সকাল ৮:৫২, রবিবার, ২৫শে আগস্ট, ২০১৯ ইং

মোহাম্মদ সালাহর জোড়া গোলে আর্সেনালকে ৩-১ ব্যবধানে পরাজিত করেছে লিভারপুল। শনিবার অ্যানফিল্ডে প্রিমিয়ার লিগের খেলায় লিভারপুল প্রথমার্ধ শেষ করে ১-০ গোলে এগিয়েছিল। খেলার ৪১ মিনিটে রেড ডেভিলদের গোলমুখ খোলেন জোয়েল মাতিপ। দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে এসে ৯ মিনিটের ব্যবধানে দুই গোল করেন সালাহ।

ট্রেন্ট আলেক্সান্দার আর্নল্ডের ক্রস থেকে দুর্দান্ত হেডে লিভারপুলকে এগিয়ে দেন মাতিপ। বিরতির পর বক্সের মধ্যে ডেভিড লুইজের ফাউলের শিকার হন সালাহ। মিশরীয় ফরোয়ার্ড ৪৯ মিনিটের পেনাল্টি থেকে লক্ষ্যভেদ করেন। ৫৮ মিনিটে একক চেষ্টায় নিচু শটে বার্নাড লেনোকে পরাস্ত করেন তিনি।

খেলা শেষ হওয়ার ৬ মিনিট আগে আর্সেনালের হয়ে একটি গোল শোধ দেন লুকাস তোরেইরা। বক্সের মাঝখান থেকে তার শট বেঁকে জালে জড়ায়। এই নিয়ে লিগে টানা ১২ ম্যাচ জয়ের ক্লাব রেকর্ড গড়লো লিভারপুল। আর তাদের মাঠে টানা চতুর্থ ম্যাচ হারলো গানাররা। এতে করে ইপিলের চলতি মৌসুমে তিন ম্যাচ শেষে ৯ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে এখন লিভারপুল। ৩ পয়েন্ট পেছনে থেকে দ্বিতীয় স্থানে আছে আর্সেনাল।

ক্রীড়াঙ্গনে ডেঙ্গু আতঙ্ক

মহামারী রুপ নিচ্ছে ডেঙ্গু। ক্রীড়াঙ্গন‌ও তা থেকে মুক্তি পায়নি। তাতে ক্রীড়াঙ্গনে‌ও ছড়িয়ে পড়েছে ডেঙ্গু আতংক। ফেডারেশন অফিস কিংবা খেলা, সব জায়গাতেই ডেঙ্গু আতংক মুখে মুখে। আর যারা বিভিন্ন প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে রয়েছেন তাদের মধ্যে ডেঙ্গুর আতংক যেন আরও বেশি। প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে থাকা সাত ক্রীড়াবিদ আছেন হাসপাতালে।

শুরুতে খেলোয়াড়দের পাঁচজন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এদের মধ্যে খো খো খেলোয়াড় আসমা ও জান্নাতুল নাইম বৃষ্টি রয়েছেন বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। কাবাডি খেলোয়াড় বৃষ্টি বিশ্বাস আছেন রাজধানীর পুলিশ হাসপাতালে। কাবাডি খেলোয়াড় শ্রাবণী হাসাপাতালে গেলেও তাকে আবার আসতে বলা হয়েছে। বস্কেটবল খেলোয়াড় বৃষ্টি চিকিৎসা নেওয়ার পর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন।

শুক্রবার রাতে বিওএর (বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন) মেডিকেল কমিটির সদস্য সচিব চিকিৎসক শফিকুর রহমান আরও পাঁচজনের ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার আশংকার কথা প্রকাশ করে বলেন, ‘আরও পাঁচজন খেলোয়াড় হাসপাতালে গিয়েছিলেন জ্বরে আক্রান্ত হয়ে। এদের মধ্যে চারজনকে বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা পর্যবেক্ষণে রয়েছেন। ডেঙ্গু হয়েছে কি না তা পরীক্ষা করা হচ্ছে। রিপোর্ট হাতে পেলে বলা যাবে।’

তিনি আরও জানান, জ্বর কিংবা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত ক্রীড়াবিদদের চিকিৎসা দেওয়ার পাশাপাশি ডেঙ্গু থেকে ক্রীড়াবিদদের রক্ষা করার জন্য উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন (বিওএ)। দুটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের আবাসনস্থলে মশা থেকে ক্রীড়াবিদদের রক্ষা করার জন্য মশার ওষুধ স্প্রে করা হবে।

অ্যাথলেটিক্সের নির্বাচন এগিয়ে সম্মিলিত পরিষদ

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের ফেডারেশনের সবশেষ নির্বাচন হয়েছিল ২০১৩ সালে। সে কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছিল জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। ২০১৭ সালের ২৯ মার্চ ভোটের দিন ঠিক হলেও সে নির্বাচন আর হয়নি। পরে ২০১৭ সালের ১৫ মার্চ অ্যাডহক কমিটি গঠন করে ক্রীড়া পরিষদ। আগামী ৩ আগস্ট সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরনো ভবনের সভাকক্ষে ভোট। ফলে প্রায় অর্ধযুগ পর আবার হতে যাচ্ছে অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের নির্বাচন।

পাচজন সহসভাপতি, একজন সাধারণ সম্পাদক, দুইজন যুগ্ম সম্পাদক, একজন কোষাধ্যক্ষ এবং ১৯ জন সদস্য পদে হবে নির্বাচন। গত মঙ্গলবার চুড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়। নির্বাচন কমিশন ১২০ জন কাউন্সিলরের নাম প্রকাশ করেছে। যারা বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের আসন্ন নির্বাচনে ভোট প্রয়োগ করবেন। সহ সভাপতি পাচপদের বিপরীতে নয়জন, সাধারণ সম্পাদক পদে তিনজন, যুগ্ম সম্পাদকের দুই পদের বিপরীতে চারজন, কোষাধ্যক্ষ পদে দুজন এবং নির্বাহী সদস্যের ১৯ পদে ২৪ জন নির্বাচন করছেন।

মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেছেন তিনজন। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের নির্বাচন কমিশনে আবেদন করে তারা নিজেদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন। এরা হলেন- চেঙ্গিস-শাহ আলম পরিষদের মাদারীপুরের কাউন্সিলর মো. মোখলেস ও নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর খোরশেদ আলম নাসির এবং জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএম শাহাদাত হোসেন। প্রথম দু’জন সদস্য পদ থেকে এবং শেষের জন যুগ্ম সম্পাদক পদ থেকে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন। তবে শাহাদাত হোসেন সাধারণ সম্পাদক পদে লড়বেন। ফলে অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের নির্বাচনে সাধারন সম্পাদক পদে ত্রিমুখী লড়াই হবে শাহ আলাম, অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু ও এসএম শাহাদাত হোসেনের মধ্যে। যদিও ২৯টি মনোনয়নপত্র দাখিল করা ফারুক-মন্টু পরিষদ একটিও প্রত্যাহার করেনি।

এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন জেলায় কাউন্সিলরদের কাছে যাচ্ছেন ফারুক-মন্টু পরিষদ এবং চেঙ্গিস-শাহ আলম পরিষদের কর্মকর্তারা। ইতিমধ্যে ইশতেহারও পেশ করেছেন তারা। ৩ আগষ্ট ২৮টি পদের বিপরীতে অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের বহুল প্রত্যাশিত নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

বাংলাদেশ অ্যাথলেটিকস ফেডারেশনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়েছে সাধারণ সম্পাদক পদ নিয়ে লবিং-গ্রুপিং। ক্রীড়াঙ্গনের অন্যতম আলোচনার বিষয়, কে হচ্ছেন অ্যাথলেটিকসের পরবর্তী সাধারণ সম্পাদক। বর্তমান অ্যাডহক কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু থাকছেন? নাকি তাকে হটিয়ে সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসবেন অন্য কেউ? তবে চুড়ান্ত প্যানেল হওয়ার পর প্রাথমিক লড়াইয়ে অনেকটা পথ এগিয়ে রয়েছেন বর্তমান সাধারণ সমম্পাদক আবদুর রকিব মন্টুর সম্মিলিত ফারুক-মন্টু প্যানেল। কেননা তফসিল ঘোষনার পর মন্টু জেলা ও বিভাগীয় সংগঠক পরিষদের সমর্থন পেয়েছেন। এছাড়া ফেডারেশনের বর্তমান সভাপতি এএসএম আলী কবিরের (যিনি নিজেও একজন কাউন্সিলর) সমর্থনও রয়েছে তার প্রতি। নির্বাহী কমিটির সবগুলো পদেই তার প্যানেল থেকে প্রার্থী দেয়া হয়েছে।

অপরদিকে চেঙ্গিস-শাহ আলম ২৮ পদের বিপরীতে মাত্র ১১ পদে প্রার্থী দিয়েছে। তফসিল ঘোষনার পর দেশের সর্বত্র ভোটারদের কাছে গিয়েছেন মন্টুর প্যানেলের প্রার্থীরা। ফলে প্রাথমিক লড়াইয়ে অনেকটাই এগিয়ে সম্মিলিত প্যানেল। এখন অপেক্ষা ভোটের দিনের।

তপসিল ঘোষনার পর আরও দু’জন সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচন করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। তারা হলেন- সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম চেঙ্গিস ও মোহাম্মদ শাহ আলম। সাধারন সম্পাদক পদে নির্বাচন করবো- এ ঘোষণায় অটল থাকলেও শেষ পর্যন্ত শাহ আলমের সঙ্গে জুটি করে সহ সভাপতি পদে নির্বাচন করছেন ইব্রাহিম চেঙ্গিস।

১২০ কাউন্সিলরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬৮ জন জেলা ও বিভাগের। বাকি কাউন্সিলররা হচ্ছেন বিভিন্ন ক্লাব, সংস্থা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা বোর্ডের। তবে অন্যসব ফেডারেশনের মতো অ্যাথলেটিকসের নির্বাচনেও বড় ভূমিকা রাখবেন জেলা ও বিভাগের ভোটাররা। কারণ, জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংগঠক পরিষদের (ফোরাম) ব্যানারে তাদের ঐক্যটা মজবুত। নির্বাচন এলে তারাই নাড়েন কলকাঠি। সর্বশেষ হকি ফেডারেশনের নির্বাচনে জেলা ও বিভাগের প্রতিনিধিদের চরম ভরাডুবি, অ্যাথলেটিকসে তাদের ঐক্য আরও মজবুত করেছে। ফলে হকি ফেডারেশনে যে ভুল হয়েছে তার পুনরাবৃত্তি আর ঘটবে না।

বর্তমান অ্যাডহক কমিটির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু বলেছেন, আমি গত বছর যেভাবে কাজ করেছি তাতে আমি মনে করি কাউন্সিলরদের সমর্থন আমার পক্ষে। বিশেষ করে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ফেডারেশন নিষিদ্ধের পর্যায়ে গিয়েছিল। আমরা সে অবস্থা থেকে ফেডারেশনের মর্যদা ফিরিয়ে এনেছি। সমঝোতার একটা প্রচেষ্টা চলছিল সভাপতির পক্ষ থেকে সেটা হয়নি। আশার প্রত্যাশা কাউন্সিলরা তাদের সুচিন্তিত মতামত মঠিকভাবেই প্রদান করবেন।

সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহ আলম জানান, অনেক প্রচেষ্টা চালিয়েও আমাকে নির্বাচন থেকে বিরত রাখা যায়নি। আমি সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচনে অনেকটা এগিয়ে। আমার সঙ্গে অনেক সাবেক অ্যাথলেটরা আছেন। আছেন জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পাওয়া সংগঠকরাও। বর্তমান নির্বাহী কমিটির ৫০ থেকে ৬০ ভাগ মানুষ আমার পাশে আছেন।

প্রয়াত বাংলাদেশ ক্রিকেটের প্রথম অধিনায়ক

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট ক্রিকেট দলের প্রথম অধিনায়ক শামীম কবির ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। সোমবার (২৯ জুলাই) সকালে ধানমন্ডির একটি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। শামীম কবির মরণব্যাধি ক্যান্সারে ভুগছিলেন। তার মৃত্যুতে ক্রীড়াঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

শামিম কবির ১৯৪৩ সালের ৩ মার্চ নরসিংদীর ঘোড়াশালে সম্ভ্রান্ত কবির পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। সেই ঘোড়াশালেই চিরশায়িত হবেন তিনি। শামিম কবিরের আমেরিকা প্রবাসী ছেলে বুধবার ঢাকায় আসবেন। বৃহস্পতিবার ১ আগস্ট দুপুর ১১টায় মিরপুরে শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে শামিম কবিরের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। বাদ যোহর গুলশান আজাদ মসজিদে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় জানাজা। এরপর গ্রামের বাড়ি নরসিংদীর ঘোড়াশালে নিয়ে যাওয়া হবে তাকে। এদিকে বাংলাদেশ-শ্রীলংকা তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচে শামিম কবিরের সম্মানার্থে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা কালো আর্মব্যান্ড পরে মাঠে নামবেন।

১৯৭৭ সালের ৭ জানুয়ারি ঢাকা ষ্টেডিয়ামে (বর্তমানে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম) বাংলাদেশ ক্রিকেট দল ৩ দিনের একটি বেসরকারি টেষ্ট ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ক্লার্কের নেতৃত্বাধীন ইংল্যান্ডের শক্তিশালী এমসিসি ক্রিকেট দল। ওটাই ছিল প্রথম বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। সেই দলের অধিনায়ক ছিলেন খ্যাতিমান ওপেনিং ব্যাটসম্যান শামীম কবির।

এই ম্যাচটি মূলত বাংলাদেশের সামর্থ্য যাচাইয়ের জন্য আয়োজিত হয়। বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণের যোগ্য কি না, সেটা পরীক্ষা করে দেখতেই এই খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বলা চলে, স্বাধীনতার পরে সেটাই ছিল বাংলাদেশের ক্রিকেটের প্রথম পথচলা।

শামীম কবির নামে পরিচিতি পেলেও তার আসল নাম আনোয়ারুল কবির। জন্ম ১৯৪৫ সালে, নরসিংদীর বনেদি জমিদার পরিবারে। পূর্ব পাকিস্তানের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অভিষেক ১৯৬১ সালে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে প্রথম ফিফটি (৬৪) ১৯৬৪ সালে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হয়ে পিআইএর বিপক্ষে। তবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে শামীম কবিরের সর্বোচ্চ ইনিংস ৮৯ রানের। পূর্ব পাকিস্তান সবুজ দলের হয়ে পূর্ব পাকিস্তান রেলওয়ের বিপক্ষে তিনি এই ইনিংস খেলেছিলেন।

ক্লাব ক্রিকেটে তিনি আজাদ বয়েজ ক্লাবে খেলেছেন। শুধু খেলোয়াড় হিসেবেই তার ক্রিকেট জীবন সীমাবদ্ধ নয়, খেলোয়াড়ি জীবন শেষে সম্পৃক্ত হন বিসিবিতে। ১৯৮২ ও ১৯৮৬ সালের আইসিসি ট্রফিতে পালন করেন বাংলাদেশ দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব। ক্রীড়াঙ্গনে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে ১৯৯৯ সালে তিনি জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন।

বালিকা স্কুল রাগবি উদ্ধোধন

ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক অনুর্ধ্ব-১৭ বালিকা স্কুল রাগবি প্রতিযোগিতা উদ্ধোধন হলো আজ। বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশন ইউনিয়নের ব্যবস্থাপনায় সকালে পল্টন ময়দান মাঠে ১২ দলের এই প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকের সিনিয়ার কার্যনির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ম্যানেজার মাসুদর রহমান শাহ।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশন ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক মৌসুম আলী, যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক সাঈদ আহমেদ, টুনামেন্ট কমিটির সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম ‌ও জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পরিচালক সৈয়দা তাসলিমা আক্তার।

প্রথমবার আয়োজিত এই টুর্ণামেন্টে অংশ গ্রহনকারী দলগুলো হলো- আলহাজ্ব জাফর বেপারী উচ্চ বিদ্যালয় (সাভার), বি বি মরিয়ম উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়, আলী আহমদ স্কুল এন্ড কলেজ, ক্যামব্রিয়ান স্কুল এন্ড কলেজ, মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল এন্ড কলেজ, কে.এম.বশির সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, শহীদ নবী উচ্চ বিদ্যালয়, কমলাপুর শেরে বাংলা রেলওয়ে স্কুল এন্ড কলেজ, বেগম রহিমা আদর্শ বালিকা বিদ্যালয় (নারায়নগঞ্জ), দোলেশ্বর প্রাথমিক বিদ্যালয়, ইসলামী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়, সালন্দর উচ্চ বিদ্যালয় (ঠাকুরগাঁও)।

ভারতে গোজোরিউ কারাতে চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ রানার্সআপ

ভারতের শিলিগুড়িতে আর্ন্তজাতিক আমন্ত্রমূলক ওপেন গোজোরিউ কারাতে চ্যাম্পিয়নশিপে ১১টি ক্যাটাগোরিতে অংশ নিয়ে ৯টি স্বর্ণ এবং ৩টি রৌপ পদক জিতে রানার্সআপ হয় বাংলাদেশ। গত ২৩ থেকে ২৫ জুলাই আয়োজিত এই চ্যাম্পিয়নশিপে স্বাগতিক ভারত ছাড়া‌ও নেপাল, বাংলাদেশ ও ভুটান অংশ নেয়। ভারত চ্যাম্পিয়ন হয়।

বাংলাদেশ দলের পক্ষে মোজাদিদুল ইসলাম, বালক জুনিয়র বিভাগে কাতা এবং অনুর্ধ্ব (১৮ বছর ৭০-৭৯ কেজি ওজন) কুমিতে স্বর্ণ পদক লাভ করেন। ফাহমিদা চৌধুরী বালিকা বিভাগে কাতা এবং অনুর্ধ্ব (১৮ বছর ৫০-৫৫কেজি ওজন) কুমিতে স্বর্ণ পদক লাভ করেন। হাফসাদ ইসলাম সিনিয়র পুরুষ বিভাগে কাতা এবং (সিনিয়র পুরুষ ৮৫+ কেজি ওজন) কুমিতে স্বর্ণ পদক লাভ করেন। আরসুর নাহার অনুর্ধ্ব (১৮ বছর ৫৫-৬১ কেজি ওজন) কুমিতে স্বর্ণ পদক লাভ করেন এবং বালিকা বিভাগে কাতা স্বর্ণ পদক পায়।

শাহাদাৎ হোসেন সিনিয়র পুরুষ বিভাগে কাতা রূপা এবং (সিনিয়র পুরুষ ৭০-৭৯ কেজি ওজন) কুমিতে স্বর্ণ পদক লাভ করেন। সাকিন খালাসি অনুর্ধ্ব (১৮ বছর ৫৫-৬১ কেজি ওজন) কুমিতে রৌপ ̈পদক অর্জন করেন।

রাতে চীন যাচ্ছেন চার বডিবিল্ডার

৫৩তম এশিয়ান বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে আজ রাতে চীনের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়ছেন বাংলাদেশের চার বডিবিল্ডার। এ উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ শরীরগঠন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিযোগিদের সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দেন।

এ সময় তিনি বলেন, এবারের প্রতিযোগিতায় প্রায় ৪০টি দেশ অংশ নিচ্ছে। তবে ফেভারিট হিসেবে খেলবে স্বাগতিক চীন, ইরান ও ভারত। বাংলাদেশের বডিবিল্ডাররা হলেন- আনোয়ার হোসেন, রঞ্জিত চন্দ্র সরকার, রুসলান মোহাম্মদ হোসেন ও এম রফিকুল ইসলাম (স্বপন)। এদের মধ্যে আনোয়ার হোসেন ক্ল্যাসিক বডিবিল্ডিং এন্ড মেন্স ফিজিক, রঞ্জিত চন্দ্র সরকার মেন্স বডিবিল্ডিং, রুসলান মোহাম্মদ হোসেন মেন্স বডিবিল্ডিং এবং এম রফিকুল ইসলাম (স্বপন) অংশ নেবেন মেন্স মাস্টার বডিবিল্ডিং ইভেন্টে।

চারদিনের এই প্রতিযোগিতা শেষে চীনের হারবিন থেকে আগামী ৩০ জুলাই দেশে ফিরবে বাংলাদেশ দল।

জুনিয়র কুস্তি শুরু মঙ্গলবার

আগামী মঙ্গলবার থেকে হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে আরডিডিএল ২৬তম জাতীয় জুনিয়র কুস্তি প্রতিযোগিতা। এবারের প্রতিযোগিতায় দেশের ৮টি বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে ২০০ জন বালক ও বালিকা।

দুইদিনের এই প্রতিযোগিতায় বালকরা লড়বে ৪১-৪৫, ৪৮, ৫১, ৫৫, ৬০, ৬৫, ৭১, ও ৮০ কেজি মোট ৮টি ওজন শ্রেণীতে। বালিকারা লড়াই করবে ৩৬-৪০, ৪৩, ৪৬, ৪৯, ৫৩, ৫৭, ৬১, ৬৫ কেজি মোট ৮টি ওজন শ্রেণীতে। প্রতিযোগিতা উপলক্ষে আজ রবিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ২য় তলায় ঢাকা মহানগরী ফুটবল লীগ কমিটির সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এ সময় পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান আরডিডিএলের চেয়ারম্যান ড. কাজী এরতেজা হাসান, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক তাবিউর রহমান পালোয়ান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মেসবাহ উদ্দিন আজাদ, সদস্য একেএম আব্দুল মবিন ও মাসুদুর রহমান মুন্নাসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এবারের প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন, রানার্স আপ ও তৃতীয় স্থান অধিকারী দলকে ট্রফি ও মেডেলের পাশাপাশি পদকপ্রাপ্ত খেলোয়াড়দের বৃত্তি প্রদান করা হবে। আগামীকাল সোমবার বিকেলে ফেডারেশনে অংশগ্রহনকারী খেলোয়াড়দের দৈহিক ওজন নেয়া হবে।

মোহামেডানের জেগে ‌ওঠার প্রত্যাশায়

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ ফুটবলে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা মোহামেডান স্পোটিং ক্লাব চিরতিদ্বন্দ্বী ঢাকা আবাহনীর বিরুদ্ধে ৪-০ গোলের ঐতিহাসিক জয় পেয়েছে। ওই ম্যাচেই অবসর নিয়েছেন মোহামেডানের ফুটবলার ‘টাইগার খ্যাত’ এনামুল হক শরীফ। এ উপলক্ষে ‘চার শুন্য উদযাপন ও এনামুল হক শরীফের রাজসিক বিদায়’ ব্যানারে গতকাল শনিবার ঢাকা মোহামেডান ক্লাব প্রাঙ্গনে ব্যতিক্রমধর্মী মোহামেডান সমর্থক দল ‘মহাপাগল’ বিশেষ আয়োজন করে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের খেলোয়াড়, কোচ এবং কর্মকর্তাসহ মহাপাগলের সদস্যরা।

মহাপাগলের প্রতিষ্ঠাতা টি ইসলাম তারিকের সঞ্চলানায় অনুষ্ঠানে মোহামেডানের জাগরনের জন্য গঠনমূলক বক্তব্য তুলে ধরেন মেসবাহউদ্দিন রেজা, টিক্কু জামান, বাপ্পি আলম, নাসের ইয়ামিন মিঠু, রফিকুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম, স্বলন, মোহাম্মদ ইমরানসহ আরও অনেকে। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের পরিচালক সারোয়ার হোসেন, ক্লাবের অস্ট্রেলিয়ান কোচ সিন ব্রান্ডেন লেন ও মোহামেডানের অধিনায়ক জাহিদ হাসান এমিলি। বক্তারা আশা করেন দীর্ঘ ৪৪ বছর পর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনীর বিরুদ্ধে মোহামেডানের ৪-০ গোলের জয় ক্লাবকে নতুনভাবে জেগে তুলবে। তারা আশা করেন আগামীতে এই মুখিয়ে থাকা সমর্থকসহ ক্লাবের ঐতিহ্যের কথা বিবেচনা করে মোহামেডান চ্যাম্পিয়ন দল গঠনে অগ্রণী ভুমিকা পালন করবে।

মোহামেডানকে বদলে দেয়া নতুন কোচ সমর্থক দলের এমন সমর্থনে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেন, আমি অভিভূত সমর্থকদের এমন ভালবাসায়। আমার সবটুকু দিয়ে আমি মোহামেডানকে সাফল্য এনে দেয়ার চেষ্টা করবো। তবে পারিবারিক কারনে অনুষ্ঠানে থাকতে পারেননি অবসরে যাওয়া এনামুল হক শরীফ। তিনি এক বার্তায় সবাইকে অভিনন্দন ও শুভকামনা জানান।

এলিগেন্ট দাবা সমাপ্ত

এলিগেন্ট উত্তরা ১৪তম ফিদে স্ট্যান্ডার্ড রেটিং টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হন ইয়াসিন আরাফাত। রানার আপ হন আনোয়ার হোসেন দুলাল। তৃতীয় থেকে পঞ্চম স্থান অধিকার করেন যথাক্রমে- আব্দুর রউফ, সাইফুর রহমান এবং রাজিব হাসান। অনূর্ধ্ব-১৬ সেরা বালক হন আজহের হোসাইন এবং সেরা বালিকা হন তাসনিয়া তারান্নুম অর্পা। অনূর্ধ্ব -১০ সেরা বালক হন সাতভিক সাহা এবং সেরা বালিকা হন আজিজা তাহসিন ফাতিমা। বেস্ট ‌ওম্যান খেলোয়াড় হন আফরোজা হক চৌধুরী। বেস্ট নন-রেটেড খেলোয়াড় হন মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান।

দীর্ঘ বিরতির পর অনুষ্ঠিত হয় এলিগেন্ট উত্তরা ১৪তম ফিদে স্ট্যান্ডার্ড রেটিং দাবা টুর্নামেন্ট। বরাবরের মতো এবারো দাবাড়ুদের পদচারণায় মুখরিত ছিলো এলিগেন্ট উত্তরা প্রাঙ্গন।

‌ওয়ালটন গলফ শুরু শুক্রবার

দেশ-বিদেশের সাতশ’জন গলফারের অংশগ্রহণে আগামীকাল শুক্রবার থেকে আর্মি গলফ ক্লাবে শুরু হচ্ছে ওয়ালটন এয়ার কন্ডিশনার ঈদ রি-ইউনিয়ন কাপ গলফ টুর্নামেন্ট। এ উপলক্ষে ক্লাব প্রাঙ্গণে এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় পাঁচদিনের এই টুর্নামেন্টে পাঁচটি ক্যাটাগোরিতে অংশ নেবেন গলফাররা।

অ্যামেচার গলফারদের নিয়ে আয়োজিত এই টুর্নামেন্ট- লেডিস, জুনিয়র, ভ্যাটারান, রেগুলার এবং সিনিয়র এই পাচটি ক্যাটাগোরিতে অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন আর্মি গলফ ক্লাবের জেনারেল ম্যানেজার মেজর (অবসরপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ আলী মোরশেদ, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ইকবাল বিন আনোয়ার ডন, মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলার উপদেষ্টা প্রশাসন মীর মোতাহার হাসান এবং রেডিও পার্টনার রেডিও টুডের জহিরুল ইসলাম টুটুল।

ক্রীড়াঙ্গনে নারীদের সাফল্য ‌ও অগ্রযাত্রা

সমাজ ও সভ্যতার অগ্রযাত্রায় বরাবরই পুরুষদের পাশাপাশি হেঁটেছে নারীরা। চিরকালই তারা পুরুষের সমান্তরাল। কিন্তু শুধুমাত্র খেলাধুলাই নারীরা পিছিয়ে ছিলেন পুরুষের চেয়ে। তবে আশার কথা হলো, এদেশের নারীরা আসতে শুরু করেছেন- সাফল্যের রঙে বর্ণিল করতে শুরু করেছেন এদেশের ক্রীড়াঙ্গন। তবে এটা একদিনে হয়নি। এই অর্জন কিংবা স্বীকৃতি পেতে নারীকে বহু বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। নারীরা প্রথমে পরিবারেই খেলাধুলা বিষয়ে বাধা পান। সেই বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে একটু এগিয়ে গেলে আসে আবার সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বাধা। সাথে উপরি পাওনা সুযোগ-সুবিধা এবং বেতন বৈষম্য। জাতীয় পর্যায়ে আসার পর নারীদের মুখোমুখি হতে হয় পৃষ্ঠপোষক সমস্যার। এইসব নানা আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে যেতে হয় নারীদের। যারা এই বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে-এড়িয়ে এগিয়ে যেতে পেরেছেন সাফল্য এসে ধরা দিয়েছে তাদের কাছেই। কিংবা এভাবে বলা যেতে পারে, ক্রীড়াঙ্গনে সাফল্য পাওয়ার পাশাপাশি নারীদের পথচলা সহজ ও সুগম হয়েছে।

এখন আর ঘরে বসে কাঁথা সেলাই কিংবা উনুন জ্বালানোর কাজ নয়, আরো বহু কাজ আছে এদেশের নারীদের। গত এক দশকে তো নারী ক্রীড়াঙ্গনের চেহারাই পাল্টে দিয়েছেন। ঘরোয়া আর আন্তর্জাতিক পর্যায়ে সাফল্য দিয়ে আলোচনায় এসেছেন বারবার। পুরুষ ক্রীড়াবিদদের সাথে তুল্যমূল্যে বিচারও হয়েছেন এদেশের নারী ক্রীড়াবিদরা। অথচ ১৫ বছর আগেও এমনটি কল্পনা করা যেত না। তবে এক দশকে এই ধারণা পাল্টে দিয়েছেন নারী খেলোয়াড়েরা। নারীদের ফুটবলের ইতিহাসটাই পাল্টে দেয় ময়মনসিংহের ধোবাউড়া উপজেলার কলসিন্দুর স্কুলের মেয়েরা। চরম সুবিধা বঞ্চিত এই সকল মেয়েরা শুধুমাত্র ফুটবল নৈপুন্য দিয়েই পেরিয়ে যায় হাজারও বাধা। গাঁও-গেরামের হতদরিদ্র পরিবারের এইসব মেয়েরা শুরুতে উন্নত প্রশিক্ষণ না পেলেও অদম্য মনোবল আর প্রাচীর ভাঙা উদ্দীপনায় একের পর এক সাফল্য পেয়েছে। শেষে দেশের হয়ে খেলেও তারা পায় সাফল্যের দেখা। সব বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে এখন তাদের সামনে বিশ্বকাপে খেলার হাতছানি।

গত এপ্রিল-মে মাসে বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ আন্তর্জাতিক গোল্ডকাপ ফুটবলের গ্রুপের ম্যাচে আরব আমিরাত ও কিরগিজস্তানকে পরাজিত করে সেমিফাইনালের টিকিট পায় স্বপ্ন-কৃষ্ণারা। সেমিতে মঙ্গোলিয়াকে বিধ্বস্ত করে ফাইনালে উঠে আসে তারা। কিন্তু শিরোপা লড়াইয়ের ঘন্টাখানেক আগে ঘূর্ণিঝড় ফণী এসে ভন্ডুল করে দেয় ফাইনালের মঞ্চ। তাতে লাওসের সঙ্গে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করা হয় বাংলাদেশকে। বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে মঙ্গোলিয়ার বিপক্ষে চোখ ধাঁধানো এক গোল করে ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা ফিফার তালিকায় ঠাঁই করে নেন বাংলাদেশের কিশোরী ফুটবলার মনিকা চাকমা। এছাড়া সাতক্ষীরার ফুটবলার সাবিনা খাতুন বিদেশি কোটায় ভারতে ও মালদ্বীপের ক্লাবে সুনামের সঙ্গে খেলেছেন।

পিছিয়ে নেই এদেশের নারী ক্রিকেটাররা। ছেলেদের আগেই দেশকে আন্তর্জাতিক ট্রফি জয়ের স্বাদ পাইয়ে দেয় নারী ক্রিকেটাররা। গত বছরের জুনে মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে ছয় জাতির এশিয়া কাপ ক্রিকেটে শক্তিশালী ভারতকে আরো ৩ উইকেটে পরাজিত করে বাংলাদেশকে শিরোপা জেতান জাহানারা-সালমারা। এদিকে, ভারতে মেয়েদের আইপিএলে বাংলাদেশের প্রথম নারী ক্রিকেটার হিসেবে খেলেন জাহানারা আলম।

এদেশের এই অনগ্রসর সমাজে প্রায় যেকোনো ক্ষেত্রে ছেলেদের চেয়ে নারীদের অনেক বেশি সংগ্রাম করতে হয়। তাদের পথে বাধা ও চ্যালেঞ্জ বেশি। ক্রীড়াঙ্গনের কথা আলাদা করে বললে, গত কয়েক বছরে সফলতার বিচারে ক্রিকেট-ফুটবল মিলে আমাদের মেয়েরা, ছেলেদের তুলনায় এগিয়ে। মাত্র দু’মাসের ব্যবধানে এশিয়া কাপ জয়সহ তিনটি টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে এদেশের ক্রিকেটার। অন্যদিকে, অদম্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে এদেশের বয়সভিত্তিক নারী ফুটবল দল। সাঁতার এবং ভারোত্তোলনে নারীদের সাফল্য জাতীয় পর্যায় থেকে বিস্তৃত হয়েছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও। আর এদেশের ক্রীড়া সংগঠকরা যে দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে, এশিয়া পেরিয়ে বিশ্বমঞ্চে স্থান করে নিয়েছেন সে তো বলাই বাহুল্য। বাংলাদেশের প্রথম কোনো সংগঠক হিসেবে ফিফার সদস্য নির্বাচিত হন বাংলাদেশ মহিলা ফুটবল উইংয়ের চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ।

ক্রিকেটকে এগিয়ে নিতে সরকার এবং বিসিবি যেমন সুযোগ-সুবিধা দিচ্ছে, তেমনি দাবা, হকি, অ্যাথলেটিক্স, ভলিবল, বাস্কেটবল, কাবাডি, ব্যাডমিন্টন কিংবা কুস্তিতেও যদি দেয়া যায়, তবে এদেশের নারী ক্রীড়াবিদদের সাফল্যে পরিসরটা আরো বাড়বে।

জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নারী খেলোয়াড়রা বাংলাদেশের জন্য নানা সাফল্য নিয়ে আসলেও যথাযথ মূল্যায়ন হয় না। উল্টো বৈষম্যের শিকার হন ক্রীড়াবিদরা। প্রায়ই সরকার, পৃষ্ঠপোষক, পরিবার কিংবা সমাজ থেকে আর্থিক, সামাজিক কিংবা উন্নয়নগত সহযোগিতা পান না তারা। সেজন্য ক্রীড়াক্ষেত্রে আসতে উৎসাহিত হন না নারীরা। ক্রীড়াঙ্গনে নারীদের না আসার আরো একটি কারণ হলো- মূলত: গ্রামীন জনপদের মানুষই তো এখনও বাঁচিয়ে রেখেছেন এদেশের খেলাধুলা- সেইসব প্রান্তিক জনগোষ্ঠির মেয়েদের খেলাধুলায় অংশ নিতে বরাবরই অনুৎসাহিত করেছে সমাজ-পরিবেশ এবং প্রতিবেশ। আর বিত্তবানরা তো খেলাতেই খুবএকটা আসেন না। নানামুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে, কখনো কখনো আবার উপেক্ষা করে এদেশের মেয়েরা ফুটবল-ক্রিকেট-কাবাডিসহ বিভিন্ন খেলায় পারদর্শিতা দেখিয়ে সম্মান বয়ে আনেন। অপরাজেয় নৈপুন্য দেখিয়ে বিশ্বকে অবাক করে দিয়ে দেশের জন্য গৌরবোজ্জ্বল সাফল্য বয়ে আনছেন। সামাজিক প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়াক্ষেত্রে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছেন এদেশের অদম্য নারী ক্রীড়াবিদরা। তাদের এগিয়ে চলার সাহস এদেশের যুব সমাজকেও প্রবলভাবে অনুপ্রাণীত করছে। এই বলিষ্ঠ ও অনুকরণীয় ভূমিকা নারীর এগিয়ে চলার পথকে আরো সুগম করতে সহায়তা করেছে। নিশ্চয়ই এই প্রেরণা নিয়ে আরো সামনে এগিয়ে যাবে এদেশের নারী ও কিশোরীরা। আর তাদের চলার পথকে মসৃণ করতে সহায়ক হবে এদেশের বিত্তবান ও পৃষ্ঠপোষকরা।

তবে সরকারিভাবে নারী-পুরুষ ভেদে একই কাজের জন্য কোনো বেতন-বৈষম্য থাকার কথা নয়। কিন্তু এক্ষেত্রে বৈষম্যের অভাব নেই। পুরুষ ক্রিকেটে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-বিসিবির আয় বেশি, স্পন্সর-টিভিস্বত্ত্ব, টিকিট বিক্রি এবং আইসিসি থেকে তুলনামূলক অর্থ প্রাপ্তিও অনেক বেশি; তাই বেতন-কাঠামোতে পার্থক্য থাকতে পারে। কিন্তু এদেশে নারী-পুরুষ ক্রিকেটারদের মধ্যে বেতন বৈষম্য লাখের বিপরীতে হাজার টাকা।

তবু ক্রীড়াক্ষেত্রে তেমনভাবে উঠে আসছে না নারী খেলোয়াড়। ১৬ বার জাতীয় টেবিল টেনিসে চ্যাম্পিয়ন হয়ে বহু আগেই গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম লিখিয়েছেন জোবেরা রহমান লিনু। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশকে ভালোভাবেই তুলে ধরছেন সালমা খাতুনেরা। ১২তম এসএ গেমসে ভারোত্তোলনে মাবিয়া আক্তার সীমান্ত এবং সাঁতাওে শারমিন আক্তার শীলা স্বর্ণ জিতে ইতিহাস রচনা করেন। নারী ক্রীড়াবিদদের হাত ধরে বাংলাদেশ কম সাফল্য পায়নি। তুলনায় ক্রীড়াঙ্গনে নারীদের অংশগ্রহণ তেমন বাড়েনি। তবে যতটুকু অংশগ্রহণ বলা যায় তার প্রায় পুরোটাই গ্রামীণ এবং দরিদ্র পরিবার থেকে উঠে আসা ক্রীড়াবিদদের মাধ্যমে। শিক্ষিত এবং অবস্থাস¤পন্ন পরিবারের নারী সেভাবে ক্রীড়াক্ষেত্রে আসেন না।

জাতীয় পর্যায়ের খেলায় অংশ নেয়া নারীদের শতকরা ৮০ ভাগই আসেন মধ্য ও নি¤œবিত্ত থেকে। তাঁদের স্বপ্নই থাকে, খেলায় দক্ষতা দিয়ে চাকরি পেয়ে পরিবারকে আর্থিকভাবে সহায়তা করা। বেশির ভাগ নারী খেলোয়াড়র লক্ষ্য থাকে, আনসার ভিডিপি, পুলিশ, বিজেএমসির মতো সার্ভিসেস দলে খেলা। যাতে পরবর্তীতে তারা এসব প্রতিষ্ঠানে চাকুরি পেতে পারেন এবং ভালো প্রশিক্ষণ পেয়ে নিজেদেরকে আরও দক্ষ করে তুলতে পারেন। তবে এক্ষেত্রে চাকুরি পাওয়ার হার খুব কম। মূলত: আর্থিক এই অনিশ্চয়তাই খেলাধুলায় নারীদের আগ্রহী হয়ে উঠার পথে অন্তরায়। এছাড়া মৌলিক চাহিদা পুরনের জন্য অন্যের ওপর নির্ভরশীলতা, নিয়মিত টুর্নামেন্ট না হওয়া এবং অনুশীলনের জায়গার অভাবও নারীদেরকে খেলা বিমুখ করে ফেলে।

নারীরা খেলাধুলার সঙ্গে জড়িত থাকলে বাল্যবিবাহ রোধ করা সম্ভব। শিক্ষার হার ও নেতৃত্বগুণ বাড়ানো এবং ব্যক্তিত্বের বিকাশ ঘটানো সম্ভব। ফলে নারীর ক্ষমতায়ন হতে পারে। ক্রীড়াঙ্গনে মেয়েদের এই সাফল্যের তালিকাটা বেশ দীর্ঘ। আশার কথা, ক্রীড়াবান্ধব এই সরকার নারী খেলোয়াড়দের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করতে ইতিমধ্যে অনেক উদ্যোগ নিয়েছে। এদেশের নারী ক্রীড়াবিদদের আপন মর্যাদায় মহিমান্বিত করতে হলে প্রথাগত ভ্রান্ত ধারণা ভেঙে বেতন-বৈষম্য ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর বিকল্প কোনো পথ নেই।

লেখক: ক্রীড়া সম্পাদক, এটিএন বাংলা

সাবেক রাষ্ট্রপতি এরশাদের মৃত্যুতে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর শোক

সাবেক রাষ্টপতি, বিশিষ্ট ক্রীড়া সংগঠক, জাতীয় পার্টির প্রেসিডেন্ট ও বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপি।

এক শোকবার্তায় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

আগামীকাল নারী হ্যান্ডবল লিগের সমাপনী

কিউট মহিলা হ্যান্ডবল লিগের সমাপনী ও পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান হবে আগামীকাল বুধবার। আজ মঙ্গলবার প্রথম খেলায় মাদারীপুর হ্যান্ডবল ট্রের্নিং সেন্টার ৬৯-২৫ গোলে আর এন স্পোর্টস হোমকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে বিজয়ী দল ৩৯-১২ গোলে এগিয়ে ছিল।

বিকেলে অন্য ম্যাচে, দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব ২৮-২৬ গোলে ভিকারুননিসা নূন স্পোর্টস ক্লাবকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে বিজয়ী দল ১৫-১২ গোলে এগিয়ে ছিল।

প্রাইজমানি র‌্যাংকিং টিটি শুরু

প্রায় শ’খানেক পুরুষ ও নারী খেলোয়াড়দের অংশ্রগহনে আজ মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে প্রাইজমানি র‌্যাংকিং টেবিল টেনিস টুর্নামেন্ট। শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ ইনডোর স্টেডিয়ামে, সকালে চারদিনের এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন সংসদ সদস্য উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি খোন্দকার হাসান মুনীর, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর এবং টুর্নামেন্ট কমিটির সচিব আনোয়ার কবীর চৌধুরী বাবু। উদ্বোধনী দিনে পুরুষ ও নারী এককের প্রথম রাউন্ডের খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

নারী হ্যান্ডবলে মেরিনার ও মাদারীপুরের জয়

কিউট মহিলা হ্যান্ডবল লিগে জয় পেয়েছে মেরিনার, দিলকুশা ‌ও মাদারীপুর হ্যান্ডবল ট্রেনিং সেন্টার। পল্টনের শহীদ (ক্যাপ্টেন) এম মনসুর আলী জাতীয় হ্যান্ডবল ষ্টেডিয়ামে, দিনের প্রথম খেলায় ঢাকা মেরিনার ইয়াংস ক্লাব ৩৭-২৬ গোলে ভিকারুননিসা নূন স্পোর্টস ক্লাবকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে বিজয়ী দল ২১-১৪ গোলে এগিয়ে ছিল। ঢাকা মেরিনারের ভাবনা ১৭ টি গোল করেন। ভিকারুননিসার রুবিনা ও মিষ্টি ৮ টি করে গোল করেন।

বিকেলে দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব ৬০-১ গোলে গফুর বেলুচ স্মৃতি সংসদকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে বিজয়ী দল ২৪-০ গোলে এগিয়ে ছিল। অন্য খেলায় মাদারীপুর হ্যান্ডবল ট্রের্ণিং সেন্টার ২৯-২৭ গোলে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘকে পরাজিত করে। প্রথমার্ধে বিজয়ী দল ১৪-১১ গোলে পিছিয়ে ছিল। মাদারীপুরের মনিকা ১৪ টি গোল করেন এবং আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের শিল্পি ও আছিয়া ৮টি করে গোল করেন।

এশিয়ান সিটি দাবা কাল শুরু

১১টি দেশ নিয়ে আগামীকাল থেকে রাজধানীতে শুরু হচ্ছে এশিয়ান সিটিজ দলগত দাবা চ্যাম্পিয়নশীপ। দুপুরে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সম্মেলন কক্ষে প্রতিযোগিতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ শাহাব উদ্দিন শামীম।

এবারের আসরে বাংলাদেশসহ অংশ নিচ্ছে আফগানিস্তান, চাইনিজ তাইপে, ভারত, ইরান, মালয়েশিয়া, মঙ্গোলিয়া, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের দাবাড়ুরা। বিজয়ী তিনটি দলের জন্য থাকছে ছয় হাজার মার্কিন ডলার অর্থ পুরস্কার। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সাইফ পাওয়ারটেক, ম্যাক্স গ্রপ, রুপায়ন গ্রুপ সহ অন্যান্য স্পন্সর প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা। আসর শেষ হবে আগামী ১৮ জুলাই।

আন্তর্জাতিক ডিউবলে রানার্স আপ বাংলাদেশ

চারজাতি আন্তর্জাতিক ডিউবল চ্যাম্পিয়নশিপে রানার্সআপ হয়েছে বাংলাদেশ। নারী ‌ও পুরুষ উভয় বিভাগে ফাইনালে পরাজিত হয় বাংলাদেশ দল।

ভারতের পাঞ্জাবের রাজধানী চন্ডিগড়ে, শ্বাসরুদ্ধকর এক ফাইনালে স্বাগতিক ভারতের সাথে সমান তালেই লড়াই চালায় বাংলাদেশ পুরুষ দল। প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ এই ফাইনালে শেষ পর্যন্ত ৬-৫ গোলে পরাজিত হয়ে রানার্স আপ হয়, বাংলাদেশ। দলের পক্ষে ২টি গোল করেন জামাল। এছাড়া একটি করে গোল করেন খায়রুজ্জামান, রাজিব ও সুধন।

এর আগে গতকাল, নারী বিভাগের ফাইনালে বাংলাদেশ ৪-২ গোলে হার মানে ভারতের কাছে।

বদলে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম

বদলে যাচ্ছে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়াম। নতুন এক চেহারায় দেখা যাবে তাকে। অবশ্য তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে ২০২২ সালের জুন মাস পর্যন্ত। মঙ্গলবার ‘ঢাকাস্থ বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের অধিকতর উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ৯৮ কোটি ৩৬ লাখ ২৭ হাজার টাকা ব্যয়ে বদলে দেয়া হচ্ছে এই স্টেডিয়ামের চেহারা। অবশ্য স্টেডিয়ামের বর্তমান কাঠামো ঠিক রেখেই সংস্কার কাজ করা হবে।

স্টেডিয়াম সংস্কারে থাকছে- মাঠ উন্নয়ন, গ্যালারির শেড নির্মাণ, গ্যালারিতে চেয়ার স্থাপন, আন্তর্জাতিক ও স্থানীয় খেলোয়াড়দের ড্রেসিংরুম আধুনিকায়ন, ফ্লাডলাইট স্থাপন, সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন, জেনারেটর স্থাপন, এলইডি জায়ান্ট স্ক্রিন বসানো, নতুন অ্যাথলেটিক ট্র্যাক স্থাপন, ডিজিটাল বিজ্ঞাপন বোর্ড স্থাপন, মিডিয়া সেন্টার তৈরি, টিকিট কাউন্টার, ডোপ টেস্ট রুম তৈরি, চিকিৎসা কক্ষ, ভিআইপি বক্স নির্মাণ, প্রেসিডেন্ট বক্স, টয়লেট উন্নয়ন, চিকিৎসা সরঞ্জাম, সাব-স্টেশন সরঞ্জাম, এসি ও সৌর প্যানেল সরবরাহ।

২০১১ সালে আইসিসি বিশ্বকাপ ক্রিকেট উপলক্ষে প্রায় ৩২ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার করা হয়েছিল এই স্টেডিয়ামটির। ৮ বছর পর আরো বড় ধরনের সংস্কার হচ্ছে দেশের খেলাধুলার প্রধান এ ভেন্যুটি।

সকালে দেশ ছাড়ছে বাংলাদেশ দল

পাঞ্জাবের চন্ডিগড়ে চার জাতি আন্তর্জাতিক ডিউবল চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে সকালে দেশ ছাড়ছে বাংলাদেশ পুরুষ ‌ও মহিলা ডিউবল দল। পাঞ্জাব ডিউবল ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনায় ২৭ থেকে ৩০ জুন এই চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ, জিম্বাবুয়ে, ইয়েমেন ও স্বাগতিক ভারতসহ চারটি দল অংশ নেবে। চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে আগামীকাল সোমবার সকালে সড়ক পথে ভারতের উদ্দেশ্য যাত্রা করবে বাংলাদেশ জাতীয় ডিউবল দল।

এ উপলক্ষে আজ রোববার শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ডিউবল এসোসিয়েশনের উপদেষ্টা ও বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশনের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল জহির স্বপন, ডিউবল এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ব্যারিস্টার আনিস জামান, রশিদুজ্জামান সেরনিয়াবাত, বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও ডিউবল এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি আহমেদ আসিফুল হাসান, দলনেতা ও সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক বি এম সহিদুজ্জামান ও কোষাধ্যক্ষ দীন ইসলাম সহ অন্যান্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে কর্মকর্তারা জানান, চ্যাম্পিয়নশিপে ভাল কিছু করার লক্ষ্য নিয়ে বাংলাদেশ দল ভারতে যাচ্ছে।

পুুরুষ দলের সদস্য : হাবিবুর রহমান (দলনেতা), দীন ইসলাম (ম্যানেজার), মো: খায়রুজ্জামান কোচ), শফিুকুর রহমান (সহকারী কোচ), হুমায়ন কবির (রেয়ারী), মিজানুর রহমান (অধিনায়ক), শওকত সিদ্দিক (সহ অধিনায়ক), জামাল হোসেন, আশরাফুল আলম, ফখরুল ইসলাম, আলভি মোরশেদ রাফিন, মল্লিক রাজিব হোসেন, সুধন বড়ুয়া ও রানা।
নারী দলের সদস্য : মাহবুব মোর্শেদ মাসুম (দলনেতা), বি এম সহিদুজ্জামান (চিফ টেকনিক্যাল অফিসিয়াল), ঝর্না আক্তার (ম্যানেজার), আজম আলী খান (কোচ), সিরাজুল ইসলাম (সহকারী কোচ), মিজানুর রহমান (রেফারী), হাসিনা বেগম (অধিনায়ক), নিশা আক্তার (সহ-অধিনায়ক), আশরাফি ইয়াসমিন, মায়া আক্তার, সারাবান তহুরা, মিনা বেগম, ডায়না ও মুক্তা সরকার।

অলিম্পিক ডে পালিত

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে সারাবিশ্বের মতো জাকজমকপূর্ন আয়োজনে বাংলাদেশেও পালিত হলো অলিম্পিক ডে। এ উপলক্ষ্যে সকালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমী থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়ে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের মশাল গেটে গিয়ে শেষ হয়।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, সেনা প্রধান ও বিওএ’র সভাপতি জেনারেল আজিজ আহমেদ খান এবং বিভিন্ন ফেডারেশনের কর্মকর্তারা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

শোভাযাত্রা শেষে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে আর্মি অর্কেস্ট্রা দলের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ বছর অলিম্পিকের ১২৫ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী হওয়ায় আয়োজনে ভিন্নতা এনেছে বিওএ। বিভাগীয় শহরসহ ৬৪ টি জেলাকেও দিনটির সাথে সম্পৃক্ত করে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন।

অলিম্পিক ডে রান রোববার

আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে প্রতি বছরের মতো এবারও দেশব্যাপী অলিম্পিক ডে আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশন। অলিম্পিকের ১২৫তম জন্মবার্ষিকী বলে একটু ভিন্ন আঙ্গিকে অলিম্পিক ডে উদযাপনের করতে যাচ্ছে বিওএ। এবারই প্রথম বিভাগীয় শহরসহ ৬৪টি জেলাকেও এই দিনটির সাথে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। আগামী ২৩ জুন রোববার ঢাকাসহ ৮টি বিভাগীয় শহর ও দেশব্যাপী জেলা শহরগুলোতে এই অলিম্পিক ডে রান অনুষ্ঠিত হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। বিশেষ অতিথি হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের সভাপতি জেনারেল আজিজ আহমেদ।

এ উপলক্ষে আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে অলিম্পিক ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে বিওএ’র মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা অলিম্পিক ডে ২০১৯ আয়োজনের বিস্তারিত কর্মসূচী জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিওএ’র উপ-মহাসচিব ও অলিম্পিক ডে সাংগঠনিক কমিটির চেয়ারম্যান আশিকুর রহমান মিকু, বিওএ’র সহ-সভাপতি শেখ বশীর আহমেদ, বিওএ’র কোষাধ্যক্ষ ও অলিম্পিক ডে মিডিয়া উপ-কমিটির আহবায়ক কাজী রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল।

রোববার সকাল ৭:০০টায় অলিম্পিক ডে রানটি বাংলাদেশ শিশু একাডেমী থেকে শুরু হয়ে বাংলাদেশ সচিবালয়, জিরো পয়েন্ট, জিপিও সম্মুখভাগ, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের ১নং গেইট হয়ে মশাল গেইটে এসে শেষ হবে। ডে রান শেষে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের অভ্যন্তরে আর্মি অর্কেষ্ট্রা দলের পরিবেশনায় একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে।

বিকেল ৪.৩০টায় বিওএ ডাচ বাংলা ব্যাংক অডিটোরিয়ামে ‘ক্রীড়া, পরিবেশ ও টেকসই উন্নয়ন’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে।
আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির পৃষ্ঠপোষকতায় ও বিওএ’র সার্বিক সহযোগিতায় অলিম্পিক ডে আয়োজনের জন্য ইতোমধ্যেই বিওএ উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকুকে চেয়ারম্যান, উপ-মহাসচিব নজীব আহমেদকে কো-চেয়ারম্যান ও উপ-মহাসিচব আসাদুজ্জামান কোহিনুরকে সদস্য সচিব করে করে ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি সাংগঠনিক কমিটি গঠন করা হয়েছে। পুরো আয়োজন সফলভাবে সম্পন্ন করার জন্য সাংগঠনিক কমিটির তত্বাবধানে গঠিত হয়েছে আরো ৯টি উপ-কমিটি।

কেন্দ্রীয়ভাবে ঢাকায় ডে রান আয়োজনের পাশাপাশি দেশের সকল জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার তত্বাবধানে অলিম্পিক ডে রানের আয়োজন করা হবে। এজন্য বিওএ হতে প্রতিটি জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে ১০ হাজার টাকা ও প্রতিটি বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থা ও সংশ্লিষ্ট জেলা সমূহকে ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

এবারের অলিম্পিক ডে আয়োজনের জন্য সম্ভাব্য ব্যয়ের পরিমান ধরা হয়েছে ৩৯ লাখ ৭৫ হাজার টাকা। আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির (আইওসি) অনুদান ছাড়াও পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান সমূহের সহায়তায় এই ব্যয় সংকুলান করা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

দেশে ফিরে সংবর্ধিত রোমান সানা

দ্বিতীয় অ্যাথলেট হিসেবে বাংলাদেশকে সরাসরি অলিম্পিকে নিয়ে যাওয়ার নায়ক আরচ্যার রোমান সানা দেশে ফিরেই হলেন সংবর্ধিত। সংবর্ধনায় তিনি ভবিষ্যতে সাফল্য অব্যাহত রাখার অঙ্গীকার করেন। এই সাফল্যের জন্য স্পন্সর প্রতিষ্ঠান সিটি গ্রুপ রোমান সানাকে দুই লাখ টাকা অর্থ পুরস্কার দেয়।

নেদারল্যান্ডস জয় করে দেশে ফিরলেন ওয়ার্ল্ড আরচ্যারি চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জপদক জয়ী রোমান সানা। ফিরেই তিনি ক্রীড়াপ্রেমী এবং ক্রীড়া কর্মকর্তাদের ভালোবাসা আর শুভেচ্ছায় সিক্ত হন।

বিশ্বকাপের কোনো আসরে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ব্রোঞ্জজয়ী রোমান সানাকে এ সময় স্পন্সর প্রতিষ্ঠান সিটি গ্রুপ দুই লাখ টাকা অর্থ পুরস্কার দেয়। এ সময় বিওএ মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা আচ্যারিকে সব ধরণের সহযোগিতা করার আশ্বাস দেন।

এর আগে, গত রোববার নেদারল্যান্ডসে, ওয়ার্ল্ড আরচারি চ্যাম্পিয়নশিপে ইটালির নেসপলি মাওরোকে ৭-১ সেট পয়েন্টে হারিয়ে ব্রোঞ্জ জেতেন রোমান সানা। তার আগেই অবশ্য ওয়ার্ল্ড আরচারির সেমিফাইনালে উঠে আগামী ২০২০ সালে টোকিও অলিম্পিকে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করেন তিনি। পল্টনের শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে রোমান সানা আগামী দিনেও সাফল্যেও ধারা অব্যাহত রাখার চেষ্টা করবেন বলে জানান। তিনি বলেন, ‘এই সংবর্ধান আমাকে টোকিও অলিম্পিকে ভালো খেলায় অনুপ্রাণিত করবে। আশাকরি আমাদের পুরুষ রিকার্ভ দলটিও খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে। আগামী বছরের জুনে অলিম্পিকের আগের জার্মানীর বার্লিনে ওয়ার্ল্ড আরচারি চ্যাম্পিয়নশিপেই যোগ্যতা যাচাই হবে।’

অলিম্পিকে সুযোগ পাওয়ার মুহূর্তটিকে এভাবেই ব্যাখ্যা করলেন বাংলাদেশ আনসারের তীরন্দাজ রোমান, ‘যখন আমি সেমিফাইনালে উঠে অলিম্পিকে খেলার যোগ্যতা অর্জন করলাম, তখন কেঁদেই ফেলেছিলাম। ঢাকায় এসে মায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে। মা’ও খুব কেঁদেছেন আমার কথা শুনে।

এবার আর কোনো ওয়াইল্ড কার্ড নয়, কোয়ালিফাই করেই বাংলাদেশের দ্বিতীয় ক্রীড়াবিদ হিসেবে অলিম্পিকে খেলবেন আরচার রোমান সানা। গলফার সিদ্দিকুর এবার রোমান সানা বাংলাদেশকে সরাসরি অলিম্পিকে খেলার সুযোগ করে দিলেন। পে অফ:

রাগবির র‌্যালী ও প্রদর্শনী ম্যাচ

আগামী আগস্ট মাসে জাপানে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ওয়ার্ল্ড কাপ রাগবি প্রতিযোগিতা। এ উপলক্ষে আজ শনিবার (১৫জুন) সকালে বাংলাদেশ রাগবি ফেডারেশন (ইউনিয়ন) এর আয়োজনে হান্ডেট ডে কাউন্টডাউন উপলক্ষে একটি র‌্যালীর আয়োজন করা হয়। র‌্যালীটি বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম প্রদক্ষিণ শেষে ফেডারেশনের সামনে শেষ হয়।

প্রধান আতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাপান অ্যাম্বাসির কালচার অ্যাফেয়ার্সের প্রধান মাচিকো ইয়ামামুরা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়াশনের উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর, রাগবি ফেডারেশন ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল জাহির স্বপন, সাধারণ সম্পাদক মৌসুম আলী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাঈদ আহমেদসহ অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। র‌্যালী শেষে পল্টন মাঠে চার দলের অংশ গ্রহনে সেভেন-এ-সাইড প্রদর্শনী রাগবি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

যুব ও ক্রীড়ায় ১৫ কোটি টাকার বাজেট

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের জন্য যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের পরিচালন ও উন্নয়ন ব্যয় মিলিয়ে মোট ১৪৮৯ কোটি ১২ লাখ টাকার বাজেট প্রস্তাব করেছেন। এর মধ্যে উন্নয়ন খাতে ২১৪ কোটি ১৫ লাখ টাকা এবং পরিচালন খাতে ১২৭৪ কোটি ৯৭ লাখ টাকা ধরা হয়েছে।

২০১৮-১৯ অর্থবছরে সংশোধিত বাজেটে উন্নয়ন খাতের পরিমাণ ছিল ৩১৯ কোটি ৯২ লাখ টাকা এবং পরিচালন খাতের পরিমাণ ছিল ১১৯৯ কোটি ৩০ লাখ ১৭ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে গত অর্থ বছরে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সংশোধিত বাজেটের পরিমান ছিল ১৫১৯ কোটি ২২ লাখ ১৭ হাজার টাকা। অর্থাৎ এবারের প্রস্তাবিত বাজেট গত বছরের সংশোধিত বাজেটের তুলনায় ৩০ কোটি ১০ লাখ ১৭ হাজার টাকা কম।

এবারের বাজেটে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অধীনে যে সমস্ত প্রকল্প/কর্মসূচী বাস্তবায়ন করা হবে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- নাটোর ও গাইবান্ধা জেলা সদরে ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মান প্রকল্পের জন্য ৩৮ কোটি টাকা, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের অনুমোদিত প্রকল্পের জন্য সংরক্ষিত ব্যয় ৪৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা, বিকেএসপির আওতায় চট্টগ্রাম ও রাজশাহীতে ক্রীড়া স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য সংশোধিত ব্যয় ২৪ কোটি টাকা, বিকেএসপির নারী প্রশিক্ষনার্থীদের ক্রীড়ার উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ২ কোটি ৮৬ লাখ টাকা, জামালপুরের বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাডভোকেট আব্দুল হাকিম স্টেডিয়াম কমপ্লেক্সের উন্নয়ন ব্যয় ৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকা, সিলেট বিভাগীয় ক্রিকেট কমপ্লেক্সের আউটার স্টেডিয়াম এবং মাগুরা বীর মুক্তিযোদ্ধা আছাদুজ্জামান আউটার স্টেডিয়াম উন্নয়ন সহ জাতির পিতার মুর‌্যাল স্থাপনের জন্য ১৬ কোটি ১ লাখ টাকা, নেত্রকোনা জেলা সদরে ইনডোর স্টেডিয়াম ও খেলোয়াড়দের জন্য ডরমিটরি নির্মান এবং বিদ্যমান টেনিস কমপ্লেক্সের উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ৫ কোটি ৩৩ লাখ টাকা, ঢাকার পল্টন কাবাডি ও ভলিবল স্টেডিয়ামের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি সহ উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ১৩ কোটি ৫৭ লাখ টাকা, ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা উপজেলা স্টেডিয়াম নির্মান প্রকল্পের জন্য ৭ কোটি ৯৬ লাখ টাকা, মুন্সিগঞ্জ জেলাস্থ শ্রীনগর উপজেলা স্টেডিয়াম এবং দিনাজপুর জেলাস্থ পার্বতীপুর উপজেলা স্টেডিয়ামের উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ৯ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, ঢাকার কমলাপুর বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামের উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ৮ কোটি ৮৯ লাখ টাকা এবং ঢাকাস্থ ধানমন্ডি সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সের অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য ১০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে। এছাড়া উন্নয়ন খাতের অন্যান্য প্রকল্পগুলো হলো- ঢাকার রমনা ও রাজশাহী জাফর ইমাম টেনিস কমপ্লেক্সের সংষ্কার ও উন্নয়ন প্রকল্প, মিরপুর সৈয়দ নজরুল ইসলাম সুইমিং কমপ্লেক্সের অধিকতর উন্নয়ন।

২০১৯-২০ অর্থবছরে যুব উন্নয়ন অধিদপ্ততের অধীনে যে বিভিন্ন প্রকল্প, কর্মসূচী বাস্তবায়নের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে টেকনোলজি এমপাওয়ারমেন্ট সেন্টার অন হুইল ফর আন্ডার প্রিভিলাইজড রুরাল পিপল অব বাংলাদেশ প্রকল্পের জন্য ২ কোটি ৫৮ লাখ টাকা, সাপোর্ট টু ডেভেলপমেন্ট ন্যাশনাল প্ল্যান অফ এ্যাকশন ফর ইমপ্লিমেন্টেশন ন্যাশনাল ইয়ুুথ পলিসি এন্ড ইয়ুথ ডেভেলপমেন্ট ইনডেক্সের জন্য ৩৯ কোটি টাকা, ৬৪টি জেলায় তথ্য প্রযুক্তি প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সক্ষমতা বৃদ্ধিকরণ প্রকল্পের জন্য ২ কোটি ৭০ লাখ টাকা।

অর্থমন্ত্রী আজ জাতীয় সংসদে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত বাজেট বক্তৃতায় বলেন, দেশব্যপী ক্রীড়া ও সংস্কৃতি অবকাঠামোর উন্নয়ন এবং জাতীয় ও জেলা/উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন প্রকার প্রতিযোগিতা ও অনুষ্ঠান আয়োজনে সরকার ভুমিকা রেখে চলেছে। বিভিন্ন খেলায় প্রতিভাবান খেলোয়াড় খুঁজে দীর্ঘমেয়াদি প্রশিক্ষন প্রদান করা হচ্ছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ফুটবলের উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের অনুকুলে ২০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ রাখারও প্রস্তাব করেন তিনি।

জুনিয়র দাবায় ইভান ‌ও নোশিন চ্যাম্পিয়ন

ওয়ালটন জাতীয় জুনিয়র (অনুর্ধ্ব-২০) দাবায় ওপেন বিভাগে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন ইয়াসীর আলী খান ইভান ও বালিকা বিভাগের অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার নোশিন আঞ্জুম। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দাবা ফেডারেশনের ক্রীড়াকক্ষে বিজয়ীদের পুরস্কার হিসেবে ওয়ালটনের স্মার্টফোন ও ট্রফি দেওয়া হয়। বাকিদের দেওয়া হয় ওয়ালটনের সামগ্রী ও ট্রফি।

প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় দলের সাবেক হ্যান্ডবল খেলোয়াড় কামরুন নাহার আজাদ স্বপ্না ও দাবা ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক সৈয়দ শাহাবউদ্দিন শামীম এবং সহ-সভাপতি কেএম শহীদউল্যা।

ওয়ালটন জাতীয় জুনিয়র দাবার ওপেন বিভাগে লার্নিং চেস একাডেমির ইয়াসীর আলী খান ইভান ৮ খেলায় সাড়ে ছয় পয়েন্ট পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হন। একই পয়েন্ট পেয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির স্বর্নাভো চৌধুরী রানারআপ ও পিরোজপুরের ফিদে মাস্টার মোহাম্মদ ফাহাদ রহমান তৃতীয় স্থান লাভ করেন। ইভান, স্বর্নাভো ও ফাহাদের অর্জিত পয়েন্ট সমান হলে টাইব্রেকিং পদ্ধতির পারস্পারিক খেলার ফলাফলে ইভান চ্যাম্পিয়ন, স্বর্নাভো রানার-আপ ও ফিদে মাস্টার ফাহাদ তৃতীয় হন।

বালিকা বিভাগে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির মহিলা ক্যান্ডিডেট মাস্টার নোশিন আঞ্জুম অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হন। নোশিন ৮ খেলায় পূর্ণ ৮ পয়েন্ট পেয়ে শিরোপা জয় করেন। বালিকা বিভাগে ৭ পয়েন্ট নিয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির ওয়ালিজা আহমেদ রানারআপ হন। পাঁচ পয়েন্ট করে নিয়ে এলিগেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চেস একাডেমির ওয়ারসিয়া খুশবু তৃতীয়, কাজী জারিন তাসনিম চতুর্থ, জান্নাতুল ফেরদৌস পঞ্চম স্থান লাভ করেন।

এবারের এই প্রতিযোগিতায় ওপেন বিভাগে ঢাকা শহর এবং ২৫টি জেলা থেকে ৬৪ জন এবং বালিকা বিভাগে ২৪ জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করে।

ডিআরইউ ক্রীড়া উৎসব শুরু

আজ রোববার থেকে শুরু হয়েছে ‘ওয়ালটন-ডিআরইউ ক্রীড়া উৎসব’। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে মাসব্যাপী এই ক্রীড়া উৎসবের উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশিদ, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি সভাপতি ইলিয়াস হোসেন, সাধারন সম্পাদক কবির আহম্মেদ খান ও ক্রীড়া সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শামীম। এবারের ক্রীড়া উৎসবে পুরুষ ও নারীদের ১৪ টি ইভেন্টে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্যরা অংশগ্রহণ করছেন।

পুরস্কারের জন্য প্রতিবেদন আহবান

বছরঘুরে আবার‌ও আসছে ‘বিএসপিএ নাইট’। ক্রীড়া সাংবাদিক ও লেখকদের সাফল্যের স্বীকৃতি জানানোর এই আয়োজনের চতুর্থ আসর আগামী জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে। এবছর বেছে নেয়া হবে ২০১৮ সালে ক্রীড়া লেখনির বিভিন্ন ক্ষেত্রে সেরাদের। বাংলাদেশের যেকোনো ক্রীড়া সাংবাদিক, লেখক, ফটো সাংবাদিক নিজের সেরা রিপোর্ট, সাক্ষাৎকার, ফিচার ও ছবি জমা দিতে পারবেন। ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রচারিত বা প্রকাশিত প্রতিবেদনগুলোই পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে।

বিএসপিএ নাইট পুরস্কারের ক্যাটাগরি:

