দুপুর ২:০৪, রবিবার, ২২শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং

অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শেষ ষোলোতে পৌঁছেছেন সুইস তারকা রোজার ফেদেরার।সেই সঙ্গে চতুর্থ রাউন্ড নিশ্চিত করেছেন ব্রিটিশ তারকা অ্যান্ডি মারে।

চেক প্রজাতন্ত্রের টমাস বার্ডিচের বিরুদ্ধে যেমনটা অনুমান করা হয়েছিল, তেমন কোনো পরীক্ষায় শুক্রবার মুখোমুখি হতে হয়নি ১৭ বার গ্র্যান্ড স্লামজয়ী ফেদেরারকে। বার্ডিচ ৬-২, ৬-৪ ও ৬-৪ গেমে হারিয়ে চতুর্থ রাউন্ডে পৌঁছে যান সুইস এ কিংবদন্তী। চতুর্থ রাউন্ডে ৩৫ বছর বয়সী ফেদেরার লড়বেন জাপানের কেই নিশিকোরির সঙ্গে।

আপরদিকে তৃতীয় রাউন্ডে গতকাল ব্রিটিশ তারকা মারে জায়ান্ট কিলারখ্যাত স্যাম কুরিকে ৬-৪, ৬-২, ৬-৪ গেমে হারিয়ে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের চতুর্থ রাউন্ডে উঠেছেন। একাধিকবার ফাইনাল খেললেও মারে কখনও অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শিরোপা জিততে পারেননি। মারে পরের ম্যাচে খেলবেন জার্মানির মিচা জেভেরেভের বিপক্ষে।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের চতুর্থ রাউন্ডে পা রেখেছেন স্টান ওয়ারিঙ্কাও। গতকাল তিনি চার সেটের ম্যাচে হারিয়েছেন ভিক্টোর ট্ররিচিককে। চতুর্থ রাউন্ডে পা রেখেছেন জো উইলফ্রেড সোঙ্গাও।

তৃতীয় রাউন্ডে রজার ফেদেরার

বছরের প্রথম গ্রান্ডস্লাম মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে দারুণ সূচনা করেছেন রজার ফেদেরার। নিশ্চিত করেছেন তৃতীয় রাউন্ডের খেলা। দ্বিতীয় রাউন্ডে তিনি হারিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের নোয়া রুবিনকে, ৭-৫, ৬-৩, ৭-৫ গেমে।

এদিকে অস্ট্রেলিয়া ওপেনে শুভসূচনা করতে পেরে দারুণ খুশি রেকর্ড ১৭টি গ্র্যান্ড স্ল্যামজয়ী ফেদেরার। এই আসরে পঞ্চমবারের মতো শিরোপা জিততে মরিয়া তিনি।

পরের রাউন্ডে ফেদেরারের প্রতিপক্ষ টমাস বার্ডিচ। ওই ম্যাচ নিয়ে সুইস তারকা সাংবাদিকদের বলেন, ‘গত পাঁচবারের সাক্ষাতে টমাস বার্ডিচের বিপক্ষে জিতলেও আমাকে সামনের ম্যাচে আরও ভালো খেলতে হবে।’

অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের দ্বিতীয় রাউন্ডে জোকোভিচ

বছরের প্রথম গ্রান্ডস্লাম অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে দারুণ সূচনা করে দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা নিশ্চিত করেছেন নোভাক জোকোভিচ। সোমবার প্রথম রাউন্ডে তিনি হারিয়েছেন স্প্যানিশ তারকা ফের্নান্দো ভারদাস্কোকে,৬-১,৭-৬,(৭-৪) ৬-২ গেমে।

এদিকে অস্ট্রেলিয়া ওপেনে ভারদাস্কোকে হারিয়ে শুভ সূচনা করতে পেরে দারুণ খুশি নোভাক জোকোভিচ। এই ভারদাস্কো যে গতবারের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের শুরুতে জন্ম দিয়েছিলেন অঘটন। প্রথম রাউন্ডেই বিদায় করে দিয়েছিলেন রাফায়েল নাদালকে। দ্বিতীয় রাউন্ড নিশ্চিত করতে জোকোভিচ অবশ্য সময় নেন ২ ঘন্টা ২০ মিনিট।

গত ডিসেম্বরে ছেলেদের টেনিসের র্যাংিকিংয়ে দুয়ে নেমে গেছেন জোকোভিচ। অ্যান্ডি মারের কাছে শীর্ষস্থান হারানোর পর প্রথমবারের মত গ্র্যান্ডস্লাম টুর্নামেন্টে নামলেন তিনি।

টেনিসের বালিকা এককে চ্যাম্পিয়ন ইউজিআও চি

ইন্টারন্যাশনাল জুনিয়র টেনিসের বালিকা এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন চিনের ইউজিআও চি। শুক্রবার  জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত বালিকা এককের ফাইনালে ইউজিআও চি ২-০ সেটে হারিয়েছেন ভারতের তানিসা কাসাবকে। গত রোববার শুরু হয়েছে ৭ দিনব্যাপী এ জুনিয়র আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট।

বালিকা দ্বৈতের ফাইনালে উঠেছে কোরিয়ার ঝাউ মিন পার্ক এবং চাও হাই জিম জুটি এবং চীনের ইউজিআও চি এবং জিং ইয়ান স্বদেশী জুটিকে ২-০ সেটে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। বালক এককের সেমিফাইনালে ভারতের কারান শিবসতাভ স্বদেশী সিদার্থ ঠাকরানকে ২-০ সেটে এবং ভারতে রিশব শারদা স্বদেশী বাদলাকে ২-০ সেটে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছেন।

বালক দ্বৈতের সেমিফাইনালে  কোরিয়ার কাও কিম এবং ওয়িন স্টে লি জুটি এবং কোরিয়ার ডাংকিং কিম এবং জাঙ্গা হো সোহেন স্বদেশী জুটিকে ৬-১, ৬-২ সেটে পরাজিত করে ফাইনালে উঠেছে।

শনিবার বালক এককা এবং বালক দ্বৈতের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে। টুর্নামেন্টে ১১ টি দেশের ১০২ জন প্রতিযোগি অংশ নিচ্ছেন।

পর্দা নামলো বিএসপিএ ক্রীড়া উৎসবের

মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পর্দা নেমেছে ডিবিএল-বিএসপিএ ক্রীড়া উৎসবের। রাজধানীর ক্যাপ্টেন মনসুর আলী হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব জনাব অশোক কুমার বিশ্বাস।

পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সমিতির সভাপতি মোস্তফা মামুন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ান উজ জামান রাজিব। উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া সাব কমিটির চেয়ারম্যান এসবি চৌধুরী শিশির ও সচিব মাহবুব সরকারসহ অন্যরা।

৫ দিন ব্যাপী চলা এ আয়োজনে অংশ নেন সংগঠনটির শতাধিক সদস্য। মূলত তাদেরেই অংশগ্রহনে এখানে আয়োজন করা হয় ৬টি ইভেন্টের। দাবা, ক্যারম, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, শ্যুটিংসহ ছিল আর্চ্যারির মতো ইভেন্ট। সব খেলায় ভালো করেছে এমন একজনকে রেটিং পয়েন্টের ভিত্তিতে স্পোর্টস ম্যান অব বিএসপিএ ২০১৬ ঘোষাণা করা হয় অনুষ্ঠানে। যেখানে এই পুরষ্কার জিতেছেন কবিরুল ইসলাম। পুরষ্কার হিসেবে তার হাতে তুলে দেওয়া হয় ট্রফি, ডামি চেক ও প্রাইজমানি।

