রাত ১২:০৫, মঙ্গলবার, ২০শে আগস্ট, ২০১৮ ইং

ইন্দোনেশিয়া থেকে প্রতিনিধি

ওমানকে ২-১ গোলে হারিয়ে এশিয়ান গেমসে শুভ সূচনা করলো হকি দল। তবে সব মিলিয়ে গেমসের তৃতীয় দিনটি হতাশাতেই কেটেছে বাংলাদেশের। নারী কাবাডিতে ইরানের কাছে হেরেছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। এছাড়া হতাশ হতে হয় শ্যূটিংয়েও।

ওমানকে হারিয়ে লক্ষ্য পুরন হয়েছে হকি দলের। কাজাখস্তান, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, পাকিস্তানকে নিয়ে গড়া গ্র“পে এই একটি দলের বিপক্ষেই জয়ের আশা করেছে খেলোয়াড়রা। আর এই জয়ে চার বছর ওমানকে হারাতে না পারার আক্ষেপ ঘোচালো জিমি-চয়নরা।

জাকার্তার জিবিকে এ্যারিনায়, ফার্স্ট কোয়ার্টারে আরশাদের গোলে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। দ্বিতীয় কোয়ার্টারে সমতায় ফেরে ওমান। এরপর তৃতীয় কোয়ার্টারে আশরাফুলের স্টিক থেকে পাওয়া লিড ধরে রাখে গোবিনাথানের শিষ্যরা।

অভিজ্ঞ ফরোয়ার্ড রাসেল মাহমুদ জিমি বলেন, 'আমাদের প্রথম টার্গেট ছিল ‌ওমানের বিরুদ্ধে জয়। সেই টার্গেট পুরণ করতে পেরেছি। এখন পঞ্চম-ষষ্ঠ স্থানের জন্য লড়বো আমরা। গ্রুপের অন্যরা বেশ শক্তিশালী। তাদের বিপক্ষে ভালো করতে পারলে সেটা হবে আমাদের জন্য আর‌ও ভালো ব্যাপার। পরের ম্যাচগুলোতে আমাদের দলের লক্ষ্য‌ও সেই রকম।'

হকি দল আনন্দে ভাসিয়েছে, তবে সবচে’ হতাশ করেছে নারী কাবাডি দল। আগেরবার ব্রোঞ্জ জেতা মালেকা, রুপালীরা এদিন ইরানের কাছে ৪২-১৯ পয়েন্টে হেরে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিয়েছে। যদিও পুরুষ দল থাইল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনালের আশা বাঁচিয়ে রেখেছে।

একইভাবে প্রত্যাশা পুরন করতে পারেননি শ্যূটিংয়ের আবদুল্লাহ হেল বাকী, শারমিন আক্তার রত্না এবং উম্মে জাকিয়া সুলতানা। দশ মিটার এয়ার রাইফেল ব্যাক্তিগত ইভেন্ট বাকী আর রত্না-জাকিয়ারা বাছাইপর্ব থেকেই বিদায় নিয়েছেন।

এদিকে বিচ ভলিবলে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ফিলিস্তিনের কাছে ২-০ সেটে হেরেছে বাংলাদেশ। এতো সব হারের মাঝে দিনের শেষ বেলার হকির জয়টাই শেষ পর্যন্ত তৃপ্তি হয়ে থাকলো।

প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে স্পেন

ফিফা অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলের সেমিফাইনালে উঠেছে স্পেন। ফ্রান্সের কনর্কামেউ স্টেডিয়ামে, নাইজেরিয়াকে তারা ২-১ গোলে পরাজিত করে শেষ চারের টিকিট নিশ্চিত করে। এবারই প্রথম স্প্যানিশ তরুণীরা নারী বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠলো।

বৃহস্পতিবার গাই-পিরিউ স্টেডিয়ামে, খেলার শুরুতেই এগিয়ে যায় ‘লা রোজিতা’রা। মাত্র ১৩ মিনিটে অধিনায়ক অ্যাতিনা বোমাতি দারুণ এক গোলে এগিয়ে দেন স্পেনকে। নাইজেরিয়ার ডি বক্সের সামান্য বাইরে থেকে বাঁ-পায়ের দুর্দান্ত এক শটে দলকে এগিয়ে দেন তিনি। তবে এই গোলে নাইজেরিয়ান গোলকিপার চাইমাকা এনডোজির ব্যর্থতা‌ও সমান দায়ী। ১-০ গোলে এগিয়ে যা‌ওয়ার উল্লাসে মাতে স্পেন শিবির।