১. স্পোর্টস জার্নালিস্ট অব দ্য ইয়ার
২. বিএসপিএ পারফরমার অব দ্য ইয়ার
৩. এক্সক্লুসিভ রিপোর্ট অব দ্য ইয়ার (পত্রিকা/টিভি/অনলাইন/ম্যাগাজিন)
৪. ইন্টারভিউ অব দ্য ইয়ার (পত্রিকা/টিভি/অনলাইন/ম্যাগাজিন)
৫. সিরিজ অব দ্য ইয়ার (পত্রিকা/টিভি/অনলাইন/ম্যাগাজিন)
৬. ফিচার অব দ্য ইয়ার (পত্রিকা/টিভি/অনলাইন/ম্যাগাজিন)
৭. ফটোগ্রাফি অব দ্য ইয়ার (শুধুমাত্র ফটো সাংবাদিকদের জন্য প্রযোজ্য)

আগ্রহী ক্রীড়ালেখক, ক্রীড়াসাংবাদিক এবং ফটোসাংবাদিকদের আগামী ৩১ মে, ২০১৯-এর মধ্যে প্রতিবেদন ও ছবির মূলকপি (পত্রিকার জন্য মূলপত্রিকা, ম্যাগাজিন, টেলিভিশনের জন্য নিউজ প্রেজেন্টারের লিঙ্ক ও চ্যানেলের লোগোসহ রিপোর্টের সিডি এমপিফোর ফরম্যাটে, অনলাইনের জন্য স্ক্রিনপ্রিন্ট) দুটি অনুলিপিসহ বিএসপিএ’র কার্যালয়ে জমা দিতে হবে। একজন সর্বোচ্চ দুই ক্যাটাগরিতে প্রতিবেদন জমা দিতে পারবেন।

নারী ভলিবলের শিরোপা আনসারের

‌ওয়ারী ক্লাবকে হারিয়ে পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স চতুর্থ উন্মুক্ত মহিলা ভলিবল প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার। পল্টনের শহীদ নূর হোসেন জাতীয় ভলিবল স্টেডিয়ামে, আনসার ২৫-০৮, ২৫-১৭, ২৫-২২ পয়েন্টে ওয়ারী ক্লাবকে পরাজিত করে।

স্থান নির্ধারনী খেলায় বাংলাদেশ পুলিশ ২৫-০৯, ২৫-১৬, ২৪-২৬ ‌ও ২৫-১০ পয়েন্টে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে হারিয়ে তৃতীয় স্থান দখল করে। প্রতিযোগিতায় সেরা এ্যাটাকার হন ‌ওয়ারী ক্লাবের কেয়া। সেরা ডিফেন্ডারের পুরস্কার জেতেন আনসারের সোহেলী এবং সেরা সেটার হন বাংলাদেশ পুলিশের কাজলী।

ফাইনাল শেষ বিজয়ী ও বিজিত দলকে পুরস্কৃত করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা। এ সময় স্পন্সর প্রতিষ্ঠান পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্সের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর আলমগীর ফিরোজ, বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান মিকু ‌ও মহিলা ভলিবল কমিটির সম্পাদক নিবেদিতা দাস সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

নারী বেসবলে আনসার ‌ও পুলিশ যৌথ চ্যাম্পিয়ন

মার্সেল ৩য় জাতীয় নারী বেসবল চ্যাম্পিয়নশিপে যৌথভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার ও বাংলাদেশ পুলিশ। এই নিয়ে বাংলাদেশ আনসার তৃতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হলো আর বাংলাদেশ পুলিশ প্রথমবার। জাতীয় মহিলা বেসবলের তৃতীয় ও শেষদিনে আজ মঙ্গলবার ধানমন্ডিস্থ সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সের মাঠে সকালে ফাইনাল খেলা শুরু হলেও বৃষ্টির কারণে পানি জমে থাকায় খেলাটি আর মাঠে গড়াতে পারেনি। ৯ ইনিংসের খেলায় উভয় দল মাত্র দুটি করে ইনিংস খেলার পর বৃষ্টি নামে। পরবর্তীতে আর খেলা আয়োজন সম্ভব হয়নি। শেষে উভয় দলের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের সম্মতিতে যৌথ চ্যাম্পিয়ন ঘোষনা করা হয়। সেই হিসেবে ইউএসসিডি গাজীপুরকে রানার্সআপ ট্রফি দেয়া হয়।

ফাইনাল খেলা শেষে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)। এ সময় মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলার উপদেষ্টা প্রশাসন মীর মোতাহার হাসান, প্রবীণ মহিলা ক্রীড়া সংগঠক ফরিদা বেগম, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান, বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদিকা প্রকৌশলী ফিরোজা করিম নেলী ‌ও বাংলাদেশ বেসবল-সফটবল এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লিটন সহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিএসপিএ বর্ষসেরা খেলোয়াড় বাকী

দেশের ক্রীড়া সাংবাদিক ও ক্রীড়া লেখকদের সুপ্রাচীন সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হবার দুই বছর পর অর্থাৎ ১৯৬৪ সাল থেকে সেরা ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের পুরস্কৃত করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় আজ শনিবার হোটেল সোনারগাওয়ে জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ২০১৮ সালের সেরাদের পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। কমনওযেলথ গেমসে রূপাজয়ী শুটার আব্দুল্লাহ হেল বাকী হন বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদ। জাতীয় দলের ওপেনিং ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল পেয়েছেন পপুলার চয়েজ (দর্শকদের অনলাইন ভোটে) অ্যাওয়ার্ড।

বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। বিশেষ অতিথি ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এবং অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ও স্কয়ার টয়লেট্রিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু।

ক্রীড়াবিদদের জন্য সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে দেশের প্রায় সব তারাকা ক্রীড়াবিদ ও সংগঠকদের উপস্থিতিতে এক মিলন মেলায় পরিনত হয়।

২০১৮ সালের পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন:
বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদ: আব্দুল্লাহ হেল বাকী (শুটার)। এ ক্যাটাগরিতে আরো মনোনীত হয়েছিলেন -মুশফিকুর রহিম (ক্রিকেটার), রুমানা আহমেদ (ক্রিকেটার)।
পপুলার চয়েজ অ্যাওয়ার্ড: তামিম ইকবাল (ক্রিকেটার)। এ ক্যাটাগরিতে মনোনীত হয়েছিলেন -রুমানা আহমেদ (ক্রিকেটার), মুশফিকুর রহিম (ক্রিকেটার) ও আব্দুল্লাহ হেল বাকী (শ্যুটার)।
বর্ষসেরা ক্রিকেটার: মুশফিকুর রহিম।
বর্ষসেরা ফুটবলার: তপু বর্মন।
বর্ষসেরা ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়: শাপলা আক্তার।
বর্ষসেরা শ্যুটার: আব্দুল্লাহ হেল বাকী।
উদীয়মান ক্রীড়াবিদ: সিরাত জাহান স্বপ্না (ফুটবলার) ‌ও মেহেদী হাসান আলভী (টেনিস খেলোয়াড়)।
বর্ষসেরা কোচ: গোলাম রব্বানী ছোটন (ফুটবল)।
তৃণমূলের ক্রীড়াব্যক্তিত্ব: ফজলুল ইসলাম (হকি কোচ) ও মনসুর আলী (সংগঠক)।
বিশেষ সম্মাননা: নাজমুন নাহার বিউটি (সাবেক অ্যাথলেট)।
বর্ষসেরা সংগঠক: নাজমুল হাসান পাপন (এসিসি ও বিসিবি সভাপতি)।
বর্ষসেরা পৃষ্ঠপোষক: বসুন্ধরা গ্রুপ।

বিএসপিএ অ্যা‌ওয়ার্ড শনিবার

১২টি বিভাগে মোট ১৪ জন বর্তমান ও সাবেক ক্রীড়াবিদ, সংগঠক ও স্পন্সর প্রতিষ্ঠানকে আগামী ৬ এপ্রিল পুরস্কৃত করবে ক্রীড়া লেখকদের সবচেয়ে প্রাচীন সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস এসোসিয়েশন-বিএসপিএ।

এ উপলক্ষে বিওএ অডিটোরিয়ামে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে, বিএসপিএ’র সভাপতি মোস্তফা মামুন জানান, ১৯৬৪ সাল থেকে বিএসপিএ এই পুরস্কার দিয়ে আসলেও ২০১৫ সাল থেকে স্পন্সর হিসেবে যুক্ত হয়েছে স্কয়ার টয়লেট্রিজ। তাই পুরস্কারের নাম হয়েছে ‘কুল-বিএসজেএ স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ড’।

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান স্কয়ারের মার্কেটিং ম্যানেজার ফজল মাহমুদ রনি এবং বিএসপিএ’র সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত আহমেদ আনন্দ সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

শরীরগঠনে চট্টগ্রামের মানস জিম সেরা

সেলিম আল-মাহমুদ প্রেজেন্টস ওয়ালটন মিস্টার ঢাকা উন্মুক্ত শরীরগঠন এবং ফিজিক চ্যাম্পিয়নশিপের দলগতভাবে শিরোপা জিতেছে চট্টগ্রামের মানস জিম। আর রানার্সআপ হয়ে ঢাকার রায়হান ফিটনেস ক্লাব। আজ রোববার চূড়ান্তপর্ব ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চ্যাম্পিয়নশিপ শেষ হয়।

এবারের প্রতিযোগিতায় ৮০+ কেজি ওজনশ্রেণিতে প্রথম হন গ্যালাক্সি জিমের শেখ জামাল। দ্বিতীয় হন এলিট বডি ফিটনেস সেন্টারের ইমরানুল হক এবং তৃতীয় হন ঢাকার হ্যামার জিমের রাজেশ চক্রবর্তী।

এদিকে মেনস ফিজিক বিভাগের ১৬৬ সেমি. দৈহিক উচ্চতা শ্রেণিতে প্রথম হন চট্টগ্রামের মানস জিমের সাইফুল ইসলাম তালুকদার। ১৭০ সেমি. উচ্চতায় প্রথম হন লাইভ ফিট পারফরন্সের মোঃ সুমন। এবং ১৭০ সেমি.র উর্ধ্বে দৈহিক উচ্চতা শ্রেণিতে প্রথম হন বাংলাদেশ জিমের মো. রবিউল।

আড়াই লাখ টাকা প্রাইজমানির এই প্রতিযোগিতায় প্রত্যেক ওজন শ্রেণির প্রথম স্থান অর্জনকারী পান মেডেল, স্ট্যাচু, সনদপত্র ও ১৫ হাজার টাকার ক্যাশ অ্যাওয়ার্ড। যারা দ্বিতীয় হন তাদেরকে মেডেল, সনদপত্র ও ১০ হাজার টাকা আর তৃতীয় স্থান অধিকারকারীরা পান মেডেল, সনদপত্র ও ৫ হাজার টাকা।

আজ রোববার বিকেলে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ টাওয়ার অডিটোরিয়ামে প্রতিযোগীদের পুরস্কৃত করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোনেশনের মেয়র মোহাম্মাদ সাঈদ খোকন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন টাইটেল স্পন্সর ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ইকবাল বিন আনোয়ার, বাংলাদেশ শরীগঠন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম এবং টুর্নামেন্ট কমিটির সদস্য-সচিব নুরুল ইসলাম খান নাঈমসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

বিএসপিএ’র নতুন লোগো

লোগো পরিবর্তন করেছে বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ)। সমিতির কার্যালয়ে আজ রোববার দুপুরে নতুন লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠান হয়।

বিএসপিএ’র নতুন লোগো উন্মোচন করেন বাংলাদেশের সবচেয়ে পুরনো ক্রীড়াসংগঠনটির সভাপতি মোস্তফা মামুন। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) উপ-মহাসচিব ‌ও বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর।

বিএসপিএ’র অগ্রজ এবং অনূজ সদস্যদের উপস্থিতিতে লাল-সবুজ লোগোটির আত্মপ্রকাশ ঘটে। যুগের সঙ্গে তাল মেলাতেই গত জানুয়ারি মাসে বিএসপিএ বার্ষিক সাধারণ সভায় লোগো পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়। এই লোগোর মধ্য দিয়ে ক্রীড়ার সঙ্গে ক্রীড়া সাংবাদিকতা ও লেখালেখির যোগসূত্র ঘটানো হয়েছে। লোগোর লাল-সবুজ রঙ দিয়ে বোঝানো হয়েছে বাংলাদেশের পতাকা।

বডিবিল্ডিংয়ের ওয়েবসাইট উদ্বোধন

শরীরগঠন ফেডারেশেনর খবরা-খবর সহজে সবার কাছে পৌছে দিতে বাংলাদেশ বডিবিল্ডিং ফেডারেশন তাদের ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেছে। বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের অডিটোরিয়ামে ওয়েবসাইটর উদ্বোধন করেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের নির্বাহী সদস্য নূরুল ইসলাম নাঈম সহ কর্মকর্তা এবং পুরুষ ও নারী বডিবিল্ডাররা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক জানান, ছেলেদের পাশাপাশি আগামীতে নারীদেরও বডিবিল্ডিং প্রতিযোগিতা আয়োজন করা হবে। এপ্রিল মাসে জাতীয় প্রতিযোগিতা দিয়ে নারীদের বডিবিল্ডিং বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো শুরু হবে।

স্কুল ভলিবল শুরু

শুরু হয়েছে পানাম গ্রুপ ঢাকা মহানগরী স্কুল ভলিবল প্রতিযোগিতা। মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে, প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল।

এসময় উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান পানাম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অমল পোদ্দার, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব জাফর উদ্দিন ও ভলিবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান মিকু। চারদিনের এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী দিনে, বালক ও বালিকা বিভাগে মোট ১৪ টি খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

দুই বছর পর স্কুল ভলিবল

দুই বছর বিরতির পর আগামীকাল থেকে আবারও শুরু পানাম গ্রুপ ঢাকা মহানগরী স্কুল ভলিবল প্রতিযোগিতা। মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে আগামীকাল বিকেল থেকে শুরু হবে চারদিনের এই প্রতিযোগিতা। এবারের প্রতিযোগিতায় বালক বিভাগে ২২ টি এবং বালিকা বিভাগে ১২ দল অংশ নেবে। এ উপলক্ষে বিওএ ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান মিকু জানান, এবার থেকে প্রতিবছর মার্চ মাসে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।

তাছাড়া প্রতিপবছর মার্চ মাসে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ আন্তর্জাতিক ভলিবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করার কথা‌ও জানান, মিকু। তিনি বলেন, এবার বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে অংশ নে‌ওয়ার জন্য ইতোমধ্যেই আটটি দেশ সম্মতি জানিয়েছে।

টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন দলকে ১৫ হাজার, রানার্সআপ দলকে ১০ হাজার এবং তৃতীয় স্থানের দলকে আট হাজার টাকা অর্থ পুরস্কার দেয়া হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সহ-সভাপতি আজিজুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক ফজলে রাব্বি বাবুল ‌ও টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক অসীম সাহা।

বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন

ওয়ালটন দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক কারাতে প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। রানার্সআপ নেপাল, আর তৃতীয় হয়েছে ভারত। বাংলাদেশ ১২টি স্বর্ণ, ১১টি রৌপ্য ও ১৮টি ব্রোঞ্জসহ মোট ৪১টি পদক পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়। রানার্সআপ নেপাল জিতেছে ৬টি স্বর্ণ, ২টি রৌপ্য ও ৪টি ব্রোঞ্জ পদক। আর ভারত পেয়েছে ৩টি স্বর্ণ, ৮টি রৌপ্য ও ১৮টি ব্রোঞ্জ পদক।

ব্যক্তিগত ইভেন্টে পদক জয়ীদের স্বর্ণ, রৌপ্য ও ব্রোঞ্জ পদক দেওয়া হয়। এ ছাড়া প্রতিযোগিতার প্রতিটি ইভেন্টের সেরা কারাতেকারকে ওয়ালটন গ্রুপের পক্ষ থেকে হোম অ্যাপ্লায়েন্স দিয়ে উৎসাহিত করা হয়।

আজ শনিবার সন্ধ্যায় যশোরের ঝিকরগাছার আলিয়া মাদ্রাসার অডিটোরিয়ামে প্রতিযোগিতার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলার মেয়র আলহাজ্ব মোস্তফা আনোয়ার পাশা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঝিকরগাছা উপজেলার নির্বাহী অফিসার জাহিদুল ইসলাম, বাংলাদেশ মার্শাল আর্ট কনফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হাসান উজ জামান মনি, ঝিকরগাছা কারাতে অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ও বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক কারাতে রেফারি হুমায়ুন কবির জুয়েলসহ অন্যান্যরা।

ডিউবল টুর্নামেন্ট সোমবার

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে আগামীকাল সোমবার শুরু হচ্ছে দিনব্যাপী ডিউবল প্রতিযোগিতা। এবারের টুর্নামেন্টে আটটি পুরুষ ‌ও ৫টি মহিলা সহ মোট ১৩টি দল অংশ নিচ্ছে। পল্টনের শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে হবে স্বাধীনতা দিবস ডিউবল প্রতিযোগিতা।

সোমবার সকাল ৮টায় খেলা শুরু হবে। আর সকাল সাড়ে ১০টায় টুর্নামেন্টের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব মাসুদ করিম। বিকেল চারটায় বিজয়ীদের পুরস্কৃত করবেন পুলিশের জিআইজি (অপারেশনস্) আনোয়ার হোসেন।

টুর্নামেন্ট উপলক্ষে আজ রবিবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান, ডিউবল এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক বি এম সহিদুজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের চেয়ারম্যানের একান্ত সচিব ও উপ-পরিচালক রশিদুজ্জামান সেরনিয়াবাত, রাগবি ফেডারেশনের সভাপতি আব্দুল্লাহ আল জহির স্বপন, রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আসিফুল হাসান ‌ও ডিউবল এসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ দীন ইসলাম।
চ্যাম্পিয়ন ও রানার আপ দল পুরস্কার হিসেবে ট্রফি ও মেডেল দেয়া হবে। সেরা খেলোয়াড়ের ক্রেস্ট দিয়ে পুরস্কৃত করা হবে।

ভলিবল কর্মশালা সমাপ্ত

দেশের ক্রীড়া সাংবাদিকদের পেশাগত উৎকর্ষ সাধনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন-বিএসপিএ ভলিবল রিপোর্টিং নামে এক কর্মশালার আয়োজন করে। ব্লেজার বিডি’র স্পন্সরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সম্মেলন কক্ষে, এই কর্মশালায় বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রায় ৫০ জন সাংবাদিক অংশ নেন।

কর্মশালার উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের কোষাধ্যক্ষ কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল। বাংলাদেশ ভলিবল ফেডারেশনের রেফারিজ কমিটির চেয়ারম্যান মনিরুল হক এবং জাতীয় ভলিবল কোচ গোলাম রসুল মেহেদী কর্মশালাটি পরিচালনা করেন। এ সময় বিএসপিএ’র সিনিয়র সহ-সভাপতি পরাগ আরমান, সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত আহমদ আনন্দ সহ সমিতির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ভলিবলের নানা বিষয় নিয়ে আলোচনায় অংশ নেন বিএসপিএ’র সিনিয়র সদস্য এবং ভলিবল ফেডারেশনের সদস্য মোস্তফা কামাল। ওয়ার্কশপের সমাপ্তি টানেন বিএসপিএ’র সাবেক সভাপতি হাসান উল্লাহ খান রানা। এই কর্মশালার মধ্য দিয়ে উপস্থিত ক্রীড়া সাংবাদিক এবং ক্রীড়ালেখকরা ভলিবল খেলার নিয়মকানুন সম্পর্কে সম্মক ধারণা পেয়েছেন যা তাদের পেশাগত উৎকর্ষ সাধনে অগ্রনী ভূমিকা রাখবে।

উল্লেখ্য, বিএসপিএ গত ২০১৭ সাল থেকে বিভিন্ন খেলার রিপোর্টিং নিয়েকর্মশালার আয়োজন করে আসছে।

হ্যান্ডবল কোচেস কোর্স উদ্বোধন

বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনের উদ্যোগে বিওএ’র ডাচ-বাংলা ব্যাংক অডিটোরিয়ামে অলিম্পিক সলিডারিটি হ্যান্ডবল কোচেস কোর্স লেভেল-৩ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। কোর্সটি পরিচালনা করেন ইরান হতে আগত আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল ফেডারেশনের প্রশিক্ষক আলিরিযা হাবিবি। 

এ কোর্সে ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন জেলার ১৯ জন প্রশিক্ষক ও দেশের বাইরের দু’জন (ভারত) সহ মোট ২১ জন অংশ নিচ্ছেন। কোর্সটি আগামী ১৬ মার্চ শেষ হবে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি উপস্থিত ছিলেন বিওএ’র উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বিওএ’র কোষাধ্যক্ষ কাজী রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল এবং হ্যান্ডবল ফেডারেশনের কোষাধ্যক্ষ ও কোর্স সমন্বয়কারী জাহাঙ্গীর হোসেন।

আন্তর্জাতিক কারাতে

তৃণমূলে কারাতে খেলাকে ছড়িয়ে দিতে আগামী ১৫ মার্চ থেকে যশোরের ঝিকরগাছায় শুরু হচ্ছে ওয়ালটন আন্তর্জাতিক কারাতে প্রতিযোগিতা। দুইদিনের এই প্রতিযোগিতায় স্বাগতিক বাংলাদেশ সহ ভারত ও নেপালের দু’শো জন কারাতেকা অংশ নেবেন। পুরুষ ও নারী বিভাগে ১৬টি ইভেন্টে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে।

এ উপলক্ষে হকি ফেডারেশনে এক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ইকবাল বিন আনোয়ার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কারাতে ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হাসান উজ জামান মনি ও ঝিকরগাছা কারাতে একাডেমির সাধারণ সম্পাদক রফিক।

জাতীয় জুনিয়র বক্সিং শুরু ৮ মার্চ

জাতীয় দলের ভালো মানের খেলোয়াড় সরবরাহ করার উদ্দেশ্যে আগামী ৮ মার্চ থেকে চারদিন ব্যাপী শুরু হবে জাতীয় জুনিয়র বক্সিং প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্ব। এ উপলক্ষে বক্সিং ফেডারেশনে এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দেশের দুশো’ তরুণ বক্সার ছেলেদের বিভাগে নয়টি এবং মেয়েদের ছয়টি ওজন শ্রেণীতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।

চূড়ান্ত পর্ব থেকে সেরা ১৫ জন খেলোয়াড় বাছাই করে দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম তুহিন।

এরআগে, দেশের আটটি বিভাগ থেকে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ১৩১ জন বক্সার বাছাই করা হয়। এই প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন সংস্থা ‌ও সার্ভিসেস দলের মোট দুশো’ বক্সার অংশ নেবেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ইকবাল বিন আনোয়ার ও ফেডারেশনের সহ-সভাপতি নিজাম উদ্দিন চৌধুরী।

জাতীয় জিমন্যাস্টিক্স শুরু

শুরু হয়েছে ৩৬তম সিনিয়র, ২১তম জুনিয়র ও বয়সভিক্তিক জাতীয় জিমন্যাস্টিক্স প্রতিযোগিতা। সকালে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাশিয়ামে, প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করবেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব মাসুদ করিম।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সভাপতি শেখ বশির আহমেদ মামুন ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদুর রহমান বাবলুসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা। এবারের প্রতিযোগিতায় জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও সার্ভিসেস দলের মোট দুইশ’ জিমন্যাস্ট অংশ নিচ্ছেন।

প্রতিবন্ধী বার্ষিক ক্রীড়া শুরু

পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা পেলে শারীরিক প্রতিবন্ধীরাও সমাজে অন্য সবার মতো অবদান রাখতে পারেন। আর তাদেরকে মূল স্রোতে ফেরানোর লক্ষ্যেই বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন। ধানমন্ডির সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে, দুইদিনের এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন, কর্মকর্তারা। ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে জাতীয় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী ক্রীড়া সমিতি ও জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরাম।

বুদ্ধি, দৃষ্টি, শারীরিক, বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধীদের নিয়ে এই বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। ঢাকার তিনশ’ছেলে-মেয়ে ৬৪টি ইভেন্টে অংশ নিচ্ছেন। আয়োজকদের উদ্দেশ্য, প্রতিভা কাজে লাগিয়ে অবহেলিতদের সমাজের মূল স্রোতে নিয়ে আসা। প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে, প্রতিবন্ধীদের দিকে সহযোগিতার হাত বাড়াতে বিত্তবানদের প্রতি কর্মকর্তারা উদাত্ত আহ্বান জানান।

জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরামের মহাসচিব সেলিনা আক্তার বলেন, সুযোগ-সুবিধা পেলে এদেশের প্রতিবন্ধীরা বোঝা নয়, বরং সমাজের উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে। আর এনএএসপিডি’র সহ-সভাপতি ‌ও এটিএন বাংলার প্রশাসনিক উপদেষ্টা মীর মোতাহার হাসান জানান, প্রতিবন্ধীরা সাধারণের চেয়ে অনেক কম সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন। তাদের সমস্যাট সাধারণে তেমন বোঝেই না। তাই তাদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়াতে সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আহব্বান জানান তিনি। আর সুযোগ পেলে যে তারা আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনতে পারেন সেটা তো বিভিন্ন প্রতিযোগিতার দিকে তাকালেই জানা যায়।

প্রতিবন্ধীদের শারীরিক ও মানসিক উন্নয়নে অতিথিরা সব ধরণের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি দেন। ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান বলেন, প্রতিবন্ধীদের সাহায্য যে কোনো রকমের পদক্ষেপের সঙ্গে থাকবে জেলা পরিষদ। সামর্থ অনুযায়ী তাদেরকে সাহায্য দে‌ওয়ার চেষ্টা করা হবে বলে জানান তিনি। এদিকে, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ‌ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ইকবাল বিন আনোয়ার ডন বলেন, গত আট বছর ধরে প্রতিবন্ধীদের সঙ্গে যুথবদ্বতা বেধেছে ওয়ালটন। এই সহযোগিতা ভবিষ্যতে‌ও অব্যাহত থাকবে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ প্রতিবন্ধীদের উন্নয়নে সরকারের বরাদ্দ আরো বাড়ানোর আশ্বাস দেন।

মাঠ উদ্ধার করাই হবে প্রথম কাজ: আতিকুল

আসন্ন উপ-নির্বাচনে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র নির্বাচিত হলে, মাঠ সংস্কার ও দখল হয়ে যাওয়া মাঠ উদ্ধার করাই হবে প্রথম কাজ- সম্মিলিত ক্রীড়াঙ্গনের আয়োজনে এক মতবিনিময় সভায় একথা জানান, বাংরাদেশ আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম।

মিরপুরের শহীদ সোহরাওয়ার্দি ইনডোর স্টেডিয়ামে, এই মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ অলিম্পিকি এসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা, উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু, আসাদুজ্জামান কোহিনুর, জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া ফুটবল এসোসিয়েশনের মহাসচিব তরফদার রুহুল আমিন, সোনালী অতীত ক্লাবের সভাপতি হাসানুজ্জামান বাবলু, জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সাবেক ফুটবলার শেখ মোহাম্মদ আসলাম ‌ও আব্দুল গাফ্ফার সহ ক্রীড়া সংগঠক ও খেলোয়াড়রা উপস্থিত ছিলেন।

আন্ত:জেলা মহিলা অ্যাথেলটিক্স সমাপ্ত

লুৎফুন নেছা হক বকুল আন্ত:জেলা মহিলা অ্যাথেলটিক্সে ব্যাক্তগতভাবে আট পয়েন্ট পেয়ে চ্যাম্পিয়ন হন কুড়িগ্রামের স্বপ্না খাতুন। আর ছয় পয়েন্ট পেয়ে রানার্সআপ হন লক্ষ্মীপুরের তাসলিমা আক্তার। আর দুইদিনের এই প্রতিযোগিতায় ১৮ পয়েন্ট নিয়ে দলগতভাবে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কুড়িগ্রাম জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থা। এবং ১২ পয়েন্ট নিয়ে রানার্সআপ হয় খুলনা জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থা।

সেরা অ্যাথলেট কুড়িগ্রামের স্বপ্না খাতুন

প্রতিযোগিতায় নয়টি ইভেন্টে বাংলাদেশের ৩২টি জেলার মোট ১৯২ জন নারী অ্যাথলেট অংশ নেন। ইভেন্টগুলো হলো- ১০০ মিটার, ২০০ মিটার ‌ও ৪০০ মিটার স্প্রিন্ট, উচ্চ লম্ফ, দীর্ঘ লম্ফ, বর্শা নিক্ষেপ, চাকতি নিক্ষেপ, গোলক নিক্ষেপ ও ৪ গুণিতক ১০০ মিটার রীলে।

হাই জাম্পে সেরা খুলনার মুনিয়া জাহান

খেলা শেষে আজ রোববার সমাপনী দিনে ধানমন্ডির সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন সংসদ সদস্য সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। এ সময় বাংলাদেশ এ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব (মন্টু), জাতীয় সংসদের হুইপ ‌ও বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী মাহাবুব আরা বেগম গিনি উপস্থিত ছিলেন।

নিজেকে ছাড়িয়ে যা‌ওয়ার লড়াই অ্যাথলেটদের

আসন্ন এশিয়ান অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের রেকর্ডকে পেছনে ফেলার লড়াইয়ে নামবেন বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা। আগামী ২১ থেকে ২৪ এপ্রিল কাতারের দোহায় এশিয়ান অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপ আসরে অংশ নেবেন বাংলাদেশের পাঁচ স্প্রিন্টার। সদ্য সমাপ্ত জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে পুরুষদের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে স্বর্ণজয়ী মোহাম্মদ ইসমাইল, বিকেএসপির হাসান আলী, ৪০০ মিটারে বিকেএসপির জহির রায়হান, নারীদের ১০০ মিটারে নৌবাহিনীর শিরিন আক্তার ও ২০০ মিটারে একই সংস্থার সোহাগী আক্তার যাচ্ছেন এশিয়ান অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে। নিজ নিজ সংস্থায় চলছে এই পাঁচ স্প্রিন্টারের প্রস্তুতি।

জানুয়ারিতে শেষ হওয়া জাতীয় অ্যাথলেটিক্সে ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে প্রায় ৩২ বছর আগের রেকর্ড ভাঙেন বিকেএসপির জহির রায়হান। অন্যদিকে, ১০০ মিটার স্প্রিন্টে দুইযুগ আগের রেকর্ড ভেঙে আলোচনায় আসেন নতুন দ্রুততম মানব নৌবাহিনীর মোহাম্মদ ইসমাইল। নিজ সংস্থা নৌবাহিনীর ট্রায়ালে আটবারের দ্রুততম মানব মেজবাহ আহমেদকে পেছনে ফেলে ১০০ মিটাররের জন্য নির্বাচিত হন তিনি। ট্রাকে নেমেই ঝড় তোলেন ইসমাইল। ইসমাইলের সঙ্গে লড়াইয়ে রেকর্ড গড়ে রুপা জেতা বিকেএসপির হাসান আলীকেও দোহায় পাঠাচ্ছে ফেডারেশন। অষ্টমবারের মতো দেশের দ্রুততম মানবী হয়েছেন শিরিন আক্তার। দোহাগামী বিমানে তার সঙ্গী হচ্ছেন ২০০ মিটার স্প্রিন্টে সোনা জেতা নৌবাহিনীর সোহাগী আক্তার।

এশিয়ান অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপ নিয়ে বিকেএসপির কোচ আবদুল্লাহেল কাফী বলেন, ‘আমার জানা মতে ওই পাঁচজনকে চিঠি দিয়েছে ফেডারেশন। স্ব-স্ব সংস্থায় অনুশীলন করতে বলেছে দোহায় যাওয়ার আগ পর্যন্ত। এমন সুযোগের খবর শুনে ছেলে মেয়েরা খুবই উচ্ছ্বসিত। এরইমধ্যে ছুটি কাটিয়ে অনুশীলনে ফিরেছেন জহির, হাসান ও শিরিন। সপ্তাহে ৯ সেশন অনুশীলন হচ্ছে। আশা করি নিজেদেরকে ভালোভাবে প্রস্তত করেই যাবে তারা।’ অ্যাথলেটিক্স ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু বলেন, ‘আপাতত দেশি কোচের তত্ত্বাবধানেই অ্যাথলেটদের কোচিং চলছে। আমরা বাংলাদেশ অলিম্পিক এসোসিয়েশনকে (বিওএ) চিঠি দিয়েছি চীনের একজন স্প্রিন্ট কোচ এনে দিতে। বিওএ চীনের সঙ্গে যোগাগোগ করছে বলেও আমাদেরকে জানিয়েছে।’

দোহায় যাওয়ার নিশ্চয়তা পেয়ে ওয়ার্ল্ড জুনিয়র অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করা স্প্রিন্টার জহির রায়হান বলেন, আমার মূল টার্গেট এসএ গেমস। এসএ গেমসের আগে এশিয়ান অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপে দৌড়াতে পারলে আমাদের অভিজ্ঞতা বাড়বে। এর আগেও বিশ্ব জুনিয়র অ্যাথলেটিক্সে খেলেছি আমি। তবে, দোহায় নিজেকে প্রমাণের চেষ্টা থাকবে। দেশের মাটিতে যে রেকর্ড গড়েছি, সেই টাইমিং যেন দোহাতেও থাকে সেই চেষ্টাই করবো।’ বিকেএসপির হাসান আলী বলেন, ‘দোহায় টুর্নামেন্টের জন্য আমি নির্বাচিত হয়েছি। এটি আমার জন্য বড় পাওয়া। আশা করি নিজেকে ছাড়িয়ে যেতে পারবো।’ রেকর্ড গড়ে দ্রুততম মানব হওয়া নৌবাহিনীর মোহাম্মদ ইসমাইল বলেন, যোগ্যতা দিয়েই দোহায় খেলতে যাচ্ছি। ঢাকায় যে টাইমিং করেছি, আশা করি তারচেয়ে উন্নতি করতে পারবো কাতারে। সেভাবেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।

ভারোত্তোলকের ধর্ষক গ্রেফতার

অবশেষে ভারোত্তোলক ধর্ষণ মামলার আসামি সোহাগ আলীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অনেক দিন ধরে পালিয়ে বেড়ানো ভারোত্তোলন ফেডারেশনের এই অফিস সহকারীকে গত সোমবার বিয়ের নাটকের ফাঁদে ফেলে আটক করা হয়েছে নেত্রকোনা থেকে। এরপর আদালতে পাঠিয়ে এক দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

কিছুদিন আগে, এক নারী ভারোত্তোলককে ধর্ষণের ঘটনা পত্রিকায় ছাপা হলে আলোচিত হয়। কিছুদিন পর সোহাগ আলীকে আসামি করে পল্টন থানায় মামলা করে ভারোত্তোলকের পরিবার। এরপরেই তিনি পালিয়ে বেরাচ্ছিলেন। এরই মধ্যে পল্টন থানায় করা সেই মামলার দায়িত্ব নেয় ‘ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার’ এবং তদন্তের দায়িত্ব পড়ে ইন্সপেক্টর আমেনা খাতুনের ‌উপর। তার নেতৃত্বে সোহাগ আলীকে গ্রেপ্তার করা হয়, ‘কৌশলে আসামিকে ধরতে হয়েছে। এমন এক নাটক সাজানো হয়েছে যেন কেউ আগেভাগে বুঝতে না পারে। নইলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারত।’