টেবিল টেনিস এককে রুমেল খান চ্যাম্পিয়ন ও মোহাম্মদ সালাউদ্দিন রানারআপ হয়েছেন। দ্বৈতে রুমেল খান-মাহমুদুন্নবী চঞ্চল জুটি চ্যাম্পিয়ন ও সুদীপ্ত আহমদ আনন্দ-মোহাম্মদ জুবায়ের জুটি রানার্সআপ হয়েছেন।

দাবায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন মোরসালিন আহমেদ ও রানারআপ হয়েছেন আশরাফুর রহমান মুরাদ। ব্যাডমিন্টন এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন জাহিদ মুনীর কল্লোল ও রানারআপ হয়েছেন ফয়সাল তিতুমীর। ব্যাডমিন্টন দ্বৈতে বোরহানউদ্দিন-আরাফাত দাড়িয়া জুটি চ্যাম্পিয়ন ও মোস্তাক আহমেদ খান-কামরুজ্জামান হিরু জুটি রানার্সআপ হয়েছেন।

ক্যারম এককে কবিরুল ইসলাম চ্যাম্পিয়ন, আরিফ সোহেল রানারআপ হয়েছেন। দ্বৈতে এসবি চৌধুরী শিশির-মজিবুর রহমান জুটি চ্যাম্পিয়ন, বোরহানউদ্দিন-আরাফাত দাড়িয়া জুটি রানার্সআপ হয়েছেন। শ্যূটিং-এ কবিরুল ইসলাম চ্যাম্পিয়ন ও মোয়াজ্জেম হোসেন রোকন রানারআপ হয়েছেন। আরচ্যারিতে অলক হাসান চ্যাম্পিয়ন ও জাহিদ মুনীর কল্লোল রানারআপ হয়েছেন।

জুনিয়র টেনিসে চ্যাম্পিয়ন রিসাব ও জিংগি

ওয়ালটন ৩০তম বাংলাদেশ আইটিএফ জুনিয়র টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপের বালক এককে ভারতের রিসাব শারদা এবং বালিকা এককে চীনের জিংগী ওয়াং চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। শনিবার বালক এককের ফাইনালে ভারতের রিসাব শারদা ৬-৪ ও ৭-৬ গেমে কোরিয়ার চ্যাং ওক পার্ক কে এবং বালিকা এককের ফাইনালে চীনের জিংগি ওয়াং ৬-২ ও ৬-২ গেমে ভারতের কেশপ তানিশাকে পরাজিত করেন।

বালক দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারতের গুঞ্জন জাদেশ ও সাচ্চি শর্মা জুটি। ফাইনালে তারা ৪-৬, ৬-৪ ও ১০-৪ গেমে কোরিয়ার দিহান কিম ও জংহান লি জুটিকে পরাজিত করে।

বালিকা দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের  ক্যাথি লাফ্রান্স ও কোরিয়ার জি মিন পার্ক জুটি। ফাইনালে তারা ১-৬, ৬-৪ ও ১০-২ গেমে চীনের ইউজিয়াও চাই ও জিংগে ওয়াংকে পরাজিত করেছে।

ফাইনাল শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরষ্কার বিতরণ করেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী  আরিফ খান জয় । এ সময় ওয়ালটন গ্রæপের এজিএম মেহরাব হোসেন আসিফ, বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মীর খুরসিদ আনোয়ার, সহসভাপতি মোহাম্মদ আলী দ্বীন, আবু সালেহ মো: ফজলে রাব্বি খান ও টুর্নামেন্ট ডিরেক্টর লুৎফর রহমান সান্টু উপস্থিত ছিলেন।

প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ, চীন, ভারত, জাপান, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, ফিলিপাইনস, সিংঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, চাইনিজ তাইপে, আমেরিকা এবং ভিয়েতনামের ৫৯ জন বালক ও ৩৪ জন বালিকা অংশগ্রহন করছেন।

রাজশাহীতে টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপের আসর বসছে শনিবার

রাজশাহীতে শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক জুনিয়র টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৬। টুর্নামেন্ট উপলে শুক্রবার দুপুর ১২টায় রাজশাহীর জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের সম্মেলন কে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে জানানো, এবার স্বাগতিক বাংলাদেশসহ ১২টি দেশের ১০২ জন খেলোয়াড় অংশ নেবে।
লিখিত বক্তব্যে টুর্নামেন্টের পরিচালক নুর ইসলাম তুষার বলেন, শনিবার ও রোববার কোয়ালিফাইং রাউন্ড এবং ১৪ নভেম্বর থেকে মূল পর্বের খেলা অনুষ্ঠিত হবে।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে আগামী ১৩ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৩টায়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। টেনিস প্রেমীরা বিনামূল্যে টুর্নামেন্ট উপভোগ করতে পারবেন। রাজশাহীর জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের দর্শক গ্যালারি সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।
আগামী ১৯ নভেম্বর বিকেলে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ, ভারত, চীন, মালেশিয়া, কোরিয়া, জাপান, আমেরিকা, পর্তুগাল, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, ভিয়েতনামসহ ১২টি দেশের ১০২ জন খেলোয়াড় অংশ নেবে। আরও থাকবেন ২০ জন কোচ ম্যানেজার।
সবচেয়ে বেশি সংখ্যক খেলোয়াড় থাকবে প্রতিবেশী দেশ ভারতের। তাদের ৩২ জন বালক ও ১৬ জন বালিকা অংশগ্রহণ করবে। স্বাগতিক বাংলাদেশের থাকবে ১৬ জন বালক ও চারজন বালিকা। অংশগ্রহণকারী বালকদের মধ্যে শীর্ষ খেলোয়াড় জাপানের রাও ওয়াতানেবি। তার আইটিএফ বিশ্ব জুনিয়র র‌্যাংকিং ৮২৭। বালিকাদের মধ্যে শীর্ষ খেলোয়াড় চীনের ইকি চেইন। তার আইটিএফ বিশ্ব জুনিয়র র‌্যাংকিং ৭৯৭। টুর্নামেন্টে রেফারির দায়িত্ব পালন করবেন ভারতের জয় মুখার্জী।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের চেয়ারম্যান এস টি এম আবদুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী, সহ-সভাপতি রুমানা আহম্মেদ, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হাসিনুর রহমান টিংকু ও মাহমুদুল হক রোকন, নির্বাহী সদস্য মনোয়ার হোসেন এবং কায়সার আহমেদ প্রমুখ।

জুনিয়র টেনিসে ভারতের জয়জয়কার

বাংলাদেশ আইটিএফ জুনিয়র টেনিসে ভারতীয় প্রতিযোগিরা প্রধান্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন। বালক ও বালিকা এককের সেমিফাইনালে ওঠা ৮ জনের মধ্যে ৫ জনই ভারতের।

বৃহস্পতিবার রমনা জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত বালক এককের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের মৃতঞ্জয় বাদোলা ৬-৪, ৬-৪ গেমে কোরিয়ার কি বাম কিমকে, ভারতের রিসাব শারদা ৬-২, ৬-৩ গেমে কোরিয়ার জাং হো সিনকে, কোরিয়ার চ্যাং ওক পার্ক ৭-৬, ৭-৫ গেমে ভারতের কারান শ্রীভাসতাভকে এবং ভারতের সাচ্চি শর্মা ৩-৬, ৬-৪, ৬-২ গেমে তার স্বদেশী প্রনেশ বাবু কে পরাজিত করে সেমিফাইনাল্ উঠেছেন।