প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে ব্যবধান দ্বিগুণ করে স্প্যানিশরা। মাইতি উরুজের ফ্রিকিক থেকে বল পেয়ে স্পেনকে ২-০ গোলে এগিয়ে দেন পাত্রি গুইয়ারো। এবারের বিশ্বকাপে এটি তার পঞ্চম গোল। তাদের গোলের লিড নিয়েই বিরতিতে যায় স্পেন।

বিরতি থেকে ফিরে গোল শোধের চেষ্টা করতে থাকে ‘সুপার ঈগল’রা। ৫৭ মিনিটে সেই সুযোগ‌ও পায় তারা। রাশিদাত আইবাবের গোল প্রচেষ্টা স্প্যানিশ গোলকিপার প্রতিহত করলে‌ও ফিরতি বল জালে পাঠিয়ে ব্যবধান ২-১-এ নামিয়ে আনেন পিস এফি।

কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। বাকী সময়ে গোল পরিশোধ করতে না পারায় ২-১ ব্যবধানের জয়ে সেমিফাইনালে উঠে যায় স্পেনের নারী দল। এই টুর্নামেন্টে এবারই স্পেন প্রথম শেষ চারের টিকিট পেলো।

এদিকে, বিশ্বকাপের অন্য ম্যাচে উত্তর কোরিয়াকে পেনাল্টি গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে ‌ওঠে ফ্রান্সের নারী ফুটবল দল।

কোয়ার্টার ফাইনালে জার্মানি

হাইতিতে ৩-২ গোলে হারিয়ে ফিফা অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে ডি গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠল জার্মানি। ভ্যানিসের স্টেড ডি লা রাবিনিতে, জার্মানির লরা ফ্রেইগাং, ক্রিস্টিন কোজেল ও ক্লারা বুওল গোল তিনটি করেন।

খেলার শুরুতেই প্রতিপক্ষের উপর আক্রমন করে খেলতে থাকে জার্মানরা। তবে গোল পেতে তাদের অপেক্ষায় থাকতে হয় ১৮ মিনিট পর্যন্ত। রক্ষণভাগের খেলোয়াড় সারাই লিন্ডারের কাছ থেকে বল পেয়ে দলকে লিড এনে দেন লরা ফ্রেইগাং। ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় জার্মানরা।

বিরতি থেকে ফিরে ক্রিস্টিন কোজেল ও ক্লারা বুওলের কল্যাণে ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় জার্মানি। তবে মোটেই হতাশ হয়নি হাইতি। তারাও খেলায় ফেরার চেষ্টা করেন।

৬৩ মিনিটে অধিনায়ক ও তারকা খেলোয়াড় মন্ডেসির ব্যবধান ৩-১ এ নামিয়ে আনেন। এই গোলের ১০ মিনিট পর তিনি আরও এক গোল করে ব্যবধান ৩-২ নামিয়ে আনেন। কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হয়নি। ৩-২-এর জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে অনূর্ধ্ব-২০ নারী ফুটবলের শেষ আটে উঠে যায় জার্মানি।

এদিকে, গ্রুপের অন্য ম্যাচে চীনের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে নিয়েছে নাইজেরিয়া। ৩ ম্যাচে দুই দলের পয়েন্ট সমান ৪ হলেও গোল গড়ে নকআউট পর্ব নিশ্চিত করে নাইজেরিয়ার মেয়েরা।

রজার্স কাপের শিরোপা জিতলেন নাদাল

রজার্স কাপে টেনিস টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতলেন রাফায়েল নাদাল। অবাছাই গ্রীক তরুণ স্টেফানোস সিসিপাসের বিশতম জন্মদিনের উৎসব ভেস্তে দিয়ে রজার্স কাপে চ্যাম্পিয়ন হলেন শীর্ষ বাছাই রাফায়েল নাদাল৷ সেই সঙ্গে আসন্ন যুক্তরাষ্ট্র ওপেনের প্রস্তুতিও । ভালভাবে সেরে নিলেন বিশ্বের এক নম্বর এই স্প্যানিশ তারকা৷