ওই নারী ভারোত্তোলকের সঙ্গে তাঁর বিয়ের ফাঁদ পেতেছিল পুলিশ। পুলিশের লোকজন অভিভাবক সেজে বিয়ের জন্য মেয়েকে নিয়ে গিয়েছিল সোহাগের বাড়ি কেন্দুয়ায়। কাজিও ডাকা হয়েছিল। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী কাবিনের টাকা নিয়ে মেয়েপক্ষ গণ্ডগোল পাকায় এবং একপর্যায়ে তারা সোহাগকে গাড়িতে তুলে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়। গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করার পর এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হয় বলে জানান ইন্সপেক্টর আমেনা খাতুন। এই মামলায় নিপীড়িত নারী ভারোত্তোলককে আইনি সহযোগিতা দিচ্ছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র।

নির্যাতিতার দাবি অনুযায়ী, গত বছর ১৩ সেপ্টেম্বর জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরনো ভবনে বাংলাদেশ ভারোত্তোলন ফেডারেশনে তিনি ধর্ষণের শিকার হন। অভিযুক্ত সোহাগ আলী ঐদিন সকালে অনুশীলনের কথা বলে তাঁকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এরপর মানসিক ভারসাম্য হারানো ঐ ভারোত্তোলককে ভর্তি করানো হয় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে।

জাতীয় অ্যাথলেটিক্সে জহিরের রেকর্ড

ওয়ালটন ৪২তম জাতীয় অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতায় আজ শুক্রবার পুরুষদের ৪০০ মিটার স্প্রিন্টে বিকেএসপির জহির রায়হান ৩২ বছরের পুরণো রেকর্ড ভেঙে নতুন জাতীয় রেকর্ড গড়েন।

পুরুষদের ৪০০ মিটারে বিকেএসপির জহির রায়হান ৪৬.৮৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে স্বর্ণ জিতেন। শুধু স্বর্ণ জিতেই ক্ষান্ত থাকেননি জহির, নতুন জাতীয় রেকর্ড‌ও গড়েন তিনি। ১৯৮৬ সালে সিউলে মিলজার হোসেনের ৪০০ মিটারে (৪৭.৫৫ সেকেন্ড (ই) টাইমিং ভেঙ্গে ৩২ বছর পর নতুন জাতীয় রেকর্ড গড়েন জহির।

পুরুষদের ১৫০০ মিটার দৌড়ে ৪ মিনিট ১.৫০ সেকেন্ড সময় নিয়ে স্বর্ণ জিতেছেন সেনাবাহিনীর আল আমিন, ৪ মিনিট ৪.১০ সেকেন্ড সময় নিয়ে রৌপ্য জেতেন নৌ বাহিনীর রফিকুল ইসলাম রাব্বী। আর ৪ মিনিট ৪.৩০ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন বিজিবি’র খন্দকার কিবরিয়া।

এদিকে মেয়েদের ১৫০০ মিটারে ৫ মিনিট ১১.৯০ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেনা বাহিনীর সুমি আক্তার স্বর্ণ, ৫ মিনিট ১৪.১০ সেকেন্ড সময় নিয়ে সেনা বাহিনীর পাপিয়া খাতুন রৌপ্য ও ৫ মিনিট ১৪.৪০ সেকেন্ড সময় নিয়ে নৌ বাহিনীর রিংকি বিশ্বাস জিতেছেন ব্রোঞ্জ পদক।

পুরুষদের ৫০০০ মিটারে সেনা বাহিনীর আল আমিন ১৫ মিনিট ৪৮.৯০ সেকেন্ড সময় নিয়ে স্বর্ণ, নৌ বাহিনীর আসিফ বিশ্বাস ১৫ মিনিট ৫৬.৮০ সেকেন্ড সময় নিয়ে রৌপ্য ও আনসারের মনিরুল ইসলাম ১৫ মিনিট ৫৮.৯০ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ পদক জিতেন।

দ্বিতীয় দিন শেষে ১০টি স্বর্ণ, ১৩টি রৌপ্য এবং ৫ টি ব্রোঞ্জসহ মোট ২৮টি পদক নিয়ে বাংলাদেশ নৌ বাহিনী তালিকার শীর্ষে অবস্থান করছে। ৯টি স্বর্ণ, ৮টি রৌপ্য এবং ১৩ টি ব্রোঞ্জসহ মোট ৩০টি পদক নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে বাংলাদেশ সেনা বাহিনী এবং ২টি স্বর্ণ, ১টি রৌপ্য এবং ১টি ব্রোঞ্জসহ মোট ৪টি পদক নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে বাংলাদেশ জেল।

স্কুল-কলেজ তায়কোয়ানডো সমাপ্ত

ওয়ালটন জাতীয় স্কুল ও কলেজ তায়কোয়ানডো প্রতিযোগিতায় বালক বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আকিজ স্কুল এন্ড কলেজ এবং বালিকা বিভাগের চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আদমজী কলেজ।

পল্টনের এনএসসি জিমনেশিয়ামে দুইদিনের এই প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদেও পুরস্কৃত করেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ তায়কোয়ানডো ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোর্শেদ হোসেন কামাল ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল ইসলাম রানা।

এবারের প্রতিযোগিতায় দেশের বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের ছেলে-মেয়ে সহ মোট পাঁচশ’জন প্রতিযোগী অংশ নেন।

জাতীয় মহিলা হ্যান্ডবল শুরু

১৪ দল নিয়ে শহীদ এম মনসুর আলী জাতীয় হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে, আজ থেকে শুরু হলো জাতীয় মহিলা হ্যান্ডবল প্রতিযোগিতা। ১৮ জানুয়ারী শেষ হবে নারী হ্যান্ডবলের ২৯ তম জাতীয় আসর।

দুপুরে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল। প্রতিযোগিতার স্পন্সর এক্সিম ব্যাংক। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সভাপতি এ কে এম নুরুল ফজল বুলবুল, সাধারন সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর সহ অন্যান্য কর্মকর্তারা।

বুধবার অনুষ্ঠিত খেলার ফলাফল:

সকাল ০৮:৩০ টায় নওগাঁ জেলা ক্রীড়া সংস্থা ২৭-০৯ গোলে দিনাজপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে পরাজতি করে।
সকাল ০৯:৩০ টায় পঞ্চগড় জেলা ক্রীড়া সংস্থা ১৫-০৮ গোলে ফরিদপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে পরাজতি করে।
সকাল ১০:৩০ টায় ঢাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থা ২০-০১ গোলে নড়াইল জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে পরাজতি করে।
সকাল ১১:৩০ টায় বাংলাদশে পুলশি হ্যান্ডবল ক্লাব ২৩-০৩ গোলে কুষ্টিয়া জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে পরাজতি করে।
দুপুর ৩.০০ টায় বিজেএমসি ৩০-১৭ গোলে জামালপুর জেলা ক্রীড়া সংস্থাকে পরাজতি করে।

ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল সেরা মাসুদা

মাসুদা আক্তারের শ্রেষ্ঠত্বের মধ্যদিয়ে শেষ হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। দিনব্যাপি এই প্রতিযোগিতায় সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয়বর্ষের শিক্ষার্থী মাসুদা আক্তার চ্যাম্পিয়ন এবং ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চতুর্থবর্ষের শিক্ষার্থী রেশমা আক্তার ইতি রানার্সআপ হন। আজ রোববার বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে এই প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিযোগিতা শেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান সকালে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন এবং শেষে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ। এ সময় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. জাকিয়া পারভীন, আবাসিক শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

পাকুন্দিয়া উপজেলা অ্যাথলেটিকস সমাপ্ত

দুটি স্বর্ণ পাচটি রৌপ্য এবং একটি তাম্র সহ ২৬ পয়েন্ট নিয়ে পাকুন্দিয়া উপজেলা অ্যাথলেটিক্সে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাহরাম খান পাড়া উচ্চ বিদ্যালয়। আজ রোববার পাকুন্দিয়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে উপজেলার ১০টি স্কুলের ১১০ জন (অনূর্ধ্ব-১৬) বালক এবং বালিকা অংশ নেয়। দৌড়, লং জাম্প, শটপুট, মোরগ লড়াই, দড়ি লাফ এবং ভারসাম্য দৌড় ইভেন্টে ছোট এবং বড় দুটি বিভাগে অংশ নেয় তারা।

দুই পয়েন্ট কম নিয়ে রানার্সআপ হয় স্বাগতিক পাকুন্দিয়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিটি ইভেন্টের প্রথম, দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান অর্জনকারী খেলোয়াড়দের পুরষ্কার এবং সার্টিফিকেট দেয়া হয়। প্রতিযোগিতা শেষে পাকুন্দিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোকলেছুর রহমান বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পাকুন্দিয়া সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফছর উদ্দিন আহম্মদ ‌ও কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রীড়া অফিসার আল আমিন সবুজ।

বিজয় দিবস ক্রীড়া

বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে ক্রীড়া পরিদপ্তরের আয়োজনে ঢাকা শারীরিক শিক্ষা কলেজ মাঠে প্রমিলা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট এবং সোনালী অতীত ক্লাবের খেলোয়াড়দের নিয়ে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

আজ বুধবার সকালে সরকারি শিশু পরিবার তেজগাঁও প্রমিলা দলের বিপক্ষে মাঠে নামে সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজ ঢাকা দল। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে সরকারি শিশু পরিবার সংগ্রহ করে ১২৭ রান। জবাবে, ৬২ রানে গুটিয়ে যায় সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজের খেলোয়াড়রা।

বিকেলে সোনালী অতীত ক্লাবের খেলোয়াড়দের নিয়ে প্রীতি ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করা হয়। লাল দলের অধিনায়ক ইমতিয়াজ আহম্মেদ নকিব এবং সবুজ দলের অধিনায়ক ছিলেন আলফাজ। লাল দল এবং সবুজ দলের এই ম্যাচ শেষ হয় ১-১ সমতায়। ম্যাচের প্রথমার্ধে আলফাজের গোলে এগিয়ে যায় সবুজ দল। দ্বিতীয়ার্ধে লাল দলের হয়ে ম্যাচের সমতা সূচক গোলটি করেন আপেল।

ম্যাচ শেষে বিজয়ীদের পুরষ্কৃর করেন যুব ও ক্রীড়া সচিব মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আনোয়ারুল ইসলাম সরকার এবং যুগ্ম সচিব ওমর ফারুক, সোনালী অতীত ক্লাবের সভাপতি হাসানুজ্জামান বাবলু এবং সাধারণ সম্পাদক সত্যজিত দাস রুপু, জাতীয় ক্রীড়া পুরষ্কারপ্রাপ্ত খেলোয়াড় কামরুন্নাহার ডানা।

ভারত যাচ্ছে উশু দল

ভারত যাচ্ছে ১৫ খেলোয়াড়সহ ১৮ সদস্যের উশু দল। আগামী ১১ থেকে ১৩ জানুয়ারি ভারতের পাঞ্জাবে অনুষ্ঠিত হবে আন্তর্জাতিক স্পোর্টস কাউন্সিল গেমস। ১২টি দেশ অংশ নেবে এবারের টুর্নামেন্ট। আসরের ১৫টি ইভেন্টে খেলবেন লাল-সবুজের উশু খেলোয়াড়রা। মূলত সান্দা ও থাউলু দু’টি ডিসিপ্লিনেই অনুষ্ঠিত হবে টুর্নামেন্টে।

আগামী ৮ জানুয়ারি ভারতে যাওয়া বাংলাদেশ উশু দলের সদস্যরা হলেন- পুরুষ বিভাগে সেনাবাহিনীর মিলন আহমেদ, রাসেল হোসেন ও রাকিব খন্দকার, বিজিবির সেলিম আহমেদ ও নাজমুল হোসেন, আনসারের ওমর ফারুক, লিটন আলী ও নুরুল আফসার, বিকেএসপির আমির হোসেন এবং মহিলা বিভাগে সেনাবাহিনীর ইতি ইসলাম ও ফাহমিদা তাবাসসুম, আনসারের সাকি আক্তার, রিতা বিশ্বাস পুজা, ইবা ইয়াসমিন দিশা ও শিলা আক্তার। ম্যানেজার হিসেবে ফেডারেশনের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট কামাল হোসেন, দলনেতা ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক দুলাল হোসেন ও কোচ হিসেবে যাচ্ছেন আনোয়ারুল রাসেল।

আসর থেকে সোনা জয়ের প্রত্যাশার ও প্রাপ্তির কথা জানিয়ে দলনেতা দুলাল হোসেন বলেন, চলতি বছর মিনিস্টার কাপ, অ্যাম্বাসেডর কাপ এবং জাতীয় মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণপদক জয়ীদের নিয়ে আমরা একটি শক্তিশালী দল গঠন করেছি। তাই সোনাজয়ের প্রত্যাশা কররতেই পারি। বিশেষ করে সাকি, শিলা, ইতি ইসলাম, আমির হোসেন ও রাকিবের মাধ্যমে আমাদের স্বর্ণজয়ের প্রত্যাশা রয়েছে। তাই নতুন বছরে বিদেশ থেকে স্বর্ণপদক এনে শুভ সূচনা করতে চাই।

২০১০ সালে ঢাকায় সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমসে সোনাজয়ী উশুকা ইতি ইসলাম বলেন, স্বর্ণপদক জয়ের লক্ষ্য নিয়েই আমরা ভারত যাচ্ছি। আশাকরি, দেশের জন্য স্বর্ণ জিতে আনতে পারবো। তাছাড়া গৌহাটি এসএ গেমসে আমরা লক্ষ্য পূরন করতে পারিনি। তাই এই টুর্নামেন্টের মাধ্যমে নেপাল এসএ গেমসে সোনা জয়ের লক্ষ্য স্থির করতে চাই। খেলা শেষে আগামী ১৫ জানুয়ারি দেশে ফিরবে দলটি।

নারী দ্বৈতের সেমিতে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন চ্যালেঞ্জ কাপে নারী দ্বৈতের সেমি ফাইনালে উঠে ব্রোঞ্জ পদক নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের এলিনা সুলতানা এবং শাপলা আক্তার জুটি।

পল্টনের শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ ইনডোর স্টেডিয়ামে, প্রতিযোগিতার কোয়ার্টার ফাইনালে আজ বৃহস্পতিবার এলিনা ও শাপলা জুটি ২১-৮ ও ২১-১৪ পয়েন্টে নেপালের গিরি আমিতা ও তামাং নাংজাল জুটিকে পরাজিত করেন।

তবে নারী দ্বৈতের আরেক কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের শ্রুতি কেপি ও অপর্ণা বালান জুটির কাছে ২১-৬ ও ২১-৩ পয়েন্টে হেরে বিদায় নেন বাংলাদেশের বৃষ্টি খাতুন ও রেহেনা পারভীন জুটি।

এদিকে, মিশ্র দ্বৈতের কোয়ার্টার ফাইনালে ইন্দোনেশিয়ার লিওঁ রলি কার্নান্দো ও ইন্দা সারি জামিলের কাছে ২১-৪ ও ২১-১২ পয়েন্টে পরাজিত হয়ে বিদায় নেন বাংলাদেশের এবাদুল হক চৌধুরী ও আফরিনা ইসলাম মৌলি জুটি।

প্রি-কোয়ার্টারে গৌরব, সালমান ও লাল চাঁন

ইউনেক্স-সানরাইজ বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ব্যাডমিন্টন চ্যালেঞ্জ টুর্নামেন্টে পুরুষ এককের প্রি-কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছেন বাংলাদেশের গৌরব সিংহ, সালমান খান ও লাল চাঁন। আজ বুধবার শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ ইনডোর স্টেডিয়ামে, দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলায় গৌরব সিংহ ২১-১৭ ও ২১-১৩ পয়েন্টে মালদ্বীপের জায়ান শহীদকে, সালমান খান ২১-১০ ও ২১-১০ পয়েন্টে মালদ্বীপের নিবাল আহমেদকে এবং লাল চাঁন ২১-১৪ ও ২১-১৫ পয়েন্টে স্বদেশী আরিফুল ইসলাম তুহিনকে হারিয়ে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চত করেন। তবে বাংলাদেেমর আহসান হাবিব পরশ থাইল্যান্ডের ভিতিদসারমের কাছে, মঙ্গল সিংহ শ্রীলংকার দিনুকা করুনারত্নের কাছে হেরে বিদায় নেন।

মহিলা এককে বাংলাদেশের রেহানা পারভীন মালয়েশিয়ার কারু পাতেভানের কাছে হেরে বিদায় নেন। এদিকে, পুরুষ দ্বৈতে আহসান হাবিব পরশ ও গৌরব সিংহ জুটি নেপালের দিপেশ ধামি ও রত্নজিৎ তামাং জুটির কাছে, মোয়াজ্জেম হোসেন ও রাহাত কবির খালেদ জুটি ভারতের অক্ষয় কদম ও অনিরুদ্ধ মায়েকার জুটির কাছে, তুষার কৃষ্ণ রায় ও আরিফুল ইসলাম জুটি, স্বদেশী হক ও খান জুটির কাছে, নবন্দু রায় ও আকিব সোলায়মান জুটি ভারতের মোহনরাজ ও বেলাবান জুটির কাছে, আবুল খালেক ও লাল চাঁন জুটি স্বদেশী তানভির আহমেদ ও এবাদুল হক জুটির কাছে হেরে যান।

মিশ্র দ্বৈতে বাংলাদেশের শাপলা আক্তার ও রাহাত কবির খালেদ জুটি ২১-১৭ ও ২১-১৯ পয়েন্টে হেরে যান ভারতের ভেঙ্কট গৌরব প্রাসাদ ও জুহি দেওয়ানের কাছে হেরে গেছেন।

তবে মহিলা দ্বৈতে বৃষ্টি খাতুন ও রেহানা পারভীন জুিট ২১-১৭ ও ২১-১৪ পয়েন্টে মরিশাসের জেমিমা লেউং ও গানেশা জুটিকে হারান।

বিজয় দিবস স্কোয়াশ আগামীকাল

আগামীকাল বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে বিজয় দিবস স্কোয়াশ টুর্নামেন্ট। সপ্তাহব্যাপি এই প্রতিযোগিতার পুরুষদের ছ’টি বিভাগে মোট একশ’জন খেলোয়াড় অংশ নেবে। তাছাড়া এবারই প্রথম মেয়েরা কোনো প্রতিযোগিতামূলক টুর্নামেন্টে অংশ নেবে।

বিওএ ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হামিদ সোহেল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার, প্রতিনিধি মেহরাব হোসেন আসিফ ও স্কোয়াশ ফেডারেশনের সদস্য হেদায়েত উল্লাহ তুর্কী।

সিনিয়রদের সম্মাননা বিএসপিএ’র

দেশের ক্রীড়া লেখনিতে ৫০ বছর ধরে কলম চালিয়ে যাওয়া পাঁচজন প্রতিতযশা ও গুণী লেখককে সম্মাননা দিয়েছে বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি-বিএসপিএ। ক্রীড়া সাংবাদিকতার পথিকৃত ও বাংলাদেশের প্রথম পেশাদার ক্রীড়া সাংবাদিক মুহম্মদ কামরুজ্জামান, আব্দুল তৌহিদ, সব্যসাচী লেখক ইকরামউজ্জামান, আজম মাহমুদ ও হান্নান খানকে দেয়া হয় এই সুবর্নজয়ন্তী সম্মাননা।

বিওএ ভবনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে, প্রধান অতিথি বর্ষিয়ান ক্রীড়া লেখক কামাল লোহানী এবং বিএসপি’র সভাপতি মোস্তফা মামুন এইসব গুণী ক্রীড়া লেখকদেও সম্মাননা ক্রেস্ট, ব্লেজার ও বিশেষ কলম উপহার দেন। এ সময় স্মৃতি রোমন্থন করা ছাড়াও বর্তমান প্রজন্মের লেখকদের জন্য শিক্ষনীয় বিষয়গুলি তুলে ধরেন সম্মাননা পাওয়া ক্রীড়া লেখকরা।

ধর্ষকের শাস্তি চেয়ে একাট্ট ক্রীড়াবিদরা

নির্যাতিত ভারোত্তোলককে নিপীড়িনকারী দোষী ব্যক্তিকে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবী করেছেন সাবেক ও বর্তমান ক্রীড়াবিদরা। আজ বুধবার সকালে প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধন করে দোষী ব্যক্তিদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার দাবী জানান সাবেক ও বর্তমান ক্রীড়াবিদরা।

জাতীয় ক্রীড়া পুস্কার পাওয়া সাবেক ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় কামরুন নাহার ডানার আয়োজনে মানববন্ধনে উপস্থিত হয়েছিলেন সাবেক ও বর্তমান বেশ ক’জন ক্রীড়াবিদ। ডানা বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্রীড়া বান্ধব। অথচ উনার সেই প্রিয় ক্রীড়াঙ্গণে আজ নারীরা নির্যাতিত। যারা এই ভারোলকের নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত, তাদের সবাইকে আইনের আওতায় আনা উচিত। সেই সঙ্গে দৃষ্টান্তুমূলক শাস্তি দিতে হবে।’

জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সাবেক ক্রিকেটার রকিবুল হাসান বলেন, ‘নারীরা আজও নিপীড়িত। ক্রীড়াঙ্গন ছিল সবচাইতে নিরাপদ জায়গা। অথচ আজ সেখানেই তারা নির্যাতিত। এটা মেনে নেয়া যায় না। আমি চাই, যারা এর সঙ্গে জড়িত তারা যেন কঠোর শাস্তি পায়। যাতে ভবিষ্যতে আর কেউ এমনটা ঘটানোর সাহস না পায়।’ জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার সাবেক তারকা শাটলার চৌধুরী আবুল হাশেম বলেন, ‘আজ আমরা একট্টা হয়েছি অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে। একজন নারী ভারোত্তোলককে নির্যাতনকারীর শাস্তির দাবীতে। আমাদের এই দাবী মানতে হবে।’

এ সময় জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সাবেক ক্রিকেটার ও সাংবাদিক জালাল আহমেদ চৌধুরী, জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সাবেক তারকা বক্সার আবদুল হালিম, জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সাবেক তারকা ফুটবলার হাসানুজ্জামান খান বাবলু, জাতীয় পুরস্কার পাওয়া সাবেক তারকা ফুটবলার আবদুল গাফফার, ক্রীড়া সংগঠক লোকমান হোসেন ভূঁইয়া, জাতীয় পুরস্কার পাওয়া ক্রীড়া সংগঠক নুরুল আলম চৌধুরী, ক্রীড়া সংগঠক ফজলুর রহমান বাবুল, রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আসিফুল হাসান, সিনিয়র ক্রীড়া সাংবাদিক মোজাম্মেল হক চঞ্চল বক্তব্য রাখেন। এছাড়া মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পুরস্কার পাওয়া ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক গাজী আশরাফ হোসেন লিপু, ক্রীড়া সংগঠক শফিউর রহমান মন্টু, জাতীয় টিটি দলের খেলোয়াড় সালেহা সেতু, ভলিবলের সাবকে খেলোয়াড় জেসমিন পপি, ফারাহ চৌধুরী, হ্যান্ডবলের কামরুল ইসলাম কিরন ও নুসরাত জাহান দিনা, সাবেক নারী ফুটবলার রেহেনা পারভীন, জাতীয় কুস্তিগীর শিরিন সুলতানা ও বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের প্রতিনিধি অ্যাডভোকেট দিপ্তী।

ম্যাক্স-বিএসপিএ বর্ষসেরা সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদ

ম্যাক্স-বিএসপিএ নাইট ২০১৮’র বর্ষসেরা সাংবাদিকের স্বীকৃতি পেয়েছেন কালের কন্ঠের সিনিয়র রিপোর্টার নোমান মোহাম্মদ। আজ ফারস রিসোর্টস অ্যান্ড হোটেলের সিঁদুরপুর হলে আয়োজিত জমকালো পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তার হাতে পুরষ্কার তুলে দেন দক্ষিণ এশিয়ার ফুটবল ফেডারেশন ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি ও সাবেক কৃতি ফুটবলার কাজী মোহাম্মদ সালাউদ্দিন।

বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর। সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুজ্জামান রাজীবের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিএসপিএর সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত আহমেদ আনন্দ।

এবারই পরিসর বেড়েছে ম্যাক্স-বিএসপি অ্যাওয়ার্ডের। যুক্ত হয়েছেন ফটোসাংবাদিক ও অন্য দুই ক্রীড়াসাংবাদিক সংগঠনের সদস্যরাও। পুরষ্কারের মঞ্চেও ছিল তাদের গর্বিত পদচারণা। সেরা সাক্ষাৎকারের জন্য আতাউল হক মল্লিক ট্রফি জিতেছেন কালের কন্ঠ পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি সনৎ বাবলা। রানার আপ একই প্রতিষ্ঠানের নোমান মোহাম্মদ ও মাসুদ পারভেজ। বর্ষসেরা এক্সক্লুসিভ রিপোর্টের জন্য বদি-উজ-জামান ট্রফি পেয়েছেন এটিএন নিউজের শেখ আশিক। রানার আপ হয়েছেন নোমান মোহাম্মদ ও চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের রিয়াসাদ আজিম। সেরা সিরিজ রিপোর্টের জন্য আব্দুল হামিদ ট্রফি জিতেছেন নোমান মোহাম্মদ, রানার্স আপ শামীম চৌধুরী (এশিয়ানমেইল২৪ ডটকম) ও মাসুদ আলম (প্রথম আলো)। সেরা ফিচার রিপোর্ট/ডকুমেন্টারির জন্য রণজিৎ বিশ্বাস ট্রফি জিতেছেন ক্রিকইনফোর বাংলাদেশ প্রতিনিধি মোহাম্মদ ইসাম। রানার্স আপ রানা আব্বাস, শাহজাহান কবীর ও সনৎ বাবলা। সেরা আলোকচিত্রের জন্য বদরুল হুদা ট্রফি জিতেছেন নিউ এজ পত্রিকার সৌরভ লষ্কর। রানার আপ মীর ফরিদ ও প্রথম আলোর শামসুল হক টেংকু। বিশেষ স্বীকৃতি পেয়েছেন রাহেনুর ইসলাম, ফয়সাল তিতুমীর, রাশেদুল ইসলাম, আরিফুল ইসলাম রনি ও রফিকুল হায়দার ফরহাদ।

ম্যাক্স-বিএসপিএ নাইটের পুরস্কার

বদরুল হুদা চৌধুরি ট্রফি (সেরা ফটোগ্রাফ)- সৌরভ লস্কর।
রণজিৎ বিশ্বাস ট্রফি (সেরা ফিচার/ডকুমেন্টারি)- মোহাম্মদ ইসাম।
আব্দুল হামিদ ট্রফি (সেরা সিরিজ রিপোর্ট)- নোমান মোহাম্মদ।
বদি-উজ-জামান ট্রফি (সেরা এক্সক্লুসিভ রিপোর্ট)- শেখ আশিক।
আতাউল হক মল্লিক ট্রফি (সেরা সাক্ষাৎকার)- সনৎ বাবলা।
বর্ষসেরা ক্রীড়াসাংবাদিক- নোমান মোহাম্মদ।

মাসুদ রানার বিশ্ব রেকর্ড

বল মাথায় নিয়ে দ্রুততম সময়ে সাঁতার কেটে ৫০ মিটার অতিক্রম করে বাংলাদেশের মাসুদ রানা নতুন ‘গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড’ গড়েন। গত ২ আগস্ট মিরপুরের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সুইমিং কমপ্লেক্সে তিনি বল মাথায় নিয়ে ৪৪.৯৫ সেকেন্ড সময় নিয়ে এই রেকর্ড গড়েন। আর গত ৯ নভেম্বর গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ মাসুদ রানার এই রেকর্ডের স্বীকৃতি দেয়।

এই উপলক্ষে বিওএ ভবনে, আজ দুপুরে তাকে সংবর্ধনা দেয় স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন। এ সময় মাসুদ রানাকে প্রতিশ্র“ত এক লাখ টাক ও ব্লেজার উপহার দেওয়া হয়। সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটনে সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার, বিওএ’র উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু এবং মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলার চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা মীর মোতাহার হাসান।

মার্সেল-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভাল সমাপ্ত

মার্সেল-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভালে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতলেন কবিরুল ইসলাম। প্রথম রানার্সআপ হন আরিফ সোহেল আর দ্বিতীয় রানার্সআপ শামীম হাসান। কার্নিভালের সাতার ও ব্যাডমিন্টন ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন, ক্যারম এককে রানারআপ ও ডাবলসে তৃতীয় হয়ে, ‘স্পোর্টস ম্যান অব দ্যা ইয়ার-২০১৮’ পুরস্কার‌ও জিতে নেন কবির।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম কমপ্লেক্সের বিভিন্ন ভেন্যুতে সাতদিনের এই কার্নিভালে, ৮টি ডিসিপ্লিনের ১১টি ইভেন্টে অংশ নেন বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতি- বিএসপিএ’র শতাধিক সদস্য। দুপুরে শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল-বিন আনোয়ার। এ সময় বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুন, সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত আহমেদ আনন্দ ‌ও বিএসপিএ’র সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ক্যারম দ্বৈতে মিথুন-শান্ত চ্যাম্পিয়ন

স্পোর্টস রিপোর্টার

বিএসপিএ-মার্সেল স্পোর্টস কার্নিভালের ক্যারম দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন জনকন্ঠের মিথুন আশরাফ ও প্রিয় ডটকম’র শান্ত মাহমুদ জুঁটি। ২-১ সেটে তারা ফ্রি ল্যান্স আরিফ সোহলে ও বিডি নিউজের রুবেল যুবায়ের জুঁটিকে পরাস্ত করেন।

আজ বুধবার বিএসপি অফিস রুমে বিকেলে শিরোপা নির্ধারনী ম্যাচটি শুরু হয়। প্রথম সেটে জয় পান আরিফ সোহলে-রুবেল যুবায়ের জুঁটি। কিন্তু পরের দুই সেটে জয় তুলে নিয়ে প্রথমবারের মতো এ ইভেন্টে চ্যাম্পিয়ন হন মিথুন-শান্ত জুঁটি। একই ইভেন্টে তৃতীয় হয়েছেন সনৎ বাবালা-কবিরুল ইসলাম জুঁটি। তারা স্থান নির্ধারনী ম্যাচে ওয়াক ওভার পেয়েছেন রফিকুল ইসলাম-মাসুদ আলম জুঁটির বিরুদ্ধে। এরমধ্যে দিয়েই শেষ হলো এবারের স্পোর্টস কার্নিভাল।

উল্লেখ্য, এবারের স্পোর্টস কার্নিভালে আটটি ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। ইভেন্টগুলো হলো ক্যারম, শ্যুটিং, সাঁতার, আরচ্যারী, গোলক নিক্ষেপ, দাবা, টেবিল টেনিস ও ব্যাডমিন্টন।

সাঁতারে প্রথম কবির

বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশনের (বিএসপিএ) আয়োজনে আজ শুক্রবার থেকে শুরু হয়েছে আন্তঃ বিএসপিএ ক্রীড়া উৎসব ‘মার্সেল-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভাল’।

সকালে আইভি রহমান সুইমিং কমপ্লেক্সে স্পোর্টস কার্নিভালের সাঁতারে প্রথম হন কবিরুল ইসলাম। রানারআপ আনোয়ার উল্লাহ ও তৃতীয় হন শামীম হাসান।

সকালে বিএসপিএ কার্যালয়ে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের (এনএসসি) সচিব মাসুদ করিম স্পোর্টস কার্নিভালের উদ্বোধন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক ওয়ালটনের হেড অব স্পোর্টস ও অপারেটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার ডন, বিএসপিএ’র সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত আহম্মেদ আনন্দ, সাবেক সভাপতি রানা হাসান, সিনিয়র সদস্য কামরুন নাহার ডানা, স্পোর্টস কমিটির চেয়ারম্যান কাজী শহিদুল আলম, সদস্য সচিব মুজিবুর রহমান, বিএসপিএ’র যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মিথুন আশরাফ, সাংগঠনিক সম্পাদক কবিরুল ইসলাম, নির্বাহী সদস্য সাহাব উদ্দিন সাহাব, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আরিফ সোহেলসহ অন্যান্যরা।

মার্সেল-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভাল

ওয়ালটন গ্রুপের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড মার্সেল এর পৃষ্ঠপোষকতায় ও বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতির আয়োজনে শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ‘মার্সেল-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভাল’। এই ক্রীড়া উৎসব চলবে ৮ নভেম্বর পর্যন্ত।

আজ বৃহস্পতিবার স্পোর্টস কার্নিভাল সম্পর্কে বিস্তারিত জানানোর জন্য হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর (গেমস অ্যান্ড স্পোর্টস) এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন), বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতির সহ-সভাপতি পরাগ আরমান, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান কাজী শহিদুল আলম ‌ও সদস্য সচিব মজিবর রহমান।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় এবারের এই কার্নিভালে ৮টি ডিসিপ্লিনে ১১টি ইভেন্টের খেলা অনুষ্ঠিত হবে। ডিসিপ্লিনের খেলাগুলো অনুষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম কমপ্লেক্স, বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম সংলগ্ন সুইমিংপুল ও শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ উডেন ফ্লোর জিমনেসিয়ামে। ডিসিপ্লিনগুলো হল- ক্যারম (একক ও দ্বৈত), টেবিল টেনিস (একক ও দ্বৈত), ব্যাডমিন্টন (একক ও দ্বৈত), দাবা, সাঁতার, গোলক নিক্ষেপ, শ্যুটিং ও আর্চারি।

আগামীকাল শুক্রবার প্রতিযোগিতার উদ্বোধন হলেও ইতিমধ্যে কয়েকটি ইভেন্টের খেলা শুরু হয়েছে। তার মধ্যে ক্যারম প্রতিযোগিতা রয়েছে। আগামীকাল শুক্রবার সকাল ১১টায় হবে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন। তার আগে হবে সাঁতার প্রতিযোগিতা। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ৩ ও ৪ নভেম্বর হবে গোলক নিক্ষেপ, শ্যুটিং ও আর্চারি প্রতিযোগিতা। ৫ নভেম্বর তাজউদ্দিন আহমেদ উডেন ফ্লোরে হবে ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতা। ৬ নভেম্বর একই স্থানে হবে টেবিল টেনিস প্রতিযোগিতা। ৮ নভেম্বর হবে প্রতিযোগিতার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী।

প্রতিবারের মতো এবারও ৮টি ডিসিপ্লিনের ১১টি ইভেন্টের রেটিং পয়েন্টের ভিত্তিতে ‘বিএসপিএ স্পোর্টসম্যান অব দ্য ইয়ার-২০১৮’ মনোনীত করা হবে এবং পুরস্কৃত করা হবে। এ ছাড়া প্রত্যেক ডিসিপ্লিনের বিজয়ীদের জন্য থাকছে আকর্ষণীয় পুরস্কার।

মিমুর বিদায় সংবর্ধনা

বিকেএসপির উপ-পরিচালক (প্রশিক্ষণ) ও জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রাপ্ত এ্যাথলেট শামীমা সাত্তার মিমু’র অবসরজনিত বিদায় সংবর্ধনা আজ সাভার বিকেএসপিতে অনুষ্ঠিত হয়।

মিমু ২০০২ সালে আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র দিনাজপুরে উপ-পরিচালক (প্রশিক্ষণ) হিসেবে যোগদান করেন এবং ২০১১ সাল থেকে ঢাকা বিকেএসপিতে একই পদে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৭৩-১৯৮২ সাল পর্যন্ত তার খেলোয়াড়ি জীবনে ২২টি স্বর্ণ, ১৩টি রৌপ্য ও ০৭টি ব্রোঞ্জ পদক জয়ের কৃতিত্ব দেখান। মিমু তার বিদায়ী বক্তব্যে বিকেএসপিতে তাঁর সময়কালে সাবেক মহাপরিচালকদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন এবং কর্মক্ষেত্রে সহযোগিতা করার জন্য সকলকে ধন্যবাদ জানান।

শামীমা সাত্তার মিমু দেশের নারী খেলোয়াড়দের জীবন্ত কিংবদন্তী। তিনি একাধারে একজন সফল ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক, জাজ ও প্রশাসক। তিনি দেশ-বিদেশে উচ্চতর প্রশিক্ষণ ছাড়াও বিভিন্ন কোর্স ও কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আনিছুর রহমান। অনুষ্ঠানে মহাপরিচালক বলেন, ক্রীড়াঙ্গণের সফল এ ক্রীড়াবিদের কাজের প্রতি আন্তরিকতা, নিষ্ঠা, পরিশ্রম ও দায়িত্ববোধের কথা বিকেএসপি কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরন রাখবে। তিনি তার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ূ কামনা করেন। অনুষ্ঠানে বিকেএসপির সকল স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।

ক্রীড়া কমপ্লেক্সে ভাড়ায় চলে অনুশীলন

কবিরুল ইসলাম, সিলেট থেকে

পুরুষ অ্যাথলেটদের জন্য নির্মিত দেশের একমাত্র ক্রীড়া কমপ্লেক্সটি রয়েছে পূণ্যভূমি সিলেটে। অন্য চারটি ক্রীড়া কমপ্লেক্স থেকে এটি সবচেয়ে আধুনিক ও সৃমদ্ধ। এখানে রয়েছে অত্যাধুনিক সুইমিংপুল, ফুটবল ও ক্রিকেট মাঠ, জিমনেশিয়াম এবং ব্যাডমিন্টন, কাবাডি ‌ও লন টেনিসের আলাদা আলাদা কোর্ট। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের আবাসনের জন্য রয়েছে আবাসিক হোস্টেল। প্রায় সাড়ে ছয় একর জমির উপর ২০১৪ সালে নির্মিত এ ক্রীড়া কমপ্লেক্সটির মূল লক্ষ্যই ছিল ক্রীড়াঙ্গনের উর্বরভূমি সিলেট থেকে আর‌ও খেলোয়াড় তৈরি করা। সে জন্যই জেলা ক্রীড়া সংস্থার নিয়ন্ত্রনে দিয়ে দেয়া হয়েছিল প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু ২৬ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত আধুনিক সুবিধা সম্বলিত অ্যাথলেট তৈরির কারখানাটি এখন ভাড়ায় পরিচালিত হচ্ছে!