বালিকা এককের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের মুশকান গুপ্তা ৬-৩, ৬-৪ গেমে আমেরিকার ক্যাটি লাফ্রান্স কে, ভারতের কেশপ তানিশা ৬-৪, ৭-৬ গেমে কোরিয়ার পার্ক জি মিনকে, চীনের জিয়াওউই হু ৬-৩, ২-৬, ৬-৪ গেমে ভারতের হার্শা চ্যালা কে এবং চীনের জিংগি ওয়াং ৬-১, ৬-৩ গেমে জাপানের রুনা ইচি নোজ কে পরাজিত করে সেমিফাইনালে উঠেছেন।

আন্তর্জাতিক টেনিসের তৃতীয় রাউন্ডে প্রিতি

রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে চলমান ৩০তম বাংলাদেশ আইটিএফ জুনিয়র টেনিস চ্যাম্পিয়নশিপের বালিকা এককে তৃতীয় রাউন্ডে উঠেছেন বাংলাদেশের আফরানা ইসলাম প্রিতি। আজ (মঙ্গলবার) প্রিতি ৭-৫, ৭-৫ গেমে ভারতের গৌরি আগারওয়ালকে হারিয়ে তৃতীয় রাউন্ডে উঠেছেন।

একই বিভাগে শীর্ষবাছাই আমেরিকার ক্যাথেরিন লাফ্রান্স ৬-০, ৬-৪ গেমে ভারতের মুসকান রঞ্জনকে পরাজিত করে তৃতীয় রাউন্ডে উঠেছেন।

বালক এককে সিঙ্গাপুরের যাস্টিন ওসিন ৬-৪, ৫-৬, ৬-৩ গেমে বাংলাদেশের রুবেল হোসেনকে, ভারতের গুয়ান যাদব ৭-৫, ৬-৪ গেমে মালয়েশিয়ার গনেসানকে, মালয়েশিয়ার জিয়ান ক্যাং তাকেশী ২-৬, ৬-২, ৬-১ গেমে বাংলাদেশের ফারুক হোসেনকে পরাজিত করেন।

মঙ্গলবার থেকে শুরু জাতীয় ও আন্তঃক্লাব টেনিস

কাল মঙ্গলবার থেকে রমনা জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে শুরু হচ্ছে ইউরো গ্রুপ -ইউ.সি.এল জাতীয় ও আন্তঃক্লাব টেনিস। প্রতিযোগিতায় ঢাকা ও ঢাকার বাইরের মোট ২৭২ জন খেলোয়াড় পুরুষ একক, পুরুষ দ্বৈত, মহিলা একক, বালক-বালিকা অনূর্ধ্ব- ১৪ বছর, বালক-বালিকা অনূর্ধ্ব-১২ বছর, বালক-বালিকা অনূর্ধ্ব-১০ বছর ও অনূর্ধ্ব-৮ বছরের ইভেন্টে অংশগ্রহণ করবে।

আজ সোমবার জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে টুর্নামেন্টের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিযোগিতাকে উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মীর খুরসিদ আনোয়ার। স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ইউরো গ্রুপ এর চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার এ এস এম হায়দার, ফেডারেশনের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলী দ্বীন, টুর্নামেন্ট ডিরেক্টর খালেদ সালাহউদ্দিনসহ বিটিএফ ও উত্তরা ক্লাবের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

শেষ ষোলোতে মারে

অলিম্পিকে সোনা জয়ের পর বছরের শেষ গ্র্যান্ডস্ল্যাম ইউএস ওপেনেও জয়ের ধারায় রয়েছেন অ্যান্ডি মারে। তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচে ইতালিয়ান পাওলো লোরেঞ্জি হারিয়ে শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছেন ব্রিটিশ নাম্বার ওয়ান এ তারকা।

তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচে প্রথম সেটে ৭-৬ সেটে জয়ের পর দ্বিতীয় সেটেই হেরে যান মারে। তবে পরের দুই সেটে ঘুরে দাঁড়িয়ে ৬-২ ও ৬-৩ গেমে জয় নিশ্চিত করেন তিনি।

এর আগে ইউএস ওপেনের শেষ ষোলো নিশ্চিত করেছেন বিশ্বের এক নম্বর খেলোয়াড় নোভাক জোকোভিচ আর টুর্নামেন্টের চতুর্থ বাছাই রাফায়েল নাদাল।

শচিনের হাতে বিএমডব্লিউ’র চাবি পাচ্ছেন সিন্ধু

রিও অলিম্পিকে নারীদের ব্যাডমিন্টন ইভেন্টের সিঙ্গেলসে প্রথমবারের মত ভারতীয় খেলোয়াড় হিসেবে রুপা জয়ের কৃতিত্ব দেখিয়েছেন পুরসালা ভেঙ্কট সিন্ধু। এরই পুরস্কারস্বরূপ  শচিন টেন্ডুলকারের হাত থেকে বিএমডব্লিউ’র চাবি পাচ্ছেন রুপা পদক বিজয়ী তারকা ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়।

টেন্ডুলকারের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও হায়দ্রাবাদ ব্যাডমিন্টন এসোসিয়েশনের সভাপতি ভি চামুনডেসারানাথ রৌপ্য জয়ী সিন্ধুকে বিএমডব্লিউ গাড়ি দেবার ঘোষনা দিয়েছিলেন। তবে সেটি তিনি টেন্ডুলকারের মাধ্যমে সিন্ধুর হাতে তুলে দেবার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

চার বছর আগে লন্ডন অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ পদকজয়ী আরেক তারকা শাটলার সাইনা নেহওয়ালের হাতেও বিমএমডব্লিউ’র চাবি তুলে দিয়েছিলেন টেন্ডুলকার। এছাড়া ২০১২ সালে এশিয়ান অনূর্ধ্ব-১৯ যুব চ্যাম্পিয়নশিপের সিঙ্গেলসের শিরোপা জেতার পরে সিন্ধুর হাতে মারুতি সুইফটের চাবি তুলে দিয়েছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের লিটল মাস্টার।

অলিম্পিক থেকে ফেদেরারের নাম প্রত্যাহার

সময়টা খুব বেশি ভালো যাচ্ছে না টেনিস ইতিহাসের সেরা তারকা রজার ফেদেরারের। ইনজুরির কারণে অংশ নিতে পারেনি ফ্রেঞ্চ ওপেনে, বিদায় নিয়েছেন উইম্বলডনের সেমিফাইনাল থেকেই। এরপর প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন অলিম্পিকের স্বর্ণ জয়ের স্বাদ নিতে। তবে সেখানেও বাঁধা হয়ে দাঁড়ালো ইনজুরি। হাঁটুর ইনজুরির কারণে আসন্ন রিও অলিম্পিক থেকে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন এই সুইস তারকা।  শুধু রিও অলিম্পিক নয়, চলতি মৌসুমের আর কোর্টে দেখা যাবে না সাবেক এই নাম্বর ওয়ানকে।

রিও অলিম্পিকে সুইজারল্যান্ডের প্রতিনিধিত্ব করতে পারবেন না- এই হতাশায় ফেদেরার নিজের ফেসবুক পেজে লিখেছেন, `খুব হতাশার সঙ্গে জানাচ্ছি, রিওতে সুইজারল্যান্ডের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করতে পারব না। এমনকি বাকি মৌসুমেই আর খেলতে পারব না আমি। হাঁটুর ইনজুরি সারাতে আমার আরও বেশি পুনর্বাসনের প্রয়োজন।`