সিসিপাসের স্বপ্নের দৌড় থামিয়ে রাফা রজার্স কাপের ফাইনাল জিতলেন বটে, তবে তাকে একতরফা বলা যাবে না৷ স্কোর বোর্ড বলছে গ্রীক তারকাকে সরাসরি সেটে হারালেন নাদাল৷ তবে দ্বিতীয় সেট টাইব্রেকারে টেনে নিয়ে যেতে সিসিপাস যে লড়াই করলেন, নিশ্চয়ই তা লেখা থাকবে না রেকর্ড বইয়ে৷

নাদাল ৬-২, ৭-৬ (৭/৪) সেটে খেতাবি লড়াই জিতে হাতে তোলেন কেরিয়ারের চতুর্থ রজার্স কাপ৷ রাফার কেরিয়ারের ৮০ তম এটিপি ট্যুর ট্রফি এটি৷ ৩২ বছরের রাফায়েল এর আগে রজার্স কাপ জিতেছিলেন ২০০৫, ২০০৮ ও ২০১৩ সালে৷ এবারের মতো ২০০৮’এর খেতাব এসেছিল টরন্টোর হার্ড কোর্ট থেকে৷ বাকি দু’বার তিনি রজার্স চ্যাম্পিয়ন হন মন্ট্রিলে৷

এই নিয়ে চলতি মৌসুমে মোট পাঁচটি ট্রফি জিতলেন নাদাল৷ একটি গ্র্যান্ড স্ল্যাম, বাকি চারটি খেতাব এসেছে স্প্যানিশ তারকার পছন্দের ক্লে কোর্ট থেকে৷ এবছর নাদাল চ্যাম্পিয়ন হন ফরাসি ওপেন, মন্টে কার্লো, বার্সেলোনা ও রোম মাস্টার্সে৷

এদিকে গতকাল রবিবারই বিশ বছরে পা দেওয়া সিসিপাস রজার্সের শুরু থেকে যে রকম ছন্দে ছিলেন, তাতে আরও একটা অঘটন ঘটিয়ে জন্মদিনের উৎসব পালণের জন্য তৈরি হচ্ছিলেন৷ ফাইনালে নাদালের মুখোমুখি হওয়ার আগে টরন্টোয় জায়ান্ট কিলার হিসাবে নিজেকে তুলে ধরেন স্টেফানোস৷

প্রথম রাউন্ডে অবাছাই দামির জুমহুরের বিরুদ্ধে জয় তুলে নেওয়া সিসিপাস দ্বিতীয় রাউন্ডে পরাস্ত করেন সপ্তম বাছাই ডমিনিক থিয়েমকে৷ প্রি-কোয়ার্টারে তাঁর শিকার হন বিশ্বের নয় নম্বর তারকা নোভাক জকোভিচ৷ কোয়ার্টার ফাইনালে গ্রীক তরুণ হারান দ্বিতীয় বাছাই আলেকজান্ডার জেরেভকে৷ সেমিফাইনালে তিনি টপকে যান চতুর্থ বাছাই কেভিন অ্যান্ডারসনের বাধা৷

১৯৯০ সালে এটিপি ওয়ার্ল্ড ট্যুর আত্মপ্রকাশের পর থেকে পর পর চারটি ম্যাচে বিশ্ব ব়্যাংকিংয়ের প্রথম দশে থাকা চার জন তারকাকে পরাস্ত করা সব থেকে কম বয়সি অবাছাই টেনিস তারকা হলেন সিসিপাসই৷

আর্জেন্টিনার তরুণরা চ্যাম্পিয়ন

ছেলেদের অনূর্ধ্ব-২০ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আর্জেন্টিনা। কোটিফে টুর্নামেন্টে গ্রুপপর্বে ভারতের কাছে ২-১ গোলে হেরেছিল লি‌ওনেল স্ক্যালোনির শিষ্যরা। শুধু তাই নয়, প্রতিযোগিতার ফাইনালে রাশিয়ার কাছে প্রথমে পিছিয়ে‌ও ছিল তারা। পরে জয় পায় তারা।

দুর্দান্ত এক ফাইনালে খেলার ১১ মিনিটেই সতীর্থের ফ্রিকিকে মাথা ছুঁইয়ে রাশিয়াকে লিড এনে দেন ইগর দিভিভ। তবে রাশিয়ার এই আনন্দ বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। ১৫ মিনিটে ম্যাচে সমতা ফেরান আর্জেন্টিনার ফাকুন্দো কলিদিও।

