বাগতিকরা। জবাবে মাত্র ১১৮ রানেই অলআউট হয় নর্দান টেরিটোরি।

মূলত: বাংলাদেশ এইচপি-র পেস তোপে অসহায় আত্মসমর্পণ করে নর্দান টেরিটোরি। ব্যাটসম্যানরা নিজেদের নামের প্রতি সুবচিার করতে র্ব্যথ হওয়ায় ৩১ ওভারেই শেষ হয় তাদের ইনিংস। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৯ রান করেন জেরার্ড ফ্রিম্যান। বাংলাদেশ এইচপি-র বোলারদরে মধ্যে সাইফউদ্দিন ও আবুল হাসান রাজু ৩টি করে উইকটে নেন।
এর আগে ব্যাট করতে নেমে, ৯ বল বাকী থাকতেই ২৫৯ রানে অলআউট হয় এইচপি। দলের পক্ষে এনামুল হক ৫৩ করেনন ৫৩ রান। তাসামুল ও ইরফান ৪৬ রান করে এবং ইমতিয়াজের ব্যাট থেকে আসে ৩৯ রান।
দু’দলের একমাত্র তিনন দিনের ম্যাচটি হবে বৃহস্পতিবার থেকে, ডারউইনের মারারা স্টেডিয়ামেই।
সংক্ষপ্তি স্কোর
বাংলাদশে হাইপারফরম্যান্স দল: ২৫৯/১০ (৪৮.৩ ওভার)
এনামুল ৫৩, তাসামুল ৪৬, ইরফান ৪৬, ইমতয়িাজ ৩৯, হায়দার ৩৫
নর্দান টেরিটোরি: ১১৮/১০ (৩১ ওভার)
ফ্রিম্যান ২৯; সাইফউদ্দিন ১৩/৩, রাজু ২০/৩, রাহী ১৫/২
ফল: এইচপি একাদশ ১৪১ রানে জয়ী।

চিটাগং ছেড়ে এবার রংপুরে গেইল

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) গত আসরে চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে খেলেছিলেন ক্রিস গেইল। খুব একটা সুবিধা করতে পারেননি। জানা গেছে, এবার দলবদল করছেন তিনি। খেলবেন রংপুর রাইডার্সের হয়ে। তার সঙ্গে দলটির কথা পুরোপুরি চূড়ান্ত। তবে, তিনি পুরো টুর্নামেন্টে খেলবেন না। তাকে হয়তো দুই-চারটি ম্যাচে খেলতে দেখা যেতে পারে।
ক্রিস গেইল টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে একজন মারকুটে ব্যাটসম্যান হিসেবে পরিচিত হলেও বর্তমানে ফর্মে নেই। দীর্ঘদিন জাতীয় দলে নিয়মিত নন। ঘরোয়া ক্রিকেটেও তেমন একটা সুবিধা করতে পারছেন না গেইল।
ক্রিস গেইল ছাড়াও রংপুর রাইডার্স ইতোমধ্যে নিশ্চিত করেছে শ্রীলঙ্কান অলরাউন্ডার থিসারা পেরেরা, ইংলিশ অলরাউন্ডার রবি বোপারা ও ক্যারিবীয় লেগস্পিনার স্যামুয়েল বদরিকে। তাছাড়া প্রোটিয়া অলরাউন্ডার ক্রিস মরিসকে দলে ভেড়ানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।
আগামী ৪ নভেম্বর শুরু হবে বিপেএলের পঞ্চম আসর। তার আগে ২ নভেম্বর হবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। আর প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠিত হবে ১৬ সেপ্টেম্বর। গত আসরে অংশ নিয়েছিল সাতটি দল। তবে, এবার দলের সংখ্যা বেড়েছে। মোট আটটি দলের অংশগ্রহণে হবে এবারের বিপিএল।

এদেশের নারী ক্রিকেট একটা জায়গায় থেমে আছে

গত সেপ্টেম্বরে জাতীয় দলের সবশেষ ওয়ানডে ম্যাচে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করেছিলেন তিনি। তাতে ১-০ ব্যবধানে জেতা সিরিজের সেরা খেলোয়াড়ও হয়েছিলেন তিনিই। রক্ষণশীল পরিবার থেকে উঠে আসা সেই রুমানা আহমেদই এখন বাংলাদেশ জাতীয় নারী দলের অধিনায়ক। ব্যাটে ও বলে, নিয়মিত পারফর্মার। বাংলাদেশ ক্রিকেট নিয়ে আশা-ভালোবাসা ও প্রত্যাশার কথা জানাচ্ছেন রুমানা আহমেদ।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটে ইতিহাসে প্রথম হ্যাটট্রিক আপনার। আয়ারল্যান্ডে। ২০১৬ সালে। এটা তো অমরত্ব পেয়ে যাওয়া। সেদিনকার অনুভূতি কেমন ছিলাে?
রুমানা : তখন এবং এখন দুই ক্ষেত্রেই আমার অনুভূতি একইরকম। এটা আমার অন্যরকম রেকর্ড। নিজেই অবাক হয়ে যাই যে আমি হ্যাটট্রিক করেছি। সবচেয়ে বড় কথা ওদের দেশে ওদের আম্পায়ার আমাকে পর পর তিনটা এলবিডব্লিউ দিয়েছে। এটা আসলে ভাবতেই পারিনি। অবাক করেছে আমাকে।
প্রশ্ন : ১০৬ রান করেও ঐ ম্যাচ ১০ রানে জিতেছিলেন। এমন টাফ ম্যাচ কি আর খেলেছেন?
রুমানা : হ্যাঁ, আরও বেশ কিছু ম্যাচেই আমরা কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছি। দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়েছি। ভারতের বিপক্ষে একটা ম্যাচে খুব কাছে গিয়ে অল্পের জন্য হেরেছিলাম।
প্রশ্ন : আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে আপনার হ্যাটট্রিকের ম্যাচে স্পিনাররা নিয়েছিলেন ৮ উইকেট। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শক্তি স্পিন, পিছিয়ে পেসাররা। এটা কি আমাদের দেশের নারীদের শারীরিক সামর্থ্যের কারণে ঘটছে?
রুমানা : আসলে পেস বা স্পিন ব্যাপার না, ব্যপারটা হচ্ছে যত্ন নেওয়ার। যাদের যত্ন নেবেন তারাই ভালো করবে। আমাদের পেসাররা দুর্বল এটা ঠিক না। বলতে পারেন আমাদের পেসার সংখ্যার স্বল্পতা। এটাই কারণ। আমাদের জাহানারা আর পান্না ছাড়া তেমন ভালো কোন পেসার নেই। ওরা নিয়মিত বল করে যাচ্ছে। ওয়ানডেতে ওরা ২০ ওভার করে আবার টি-টয়েন্টি ৮ ওভার করছে। পেসার বের করার জন্য একটা পেসার হান্ট হয়েছে, এরপর তেমন যত্ন নেওয়া হয়নি। এবার কিছু টুর্নামেন্টে আমাদের পেসাররা ভালো করেছে। তাদের যদি যত্ন নেওয়া যায় দেখা যাবে স্পিনারদের চেয়ে পেসাররাই ভালো করবে।
প্রশ্ন : হঠাৎ করে অধিনায়ক হয়েছিলেন। তার কিছুদিন আগেই অধিনায়ক ছিলেন জাহানারা। এভাবে আচমকা নেতৃত্ব পাওয়াটা কি আশা করেছিলেন?
রুমানা : আসলে এটা খুব অবাক করা একটা ব্যপার ছিল। এটা শোনার পর থেকেই আমার গা হাত পা কাঁপছিল। আমি বিশ্বাসই করতে পারছিলাম না যে হঠাৎ এমন একটা পরিবর্তন আসবে। জাহানারার অধিনায়কত্ব তখন এক বছরও যায়নি। তাও দুই সংস্করণেই পরিবর্তন। আশা ছিল পেতে পারি তবে এভাবে হঠাৎ পাবো আশা করতে পারিনি।
প্রশ্ন : দক্ষিণ আফ্রিকাকে শেষ সিরিজে একটি ম্যাচে কক্সবাজারে হারিয়েছিলেন। কিন্তু ওদের সাথে আমাদের পার্থক্য আসলে কতোটা?
রুমানা : পার্থক্যতো আমরা ওদের দিকে তাকালেই দেখতে পারি। এবারের বিশাকাপে ওরা কিন্তু খুব ভালো করছে। ওরা খুব ইতিবাচক ক্রিকেট খেলে। অনেক নিশ্চিন্তে খেলে। আমরা বছরে চার পাঁচটা ম্যাচ বা যাই খেলি তা দেখা যায় বিশেষ কোন টুর্নামেন্ট। ধরেন বিশ্বকাপ বা বাছাই পর্ব কিংবা এশিয়া কাপ। আমাদের প্রস্তুতিটা কম থাকে। নিজেদের তৈরি করতেও ঠিকমতো পারি না। এদিক থেকে ওরা অনেক এগিয়ে।
প্রশ্ন : জাহানারা বলেছেন, চলমান ২০১৭ বিশ্বকাপেই আমাদের খেলার যোগ্যতা ছিল। আপনি কি তা বিশ্বাস করেন? আর বিশ্বাস করলে কেন হলো না?
রুমানা : তাতো অবশ্যই। আমাদের দলের প্রশংসা অন্য সব দলই করে। অনেক দলের ম্যানেজাররা এসে বলে তোমাদের বোলিং লাইন আপ অনেক ভালো।
প্রশ্ন : আগামী বিশ্বকাপে বাংলাদেশকে খেলতে হলে কোন কোন ক্ষেত্রে উন্নতি করতে হবে?
রুমানা : আপনারা যাচাই করলেই দেখবেন আমরা খেলা পাই কয়টা। আন্তর্জাতিক ম্যাচ না পেলেও আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট দিকে এগিয়ে থাকতে হবে। একদিক না পেলে আরেক দিক থাকতে হবে। যদি দুইটাই বন্ধ থাকে তাহলে উন্নতি হবে কি দিয়ে।
প্রশ্ন : বিশ্বকাপ বাছাইয়ে আমাদের দুর্বলতা ব্যাটিংকে সবল বলা হয়েছিল। কিন্তু তা হয়নি। বোলিংই টেনে নিয়ে গেছে। ব্যাটিংয়ে এই নিয়মিত ব্যর্থতার কারণ কি?
রুমানা : আসলে ব্যাটাররা ব্যর্থ এটা আমি বলবো না কারণ আমি নিজেও একজন ব্যাটার। আর একজন ব্যাটার যতো খেলবে ততো তার খেলার ধার বাড়বে। ব্যাটিং একটা সাধনার ব্যপার। এটা ম্যাচ খেলার উপর অনেকটা নির্ভর করে। বোলিং কিন্তু করা যায়। কারণ একটা ভুল হলেও ফিরে আসার সুযোগ থাকে। কিন্তু ব্যাটারদের একটাই সুযোগ। ভুল হলেই শেষ।
প্রশ্ন : লেগ স্পিন সবচেয়ে কঠিন আর্ট। এমন কঠিন বোলিংয়ে আসার পেছনে গল্প কি?
রুমানা : হ্যাঁ, এটা আসলেই একটা গল্প। আমি কিন্তু প্রথমে লেগ স্পিনার ছিলাম না। ২০০৯ সালে আমি দল থেকে বাদ পরি এরপর আমি অনেক কষ্ট পেয়েছিলাম। নিজে নিজে অনুভব করেছিলাম আমার অনেক ঘাটতি আছে। দলে ফিরতে হলে আমাকে সেরা হয়েই ফিরতে হবে। এই মনোবল নিয়ে তখন আমি নিজে নিজে লেগ স্পিন শুরু করি পাশাপাশি ব্যাটিং। বাংলাদেশে তখন লেগ স্পিনার তেমন ছিলো না তাই আমার স্যারেরাও অনেক উৎসাহ দিয়েছেন। যার কারণে আস্তে আস্তে আত্মবিশ্বাসী হয়ে গেছি।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট এখন কোথায় আছে? দ্রুত উন্নতি করতে হলে কি করতে হবে?
রুমানা : আমাদের ক্রিকেট আসলে একটা জায়গায় এসে থেমে আছে। আমরা কিন্তু শুরুটা ভালো করেছিলাম। কিন্তু এরপর একটা জায়গায় এসে থেমে গিয়েছি। আমাদের পাশের সবাই এগিয়ে গেছে। আমরা সেই আগের জায়গাই আছি। ২০১১ সালে ওয়ানডে স্ট্যাটাস পাওয়ার পর আমরা কয়টা ম্যাচ খেলেছি। এই ছয় বছরে দেখেন আমরা কয়টা ম্যাচ খেলেছি আর অন্যরা কয়টা। তবে আমাদের মেধা কিন্তু কম নেই। আমাদের বেশ ভালো কিছু খেলোয়াড় আছে। অনেক রেকর্ডও আছে। কুবরা কিংবা পিঙ্কির কথাই ধরেন, খুব ভালো খেলছে। আমাদের আসলে প্রতিভার বিকাশ হচ্ছে না।
প্রশ্ন : এই দেশে মেয়ে ক্রিকেটারদের ঘাটতি। আরো মেয়ে ক্রিকেটার পাইপলাইনে আনতে কি করা দরকার?
রুমানা : আমাদের কিন্তু হাতে গোনা কয়েকটা জায়গায় মেয়েদের অনুশীলন করানো হয়। গুনে গুনে বলে দেওয়া যাবে কোথায় কোথায়। খুলনায় আমাদের পিলু স্যার, বগুড়ায় মোসলেম স্যার আর বিকেএসপি। অন্য জায়গায় মেয়েদের সুযোগ নেই। ছেলেরা যে কোন জায়গায় এমনকি রাস্তায়ও খেলতে পারে। ছেলেদের বিভিন্ন এলাকায় বোর্ড থেকে কোচও আছে। বয়সভিত্তিক দল আছে। তেমন করে যদি মেয়েদের কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হতো তাহলে ভালো হতো। অনেক মেয়েরা খেলায় এসে আবার নিরাশ হয়ে ফিরে যায় কারণ মাঠে খেলা থাকে না। মেয়েদের ‘এ’ দলের কাজ যদি শুরু হতো। মেয়েদের অনুশীলনের সুযোগ ও খেলার মাঠ বাড়িয়ে দেওয়া যায়।
প্রশ্ন : আপনার দলের সবচেয়ে বেশি শক্তি আর দুর্বলতা কোথায়?
রুমানা : আমরা কিন্তু নিজেদের প্রকাশ করার সুযোগ খুব কম পাচ্ছি। আমরা যে উন্নতি করেছি এটা দেখানোর জায়গাটা কম। আমাদের ব্যাটিং এবং বোলিং ঠিক আছে। আমার মনে ফিল্ডিংয়ে আরও কিছু কাজ করা দরকার। ফিল্ডিংটায় আমরা একটু পিছিয়ে আছি। ফিল্ডিং যে খুব খারাপ ছিল তা না হঠাৎ করে কিছুদিন থেকে আমাদের এখানে ঘাটতি দেখা দিয়েছে।
প্রশ্ন : ক্যারিয়ার শেষে নিজেকে কোথায় দেখতে চান?
রুমানা : আমি নিজেকে একজন সফল অলরাউন্ডার হিসেবে দেখতে চাই। সেরা ১০ অলরাউন্ডারের তালিকায় থাকতে চাই। আর আমার এখন প্রথম লক্ষ্য আমাদের দলকে র্যায়ঙ্কিংয়ের সেরা আটে এনে আমাদের মেয়েদের সুযোগ সুবিধা বাড়ানো।
প্রশ্ন : কোন খেলোয়াড়কে আপনি ফলো করেন কিংবা আপনার আদর্শ কে?
রুমানা : আদর্শ বলতে আমি অনেক আগে থাকতেই শেন ওয়ার্নকে ফলো করি। ওনার বল আমার কাছে ম্যাজিক বল বলে মনে হয়। ওনার বল যত দেখি তত অবাক হই। এখন উনি নাই সত্যি বলতে কি অনেক মিস করি উনাকে।