তবে ইনজুরি কাটিয়ে আরও শাণিতভাবে হাজির হওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ফেদেরার। বলেন, `আমি দৃঢ় প্রত্যয়ী। ২০১৭ সালে আরও বেশি শক্তি সঞ্চয় করে সুস্থ এবং তীক্ষ্ণ টেনিস উপহার দিব।`

২০০৮ সালের বেইজিং অলিম্পিকে ফেদেরার ডাবল স্বর্ণ জয় করেন। এরপর আর তার পক্ষে অলিম্পিকে কোনো সোনা জেতা হয়নি।

সানিয়ার আত্মজীবনীর মোড়ক উন্মোচন করলেন শাহরুখ

ভারতীয় টেনিস তারকা সানিয়া মির্জার আত্মজীবনীমূলক বই ‘এইচ এগেইনস্ট অডস’ এর মোড়ক উন্মোচন করলেন বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খান। হায়দ্রাবাদে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মজীবনীর মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

নিজের আত্মজীবনী বই আকারে প্রকাশের সম্পূর্ণ পরিকল্পনাই ছিল সানিয়ার নিজের এবং পুরো বইটি সম্পূর্ণ হতে পাঁচ বছর সময় লেগেছে বলে জানিয়েছেন তার বাবা ইমরান মির্জা। নিজের জীবনের বিভিন্ন দিক এমনকি বিতর্কিত বিষয়গুলো এ বইয়ে উঠে এসেছে। এর মধ্যে রয়েছে ক্যারিয়ারের স্মরণীয় উত্থানের গল্প। চার-পাঁচ বছর বয়স থেকে এ পর্যন্ত জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত ৪০টি অধ্যায়ের মাধ্যমে গল্প আকারে বইটিতে প্রকাশ করা হয়েছে।

sania

বলিউড অভিনেতা শাহরুখ খান বলেন, `আমি সবসময়ই তার ক্যারিয়ার খেয়াল করেছি। সে ভারতীয়দের জন্য গর্ব। তার মতো একজন সুন্দরী, স্মার্ট মেয়ের জন্য আমার শুভকামনা রইলো। এই বইটি তার ব্যক্তিগত জীবনের অনেক অজানা তথ্য বহন করছে। যা সত্যিই আপনার মাঝেও কৌতূহল সৃষ্টি করবে।`

ভারতের টেনিস খেলোয়াড় সানিয়া মির্জা বলেন, সৃষ্টিকর্তাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এই বইটি আমার জন্য বিশেষ কিছু। শাহরুখ খানের মতো বড় তারকাকে আমি পাশে পেয়ে অবিভূত। এই ক্যারিয়ারের জন্য সবার কাছেই আমি কৃতজ্ঞ।

রাওনিচের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে উইম্বলডন মারের

লড়াকু টেনিস উপহার দিলেও মিলোস রাওনিচের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের স্বপ্ন এ যাত্রায় পূরণ হলো না। দাপুটে জয়ে রাওনিচের স্বপ্ন গুঁড়িয়ে তৃতীয় গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ের উচ্ছ্বাসে ভেসেছেন অ্যান্ডি মারে। লন্ডনে রোববারের পুরুষ এককের জমজমাট ফাইনালে কানাডার রাওনিচকে ৬-৪, ৭-৬ ৭-৬ গেমে হারিয়েছেন স্কটল্যান্ডের মারে।
২০১৩ সালে উইম্বলডন ও ২০১৬ সালে ফ্রেঞ্চ ওপেনের পর তৃতীয় গ্র্যান্ড স্ল্যামের স্বাদ পেলেন পুরুষ এককে র‌্যাংকিংয়ের দ্বিতীয় মারে। রজার ফেদেরারকে হারিয়ে প্রথমবার গ্র্যান্ড স্ল্যামের ফাইনালে ওঠায় রাওনিচকে নিয়ে কানাডার টেনিসপ্রেমীদের প্রত্যাশার পারদ উচুঁতেই ছিল। তবে চেনা আঙিনায় খেলতে নামা মারে ৬-৪ গেমে প্রথম সেট জিতে লক্ষ্যের পথে এগিয়ে যান এক ধাপ।
Andy-01
দ্বিতীয় সেট লড়াই জমিয়ে তোলেন ষষ্ঠ বাছাই হিসেবে উইম্বলডন শুরু করা রাওনিচ। তবে টাইব্রেকারে হেরে যাওয়ার ২-০ সেটে পিছিয়ে পড়েন তিনি। প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতার আশাও কঠিন হয়ে যায় বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে সপ্তম স্থানে থাকা এই খেলোয়াড়ের। তৃতীয় সেটের খেলাও গড়িয়েছিল টাইব্রেকারে; সেখানে ৭-৬ গেমের জয় নিয়ে শিরোপা উৎসবে মাতেন দ্বিতীয় বাছাই হিসেবে উইম্বলডনের এবারের আসর শুরু করা মারে।

কেরবারের বিপক্ষে প্রতিশোধ নিয়ে স্টেফিকে ছুঁলেন সেরেনা

উইম্বলডনের ফাইনাল জিতে একই সঙ্গে দুটো প্রাপ্তি হয়ে গেলো সেরেনা উইলিয়ামসের। অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে অ্যাঞ্জেলিক কেরবারের কাছে হারের প্রতিশোধ নেওয়া হলো। টেনিসের উন্মুক্ত যুগে স্টেফি গ্রাফের গড়া রেকর্ডও ছুঁলেন যুক্তরাষ্ট্রের এই তারকা।
শনিবারের ফাইনালে সেরেনার বিপক্ষে কেরবার যা একটু লড়েছিলেন প্রথম সেটে। কিন্তু প্রথম সেট ৭-৫ গেমে হারের পর দ্বিতীয় সেটে ৬-৩ গেম ব্যবধানে উড়ে যান জার্মানির এই খেলোয়াড়।
দাপুটে টেনিস খেলে উইম্বলডনে নিজের সপ্তম শিরোপাটি জিতলেন সেরেনা। উন্মুক্ত যুগে কিংবদন্তি স্টেফি গ্রাফের জেতা ২২টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের রেকর্ডও ছুঁলেন মেয়েদের টেনিসের বর্তমান বিশ্বসেরা। সেরেনার জেতা এককের বাকি শিরোপার মধ্যে ৬টি অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, ৩টি ফ্রেঞ্চ ওপেন ও ৬টি ইউএস ওপেন।
হারের হতাশা নিয়েই সেরেনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন কেরবার, “সব কিছুর আগে আমি সেরেনাকে অভিনন্দন জানাব। তুমি আসলেই এটার যোগ্য, তুমি দারুণ একজন চ্যাম্পিয়ন, দারুণ একজন মানুষ এবং সব সময় তোমার বিপক্ষে খেলাটা সম্মানের।”

প্রথমবারের মতো ফ্রেঞ্চ ওপেন জিতলেন জকোভিচ

অ্যান্ডি মারেকে হারিয়ে ফ্রেঞ্চ ওপেনের শিরোপা জিতলেন নোভাক জকোভিচ। ফাইনালে মারেকে ৩-৬, ৬-১, ৬-২, ৬-৪ গেমে হারিয়েছেন সার্বিয়ার এই তারকা।
এই জয়ের মধ্য দিয়ে ক্যারিয়ার গ্র্যান্ড স্ল্যাম পূর্ণ করলেন বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের এক নম্বর এই তারকা।
ক্যারিয়ারে জকোভিচের এটা দ্বাদশ গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়। এরআগে অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে ছয়বার, উইম্বলডনে তিনবার ও ইউএস ওপেনে দুইবার চ্যাম্পিয়ন হলেও একমাত্র ফ্রান্সের এই গ্র্যান্ড স্ল্যামটি জেতা হয়নি জকোভিচের।
এখানে ২০১২, ২০১৪, ২০১৫ আসরেও ফাইনালে উঠেছিলেন জকোভিচ। অবশেষে চতুর্থ প্রচেষ্টায় ক্লে কোর্টের এই টুর্নামেন্টে সাফল্য পেলেন।
উল্লেখ্য, এই জয়ের মধ্য দিয়ে ১৯৬৯ সালের পর টানা চারটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম জেতার কীর্তি গড়লেন জকোভিচ।