এরপর গোল সংখ্যা বাড়াতে দুই দলই একের পর এক আক্রমণ চালায় প্রতিপক্ষ শিবিরে। কিন্তু নির্ধারিত সময়ে আর কোনো গোল হয়নি। খেলা গড়ায় অতিরিক্ত সময়ে।

এর প্রথমার্ধেও গোলের দেখা মেলেনি। ঠিক পরেই কপাল পোড়ে রাশিয়ার। সফল নিশানাভেদে আলবিসেলেস্তেদের আনন্দে ভাসান এলান মারিনেলি। তার ওই গোলেই শিরোপা নিশ্চিত হয় ছয়বারের চ্যাম্পিয়নদের।

জয়ের পর আর্জেন্টিনা যুবদলের কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি বলেন, আমরা একটি পরিচয় তৈরি করতে চেয়েছিলাম। আর্জেন্টিনার জার্সির প্রতি সম্মান জানাতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলাম। শেষ পর্যন্ত তা পেরেছি। আশা করছি, আমাদের ফুটবল সঠিক কক্ষপথেই আছে।

ড্র করে আশা বাঁচিয়ে রাখলো ব্রাজিল

খেলার শুরুতেই পিছিয়েছিল ব্রাজিল। কিন্তু গোল শোধের কোনো পথ খুঁজে পাচ্ছিলো না তারা। অবশেষে খেলা শেষের ইনজুরি টাইমে আদ্রিয়ানা বোর্গেস যে গোলটি করেন তাতেই গ্রুপের দুই ম্যাচে এক পয়েন্ট নিশ্চিত হয়ে যায় ব্রাজিলের। এতে আজ বুধবার ফিফা অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে ইংল্যান্ডের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে টিকে থাকার রসদও পেয়ে যায় ব্রাজিলিয়ানরা।

এরআগে ফ্রান্সের ডিনান-লেহন স্টেডিয়ামে, দারুণ সূচনা করে থ্রি লায়ন তরুনীরা। জর্জিয়া স্ট্যানওয়ে খেলার ১১ মিনিটেই পেনাল্টি গোলে এগিয়ে দেন ইংল্যান্ডকে। ব্রাজিলের তাইনারা এসময় নিজেদের বিপদসীমায় ইংলিশ চোল পেপলোকে অবৈধভাবে বাধা দিলে রেফারি পেনাল্টির নির্দেশ দেন।

বাকী সময়টা গোল পরিশোধের চেষ্টা করেও সফল হয়নি দক্ষিণ আমেরিকান চ্যাম্পিয়নরা। ম্যাচে মোট ২১ বার গোলে হানা দেয় ব্রাজিলিয়ানরা। অবশেষে একেবারে শেষ মুহূর্তে ব্রাজিলকে মূল্যবান একটি পয়েন্ট এনে দেন, আদ্রিয়ানা বোর্গেস। এই ড্রতে দুই ম্যাচে ইংল্যান্ডের পয়েন্ট বেড়ে হলো চার। আগামী রবিবার গ্রুপের শেষ ম্যাচে জানা যাবে শেষ আটে উঠবে কোন দুটো দল।

এদিকে গ্রুপের অন্য ম্যাচে, প্রথমে পিছিয়ে থেকে‌ও মেক্সিকোকে ২-১ ব্যবধানে পরাজিত করেছে উত্তর কোরিয়া। প্রথমার্ধে খেলাটি ১-১ গোলে ড্র ছিলো। দুই খেলায় তাদের সংগ্রহ ৩ পয়েন্ট করে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে উভয় দলই পরাজিত হয়েছিল।

ভুটানে কাল বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ পাকিস্তান

সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী ফুটবলের শিরোপা ধরে রাখার মিশনে বাংলাদেশের প্রথম প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। আগামীকাল বৃহস্পতিবার ভুটানের থিম্পুতে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যায় ৭টায় ‘বি’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে দু’দল।

আগেরবার ভারতকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা জেতা বাংলাদেশ ভুটানে মুকুট ধরে রাখার প্রশ্নে ম্যাচ বাই ম্যাচ এগুবে বলে জানান, কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। তিনি বলেন, ‘গত সাত মাস ধরে মেয়েরা ভালো এবং কঠোর পরিশ্রম করছে। তারা এখন পাকিস্তানের বিপক্ষে লড়াই করতে প্রস্তুত। তাদেরকে হারাতে মানসিক ও শারীরিকভাবে যথেষ্ট শক্তিশালী আছে মেয়েরা।’