ইতিহাস গড়ে জিম্বাবুয়ের সিরিজ জয়

স্বাগতিক শ্রীলংকাকে ৩ উইকেটে হারিয়ে লংকার মাটিতে প্রথম সিরিজ জিতলো জিম্বাবুয়ে। ২০০৯ সালের পর বিদেশের মাটিতে প্রথম সিরিজ জিতলো জিম্বাবুয়ে। অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার, অ্যালিস্টার ক্যাম্পবেল, হিথ স্ট্রিক কিংবা ডেভ হটনরাও যা করতে পারেনি, সেটিই করে দেখালো খর্ব শক্তির গ্রায়েম ক্রেমার, শন অরভিন, সলোমন মীরে এবং সিকান্দার রাজারা।
২০৪ রানে সিরিজ জয়ের লক্ষ্যে নেমে দুই ওপেনার হ্যামিল্টন মাসাকদজা ও সুলেমান মীরে ৯২ রান তুলে জিম্বাবুয়েকে কক্ষপথেই রাখেন। ৩২ বলে ৪৩ রান করা সুলেমান গুনারতেœর শিকারে পরিণত হলে মাসাকাদজার সঙ্গী হন মুসাকান্দা। এই জুটিতে ৪৫ রান যোগের পর দলের ১৩৭ রানে, মালিঙ্গার বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন মাসাকাজদা। ৮৬ বলে ৯ চার আর এক ছক্কায় ৭৩ রান করেন সিরিজ সেরা মাসাকাদজা। তখনো তাদের জয়ে দরকার ৬৭ রান। হাতে ছিলো ৮ উইকেট আর ২৬ ওভার।

এরপরই ছন্দ হারায় জিম্বাবুইয়ানরা। সহজ জয়টা কঠিণই করে ফেলে তারা। আকিলা ধনাঞ্জয়ার ঘূর্ণিবলে কুপোকাত হয়ে অল্পরানে ফেরেন আরভিন (২), শন উইলিয়ামস-রা (২) এবং এরপর ৩৭ রানে থাকা মুসাকান্দা, ধনঞ্জয়ার শিকার হন। পরে মালিঙ্গা ফিরতি বলে ওয়ালারের উইকেট নিলে ১৭২ রানে ৬ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। দলের ১৭৫ রানে পিটার মুরকে ধনঞ্জয়া নিজের চতুর্থ শিকাের পরিণত করলে, জয়ের পাল্লাটা ঝুকে পড়ে লংকানদের দিকে। তখনও জিম্বাবুয়ের জয়ে দরকার ২৯ রান। আর আছে হাতে ৩ উইকেট ও ৮৬ বল। আর কোনো বিপর্যয় ঘটতে দেন নি ম্যাচ সেরা সিকান্দার রাজা ও অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার। শেষ পর্যন্ত ৭১ বল হাতে রেখেই ৭ উইকেটে ২০৪ রান তুলে সিরিজ ৩-২ এ জিতে নেয় জিম্বাবুয়ে। রাজা ২৭ ও ক্রেমার ১১ রানে অপরাজিত থাকেন।

এরআগে, পাঁচ ম্যাচ সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে ২০৩ রানে বেঁধে রাখে জিম্বাবুয়ে। সোমবার হাম্বানটোটায় সিরিজ নির্ধারনী ম্যাচে টসে হেরে ব্যাট করে শ্রীলঙ্কা নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে মাত্র ২০৩ রান তোলে।
জিম্বাবুইয়ান বোলারদের সামনে এদিন শুরু থেকেই লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা ছিল অসহায়। মাত্র ১৩ রানে ২ উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা। টেন্দাই চাতারার বলে মাত্র ৩ রান করে ফিরেন আগের দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করা ওপেনার নিরোশান ডিকভেলা। ১ রান করে ফিরে যান কুশল মেন্ডিস। উপুল থারাঙ্গাও খুব বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেননি। তার সংগ্রহ ৬ রান।

তবে শ্রীলঙ্কার স্কোরটা দুইশ’র উপরে যায় গুনাথিলাকা ও গুনারতেœর দারুণ ব্যাটিংয়ে। একপ্রান্তে দারুণ খেলেছেন ওপেনার দানুস্কা গুনাথিলাকা। ৮৬ বলে ৫টি চারের সাহায্যে ৫২ রান করেন তিনি। এই ইনিংস খেলার পথে বা-হাঁতি ব্যাটসম্যান চতুর্থ উইকেটে ৪৭ রানের জুটি গড়েন অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের সঙ্গে। ম্যাথুজ ২৪ রান করে ফিরলে পঞ্চম উইকেটে ৪১ রানের জুটি গুনাথিলাকা ও দানুসকা গুনারতেœর।
গুনারতেœ ৫৯ রানে অপরাজিত ছিলেন তিনি। জিম্বাবুয়ে বোলারদের মধ্যে সিকান্দার রাজা ২১ রানে নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট। অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমার নিয়েছে ২ উইকেট।
আগামী শুক্যবার থেকে কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে দু’দল একমাত্র টেস্ট ম্যাচ খেলবে।

প্রস্তুত হচ্ছে টাইগাররা

অস্ট্রেলিয়ায় চলছে ক্রিকেটার বিদ্রোহ। আর তাদের সফর উপলক্ষে প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজের আরও প্রায় দেড় মাস বাকি। দুই ম্যাচের সেই টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে আজ (সোমবার) থেকে মিরপুরে শুরু হয় বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের প্রস্তুতি ক্যাম্প।
অস্ট্রেলিয়া সিরিজকে সামনে রেখে ২৯ জনের প্রাথমিক দল আগেই ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সেই ২৯ জনের মধ্যে প্রস্তুতি ক্যাম্পের শুরুর দিন উপস্থিত হয়েছেন ২২জন ক্রিকেটার।
বাকি সাতজনের মধ্যে তামিম ইকবাল গেছেন ইংল্যান্ডে এসেক্সের হয়ে ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট খেলতে। রুবেল হোসেন ইনজুরির কারণে ক্যাম্পে উপস্থিত হতে পারেননি। বাকি ৫ জন রয়েছেন এইচপি ইউনিটের হয়ে অস্ট্রেলিয়া সফরে।
সকালে ফিটনেস কোচ মারিও ভিল্লাভারয়নের কাছে রিপোর্ট করেন মুশফিক-সাকিবরা। এরপর ক্রিকেটাররা কিছুক্ষণ সময় কাটান জিমনেসিয়াম। মূলতঃ এ সময় ক্রিকেটারদের ফিটনেস লেভেল দেখেন কোচ ভিল্লাভারায়ন। বাকি সময়টা তারা কাটিয়েছেন ইনডোরে। মাঠেও কিছুক্ষণ ওয়ার্মআপ করেছেন ক্রিকেটাররা।
আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনালে খেলে আসার পর ২২ দিনের ছুটি পেয়েছিলেন ক্রিকেটাররা। এই ২২ দিনের মধ্যে ছিল ঈদ-উল ফিতর। সব মিলিয়ে পরিবার এবং বিভিন্ন জায়গায় বেড়ানোর মাধ্যমে ছুটি কাটিয়েছেন ক্রিকেটাররা। ২২ দিনের বিশাল বিরতিতে ক্রিকেটারদের ফিটনেস সম্পূর্ণ ঠিক থাকার কথা নয়। এ কারণেই প্রস্তুতি ক্যাম্পের শুরুতেই থাকছে ফিটনেস ট্রেনিং। মারিও ভিল্লাভারায়নের দায়িত্ব আগামী দুই সপ্তাহে ক্রিকেটারদের ফিটনেস ঠিক করা। এরপর ছুটি শেষে ফিরে আসলে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের অধীনে শুরু হবে ব্যাট-বলে অনুশীলন। সেটা সম্ভবত ২৮ জুলাই থেকে।

এসেক্সে তামিমের পরাজয়

এসেক্সের হয়ে প্রথম ম্যাচে জ্বলে উঠতে পারেননি তামিম ইকবাল। উদ্বোধনী এই ব্যাটসম্যানের ব্যর্থতার দিনে টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে কেন্টের কাছে ৭ উইকেটে হেরেছে তার দল।
কেন্ট কাউন্টি ক্রিকেট মাঠে রোববার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে, ৮ উইকেটে ১৬৬ রান করে এসেক্স। জবাবে ১৮ ওভার ৩ বলে ৩ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় স্বাগতিকরা।
সিঙ্গেল নিয়ে শুরু করা তামিম পরের চার বলে রান পাননি। চতুর্থ ওভারে অ্যাডাম মিল্নকে ছক্কা হাঁকিয়ে চাপটা সরিয়ে নেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। নিউ জিল্যান্ডের পেসারের পরের বলেই ফিরেন বোল্ড হয়ে।
বরুন চোপড়ার ৪৭, রবি বোপারার ৪৫ আর অধিনায়ক রায়ান টেন ডেসকাটের ৩৮ রানের ওপর ভর করে লড়াইয়ের পুঁজি গড়ে এসেক্স।
৩৭ রানে ৩ উইকেট নেন কেন্টের জিমি নিশাম। মিল্ন ২ উইকেট নেন ২৪ রানে।
ড্যানিয়েল বেল-ড্রামন্ডের অপরাজিত ৯০ রানের ওপর ভর করে ৯ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় কেন্ট।
দুই ম্যাচ খেলে দুটিতেই হারা এসেক্স আগামী বৃহস্পতিবার তৃতীয় ম্যাচে খেলবে সমারসেটের বিপক্ষে।

মঈনেই কুপোকাত দক্ষিণ আফ্রিকা

চতুর্থ দিন থেকেই বদলাতে শুরু করে লর্ডসের পীচের চরিত্র। দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৩৩১ রানে জয়ের লক্ষ্য দিয়ে তাই অনেকটাই নিশ্চিন্ত ছিল ইংল্যান্ড। তবে এভাবে ভেঙে পড়বে দক্ষিণ আফ্রিকা, সেটি হয়ত ভাবতে পারেননি ইংলিশরাও। ১৯ উইকেট পতনের দিনে বিধ্বস্ত প্রোটিয়ারা। তাতে লডর্স টেস্টে জয় পায় ইংলিশরা ২১১ রানে। চার ম্যাচ সিরিজের প্রথমটি চার দিনে জিতে সিরিজে এগিয়ে গেল ইংল্যান্ড। ইংলিশ ক্রিকেটে রুট-যুগের শুরু হলো দারুণ এক জয়ে।
ক্যারিয়ার সেরা বোলিংয়ে ৫৩ রানে ৬ উইকেট নেন মইন। আগের সেরা ছিল ৬৭ রানে ৬ উইকেট। প্রথম ইনিংসের চারটিসহ ১০ উইকেট নিলেন ১১২ রানে। ম্যাচে ১০ উইকেটের স্বাদ পেলেন এই প্রথমবার।
দিনের শুরুতে কেশভ মহারাজের বল যেভবে টার্ন করেছে, সেটিই বলে দিচ্ছিল প্রোটিয়াদের অপেক্ষাতেও আছে কঠিন চ্যালেঞ্জ। ৪ উইকেট নেন মহারাজ। ১ উইকেটে ১১৯ রান নিয়ে দিন শুরু করা ইংল্যান্ড থমকে যায় ২৩৩ রানেই।
প্রোটিয়াদের দশা হলো আরও করুণ। শুরুর ব্রেক থ্রু এনে দেন জেমস অ্যন্ডারসন। মাঝে জেপি দুমিনিকে ফেরান মার্ক উড। বাকি কাজ সেরেছেন দুই স্পিনার মইন ও লিয়াম ডসন। উইকেটে স্পিন ধরছে তাই প্রথম ওভারে উইকেট নেওয়ার পরও উডকে আর বোলিং করাননি জো রুট। নতুন বলে ব্রডও করেছেন ১ ওভার।
প্রমোশন পেয়ে পাঁচে নামা কুইন্টন ডি কক ও টেম্বা বাভুমা চেষ্টা করছিলেন প্রতিরোধের। কিন্তু মইনের বলে বোল্ড হন দুজনই। মাত্র ৩৬.৩ ওভারেই গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
নেতৃত্বের অভিষেকে ১৯০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস আর জয়ে রাঙালেন রুট। তবে ৮৭ রানের দারুণ ইনিংসের পাশে ম্যাচে ১০ উইকেটে ম্যান অব দা ম্যাচ মঈন আলি। পরের টেস্ট ট্রেন্ট ব্রিজে আগামী শুক্রবার থেকে।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ইংল্যান্ড: ৪৫৮ ও ২৩৩।
দক্ষিণ আফ্রিকা: ৩৬১ ও ১১৯।
ফল: ইংল্যান্ড ২১১ রানে জয়ী।