২য় জুনিয়র টেনিস প্রতিযোগিতা

রাজধানীর রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে ৩-৪ জুন ২য় জুনিয়র টেনিস প্রতিযোগিতা ২০১৬ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুক্রবার সকালে রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলী দ্বীন, মেজর মো: ইয়াদ আলী ফকির (অব:), সাধারণ সম্পাদক মীর খুরসিদ আনোয়ার, সদস্য লুৎফর রহমান ছান্টু উপস্থিত ছিলেন।
প্রতিযোগিতায় বালক ও বালিকা এককে মোট ১০টি ইভেন্টে খেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ইভেন্ট গুলো হলো : অনুর্ধ ৮ বছর, অনুর্ধ ১০ বছর, অনুর্ধ ১২ বছর, অনুর্ধ ১৪ বছর ও অনুর্ধ ১৬ বছর।
প্রতিযোগিতায় জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্স, জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্স, বিকেএসপি, ঝালকাঠি টেনিস ক্লাব, ঢাকা ক্লাব লি:, গুলশান ইয়ুথ ক্লাব, ব্রাহ্মনবাড়ীয় জেলা ক্রীড়া সংস্থা হতে মোট ৮৬ জন বালক/বালিকা অংশগ্রহন করছে।

ফ্রেঞ্চ ওপেনের তৃতীয় রাউন্ডে নাদাল

গ্র্যান্ড স্ল্যামে ২০০তম জয় দিয়ে ফ্রেঞ্চ ওপেনের তৃতীয় রাউন্ডে জায়গা করে নিয়েছেন রাফায়েল নাদাল। দ্বিতীয় রাউন্ডে সহজ জয় পেয়েছেন নোভাক জোকোভিচ ও সেরেনা উইলিয়ামস।

বৃহস্পতিবার আর্জেন্টিনার ফাকুন্দো বাগনিসকে ৬-৩, ৬-০, ৬-৩ গেমে উড়িয়ে দেন ফরাসি ওপেনে রেকর্ড নয় বারের চ্যাম্পিয়ন নাদাল। আর জোকোভিচ ৭-৫, ৬-৩, ৬-৪ গেমে হারিয়েছেন বেলজিয়ামের স্টিভ দারসিচকে।

এদিকে মেয়েদের এককে এক নম্বর তারকা সেরেনার কাছে পাত্তাই পাননি তিলিয়ানা। মাত্র ৬৬ মিনিটে ৬-২ ও ৬-১ গেমে জিতে যান যুক্তরাষ্ট্রের তারকা।

মন্টে কার্লো শিরোপা জিতলেন নাদাল

আন্তর্জাতিক র‍্যাঙ্কিংয়ে সাবেক শীর্ষ টেনিস তারকা রাফায়েল নাদাল আরেকটি শিরোপা জিতেছেন। সোমবার এটিপি ওয়ার্ল্ড ট্যুরে নিজের শততম ফাইনালে রাফায়েল মনফিলসকে হারিয়ে নবম মন্টে কার্লো মাস্টার্স শিরোপা ঘরে তুলেছেন এই স্প্যানিশ টেনিস তারকা।

২৯ বছর বয়সী নাদাল এই টুর্নামেন্টের শেষ চারের লড়াইয়ে অ্যান্ডি মারেকে পরাজিত করে ফাইনালের টিকিট পেয়েছিলেন। আর শিরোপার স্বাদ নিয়েছেন মনফিলসকে দুই ঘণ্টা ৪৫ মিনিটের লড়াইয়ে ৭-৫, ৫-৭, ৬-০ সেটে হারিয়ে। ফরাসি টেনিস তারকা মনফিলস এই নিয়ে তৃতীয়বার মাস্টার্স ফাইনালে পরাজিত হলেন।

২০১৬ সালে প্রথম শিরোপার স্বাদ পাওয়ার পর নাদাল বলেছেন, ‘সপ্তাহটা আমার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এই জয়টা প্রমাণ করে, অন্যদের চেয়ে আমি ভালো করছি।’

উল্লেখ্য, গত বছর মাত্র ৩টি শিরোপার স্বাদ পেয়েছেন ১৪টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক নাদাল। সোমবারের জয়টি ছিল তার ২৮তম মাস্টার্স শিরোপা। এর মাধ্যমে সার্বিয়ান টেনিস তারকা নোভাক জোকোভিচের রেকর্ড স্পর্শ করলেন তিনি।

শেষ হলো স্বাধীনতা দিবস টেনিসের কোয়র্টার ফাইনাল

‘স্বাধীনতা দিবস টেনিস প্রতিযোগিতা ২০১৬’ এর কোয়ার্টার ফাইনালের নিজ ম্যাচে জয় নিয়ে সেমিফাইনালে উঠেছেন ইঞ্জিনিয়ার্স ক্লাবের শ্রী অমল রায়, ইন্টারন্যাশনাল ক্লাবের রঞ্জন রাম, নরডিক ক্লাবের দিপু লাল ও বৃটিশ হাই কমিশন ক্লাবের মো: আনোয়ার হোসেন, বিকেএসপির এলিট টেনিস একাডেমির জুয়েল, পপি আক্তার ও ইতি আক্তার। শনিবার রমনা টেনিস কমপ্লেক্সে পুরুষ এককের ম্যাচে শ্রী অমল রায়ের কাছে ৭-৬ ও ৬-২ গেমে হেরেছেন বৃটিশ হাই কমিশন ক্লাবের মুনির হোসেন।
দ্বিতীয় ম্যাচে রঞ্জন রাম ৬-২ ও ৭-৫ গেমে হারিয়েছে মাদারীপুর টেনিস ক্লাবের মামুন বোপরিকে। তৃতীয়টিতে দিপু লাল ৬-১ ও ৬-০ গেমে জয় পেয়েছে বৃটিশশ হাই কমিশন ক্লাবের সজিব পাশাকে। আর চতুর্থ ম্যাচে বৃটিশ হাই কুমশন ক্লাবের মো: আনোয়ার হোসেন ৬-৭, ৬-২ ও ৫-১ গেমে হারিয়েছেন বরিশাল ক্লাবের রুবেল হোসেনকে।
এদিকে, বালক একক ১৪ বছরের গ্রুপের কোয়ার্টার ফাইনালে বিকেএসপির এলিট টেনিস একাডেমির জুয়েল ৬-২, ৪-৬ ও ৬-৩ গেমে বিকেএসপির সৈকত শাহরিয়ারকে হারিযে সেমিফাইনালে উঠেছে। আর মেয়েদের ১৪ বছরের গ্রুপের কোয়ার্টার ফাইনালে বিকেএসপির পপি আক্তার ৬-৩, ৬-১ গেমে জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের ফাবিহা লামিসা সুচনা আর বিকেএসপির ইতি আক্তার একই প্রতিষ্ঠানের জেরিন সুলতানাকে ৬-২ ও ৬-১ গেমে হারিয়ে সেমিফাইনালে উঠেছে।

ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিসে অমল ও শর্মি চ্যাম্পিয়ন

পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারের লাবনী পয়েন্টে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ‘ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিস টুর্নামেন্ট-২০১৬’। ২০ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্ট সোমবার পুরস্কার বিতরণীর মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে।
ওয়ালটন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রথমবারের মতো আয়োজিত বিচ টেনিস টুর্নামেন্ট ফাইনালে পুরুষ এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন অমল রায়। আর মহিলা এককের শিরোপা জিতেছেন আয়েশা সুলতানা শর্মি। আর মিশ্র দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন বিপ্লব-পপি জুটি। সোমবার মহিলা এককের তীব্র প্রতিদ্বন্দিতাপূর্ণ ফাইনালে ইতি আক্তারকে ১০-৬ ও ১০-৮ ব্যবধানে হরিয়ে চ্যাম্পিয়নের মুকুট অর্জন করেন শর্মি। অন্যদিকে, পুরুষ এককে আনোয়ার হোসেনের বিপক্ষে ১০-৫ ও ১০-৩ ব্যবধানে শিরোপা জিতেছেন অমল রায়। এদিকে মিশ্র দ্বৈতে অমল-ইতি জুটিকে হারিয়ে শিরোপা জিতেছে বিপ্লব-পপি জুটি।
02
ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিস টুর্নামেন্টের সমাপণী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের স্পোর্টস অ্যান্ড ওয়েলফেয়ার বিভাগের প্রধান ও সিনিয়র এডিশনাল ডিরেক্টর এফ.এম. ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সদস্য লুৎফর রহমান সান্টু ও কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ।
বিজয় দিবস টেনিস টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা ১৬ জন (৮ জন মেয়ে ও ৮ জন ছেলে) জাতীয় দলের টেনিস খেলোয়াড়দের নিয়ে সমুদ্র সৈকতে অনুষ্ঠিত হয় এই টুর্নামেন্ট।
ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনসি টুর্নামেন্টে পুরুষ এককে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন শ্রী অমল রায়, আনোয়ার হোসেন, রঞ্জন রাম, দীপু লাল, বিপ্লব রাম, মামুন বেপারী, আখতার হোসেন ও মুনির হোসেন। আর মহিলা এককে খেলেন আফসানা ইসলাম প্রীতি, শাহ সাফিনা লাক্সমি, আয়েশা সুলতানা শর্মি, রেবেকা সুলতানা, পপি আক্তার, শ্রাবনী বিশ্বাস জুই, ফাবিহা লামিসা সূচনা ও ইতি আক্তার।
ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিস টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়নদের ট্রফি ও ২ হাজার টাকা করে প্রাইজমানি দেওয়া হয়। আর রানার আপদের ট্রফি ও ১ হাজার টাকা প্রাইজমানি দেওয়া হয়।

ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিস শনিবার শুরু

২০১৬ সালকে পর্যটন বর্ষ হিসেবে ঘোষণা করেছে সরকার। এ বছরটিকে নানাভাবে উদযাপন করা হবে। এ ক্ষেত্রেও পিছিয়ে নেই ওয়ালটন গ্রুপ। ওয়ালটন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় ও বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে শুরু হতে যাচ্ছে ‘ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিস টুর্নামেন্ট-২০১৬।’ এই টুর্নামেন্ট চলবে ২২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। বিজয় দিবস টেনিস টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনালে খেলা ৮ জন মেয়ে ও ৮ জন ছেলেকে নিয়ে সমুদ্র সৈকতে হবে এই টুর্নামেন্ট।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সভাকক্ষে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেয়ার বিভাগের প্রধান ও সিনিয়র এডিশনাল ডিরেক্টর এফ.এম. ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), এজিএম মেহরাব হোসেন আসিফ, বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সদস্য লুৎফর রহমান ছান্টু ও বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের কাউন্সিলর দোলোয়ার হোসেন।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়- বিচ টেনিসের নিয়মকানুন একটু ভিন্ন। ভিন্ন র‌্যাকেট ও বল দিয়ে টুর্নামেন্টের খেলাগুলো হয়। তবে বিচ টেনিস প্রতিযোগিতার নিয়ম-কানুন টেনিস প্রতিযোগিতার সঙ্গে কিছুটা সামঞ্জস্যপূর্ণ। তবে কোর্টের দৈর্ঘ্য ১৬ মিটার এবং প্রস্থ্য ৪.৫ মিটার ও দ্বৈতে ৮ মিটার। নেট এর উচ্চতা ১.৭ মিটার। সমুদ্র সৈকতের বালুর উপর ফিতা দিয়ে কোর্টের লাইন মার্কিং করা হয় এবং কেবলমাত্র ভলি এর মাধ্যমে খেলা অনুষ্ঠিত হয়।
ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনসি টুর্নামেন্টে পুরুষ এককে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন শ্রী অমল রায়, আনোয়ার হোসেন, রঞ্জন রাম, দীপু লাল, বিপ্লব রাম, মামুন বেপারী, আখতার হোসেন ও মুনির হোসেন। আর মহিলা এককে খেলবেন আফসানা ইসলাম প্রিতি, শাহ সাফিনা লাক্সমি, আয়েসা সুলতানা, রেবেকা সুলতানা, পপি আক্তার, শ্রাবনী বিশ্বাস জুই, ফাবিহা লামিসা সূচনা ও ইতি আক্তার।
ওয়ালটন বিচ টেনিস টুর্নামেন্টের ইভেন্ট পার্টনার ওয়ালটন গ্রুপের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড মার্সেল।

আর্জেন্টিনা ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনালে নাদাল

এটিপি আর্জেন্টিনা ওপেনে জয় দিয়ে সূচনা করেছেন টেনিস তারকা রাফায়েল নাদাল। অস্ট্রেলিয়া ওপেনে অপ্রত্যাশিতভাবে প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের পর আর্জেন্টিনা ওপেন দিয়ে খেলায় ফিরলেন নাদাল।

বৃহস্পতিবার আর্জেন্টিনা ওপেনে জোয়ান মোনাকোর বিপক্ষে সরাসরি সেটে জয় পেয়েছে রাফায়েল নাদাল। মোনাকোকে ৬-৪, ৬-৪ সেটে হারিয়েছেন তিনি। ১ ঘণ্টা ৩৮ মিনিটেই তিনি জয় নিশ্চিত করেছেন।

এই ম্যাচে জয় দিয়ে নাদাল আর্জেন্টিনা ওপেনের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন। কোয়ার্টারে তিনি মুখোমুখি হবেন ইতালির পাওলো লরেনজির। পাওলো ৪-৬, ৬-৩, ৬-১ সেটে দিয়েগোকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছেন।

প্রসঙ্গত, রাফায়েল নাদালকে ক্লে কোর্টের রাজা বলা হয়। বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ের পাঁচ নম্বরে থাকা ১৪টি গ্র্যান্ড স্লাম জয়ী নাদাল আশাবাদী এই টুর্নামেন্ট দিয়েই তিনি আবারো ফর্মে ফিরে আসতে পারবেন।

অলিম্পিকে খেলার প্রত্যাশায় শারাপোভা

রাশিয়া-নেদারল্যান্ডসের মধ্যকার ফেডকাপে ইনজুরির কারণে অংশ নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন রাশিয়ান টেনিস তারকা মারিয়া শারাপোভা। যদিও তিনি এই আসর উপলক্ষে এরই মধ্যে মস্কোতে উপস্থিত হয়েছেন।