স্থাণীয় বিভিন্ন সংগঠনের কাছে মাসিক ও বাৎসরিক চুক্তিতে ভাড়া দেয়া হচ্ছে ইনডোর স্টেডিয়াম থেকে শুরু করে সুইমিংপুল ও আউটডোর মাঠটি। ফলে পেশাদার খেলোয়াড়দের চেয়ে সৌখিন খেলোয়াড়দেরই প্রাধান্য এখানে বেশী। অন্যদিকে, অর্থাভাবে অনুশীলন থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সিলেটের পেশাদার ক্রীড়াবিদরা। তাই ক্রীড়া কমপ্লেক্স নির্মানের মূল উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে।

শুক্রবার সকাল ১০টায় উপশহরের মাছিমপুরস্থ আবুল মাল আব্দুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্সে প্রবেশ করেই দেখা যায় মূল মাঠে কয়েকশ' মানুষ ব্যস্ত ক্রিকেট ও ফুটবল খেলায়। তবে এরা কেউ প্রফেশনাল খেলোয়াড় নন। সবাই স্থাণীয় অধিবাসী। কিশোর-যুবক থেকে শুরু করে শিশুরা পর্যন্ত খেলায় ব্যস্ত যে যার মতো। খেলার এ মাঠটি বছর চুক্তিতে ভাড়া দেয়া হয়েছে সিলেটের এম কে গ্যালাকটিকো স্পোর্টস একাডেমিকে। বিনিময়ে প্রতি মাসে জেলা ক্রীড়া সংস্থা পাচ্ছে চল্লিশ হাজার টাকা। এই একাডেমিতে কোন প্রফেশনাল ফুটবলার কিংবা ক্রিকেটার প্রশিক্ষন নিচ্ছেন না। স্থাণীয় সৌখিন মানুষগুলো নিজেদের ফিটনেস ঠিক রাখার জন্যই নিয়মিত অনুশীলন করছেন গ্যালাকটিকোতে ভর্তি হয়ে।

আউটডোর মাঠের পশ্চিম পাশেই অবস্থিত সুইমিংপুল। সিঁড়ি বেয়ে দোতলায় উঠতেই দেখা গেলো আধুনিক সুবিধা সম্বলিত বিশালাকৃতির সুইমিংপুল। প্রায় ২০জনের মতো কিশোর-যুবক সাঁতার কাটছেন। এদের কেউ জেলা কিংবা জাতীয় পর্যায়ে সাঁতারে অংশগ্রহনের উদ্দেশ্যে নন, বরং শখের বসেই সাঁতার কাটছেন। সিলেট সুইমিং ক্লাব নামের একটি অপেশাদার ক্লাবকে মাসে ৩৫ হাজার টাকার বিনিময়ে ভাড়া দেয়া হয়েছে পাঁচ বছরের চুক্তিতে। আর প্রতিষ্ঠানটিও সুযোগ বুঝে এখানে আসা মানুষদের পকেট কাটতে ব্যস্ত। পুলে নেমে এক ঘন্টার জন্য দুইশত টাকা গুনতে হচ্ছে স্থানীয়দের। আছে মাসিক ও বছর চুক্তির সাঁতারুও।

সিলেট সুইমিং ক্লাবের তত্বাবধায়ক মোস্তাক আহমেদ জানান, 'এখানে কয়েকটি ক্যাটাগড়িতে মেম্বারশীপ প্রদান করা হয়ে থাকে। তিন মাসের জন্য পাঁচ হাজার, ৬ মাসের জন্য নাম লেখালে সাত হাজার, এক বছরের ফি বাবদ দশ হাজার এবং পাঁচ বছরের জন্য প্রতি মেম্বারের কাছ থেকে পঁচিশ হাজার টাকা নিয়ে থাকি আমরা। প্রায় একশত পার্মানেন্ট মেম্বার আছেন আমাদের।'

ক্রীড়া কমপ্লেক্সের দক্ষিণ পাশে অবস্থিত জিমনেশিয়ামের ভেতরে রয়েছে তিনটি ব্যাডমিন্টন কোর্ট। সেখানে অনুশীলনে ব্যস্ত শাটলাররা। স্থানীয় একটি ব্যাডমিন্টন একাডেমির ছাত্র তারা। অনুশীলন করছেন টাকার বিনিময়ে। প্রতিদিন চারটি ব্যাডমিন্টন একাডেমির ছাত্র-ছাত্রীরা এখানে প্রশিক্ষন নেন। একাডেমিগুলো হচ্ছে চৌকশ ব্যাডমিন্টন একাডেমি, রোটস ব্যাডমিন্টন একাডেমি, দুলাল ব্যাডমিন্টন একাডেমি ও ব্যাডমিন্টন হাউজ। রাতের বেলায় শহরের উঁচু শ্রেনীর মানুষরা ফ্লাড লাইটের আলোয় ব্যাডমিন্টন খেলে থাকেন। প্রতিটি একাডেমিকেই প্রশিক্ষনের জন্য দিতে হচ্ছে ভাড়া। আর উশুর খেলোয়াড়রা অনুশীলনের জন্য জিমনেশিয়ামের ভেতরে নয়, বরং জায়গা পেয়েছেন বাইরে ঘাসের উপর। মাস শেষে ভাড়া গুনতে না পারার কারনেই উশু জিমনেশিয়ামের বাইরে!

খেলোয়াড়র তৈরির প্রতিষ্ঠানটি কেনো ভাড়া দেয়া হচ্ছে- এমন প্রশ্নের জবাবে ক্রীড়া কমপ্লেক্সের দায়িত্বে থাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহম্মেদ সেলিম বলেন, ‘সুইমিংপুল থেকে শুরু করে জিমনেশিয়াম রক্ষনাবেক্ষনের জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। আমাদের এতো ফান্ড নেই। আর সিলেটে পেশাদার সাঁতারুদের অভাব রয়েছে। একটি সুইমিংপুল তাই বিভিন্ন একাডেমির কাছে আমরা ভাড়া দিয়ে রেখেছি। ’

উশুতে চলছে দলাদলি

নানা ইস্যুতে আবারো উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে মার্শল আর্টের অন্যতম ইভেন্ট উশু অ্যাসোসিয়েশেন। ২০১০ সালে দেশের মাটিতে উশুতে দুটি স্বর্ণ সহ বেশকযেকটি পদক এলেও এরপর আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তেমন সাফল্য নেই। খেলার উন্নতির চেয়ে কর্মকর্তারা ব্যস্ত দলাদলিতে। খেলা নিয়ে ভাবার সময় যেন কারো মধ্যে নেই। এবার ডুয়ান কোর্স পরিচালিনা নিয়ে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক শাহ আলমগীর ভুইয়ার বিপক্ষে অভিযোগে করেছেন অংশগ্রহনকারীরা।

গত ৩০ আগষ্ট থেকে ৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ডুয়ান কোর্সে অংশ নেয়ার বিজ্ঞপ্তি দেয় উশু অ্যাসোসিয়েশনে। তবে শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে কোর্সটি শেষ করা হয় মাত্র দু’দিনেই। যদিও এর জন্য ৮২ জনের কাছ থেকে দু’হাজার টাকা করে নেন কর্মকর্তারা। চীনের দু’কোচ দিয়ে কোর্সের অনুশীলন করানোর কথা বললেও শেষ পর্যন্ত সাধারণ সম্পাদক নিজেই কোর্স পরিচালনা করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। কোর্সে অংশ নেয়া বিকেএসপির উশু কোচ সালমান এল রহমান জানান, ‘এবারের ডুয়ান কোর্সে অনেক কিছুই ঘটেছে। প্রথমে আমাদের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, চীনের কোচ দিয়ে ডুয়ান ট্রেনিং কোর্স করানো হবে। যেখানে নয়টি ডুয়ান কোর্স থাকে। বাংলাদেশে এর আগে কখনো এই কোর্স হয়নি। চীনের থাউলু কোচ চেন জিয়াং এবং সান্দা কোচ মাউ নুংসুয়ানের মাধ্যমে কোর্স করানোর কথা বলা হয়েছিল। এই দু’জনেই ফাইট ও সান্দায় অভিজ্ঞ। সেজন্য প্রথমে ২০০০ টাকা করে নিয়েছে অ্যাসোসিয়েশন। পরবর্তীতে আবার বেল্টের জন্য টাকা চেয়েছিল। প্রথম ডুয়ান থেকে শুরু করে অষ্টম ডুয়ান পর্যন্ত যথাক্রমে ১০০ থেকে ৮০০ টাকা পর্যন্ত অর্থ দিতে করতে বলা হয়। কোর্সের জন্য থাকা খাওয়া অ্যাসোসিয়েশন দেবে বলেছিল। কিন্তু থাকার ব্যবস্থা করলেও নিজেদের খরচাতেই খেতে হয়েছে।’

তিনি আরো অভিযোগ করেন, ছাত্রদেরকে সার্টিফিকেট দেয়া হবে না, তা আগেই বলা হয়েছিল। তাই অধিকাংশ কোচেরা আবেদন করেন। অথচ জুনিয়র অনেকের কাছ থেকেই বেল্ট ও সার্টিফিকেটের জন্য ১০০ থেকে ৮০০ টাকা নিয়েছেন তারা। সবচেয়ে বড় কথা হলো থাউলু ও আর্টে বিশেষজ্ঞ বর্তমান সাধারণ সম্পাদক। কিন্তু সান্দাতে তিনি কখনো খেলেননি। উনার কোনো সার্টিফিকেটও নেই। আন্তর্জাতিকভাবে তিনি আর্টে পাশও করেননি। অথচ চীনের কোচদের বসিয়ে রেখে তিনি কিভাবে সান্দার পরীক্ষা নেন তা বোধগম্য নয়। উপরন্তু চীনের কোচদের দিয়ে সার্টিফিকেটে সই করিয়ে নিয়েছেন। পরে নিজেদের মতো করে গ্রেড দিয়েছে পছন্দের প্রশিক্ষণার্থীদের। বিকেএসপির এ কোচ বলেন, বাংলাদেশের চীনা দূতাবাস ১২ লাখ টাকা দিয়েছে খেলা পরিচালনা করতে এবং ডুয়ান কোর্সের সার্টিফিকেট দেয়ার জন্য। তাহলে কেন আমাদের কাছ থেকে এত টাকা নেয়া হল। কেনইবা চারদিনের জায়গায় দু’দিন কোর্স করানো হলো তা বুঝতে পারছি না। তাছাড়া কেনইবা অনুশীলন করাতে আসা চীনের কোচদের সই করে আমাদের সার্টিফিকেট দেয়া হল তাও বুঝিনা। ডুয়ান কোর্সের নামে এটা প্রহসন ছাড়া আর কিছুই হয়নি।

উশুর খেলোযাড় ও কমৃকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে, ডুয়ান কোর্সের নামে প্রহসন করায় ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে। ফলে বিষয়টি নিয়ে খুব শিগগিরই এক সভায় বসবেন উশু অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ড. আবদুস সোবহান গোলাপ। এছাড়া শিক্ষার্থীদের কাছে সাবেক সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিষোদাগারেও জড়িয়ে পড়েছেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক। বিষয়টি নিয়ে উশু অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ড. আবদুস সোবহান গোলাপের কাছে চার পৃষ্ঠার একটি অভিযোগপত্রও দিয়েছেন সাবেক সাধারণ সম্পাদক দিলদার হাসান দিলু।

অভিযোগের ব্যাপারে মোবাইল ফোনে শাহ আলমগীর ভূঁইয়া বলেন, ‘তাদের সব কথা সত্যি নয়। কোর্স ফি নেয়া হয়েছে। ডুয়ানের সার্টিফিকেটের জন্যও অর্থ নেয়া হয়েছে। তবে তাদের খাওয়া দেয়ার কথা বলা হয়নি। তাছাড়া মাঝে-মধ্যে চীনের কোচরাও কোর্স করিয়েছেন। এছাড়া যারা সার্টিফিকেট নিতে চায়নি তারা নেয়নি। এখানে আমাদের কিছু করার নেই।’

সাউথ এশিয়ান ভভিনামে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন

সাউথ এশিয়ান ভভিনাম চ্যাম্পিয়নশিপে সেরা হয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশ। আজ শনিবার মিরপুর শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে শেষ হওয়া টুর্নামেন্টে ১৮টি স্বর্ণ, ১৬টি রৌপ্য ও ৬টি ব্রোঞ্জ জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। অপরদিকে ৯টি স্বর্ণ, ৭টি রৌপ্য ও ৩টি ব্রোঞ্জ জিতে রানার্সআপ হয় ভারত। প্রতিযোগিতায় নেপাল একটি ব্রোঞ্জ পদক জেতে।

খেলা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন হযরত খাজা মইনুদ্দিন চিশতী (র.) উর্দু, ফার্সী, আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর মাহরুখ মির্জা। এ সময় বিশ্ব ভভিনাম ফেডারেশনের সহ-সভাপতি বিষ্ণু সাহাই উপস্থিত ছিলেন।

কিউট প্রিমিয়ার হ্যান্ডবল শুরু

কিউট প্রিমিয়ার হ্যান্ডবল লিগের উদ্বোধনী দিনে জয় পেয়েছে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন, প্রাইম স্পোর্টিং এবং মেরিনার স্পোর্টিং ক্লাব।

পল্টনের হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে, প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন মৌসুমী ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান কাজী রাজিব উদ্দিন আহম্মেদ চপল ও ফেডারেশনের সহ-সভাপতি হাসান উল্লাহ খান রানা।

প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ উদ্বোধনী ম্যাচে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন ৩৪-৩৩ গোলে নারিন্দা প্রগতি বয়েজ ক্লাবকে পরাজিত করে। খেলার প্রথমার্ধে বিজয়ী দল, ২০-১৫ গোলে পিছিযে ছিল। প্রাইম স্পোর্টিং ক্লাব ৩৪-১৫ গোলে ওল্ড আইডিয়ালসকে এবং ঢাকা মেরিনার ইয়াংস ক্লাব ৫০-১২ গোলে ভিক্টোরিয়াকে পরাজিত করে।

চার বছর পর প্রিমিয়ার হ্যান্ডবল লিগ

দশটি ক্লাব দল নিয়ে আগামী শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে ‘কিউট প্রিমিয়ার হ্যান্ডবল লিগ’। চার বছর পর আবারও শুরু হচ্ছে হ্যান্ডবলের প্রিমিয়ার লিগের খেলা। এ উপলক্ষে অলিম্পিক ভবনের ডাচ-বাংলা ব্যাংক অডিটরিয়ামে, এক সংবাদ সম্মেলন জানানো হয়, ২০১৪ সালে শেষবার আয়োজন করা হয়েছিল প্রিমিয়ার লিগ। সেবার অংশ নিয়েছিল ৯টি দল। আর এবার অংশ নেবে ১০টি দল।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক আসাদুজ্জামান কোহিনুর, পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান মৌসূমী ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারম্যান কাজী রাজিব উদ্দিন আহম্মেদ চপল, লিগ কমিটির চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগরের উপ-পুলিশ কমিশনার এ বি এম মাসুদ হোসেন, ভাইস-চেয়ারম্যান ও মতিঝিল থানার এডিসি শিবলী নোমান এবং টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন।

জাতীয় মহিলা উশু শুরু

দেশব্যাপি নারী খেলোয়াড় তৈরি এবং তাদেরকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে আজ থেকে শুরু হয়েছে ‘ওয়ালটন জাতীয় মহিলা উশু চ্যাম্পিয়নশিপ’।

তিনদিনের এই প্রতিযোগিতায় দেশের ১৫টি জেলা ও ক্লাবের খেলোয়াড়রা ৪০টি পদকের জন্য লড়াই করবেন। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেশিয়ামে সকালে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)।

এ সময় উশু অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহ ভূঁইয়া, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান শামীম খান টিটো ও সদস্য সচিব রেহানা পারভীন উপস্থিত ছিলেন। প্রতিযোগিতার মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলা।

মেয়েদের গ্রামীন খেলার প্রতিযোগিতা সমাপ্ত

গ্রাম বাংলার বিলুপ্ত প্রায় গ্রামীন খেলাধুলাকে বর্তমান প্রজন্মের নিকট তুলে ধরবার লক্ষ্যে ঢাকা বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া সংস্থা দুইদিন ব্যাপী মেয়েদের গ্রামীন খেলার প্রতিযোগিতা আয়োজন করে।

প্রতিযোগিতায় ঢাকা বিভাগের ১০ টি জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থা গোল্লাছুট, দড়িলাফ, হা-ডু-ডু এবং বৌ-চি খেলায় অংশ নেয়। আজ শনিবার শেষ দিনে দড়িলাফ খেলায় প্রথম হন কিশোরগঞ্জ জেলার রিয়া আক্তার, দ্বিতীয় হন নারায়ণগঞ্জ জেলার আশা এবং তৃতীয় হন মাদারীপুর জেলার মিথিলা। হা-ডু-ডু খেলায় ফরিদপুর জেলা ১৪-০৭ পয়েন্টে গোপালগঞ্জ জেলাকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়। বৌ-চি খেলায় কিশোরগঞ্জ জেলা ৪০-১১ পয়েন্টে ফরিদপুর জেলা কে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়।

প্রতিযোগিতা শেষে বাংলাদেশ কান্ট্রি গেমস এসোসিয়েশনের সভাপতি শাইখ সিরাজ বিজয়ী ও বিজিত খেলোয়াড়দের পুরস্কৃত করেন। এ সময় ঢাকা বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী নাজমুন নাহার বজলুল, সাধারণ সম্পাদিকা কামরুন নাহার হীরু উপস্থিত ছিলেন।

মিস্টার ঢাকা বডিবিল্ডিং

আগামী ২ মার্চ থেকে শুরু হবে তিনদিন ব্যাপি সেলিম আল-মাহমুদ প্রেজেন্টস ওয়ালটন বিএবিবিএফ মিস্টার ঢাকা উন্মুক্ত বডিবিল্ডিং চ্যাম্পিয়নশিপ। প্রতিযোগিতা সিনিয়র বিভাগে ৭টি ওজন শ্রেণিতে এবং মাস্টার বিভাগে একটি উন্মুক্ত শ্রেণিতে অনুষ্ঠিত হবে।

এ উপলক্ষে মোহাম্মদ আলী বক্সিং স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা আশা করেন, এবার সারা দেশের ১০০ টি ক্লাবের ২৫০ জনের বেশি প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করবে। সংবাদ সম্মেলনে ওয়ালটন গ্রুপের স্পোর্টস এন্ড ওয়েলফেযার ডিপার্টমেন্টর হেড ইকবাল বিন আনোয়ার, সাউথ পয়েন্ট ফিটনেস জোনের ব্যবস্থাপক নূরুল ইসলাম খান নাঈম, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় পুরুষ বক্সিংয়ে সেনাবাহিনী চ্যাম্পিয়ন

২৯ তম জাতীয় পুরুষ বক্সিং প্রতিযোগিতায় ৬ টি স্বর্ণ ও ১ টি ব্রোঞ্জ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। আর চতুর্থ নারী বক্সিং প্রতিযোগিতায় ৩টি স্বর্ন জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার।

পল্টনে মোহাম্মদ আলী বক্সিং স্টেডিয়ামে তিনদিন ব্যাপী এ প্রতিযোগীতার শেষ দিনে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন ফেডারেশনের সভাপতি লেফটেন্যান্ট জেনারেল আজিজ আহম্মেদ।

প্রতিযোগীতায় পুরুষ বিভাগে ২ টি স্বর্ণ, ২ টি রৌপ্য আর ২ টি ব্রোঞ্জ নিয়ে রানার আপ হয় বাংলাদেশ আনসার। এসময় উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের অপারেটিভ ডিরেক্টর এফ এম ইকবাল বিন আনোয়ার সহ ফেডারেশনের কর্মকর্তারা। প্রতিযোগিতার মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলা সমাপনী দিনের খেলা সরাসরি সম্প্রচার করে।

জাতীয় বক্সিংয়ের ফাইনাল কাল

ওয়ালটন ২৯তম জাতীয় সিনিয়র পুরুষ ও ৪র্থ জাতীয় সিনিয়র মহিলা বক্সিং প্রতিযোগিতার ফাইনালে উঠেছে ২৬ জন পুরুষ ও মহিলা বক্সার। তিনদিনের এই প্রতিযোগিতা আগামীকাল শনিবার ফাইনাল ও পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হবে।

আজ শুক্রবার প্রতিযোগিতার কোয়ার্টার ফাইনাল ও সেমিফাইনালের ৩৫টি বাউট থেকে ১৩টি ওজন শ্রেণির মোট ২৬ জন বক্সার ফাইনালে ‌ওঠেন। এবারের এই প্রতিযোগিতায় দেশের ১১০টি দল অংশ নিয়েছে। যেখানে পুরুষ বক্সারের সংখ্যা ১১৭ জন। আর মহিলা বক্সার ৫০ জন। আর সার্ভিসেস দলগুলোর পুরুষ ও মহিলা বক্সারের সংখ্যা ৫৩ জন।

সিনিয়র পুরুষ বিভাগের প্রতিযোগিতা ৯টি ওজন শ্রেণিতে এবং সিনিয়র মহিলা বিভাগের প্রতিযোগিতা ৪টি ওজন শ্রেণিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। প্রতিটি ওজন শ্রেণির পদকজয়ীদের মেডেল, সার্টিফিকেট ও ওয়ালটন গ্রুপের পক্ষ থেকে হোম অ্যাপ্লায়েন্স দিয়ে উৎসাহিত করা হবে।

জাতীয় বক্সিং শুরু বৃহস্পতিবার

ওয়ালটন ২৯তম জাতীয় সিনিয়র পুরুষ ও চতুর্থ জাতীয় সিনিয়র মহিলা বক্সিং প্রতিযোগিতা আগামী বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে। পল্টনের মোহাম্মদ আলী বক্সিং স্টেডিয়ামে তিনদিনের এই প্রতিযোগিতা শনিবার চূড়ান্ত রাউন্ড ও পুরস্কার বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হবে।

এ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার মোহাম্মদ আলী বক্সিং স্টেডিয়ামের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে প্রতিযোগিতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন বাংলাদেশ অ্যামেচার বক্সিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এমএ কুদ্দুস খান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর (গেমস এন্ড স্পোর্টস) এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয় এবারের প্রতিযোগিতায় দেশের ১১০টি দল অংশ নিবে। যেখানে পুরুষ বক্সারের সংখ্যা ১১৭। আর মহিলা বক্সার ৫০ জন। আর সার্ভিসেস দলগুলোর পুরুষ ও মহিলা বক্সারের সংখ্যা ৫৩ জন।

সিনিয়র পুরুষ বিভাগের প্রতিযোগিতা ৯টি ওজন শ্রেণিতে অনুষ্ঠিত হবে। আর সিনিয়র মহিলা বিভাগের প্রতিযোগিতা ৪টি ওজন শ্রেণিতে অনুষ্ঠিত হবে।

জাতীয় পুরুষ ও মহিলা কুস্তি শুরু

৩৩ তম জাতীয় সিনিয়র পুরুষ ও ৭ম জাতীয় সিনিয়র মহিলা কুস্তি প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। শহীদ ক্যাপ্টেন এম মুনসর আলী হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে দুই দিনের এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন ক্রীড়া সংগঠক ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক তাবিউর রহমান পালোয়ান ও যুগ্ম সম্পাদক মেসবাহ উদ্দিন আজাদ।

এবারের প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী দিনে পুরুষ ও মহিলা উভয় বিভাগে মোট ১৬টি ওজন শ্রেণীর প্রথম ও দ্বিতীয় রাউন্ডের খেলা শেষ হয়। পুরুষ ৫৭, ৬১, ৬৫, ৭০, ৭৪, ৮৬, ৯৭ ও ১২৫ কেজি এবং মহিলাদের ৪৮, ৫৩, ৫৫, ৫৮, ৬০, ৬৩, ৬৯ ও ৭৫ কেজি ওজন শ্রেণীতে রাজশাহী, কুমিল্লা, নড়াইল, খুলনা, কিশোরগঞ্জ, বিজিবি, সেনাবাহিনী, পুলিশ ও আনসার দল থেকে মোট ২০০জন কুস্তিগীর অংশ গ্রহন করছে।

আগামীকাল সোমবার প্রতিযোগিতার সমাপনী দিনে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করবেন বাংলাদেশ এ্যামেচার রেসলিং ফেডারেশনের সভাপতি ‌ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান।

বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদ সাকিব আল হাসান

জমকালো আয়োজনে হয়ে গেলো কুল-বিএসপিএ স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ডের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। ২০১৭ সালের বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের পুরস্কার জিতেছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, বাংলাদেশের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

তিনি পেছনে ফেলেন এশিয়ান এয়ারগান চ্যাম্পিয়নশিপে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে জুনিয়র বিভাগে রূপাজয়ী অর্নব সারার লাদিফ ও ফুটবলার জাফর ইকবালকে। সাকিব ২০১৭ সালে টেস্টে ৬৬৫ রান ও ২৯ উইকেট নিয়েছেন। এর মধ্যে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি, অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১০ উইকেট নিয়েছিলেন। ওয়ানডেতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে অবিশ্বাস্য পারফরম্যান্সেও আছে শতরান, আছে মাহমুদুল্লাহর সঙ্গে ২২৪ রানের জুটি।

বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের নাম ঘোষণা করেন ও ট্রফি ও সার্টিফিকেট তুলে দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থার এশিয়া অঞ্চলের (এআইপিএস) সহ সভাপতি সাবা নায়েকে, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান স্কয়ার টয়লেট্রিজের হেড অব মার্কেটিং মালিক মোহাম্মদ সাঈদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ) সভাপতি মোস্তফা মামুন।

দর্শক ভোটে পপুলার চয়েজ অ্যাওয়ার্ড-এ বছরের সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতে নিয়েছেন মাশরাফি বিন মোর্ত্তজা।

এছাড়া বর্ষসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, বর্ষসেরা ফুটবলার জাফর ইকবাল, বর্ষসেরা দাবাড়ু এনামুল হোসেন রাজীব, বর্ষসেরা টেবিল টেনিস খেলোয়াড়, সোনম সুলতানা সোমা, বর্ষসেরা শ্যূটার অর্নব সারার লাদিফ, বর্ষসেরা সাঁতারু জোনায়না আহমেদ, উদীয়মান অ্যাথলেট জহির রায়হান, বর্ষসেরা কোচ সালাউদ্দিন (ক্রিকেট), বর্ষসেরা সংগঠক মাহফুজা আক্তার কিরণ (ফুটবল), তৃণমূলের ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব মফিজ উদ্দিন (ফুটবল), বর্ষসেরা স্পন্সর রবি, বিশেষ সম্মাণনা সালাম মুর্শেদী (ফুটবল) ও বাদল রায় (ফুটবল) পুরস্কৃত হন।

কুল-বিএসপিএ স্পোর্টস অ্যাওয়ার্ডকে কেন্দ্র করে ক্রীড়াঙ্গনের তারার মেলা বসেছিল প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে। বিভিন্ন খেলার সাবেক-বর্তমান তারকারা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া সংগঠক, বিভিন্ন ফেডারেশনের কর্মকর্তারা। অনুষ্ঠানে ভিন্নধর্মী পারফরম্যান্স দেখান বিকেএসপির জিমন্যাস্টরা। সঙ্গীতের মূচ্ছর্ণার সাথে তাদের শারীরিক কসরত চোখ ধাঁধিয়ে দেয় উপস্থিত দর্শকদের। এছাড়া সঙ্গীত পরিবেশন করেন জাতীয় দলের ফুটবলার ওয়ালি ফয়সাল। তার কন্ঠে ’আমরা করবো জয়’ গানটি দেশের ক্রীড়াঙ্গনে সাফল্য আনতে নতুনভাবে উদ্দীপ্ত করে। এছাড়া ফ্রি স্টাইল ফুটবলের কৌশল দেখান ময়মনসিংহের ছেলে মুদাব্বির।

দেশের ক্রীড়া সাংবাদিক ও ক্রীড়া লেখকদের সবচেয়ে পুরনো সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ) ১৯৬৪ সাল থেকে সেরা ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের পুরস্কৃত করার ধারা চালু করেছিল।

বিজয় দিবস ক্যারমে হেমায়েত চ্যাম্পিয়ন

বিজয় দিবস ক্যারম টুর্নামেন্টে পুরুষ এককে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থার হেমায়েত মোল্লা। মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামের ক্যারম ফেডারেশনের প্রশিক্ষণ কক্ষে, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ফাইনালে তিনি ২-০ সেটে খুলনার হাফিজুর রহমান রানাকে পরাজিত করেন। ঢাকার মোহাম্মদ সালাউদ্দিন তৃতীয় হন।

এদিকে মহিলা এককে ইডেন কলেজের আফসানা নাসরিন চ্যাম্পিয়ন, সিলেটের মীনা রবি দাস রানার-আপ এবং ঋতু চন্দ তৃতীয় স্থান লাভ করেন। এবারের প্রতিযোগিতায় বিভিন্ন জেলা ‌ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪৫ জন পুরুষ ‌ও মহিলা খেলোয়াড় অংশ নেন। সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দেশ টেভির সিনিয়র বার্তা সম্পাদক মাহমুদুল হাসান শামীম, ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও ইন্টারন্যাশনাল ক্যারম ফেডারেশনের কোষাধ্যক্ষ আশরাফ আহমেদ লিয়ন ‌ও কোষাধ্যক্ষ হাসনাইন ইমতিয়াজ শিহাব।

নতুন বছরে খেলায় মেতে ‌ওঠার অপেক্ষা

খেলাধুলার দর্শকরা এ বছর আনন্দে মাতবেন বছর জুড়ে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২০১৮ সালে ব্যস্ত একটা বছর কাটাতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। ঘরের মাটিতে আর বিদেশে অন্তত চারটি সিরিজে অংশ নেবে টাইগাররা। আর বিশ্ব ত্রীড়াঙ্গনে এ বছর নিঃসন্দেহে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হতে যাচ্ছে রাশিয়া বিশ্বকাপ।

ঘরের মাটিতে আগামী ১৫ জানুয়ারি ত্রিদেশীয় সিরিজ দিয়ে বছর শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কা আর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে এই সিরিজে ফেবারিট স্বাগতিকরাই। ক্রিকেট পাগল টাইগার ভক্তরা তাই জমজমাট মেজাজেই শুরু করছেন ২০১৮ সাল। তবে এ বছরটি নতুনভাবে শুরু হচ্ছে, আরো একটি কারণে। ২০১১ সালের পর আবারো টেস্টে অধিনায়কত্ব করতে যাচ্ছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

জুনে এশিয়া কাপ আবারো হতে যাচ্ছে ওয়ানডে ফরম্যাটে। ভারতের মাটিতে হওয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত চূড়ান্ত হয়নি ভেন্যু। তবে ঘরের মত বিদেশেও এখন ওয়ানডে ফরম্যাটে বাংলাদেশ ভালো করায় টাইগার ভক্তরা ক্ষণ গুণছেন উল্লাসে মেতে ওঠার।