লুইস ঝড়ে টি-টোয়ন্টিতে ভারতকে হারালো ওয়েস্ট ইন্ডিজ

বিরাট কোহালিরা বড় লক্ষ্যই দিয়েছিলাে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সামনে। কিন্তু তারা যে টি-টোয়েন্টির বিশ্বচ্যাম্পিয়ন, রবিবার ভারতকে সেটা মনে করিয়ে দিয়েই জ্যামাইকার স্যাবাইনা পার্কে ৯ উইকেটে জিতলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তাও আবার ৯ বল হাতে রেখেই। ২৫ বছর বয়সি ত্রিনিদাদের ব্যাটসম্যান এভিন লুইস ব্যাটে ঝড় তুলে একাই উড়িয়ে দিলেন ভারতকে। ৬২ বলে ১২৫ রান করলেন বিধ্বংসী লুইস। তাতে, ওয়ানডে সিরিজ হারলেও টি-টোয়েন্টিতে ঠিকই নিজেরা যে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন তার প্রমাণ রাখলো ক্যারিবিয়রা। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ভারতের শুরুটা ছিল দারুণ। মাত্র ৫ ওভারেই ৬০ রান তোলেন দুই ওপেনার কোহলি ও ধাওয়ান। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারের ৩৯ রান করা কোহলিকে ফেরান সুনীল নারিন। এরপর মাত্র ১ রানের ব্যবধানে দ্রুত ফিরে যান ধাওয়ান। কেসরিক উইলিয়ামসের দুর্দান্ত এক থ্রোতে ২৩ রানে, রান আউটের শিকার হন তিনি।
পরবর্তীতে দীনেশ কার্তিক এবং রিশাভ পান্টের ব্যাটে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ায় সফরকারীরা। তৃতীয় উইকেটে দীনেশ কার্তিক এবং রিশাভ পান্ট ৮৬ রানের জুটি দলকে বড় সংগ্রহের দিকে নিয়ে যান। দলীয় ১৫১ রানে মাথায় দুর্দান্ত খেলতে থাকা কার্তিককে বোল্ড করে এই জুটি ভাঙেন স্যামুয়েলস। ৩ ছক্কা এবং ৫ চারে ২৯ বলে ৪৮ রান করেন কার্তিক। শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেটে ১৯০ রান সংগ্রহ করে ভারত।
ভারতের ছুঁড়ে দেয়া ১৯০ রানের পাহাড়সম টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে বিশ্বকাপ ফাইনালের পর প্রথমবারের মতো খেলতে নেমে জ্বলে উঠতে পারেননি গেইল। একটি করে ছক্কা-চারে ফিরেন ১৮ রান করে। তবে ১২ ছক্কা এবং ৬ চারে ৬২ বলে ১২৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন লুইস। স্যামুয়েলস ৩৬ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন। এটি ভারতের বিপক্ষে লুইসের দ্বিতীয় শতরান।

অনুশিলন শুরু করলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল

ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেমিফাইনাল খেলে ঈদের ছুটির পর দীর্ঘ বিরতি ছিলো ক্রিকেটারদের। অবশেষে আজ থেকে আবার বাংলাদেশ ক্রিকেট দল আবারো শুরু করলো অনুশিলন। আগামী আগস্ট-সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুটি টেস্ট সিরিজ খেলতে আসবে অস্ট্রেলিয়া। সিরিজের প্রথম ম্যাচ দিয়ে দীর্ঘ সময় পর আবারও ক্রিকেটে ফেরার কথা হোম অব ক্রিকেট খ্যাত মিরপুরের শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের। তবে তার আগেই ক্রিকেটারদের পদধূলি পড়বে স্টেডিয়ামটির ঘাসে- অস্ট্রেলিয়া সিরিজের আগে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবেন মুশফিক-সাকিবরা শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে। বিসিবির গ্রাউন্ডস কমিটির চেয়ারম্যান হানিফ ভুঁইয়া বলেন, ‘প্রধান কিউরেটর গামিনি ডি সিলভাকে মাঠ প্রস্তুত রাখার কথা বলা হয়েছে। আগামী পরশু মাঠ পরিদর্শনে যাব। আর কিউরেটরের সাথে কথা বলে ঠিক করবো, কবে থেকে মাঠ ব্যবহার উপযোগী হবে।’

এদিকে, জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন জানান, ‘যেহেতু বেশ কিছুদিন সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলেছে ক্রিকেটাররা, তাই অস্ট্রেলিয়ার সাথে হোম সিরিজের আগে তাদের দীর্ঘ পরিসরের ম্যাচ প্র্যাকটিস জরুরী। তাই আমরা অন্তত তিনটি দু দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ আয়োজনের চিন্তা-ভাবনা করেছি।’

৪-০ তে এগিয়ে গেলো বিসিবি এইচপি দল

আবারো জিতলো বিসিবি এইচপি দল। তাতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৪-০ তে এগিয়ে গেলো বিসিবি হাই পারফরম্যান্স দল। জয়ের জন্য মাত্র ১৩৭ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ২৬ ওভার ও ৯ উইকেট হাতে রেখে সহজেই জিতে যায় এইচপি দল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭২ রানে অপরাজিত থাকেন উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান লিটন কুমার দাস।

এরআগে, আজ (রবিবার) টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় নর্দান টেরিটোরি। তবে তাদের সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করেন বিসিবি এইচপি’র বোলাররা। মাত্র ১৩৬ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান অ্যালেক্স গ্রেগরি।
বাংলাদেশের পেসার আবু হায়দার রনি, আবুল হাসান রাজু ও এবাদত হোসেন তিনজনে মিলে নিয়েছেন ৮ টি উইকেট। রনি মাত্র ২২ রানে নেন ৪ উইকেট। আরেক পেসার এবাদত হোসেন ১৮ রানে এবং আবুল হোসেন রাজু ২৯ রানে নিয়েছেন ২ টি করে উইকেট।
উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে সিরিজে ৩-০ তে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড হাই পারফরম্যান্স দল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

নর্দান টেরিটোরিঃ ১৩৬/১০
অ্যালেক্স গ্রেগরি ৩৪
আবু হায়দার রনি ৪/২২, এবাদত হোসেন ২/১৮, আবুল হাসান রাজু ২/২৯ ।

বিসিবি এইচপি দলঃ ১৩৭/১
লিটন কুমার দাস ৭২*

ফলাফলঃ বিসিবি এইচপি দল ৯ উইকেটে জয়ী।

তিনদিনেই চালকের আসনে ইংল্যান্ড

নিয়মিত অধিনায়ক না থাকার অভাবটা ভালোই টের পাচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ডিন এলগারের অভিষেকটা মোটেও ভালো হচ্ছে না- এটা বলাই যায় এখন। কারণ প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের করা ৪৫৮ রানের জবাবে মাত্র ৩৬১ রানেই অলআউট হয়ে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকা।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে তৃতীয় দিন শেষে ইংলিশদের সংগ্রহ ১ উইকেট হারিয়ে ১১৯ রান। সব মিলিয়ে ইংল্যান্ডের লিড দাঁড়াল ২১৬ রান।

৩৩ রান করে কিটন জেনিংস আউট হয়ে গেলেও অ্যালিস্টার কুক ৫৯ এবং গ্যারি ব্যালান্স ২২ রান করে তৃতীয় দিন শেষে অপরাজিত থাকেন।

৫ উইকেটে ২১৪ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শুরু করে দক্ষিণ আফ্রিকা। উইকেটে ছিলেন টেন্ডা ভাবুমা এবং নাইটওয়াচম্যান কাগিসো রাবাদা। দিনের শুরুতে রাবাদা ২৪ রান করে ফিরে যান।

এরপর জোড়া হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেন কুইন্টন ডি কক আর ভারনন ফিল্যান্ডার। ৫১ করেন ডি কক। ফিল্যান্ডার করেন ৫২ রান। শেষ দিকে বাকিরা আর দাঁড়াতে না পারায় ৩৬১ রানেই শেষ হয়ে যায় প্রোটিয়াদের ইনিংস। মঈন আলি নেন ৪ উইকেট। ২টি করে উইকেট নেন জেমস অ্যান্ডারসন, স্টুয়ার্ট ব্রড এবং লিয়াম ডসন।

জয়ের পর জিম্বাবুয়ের জরিমানা

চতুর্থ ওয়ানডেতে দুর্দান্ত জয়ে পাঁচ ম্যাচ সিরিজে ২-২ সমতা ফিরিয়েছে জিম্বাবুয়ে। তবে দুর্দান্ত এমন জয়ের দিনে জরিমানা গুনতে হল গ্রায়েম ক্রেমারের দলকে। এক বিবৃতির মাধ্যমে আইসিসি বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।

ম্যাচ শেষে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ‘স্লো ওভার রেটিংয়ের’ অভিযোগ এনে জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক গ্রায়েম ক্রেমারকে ম্যাচ ফির ২০ শতাংশ ও দলের বাকি ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফির ১০ শতাংশ জরিমানা নির্ধারণ করেন ম্যাচ রেফারি ক্রিস ব্রড।

সাজা শুনানোর পর প্রাথমিকভাবে ক্রেমার তা স্বীকার করে নিলে আনুষ্ঠানিকভাবে আর কোন শুনানির প্রয়োজন হয়নি। প্রসঙ্গত, আগামী ১২ মাসের মধ্যে ফের ‘স্লো ওভার রেটিং’ করলে নিয়মানুযায়ী এক ম্যাচের জন্য নিষিদ্ধ হবেন জিম্বাবুয়ে দলের অধিনায়ক ক্রেমার।

উল্লেখ্য, আগামী সোমবার একই মাঠে সিরিজের শেষ ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ওয়ানডে সিরিজের পর শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ে একমাত্র টেস্টে মুখোমুখি হবে।

মালিকানা পরিবর্তন হচ্ছে না চিটাগাং ভাইকিংসের

কিছুদিন আগেই গুঞ্জন ওঠে ডিবিএল গ্রুপের হাতে চট্টগ্রাম ভাইকিংসের মালিকানা পরিবর্তন হয়ে চট্টগ্রাম মহানগরের মেয়র ও বিসিবির সহসভাপতি আ জ ম নাছির হচ্ছেন পরবর্তী ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিক। মালিকানার সঙ্গে থাকার কথা ছিল আকরাম খানেরও। তবে বিপিএলের কিছু আইনের সাথে না মেলায় এবার আর মালিকানা বদলের সম্ভাবনা নেই। ফলে বিপিএলে মালিকানা থাকছে ডিবিএল গ্রুপের কাছেই।

এই প্রসঙ্গে বিসিবির অন্যতম পরিচালক এবং ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান বলেন, ‘বিপিএলের দল গড়তে হলে কমপক্ষে ১০ থেকে ১১ মাস সময় প্রয়োজন। ফলে এবার আগ্রহ কম দেখিয়েছেন নাসির ভাই। তবে আমরা চেষ্টা করবো আগামী বছর কিংবা তার পরের বছর নতুন করে চুক্তির জন্য।’

এদিকে মালিকানা পরিবর্তন না হলেও, একাদশে ৫ জন বিদেশি ক্রিকেটার খেলানোর জোড় সম্ভাবনা রয়েছে। এতে স্থানীয় ক্রিকেটারদের সুযোগ কমে যাওয়ায় তৈরি হয়েছে বিতর্ক। এ নিয়ে আকরাম খান বলেন, ‘স্থানীয় ক্রিকেটার আছেন, তারা কোন মানে আছে, কেমন খেলবে সেগুলো বিবেচনা করেই আমরা সিদ্ধান্ত নেবো।’

ক্রিকেটার শহীদের বিরুদ্ধে বিসিবিতে নির্যাতনের অভিযোগ স্ত্রীর

জাতীয় দলের ক্রিকেটার শহীদের বিরুদ্ধে স্ত্রী ফারজানা আকতার নির্যাতনের অভিযোগ করেছেন। আজ (রোববার) বিসিবি ভবনে অভিযোগ জমা দিতে এসে সাংবাদিকদের কাছে নির্যাতনের কথা বলেন।

ফারজানা অভিযোগ করে বলেন, শহীদের বিয়ের পর থেকে গত দুই বছর ধরে বিবাহ বহির্ভূত বিভিন্ন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। যা নিয়ে কথা বলে নানানভাবে ফারজানার উপর নির্যাতন চালায়।

এমনকি গত দুই বছর ধরে এক সঙ্গে বসবাসও করছে না তারা দু`জন। পরিবারও তাকে নানাভাবে অসহযোগিতা করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

মূলত বিসিবি সভাপতি বরাবর অভিযোগ দিতেই আজ বিসিবি ভবনে আসেন শহীদের স্ত্রী। সঙ্গে করে নিয়ে আসেছেন দুই সন্তান আরাফ (৩) ও আরহীকে (১১ মাস)।

বিসিবিতে আসার পরও শহীদ ফোন দিয়ে ফারজানা তার স্ত্রীকে বোর্ডে যেতে নিষেধ করেন এবং বোর্ডে গেলে সংসার না করার হুমকিও দেন।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ২৪ জুন ফারজানা-শহীদ বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিয়ের পর থেকে ফারজানা তার শ্বশুর বাড়ি নারায়ণগঞ্জের তল্লাতে বসবাস করছিলেন। গত ২৩ জুন ফারজানাকে শ্বশুরবাড়ি থেকে বেড় করে দেয়ার অভিযোগ করা হয়।

অস্ট্রেলিয়ায় টানা চতুর্থ জয়ে এইচিপ-র দরকার ১৩৭ রান

আজ (রবিবার) টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় নর্দান টেরিটোরি। তবে তাদের সিদ্ধান্তকে ভুল প্রমাণ করে বিসিবি এইচপি’র বোলাররা। মাত্র ১৩৬ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান অ্যালেক্স গ্রেগরি।