ছোটন জানান, ‘প্রতিযোগিতার অন্য দলগুলোও শক্তিশালী। তাই আমরা সতর্ক থেকে ধাপে ধাপে এগুতে চাই। অবশ্য কিভাবে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে খেলতে হয়, সেটা আমাদের মেয়েদের জানা আছে।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ সামনে রেখে অধিনায়ক মারিয়া মাণ্ডা জানান, শিরোপা জয়ের লক্ষ্য নিয়েই ভুটানে পা রেখেছেন তারা। তিনি বলেন, ‘আমরা এখানে শিরোপার জন্য এসেছি। দেশে আমরা কোচের অধীনে অনেক কঠোর পরিশ্রম করেছি। পাকিস্তানের বিপক্ষে জেতার আত্মবিশ্বাস আমাদের আছে। প্রতিযোগিতার বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বলে আমাদের ওপর কোনো চাপ নেই। সবাই ফিট আছে। এবং মানসিক ও শারীরিকভাবে শক্তিশালী আছে।

পাকিস্তানের কোচ মোহাম্মদ রশিদ বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশকে সমীহ করতে ভোলেননি। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ খুবই শক্তিশালী এবং ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল। তারা এ প্রতিযোগিতার বর্তমান চ্যাম্পিয়নও। আমরা নতুন দল এবং এই প্রথম এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছি; আমরাও সেরাটা খেলে জয়ের চেষ্টা করবো।’

জিতেছে স্পেন ও জাপান

অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে ‘সি’ গ্রুপের ম্যাচে জিতেছে স্পেন ও জাপান। সোমবার রাতে ফ্রান্সের কনকারনেউতে, প্যাট্রি গুইজারোর হ্যাটট্রিকে স্পেন ৪-১ গোলে প্যারাগুয়েকে এবং জাপান একমাত্র গোলে হারায় যুক্তরাষ্ট্রকে।

শুরুতে ‘লা রোজা’দের সঙ্গে কিছুটা লড়াই হলেও পরে আর সেই ধারা ধরে রাখতে পারেনি প্যারাগুয়ে। তাতে ৪০ মিনিটে প্যাট্রি গুইজারোর কল্যাণে লিড পায় স্পেন। এক গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় তারা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই গোল সংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা করতে থাকে স্প্যানিশ তরুণীরা। ৪৯ ও ৬৪ মিনিটে আরো দুই গোল করে এবারের টুর্নামেন্টের প্রথম হ্যাটট্রিক করেন প্যাট্রি গুইজারো। অবশ্য ৬২ মিনিটে প্যারাগুয়ের জেসিকা মার্টিনেজ একটি গোল শোধ করেন। কিন্তু খেলা শেষের ইনজুরি টাইমে প্যাট্রি গুইজারো আরো একটি গোল করে স্পেনের ৪-১ ব্যবধানের বড় জয় নিশ্চিত করেন।

এদিকে, গ্রুপের অন্য ম্যাচে, হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর জাপান ১-০ গোলে পরাজিত করেছে যুক্তরাষ্ট্রকে। গোল শূন্য প্রথমার্ধের পর খেলার ৭৬ মিনিটে হোনোকা হায়াসি দূরপাল্লার দারুণ এক শটে যে গোলটি করেন তাতেই নিশ্চিত হয় জাপানের জয়।

চীন ‌ও জার্মানির জয়

ফিফা অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে ডি গ্রুপের ম্যাচে জিতেছে জার্মানি ‌ও চীন। ফ্রান্সের সেন্ট মিলোর স্টেড ডি মারভেলে, সোমবার রাতে, জার্মানি ১-০ গোলে নাইজেরিয়াকে এবং চীন ২-১ ব্যবধানে পরাজিত করে হাইতিকে। তাতে অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে জয় দিয়েই নিজেদের মিশন শুরু করলো দল দু’টি।

নাইজেরিয়া ‌ও জার্মানির মধ্যকার খেলার প্রথমার্ধে কোনো দলই গোলের দেখা পায়নি। তবে প্রথমার্ধের মতো দ্বিতীয়ার্ধেও নাইজেরিয়ার সীমানায় আক্রমণ অব্যাহত রাখে জার্মান তরুণীরা। কিন্তু আফ্রিকানদের গোলকিপারের দৃঢ়তায় গোল পাওয়া হয়নি।