আগস্টে দুই টেস্ট আর তিন ওয়ানডে খেলতে অস্ট্রেলিয়া যাবে বাংলাদেশ দল। ২০০৩ সালের পর আর অজিদের মাটিতে দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ না খেলা লাল-সবুজ পতাকাধারীরা স্বভাবতই উৎসুক এই সিরিজ নিয়ে।
ঘরের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পূর্ণাঙ্গ সিরিজ দিয়ে বছর শেষ হবে মাশরাফী, সাকিব, মুশফিকদের।
তবে এ বছর নিঃসন্দেহে বিশ্ব ক্রীড়াঙ্গনের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হবে বিশ্বকাপ ফুটবল। ইতালি, চিলি আর নেদারল্যান্ডস না থাকায় রাশিয়া বিশ্বকাপ অবশ্য জৌলুস হারিয়েছে কিছুটা। এবারের বিশ্বকাপই হতে পারে, একটি আন্তর্জাতিক ট্রফির জন্য দুর্দান্ত ফর্মে থাকা আর্জেন্টাইন মহাতারকা লিওনেল মেসির আজন্ম হাহাকার ঘোচানোর সুবর্ণ সুযোগ।

সেই সাথে মেসি, রোনালদো কিংবা নেইমারদের মধ্যে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে একে অপরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার লড়াই তো থাকবেই।

এসব স্বত্ত্বেও মেনে নিতেই হয়, জার্মানি, ইংল্যান্ড কিংবা স্পেন বা ফ্রান্স দলে বিশ্বকাপ জেতার মত ক্যারিশম্যাটিক তারকা না থাকায় শিরোপা জয়ে এগিয়ে থাকবে ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনাই।

কেরানীগঞ্জ সবুজ দল চ্যাম্পিয়ন

ঢাকা জেলা ১ম প্রমিলা ফুটবল প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কেরানীগঞ্জ সবুজ দল। আজ রবিবার ধানমন্ডিস্থ সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে প্রতিযোগিতার ফাইনালে, কেরানীগঞ্জ সবুজ দল ৭-০ গোলের বড় ব্যবধানে ধামরাই লাল দলকে ৭-০ গোলে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়।

ফাইনাল খেলাসহ এই প্রতিযোগিতায় মোট ১২টি গোল করে সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন কেরানীগঞ্জ সবুজ দলের মিথিলা।

ফাইনাল শেষে বিজযী ‌ও বিজিত দলকে পুরস্কৃত করেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা প্রশাসক ও ঢাকা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন, ঢাকা জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী ফাহমিদা খানম, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদিকা ফারহাদ জেসমিন লিটি ‌ও সংস্থার কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যরা।

এই প্রতিযোগিতায় মোট ১৪ টি দল দু’টি গ্রুপে বিভক্ত হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।

পুরুষে সেনাবাহিনী এবং নারীতে আনসার চ্যাম্পিয়ন

ট্রাস্ট ব্যাংক ১৫তম জাতীয় সিনিয়র ‌ও জুনিয়র তায়কোয়ানডো প্রতিযোগিতায় পুরুষদের সিনিয়র বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এবং রানার্স আপ হয় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ।

এদিকে সিনিয়র মহিলা বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি এবং রানার্স আপ হয় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। জুনিয়র পুরুষ বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বিকেএসপি এবং যৌথভাবে রানার্স আপ হয় কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও সিরাজগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থা। জুনিয়র মহিলা বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কুমিল্লা জেলা ক্রীড়া সংস্থা এবং যৌথভাবে রানার্স আপ হয় সিরাজগঞ্জ জেলা ক্রীড়া সংস্থা ও চট্টগ্রাম জেলা ক্রীড়া সংস্থা।

আজ রবিবার ফা্ইনাল শেষে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রিয় কমিটির যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশীদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন টিভিএস অটো বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিপ্লব কুমার রায়, তায়কোয়ানডো ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোর্শেদ হোসেন কামাল ‌ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল ইসলাম রানা।

এবারের চ্যাম্পিয়নশীপে দেশের প্রায় ৮০০জন তায়কোয়ানডো খেলোয়াড় ফাইট ও পুমসে ক্যাটাগরিতে অংশ নেন।

স্কুল তায়কোয়ানডোতে কক্সবাজার চ্যাম্পিয়ন

ট্রাস্ট ব্যাংক জাতীয় স্কুল‌ও কলেজ তায়কোয়ানডো প্রতিযোগিতায় পুরুষ জুনিয়র বিভাগে কক্সবাজার জেলা এবং মহিলা জুনিয়র বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বিএএফ শাহীন কলেজ। এবং পুরুষ বিভাগে রানার্স আপ হয়েছে বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আব্দুর রউফ স্কুল ‌ও মহিলা বিভাগে রানার্স আপ হয় যৌথভাবে সাউথ পয়েন্ট স্কুল এন্ড কলেজ ‌ও বারিধারা উদয়ন স্কুল।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেশিয়ামে খেলা শেষে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন যুব ‌ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার। এ সময় তায়কোয়ানডো ফেডারেশনের সভাপতি কাজী মোর্শেদ হোসেন কামাল, সহ সভাপতি নজরুল ইসলাম বাবুল ‌ও সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল ইসলাম রানা উপস্থিত ছিলেন। এবারের প্রতিযোগিতায় দেশের মোট ২৭টি স্কুল ‌ও কলেজের ৭০০জন তায়কোয়ানডো খেলোয়াড় অংশ নেন।

বিজয় দিবস জিমন্যাস্টিকস সমাপ্ত

ব্লেজার বিডি বিজয় দিবস জিমন্যাস্টিকসে প্রতিযোগিতা শেষ হয়েছে। আজ মঙ্গলবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেশিয়ামে সকালে প্রধান অতিথি হিসেবে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান দি ব্লেজার বিডি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বিওএ’র কোষাধ্যক্ষ কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল।

এবারের প্রতিযোগিতায় পুরুষ ঐচ্ছিক গ্রুপে প্যারালাল বারস ইভেন্টে স্বর্ণ পেয়েছে বাংলাদেশ আনসারের শহিদুল ইসলাম সাজু। এ গ্রুপে ফ্লোর ইভেন্টে স্বর্ণ জয় করে বিকেএসপির শফিকুল ইসলাম।

মহিলা ঐচ্ছিক গ্রুপে ব্যালান্স বীম ও ফ্লোর উভয় ইভেন্টেই স্বর্ণ জয় করে বিকেএসপির নূর আক্তার বানু। বালক ১০-১২ বছর গ্রুপে ফ্লোর ইভেন্টে স্বর্ণ জয় করেন কোয়ান্টাম কসমো স্কুল এন্ড কলেজের জীবন ত্রিপুরা। একই গ্রুপে মাশরুম ইভেন্টে স্বর্ণ পায় কোয়ান্টামের মংশিং প্রু ত্রিপুরা।

বালিকা ৯-১১ বছর বয়সি গ্রুপে ফ্লোর ইভেন্টে যৌথভাবে স্বর্ণ জয় করে কোয়ান্টাম কসমো স্কুল এন্ড কলেজের লামে সাই মারমা ও বিকেএসপির বনফুলি চাকমা। এ গ্রুপে ভল্টিং টেবিল ইভেন্টে স্বর্ণ পায় কোয়ান্টামের খিং খিং সাই মারমা। বালক ১২-১৪ বছর বয়সি গ্রুপে প্যারালাল বারস ইভেন্টে স্বর্ণ জয় করে বান্দরবান জেলা ক্রীড়া সংস্থার প্রেণথৈ।

দিনব্যপী প্রতিযোগিতা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে পুরস্কার বিতরণ করেন বাংলাদেশ জিমন্যাস্টিকস্ ফেডারেশনের সভাপতি ও বিওএ’র সহসভাপতি শেখ বশির আহমেদ মামুন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা এনামুল হক চৌধুরী খসরু ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদুর রহমান।

বিএসপিএ বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদ পুরস্কার ৬ জানুয়ারি

বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন-বিএসপিএর বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের সংক্ষিপ্ত তালিকায় আছেন, সাকিব, অর্ণব ও জাফর। ২০১৭ সালের পারফরম্যান্সের ভিত্তিতে এ বছর ১৪টি ক্যাটাগোরিতে পুরস্কার দেয়া হবে।

এ উপলক্ষে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে আজ সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, বর্ষসেরা ক্রীড়াবিদের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান, শ্যুটার অর্ণব সারার লাদিফ ও ফুটবলার জাফর ইকবাল।

এছাড়া বর্ষসেরা দাবাড়ু এনামুল হোসেন রাজীব, বর্ষসেরা টেবিল টেনিস খেলোয়াড় সোনম সুলতানা সোমা, বর্ষসেরা সাঁতারু জোনায়না আহমেদ, বর্ষসেরা কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দীন (ক্রিকেট), বর্ষসেরা সংগঠক নির্বাচিত হয়েছেন মাহফুজা আক্তার কিরণ (ফুটবল)। উদীয়মান অ্যাথলেট নির্বাচিত হয়েছেন জহির রায়হান। বিশেষ সম্মাননা পাচ্ছেন ফুটবলের সালাম মুর্শেদী ও বাদল রায়। তৃণমূলের ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন মফিজুল হক (ফুটবল কোচ)। বর্ষসেরা স্পন্সর রবি।

তাছাড়া পপুলার চয়েজ অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়ন পেয়েছেন চারজন। মনোনীতরা হলেন-মাশরাফি বিন মর্তুজা (ক্রিকেট), সাকিব আল হাসান (ক্রিকেট), মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (ক্রিকেট) এবং জাফর ইকবাল (ফুটবল)। অনলাইনে ক্রীড়ামোদীদের ভোটে একজন সেরা নির্বাচিত হবেন এই ক্যাটাগরিতে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুন, সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ান উজ জামান রাজিব ও স্পন্সর প্রতিষ্ঠান স্কয়ার টয়লেট্রিজের মার্কেটিং ম্যানেজার ফজল মাহমুদ রনি।

গত ১৯৬৪ সাল থেকে সেরা ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের পুরস্কৃত করে আসছে বিএসপিএ। আগামী বছরের ৬ জানুয়ারি ২০১৭ সালের বর্ষসেরাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হবে।

পুলিশের জয় পুলিশের পরাজয়

বিজয় দিবস হ্যান্ডবলের পুরুষ বিভাগে বাংলাদেশ পুলিশ হারিয়েছে আনসারকে। আর নারী বিভাগে বিজেএমসির কাছে হেরেছে পুলিশ।

পল্টনের শহীদ এম. মনসুর আলী হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে, পুরুষ বিভাগের খেলায় বাংলাদেশ পুলিশ ৩৩-২২ গোলে পরাজিত করে বাংলাদেশ আনসারকে। প্রথমার্ধে বিজয়ী দল ১৩-১২ পয়েন্টে এগিয়ে ছিলো। অন্য ম্যাচে, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি ৩১-১২ গোলে ঢাকা হ্যান্ডবল ট্রেনিং সেন্টারকে পরাজিত করে। এদিকে, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলায় কোয়ান্টাম ৩০-২৯ গোলে হারায় হ্যান্ডবল ট্রেনিং সেন্টারকে।

নারী বিভাগের খেলায়, বিজেএমসি ১৯-৭ গোলে পরাজিত করে বাংলাদেশ পুলিশকে। এদিকে, বাংলাদেশ আনসার ২৯-৮ গোলে ধরাশায়ী করে হ্যান্ডবল ট্রেনিং সেন্টারকে।

ভারতে মিক্স মার্শাল আর্টে হাবিবেব স্বর্ণ জয়

ভারতের বুম মিক্সড মার্শাল আর্ট চ্যাম্পিয়শিপে বাংলাদেশ মার্শাল আর্ট কনফেডারেশনের হাবিব পারভেজ ফ্লাই ওয়েট ক্যাটাগোরীতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন। এই প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের হাবিব পারভেজ ও রহমত সানি অংশ নেন।

চ্যাম্পিয়নশিপে ফ্লাই ওয়েট ক্যাটাগোরীতে চ্যাম্পিয়ন ঢাকার লালবাগের ছেলে হাবিব পারভেজ বাংলাদেশের প্রথম প্রফেশনাল মিক্স মার্শাল আর্ট খেলোয়াড়। কলকাতার সাইন্স সিটিতে অনুষ্ঠিত এই চ্যাম্পিয়নশীপে বাংলাদেশের অন্য খেলোয়াড় রহমত সানি ভালো ফল করতে পারেননি। বুম মিক্সড মার্শাল আর্ট চ্যাম্পিয়নশিপ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম পুরাতন প্রফেশনাল মিক্সড মার্শাল আর্ট প্রতিষ্ঠান যা গত ২০১২ সাল থেকে চলছে।

কিউইদের কাছে ইনিংসে হার ‌ওয়েস্ট ইন্ডিজের

ওয়েলিংটনে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে ইনিংস ও ৬৭ রানের বড় ব্যবধানে হারলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৮৮ রানে শেষ ৮ উইকেট হারিয়ে ইনিংস পরাজয়ের লজ্জাই পেল ক্যারিবিয়রা।

আগের দিনের ২ উইকেটে ২১৪ রান নিয়ে চতুর্থ দিনের খেলা শুরু করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। নিউজিল্যান্ডের আগুনে বোলিংয়ের তেমন কিছুই করতে পারেনি জেসন হোল্ডারের দল। একপর্যায়ে তাদের রান ছিল ২ উইকেটে ২৩১। তবে এরপরই একের পর এক আঘাত হানতে থাকেন নিউজিল্যান্ডের বোলাররা। পরের ৮৮ রানেই ৮ উইকেট হারায় তারা। ৩১৯ রানের অলআউট হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। এতে জেসন হোল্ডারের দলকে বরণ করে নিতে হয় ইনিংস ও ৬৭ রানের পরাজয়।

দলের পক্ষে কারলন ব্রেথওয়েট ৯১ ও শিমরন হেটমেয়ার ৬৬ রান করেন। কিউইদের পক্ষে ম্যাট হেনরি তিনটি এবং ট্রেন্ট বোল্ট, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম এবং নেইল ওয়াগনার দুটি করে উইকেট তুলে নেন। ম্যাচ সেরা হন নেইল ওয়াগনার।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১৩৪ রানের জবাবে ৯ উইকেটে ৫২০ রান তুলে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছিলো স্বাগতিক নিউজিল্যান্ড।

এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশীপের র‌্যাঙ্কিং রাউন্ড শুরু

এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশীপের র‌্যাঙ্কিং রাউন্ডের পারফরম্যান্সে সন্তষ্ট বাংলাদেশ। আজ রবিবার সকালে রিকার্ভ পুরুষ এবং কম্পাউন্ড মহিলা বাছাইপর্ব শেষে এমনটাই জানান স্বাগতিক দলের কোচ এবং খেলোয়াড়রা।

রিকার্ভ মেন ইভেন্টে ৭৯ জন প্রতিযোগীর মধ্যে ৬৬৬ পয়েন্ট নিয়ে এগারো তম হন রুমান সানা। এছাড়া কম্পাউন্ড ইভেন্টে ৩৪ জন প্রতিযোগীর মধ্যে ১৩ নম্বরে উঠে আসেন রোকসানা আক্তার। রিকার্ভ মেনের দলীয় লড়াইয়ে ১৯ দেশের মধ্যে নবম স্থান দখল করে বাংলাদেশ। আর নারীদের কম্পাউন্ড দলীয় ইভেন্টে ষষ্ঠ স্থান অর্জন করে স্বাগতিকরা। আগামীকাল সোমবার মুল লড়াইয়ে র‌্যাঙ্কিংয়ের বিচারে মুখোমুখি হবে প্রতিযোগীরা।

ডিআরইউ শুটিংয়ে রানা ও ইরানী সেরা

প্রাইম ব্যাংক-ডিআরইউ বার্ষিক ক্রীড়া উৎসবের শুটিংয়ে পুরুষ বিভাগে প্রথম হয়েছেন নয়া দিগন্তের জসিম উদ্দিন রানা ও নারী বিভাগে ঢাকা ট্রিবিউনের বিলকিছ ইরানী।

আজ রবিবার আইভি রহমান সুইমিং পুলের গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত পুরুষদের শুটিংয়ে দৈনিক আলোকিত সময়ের আখতারুজ্জামান দ্বিতীয় ও জিটিভি’র রাজু আহমেদ তৃতীয় হয়েছেন। এছাড়া নারী সদস্যদের শুটিংয়ে দৈনিক সমকালের সাজিদা ইসলাম পারুল দ্বিতীয় ও মোহনা টেলিভিশনে’র নাজনীন আক্তার লাকী তৃতীয় হন।

শুরু এশিয়ান আরচ্যারি

২০২০ অলিম্পিক গেমসে আর্চারিতে পদক আনার মিশন নিয়ে এগুচ্ছে বাংলাদেশ। সকালে এশিয়ান আর্চারি চ্যাম্পিয়নশীপের উদ্বোধন শেষে এমনটা বলেন অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজা।

আজ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন হলে‌ও আগামীকাল থেকে শুরু হবে মুল লড়াই। তবে এদিন অনুশীলনে নেমে পড়েন ৩৩ টি দেশের প্রায় চারশতাধিক আর্চার। এবারের প্রতিযোগীতায় এশিয়ার ৩৫টি দেশ অংশগ্রহনের কথা থাকলেও আরব আমিরাত এবং উজবেকিস্তান শেষ পর্যন্ত আসেনি।

আর্চারীতে এখনো পর্যন্ত এটাই সবচে বড় আয়োজন বাংলাদেশে। উদ্ধোধন শেষে বাংলাদেশ আর্চারি ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক কাজী রাজীবউদ্দীন আহমেদ চপল বলেন, এবারের প্রতিযোগীতায় সেরা আটে থাকতে চান তারা।

শেষ হলো জাতীয় মার্শাল আর্ট প্রতিযোগিতা

পুরস্কার বিতরণীর মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে ওয়ালটন জাতীয় মার্শাল আর্ট প্রতিযোগিতা।

আজ শনিবার শক্তিমত্তা প্রদর্শনী, সেল্ফ ডিফেন্স ও অস্ত্রশস্ত্র বিভাগে সানচাক্কু প্রদর্শনীতে স্বর্ণ জিতেছেন আব্দুল গফুর সরকার। তিনি ডাবল সামুরাই প্রদর্শনী ও সামুরাই দিয়ে গলায় শসা কাটা প্রদর্শনীতেও স্বর্ণ জিতেছেন। হাত দিয়ে টালি ভাঙা প্রতিযোগিতায় স্বর্ণ জিতেছেন আহসানুল ইসলাম। আর আত্মরক্ষায় স্বর্ণ জিতেছেন আব্দুল গফুর সরকার।

কুংফু সিনিয়র পুরুষ বিভাগে স্বর্ণ জিতেছেন আছরার আহমেদ। জুনিয়র পুরুষ বিভাগে স্বর্ণ জিতেছেন তাহমিদ তাজওয়ার। কুংফু সিনিয়র মহিলা বিভাগে স্বর্ণ জিতেছেন আয়েশা আক্তার। আর রৌপ্য জিতেছেন সৈয়দা তানজিনা রহমান শান্ত। মহিলা জুনিয়র বিভাগে স্বর্ণ জিতেছেন আকরার রায়হান চৌধুরী, রৌপ্য জিতেছেন মুনতাহা বিনতে আমিন।

তার আগে পুরুষ কাতা বিভাগে স্বর্ণ জিতেছেন এজাক্স এসসির মীর ইফতেখার হোসেন। রৌপ্য জিতেছেন স্পোর্টস মার্শাল আর্টের নাঈম। আর ব্রোঞ্জ জিতেছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মনির হোসেন। মহিলা কাতায় স্বর্ণ জিতেছেন এজাক্সের হুমায়রা আক্তার অন্তরা। রৌপ্য জিতেছেন আজাক্সের জান্নাতুল ফেরদৌস। আর ব্রোঞ্চ জিতেছেন এজাক্সের নাছিমা আক্তার জুঁই।

এ ছাড়া পুুরুষ ৫০ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছেন আরিয়ানা একাডেমির ইব্রাহীম হাসান, রৌপ্য এজাক্সের রেজাউল করিম মাসুম, ব্রোঞ্জ জিতেছেন জ্যাকি মার্শাল আর্টের ওয়ারেস হোসেন। ৫৫ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছেন এজাক্সের মোস্তফা কামাল, রৌপ্য জিতেছেন সোতকানের শাহীন এবং ব্রোঞ্জ জিতেছেন স্পোর্টস মার্শাল আর্টের সাগর কুন্দা। পুরুষ ৬০ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছেন এজাক্সের সিয়াম, রৌপ্য জিতেছেন উপদান দো এর জুনায়েদ খান, আর ব্রোঞ্জ জিতেছেন আরিয়ান একাডেমির জনি মিয়া। ছেলেদের ৬৫ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছেন এজাক্সের কামরুজ্জামান তৌহিদ, রৌপ্য জিতেছেন স্পোর্টস মার্শাল আর্টের ওয়ালিল হাসনাত জামান, ব্রোঞ্জ জিতেছেন মার্শাল শাহাজাদার মো. কবির হোসেন। পুরুষ অনূর্ধ্ব ৭০ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছেন এজাক্সের মো. হোসেন খান, রৌপ্য স্পোর্টস মার্শাল আর্টের সিরাজ হোসেন এবং ব্রোঞ্জ জিতেছেন একই দলের আকরাম খান। ৭০+ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্বর্ণ জিতেছেন সোতকান দো এর মৃদুল। রৌপ্য জিতেছেন স্পোর্টস মার্শাল আর্টের জহিরুল ইসলাম রাজু। আর ব্রোঞ্জ জিতেছেন ব্লাক টাইগারের কাহবিয়া শুভ।

প্রতিযোগিতা শেষে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেসিয়ামে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মার্শাল আর্ট কনফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক হাসান উজ্জামান মনি।

জাতীয় দাবার চতুর্থ রাউন্ড শেষে তিনজন শীর্ষে

ওমিকন গ্রুপ ৪৩তম জাতীয় ’এ’ দাবা চ্যাম্পিয়নশিপের চতুর্থ রাউন্ডের খেলা শেষে ৩ জন খেলোয়াড় সাড়ে তিন পয়েন্ট করে নিয়ে যৌথভাবে পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে রয়েছেন। এরা হলেন- গতবারের চ্যাম্পিয়ন গ্র্যান্ড মাস্টার এনামুল হোসেন, গতবারের রানার-আপ গ্র্যান্ড মাস্টার মোল্লা আব্দুল্লাহ আল রাকিব ও ফিদে মাস্টার খন্দকার আমিনুল ইসলাম।

তিন পয়েন্ট নিয়ে গ্র্যান্ড মাস্টার জিয়াউর রহমান দ্বিতীয় স্থানে এবং ফিদে মাস্টার সেখ নাসির আহমেদ ও ফিদে মাস্টার মেহেদী হাসান পরাগ আড়াই পয়েন্ট করে নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন।

আজ শুক্রবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরাতন ভবনের তৃতীয় তলার দাবা কক্ষে, চতুর্থ রাউন্ডের খেলায় গ্র্যান্ড মাস্টার এনামুল আন্তর্জাতিক মাস্টার মোহাম্মদ মিনহাজ উদ্দিনকে, গ্র্যান্ড মাস্টার রাকিব আন্তর্জাতিক মাস্টার আবু সুফিয়ান শাকিলকে, ফিদে মাস্টার আমিন ফিদে মাস্টার মোহাম্মদ ফাহাদ রহমানকে, গ্র্যান্ড মাস্টার জিয়া ক্যান্ডিডেট মাস্টার চঞ্চল কুমার ঘোষকে, ফিদে মাস্টার নাসির ফিদে মাস্টার সৈয়দ মাহফুজুর রহমানকে এবং ফিরদ মাস্টার পরাগ মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার শামীম আক্তার লিজাকে পরাজিত করেন।

ডিআরইউ ব্যাডমিন্টনে মাকসুদ চ্যাম্পিয়ন

প্রাইম ব্যাংক-ডিআরইউ বার্ষিক ক্রীড়া উৎসবের ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছন চ্যানল ২৪ -এর মাকসুদ উন নবী। আজ শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ ইনডোর স্টেডিয়ামে ফাইনালে মাকসুদ উন নবী তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার পর ২-০ সেটে হারিয়েছেন নয়া দিগন্তের জসিম উদ্দিন রানাকে।

সেমি-ফাইনালে মাকসুদ উন নবী পরাজিত করেন কালের কন্ঠের শামীম হাসানকে এবং জসিম উদ্দিন রানা একই ব্যবধানে পরাজিত করেন ভোরের কাগজের তানভীর আহমেদকে। এদিকে, তানভীর আহমেদকে তৃতীয় হন শামীম হাসান।

এশিয়ান আরচ্যারি শুরু শনিবার থেকে

২০তম এশিয়ান আরচ্যারি চ্যাম্পিয়নশীপে স্বাগতিক বাংলাদেশের লক্ষ্য কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে, শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে এশিয়ান আরচ্যারির সবচেয়ে বড় আসর।

এ উপলক্ষে বিওএ ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এবারই সবচেয়ে বেশি ৩৫টি দেশ অংশ নিচ্ছে। এবারের আরচ্যারি চ্যাম্পিয়নশীপে ১৬১ জন পুরুষ ও ১২৫ জন নারী আরচ্যার অংশ নিচ্ছেন।

এ সময় বাংলাদেশ আরচ্যারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজীব উদ্দিন আহমেদ চপল জানান, এ প্রতিযোগিতায় স্বাগতিক দলের লক্ষ্য কোয়ার্টার ফাইনাল খেলা। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ আরচ্যারি দলও ঘোষণা করা হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আরচ্যারি ফেডারেশনের সভাপতি মেজর জেনারেল(অবসরপ্রাপ্ত) মাইনুল ইসলাম। এ সময় ওয়ার্ল্ড আরচ্যারি’র সহসভাপতি ও এশিয়ান আরচ্যারি’র সাধারণ সম্পাদক সাং হো-উম উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় দাবা শুরু হলো আজ

ওমিকন গ্রুপ ৪৩তম জাতীয় ’এ’ দাবা চ্যাম্পিয়নশিপের উদ্বোধন হলো আজ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ যুব মহিলা লিগের সেন্ট্রাল কমিটির সদস্য দোলা হাসান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওমিকন গ্রুপের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মেহেদী হাসান, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান কে এম শহিদউল্যা, ফেডারেশনের সহ সভাপতি গাজী সাইফুল তারেক ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহাব উদ্দিন শামীম।

রাউন্ড-রবিন লিগ পদ্ধতিতে এবারের প্রতিযোগীতায় ১৪ জন খেলোয়াড় অংশ নিচ্ছেন। বিজয়ীদের নগদ দুই লাখ টাকা অর্থ পুরস্কার দেয়া হবে। যার মধ্যে চ্যাম্পিয়ন ষাট হাজার টাকা, রানার-আপ চল্লিশ হাজার টাকা, তৃতীয় পঁচিশ হাজার টাকা এবং চতুর্থ হতে অষ্টম স্থান পর্যন্ত প্রতিটি পনেরো হাজার টাকা করে অর্থ পুরস্কার থাকবে। এছাড়া অংশগ্রহণকারী গ্র্যান্ড মাস্টার, আন্তর্জাতিক মস্টিারসহ সকল খেলোয়াড়কে উপস্থিতি ফি দেয়া হচ্ছে।

আজ মঙ্গলবার প্রথম রাউন্ডের খেলায় গতবারের চ্যাম্পিয়ন গ্র্যান্ড মাস্টার এনামুল হোসেন গতবারের রানার-আপ মোল্লা আব্দুল্লাহ আল রাকিবের সাথে, আন্তর্জাতিক মাস্টার মোহাম্মদ মিনহাজ উদ্দিন ফিদে মাস্টার মেহেদী হাসান পরাগের সাথে এবং ফিদে মাস্টার খন্দকার আমিনুল ইসলাম ফিদে মাস্টার সখ নাসির আহমেদের সাথে ড্র করেন।

প্রিমিয়ার কাবাডি লিগ শুরু

কাবাডিতে বিদেশী কোচ আনলে তার খরচ বহন করবে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। কাবাডি স্টেডিয়ামে প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

পরে তাঁকে সাথে নিয়ে ১২ দলের এই টুর্নামেন্ট উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল ও কাবাডি ফেডারেশনের সভাপতি এ.কে.এম. শহিদুল হক। এ সময় ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয়সহ, আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন। জমকালো আয়োজনের মধ্যদিয়ে প্রায় তিন বছর পর আবারও শুরু হলো প্রিমিয়ার ডিভিশন কাবাডি লিগ।

ওয়ালটন-ডিআরইউ ভলিবলে রেডিও টুডে চ্যাম্পিয়ন

প্রথমবারের মতো আয়োজিত ওয়ালটন-ডিআরইউ মিডিয়া কাপ ভলিবল টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে রেডিও টুডে। রানার্স-আপ হয়েছে জিটিভি।

আজ শনিবার জাতীয় ভলিবল স্টেডিয়ামে প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ফাইনালে রেডিও টুডে ২৫-১৯ ও ২৫-১৮ পয়েন্টে জিটিভিকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়। চ্যাম্পিয়ন দল রেডিও টুডে ট্রফি ও ৩০ হাজার টাকা আর রানার্স-আপ দল জিটিভি ট্রফি ও ২০ হাজার টাকা প্রাইজমানি দেয়া হয়।

টুর্নামেন্টের সেরা আক্রমণাত্মক খেলোয়াড় নির্বাচিত হন রেডিও টুডের মোসকায়েত মাশরেক, টুর্নামেন্টের সেরা সেটালার নির্বাচিত হয়েছেন রেডিও টুডের মাকসুদ-উন-নবী এবং টুর্নামেন্টের সেরা ডিফেন্ডার নির্বাচিত হন জিটিভির মেহ্দী আজাদ মাসুম। ফেয়ার প্লে ট্রফি লাভ করেছে বিডিনিউজ ২৪ ডটকম।

ফাইনাল খেলা শেষে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উভয় দলের হাতে ট্রফি তুলে দেন আওয়ামী লীগের ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশিদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ অলম্পিক এসোসিয়েশনের উপ-মহাসচিব আশিকুর রহমান মিকু ও উপ-মহাসচিব আসাদুজ্জামান কোহিনুর এবং পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)।

বিএসপিএ’র আর্চ্যারি ওয়ার্কশপ সম্পন্ন

বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ)-এর আয়োজনে শুক্রবার হয়ে গেলো আর্চ্যারি ওয়ার্কশপ। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের ডাচ-বাংলা অডিটোরিয়ামে অর্ধশতাধিক ক্রীড়া সাংবাদিক এই কোর্সে অংশ নেন। যেখানে আর্চ্যারি জাজ তানভীর আহমেদ, ফারুক ঢালী ও কোচ জিয়াউল হক খেলাটির বিভিন্ন নিয়ম-কানুন সম্পর্কে ধারণা দেন। যা আসন্ন ২০তম এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপ কাভার করতে সাহায্য করবে সাংবাদিকদের। ২৫ থেকে ৩০ নভেম্বর ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে বসবে এই টুর্নামেন্ট। যেখানে অংশ নেবে ৩৫ দেশের আর্চ্যাররা।

এদিন কোর্সের উদ্বোধন করেন আর্চ্যারি ফেডারেশনের সভাপতি লে. জেনারেল মোঃ মাইনুল ইসলাম (অব.)। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল, বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুন ‌ও সাধারণ সম্পাদকক রেজওয়ান উজ জামান রাজিব।

আর্চ্যারি ফেডারেশন সভাপতি বলেন, খেলাটির সম্প্রসারণ ও সর্বস্তরে প্রচলনের জন্য তারা সর্বাত্বক চেষ্টা চালাচ্ছেন। সরকারের কাছে পূর্বাচলে নতুন স্টেডিয়াম তৈরির জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। সরকার ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে বলে জানান তিনি।

বয়সভিত্তিক মহিলা সাঁতার শুরু

আন্তঃজেলা বয়সভিত্তিক মহিলা সাঁতার প্রতিযোগিতায় দেশের ৩২টি জেলার ১৯৮ জন খেলোয়াড় তিনটি গ্রুপে অংশ নিচ্ছে। এর আগে আজ শুক্রবার সকালে ধানমন্ডির সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে দুইদিনের এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সুইমিং ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক এম. বি. সাইফ।

প্রতিযোগিতার বয়সভিত্তিক গ্রুপ তিনটি হলো- `ক গ্রুপ'(৮ থেকে ১০ বৎসর), খ গ্রুপ (১১ থেকে ১২ বৎসর) ও গ গ্রুপ (১৩-১৪ বৎসর)।

ডিআরইউ আরচ্যারিতে সেরা হলেন রানা

প্রাইম ব্যাংক-ডিআরইউ বার্ষিক ক্রীড়া উৎসবের আরচ্যারিতে প্রথম হয়েছেন দৈনিক নয়া দিগন্তের জসিম উদ্দিন রানা। আজ শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে, আরচ্যারিতে বিডি নিউজ ২৪ ডটকমের কামাল হোসেন তালুকদার দ্বিতীয় ও দৈনিক কালবেলার মজিবুর রহমান তৃতীয় হন।

সকালে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ আরচ্যারি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ডিআরইউ সহ-সভাপতি আবু দারদা যোবায়ের, বাংলাদেশ আরচ্যারি ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক রশিদুজ্জামান সেরেনিয়াবাদ, জাতীয় দলের ম্যানেজার ইমদাদুল হক মিলন ও কাজী রাফিদ ইবনে রাজিব এবং জাতীয় কোচ জিয়াউল হক।

চট্রগাম হকি লিগে চ্যাম্পিয়ন ব্রাদার্স

সিজেকেএস হারবার প্রথম বিভাগ হকি লীগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ব্রাদার্স ইউনিয়ন। চট্টগ্রামের এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে, তারা ৩-০ গোলে হারায় মুক্ত বিহঙ্গকে।

খেলার প্রথমার্ধের ২৭ মিনিটে শহীদুল্লাহর গোলে এগিয়ে যায় ব্রাদার্স। এরপর ৫৫ মিনিটে বাপ্পী এবং ৭১ মিনিটে শিমুলের গোলে সহজ জয় পায় ব্রাদার্স ইউনিয়ন। খেলা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন চট্টগ্রামের সিটি মেয়র ‌ও সিজেকেএস সাধারণ সম্পাদক আ.জ.ম. নাছির উদ্দিন। লিগের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন ব্রাদার্স ইউনিয়নের শিমুল এবং উদীয়মান সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রের পারভেজ।

ডিবিএল-বিএসপিএ স্পোর্টসে চ্যাম্পিয়ন মাহমুদুন্নবী চঞ্চল

বাংলাদেশ স্পোর্টস প্রেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএসপিএ) সদস্যদের জন্য আয়োজিত ‘ডিবিএল-বিএসপিএ স্পোর্টস কার্নিভালে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন মাহমুদুন্নবী চঞ্চল। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বাংলাদেশ হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে বিজয়ীকে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি ও প্রাইজমানি দিয়ে পুরস্কৃত করেন। তিনি টেবিল টেনিস দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন, এককে রানারআপ, আর্চ্যারিতে রানারআপ হন। এছাড়া দাবা, শুটিং, আরচ্যারি, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন এবং ক্যারাম ইভেন্টে সেরাদের পুরস্কৃত করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিএসপিএ সভাপতি মোস্তফা মামুন।