বাংলাদেশের পেসার আবু হায়দার রনি, আবুল হাসান রাজু ও এবাদত হোসেন তিনজনে মিলে নিয়েছেন ৮ টি উইকেট। রনি মাত্র ২২ রানে নেন ৪ উইকেট। আরেক পেসার এবাদত হোসেন ১৮ রানে এবং আবুল হোসেন রাজু ২৯ রানে নিয়েছেন ২ টি করে উইকেট।
উল্লেখ্য, ইতিমধ্যে সিরিজে ৩-০ তে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড হাই পারফরম্যান্স দল।

শ্রীলঙ্কার বিশ্ব রেকর্ডের ম্যাচে জিম্বাবুয়ের কাছে পরাজয়

বিফলে গেলো শ্রীলঙ্কান উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানদের বিশ্বরেকর্ড। জিম্বাবুয়ের কাছে আবারো হারলো তারা। এবার পরাজয় ৪ উইকেটের। তাতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-২ এ সমতা ফেরালো গ্রায়েম ক্রেমারের দল। হাম্বানতোতায়, বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে ৩১ ওভারে ২১৯ রানের টার্গেট ১০ বল হাতে রেখে ৬ উইকেট হারিযে তুলে জয় নিশ্চিত করে জিম্বাবুয়ে।

এরআগে টসে জিতে ব্যাট করে, নিরোশান ডিকভেলা ও দানুস্কা গুনাথিলাকা ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম কোনো জুটি হিসেবে টানা দুই ম্যাচে দুই শতাধিক রানের জুটি গড়েন। তাদের আগে এমনটি আর কেউ করতে পারেননি। ২০৯ রান করেন তারা। গেল বৃহস্পতিবার জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তৃতীয় ওয়ানডেতে উদ্বোধনী জুটিতে ২২৯ রান তোলেন তারা দুজন। ওয়ানডে ক্রিকেটের ৪৬ বছরের ইতিহাসে তাদের আগে এমনটি আর কেউ করতে পারেননি। আজ ডিকভেলা সেঞ্চুরি তুলে নিলেও ৮৭ রানে আউট হন গুনাথিলাকা। ডিকভেলা ১১৬ রান করে আউট হন। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ৩০০ রান তোলে শ্রীলঙ্কা।
জবাবে জিম্বাবুয়ে ২১ ওভারে ৩ উইকেটে ১৩৯ রান তোলার পর বৃষ্টিতে থেমে যায় খেলা। পরে জিম্বাবুয়ের জয়ে ৩১ ওভারে ২১৯ রানের টার্গেট পায় সফরকারীরা। ম্যাচ সেরা ক্রেইগ আরভিনের অপরাজিত ৬৯ রানের দারুণ এক ইনিংসে ১০ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় জিম্বাবুয়ে। সুলেমান মির করেন ৪৩ রান।

ওয়ানডেতে দুই লঙ্কানের রেকর্ড

ওয়ানডে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো টানা দুই ম্যাচে ২০০ কিংবা তার বেশি রানের জুটি গড়ার বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন দুই লঙ্কান ওপেনার নিরোশান ডিকেভেল্লা ও ধানুষ্কা গুনাথিলাকা।
শনিবার চতুর্থ ওয়ানডেতে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনার ২০৯ রান করেন। গুনাথিলাকা ৮৭ রানে আউট হলে ভাঙে এই জুটি। এরপর ডিকেভেল্লা সেঞ্চুরি করে (১১৬) বিদায় নেন। একই ভেন্যুতে আগের ম্যাচে তারা ২২৯ রান করেছিলেন।
ডিকেভেল্লা আগের ম্যাচেও শতক হাঁকিয়েছিলেন। সপ্তম লঙ্কান ব্যাটসম্যান হিসেবে ব্যাক-টু-ব্যাক সেঞ্চুরি করার নজির গড়লেন তিনি। এর আগে কুমার সাঙ্গাকারা, রোশান মহানামা, রয় ডিয়াস, জয়াসুরিয়া, দিলশান এবং উপুল থারাঙ্গার এই রেকর্ড আছে।
চতুর্থ ম্যাচে জিম্বাবুয়ে বাজে ফিল্ডিং করায় দুই ওপেনারের কাজটা সহজ হয়ে যায়। শ্রীলঙ্কা ইতোমধ্যে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে আছে। পাঁচ ম্যাচের সিরিজে জিম্বাবুয়ের এটি বাঁচা-মরার লড়াই।

ইংল্যান্ডে গেলেন তামিম

কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে ইংল্যান্ডে গেলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ওপেনার তামিম ইকবাল। কাউন্টি দল এসেক্সের হয়ে ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে অংশ নেবেন তিনি।
ক’দিন আগেই ইংল্যান্ডের মাটিতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলে আসায় কাউন্টি ক্রিকেটে সেই অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে চান তামিম। আজ শনিবার সকালে ইংল্যান্ডে যাবার আগে বিমানবন্দরে এমনটাই জানান তিনি। তাছাড়া অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটে অস্থিরতা চললেও অজিদের বাংলাদেশ সফরের বিষয়ে আশাবাদী তিনি। এ প্রসঙ্গে
তামিম বলেন, ‘সমস্যা সবারই হয়। হয়তো তাঁদেরও সমস্যা হচ্ছে। এখনও আমাদের হাতে অনেক সময় আছে। যখন তারা সফরে আসবে তাঁর আগেই হয়তো সব সমস্যা ঠিক হয়ে যাবে।’
কাউন্টি ক্রিকেট নিয়ে তামমি বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া সিরিজের জন্য এই খেলা খুব বেশি হেল্পফুল হবে কি না বলতে পারছিনা কারণ এটা একদমই আলাদা একটা ফরমেট।’
এদিকে, ন্যাটওয়েস্ট ব্লাস্ট টি-টোয়েন্টিতে শুক্রবার সারের কাছে ২ উইকেটে হেরেছে এসেক্স। রোববারের লড়াই কেন্টের বিপক্ষে। এই ম্যাচে খেলার কথা রয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তামিমের। দলের কোচ সিলভারউড বলেছেন, ‘ওপেনিং জুটিতে আমাদের আরও শক্তির প্রয়োজন। সেক্ষেত্রে তামিমের অংশগ্রহণ আমাদেরকে রোমাঞ্চিত করছে। ৮ ম্যাচে জন্য আমরা তাকে পাচ্ছি। আশা করি সে আমাদের জন্য দারুণ কিছু করে দেখাবে।’

সাইফউদ্দিনের সেঞ্চুরিতে এইচপির টানা তৃতীয় জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক : 

আগের ম্যাচে বল হাতে নিয়েছিলেন ৪ উইকেট। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন এবার ব্যাট হাতে করলেন সেঞ্চুরি। তাতে অস্ট্রেলিয়া সফরে টানা তৃতীয় জয় পেল বিসিবি হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দল।

ডারউইনের মারারা ক্রিকেট গ্রাউন্ডে শুক্রবার তৃতীয় একদিনের ম্যাচে নর্দান টেরিটোরি (এনটি) আমন্ত্রিত একাদশকে ৪২ রানে হারিয়েছে লিটন কুমার দাসের দল।

এদিন টস জিতে ব্যাট করতে নেমে সাইফউদ্দিনের সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৬৭ রান তোলে এইচপি দল।

১০৪ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন সাইফউদ্দিন। এ ছাড়া ওপেনার এনামুল হক বিজয় করেন ৩৬ রান। প্রথম ম্যাচে ফিফটি করা তানভীর হায়দারের ব্যাট থেকেও আসে ৩৬ রান।

২৬৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ২২৫ রানেই গুটিয়ে যায় নর্দান টেরিটোরি। অ্যালেক গ্রেগরি একাই করেন ১৪৪ রান। বাকিরা তাকে সঙ্গ দিতে না পারায় টানা তৃতীয় হারের মালা গলায় পরে স্বাগতিক দল।

টানা তিন জয়ে পাঁচ ম্যাচের এই সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বিসিবি এইচপি দল। সিরিজের চতুর্থ একদিনের ম্যাচ হবে রোববার।

দ্বিতীয় দিন শেষে চাপে দক্ষিণ আফ্রিকা

ইংল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে করা ৪৫৮ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা। দীর্ঘদিন পর দলে ফিরে ব্রড শুরুতেই স্বাগতিক দলকে সাফল্য এনে দেন। ব্রডের চমৎকার এক ডেলিভারিতে হিনো কুহন (১) প্রথম স্লিপে ধরা পড়েন অ্যালেস্টার কুকের হাতে।

দ্বিতীয় উইকেটে ৭২ রানের জুটি গড়েন ডিন এলগার ও হাশিম আমলা। এ জুটি ভাঙেন মঈন আলী। এরপর স্কোরবোর্ডে ২২ রান যোগ করতে আরও ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পরে সফরকারীরা। সাজঘরে ফিরেন এলগার (৫৪) ও ডুমিনি (১৫)। এরপর দলের হাল ধরেন বাভুমা ও ডি ব্রুইনের ব্যাটে। দুই ব্যাটসম্যান গড়েন ৯৯ রানের চমৎকার জুটি। দিনের খেলা শেষ হওয়ার মাত্র ১৭ বল আগে ডি ব্রুইনকে ফিরিয়ে অতিথিদের আবার চাপে ফেলেন অ্যান্ডারসন।

এর আগে ৫ উইকেটে ৩৫৭ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনে খেলা শুরু ইংল্যান্ড। তবে মরনে মরকেল, রাবাদার দারুণ বোলিংয়ে ৪৫৮ রানে গুটিয়ে যায় স্বাগতিকদের প্রথম ইনিংস।

এক ম্যাচ নিষিদ্ধ রাবাদা

বেন স্টোকসকে উদ্দেশ্য করে বাজে ভাষা ব্যবহার করে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হলেন কাগিসো রাবাদা। লর্ডসে সিরিজের প্রথম টেস্টে ব্যক্তিগত ৫৬ রানে রাবাদার বলে ডি কককে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন স্টোকস। এরপর বুনো উল্লাসের সঙ্গে সঙ্গে বাজে ভাষা ব্যবহার করেন প্রোটিয়া এই তারকা।

আইসিসির নিয়মানুযায়ী কোনো খেলোয়াড়ের নামের পাশে চারটি ডিমেরিট পয়েন্ট যুক্ত হলে সে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হবে। এর আগে শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যান নিরোশান ডিকভেলার সঙ্গে বিবাদে জড়িয়ে তিনটি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছিলেন রাবাদা। এবার স্টোকসকে গালি দিয়ে আরো একটি ডিমেরিট পয়েন্ট পাওয়ায় মোট চারটি পয়েন্ট হওয়ায় এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হলেন রাবাদা। আর এই নিষেধাজ্ঞার ফলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ট্রেন্ট ব্রিজে অনুষ্ঠিতব্য দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে পারবেন না তিনি।

এদিকে এক ম্যাচের নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি তার ম্যাচ ফি এর ১৫ শতাংশ জরিমানাও করা হয়েছে। শুক্রবার রাবাদা তার অপরাধ স্বীকার করে নিয়েছে। পাশাপাশি মেনে নিয়েছেন জরিমানা ও নিষেধাজ্ঞা। সে কারণে, কোনো আনুষ্ঠানিক শুনানির প্রয়োজন হয়নি।

আমার আউটসুইংটা খেলা কঠিন

বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটের প্রথম গ্ল্যামার গার্ল- জাহানারা আলম। ফাস্ট বোলার হিসেবে মাঠে যেমন আগ্রাসী, ব্যক্তি জীবনেও হাসিখুশী একজন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের নারী পেসার বলতে সবার আগে উঠে আসে তারই নাম। গেল টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় বাংলােদশ নারী দলের অধিনায়ক ছিলেন জাহানারা। ২৪ বছর বয়সী মেধাবী এই ফ্যাশনেবল পেস বোলারের দু:খ-কষ্ট এবং ভবিষ্যতের আশা জানতে রয়েছে বিশেষ সাক্ষাৎকার।

প্রশ্ন : এমন একটা বয়সে আপনি দাঁড়িয়ে যেটিকে নারী পেস বোলারদের জন্য আদর্শ বলা যায়। নিজের সেরা সময়ে কি এখনো পৌঁছাতে পেরেছেন?
জাহানারা : এটা বিচার করা আসলে খুব কঠিন। তবে আমি এটুকু বলতে পারি আগে যে টুর্নামেন্ট খেলতাম তা থেকে এখন অনেক এগিয়ে আসছি। আমার কাছে মনে হচ্ছে আগের চেয়ে ভালো। ২০১৬ বিশ্বকাপে আমি আমার গতি মেপেছিলাম। ঘণ্টায় ১২০ কিমি বেগে বল করতে পেরেছি। আর গড় ছিল ঘণ্টায় ১১৭/১১৮ কিমি। এরপর আর মাপা না হলেও মনে হচ্ছে আগের চেয়ে এখন ভালো অবস্থায় আছি। টুর্নামেন্ট না হলে এটা বোঝা মুশকিল।
প্রশ্ন : আপনার ওয়ানডে ক্যারিয়ারের সেরা পারফরম্যান্স গত বিশ্বকাপ বাছাইয়ে, ফেব্রুয়ারিতে। ৩ উইকেট ২১ রানে। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে। মাঝে লম্বা সময় কিন্তু খুব ভালো বল করলেও উইকেট তেমন পাননি। কারণটা কি বলে মনে করেন?