অবশেষে খেলার ৬৯ মিনিটে গোল-বন্ধ্যাত্ব ঘোঁচে জার্মানদের। কর্নার থেকে পাওয়া বলে নেয়া হেড ক্রসবারে লেগে ফেরত আসলে, ফিরতি বল জালে পাঠিয়ে দলকে এগিয়ে দেন স্টেফানি স্যান্ডর্স। শেষ পর্যন্ত সেই গোলের জয়েই পূর্ণ পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে জার্মানির তরুণীরা।

এই গ্রুপের অন্য ম্যাচে চীন ২-১ ব্যবধানে পরাজিত করেছে হাইতিকে। খেলার প্রথমার্ধে চীন ১-০ গোলে এগিয়েছিলো।

পেনাল্টি মিসে মেক্সিকোর কাছে ব্রাজিলের হার

খেলা শেষের ইনজুরি টাইমে পেনাল্টি মিসের মাশুল গুনতে হলো ব্রাজিলকে। তাতে ফিফা অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে ‘বি গ্রুপে’ নিজেদর প্রথম ম্যাচে মেক্সিকোর কাছে পরাজয়ের বেদনা নিয়েই মাঠ ছাড়ে সেলেসাও কিশোরীরা।

রবিবার রাতে ফ্রান্সের ডিনান-লেহন স্টেডিয়ামে, ক্যাটি মার্টিনেজের গোলে খেলার ৪ মিনিটেই এগিয়ে যায় মেক্সিকো। ড্যানিয়েলা এসপিওনাজের কাছ থেকে বল পেয়ে এগিয়ে আসা ব্রাজিল গোলকিপার ক্যামিলিকে কাটিয়ে ক্যাটি মার্টিনেজ ১-০ তে এগিয়ে দেন মেক্সিকানদের।

তবে দুই মিনিটের বেশি এই লিড ধরে রাখতে পারেনি তারা। খেলার ৬ মিনিটে ক্যারোলিন নিকোলির গোলে ম্যাচে ১-১-এ সমতা ফেরায় ব্রাজিল। এখানেই তারা থেমে থাকেনি। ১৭ মিনিটে ক্যারোলিনের করা গোলে ২-১-এ এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ব্রাজিল।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই পাল্টে যায় খেলার ধারা। গোলের চেষ্টা করতে থাকা মেক্সিকানদের সমতায় ফেরান জ্যাকুইলিন ওভাল্লি। ব্রাজিলের গোলমুখ থেকে দারুণ এক গোল করে ম্যাচে ২-২-এ সমতা ফেরান জ্যাকুইলিন। ৬৩ মিনিটে আরো এক গোল করে ম্যাচ সেরা জ্যাকুইলিন ‌ওভাল্লি লা ট্রায়োদের ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে দেন।

পিছিয়ে থেকে টনক নড়ে ব্রাজিলিয়ানদের। ইনজুরি টাইমের সপ্তম মিনিটে সমতা আনার সুযোগও ছিলো ব্রাজিলের। কিন্তু স্পটকিকে গোল করতে ব্যর্থ হন ভিক্টোরিয়া। তার নেয়া পেনাল্টি ক্রসবারে লাগলে গোল বঞ্চিত হয় ব্রাজিল। এই জয়ে বয়সভিত্তিক বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ব্রাজিলের বিপক্ষে জয় পেলো মেক্সিকোর মেয়েরা।

এই গ্রুপের অন্য ম্যাচে উত্তর কোরিয়াকে ৩-১ গোলে পরাজিত করেছে ইংল্যান্ড। প্রথমার্ধে ইংলিশরা ১-০ গোলে এগিয়ে ছিল।

ঘানাকে ৪-১ গোলে হারিয়েছে ফ্রান্স

ফিফা অনূর্ধ্ব-২০ নারী বিশ্বকাপ ফুটবলে জয় দিয়েই তাদের অভিযান শুরু করলো স্বাগতিক ফ্রান্স। ‘এ গ্রুপের’ ম্যাচে তারা ৪-১ গোলে হারায় ঘানাকে।