একই অনুষ্ঠানে সংগঠনের নতুন সদস্যদের বরণ করে নেয়া হয়। নতুন সদস্যরা হলেন মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা, তোফায়েল আহমেদ, নাগিব বাহার রাতুল, নাজমুস সাকিব, মাহফুজুল ইসলাম, এ কে এম ফয়জুল ইসলাম, সাজিদ মুস্তাহিদ, সৈয়দ ফায়েজ আহমেদ, সাইফুল ইসলাম রুপক, ইকবাল কাউসার, জাফিউল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন সিয়াম ও টি ইসলাম তারিক।

ওয়ালটন-ডিআরইউ মিডিয়া কাপ ভলিবল শুরু

ওয়ালটন-ডিআরইউ মিডিয়া কাপ ভলিবল টুর্নামেন্ট শুরু হলো আজ। পল্টনের জাতীয় ভলিবল স্টেডিয়ামে ছয়দিন ব্যাপী এই প্রতিযোগিতার উদ্বাধন করেন পৃষ্ঠপোষক প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)। এ সময় ভলিবল ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক ফজলে রাব্বী, ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানী ‌ও ক্রীড়া সম্পাদক মজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনী দিনে ৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। প্রথম ম্যাচে রেডিও টুডে ২৫-১০ পয়েন্টে আজকালের খবরকে, দ্বিতীয় ম্যাচে বিডিনিউজ২৪ ডটকম ২৫-১৭ পয়েন্টে আমাদের সময়কে, তৃতীয় ম্যাচে আরটিভি তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ ম্যাচে ২৭-২৫ পয়েন্টে বাসসকে পরাজিত করে।

চতুর্থ ম্যাচে ডেইলি সান ২৫-২৩ পয়েন্টে এটিএন বাংলাকে, পঞ্চম ম্যাচে বাংলাদেশের খবর তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ খেলায় ২৬-২৪ পয়েন্টে এসএটিভিকে, পরের ম্যাচে জনকন্ঠ, খোলা কাগজকে হারায়। দিনের শেষ ম্যাচে জাগোনিউজ ২৫-৮ পয়েন্টের ব্যবধানে সংগ্রামকে হারায়।

প্রথমবারের মতো আয়োজিত ওয়ালটন-ডিআরইউ মিডিয়া কাপ ভলিবল প্রতিযোগিতায় ২৪টি জাতীয় দৈনিক, সংবাদ সংস্থা, অনলাইন মিডিয়া এবং স্যাটেলাইট চ্যানেল অংশ নিচ্ছে। টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন দল ট্রফি ছাড়াও নগদ ৩০ হাজার টাকা এবং রানার্স আপ দল ট্রফি ছাড়াও নগদ ২০ হাজার টাকা অর্থ পুরস্কার পাবে।

ডিআরইউ’র পারিবারিক ক্রীড়া পুরস্কার বিতরণ সম্মণ্ন

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র পারিবারিক ক্রীড়া উৎসবের বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হলো আজ মঙ্গলবার। ডিআরইউ সাগর-রুনী মিলনায়তনে বিজয়ীদেও পুরস্কৃত করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার। এ সময় ডিআরইউ ইনডোর গেমসেরও উদ্বোধন করা হয়।

এবার প্রতিযোগিতায় পুরুষ সদস্যদের স্ত্রী ও সন্তান এবং নারী সদস্যদের স্বামী ও সন্তানদের নিয়ে সাঁতার, ১০০, ২০০ মিটার দৌড় ও পিলো পাস প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। পিলো পাসে সদস্যদের ৩৭ জন স্ত্রী, ২০০ মিটার দৌড়ে সদস্যদের ৩৯ জন স্ত্রী এবং নারী সদস্যদের স্বামীরা সাঁতার ও ২০০ মিটার দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করেন। এছাড়াও ১০০ ও ২০০ মিটার দৌড় প্রতিযোগিতায় সদস্যদের ৬৭ জন সন্তান অংশগ্রহণ করে।

পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে ডিআরইউ সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক মুরসালিন নোমানী, ক্রীড়া সম্পাদক মজিবুর রহমান, ক্রীড়া উপ-কমিটির সদস্য কাজী শহীদুল আলম ও সাহাবউদ্দিন সাহাব উপস্থিত ছিলেন।

৬ষ্ঠ জাতীয় বাশাআপে শাকিল এবং ফারজানা চ্যাম্পিয়ন

৬ষ্ঠ জাতীয় বাশাআপ প্রতিযোগিতায় পুরুষ বিভাগে খুলনা বিভাগের মাইন উদ্দিন আহমেদ শাকিল এবং নারী বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে নিলফামারী জেলার ফারজানা ইয়াসমিন।

জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ জিমনেশিয়ামে তিনদিনের এই প্রতিযোগিতায়, পুরুষ অনূর্ধ ৪৫ কেজি ওজন শ্রেণীতে চট্টগ্রামের সাজিদ ইসলাম এবং অনূর্ধ ৩৫ কেজিতে রংপুরের আদিবুর রহমান চ্যাম্পিয়ন হন। এদিকে নারীদের অনূর্ধ ৩৫ কেজি ওজন শ্রেণীতে চ্যাম্পিয়ন হন পঞ্চগড় জেলার তাসমিহা নওশিন। এবারের প্রতিযোগিতায় দেশের ২৫টি দলের ২৬০ জন প্রতিযোগী অংশ নেয়। বাশাআপ ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক খালেদ মনসুর চৌধুরী জানান, এই প্রতিযোগিতা থেকে জাতীয় দলের অনুশীলনের জন্য খেলোয়াড় বাছাই করা হবে।

আর্চারিতে সিটি গ্রুপের র্স্বন সন্ধান

জেলা পর্যায়ে ট্যালেন্ট হান্টের মাধ্যমে তরুণ তীরন্দাজদের খুঁজে বের করা এবং তাদের প্রতিভা বিকাশের সুযোগ করে দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ আর্চারি ফেডারেশনের সঙ্গে পাঁচ বছরের চুক্তি করলো সিটি গ্রুপ।

এই চুক্তির প্রথম বছরে আর্চারি ফেডারেশনকে ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা দেবে স্পন্সর প্রতিষ্ঠান সিটি গ্র“প। ‘গো ফর গোল্ড’ ক্যাম্পেইন অনুযায়ী ২০২০ সালের মধ্যে এশিয়ান গেমসে অন্তত: একটি পদক জেতা।

২০২২ সালে এশিয়ান গেমসে এবং ২০২৪ সালে বিশ্ব অলিম্পিকে গোল্ড মেডেল জেতা। বিওএ ভবনে চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আর্চারি ফেডারেশনের সভাপতি লে.জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) মঈনুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল এবং সিটি গ্র“পের নির্বাহী পরিচালক শোয়েব মো: আসাদুজ্জামান।

আবার‌ও বড় পরাজয় বাংলাদেশের

হিরো দশম এশিয়া কাপে আবার‌ও বড় পরাজয় স্বাগতিক বাংলাদেশের। আগের ম্যাচের ভুলগুলো ভারতের সঙ্গে শুধরে নেওয়ার প্রত্যয় ছিল। কিন্তু মাঠের খেলায় প্রত্যাশার সঙ্গে প্রাপ্তির কোনো মিল পা‌ওয়া গেলো না। তাই পাকিস্তানের মতো ভারতের কাছেও ৭-০ গোলের বড় পরাজয়।

মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়ামে শুক্রবার প্রথম কোয়ার্টারেই তিন গোল খেয়ে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশ। খেলার সপ্তম মিনিটে এগিয়ে যায় দুইবারের চ্যাম্পিয়ন ভারত। ডান দিক থেকে সতীর্থের পুশে গুরজান্ত সিংয়ের ফ্লিকে পরাস্ত গোলরক্ষক (১-০)।

দশম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন আকাশদীপ(২-০)। কিছুটা সময় পরই ললিত উপাধ্যায় স্কোরলাইন ৩-০ করেন।

খেলার ২০ মিনিটে আরও কোণঠাসা হয়ে যায় বাংলাদেশ। বাঁ দিক থেকে গুরজান্তের রিভার্স হিটে অমিত রোহিদাসের প্লেসিং ঠিকানা খুঁজে পায় (৪-০)। দ্বিতীয় কোয়ার্টারের আগ মুহূর্তে পেনাল্টি স্ট্রোক থেকে ব্যবধান আরও বাড়ান হারমনপ্রিত সিং (৫-০)।

তৃতীয় কোয়ার্টারে ভারতকে আটকে রাখতে সক্ষম হয় জিমিরা। এ অংশে কোনো গোল হজম করেনি বাংলাদেশ। তবে চতুর্থ কোয়ার্টারের শুরুতে পেনাল্টি কর্নার থেকে রামানদিপ সিং (৬-০) ও হারমানপ্রিত সিং (৭-০) ব্যবধান আরও বাড়ান।

জাপানকে ৫-১ গোলে হারিয়ে প্রতিযোগিতা শুরু করা ভারত টানা দুই জয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষে। একটি করে জয় ও ড্রয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় পাকিস্তান। ১ পয়েন্ট নিয়ে জাপান তৃতীয়। আর কোনো পয়েন্ট না পাওয়া বাংলাদেশ আছে তলানিতে।

এদিকে, শুক্রবার প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের সঙ্গে ২-২ ড্র করেছে জাপান। আগামী রোববার গ্রুপের শেষ ম্যাচে জাপানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

বিসিবি’র নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা

আগামী ৩১ অক্টোবর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী, ১৬ অক্টোবর খসড়া এবং ১৭ অক্টোবর চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে।

২০ অক্টোবর মনোনয়নপত্র তোলা ও ২৪ অক্টোবর দাখিল করার তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। যাচাই-বাছাই শেষে ২৯ অক্টোবর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের তারিখ নির্ধারণ করেছে নির্বাচন কমিশন। বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ১৭ অক্টোবর। তবে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী এই মধ্যবর্তী সময়ে বিসিবি পরিচালনার দায়িত্বেই থাকবে বর্তমান কমিটি। তবে কোন গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন না তারা।

বিসিবির নির্বাচন প্যানেলের সভা শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার ওমর ফারুক এসব তথ্য জানান।

স্টার স্পোর্টিং ‌ও স্বর্ণালী সংসদের জয়

এ্যাডটাচ প্রথম বিভাগ কাবাডি লিগের উদ্বিধনী দিনে জিতেছে স্টার স্পোর্টিং ক্লাব ‌ও স্বার্ণালী সংসদ। পল্টনের কাবাডি স্টেডিয়ামে, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ প্রথম ম্যাচে স্টার স্পোর্টিং ক্লাব ৪০-৩৯ পয়েন্টে সানসাইন স্পোর্টিং ক্লাবকে পরাজিত করে। দ্বিতীয় খেলায় স্বর্ণালী সংসদ ৭২ -২২ পয়েন্টে অর্বাচীন ক্রীড়া চক্রকে পরাজিত করে।

এরআগে, আজ মঙ্গলবার ‘এ্যাডটাচ প্রথম বিভাগ কাবাডি লিগের’ উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন বন্দর স্টিল ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের এমডি আবুল কালাম আজাদ, কাবাডি ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক ও অতিরিক্ত ডিআইজি (সংস্থাপন) হাবিবুর রহমান।

মালয়েশিয়ায় তায়কোয়ানডো দলের তিনটি রূপা জয়

মালয়েশিয়ায় ১৫তম আন্তর্জাতিক ক্লাব ‌ওপেন তায়কোয়ানডো প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশ দল তিনটি রূপাসহ ৯টি পদক জিতেছে।

প্রতিযোগিতায় দিপু চাকমা (বাংলাদেশ সেনাবাহিনী) পুমসে ক্যাটাগরিতে সিনিয়র ওপেন বিভাগে, সিনিয়র ওপেন স্পারিং ক্যাটাগরি পুরুষ বিভাগে অনূর্ধ্ব-৬৮ কেজি ওজন শ্রেনীতে উজ্জ্বল কুমার দেব (বাংলাদেশ আনসার ও ভিডিপি) ও লাবিবা ফাইরুজ হাসান স্পারিং ক্যাটাগরির জুনিয়র মহিলা বিভাগে অনূর্ধ্ব-৪৬ কেজি ওজন শ্রেণীতে একটি করে রূপার পদক জেতেন।

এছাড়া সিনিয়র ওপেন স্পারিং ক্যাটাগরি পুরুষ বিভাগে -৫৪ কেজি ওজন শ্রেণীতে ক্যওয়ান চাক, সিনিয়র ওপেন স্পারিং ক্যাটাগরি মহিলা বিভাগে -৬৭কেজি ওজন শ্রেণীতে নাজিফা থাসিন রায়না, +৭৩ কেজি ওজন শ্রেণীতে ফারিয়া আহমেদ, স্পারিং ক্যাটাগরির জুনিয়র মহিলা বিভাগে -৪৪কেজি ওজন শ্রেণীতে ফারহাত তাবাসসুম মৌনতা, -৫৯কেজি ওজন শ্রেণীতে ফ্রিয়ানা কোরাইশি, -৫৫কেজি ওজন শ্রেণীতে উসমা রিয়াজ রামিসা একটি করে তাম্র পদক অর্জন করেন।

উক্ত প্রতিযোগিতায় ২৬টি দেশের বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মোট ১৫০০ প্রতিযোগি অংশগ্রহন করে। চ্যাম্পিয়নশিপ শেষে বাংলাদেশ তায়কোয়ানডো দল গত ১১ সেপ্টেম্বর রাতে দেশে ফেরে।

ক্রীড়া সাংবাদিকদের স্বীকৃতি ‌ও সম্মাননার ম্যাক্স-বিএসপিএ নাইট আগামীকাল

দেশের ক্রীড়া সাংবাদিকদের স্বীকৃতি এবং সম্মাননা জানাতে বছর ঘুরে আবারো এলো ম্যাক্স-বিএসপিএ নাইট। আগামীকাল শনিবার বিকেল ৫টায় পল্টনের একটি অভিজাত হোটেলে অনুষ্ঠিত হবে ম্যাক্স-বিএসপিএ নাইটের দ্বিতীয় আসর।

এবার সম্মাননা জানানো হবে তিন প্রবীণ ক্রীড়ালেখককে। তারা হলেন ওবায়দুল হক খান, এসবি চৌধুরী শিশির ও তোহাবিন হক।

গতবারের মত এবারো ২০১৬ সালের সেরা ক্রীড়া সাংবাদিকের পুরষ্কার (তৌফিক আজিজ খান ট্রফি) দেয়া হবে। তাছাড়া নতুন চারটি ক্যাটাগরিতে এবার পুরষ্কার দেয়া হবে। ক্যাটাগরিগুলো হলো: সেরা সাক্ষাৎকার (আতাউল হক মল্লিক ট্রফি), সেরা সিরিজ রিপোর্ট (আব্দুল হামিদ ট্রফি), এক্সক্লুসিভ রিপোর্ট (বদি-উজ-জামান ট্রফি), সেরা ফিচার/ডকুমেন্টারি (রণজিৎ বিশ্বাস ট্রফি)। প্রত্যেক ক্যাটাগরিতে তিনজন মনোনীতদের নাম ইতোমধ্যে ঘোষণা করা হয়েছে। বিজয়ীর নাম অনুষ্ঠানে ঘোষণা করা হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সম্মানিত সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন জনপ্রিয় কন্ঠ শিল্পী অ্যান্ড্রু কিশোর।

কিরগিজস্তানে রুমান সানার সোনা জয়

ইন্টারন্যাশনাল আরচ্যারী টুর্ণামেন্টে বাংলাদেশ আরচ্যারী দলের রুমান সানা গোল্ড মেডেল জিতেছেন। কিরগিজস্তানের সুপারা চুনকারচকে, আজ শুক্রবার রিকার্ভ পুরুষ এককের গোল্ড মেডেল ম্যাচে রাশিয়ার নিকোলাভ অ্যালেক্সকে ৬-০ সেট পয়েন্টে পরাজিত করে গোল্ড মেডেল জেতেন।

রুমান সানা ইতোমধ্যে ২০১৫ সালে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে এশিয়া কাপ স্টেজ-২ ওয়ার্ল্ড র‌্যাংকিং টুর্ণামেন্টে রিকার্ভ এককে গোল্ড মেডেল, এবং ২০১৭ সালে ঢাকায় আইএসএসএফ ইন্টারন্যাশনাল সলিডারিটি আরচ্যারী চ্যাম্পিয়নশীপে দলগতভাবে ১টি এবং মিশ্র দলগতভাবে ১টিসহ মোট ৪টি গোল্ড মেডেল অর্জন করেন।

এছাড়াও একই দিনে মিশ্র দলগতভাবে ব্রোঞ্জ মেডেল ম্যাচে বাংলাদেশের রুমান সানা ও বিউটি রায় তাজিকিস্তানের সায়দোভ তিল্লো ও ফিরোজা জুবাইদোভার সাথে ৫-৩ সেট পয়েন্টের ব্যবধানে পরাজিত হয়। টুর্ণামেন্ট শেষে দলটি আগামীকাল শনিবার দেশে ফিরবে বাংলাদেশ আরচ্যারী দল।

হালিম সংবর্ধিত

‘গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে’ তৃতীয়বার জায়গা করে নেয়া আব্দুল হালিমকে সংবর্ধনা দিয়েছে ওয়ালটন। গত ১০ আগস্ট গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ আব্দুল হালিমের বল মাথায় নিয়ে সাইকেল চালিয়ে সবচেয়ে বেশি ১৩.৭৪ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করাকে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি দেয়।

এর আগে, ২০১১ ও ২০১৫ সালে দুটি রেকর্ড গড়েন বাংলাদেশের এই খ্যাতিমান ফুটবল প্রদর্শক। বিওএ ভবনে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশিদ ও ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার।

এ সময় আব্দুল হালিমকে পুরস্কার হিসেবে দুই লাখ টাকা ও একটি ওয়ালটনের এলইডি টিভি দেয়া হয়।

হালিমের আরও একটি গিনেস রেকর্ড

গিনেস রেকর্ড গড়ায় হ্যাটট্রিক করলেন আব্দুল হালিম।
ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় ২০১২ ও ২০১৬ সালে দুটি গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়েন আব্দুল হালিম। এবার আরো একটি রেকর্ড গড়লেন বাংলাদেশের এই খ্যাতিমান ফুটবল প্রদর্শক। বল মাথায় নিয়ে সাইকেল চালিয়ে সবচেয়ে বেশি দূরত্ব অতিক্রম করার রেকর্ড গড়েছেন তিনি (Greatest distance travelled on a bicycle balancing a football on the head)। গতকাল বৃহস্পতিবার তার সেই রেকর্ডের স্বীকৃতি দিয়েছে গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ। এর মধ্য দিয়ে হ্যাটট্রিক রেকর্ড গড়লেন মাগুরার এই কৃতি সন্তান।
চলতি বছরের জুন মাসের ৮ তারিখ শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে বল মাথায় নিয়ে সাইকেল চালিয়ে ১৩.৭৪ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে নতুন এই রেকর্ড গড়ার প্রচেষ্টা চালান হালিম। সেদিন সকাল ১১.৫৩ মিনিটে তিনি বল মাথায় নিয়ে সাইকেল চালানো শুরু করেন। প্রবল বাতাসের ঝাপটায় দুপুর ১টা ১২ মিনিটে তার মাথা থেকে বল পড়ে যায়। ততক্ষণে ৯১ ল্যাপে ১৩.৭৪ কিলোমিটার অতিক্রম করে ফেলেন তিনি। যা নতুন রেকর্ড। ২০১৬ সালে এই রেকর্ড গড়ার জন্য হালিম যখন গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেন তখন তারা কমপক্ষে ৫ কিলোমিটার অতিক্রম করার সীমা নির্ধারণ করে দিয়েছিল। তাদের বেধে দেওয়া সেই সীমা ১ ঘণ্টা ১৯ মিনিটে অতিক্রম করে হালিম ১৩.৭৪ কিলোমিটার করেন।
এরপর আনুষ্ঠানিকভাবে তার রেকর্ড গড়ার প্রচেষ্টার পুরো ভিডিও, স্থিরচিত্র এবং এ নিয়ে ইলেট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রকাশিত সংবাদের প্রমাণাদি গিনেস বুক কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেওয়া হয়। সেটি বিচার-বিশ্লেষণ করে আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় আব্দুল হালিমকে নতুন এই রেকর্ডের স্বীকৃতি দেয় গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ।
রেকর্ডের স্বীকৃতি পেয়ে আব্দুল হালিম যারপরনাই খুশি ও কৃতজ্ঞ, ‘আসলে অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আবেগে আমার কান্না আসতেছে। এটা আমার তৃতীয় রেকর্ড। এই রেকর্ড গড়ার ক্ষেত্রে প্রথমেই আমি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাব ওয়ালটন গ্রুপকে। তারা পৃষ্ঠপোষকতা না করলে হয়তো সবকিছু এত দ্রুত হত না।’ তিনি আরো বলেন, ‘সবার সহযোগিতা পেলে ইনশাল্লাহ ভবিষ্যতে দেশবাসীকে আরো রেকর্ড উপহার দেওয়ার চেষ্টা করব। আমার আরো দুটি রেকর্ড প্রক্রিয়াধীন আছে।’
উল্লেখ্য, গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড সৃষ্টিকারী আব্দুল হালিম ২০১২ সালে বল মাথায় রেখে হেঁটে দীর্ঘ পথ অতিক্রম করে বিশ্ব রেকর্ড গড়েছিলেন। এরপর বল মাথায় নিয়ে রোলার স্কেটিং জুতা পরে দ্রুততম সময়ে (২৭.৬৬ সেকেন্ড) ১০০ মিটার অতিক্রম করে ২০১৬ সালে নতুন একটি রেকর্ড গড়েন।

স্কেটিংয়ে সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হলেন বাংলাদেশ রোলার স্কেটিং ফেডারেশনের কর্মকর্তারা। প্রতিটি পদে একজন করে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ায় সবাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। আগামী ৯ আগস্ট নির্ধারিত ছিল ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন। ২১ সদস্যের কমিটির ২০ জনের জন্য ছিল নির্বাচনী প্রক্রিয়া। সভাপতি মনোনয়ন দেয় সরকার। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ এই ফেডারেশনের সরকার মনোনীত সভাপতি।
১ আগস্ট ছিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের দিন। কেউ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার না করায় এবং কোনো পদে একাধিক প্রার্থী না থাকায় বুধবার নির্বাচনের জন্য গঠিত কমিশন সবাইকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করে।
দ্বিতীয়বারের মতো সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন আহমেদ আসিফুল হাসান। তিন সহ-সভাপতি সালমান ওবায়দুল করিম, মো. শহিদুল্লাহ ও মো. কামাল হোসেন। দুই যুগ্ম সম্পাদক আশরাফুল আলম মাসুম ও জুম্মন রাজ, কোষাধ্যক্ষ ফিরোজুল ইসলাম।
সদস্যরা হলেন : শমসের আলী খান, মো. নিরব, সাহিদুর রহমান, কাজী মুশফিকুর রহমান, মিনান আরা, আসিফ ইকবাল, ইমরান হাসান সোহাগ, মো. আরিফ-উল-ইসলাম, আহাদ হোসেন, হাবিবুর রহমান শেখ, শফিকুর রহমান, নুরুল ইসলাম ও নওসিফ হোসেন।

পুরুষ বিভাগে পিডিবি ও নারী বিভাগে আনসার চ্যাম্পিয়ন

জাতীয় ভলিবল প্রতিযোগিতায় পুরুষ বিভাগে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ও নারী বিভাগে বাংলাদেশ আনসার চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।
মিরপুরের শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইনডোর স্টেডিয়ামে, পুরুষ বিভাগের ফাইনালে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ৩-১ সেটে বাংলাদেশ সেনা বাহিনীকে পরাজিত করে। তারা জয় পায় ১২-২৫, ২৫-২০, ২৫-২১ ও ২৫-২৩ পয়েন্টে। স্থান নির্ধারনী খেলায় পুরুষ বিভাগে বাংলাদেশ নৌ বাহিনী ৩-১ সেটে তিতাস গ্যাসকে পরাজিত করে তৃতীয় হয়।
এদিকে, মহিলা বিভাগের ফাইনালে বাংলাদেশ আনসার ৩-০ সেটে বিজেএমসিকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়। তারা জেতে ২৫-১৬, ২৫-২০, ২৫-২২ পয়েন্টে। মহিলা বিভাগে রাজশাহী জেলা ৩-১ সেটে চট্টগ্রাম জেলাকে পরাজিত করে প্রতিযোগিতার ৩য় স্থান অধিকার করে।
ফাইনাল খেলা শেষে বিজয়ী ও বিজিত দলকে পুরস্কৃত করেন কৃষি মন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের এমডি ও সিইও ফরমান আর চৌধুরী, ভলিবল ফেডারেশনের সহ-সভাপতি আতাউর রহমান ভুইয়া (মানিক) ও সাধারণ সম্পাদক আশিকুর রহমান মিকু।

হকির নির্বাচন ২৭ আগস্ট

একটি পক্ষ আপ্রাণ চেষ্টা করেছিল বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের নির্বাচন এশিয়া কাপের পরে নিয়ে যেতে। আরেক পক্ষ চাইছিল মেয়াদ শেষ হওয়ার পরই যেন নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। দুই পক্ষের দুই রকম চাওয়াতে ক্রীড়া প্রশাসনও পড়েছিল দোটানায়। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সংশ্লিষ্ট বিভাগ নির্বাচন আয়োজনে প্রস্তুত থাকলেও তফসিল ঘোষণা করতে পারেননি উপর মহলের সবুজ সংকেত না পাওয়ায়।
উপর মহল মানে- যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার। অবশেষে সেই সবুজ সংকেত পেয়ে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করেছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ। ২৭ আগস্ট ভোটের দিন ধার্য করে রবিবার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে হকির নির্বাচনের জন্য গঠিত কমিশন।
তফসিল অনুযায়ী সোমবার প্রকাশ করা হবে খসড়া ভোটার তালিকা। মনোনয়নপত্র বিতরণ ১০ ও ১৩ আগস্ট, দাখিল ১৭ আগস্ট এবং বাছাই ২০ আগস্ট। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার ও চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ ২৩ আগস্ট। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরাতন ভবনের নিচ তলার সভা কক্ষে ২৭ আগস্ট সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৩ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ হবে।
২৯ সদস্যের হকি ফেডারেশনের নির্বাহী কমিটির ভোট হবে ২৮ টি পদে (৫টি সহসভাপতি, ১টি সাধারণ সম্পাদক, ২টি যুগ্ম সম্পাদক, ১টি কোষাধ্যক্ষ এবং ১৯ টি সদস্য)। সভাপতি মনোনয়ন দেবে সরকার।

আন্তর্জাতিক রেটিং দাবার পুরস্কার

সাইফ পাওয়ারটেক আন্তর্জাতিক রেটিং দাবা প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হন আন্তর্জাতিক মাস্টার মোহাম্মদ মিনহাজ উদ্দিন ও রানার-আপ গ্র্যান্ড মাস্টার জিয়াউর রহমান। আজ সোমবার এনএসসি-র সভাকক্ষে তাদেরকে পুরস্কৃত করা হয়।
চ্যাম্পিয়ন আন্তর্জাতিক মাস্টার মোহাম্মদ মিনহাজ উদ্দিন ও রানার-আপ গ্র্যান্ড মাস্টার জিয়াউর রহমানকে সাড়ে ৮৭ হাজার টাকা করে অর্থ পুরস্কার দেয়া হয়। প্রতিযোগিতার তৃতীয়, আন্তর্জাতিক মাস্টার আবু সুফিয়ান শাকিল ও চতুর্থ ফিদে মাস্টার তৈয়বুর রহমানকে চল্লিশ হাজার টাকা করে অর্থ পুরস্কার দেয়া হয়।
পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিরেন র‌্যাব-এর মহাপরিচালক ও দাবা ফেডারেশনের সভাপতি বেনজীর আহমেদ। এ সময় স্পন্সর প্রতিষ্ঠান সাইফ পাওয়ারটেকের এমডি তরফদার রুহুল সাইফ, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান কে এম শহিদউল্যা উপস্থি ছিলেন।

সামার অ্যাথলেটিক্সে সেরা সেনাবাহিনী

জাতীয় সামার অ্যাথলেটিক্সের সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন সেনাবাহিনীর দুই অ্যাথলেট আল আমিন ও সুমি আক্তার।
১৫০০ মিটার ও পাঁচ হাজার মিটার দৌড়ে র্স্বন পদক ও ৮০০ মিটারে ব্রোঞ্জ জেতা সেনাবাহিনীর আল আমিনকে পুরুষ বিভাগের সেরা নির্বাচিত করেছেন বিচারকরা। আর মেয়েদের বিভাগে সেরা র্নিবাচিত সেনাবাহিনীর সুমি আক্তার ৮০০ মিটার, ১৫০০ মিটার ও ৩ হাজার মিটারে র্স্বন পদক ও ৪০০ মিটারে রূপা জিতেছেন।
এবারের প্রতিযোগিতায় সেনাবাহিনী ১৮টি সোনা, ১৭টি রূপা ও ১৩টি ব্রোঞ্জসহ মোট ৪৮টি পদক নিয়ে সেরা হয়েছে। দ্বিতীয় নৌবাহিনী জিতেছে ১২টি সোনা, ১১টি রূপা ও ১০টি ব্রোঞ্জসহ মোট ৩৩টি পদক। আর ৪টি সোনা, ৩টি রূপা ও ৪টি ব্রোঞ্জসহ মোট ১১টি পদক নিয়ে তৃতীয় হয়েছে বাংলাদেশ জেল।
শনিবার প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় ও শেষ দিনে ছেলেদের ৫ হাজার মিটারে আল আমিন সোনা জিততে সময় নেন ১৬ মিনিট ৩ দশমিক ১০ সেকেন্ড।
১০০ মিটার রিলেতে মেজবাহ আহমেদ-আব্দুর রউফ-এম ইসমাইল-কাজী শাহ ইমরান ৪১ দশমিক ২০ সেকেন্ড সময় নিয়ে নৌবাহিনীকে সোনা এনে দিয়েছেন। ১০০ মিটারে মেয়েদের বিভাগে সুস্মিতা-শরিফা-বর্ষা-কনা সেনাবাহিনীকে সোনা জেতান, ৪৯ দশমিক ৪০ সেকেন্ডে।
ছেলেদের পোল ভোল্টে শরিফুল ইসলাম (৩ দশমিক ৮০ মিটার), জ্যাভলিন থ্রোয়ে পাপিয়া আক্তার (৩৮ দশমিক ৯৭ মিটার), শটপুটে মামুন সিকদার (১৩ দশমিক ৭৬ মিটার) সোনা জিতেছেন।
মেয়েদের হাইজাম্পে রত্না খাতুন (১ দশমিক ৬০ মিটার), ৩ হাজার মিটার স্প্রিন্টে সুমী আক্তার (১২ মিনিট ৮ দশমিক ৭০ সেকেন্ড) সোনা জিতেছেন। ২০ কিলোমিটার হাঁটায় আব্দুর রহিম (১ ঘণ্টা ৪৮ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড), ১০০ মিঃ হার্ডলস সুমিতা রানী দাস (১৫ দশমিক ৩০ সেকেন্ড) সেরা হয়েছেন।
আয়েশা আক্তার আয়েশা আক্তার ৪০০ মিটারে ছেলেদের বিভাগে সাইফুল ইসমাইল খান (৪৯ দশমিক ১০ সেকেন্ড) ও মেয়েদের বিভাগে আয়েশা আক্তার (৫৯ দশমিক ৩০ সেকেন্ড) সোনা জিতেছেন।
ডিসকাস থ্রোয়ে জাফরিন আক্তার (৩৪ দশমিক ৬৫ মিটার), ৩০০০ মিটারে সোহেল রানা (১০ মিনিট ২৯ সেকেন্ড), ট্রিপল জাম্পে এম মনজুরুল মোল্লা (১৪ দশমিক ৮৩ মিটার), ৮০০ মিটারে সুমি আক্তার (২ মিনিট ২৯ দশমিক ৭০ সেকেন্ড), ডিসকাস থ্রোয়ে (পুরুষ) মামুন সিকদার (৪৩ দশমিক ৭০মিটার), হ্যামার থ্রোয়ে লিটন রহমান (৪৬ দশমিক ৮৮ মিটার), ১১০ মিটার হার্ডলসে মির্জা হাসান (১৪ দশমিক ৮০ সেকেন্ড), ৮০০ মিটার দৌড় (পুরুষ) খোন্দকার কিবরিয়া (১ মিনিট ৫৭ দশমিক ৪০ মিনিট) সেরা হয়েছেন।

এদিকে, লং জাম্পে এম আল আমিন (৭ দশমিক ৩৬ মিটার), জ্যাভলিন থ্রোয়ে নাজমুল হাসান (৬২ দশমিক ৫৬ মিটার), ১০ হাজার মিটার দৌড়ে সোহেল রানা (৩৬ মিনিট ৭ দশমিক ১০ সেকেন্ড), ৪০০ মিটার রিলের পুরুষ বিভাগে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী (৩ মিনিট ১৮ দশমিক ৮০ সেকেন্ড) ও মহিলা বিভাগে নৌবাহিনী ৪ মিনিট ০ দশমিক ১০ সেকেন্ড) সেরা হয়।

সিনথিয়ার ডাবল ক্রাউন

স্বাধীনতা দিবস ব্যাডমিন্টন প্রতিযোগিতায় একক ও দ্বৈতে চ্যাম্পিয়ন হয়ে ডাবল ক্রাউন লাভ করে সিনথিয়া ফাহারিয়া।
ধানমন্ডিস্থ সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স চূড়ান্ত খেলায় একক – এ সিনথিয়া ফাহারিয়া ৩০-২৬ পয়েন্টে আদৃতা সাহা শ্রেয়াকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয় এবং দ্বৈতে সিনথিয়া ফাহারিয়া ও মরিয়ম আক্তার সুইটি ৩০-২২ পয়েন্টে সানজিদা তামান্না ঐশী ও জাহিন বিনতে রেজাকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়। ফাইনাল খেলা শেষে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আসাদুল ইসলাম বিজয়ী ও বিজিত খেলোয়াড়দের মাঝে পুরস্কার প্রদান করেন। এ সময় বাংলাদেশ মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সভানেত্রী মাহাবুব আরা বেগম গিনি, সাধারণ সম্পাদিকা হামিদা বেগম, ব্যাডমিন্টন সাব-কমিটির আহবায়ক কামরুন্নেছা আশরাফ দীনা এবং সদস্য সচিব সৈয়দা মরিয়ম তারেক উপস্থিত ছিলেন।