জাহানারা : এমনিতেই আমরা আন্তর্জাতিক ম্যাচ কম পাই, তার উপর আমাদের ঘরোয়া ক্রিকেট অনেক কম হয়। দেখা যায় বছরে একটা বা দুইটা ঘরোয়া আয়োজন হয়। বাকি সময়টায় অনুশীলন করা খুব কঠিন হয়ে যায়। আমাদের এখানে অনুশীলনের সব সুবিধা আছে। তবে কোনো একটা টুর্নামেন্ট সামনে রেখে যে অনুশীলনটা থাকে তা আসলে নিজে নিজে হয় না। যা হয় তা নিজেকে ধরে রাখা। এটা আসলে একটা লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য যথেষ্ট নয়।
প্রশ্ন : পুরুষ ক্রিকেটাররা অনেক সুযোগ সুবিধা পায়। আপনাদের কি নিজেদের বঞ্চিত লাগে? আপনারাও তো জাতীয় দলের সদস্য।
জাহানারা : আসলে সুযোগ সুবিধা সবই আছে আমাদের। আমার যখন ইচ্ছা অনুশীলন করতে পারি। তবে নানা কারণে সব হয়ে ওঠেনা। ধরেন বৃষ্টির সময়ে মাঠে অনুশীলন করা আর যায় না। কিন্তু ইনডোর আছে। চাইলে করা যায়। যেটা হচ্ছে একটা লক্ষ্য থাকলে একটা তাড়া থাকে নিজের। টুর্নামেন্ট থাকলে এ তাড়াটা থাকে। কিন্তু সামনে যদি কোনো টুর্নামেন্ট না থাকে তাহলে মনে হবে যে দুই তিন বিশ্রাম নেই। পরে আবার করবো।
প্রশ্ন : এই মুহূর্তে বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটে কি কি সমস্যা আপনি দেখেন? সেগুলো কিভাবে দূর করা যায়?
জাহানারা : আমাদের যখন প্রিমিয়ার লিগ হওয়ার কথা ছিল তখন ছেলেদের লিগ শুরু হয়ে গেলো। এরপর আমাদের লিগটা শুরু হওয়ার কথা ছিল কিন্তু তখন হঠাৎ জাতীয় লিগ শুরু হলো। এখন আমাদের প্রিমিয়ার লিগ হবে। সামনে যেহেতু আন্তর্জাতিক ম্যাচ নেই আমাদের ঘরোয়া টুর্নামেন্টে জোর দিতে হবে। আমাদের তিনটা টুর্নামেন্ট হয়, এর সঙ্গে আর দুইটা বাড়ানো গেলে ভালো হবে। পাঁচটা টুর্নামেন্ট হলে আপনার পাইপলাইনে খেলোয়াড় তৈরির জন্য যথেষ্ট। তখন আমরা আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে ভালো ফলাফল আশা করতে পারি। তবে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আন্তর্জাতিক ম্যাচই। এর সঙ্গে ঘরোয়া ক্রিকেটের সঙ্গে মিলবে না। আরও বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে পারলে ভালো হয়। অভিজ্ঞতা বাড়বে। আমরা আসলে অভিজ্ঞতায় অনেক পিছিয়ে।
প্রশ্ন : আপনার ইকোনোমি রেট খুব ভালো। কিন্তু সেই হিসেবে উইকেট নেওয়ার রেটটা অতো উজ্জ্বল নয়। ২৯ ম্যাচে ২৫ উইকেট। নতুন বলে ভালো পেস বোলিং পার্টনার সেভাবে পান না বলে এমনটা হয় কি?
জাহানারা : আমি যখন বোলিং করি তখন সম্পূর্ণ আমি আমার চরিত্রে ঢুকে যাই। তখন আমার কাজ থাকে কিভাবে আমার ওভার শেষ করবো এবং ভালোভাবে। দেখা যায় আমি একটু আঁটসাঁট বোলিং করেছি। এতে আমার পার্টনার উইকেট পেয়েছে হয়তো সে একটু বেশি রান দিয়েছে। আমি চাপ তৈরি করেছি ও উইকেট পেয়েছে। ক্রিকেট দলীয় খেলা দল এতে লাভবান হয়। এতেই আমি খুশি। এমনকি ঘরোয়া ক্রিকেটেও এমন হয়। আমাকে ব্যাটাররা একটু দেখেই খেলে ফলে আমি অনেক ভালো বল করে রান কম দিলেও উইকেট অনেক কম থাকে। দেখা যায় অন্য কেউ বাজে বল করেও উইকেট পায়। আমার বলে কেউ যদি পরাস্ত হয় তাহলে আমার খুব খুশি লাগে। আমি ডটের জন্য বল করি উইকেটের জন্য না। আমি ভালো বল করলে আমার পার্টনারও উৎসাহিত হয়। তখন দুই প্রান্তে ভালো বল হলে ব্যাটসম্যানদের টিকে থাকার কোন রাস্তাই থাকে না। এটাই বোলিং পার্টনারশিপ।
প্রশ্ন : নিজের বোলিংয়ের কোন দিকটাকে আপনার শক্তিশালী মনে হয় এবং প্রতিপক্ষরা আসলে আপনার কোন দিকটিকে ভয় পায়?
জাহানারা : আমার অস্ত্র যদি আমি জানিয়ে দেই তাহলে তো সতীর্থরা জেনে যাবে। হয়তো জানে। তবে জানা এক ব্যাপার আর নিজে থেকে বলে মনে করিয়ে দেওয়া আরেক ব্যাপার। তারপরও বলছি আমার নতুন বলের আউটসুইংটা খেলা একটু কঠিন। পুরাতন বলে ভালো রিভার্স সুইং হয়। ২৫/৩০ ওভারের পর থেকেই আমি রিভার্স সুইং পাই। আর ওইখান থেকে আমি আউটসুইংও করাতে পারি। আর আমার অফ কাটারটাও খুব ভালো পারি। আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে আমার অনেক উইকেট আছে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতা বেশিদিনের নয়। আর বাংলাদেশ ম্যাচ খেলে বেশ বিরতি দিয়ে দিয়ে। এই যে অনেকদিন পর পর ম্যাচ খেলার সুযোগ পান, সেটি কি নিয়মিত খুব ভালো পারফর্ম করার ক্ষেত্রে বড় বাধা কি না?
জাহানারা : দেখুন পারফরম্যান্স এখানে আপডাউন হবেই। আমরা যাদের সঙ্গে খেলতে যাই দেখা যায় আমরা ছয় মাসে একটা টুর্নামেন্ট খেলি তারা খেলে ছয়টা টুর্নামেন্ট। তারা ক্রিকেটে থাকে ফলে অভিজ্ঞতা হয়। রানেও থাকে, ধারাবাহিকতা থাকে। সেখানেই আমরা পিছিয়ে যাই। এর জন্যই আমাদের ব্যাটিং ভেঙে পরে। এমনকি বোলিং এবং ফিল্ডিং যেটা আমাদের শক্তির জায়গা তাতেও পিছিয়ে পড়ি।
প্রশ্ন : আপনাদের দলের দুর্বলতা হিসেবে ব্যাটিংকে বলা হয় সবসময়। কি কারণে এই দুর্বলতা দূর করা যাচ্ছে না?
জাহানারা : মূল কারণ উইকেটের সঙ্গে সম্পর্কটা। আগেই বললাম ধারাবাহিকভাবে না খেলা। অনেক দিন পর পর খেলছি আর প্রতিপক্ষ নিয়মিত খেলছে। তাদের যে আত্মবিশ্বাসটা থাকে আমাদের তেমনটা থাকেনা। আসলে এখানে মূল পার্থক্যটা ওই অভিজ্ঞতাই। পাকিস্তানের কথা দেখেন একসময় মনে হতো ওরা আমাদের নিচে আছে। এখন ওদের আসে পাশেই আমরা যেতে পারিনা। শ্রীলঙ্কাকে আমরা বারবার হারিয়েছি। এখন উল্টো ওদের কাছে বারবার হারছি আমরা। একটাই কারণ ওরা অনেক ম্যাচ খেলে। বিশ্বকাপে দেখেন ওদের তিন চারটা খেলোয়াড়ই খেলে। ওদের যে বোলিং বিভাগ আমাদের কাছে তা কিচ্ছু না।
প্রশ্ন : ফিটনেসের ঘাটতির কোনো ব্যাপার নয় তো?
জাহানারা : ছয় মারতে কিন্তু শারীরিক শক্তি অনেক দরকার হয়না। তাহলে বডি বিল্ডারই খেলতো। এটা একটা কম্বিনেশন। আপনার শক্তিশালী খেলোয়াড়ের পাশাপাশি ভালো মেধা ও স্কিলের দরকার। টেকনিক আর ট্যাকটিস তবে সঙ্গে শক্তিরও দরকার হয়। এটা আসলে সব মিলিয়েই হয়। আমার কাছে মনে হয় ফিটনেসের ঘাটতির কারণে এটা হয় না। অভিজ্ঞতার অভাবটাই মুখ্য। তবে আমি অবশ্যই বলবো আমাদের ফিটনেস আরও ভালো করতে হবে। এটা স্বীকার করি যে ফিটনেসে আমরা একটু পিছিয়ে আছি।
প্রশ্ন : দল হিসেবে বাংলাদেশ এখন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কোন অবস্থায় আছে?
জাহানারা : আমার মনে হয় আমাদের দলটা বিশ্বকাপে খেলার মতো অবস্থায় ছিল। সেক্ষেত্রে সেরা আটের মধ্যে থাকা উচিত ছিল। আমাদের জায়গায় এখন শ্রীলঙ্কায় আছে। এটা আমাদের দুর্ভাগ্য। আমরা আমাদের প্রাপ্যটা আদায় করে নিতে পারেনি।
প্রশ্ন : বিশ্বকাপ বাছাই তার আগে টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপে দেখা গেছে এই যে বিশ্বকাপ খেলছে যে ৮টি দল তাদের সাথে বাংলাদেশের অনেক পার্থক্য। তাদের সাথে বাংলাদেশে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারে না। কি কি কারণে এমনটা হয়?
জাহানারা : আপনি যদি ভারতের নারী দলের দিকে তাকান। ওদের দল কিন্তু এতো উন্নত কখনোই ছিলোনা। দুই তিন বছর আগেও ওরা অনেক হেরেছে। আজ তারা ইংল্যান্ডের মাটিতে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে খুব সহজেই। যারা যে কয়টা ম্যাচ খেলেছে ভালোভাবেই জিতেছে। আসলে আমাদের ম্যাচ খেলতে হবে। ম্যাচ না খেললে কখনোই সম্ভব না। শুধু ভিডিও সেশন দেখে একটা দলের বিপক্ষে ভালো করা কঠিন। খেলতে খেলতেই প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা আমরা ভালো করতে পারবো।

প্রশ্ন : আপনার স্বপ্নপুরণের পথে কি বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট আছে? আপনার চোখে বর্তমানে কোন অবস্থায় আছে, কাছাকাছি ভবিষ্যতে এই দেশের নারী ক্রিকেট কোথায় পৌঁছতে পারে বলে মনে হয়।
জাহানারা : আমি প্রচণ্ড আত্মবিশ্বাসী। আমি চার বছর আগেও এ কথাই বলেছি। এখনো আমার কথার কোন পরিবর্তন হয়নি কারণ আমি নিজেকে যতটা বিশ্বাস করি তার চেয়ে বেশি বাংলাদেশ দলকে বিশ্বাস করি। আমার বিশ্বাস এ দল র‍্যাঙ্কিংয়ে পাঁচে আসার মতো। এর জন্য আসলে সুযোগ করে দিতে হবে। আপনাকে যদি জোনটা তৈরি করে না দেওয়া হয় তাহলে কিন্তু মনের মতো কাজ করতে পারবেন না। আজকে আমরা একটা প্ল্যাটফর্ম তৈরি করে দিয়ে যাবো। ভবিষ্যতে যারা আসবে তারা হয়তো এটাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে ভারত দলের মতো। আমার দৃঢ় বিশ্বাস আমরা আসতে পারবো একটা ভালো অবস্থানে।

অস্ট্রেলিয়ায় সিরিজ জিতলো এইচপি দল

এবার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের সেঞ্চুরিতে অস্ট্রেলিয়া সফরে টানা তৃতীয় জয় পেল বিসিবি হাই পারফরম্যান্স-এইচপি দল।
ডারউইনের মারারা ক্রিকেট গ্রাউন্ডে শুক্রবার তৃতীয় একদিনের ম্যাচে নর্দান টেরিটোরি-এনটি আমন্ত্রিত একাদশকে ৪২ রানে হারায় লিটন কুমার দাসের দল।
টস জিতে ব্যাট করতে নেমে সাইফউদ্দিনের সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৬৭ রান তোলে এইচপি দল। ১০৪ রানের দারুণ এক ইনিংস খেলেন সাইফউদ্দিন। এছাড়া ওপেনার এনামুল হক বিজয় করেন ৩৬ রান। প্রথম ম্যাচে ফিফটি করা তানভীর হায়দারের ব্যাট থেকেও আসে ৩৬ রান।
২৬৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ২২৫ রানেই গুটিয়ে যায় নর্দান টেরিটোরি। অ্যালেক গ্রেগরি একাই করেন ১৪৪ রান। বাকিরা তাকে সঙ্গ দিতে না পারায় টানা তৃতীয় হারের মালা গলায় পরে স্বাগতিক দল।
টানা তিন জয়ে পাঁচ ম্যাচের এই সিরিজে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল বিসিবি এইচপি দল। সিরিজের চতুর্থ একদিনের ম্যাচ হবে রোববার।