গত বছরের মাঝ সময় থেকেই ইনজুরিতে ভুগছেন ২৮ বছর বয়সী এই টেনিস তারকা। এ জন্য বিভিন্ন টুর্নামেন্ট থেকেও তিনি তার নাম প্রত্যাহার করে নেন। পুরোপুরি সুস্থতা ফিরে না পেলেও বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্লাম টুর্নামেন্ট অস্ট্রেলিয়ান ওপেনে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। শুরুটা ভালোভাবে করলেও শেষ অবধি হারই মানতে হয়েছে তাকে। শেষ আটে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী সেরেনা উইলিয়ামসের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছে। আর তারপরেই তিনি জানিয়েছেন হাতের চোটটা এখনো পুরোপুরি সেরে উঠেনি তার।

আর এই চোটের কারণে রাশিয়ান তারকা কিছুদিন কোর্ট থেকে দূরে থাকতে চেয়েছেন। বিশ্রাম করে পুরোপুরি ফিটনেস নিয়ে অলিম্পিকে অংশ নিতে চেয়েছেন। তবে এই সপ্তাহান্তে রাশিয়ান ফেড কাপের জন্য তার নাম আগে থেকেই তালিকাভুক্ত করা ছিল। রাশিয়ার দলের আর তিনজনের সাথে তার নামও ঘোষণা করা হয়েছে। তাই তিনি দলের সাথে মস্কো গিয়েছেন। তবে খেলায় অংশগ্রহণ করবেন কিনা তা বলা যাচ্ছে না।

কিন্তু এ বিষয়ে মারিয়া বলেছেন, ‘আমি দলের সাথে মস্কো যাচ্ছি। তবে আমি খেলতে পারব বলে মনে হচ্ছে না।’

মারিয়া নিজের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী মস্কোতে ঠিকই উপস্থিত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার তাকে সহকর্মীদের সাথে নৈশভোজেও দেখা গিয়েছে।

তবে ফেডকাপে না খেললেও রিও ডি জেনিরোতে অনুষ্ঠিত অলিম্পিকে অংশগ্রহণে তিনি আশাবাদী। কিন্তু অলিম্পিকে অংশ নিতে হলে তাকে ফেড কাপেও খেলতে হবে। এমনটাই জানিয়েছেন রাশিয়ান টেনিসপ্রধান শামিল তারপিসচেভ। কেননা অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করতে হলে ওই খেলোয়াড়কে অলিম্পিক চক্রের মধ্যে অন্তত তিনবার জাতীয় দলের হয়ে খেলতে হবে। যেখানে মারিয়া ২০১২ সাল থেকে এখনো পর্যন্ত মাত্র দুইবার জাতীয় দলের হয়ে খেলেছেন। তাই ফেড কাপে অংশ না নিলে অলিম্পিকে খেলাটাও ঝুঁকির মধ্যে পড়ছে।

তবে ফেডকাপ তত্ত্বাবধানকারী আন্তর্জাতিক টেনিস ফেডারেশন (আইটিএফ) জানিয়েছে, ‘অলিম্পিকে অংশগ্রহণের যোগ্যতা অর্জনের জন্য মারিয়াকে ফেডকাপেও অংশ নিতে হবে এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই।’

৪র্থ এটিএন বাংলা-এনটিসি কিডস টেনিস

শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে ৪র্থ এটিএন বাংলা-এনটিসি কিডস টেনিস প্রতিযোগিতা। বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে ২৯-৩০ জানুয়ারি এই টেনিস প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। প্রতিযোগিতার উদ্বোধন হবে সকাল ১০টায় রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে।

বিজয় দিবস টেনিসে অর্নব চ্যাম্পিয়ন

‘বিজয় দিবস টেনিস প্রতিযোগিতার বৃহস্পতিবারের খেলায় মহিলা দ্বৈতে বিকেএসপির আফরানা ইসলাম ও শাহ সাফিনা লাক্সমি ৬-৪, ৬-১ গেমে বিকেএসপির আয়েশা সুলতানা ও ঝিলিক চাকমা জুটি ৬-৪, ৬-১ গেমে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।
বালক একক ১৪ বছর বিভাগে বিকেএসপির অর্নব সাহা ৭-৫, ১-৬, ৬-৩ গেমে সৈকত শাহরিয়ারকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।
বালক দ্বৈত ১৪ বছর বিভাগে রাজশাহীর মো: সাকিব ও মো: ইমাম জুটি ৬-৪, ৭-৫ গেমে বিকেএসপির ফরিদুর রেজা ও তামিম জুটিকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়।
বালক একক ১২ বছর বিভাগে জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের আলভি ৬-২, ৬-২ গেমে বিকেএসপির জুবায়েদ উৎসকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়।

এসএ গেমসে অংশ নিতে কিডনি বিক্রি!

মনে এসএ গেমস। সেখানে অংশ নেওয়ার জন্য অর্থের প্রয়োজন। আর সেই টাকা জোগাড় করতে নিজের কিডনি নিলামে তুললেন ভারতের এক স্কোয়াশ খেলোয়াড়! ভয়ঙ্কর হলেও এটাই সত্যি, ২০ বছর বয়সী রবি দীক্ষিত এ ঘটনা ঘটিয়েছেন।

রবি ২০১০ সালে এশিয়ান জুনিয়র চ্যাম্পিয়নশিপে, স্কোয়াশে স্বর্ণ পদক জিতেছিল। এছাড়াও ভারতকে একাধিকবার পদক এনে দিয়েছেন। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কাউকে পাশে পাননি। স্বপ্নপূরণের সামনে অর্থকে বাধা হয়ে দাঁড়াতে দিতে নারাজ তিনি। আর তাইতো কিডনি বেচার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন।

আর এই কিডনি বিক্রির উদ্দেশ্য আগামী মাসে অনুষ্ঠিতব্য সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসে অংশ নেওয়া। কিডনি বিক্রির এই কথা রবি জানিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে।

সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আমি নিজের কিডনি বিক্রি করত রাজি আছি। আগ্রহী ব্যক্তি কেনার জন্য নিলামে অংশ নিতে পারেন!’

রবি আরও লিখেছেন, ‘আমি গত দশ বছর ধরে খেলছি। বেশ কিছু পদক জিতেছি। দেশের হয়ে বহুবার প্রতিনিধিত্ব করেছি। তবে কোনও সাহায্য পাচ্ছি না, দেশে এবং আন্তর্জাতিক স্তরে খেলতে যাওয়ার জন্য। ধামপুর সুগার মিলের পক্ষ থেকে এতদিন কিছুটা সাহায্য পেয়েছি; কিন্তু ওদের পক্ষে কতদিন সম্ভব? পরের মাসে গুয়াহাটিতে টুর্নামেন্ট। তার আগে চেন্নাইতে প্র্যাকটিস করতে যাওয়ার কথা ছিল। আমার হাতে কোনও টাকা নেই, যাতে ওই টুর্নামেন্টের আগে নিজেকে তৈরি করতে পারি। দিন দিন হতাশা ঘিরে ধরছে। এ কারণেই নিজের কিডনি বিক্রি করে দিতে প্রস্তুত। আট লাখ টাকায়। যে কিনতে চান, যোগাযোগ করতে পারেন।’

ravit

২০১০ সালে এশিয়ান জুনিয়র চ্যাম্পিয়নশিপে সোনা জিতেছিলেন রবি। ছবিঃ সংগৃহীত

রবির মা এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, ‘আমার স্বামী ধামপুর চিনি কলের কর্মী। ওই সামান্য বেতনের সংসার চালানোই কঠিন। তবু মিল কর্তৃপক্ষ ছেলের খেলার খরচ দিয়েছে এতদিন। তবে এর থেকে বেশি কিছু সাহায্য আমরা ওদের কাছে চাইতে পারি না।’