সামার অ্যাথলেটিক্সে ২০০ মিটারে সাইফুলের বাজিমাত

জাতীয় সামার অ্যাথলেটিক্সে ২০০ মিটারে সেরা হয়েছেন সাইফুল ইসলাম ও সোহাগী আক্তার।
বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুক্রবার ২১.৬০ সেকেন্ড সময় নিয়ে গতবারের সেরা শরীফুল ইসলামকে পেছনে ফেলেন বাংলাদেশ জেলের সাইফুল। শরীফুল ২১.৮০ সেকেন্ড সময় নিয়ে দ্বিতীয় ও মেজবাহ আহমেদ ২২.০০ সেকেন্ড সময় নিয়ে তৃতীয় হয়েছেন।
মেয়েদের ২০০ মিটারে দ্বিতীয়বারের মতো সেরা হওয়া বাংলাদেশ নৌবাহিনীর সোহাগী ২৫.১০ সেকেন্ডে দৌড় শেষ করেন। বাংলাদেশ জেলের জাকিয়া সুলতানা (২৫.৬০ সেকেন্ড) দ্বিতীয় ও আয়শা আক্তার (২৫.৯০ সেকেন্ড) তৃতীয় হয়েছেন।
২০১৫ সালে জুনিয়র অ্যাথলেটিক্সে ১০০ মিটার (১০.৫৩ সেকেন্ড) ও ২০০ মিটারে (২১.৬০) রেকর্ড গড়ে সোনা জেতা সাইফুল মনে করেন, শুরুটা ভালো হওয়ায় সেরা হতে পেরেছেন তিনি। শনিবার হতে যাওয়া ১০০ মিটার স্প্রিন্টে গতবারের সেরা মেজবাহকেও হারানোর লক্ষ্য ১৮ বছর বয়সী এই অ্যাথলেটের।

বিশ্ব যুব অ্যাথলেটিক্সের সেমিফাইনালে জহির রায়হান

লক্ষ্যই ছিলো তার বিশ্ব যুব অ্যাথলেটিক চ্যাম্পিয়নশিপে সেমিফাইনালে উঠার। কথা রাখলেন বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি) -র ছাত্র মোহাম্মদ জহির রায়হান। বুধবার দুপুরে নাইরোবিতে অনুষ্ঠিত ৪০০ মিটার দৌড়ের হিটে তিনি ৪৮.০০ সেকেন্ড সময় নিয়ে উঠে যান সেমিফাইনালে। অ্যাথলেটিকের যেকোনো পর্যায়ের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে এটাই বাংলাদেশের কোনো অ্যাথলেটের প্রথম সেমিফাইনালে ওঠা। এবং সেরা সাফল্য। বাংলাদেশের অ্যাথলেটিকে নতুন ইতিহাস গড়লেন শেরপুরের এ যুবক।
যুব হোক কিংবা সিনিয়র- বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের কোনো অ্যাথলেটের পদকের স্বপ্ন দেখা বাড়াবাড়ি। জহিরও সেটা দেখছেন না। তবে সেমিতে ওঠার লক্ষ্য নিয়েই তিনি নাইরোবি গিয়েছিলেন। গত মে মাসে থাইল্যান্ডে অনুষ্ঠিত এশিয়ান যুব অ্যাথলেটিকের সেমিফাইনালে জহির সময় নিয়েছিলেন ৪৯.১২ সেকেন্ড। নাইরোবিতে তিনি টাইমিং কমিয়েছেন ১.১২ সেকেন্ড।

কিশোরগঞ্জে অটিস্টিক ক্রীড়া সমাপ্ত

আনন্দমুখর একটি দিন কাটালো কিশোরগঞ্জের অটিস্টিক শিশুরা। কিশোরগঞ্জ জেলা ক্রীড়া অফিসের আয়োজনে শেষ হলো অটিস্টিক ক্রীড়া উৎসব। জেলার চারটি বুদ্ধি-প্রতিবন্ধী স্কুলের ২৫ জন খেলোয়াড় অংশ নেয় এই উৎসবে।
ফুটবল ও ক্রিকেটের পাশাপাশি এই আয়োজনে ছিলো প্রতিবন্ধী বালক এবং বালিকাদের দৌড়। তবে মূল আকর্ষণ ছিলো ঢাকা থেকে আগত স্পেশাল অলিম্পিকস কমিটির প্রতিনিধি দলের ‘ইয়ং অ্যাথলেট প্রোগ্রাম’। অনূর্ধ্ব-৯ বৎসর বয়সী অটিস্টিক খেলোয়াড় এবং তাদের অভিভাবকদের নিয়ে এই প্রোগ্রামের নেতৃত্ব দেন স্পেশাল অলিম্পিকস্ কমিটির জাতীয় পরিচালক ফারুকুল ইসলাম।

বিশেষ এই শিশুদের খেলাধুলার সুযোগ করে দেয়ার আহবান জানান তিনি। স্পেশাল অলিম্পিকে বাংলাদেশের সুনাম আরো ছড়িয়ে দিতে কিশোরগঞ্জের প্রতিভাবান খেলায়োড়দের উন্নত প্রশিক্ষণের সুযোগ করে দেয়ার ঘোষণাও দেন ফারুকুল ইসলাম।
শেষে প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের পুরস্কৃত করেন কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক আজিমুদ্দিন বিশ্বাস। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জ সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মাসউদ এবং জেলা ক্রীড়া অফিসার আল-আমিন সবুজ।

বাংলাদেশে আসছেন মার্গারিটা মামুন

এ বছরই বাংলাদেশে আসার পরিকল্পনা করেছেন রিও অলিম্পিকে স্বর্ণজয়ী জিমন্যাস্ট বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত মার্গারিটা মামুন। বাবা বাংলাদেশি হওয়ায় পিতৃভূমির টানে এদেশে আসার কথা জানিয়েছেন এ অ্যাথলেট। চলতি বছরের অক্টোবর কিংবা নভেম্বরে বাংলাদেশে আসতে পারেন বলে জানিয়েছেন জিমন্যাস্ট মার্গারিটা মামুন। তার মা রাশিয়ান হলেও বাবা বাংলাদেশী।

বাবা মারা যাওয়ার পর পৈতৃক ভূমি ভ্রমণের কথা জানিয়েছেন তিনি। পরিকল্পনা অনুযায়ী বাংলাদেশে আসলে বাবার মৃত্যর পর এটাই হবে তার এ দেশ সফর। রিও অলিম্পিক-২০১৬ তে রিদমিক জিমন্যাস্টে সেরাটার জন্য স্বর্ণপদক জেতেন মার্গারিটা মামুন। স্বর্ণ জয়ের পাশাপাশি অলিম্পিকে নতুন রেকর্ড গড়ে তার পারফরম্যান্স। রিও অলিম্পিকে ৭৬.৪৮৩ স্কোর নিয়ে রেকর্ড গড়েন ২১ বছর বয়সি এ অ্যাথলেট।

তার এ এম কৃতির মাত্র ছয় দিন পর মস্কোতে মারা যান বাবা আবদুল্লাহ আল মামুন। পাকস্থলির ক্যান্সারের আক্রান্ত হয়ে ৫২ বছর বয়সে মৃত্যবরণ করেন মেরিন ইঞ্জিনিয়ার আবদুল্লাহ আল মামুন। বাংলাদেশ সফর নিয়ে গালফ নিউজকে মার্গারিটা মামুন বলেন, আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি সেখানে (বাংলাদেশ) গিয়ে বাবার পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করব। তার মৃত্যর পর সেখানে এটাই আমার প্রথম সফর হতে পারে।

কমনওয়েলথ দাবায় বাংলাদেশ

কমনওয়েলথ দাবায় বাংলাদেশের অংশগ্রহণ নতুন নয়। তবে ৩ জুলাই রোববার ভারতের নয়া দিল্লিতে শুরু হতে যাওয়া এবারের আসরে বাংলাদেশ থেকে যাচ্ছে বড় একটি দল। ২১ সদস্যের দলে আছেন ৪ জন গ্র্যান্ডমাস্টার, ২ জন মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার, ২ জন ফিদেমাস্টার এবং ১ জন মহিলা ফিদেমাস্টার। দাবাড়–রা রোববার ৮টায় দিল্লির উদ্দেশে রওনা হবে।
এর আগে কখনো কমনওয়েলথ দাবায় এত বড় দল পাঠায়নি ফেডারেশন। এমনকি ফেডারেশনের খরচে আগে কখনো কমনওয়েলথ দাবায় দল পাঠানো হয়নি। বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের বর্তমান নির্বাচিত কমিটির এ উদ্যোগকে প্রশংসনীয় উল্লেখ করে ধন্যবাদ জানিয়েছেন গ্র্যান্ডমাস্টার জিয়াউর রহমান। তিনিও যাচ্ছেন এ প্রতিযোগিতায়। সঙ্গে জিয়ার পুত্র তাহসিন তাজওয়ার জিয়াও। সে অংশ নেবে অনূর্ধ্ব-১২ বিভাগে।
দেশের চার গ্র্যান্ড মাস্টার জিয়াউর রহমান, মোল্লা আব্দুল্লাহ আল রাকিব, এনামুল হোসেন রাজীব ও নিয়াজ মোরশেদ, দুই মহিলা আন্তর্জাতিক মাস্টার শামীমা আক্তার লিজা ও রানী হামিদ, ফিদে মাস্টার তৈয়বুর রহমান ও মহিলা ফিদে মাস্টার শারমীন সুলতানা শিরিন ওপেন বিভাগে অংশ নিচ্ছেন।
বয়স ভিত্তিক ক্যাটাগরিতে অনুর্ধ্ব-২০ ওপেন বিভাগে আকিব জাওয়াদ, অনুর্ধ্ব-২০ বালিকা বিভাগে উম্মে তাসলিমা প্রতিভা তালুকদার, অনুর্ধ্ব-১৮ ওপেন বিভাগে অনত চৌধুরী, অনুর্ধ্ব-১৬ ওপেন বিভাগে নাইম হক, অনুর্ধ্ব-১৬ বালিকা বিভাগে কাজী জেরিন তাসনিম, অনুর্ধ্ব-১৪ ওপেন বিভাগে ফিদে মাস্টার মোহাম্মদ ফাহাদ রহমান, অনুর্ধ্ব-১৪ বালিকা বিভাগে নোশিন আঞ্জুম, অনুর্ধ্ব-১২ ওপেন বিভাগে তাহসিন তাজওয়ার জিয়া, অনুর্ধ্ব-১২ বালিকা বিভাগে জান্নাতুল ফেরদৌস, অনুর্ধ্ব-১০ ওপেন বিভাগে সাজিদুল হক ও সৈয়দ রিদওয়ান, অনুর্ধ্ব-৮ ওপেন বিভাগে মনোন রেজা নীড় এবং সিনিয়র বিভাগে উর্ধ্ব-৬০ এ হানিফ মোল্লা অংশ নিচ্ছেন।
এ উপলক্ষে ১ জুলাই শনিবার সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তথ্য দেন দাবা ফেডারেশন কর্মকতর্দারা। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ দাবা ফেডারেশনের সহ সভাপতি কে এম শহিদউল্যা, যুগ্ম সম্পাদক মনিরুজ্জামান পলাশ, কার্যনির্বাহী সদস্য আঞ্জুমান আরা আকসির ও রফিকুল ইসলাম, ন্যাশনাল ইন্সট্রাক্টর মাহমুদা হক চৌধুরী মলি ও আন্তর্জাতিক দাবা বিচারক মো. হারুন অর রশিদ।

আগামীকাল রোববার বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবস

আগামীকাল রোববার ২ জুলাই বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবস। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও এই দিবসটি উদযাপিত হবে। আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থার (এআইপিএস) অনুমোদিত সংগঠন হিসেবে বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি দিবসটি পালন করবে। বিশ্বের দুই শতাধিক দেশে একযোগে উদযাপিত হবে দিবসটি।
১৯২৪ সালের ২ জুলাই ফ্রান্সের প্যারিসে আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থার (এআইপিএস) আত্মপ্রকাশ ঘটে। ওইদিনটিকেই বিশ্ব ক্রীড়া সাংবাদিক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। ১৯৯৫ সাল থেকে বাংলাদেশে দিবসটি উদযাপিত হচ্ছে।
বিশেষ এই দিনে, দেশের সব ক্রীড়া সাংবাদিক ও ক্রীড়ালেখকদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছে বাংলাদেশ ক্রীড়ালেখক সমিতি। রোববার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে ক্রীড়ালেখক সমিতি কার্যালয়ে রাত আটটায় কেক কেটে ঘরোয়া পরিবেশে দিবসটি উদযাপন করা হবে।
পরর্বতীতে বিএসপিএ নাইট অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দেশের ক্রীড়া সাংবাদিকদের কাজের স্বীকৃতি যেমন দেয়া হবে ঠিক তেমনি প্রথা মেনে এআইপিএস ডে সংবর্ধনাও জানানো হবে দেশের প্রবীন ক্রীড়া সাংবাদিক ও লেখকদের।

মেজবাহ যাবেন বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশীপে

অ্যাথলেটিক্সের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে যাচ্ছেন বাংলাদেশের দ্রুততম মানব মেজবাহ আহমেদ। মস্কো, বেইজিংয়ের পর এবার তিনি অংশ নেবেন আগামী ৪ থেকে ১৩ আগস্ট লন্ডনে অনুষ্ঠিতব্য আইএএএফ ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপের ১৬তম আসরে।
ট্র্যাকের রাজার আসনে প্রথম বসেছিলেন ২০১৩ সালে বাংলাদেশ গেমসে। সেই থেকে মেজবাহ আহমেদের কাছ থেকে শ্রেষ্ঠত্বের এই মুকুট কেউ কেড়ে নিতে পারেননি। এক এক করে ৫ বার ১০০ মিটারে দেশসেরা হন নৌবাহিনীর এই অ্যাথলেট।
আগামী ২০ জুলাই শুরু হবে সামার অ্যাথলেটিক মিট। সেখানে মেজবাহর লক্ষ্য ডাবল হ্যাটট্রিক। দ্রুততম মানবের খেতাব ধরে রাখতে পারলে অনন্য এক রেকর্ড গড়াও হবে বাগেরহাটের এই তরুণের।

ঘরের ট্র্যাকে রাজত্ব করা মেজবাহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সবচেয়ে বড় আসর বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপেও করতে যাচ্ছেন। মস্কো, বেইজিংয়ের পর এবার তিনি অংশ নেবেন আগামী ৪ থেকে ১৩ আগস্ট লন্ডনে অনুষ্ঠিতব্য আইএএএফ ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপের ১৬তম আসরে।
ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশের কোনো অ্যাথলেট প্রাথমিক পর্ব অতিক্রমের স্বপ্নই দেখেন না। চোখ থাকে নিজের সেরা টাইমিং করা।
মেজবাহসহ ১৮ অ্যাথলেট এখন ভারতের ভুবনেশ্বর শহরে প্রস্তুতি নিচ্ছেন এশিয়ান অ্যাথলেটিক চ্যাম্পিয়নশিপের জন্য। বাংলাদেশ অ্যামেচার অ্যাথলেটিক ফেডারেশনের উদ্যোগ এবং ইন্ডিয়া অ্যামেচার অ্যাথলেটিক ফেডারেশনের সহযোগিতায় বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা এ সুযোগ পেয়েছেন প্রতিযোগিতার আগে। ৬ থেকে ৯ জুলাই ভুবনেশ্বরেই অনুষ্ঠিত হবে এই চ্যাম্পিয়নশিপ।
মেজবাহ আহমেদ ২০১৩ সালে রাশিয়ার মস্কোয় অনুষ্ঠিত ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপে ১০০ মিটার স্প্রিন্টে দৌড়েছিলেন ১১.২৪ সেকেন্ড সময় নিয়ে। ২০১৫ সালে চীনের বেইজিংয়ে সময় নিয়েছিলেন ১১.১৩ সেকেন্ড। সবশেষ রিও অলিম্পিকে মেজবাহ সময় নিয়েছিলেন ১১.৩৪ সেকেন্ড। এসএ গেমসে মেজবাহর সময় ছিল ১০.৭২ সেকেন্ড। দ্রুততম মানবের খেতাব ধরে রাখতে সবশেষ জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপে মেজবাহর টাইমিং ছিল ১০.৬৩ সেকেন্ড।

মহিলা বেসবলের এন্ট্রি আহ্বান

বাংলাদেশ বেসবল-সফটবল এসোসিয়েশনের উদ্যোগে আগামী ১২-১৪ জুলাই (বুধ, বৃহস্পতি ও শুক্রবার) আন্ত:কলেজ মহিলা বেসবল চ্যাম্পিয়নশিপ অনুষ্ঠিত হবে। ঢাকার ধানমন্ডিস্থ সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স মাঠে অনুষ্ঠিতব্য তিনদিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য কলেজগুলোকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। আগ্রহী কলেজগুলোকে ১০ জুনের মধ্যে মাওলানা ভাষানী হকি স্টেডিয়ামে বেসবল-সফটবলের অফিস ২৩৯ কক্ষে প্রতিষ্ঠানের প্যাডে ১৫ জন খেলোয়াড় ও একজন কর্মকর্তার নাম সহ এন্ট্রি পাঠানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।
আন্ত:কলেজ মহিলা বেসবল প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী দলগুলোকে প্রশিক্ষণ দিয়ে সহযোগিতা করা হবে বলে জানায়, বাংলাদেশ বেসবল-সফটবল এসোসিয়েশন।

নারী বিভাগে চ্যাম্পিয়ন আনসার

নারী বিভাগে স্যান্ড সাওলো ইভেন্টে ১০টি সোনা, ১টি সিলভার ও ৩টি ব্রোঞ্জসহ মোট ১৪টি পদক নিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার। আর রানার্সআপ হয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। তারা ৫টি স্বর্ণ, ৭টি সিলভার ও ৫টি ব্রোঞ্জসহ মোট ১৭টি পদক জয় করে। আর ২টি স্বর্ণ, ২টি সিলভার ও ৫টি ব্রোঞ্জ নিয়ে তৃতীয় হয়েছে যশোর জেলা।
বৃহস্পতিবার বিকেলে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে বিজয়ী দল ও খেলোয়াড়দের হাতে পুরস্কার তুলে দেন বাংলাদেশ উশু এসোসিয়েশনের সভাপতি ড. আবদুস সোবহান গোলাপ। এ সময় যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় উপস্থিত ছিলেন। সেইসঙ্গে বাংলাদেশ উশু এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহ ভূইয়া উপস্থিত ছিলেন। এবারের চ্যাম্পিয়নশীপে ৮টি সার্ভিসেস টিম ও ২৮টি জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ ৩৫টি উশু দলের প্রায় ৩৫০ জন প্রতিযোগি অংশ নেয়।

কারাতে প্রশিণ কর্মশালা

মান উন্নয়ন, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় ভাল ফলাফল অর্জনের লক্ষ্যে আজ বৃহস্পতিবার (২৫মে) জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমন্যাশিয়ামে দিনব্যাপী কারাতে প্রশিক্ষণ কর্মশালা শেষ হয়। দুপুরে এই কর্মশালার উদ্বোধন করেন জনপ্রশাসন মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র সচিব ও ফেডারেশনের সভাপতি ড. মো: মোজাম্মেল হক খান। এসময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক শেখ আলী আহসান বাদলসহ অন্যান্যরা। প্রশিক্ষণ কর্মশালাতে ফেডারেশনের অন্তভুক্ত প্রশিক্ষক ও প্রশিক্ষনার্থী (ছেলে ও মেয়ে) প্রায় ২৫০জন অংশ গ্রহন করে। প্রশিক্ষণ কর্মশালা পরিচালনা করেন মজিবর রহমান খান, হুমায়ুন কবির ব্ল্যাক বেল্ট ৬ষ্ঠ ডান ওয়ার্ল্ড কারাতে ফেডারেশন, ব্ল্যাক বেল্ট ৫ম ডান মোজাম্মেল হক মিলন ও শেখ ইছানুর রহমান এহসান।

তাউলু ইভেন্টে সেরা যশোর

শেখ রাসেল জাতীয় উশুর তাউলু ইভেন্টে সেরা হয়েছে যশোর। বুধবার শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় দিনে তাউলু ইভেন্টে যশোর দু’টি স্বর্ণ ও একটি রুপা, বিজেএমসি একটি করে সোনা ও রুপা এবং বিকেএসপি একটি স্বর্ণপদক জয় করেছে।
আগামীকাল বৃহস্পতিবার প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি। উশু অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ড. আবদুস সোবহান গোলাপের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত থাকবেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় এমপি, চায়না বাংলা সিরাক্সি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিরাজুল ইসলাম মোল্লা ও উশু এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মো: আলমগীর শাহ ভূইয়া । এবারের চ্যাম্পিয়নশীপে ৩৫টি উশু দলের প্রায় সাড়ে তিনশ’ প্রতিযোগি অংশ নিচ্ছেন।

ওয়ালটন মহিলা দল চ্যাম্পিয়ন

ওয়ালটন ১২তম ঢাকা আই.টি.এফ তায়কোয়নদো প্রতিযোগিতায় মহিলা সিনিয়র বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ওয়ালটন তায়কোয়নদো দল। আর পুরুষ সিনিয়র বিভাগে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বসুন্ধরা গ্রুপ তায়কোয়নদো দল।
মহিলা সিনিয়র বিভাগে ওয়ালটন তায়কোয়নদো দল ৪টি স্বর্ণ ও ১টি রৌপ্য জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়। আর সেন্ট্রাল তায়কোয়নদো অ্যাসোসিয়েশন ১টি স্বর্ণ ও ৩টি রৌপ্য জিতে রানার্স-আপ হয়। এদিকে পুরুষ সিনিয়র বিভাগে বসুন্ধরা গ্রুপ তায়কোয়নদো দল ৪টি স্বর্ণ ও ৬টি রৌপ্য জিতে চ্যাম্পিয়ন হয়। আর সেন্ট্রাল তায়কোয়নদো অ্যাসোসিয়েশন ১টি স্বর্ণ জিতে রানার্স-আপ হয়।

প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করে ওয়ালটন গ্রুপের অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর নিয়ামুল হক ও বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক তায়কোয়নদো অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সোলায়মান সিকদার।

শেখ রাসেল ১২তম জাতীয় উশু শুরু

৩৫টি দল নিয়ে শুরু হয়েছে শেখ রাসেল ১২তম জাতীয় উশু চ্যাম্পিয়নশীপ। মঙ্গলবার সকালে শেখ রাসেল রোলার স্কেটিং কমপ্লেক্সে তিনদিনের এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়, বাংলাদেশ উশু এসোসিয়েশনের সভাপতি ড. আবদুস সোবহান গোলাপ ও স্পন্সর প্রতিষ্ঠান চায়না বাংলা সিরামিক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সিরাজুল ইসলাম মোল্লা। এবারের চ্যাম্পিয়নশীপে ৮টি সার্ভিসেস টিম ও ২৮টি জেলা ক্রীড়া সংস্থাসহ ৩৫টি উশু দলের প্রায় ৩৫০ জন প্রতিযোগি অংশ নিচ্ছেন।

জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার প্রদান রোববার

রোববার প্রদান করা হবে ২০১০, ২০১১ ও ২০১২ সালের জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার। ক্রীড়ােেত্র অনন্য অবদানের জন্য ২০১০, ২০১১ ও ২০১২ সালের জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন ৩২ জন কৃতি খেলোয়াড় ও ক্রীড়া সংগঠক। সকাল ১০টায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে তাদের হাতে পুরস্কার তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. জাহিদ আহসান রাসেল।
২০১০ সালের জন্য পুরষ্কার পাচ্ছেন হারুন-অর-রশিদ (সাঁতার), আতিকুর রহমান (শুটিং), মাহমুদা বেগম (অ্যাথলেটিকস), দেওয়ান নজরুল হোসেন (জিমন্যাস্টিকস), মিজানুর রহমান মানু (সংগঠক), এ এস এম আলী কবীর (সংগঠক), মরহুম তকবির হোসেন (সাঁতার), ফরিদ খান চৌধুরী (অ্যাথলেটিকস), নেলী জেসমিন (অ্যাথলেটিকস), নিপা বোস (অ্যাথলেটিকস, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী)।
২০১১ সালের জন্য পুরষ্কার পাচ্ছেন, রওশন আরা ছবি (জিমন্যাস্টিকস), কাঞ্চন আলী (বক্সিং), আশরাফ আলী (কুস্তি), হেলেনা খান ইভা (ভলিবল), খালেদ মাসুদ পাইলট (ক্রিকেট), রবিউল ইসলাম (ফটিক দত্ত) (শরীর গঠন), জুম্মন লুসাই (মরণোত্তর) (হকি), কুতুবউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী (আকসির) (সংগঠক), আশিকুর রহমান মিকু (সংগঠক), শহীদ শেখ কামাল (মরণোত্তর) (ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠক)।
এ ছাড়া ২০১২ সালের জন্য পুরষ্কার পাচ্ছেন, সাকিব আল হাসান (ক্রিকেট), মোহাম্মদ মহসীন, খুরশিদ আলম বাবুল, আবদুল গাফ্ফার, আশীষ ভদ্র, সত্যজিৎ দাশ রুপু (ফুটবল), ফিরোজা খাতুন (অ্যাথলেটিকস), নাজিয়া আক্তার যুথী (ব্যাডমিন্টন), রাজীব উদ্দীন আহমেদ চপল (সংগঠক), মামুন উর রশিদ (হকি), নুরুল আলম চৌধুরী (সংগঠক)।

ক্রীড়াখাতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন গুরুত্ব পেয়েছে

২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটে ক্রীড়াখাতে অবকাঠামোগত উন্নয়ন গুরুত্ব পেয়েছে। বেশ কয়েকটি স্টেডিয়াম উন্নয়ন, নতুন স্টেডিয়াম নির্মাণ ও সুইমিং পুল নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

তবে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের বরাদ্দ কমানো হয়েছে। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের ব্যয় ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে ছিল ১১৭ কোটি ১৭ লাখ টাকা। এবারে তা কমে নেমে এসেছে ৮১ কোটি ৮২ লাখ টাকায়।

তবে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিকেএসপির জন্য বরাদ্দ বেড়েছে। উন্নয়ন খাতে ২০১৫-১৬ অর্থ বছরে বিকেএসপির জন্য বরাদ্দ ছিল ৪১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা, সেটি বেড়ে এবার ৭২ কোটি ৬৪ লাখ টাকায় দাাঁড়িয়েছে।

উন্নয়ন খাতে গত অর্থবছরে বাজেট ছিল ১৫৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। সেটি এবার বেড়ে ১৫৪ কোটি ৪৬ লাখ টাকায় পৌঁছেছে।

যেসব নতুন প্রকল্প নতুন অর্থ বছরের বাজেটে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে সেগুলো হলো:

১. নীলফামারি, নেত্রকোনা জেলা স্টেডিয়াম উন্নয়ন ও রংপুরে মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্স নির্মাণ (২১ কোটি ও ৪৫ কোটি টাকার প্রকল্প)।

২. কিশোরগঞ্জ জেলায় সৈয়দ নজরুল ইসলাম স্টেডিয়াম উন্নয়ন (১৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকার প্রকল্প)।

৩. ভৈরবে আইভি রহমান স্টেডিয়াম নির্মাণ (৯ কোটি ১৮ লাখ টাকার প্রকল্প)।

৪. নাটোর ও গাইবান্ধায় ইনডোর স্টেডিয়াম নির্মাণ (৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকার প্রকল্প)।

৫. কুমিল্লা ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্টেডিয়াম উন্নয়ন ও সুইমিং পুল নির্মাণ (১৬ কোটি টাকার প্রকল্প)।

৬. চট্টগ্রাম বিভাগীয় সদর সুইমিং পুল নির্মাণ (১১ কোটি ৩৫ লাখ টাকার প্রকল্প)।

৭. সিলেট বিভাগীয় স্টেডিয়ামকে আন্তর্জাতিক মানে উন্নীতকরণ (১৬ কোটি ২২ লাখ টাকার প্রকল্প)।

৮. দেশের বিদ্যমান জেলা স্টেডিয়ামগুলো সংস্কার ও উন্নয়ন (৪৩ কোটি ৭৩ লাখ টাকার প্রকল্প)।

জেলা পর্যায়ে ক্রীড়া প্রতিভা অন্বেষণে বিকেএসপি

তৃণমূল পর্যায়ে ক্রীড়া প্রতিভা অন্বেষণে জেলা পর্যায়ে বাছাই কার্যক্রম আগামীকাল (১৮ মে) থেকে শুরু করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)। এ জন্য দেশের ৬৪টি জেলাকে চারটি জোনে ভাগ করা হয়েছে। মোট ১৭টি ডিসিপ্লিনে খেলোয়াড় বাছাই করা হবে।

প্রথম দিনে পঞ্চগড়, ভোলা, মানিকগঞ্জ ও নরসিংদী জেলার বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে। জেলা ক্রীড়া সংস্থা, জেলা ক্রীড়া অফিসার ও জেলার সংশ্লিষ্ট প্রশিক্ষকদের সহযোগিতায় ক্রীড়া প্রতিভা অন্বেষণের বাছাই সম্পন্ন হবে। এটি চলবে ৪ জুন পর্যন্ত।

শুধুমাত্র ঢাকা জেলার বাছাই পরীক্ষা সাভার বিকেএসপিতে অনুষ্ঠিত হবে। অনূর্ধ্ব-১২ থেকে ১৪ বছর বয়সের ছেলে-মেয়েরা ক্রিকেট, ফুটবল, হকি, আরচ্যারি, অ্যাথলেটিক্স, বাস্কেটবল, জুডো, শুটিং, টেবিল টেনিস, কারাতে, তায়কোয়ানদো, উশু ও ভলিবল এবং অনুর্ধ্ব-৮ থেকে ১২ বছর বয়সের ছেলে-মেয়েরা বক্সিং, জিমন্যাস্টিক্স, সাঁতার ও টেনিস খেলায় অংশ নিতে পারবে।

বাছাইকৃতদের প্রথমে এক মাস মেয়াদের ১টি এবং পরবর্তীতে ধারাবাহিকভাবে ৪ মাস মেয়াদের ১টি প্রশিক্ষণ শিবিরের মাধ্যমে আগামী ৩ বছরে সর্বমোট ৩৬০০ খেলোয়াড়দেরকে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। এদের মধ্যে চূড়ান্তভাবে বিজয়ীদের ৪ মাস ৬ থেকে ৮ বছর মেয়াদী প্রশিক্ষনের জন্য বিকেএসপিতে ভর্তিতে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

কবে কোন জেলায় বাছাই:

১৮ মে: পঞ্চগড়, ভোলা, মানিকগঞ্জ, নরসিংদী
১৯ মে: ঢাকুরগাঁও, বরিশাল, রাজবাড়ী, সুনামগঞ্জ।
২০ মে: দিনাজপুর, ঝালকাঠি, ফরিদপুর, সিলেট।
২১ মে: নীলফামারি, পটুয়াখালি, গোপালগঞ্জ, মৌলভিবাজার।
২২ মে: রংপুর, বরগুনা, মাদারীপুর, মন্সিগঞ্জ।
২৪ মে: লালমনিরহাট, পিরোজপুর, শরিয়তপুর, হবিগঞ্জ।
২৫ মে: কুড়িগ্রাম, বাগেরহাট, নারায়নগঞ্জ, ব্রাক্ষনবাড়িয়া।
২৬ মে: গাইবান্ধা, খুলনা, নারায়নগঞ্জ, চাদপুর।
২৮ মে: বগুড়া, সাতক্ষীরা, ঢাকা, লক্ষীপুর।
২৯ মে: জয়পুরহাট, যশোর, গাজীপুর, নোয়াখালী।
৩০ মে: নওগাঁ, নড়াইল, টাঙ্গাইল, ফেনী।
৩১ মে: চাপাইনবাবগঞ্জ, মাগুরা, জামালপুর, খাগড়াছড়ি
০১ জুন: রাজশাহী, ঝিনাইদাহ, শেরপুর, রাঙ্গামাটি।
০২ জুন: নাটোর, চুয়াডাঙ্গা, ময়মংসিংহ, চট্টগ্রাম।
০৩ জুন: পাবনা, মেহেরপুর, কিশোরগঞ্জ, বান্দরবান।
০৪ জুন: সিরাজগঞ্জ, কুষ্টিয়া, নেত্রকোনা, কক্সবাজার।

মাহফুজার দ্বিতীয় স্বর্ণ, বাংলাদেশের তৃতীয়

আগের দিন ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে স্বর্ণপদক জিতেছিলেন মাহফুজা খাতুন শিলা। সাঁতারের দীর্ঘ ১০ বছর পর দেশকে স্বর্ণজয়ের আনন্দে ভাসিয়েছেন তিনি। এবার দেশের হয়ে তৃতীয় এবং ব্যক্তিগত দ্বিতীয় স্বর্ণপদক জিতলেন এই সাঁতারু।
সোমবার ভারতের গুয়াহাটির ডক্টর জাকির হোসেন অ্যাকুয়াটিক কমপ্লেক্সে ৫০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে নতুন রেকর্ড গড়ে স্বর্ণপদক জিতেছেন মাহফুজা। এই পদক জিততে তিনি সময় নিয়েছেন ৩৪ দশমিক ৮৮ সেকেন্ড।
Mahfuja-33মাহফুজা ২০০৬ সালে কলম্বো এসএ গেমসে শ্রীলঙ্কার রাহিম মাইয়ুমির রেকর্ড ভেঙেছেন। ওই লঙ্কান সাঁতারু সেবার ৩৪ দশমিক ৯৮ সেকেন্ড সময় নিয়ে স্বর্ণপদক জিতেছেলেন।
এর আগে ভারোত্তোলনে মাবিয়া আক্তারের হাত ধরে বাংলাদেশ প্রথম স্বর্ণপদক জিতেছিল। নারীদের ৬৩ কেজি ওজনশ্রেণিতে সোনালি সাফল্যের আনন্দে দেশকে ভাসিয়েছেন এবং নিজেকে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গেছেন।
এরপর সাঁতার থেকে বাংলাদেশকে দ্বিতীয় স্বর্ণ উপহার দিয়েছেন মাহফুজা। নারীদের ১০০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে সবাইকে পেছনে ফেলে দিয়েছেন মাহফুজা। দীর্ঘ ১০ বছর পর এসএ গেমসের সাঁতার থেকে স্বর্ণ জিতেছে বাংলাদেশ।
গত রোববার ব্যক্তিগত প্রথম স্বর্ণ জিততে মাহফুজার সময় লাগে এক মিনিট ১৭ দশমিক ৮৬ সেকেন্ড। এই ইভেন্টে দ্বিতীয় হওয়া পাকিস্তানের লিয়ানা ক্যাথরিন সোয়ানের টাইমিং ছিল এক মিনিট ১৮ দশমিক ৫৮ সেকেন্ড। এক মিনিট ১৮ দশমিক ৭৭ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জপদক পান ভারতের চাহাত অরোরা।