মাশরাফিই দেশের সেরা অধিনায়ক: আশরাফুল

অবসর এবং অধিনায়ক থাকা না থাকা নিয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজাকে নিয়ে কম লেখালেখি হচ্ছে না। মাশরাফিও দিয়ে যাচ্ছেন সাধ্যমতো উত্তর। বৃহস্পতিবার মাশরাফি সম্পর্কে সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল জানান, ‘বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যত অধিনায়ক এসেছে সবাই সবার জায়গা থেকে তাদের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছে। আমাদের সময় আমরা যেমন ছিলাম, তার আগে যারা ছিলেন সবাই সেরাটা দিয়েছেন। তার মধ্যে অবশ্যই আমি বলবো, বাংলাদেশের সেরা অধিনায়ক মাশরাফিই।’
আশরাফুল আরো জানান, ‘কারণ ওর সাতটা অস্ত্রোপচার হয়েছে পায়ে। এভাবে খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য বিরাট বড় মানসিকতা লাগে। এ ধরনের মানসিক শক্তি সবার থাকে না। একমাত্র মাশরাফির মধ্যে আছে বলেই সে এখনো চালিয়ে যাচ্ছে। এবং দলটাকে আমি বলবো যে খুব সুন্দরমতো নেতৃত্ব দিচ্ছে।’
মাশরাফির অধীনে এখন পর্যন্ত ৪৭টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে ২৭টি ম্যাচে জয়ী হয়েছে টাইগাররা। জয়ের হার সর্বোচ্চ ৬০ শতাংশ। এর পরেই আছেন সাকিব আল হাসান। ৫০টি ওয়ানডেতে অধিনায়কত্ব করে ৪৬.৯৩ শতাংশ জয় পেয়েছেন। তবে এর অধিকাংশই এসেছে দুর্বল দলের বিপক্ষে। টি-টুয়েন্টিতেও শীর্ষে মাশরাফি। তার অধীনে খেলা ২৮ ম্যাচের ১০টি ম্যাচে জয় পেয়েছেন তিনি। জয়ের হার ৩৭.০৩ শতাংশ।
শুধু দলীয় পারফরম্যান্সই নয়, ব্যক্তিগত নৈপুণ্যেও সবার উপরে মাশরাফি। ২০১৪ সালের নভেম্বরে অধিনায়কত্ব পাওয়ার পর বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫৮ উইকেট নিয়েছেন মাশরাফি।ওভার প্রতি রান মাত্র ৪.৯৪।
আশরাফুল জানান, ‘সবকিছু মিলে আমি বলবো মাশরাফি অসাধারন নেতা। আমি মনে করি যে, সে জানে যে তার কখন কি করতে হবে। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে, সে নিয়মিত পারফর্ম করছে। অধিনায়কত্ব তখনই সহজ হয় যখন খেলায় নিজে পারফর্ম করে।’
এদিকে, গত দুই বছরে ফিটনেসটা দারুণভাবে ধরে রেখেছেন মাশরাফি। তাই ফিট মাশরাফিকে ২০১৯ বিশ্বকাপ পর্যন্ত খেলার কথাই বললেন আশরাফুল, ‘ফিটনেস যদি ঠিক থাকে তাহলে অবশ্যই মাশরাফির ২০১৯ বিশ্বকাপ খেলা উচিত। আর ফিটনেসটা যে তার খুব ভালো তা গত দুই তিন বছরে মাঠের পারফরম্যান্স দেখলেই জানা যায়।’

৩৬ বছরের ১৩ বছর ধরে ডুবে আছেন ক্রিকেটে

নুহিয়াতুল ইসলাম লাবিব : 

বিপদে পাশে থাকাই প্রকৃত বন্ধুর পরিচয়। কথাটি সত্য হলে তিনি ভারতীয় ক্রিকেটের সত্যিকার বন্ধুই বটে। কেননা উইকেট হারিয়ে দল যখনই বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে তখনই ভারতীয় ভক্তদের স্বস্তির নিঃশ্বাস ফিরিয়ে আনতে মাঠে নেমে অসাধারণ সব ইনিংস খেলা যেন এখন অনেকটা নিয়মিতই হয়ে গিয়েছে। কখনো বা শেষ ছোঁয়াটি দিয়ে মাঠ ছেড়েছেন কখনো বা শেষটা রাঙাতে পারেননি। তবে দলের প্রয়োজনে ঠিকই মাটি কামড়ে থাকতেন ২২ গজের ক্রিজটিতে। এতোক্ষনে হয়তো ঠিক ধরে ফেলেছেন কার কথা বলা হচ্ছে। জ্বি, বলছি মাহেন্দ্র সিং ধোনির কথা। যিনি ভারতীয় ক্রিকেটের জন্য গত ১৩ বছর ব্যক্তিগত পারফম্যান্স দ্বারা নিয়মিত অবদান রেখে চলেছেন।

ভারতীয় ক্রিকেটে প্রায় এক যূগ ধরেই যেন নায়কের ভূমিকার দায়িত্বটি নিজের কাঁধে নিয়ে নিয়েছেন। দলের সামনে যখন পরাজয়ের হাতছানি ঠিক তখন অপর প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে সাথে নিয়ে দলকে সম্মানজনক সংগ্রহ বা জয়ের দ্বার প্রান্তে পৌঁছে দিয়েছেন অসংখ্যবার। তাই তো অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার মাইকেল বেভানের পর ফিনিশার তকমাটি তার নামের পাশেই সবচেয়ে ভালো মানায়।

ক্যারিয়ারের শুরুটা হয়েছিল সেই ২০০৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর। বাংলাদেশের বিপক্ষে একটি ওয়ানডে ম্যাচ দিয়ে সেদিনই আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের সূচনা করেন এই ক্রিকেটার। মেনে নিতে একটু কষ্ট হলেও এ কথা  সত্য যে প্রথম ম্যাচে শূন্য রান করেই তাকে ফিরে যেতে হয়েছিল সাজঘরে। তবে শুরুটা বাজে হলেও পুরো ক্যারিয়ার জুড়ে ব্যার্থতার ছাপ একদম নেই বললেই চলে।

টেস্ট, ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টি এই তিন ফরম্যাটেই নিজেকে সমানতালে মানিয়ে নিয়েছেন এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। তবে তিন ফরম্যাটের বিবেচনায় পরিসংখ্যান বলে ওয়ানডেতেই সবচেয়ে বেশি উজ্জ্বল এই ক্রিকেটার। এখন পর্যন্ত ওয়ানডে খেলেছেন ২৯৫টি। তবে ব্যাটিং করার সুযোগ মিলেছে ২৫৫ ইনিংসে। আর এরই মাঝে ৬৪টি অর্ধশতক এবং ১০ টি শতকে ৫১.৩২ গড়ে করেছেন ৯৪৯৬ রান! ২৫৫টি ইনিংসের ৭০টি ইনিংসেই অপরাজিত ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠ ছেড়েছেন এই ক্রিকেটার! বেশিরভাগ সময়ই পাঁচ নম্বর পজিশনে ব্যাট করেন বিধায় নিয়মিত দীর্ঘ সময় ধরে ক্রিজে থাকার সুযোগ মিলে না। তবে এতোকিছুর পরেও একদিনের ক্রিকেটে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ইনিংসটি ১৮৩ রানের। অন্যদিকে ওয়ানডের পাশাপাশি টেস্টেও কম যান না এই খেলোয়াড়। ৯০ টেস্টে ১৪৪ ইনিংসে ব্যাট করে ৩৩টি অর্ধশতক এবং ৬ টি শতক হাঁকিয়ে ৩৮.০৯ গড়ে করেছেন ৪৮১৬ রান।

শুধু ব্যাটিংই নয় উইকেটের পেছনে থেকে উইকেটরক্ষকের ভূমিকায় তিনি কতোটা আগ্রাসী তা কেবল প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানরাই ভালো বলতে পারবেন। ক্রিজ থেকে বের হওয়ার পাশাপাশি ব্যাটে বলে সংযোগ না হওয়া মানেই যেন ব্যাটসম্যানদের জন্য সাজঘরের টিকিট কেটে ফেলা। কেননা ধোনির ওই বিশ্বস্ত হাত জোড়া দিয়ে উইকেটের বেল ফেলে দেওয়াটা যেন আজকাল অনেকটা অনুমিতই বটে। এখন পর্যন্ত ২৯৫টি ওয়ানডেতে ক্যাচ ও স্ট্যাম্পিং এর সংখ্যা যথাক্রমে ২৭৫ ও ৯৭ টি! যার থলিতে এতো উইকেট সেই যদি উইকেটের পেছনে থাকে তবে প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের লাইন ছেড়ে বের হয়ে আক্রমণাত্মক শটস খেলা একটু কষ্টকরই বটে।

ব্যাটিং-কিপিং এর পাশাপাশি ক্রিকেটীয় মেধাও দারুণ এই ক্রিকেটারের। তাই তো দীর্ঘদিন ধরে ছিলেন ভারতের অধিনায়ক হিসেবেও। ভারতের হয়ে অধিনায়কের দায়িত্বটা কাঁধে বয়ে বেড়িয়েছেন বেশ কিছু বছর। তবে ২০১৭ এর ৪ জানুয়ারি অধিনায়ক পদ থেকে সরে দাঁড়াতে হয় তাকে। দীর্ঘ এই পথচলায় অধিনায়ক হিসেবে অসংখ্য রেকর্ড, অসংখ্য প্রাপ্তি জমা করেছেন ভারতের ক্রিকেটের জন্য। তবে অধিনায়ক হিসেবে সবচেয়ে বড় অর্জনের কথা বললে হয়তো তিনিও বলতেন ২০১১ সালের সেই বিশ্বপের কথা। কেননা সেবার তার নেতৃত্বেই ভারত দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বকাপ জয়ের সাধ পেয়েছিল। তাছাড়া সর্বশেষ ২০১৪ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও ভারতকে শিরোপা জেতানোর কৃতিত্বটা তারই। অধিনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের পাশাপাশি আইপিএলে চেন্নাইয়ের অধিনায়ক হয়েও দুইবার দলকে ফাইনাল জেতাতে সক্ষম হন তিনি। বলতে গেলে ক্রিকেটকে সম্পূর্ণ গিলেই খেয়েছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি।

মনে প্রশ্ন জাগতে পারে আজ ঘটা করে কেনই বা তার কথা বলা হচ্ছে? বলা হচ্ছে এই কারণে যে আজ অর্থাৎ ৭ জুলাই পয়ত্রিশকে পিছনে ফেলে ছত্রিশ বছর পূর্ণ করলেন এই ক্রিকেটার। জন্মদিনে তাকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

কোহলির রেকর্ড শতকে ভারতের দাপুটে জয়

ক্রীড়া ডেস্ক :

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পঞ্চম ও শেষ ওয়ানডেতে সহজ জয় তুলে নিয়েছে ভারত। বিরাট কোহলির রেকর্ড গড়া সেঞ্চুরিতে দাপুটে জয়ে ওয়ানডে সিরিজ শেষ করেছে টিম ইন্ডিয়া।

বৃহস্পতিব জ্যামাইকার সাবিনা পার্কে ভারতকে আতিথ্য দেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ঘরের মাঠে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে দিনটা নিজেদের করে রাখতে পারেনি স্বাগতিকরা। সাই হোপের হাফ সেঞ্চুরিতে ভর করে দলীয় সংগ্রহ ২০৫ রানের বেশি করতে পারেনি উইন্ডিজরা। জবাবে কোহলির সেঞ্চুরিতে ৮ উইকেটের দুর্দান্ত জয় পেয়েছে ভারত।পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডেতে ৩-১ ব্যবধানে সিরিজ জিতে নিয়েছে সফরকারীরা।

শেষ ওয়ানডেতে জয়ের জন্য ২০৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি ভারতের। দলীয় ৫ রানে ধাওয়ানকে হারিয়ে কিছুটা ধাক্কা খায় দলটি। তবে এরপর আর বিপর্যয়ে পড়তে হয়নি তাদের। ব্যক্তিগত ৩৯ রানে আজিঙ্কা রাহানের পর ভারতের আরও কোনো উইকেট নিতে পারেনি স্বাগতিক বোলাররা।

ওয়ানডাউনে নেমে অপ্রতিরোধ্য এক সেঞ্চুরিতে দলের জয় নিশ্চিত করেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নিজের চতুর্থ আর সব মিলিয়ে ২৮তম শতকে বাকিটুকু সহজেই সারেন কোহলিই। ১১৫ বলে ১২ চার ও ২ ছক্কায় ১১১ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন তিনি। অপর প্রান্তে ব্যাট হাতে রাহানের পর অধিনায়ককে দারুণ সহায়তা করেন দিনেশ কার্তিক।

লক্ষ্য তাড়ায় এটি কোহলির রেকর্ড ১৮তম শতক। ভারতের ব্যাটিং কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকার নেমে গেছেন দ্বিতীয় স্থানে, লক্ষ্য তাড়ায় তার সেঞ্চুরির সংখ্যা ১৭টি। কোহলির সেঞ্চুরির সঙ্গে গতকাল ৫০ রান করে অপরাজিত ছিলেন দিনেশ কার্তিক।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে উইন্ডিজদের হয়ে সাই হোপ ৫১, কিলে হোপ ৪৬, জেসন হোল্ডার ৩৬ ও রোমনা পুয়েলের ৩১ রান করেন। বড় কোনো ইনিংস না আসায় ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২০৫ রানে থামে ক্যারিবীয়দের দৌড়।

ভারতের হয়ে বল হাতে মোহাম্মদ সামি ৪টি ও উমেশ যাদব ৩টি উইকেট নেন। এছাড়া ১টি করে উইকেট পান হার্দিক পান্ডিয়া ও কেদার যাদব।

নির্বাচকদের অপেক্ষা

এক বছর আগে মিনহাজুল আবেদীন নান্নুকে প্রধান করে যাত্রা শুরু করেছিল জাতীয় ক্রিকেট দলের নির্বাচক কমিটি। সহযোগী হিসেবে ছিলেন হাবিবুল বাশার সুমন ও সাজ্জাদ আহমেদ শিপন। তবে গেল বছর নির্বাচক কমিটিতে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি নতুন একটি মাত্রা যোগ করে। এ কমিটিতে রাখা হয় জাতীয় দলের প্রধান কোচ হাথুরুসিংহে ও ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজনকে। জাতীয় দল নির্বাচনের সময় ভূমিকা রাখেন তারাও। এই নিয়ে মতপার্থক্যেক কারণে আগের প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমেদের পদত্যাগের পরই তার কমিটিতে থাকা মিনহাজুলকে প্রধান নির্বাচক করা হয়। গেল ৩০শে জুন সেই নির্বাচক কমিটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। তাই নির্বাচকরা অপেক্ষায় আছেন নতুন চুক্তির জন্য। এক সপ্তাই পার হলেও বিসিবি নীরব। প্রশ্ন উঠেছে আগের কমিটিই বহাল থাকবে নাকি নতুন কেউ আসবে? এই বিষয়ে নান্নু বলেন, ‘আমাদের এক বছরের চুক্তি শেষ হয়ে গেছে। এখন নতুনভাবে চুক্তির অপেক্ষায় আছি। কোনো পরিবর্তন হবে কি না তা বোর্ড বলতে পারবে। সাধারণত বোর্ড সভাতেই সিদ্ধান্ত হয় এ সব বিষয়ে। কিন্তু যতটা জানি দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমে হলে, বোর্ড সভাপতি অনুমোদন দিলে এমনিতেই হয়ে যাবে। আশা করি কয়েক দিনের মধ্যেই হবে।’
তিনি বলেন, ‘কবে চুক্তি হবে জানিনা। যতটা শুনেছি খুব দ্রুতই চুক্তি হবে। তার আগে বোর্ড হয়তো আমাদের সঙ্গে কথাও বলবে। এই বিষয়ে আসলে বলতে পারবে বোর্ডের প্রধান নির্বাহী (সিইও)।’
এ বিষয়ে বিসিবির সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘আমাদের নির্বাচকদের সঙ্গে চুক্তি ছিল একবছরের। তা শেষ হয়ে গেছে। এখন আমরা চুক্তি নতুনভাবে করার প্রক্রিয়া শুরু করেছি। দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমেই চুক্তি হবে, সেজন্য হয়তো বোর্ড সভার প্রয়োজন হবে না। দ্রুতই চুক্তি হয়ে যাবে।’
নির্বাচক কমিটিতে রদবদল হচ্ছে নাকি আগের কমিটিই থাকছে এই প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে যান সিইও। তিনি বলেন, ‘এটি আসলে এখনই বলা যাবে না। বলতে পারি দ্রুতই চুক্তি হয়ে যাবে।’ অবশ্য দ্বিপক্ষীয় সমঝোতার মধ্যে হলে রদবদলের তেমন সুযোগও নেই।