তবে ওই চিনি কলের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ‘ছেলেটা এমন পদক্ষেপ নেওয়ার আগে আমাদের কাছে আসতে পারত। যতটা সম্ভব সাহায্য করার চেষ্টা করতাম।’

উত্তরপ্রদেশের এক মন্ত্রী এ খবর শুনে চমকে গিয়েছিলেন। বললেন, ‘খবরটা শুনে চমকে গিয়েছি। আমি শিগগিরি রবির সঙ্গে দেখা করব। ওর বিষয়টি নিয়ে কথা বলব মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের সঙ্গেও।’

এ ঘটনার পর নড়েচড়েই বসেছে দেশটির ক্রীড়ামহল। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন বিজেপি নেতা ও সাবেক এমপি অশোক রানা।

বিজয় দিবস টেনিস শুরু

পর্দা উঠেছে বিজয় দিবস টেনিস প্রতিযোগিতার। শনিবার সকালে বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের সভাপতি মো. শাহরিয়ার আলম এমপি।
প্রতিযোগিতায় পুরুষ একক, পুরুষ দ্বৈত, মহিলা একক, মহিলা দ্বৈত, বালক একক ১৬ বছর, বালক একক ১৪ বছর, বালক দ্বৈত ১৪ বছর, বালিকা একক ১৪ বছর, বালিকা দ্বৈত ১৪ বছর, বালক একক ১২ বছর, বালিকা একক ১২ বছর, মিনি টেনিস বালক/বালিকা ১০ বছর ও মিনি টেনিস বালক/বালিকা ৮ বছর গ্রুপে দুই শতাধিক খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করছেন। খেলা প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে বিকাল পর্যন্ত চলবে। প্রতিযোগিতার ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ১৫ জানুয়ারি।
উদ্বেধনী অনুষ্ঠানে যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় এমপি এবং ওয়ালটনের এফ এম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এ সময় টেনিস ফেডারেশনের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য গোলাম মোর্শেদ, সাধারণ সম্পাদক মীর খুরসিদ আনোয়ার, টুর্নামেন্ট ডিরেক্টর জনাব লুৎফর রহমান ছান্টুসহ বিটিএফ কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় বিচ টেনিস টুর্নামেন্ট

ওয়ালটন গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় ও বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘ওয়ালটন প্রথম বিচ টেনিস টুর্নামেন্ট।’
বিজয় দিবস টেনিস টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা ৮জন মেয়ে ও ৮জন ছেলেকে নিয়ে সমুদ্র সৈকতে অনুষ্ঠিত হবে এই টুর্নামেন্ট। বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশন প্রথমবারের মতো আয়োজন করতে যাচ্ছে এই টুর্নামেন্ট।

শেষ হলো জাতীয় জুনিয়র টেনিস প্রতিযোগিতা

জাতীয় জুনিয়র টেনিস প্রতিযোগিতা শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) রমনাস্থ জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সে শেষ হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় প্রতিযোগিতাটি আয়োজন করে বাংলাদেশ টেনিস ফেডারেশন। চারদিন ব্যাপী এ প্রতিযোগিতায় ৯টি ইভেন্টে মোট ৫৬ জন বালক ও ২০ জন বালিকা অংশগ্রহণ করে।
ফলাফল:
বালক একক ১২ বছর : জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের আলভি ৬-৩, ৬-২ গেমে বিকেএসপির রুম্মন হোসেনকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হন।
বালিকা একক ১২ বছর : বিকেএসপির ইতি আক্তার ৬-০, ৬-০ গেমে একই সংস্থার জেরিন
সুলতানাকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।
বালক একক ১৪ বছর : জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের সাকিব ৬-৩, ৬-২ গেমে
ব্রাহ্মনবাড়িয়ার রাকিব হোসেন কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হন।
বালিকা একক ১৪ বছর : বিকেএসপির পপি আক্তার ৬-২, ৬-২ গেমে ময়মনসিংহের সৈয়দ এলসাকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হন।
বালক একক ১৬ বছর : জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের ফারুক হোসেন ৫-৭, ৬-৩, ৬-৩ গেমে বিকেএসপির মো: ইসতিয়াক কে পরাজিত করে।
বালিকা একক ১৬ বছর : বিকেএসপির আফরানা ইসলাম প্রিতি ৬-৪, ৬-০ গেমে একই সংস্থার পপি আক্তারকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।
বালক দ্বৈত ১২ বছর: বিকেএসপির রুম্মন ও উৎস জুটি ৬-১, ৬-৩ গেমে জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের আলভি ও তাহমিদ জুটিকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।
বালক দ্বৈত ১৪ বছর : রাজশাহীর ইমন – সাকিব জুটি ৬-২ ৬-২ গেমে বিকেএসপির ফরিদুর রেজা ও তাহমিদ জুটিকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হন।
বালক দ্বৈত ১৬ বছর : জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের ফারুক হোসেন ও স্বাধীন হোসেন জুটি ৬-২, ৬-০ গেমে হৃদয় হাসান ও আলভি-তাহমিদ জুটি কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হন।
খেলা শেষে খেলোয়াড়দের মাঝে পুরষ্কার বিতরন করেন টেনিস ফেডারেশনের উপদেষ্টা জনাব গোলাম মোর্শেদ, সহ-সভাপতি জনাব মোহাম্মদ আলী দ্বীন, সাধারণ সম্পাদক মীর খুরসিদ আনোয়ারসহ ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যবৃন্দ।
উল্লেখ্য, জাতীয় জুনিয়র টেনিস প্রতিযোগিতায় রাজশাহী, মাদারীপুর, কুমিল্লা, ব্রাহ্মনবাড়ীয়া, জামালপুর, নোয়াখালী, বান্দরবান, গাইবান্ধা, পটুয়াখালী, গাজীপুর, বরিশাল, নওগাঁ, ময়মনসিংহ, গোপালগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, বিকেএসপি, নরাইল, ইঞ্জিনিয়ার্স রিক্রিয়েশন সেন্টার, অফিসার্স ক্লাব ও জাতীয় টেনিস কমপ্লেক্সের খেলোয়াড়রা অংশগ্রহণ করে।

পুলিশ টেনিস প্রতিযোগিতায় শরীফুল চ্যাম্পিয়ন

বাংলাদেশ পুলিশের ‘বার্ষিক পুলিশ টেনিস প্রতিযোগিতা-২০১৫’ এর চূড়ান্ত প্রতিযোগিতায় এককে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার শরীফুল ইসলাম চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। এ ছাড়া টুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজি সরওয়ার রানারআপ হয়েছেন।
দ্বৈতে স্পেশাল ব্রাঞ্চের এস এস এস এন নজরুল ইসলাম ও এসএস বরকত উল্লাহ চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। রানার্সআপ হয়েছেন টুরিস্ট পুলিশের ডিআইজি সোহরাব হোসেন ও অতিরিক্ত ডিআইজি সরওয়ার। রাজধানীর রমনায় বাংলাদেশ পুলিশ টেনিস গ্রাউন্ডে রবিবার রাতে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।
বাংলাদেশ পুলিশ টেনিস উপ-পরিষদের সভাপতি ও অতিরিক্ত আইজিপি (এইচআরঅ্যান্ডপি) মো. মইনুর রহমান চৌধুরীর সভাপতিত্বে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল এ কে এম শহীদুল হক বিপিএম পিপিএম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বেগম শামসুন্নাহার রহমান।