অধিনায়ক রুটের অভিষেক সেঞ্চুরি: ইংলিশদের স্বস্তি

অধিনায়ক হিসেবে জো রুটের অভিষেক সেঞ্চুরিতে লর্ডস টেস্টের প্রথম দিন শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ভালো অবস্থানে আছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড। লর্ডসে, টসে জিতে ব্যাট করতে নেমেই প্রোটিয়া বোলিং তোপে পড়ে ইংলিশরা। দলের ৭৪ রানে অ্যালিস্টার কুকসহ চার উইকেট পড়ে গেলে বিপর্যয়ে পড়ে স্বাগতিক দল। অল্প রানেই গুটিয়ে যাওয়ার শংকা নামে ইংল্যান্ড শিবিরে। ৫ম উইকেটে বেন স্টোকসকে নিয়ে ১১৪ এবং ৬ষ্ঠ উইকেটে মঈন আলীকে নিয়ে, দলের সংগ্রহে জো রুট আরো ১৬৭ রান যোগ করলে বড় সংগ্রহ পায় ইংল্যান্ড। এরই মাঝে রুট তুলে নেন, অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি। ষষ্ঠ ইংলিশ অধিনায়ক হিসেবে অভিষেকেই সেঞ্চুরি করলেন জো রুট। এটি তার দ্বাদশ শতরান। প্রথম দিন শেষে ৫ উইকেটে ৩৫৭ রান তোলে ইংলিশরা। রুট ১৮৪ রানে এবং মঈন আলী ৬১ রানে অপরাজিত থাকেন। প্রোটিয়া বোলারদের মধ্যে ফিল্যান্ডর ৪৬ রানে ৩টি উইকেট তুলে নেন।

আবারো ইংল্যান্ড যাচ্ছেন তামিম

সাম্প্রতিক ফর্মে মুগ্ধ হয়ে তামিম ইকবালকে দলে ভিড়িয়েছে কাউন্টির দল এসেক্স। এসেক্সের হয়ে খেলতে শুক্রবার সকালে দেশ ছাড়বেন তিন ফরম্যাটেই বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তামিম। ইতিমধ্যে বিসিবি থেকে অনাপত্তিপত্র পেয়ে গেছেন তিনি।
এসেক্সের হয়ে খেলতে যাওয়ার আগেরদিন বৃহস্পতিবার মিরপুরে অনুশীলনও করেছেন যে কোনো ফরম্যাটে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ মালিক তামিম। কাজ করেছেন ব্যাটিং নিয়ে।
তার ইল্যান্ড যাওয়ার ব্যাপারটি নিশ্চিত করেছেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজনও, ‘তামিম আমাদের কাছে আবেদন করেছে। আমরা তার যাওয়ার ব্যাপারে সম্মতি জানিয়েছি। বোর্ডের পক্ষ থেকে তাকে অনাপত্তিপত্র দেয়া হয়েছে।’
এরআগেও কাউন্টি ক্রিকেটে খেলেছেন তামিম। তার আগের ক্লাব নটিংহ্যামশায়ার। সেবার খেলেছিলেন পাঁচটি ম্যাচ। এবার তার নতুন ঠিকানা এসেক্স। এসেক্সের হয়ে ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টে খেলবেন তামিম।
বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্টে এসেক্সের হয়ে ৯টি ম্যাচ খেলবেন তামিম। এরপর দেশে ফিরে আসবেন অস্ট্রেলিয়া সিরিজের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে। আগস্টের প্রথম সপ্তাহেই তামিম দেশে ফিরবেন বলে জানা গেছে।
টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টের উদ্বোধনী দিনেই মাঠে নামছে তামিমের দল এসেক্স। ৭ জুলাই তাদের প্রথম ম্যাচ সারের বিপক্ষে। তবে দেশে থাকায় এই ম্যাচে তামিম খেলা হচ্ছে না তার। এসেক্সের দ্বিতীয় ম্যাচেই ব্যাট হাতে মাঠে নামবেন বাংলাদেশ ওপেনার।
দ্বিতীয় ম্যাচটি ৯ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে। ওই ম্যাচে তামিমদের প্রতিপক্ষ কেন্ট। এসেক্সের অধিনায়ক করা হয়েছে নেদারল্যান্ডস অলরাউন্ডার রায়ান টেন ডোসকাটকে।

শান্ত-র সেঞ্চুরিতে দ্বিতীয় জয় বিসিবি এইচপি দলের

নর্দার্ন টেরিটরির বিপক্ষে দ্বিতীয় ম্যাচে সহজ জয় পেয়েছে বিসিবি এইচপি একাদশ। এই ম্যাচে এইচপি একাদশ ৭০ রানে হারিয়েছে নর্দার্ন টেরিটরিকে। গতকাল সিরিজের প্রথম ম্যাচে নর্দার্ন টেরিটরির বিপক্ষে মাত্র ১ উইকেটে জিতেছিলো এইচপি একাদশ।
ডারউইনে মারারা ক্রিকেট গ্রাউন্ডে সফরের দ্বিতীয় ম্যাচে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্বান্ত নেয় এইচপি একাদশ। নাজমুল হোসেন শান্তর সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেটে ৩১৩ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় এইচপি একাদশ। শান্ত ১০১ রান করেন। এছাড়া ইরফান শুক্কুর ৬০ ও এনামুল হক বিজয় ৫৮ রান করেন।
৩১৪ রানের বড় টার্গেটে নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে নর্দার্ন টেরিটরি। ফলে ৪৫ দশমিক ৩ ওভারে ২৪৩ রানেই গুটিয়ে যায় তারা। এইচপি একাদশের সাইফুদ্দিন ৩৬ রানে ৪ উইকেট ও এবাদত হোসেন ৩৫ রানে ২ উইকেট নেন। আগামীকাল হবে তৃতীয় একদিনের ম্যাচটি।

জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটে হারালো শ্রীলঙ্কা

বৃথাই গেলো হ্যামিল্টন মাসাকাদজার সেঞ্চুরি। নিজেরা সেঞ্চুরি করে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে দলকে লিড এনে দিলেন শ্রীলংকার দুই ওপেনার নিরোশান ডিকাবেলা ও দানুষ্কা গুনাথিলাকা। হাম্বানটোটায় সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে সফরকারী জিম্বাবুয়েকে ৮ উইকেটের ব্যবধানে হারালো শ্রীলংকা। এতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে গেলো স্বাগতিক লংকানরা।
ডিকােভলা এবং গুনাতিলকার সেঞ্চুরিেত ২ উইকেটে ৩১২ রান করে জয় পায় স্বাগতিকরা। ডিকােভলা ১০২ এবং গুনাতিলকা ১১৬ রান করেন। এই জুটির ২২৯ রানে ভর করে জয় পায় শ্রীলঙ্কা। পরে বাকী আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেন কুশল মেন্ডিজ আর উপুল থারাঙ্গা। তাতে ১৬ বল হাতে রেখেই ম্যাচ জেতে স্বাগতিক দল।

এরআগে, শ্রীলঙ্কাকে ৩১১ রানের বিশাল টার্গেট দেয় জিম্বাবুয়ে। আগে ব্যাটিং করতে নেমে ৮ উইকেটে জিম্বাবুয়ে তুলেছে ৩১০ রান।
পাঁচ ম্যাচ সিরিজের প্রথম ম্যাচে বড় ব্যবধানে জয় পায় জিম্বাবুয়ে। দ্বিতীয় ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ায় অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুসের দল। এই জয়ে ২-১-এ এগিয়ে গেলো স্বাগতিকরা।

টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে শ্রীলঙ্কার বোলারদের উপর চড়াও হন জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যানরা। সেঞ্চুরি পান হ্যামিলটন মাসাকাদজা। ৯৮ বলে ১৫ চার ও ১ ছক্কায় ১১১ রান করেন। এটি তার ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি। এছাড়া তারিসাই মুসাকান্দা ৪৮, শন উইলিয়ামস ৪৩ রান করেন। শেষ দিকে সিকান্দার রাজার ২৫ ও পিটার মুরের ২৪ রানে তিনশ রান অতিক্রম করে সফরকারীরা।

লঙ্কান বোলারদের হয়ে ২টি করে উইকেট নেন হাসারাঙ্গা ও আশেলা গুনারত্নে। পেসার লাসিথ মালিঙ্গা ৯ ওভারে ৭১ রান দিয়ে পান ১ উইকেট। একই ভেন্যুতে আগামী ৮ জুলাই অনুষ্ঠিত হবে সিরিজের চতুর্থ ওয়ানডে।

সফর বাতিলের সিদ্ধান্ত অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়দের

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) সঙ্গে বেতন চুক্তি নিয়ে সমঝোতা না হওয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করে খেলোয়াড়রা। বৃহস্পতিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েসন (এসিএ)।
গত রোববার অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েসনের(এসিএ) সঙ্গে সিডনিতে জরুরি বৈঠক করেন ক্রিকেটাররা। বৈঠক শেষে সাফ জানানো হয়, বোর্ডের সঙ্গে চুক্তি না হলে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করবে অস্ট্রেলিয়া ‘এ’দল। অবশেষে সে পথেই হাঁটল ম্যাক্সওয়েল, উসমান খাজারা। শুধু দক্ষিণ আফ্রিকা সফর নয় পরবর্তী সিরিজগুলোও নিয়েও ভাবতে শুরু করছে ক্রিকেটাররা।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এসিএ জানায়, ‘এটা খুবই হতাশাজনক যে বর্তমান বিতর্কের সমাধান করার জন্য কোন অগ্রগতি নেই। অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়রা নিশ্চিত করেছে যে তারা দক্ষিণ আফ্রিকা সফর করবে না।’ এসিএ আরও জানায়, ‘সব খেলোয়াড়ই সিএ-র আচরণে গভীরভাবে হতাশ। খেলোয়াড়রা তাদের দেশের জন্য খেলতে পারছেন না। তারা এই ধরনের পদক্ষেপ সমর্থন করে না।’
১২ জুলাই থেকে দক্ষিণ আফ্রিকা ‘এ’ দলের বিপক্ষে সিরিজ খেলার কথা অস্ট্রেলিয়া ‘এ’ দলের। দুটি চারদিনের ম্যাচ খেলার পাশাপাশি স্বাগতিক দল ও ভারত ‘এ’ দলকে নিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলার কথা ছিলো তাদের।
ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রস্তাবিত বেতন কাঠামো প্রত্যাখান করে চুক্তিতে সই করেনি অস্ট্রেলিয়ার ২৩০ পেশাদার ক্রিকেটার। ৩০ জুন ছিল বেতন চুক্তি নবায়নের শেষ দিন। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে কোনো ক্রিকেটারই চুক্তিতে সই করেনি। চুক্তিতে সই না করায় এক অর্থে বেকার অসি ক্রিকেটাররা। দক্ষিণ আফ্রিকা সফর বয়কট করায় হুমকির মুখে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট দলের বাংলাদেশ সফর, ভারত সফর ও অ্যাশেজ সিরিজও।

এক উইকেটে জিতলো এইচপি দল

অস্ট্রেলিয়ার নর্দান টেরিটোরি দল এক উইকেটে হারিয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে জয় পেলো বাংলাদেশ হাই পারফরমেন্স দল। ডারউইনের মারারা স্টেডিয়ামে, টস হেরে ব্যাট করে, ৭ উইকেটে ১৮৯ রান তোলে স্বাগতিক দল। ৭৮ বলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৭৩ রান করেন জে. ডিকম্যান। বাংলাদেশ এইচপি দলের বোলারদের মধ্যে রাজু ৭ ওভারে ৩৪ রানের খরচায় ২টি উইকেট তুলে নেন।

১৯০ রানে জয়ের টার্গেটে ব্যাট করে, ৮৬ রানে ৪ উইকেট পড়ে গেলেও, তানভীর হায়দারের অপরাজিত ফিফটিতে ৯ উইকেটে ১৯০ রান করে জয় পায় এইচপি দল। তানভীর ৮৩ বলে ৪ চারে ৫১ রানের হার না মানা এক ইনিংস খেলেন। ৩১ বলে ৪ চার ও এক ছক্কায় ওপেনার লিটন দাস করেন ৪১ রান। ৩১ রান আসে আবুল হাসান রাজুর ব্যাট থেকে। আগামীকাল একই ভেন্যুতে একই দলের সঙ্গে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ এইচপি দল।

এবারো খুলনা টাইটান্সের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ

আগের আসরের সাফল্যের পর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসরেও খুলনা টাইটান্সের অধিনায়কের দায়িত্ব পেলেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বুধবার আনুষ্ঠানিকভাবে এই ঘোষণা দেন ফ্র্যাঞ্চাইজিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাজী এনাম আহমেদ।

দলের নতুন কোচ শ্রীলঙ্কান কিংবদন্তি মাহেলা জয়াবর্ধনেকে আনুষ্ঠানিকভাবে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার অনুষ্ঠানে এই ঘোষণা দেওয়া হয়।
কাজী এনাম বলেন, ‘রিয়াদ আমাদের আইকন প্লেয়ার ছিলো, এবারও আছে। আমরা খুশির সঙ্গে ঘোষণা করছি যে গেল আসরের মতো এই আসরেও সে খুলনার অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবে। সে একজন টোটাল টিম প্লেয়ার, আমরা তার উপর ভরসা রাখতে চাই।’

টুর্নামেন্টের চতুর্থ আসরে খুলনা মাঝারি গোছের দল নিয়েও রিয়াদের নেতৃত্বে তৃতীয়স্থান পায়। তারই ধারাবাহিকতায় আবারও রিয়াদকে অধিনায়ক নির্বাচিত করলো দলটি। রিয়াদ নিজেও দ্বিতীয়বারের মতো নেতৃত্ব পেয়ে খুশি। দলকে আরও সামনে এগিয়ে নিতে চান তিনি। আরও ভালো করতে চান। একই সঙ্গে দলের নতুন কোচ মাহেলা জয়াবর্ধনের উপস্থিতিও তাকে রোমাঞ্চিত করছে। রিয়াদ বলেন, ‘এনাম ভাইকে ধন্যবাদ আবারও অধিনায়কত্ব দেওয়ার জন্য। খুব ভালো লাগছে। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলতে চাই। সঙ্গে মাহেলা জয়াবর্ধনের মতো কিংবদন্তিকে পেয়ে খুব ভালো লাগছে। তার ক্রিকেট ক্যারিয়ার আমাদের কারো অজানা নেই। আমি তার সঙ্গে কাজ করতে মুখিয়ে আছি।’
গেল আসরে চ্যাম্পিয়ন দল ঢাকা ডায়নামাইটসকে হারিয়ে সেমিফাইনালে জায়গা করে নেয় খুলনা। এরপর রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছিলো রিয়াদের দল।

উইন্ডিজ টি-টোয়েন্টি দলে গেইল

ক্রীড়া ডেস্ক: 

ঘরের মাটিতে ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচে দলে ডাক পেয়েছেন ক্রিস গেইল। জ্যামাইকার সাবিনা পার্কে ওই ম্যাচটির জন্য ক্যারিবীয় ১৩ সদস্যের দলে সুযোগ পেয়েছেন বিস্ফোরক এ ব্যাটসম্যান।

বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান গেইলকে জায়গা করে দিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দল থেকে বাদ পড়েছেন লেন্ডল সিমন্স। আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ তিনটি ম্যাচে তার স্কোর ছিল ৬, ১৭*, ১৫। তাই ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টি-টোয়েন্টিতে তাকে দলের বাইরে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন উইন্ডিজ নির্বাচকরা।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে ও টেস্ট অধিনায়ক জেসন হোল্ডার এই ম্যাচে খেলবেন না। মূলত বিশ্রাম দিতেই তাকে দলের বাইরে রাখা হয়েছে।

ইডেন গার্ডেনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে সবশেষ ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলেছিলেন গেইল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের জার্সি গায়ে দীর্ঘ সময় পর আবারও মাঠে নামতে যাচ্ছেন তিনি। ১৫১৯ রান নিয়ে টি-টোয়েন্টিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সর্বোচ্চ স্কোরার গেইল। এর মধ্যে রয়েছে দুটি সেঞ্চুরি। ভারতের বিপক্ষে একাদশে সুযোগ পেলে তার জন্য ম্যাচটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে। কারণ সাবিনা পার্কে এর আগে কখনো টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেননি গেইল।

আগামী ৯ জুলাই শক্তিশালী ভারতের বিপক্ষে একমাত্র টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মুখোমুখি হবে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

উইন্ডিজ টি-টোয়েন্টি দল: কার্লোস ব্রেথওয়েট (অধিনায়ক), স্যামুয়েল বদ্রি, রনসফোর্স বিটন, ক্রিস গেইল, এভিন লুইস, জেসন মোহাম্মদ, সুনিল নারিন, কাইরন পোলার্ড, রোভম্যান পাওয়েল, মার্লন স্যামুয়েলস, জেরোম টেইলর, চ্যাডউইক ওয়ালটন (উইকেটরক্ষক), কেসরিক উইলিয়ামস।

 

ক্রিকেটারই হবেন তামিম পুত্র

নিজের ছেলে বড় হয়ে কি হবেন, এমন কোন কিছুই এখনো বলেননি বাংলাদেশের ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের ছেলের একটি ভিডিও আপলোড করেছেন এই ওপেনার। আর এরপর থেকেই গুঞ্জন উঠেছে তাহলে কি বাবার মতই ক্রিকেটার হচ্ছেন তামিম পুত্র!

ফেসবুকের ভিডিওতে দেখা যায়, `দুই হাতে দুই ব্যাট নিয়ে হেঁটে বেড়াচ্ছেন তামিম পুত্র আরহাম।`

উল্লেখ্য, স্কুল জীবন থেকেই তামিম-আয়েশার মন দেয়া-নেয়া শুরু। আট বছরের লম্বা সময় ধরে চলেছে প্রেম পর্ব। ২০১৩ সালের ২২ জুন আনুষ্ঠানিক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন তারকা এ জুটি। এরপর ২০১৬ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি পৃথিবীতে আসেন তামিম-আয়েশা দম্পতির প্রথম সন্তান আরহাম খান।

তিন ফরেমেটেই পাকিস্তানের অধিনায়ক এখন সরফরাজ

অবশেষে তিন ফরমেটেই পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অধিনায়ক করা হলো সরফরাজ আহমেদকে। টি-টোয়েন্টি, ওয়ানডের পর এবার পাকিস্তানের টেস্ট দলেরও অধিনায়কের দায়িত্ব পেলেন তিনি।
ইংল্যান্ডে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতকে ১৮০ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শিরোপা জিতে নেয় পাকিস্তান। র‌্যাঙ্কিংয়ের আটে থেকেও দলকে শিরোপা জয়ে কার্যকরী নেতৃত্ব দেওয়ায় টেস্ট অধিনায়কের দায়িত্ব দেয়া হবে সরফরাজকে সে কথা আগেই জানিয়েছিলেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি শাহরিয়ার খান। মঙ্গলবার ইসলামাবাদে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কার্যালয়ে এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এ ঘোষণা দেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান শাহরিয়ার খান।
এ প্রসঙ্গে শাহরিয়ার খান বলেন, ‘ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির সঙ্গে আহমেদকে (সরফরাজ আহমেদ) টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার সুযোগটি নিচ্ছি আমি।’ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজে পাকিস্তানকে নেতৃত্ব দেবেন সরফরাজ আহমেদ। অক্টোবরে ওই সিরিজটি নিরপেক্ষ ভেন্যু আরব আমিরাতে হওয়ার কথা রয়েছে।
টেস্টে অধিনায়কের দায়িত্ব পেয়ে গর্বিত সরফরাজ বলেন, ‘টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে আমাকে মনোনীত করায় আমি সম্মানিত বোধ করছি। সব ফরম্যাটে দলকে ভালো ফলাফল এনে দিতে আমি সেরাটা দিয়ে চেষ্টা করব। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির শিরোপা জয়ের পর আমরা থেমে যেতে চাই না।’

বাংলাদেশ এইচপি দলের ডারউইন সূচি

বাংলাদেশ হাই পারফরমেন্স দল পাঁচটি ওয়ানডে ও একটি তিনদিনের ম্যাচ খেলবে অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সঙ্গে। নর্দান টেরিটোরি ডারউইনের মারারা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হবে খেলাগুলো।
৫, ৬ ও ৭ জুলাই হবে প্রথম তিনটি ওয়ানডে। একদিন করে বিরতির পর ৯ ও ১১ জুলাই হবে চতুর্থ ও পঞ্চম ওয়ানডে। আর ১৩ থেকে ১৫ জুলাই হবে একমাত্র তিনদিনের ম্যাচটি।

ভুবনেশ্বরে অনুশীলনে সন্তুষ্ট বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা

আর চারদিন পর ভারতের ভুবনেশ্বরে শুরু হবে এশিয়ার অ্যাথলেটিক চ্যাম্পিয়নশিপ। এশিয়ার সবচেয়ে বড় এ চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে বাংলাদেশের ১৮ অ্যাথলেট এখন উড়িষ্যা রাজ্যের রাজধানীতে। এই প্রথম এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে বিশাল দল পাঠিয়েছে বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক ফেডারেশন। ১৪ জন পুরুষের সঙ্গে রয়েছেন ৪ জন নারী।

কেবল বড় দলই পাঠায়নি ফেডারেশন, চ্যাম্পিয়নশিপের আগে এই ভুবনেশ্বরেই বাংলাদেশের অ্যাথলেটদের দুই সপ্তাহের অনুশীলনের সুযোগও করে দিয়েছে। ইন্ডিয়া অ্যামেচার অ্যাথলেটিক ফেডারেশনের সহযোগিতায় মেজবাহ আহমেদরা পেয়েছেন দারুণ এই সুযোগ।

তিনজন কোচও গেছেন ১৭ অ্যাথলেটের সঙ্গে। মাহবুবা ইকবাল বেলী, রফিকুল ইসলাম ও হাফিজুর রহমানদের পাশাপাশি স্থানীয় অভিজ্ঞ কোচদের সহায়তাও পাচ্ছেন বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা। নারী অ্যাথলেট জেসমিন আক্তারের জ্বর হওয়া ছাড়া ভুবনেশ্বরে আর তেমন কোনো সমস্যায় পড়তে হয়নি বাংলাদেশ দলকে। জেসমিনকে একদিন স্থানীয় হাসপাতালেও থাকতে হয়েছিল।

অ্যাথলেটরা ওখানে দুই সপ্তাহের অনুশীলনে দারুণ খুশি। ভুবনেশ্বর থেকে বাংলাদেশের দ্রুততম মানব মেজবাহ আহমেদ জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, ‘এখানে আমাদের অনুশীলন সুন্দর হয়েছে। এখানে আসার পর আমরা যে হোটেলে ছিলাম সেখান থেকেই আজই উঠেছি অফিসিয়াল হোটেলে। ৫ জুলাই চ্যাম্পিয়নশিপের উদ্বোধন। পরের দিন খেলা শুরু হবে। আমরা আগের দিন পর্যন্ত অনুশীলন করবো।’

নারী স্প্রিন্টার সুস্মিতা ঘোষ জাগো নিউজকে বলেছেন,‘আমাদের অ্যাথলেটরা এ ধরণের বড় আসরের আগে এমন লম্বা অনুশীলনের সুযোগ আগে কখনো পায়নি। তাও আবার টুর্নামেন্টের শহরে। এখানে আমাদের অনেক কদর করেছে ইন্ডিয়া অ্যামেচার অ্যাথলেটিক ফেডারেশনের লোকজন। থাকা-খাওয়া সবই কিছু ভালো। আমরা এই দুই সপ্তাহ নিবিঢ়ভাবে অনুশীলন করতে পেরেছি।’

হ্যামার থ্রোয়ার মো. হেদায়েত হোসেন এই অনুশীলনে অনেক লাভবান হয়েছেন। ভুবনেশ্বরে তিনি ৫০ মিটারের বেশি ছুড়ছেন। যেখানে ঢাকায় ছিল সর্বোচ্চ ৪৫ মিটার। সর্বশেষ জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে তিনি রৌপ্য পেয়েছিলেন ৪৫ মিটারে। ‘এখানে এসে আমার অনেক উন্নতি হয়েছে। আমি আশাবাদী এভাবে দূরত্ব বাড়াতে পারলে আগামী এসএ গেমসে স্বর্ণ জিততে পারবো ইনশাল্লাহ’-ভুবনেশ্বর থেকে জাগো নিউজকে জানিয়েছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের এ অ্যাথলেট।

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিক দল

মেজবাহ আহমেদ, কাজী শাহ ইমরান, শরীফুল ইসলাম, আবদুর রউফ, মাসুদ রানা, ইসমাইল হোসেন, মাসুদ খান, খন্দকার কিবরিয়া, কামরুল ইসলাম, সাজ্জাদ হোসেন, মাহফুজুর রহমান, হেদায়েত হোসেন, আল-আমিন, আলমগীর হোসেন, সোহাগী আক্তার, সুস্মিতা ঘোষ, সুমি আক্তার ও জেসমিন আক্তার।

টিম ম্যানেজার : অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু, কোচ : মাহবুবা ইকবাল বেলী, রফিকুল ইসলাম ও হাফিজুর রহমান।

নারী বিশ্বকাপেও ভারতকে হারাতে পারল না পাকিস্তান

ইতিহাসটা বদলাতে পারলো নারী ক্রিকেটাররাও। এমনিতেই হয়তো ভুরি ভুরি ম্যাচে ভারতকে হারিয়ে বসে পাকিস্তান; কিন্তু বিশ্বকাপ এলেই কেন যেন উল্টে যায় চিত্রটা। ভারতকে কোনোভাবেই হারাতে পারে না তারা। পুরুষ বিশ্বকাপে তো পারেই না। এবার নারী বিশ্বকাপেও দেখা যাচ্ছে একই অবস্থা। ভারতের নারীদের হারাতে পারেনি পাকিস্তানের নারীরা। উল্টো হেরেছে ৯৫ রানের বিশাল ব্যবধানে।

তবে সরফরাজদের কাছে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনাল হারের বদলাই নিল ভারতীয় নারী ক্রিকেট দল। পাকিস্তানকে ৭৪ রানে অলআউট করে দিল মিতালি অ্যান্ড কোং। বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বের ম্যাচে একতার (১৮ রানে ৫ উইকেট) বোলিং দাপটের সামনে অসহায় আত্মসমর্পণ করলো পাকিস্তানের ব্যটসম্যানরা। এ’নিয়ে টানা ১০ ম্যাচে পাকিস্তানকে হারালেন ভারতীয় নারী ক্রিকেটাররা।

ভারতের দেওয়া ১৭০ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরুটা একদমই ভালো হয়নি পাকিস্তানের। মাত্র এক রানেই প্রথম উইকেট হারায় তারা। নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট হারাতে থাকা পাকিস্তানের নারীরা