সালমা বাচার দারুণ এক ক্রসে গোল করে খেলার ৬ মিনিটেই স্বাগতিক ফ্রান্সকে এগিয়ে দেন এমিলিয়েনি লরেন্ত। বামপ্রান্ত থেকে বল নিয়ে প্রতিপক্ষের ডি বক্সের ডান প্রান্তে ফেলেন সালমা। লরেন্তের শট ক্রসপিসে লেগে জালে জড়ায়। এরপর হেলেনা ফেরকোক এবং লরেন্ত আরো এক গোল করলে প্রথমার্ধেই ৩-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ‘লা ব্লু’রা।

বিরতি থেকে ফিরে গোল শোধের চেষ্টা করে ঘানা। ৫৮ মিনিটে ওসু আনসা ব্যবধান ৩-১ এ নামিয়ে আনেন। তবে ইনজুরি টাইমে বদলি খেলোয়াড় স্যান্ডি বাল্টিমোরের কল্যাণে ৪-১ ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্বাগতিক ফ্রান্স।

এদিকে, ‘এ গ্রুপের’ অন্য ম্যাচে নেদারল্যান্ডস ২-১ গোলে পরাজিত করে নিউজিল্যান্ডকে। বিজয়ী দল খেলার উভয়ার্ধে একটি করে গোল করে।

এন্ডারসনের মুখে আঘাত

ক্রিকেট রেখে ছুটির দিনে গলফ খেলতে গিয়েছিলেন ইংলিশ পেসার জেমস এন্ডারসন। তখনই ঘটে বিপত্তি। নিজেরই মারা একটি বল আঘাত করে তার মুখে। তাতে আর যা-ই করুন না কেনো গলফ খেলার সময় আরো সতর্ক থাকবেন এন্ডারসন।

প্রথম টেস্টে ভারতের বিপক্ষে ৩১ রানে জয় পা‌ওয়ায় ইংল্যান্ড দল ভাসছে এখন খুশির জোয়ারে। লর্ডসে দ্বিতীয় টেস্টের আগে তারা বেশ নির্ভার। এমন সময়ে ৩৬ বছর বয়সী ইংলিশ পেসার জেমস এন্ডারসন সতীর্থ স্টুয়ার্ট ব্রডের সঙ্গে যান গলফ খেলতে। গাছের নিচে থেকে একটি বলকে সমতলে নিতে গিয়ে সজোরে মারেন এন্ডারসন। কিন্তু সেই বলটি কাছের একটি গাছে লেগে সোজা আঘাত করে তার মুখে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমনি একটি ভিডি‌ও আপলোড করেছেন স্টুয়ার্ট ব্রড। সাথে সাথে ব্রড জানান, এন্ডারসনের আঘাতটা খুব-একটা মারাত্মক নয়।

আবার‌ও হার সেরেনার

সন্তান জন্ম দে‌ওয়ার পর টেনিস কোর্টে ফিরে খুব একটা সুবিধা করতে পারছেন না ২৩টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম জেতা সেরেনা উইলিয়ামস। আজ বুধবার জোহানা কোন্তার কাছে ৬-১ ‌ও ৬-০ গেমে হেরে যুক্তরাষ্ট্রের সিলিকন ভ্যালি ক্ল্যাসিক্সের প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায় নেন তিনি।

আর মাত্র ৫৩ মিনিটের এই জয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠে গেলেন যুক্তরাজ্যের জোহানা কোন্তা। গত মাসে উইম্বলডন ‌ওপেনের ফাইনালে অ্যাঞ্জেলিক কেরবারের কাছে পরাজয়ের পর এবার প্রথম রাউন্ড থেকেই ছিটকে পড়তে হলো সেরেনাকে। গত বছর কন্যা সন্তান জন্মের পর থেকে মাত্র ৫টি টুর্নামেন্টে অংশ নেন সেরেনা।

পরের রাউন্ডে কোন্তাকে লড়তে হবে আমেরিকার টিনেজ প্রতিপক্ষ সোফিয়া কেনিনের বিপক্ষে।

নিউজিল্যান্ডে তিন টেস্টের সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ

আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন টেস্ট ও তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। আগামী ২০১৮-১৯ সালের ক্রিকেট সূচি ঘোষণা করেছে নিউজিল্যান্ড।

ঘরের মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচে টেস্ট সিরিজের জায়গা রেখেছে ব্ল্যাক ক্যাপরা। নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে এই প্রথম তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ।

আগামী ১৩ প্রথম ‌ওয়ানডে হবে নেপিয়ারের ম্যাকলারেন পার্কে, ১৬ ফেব্রুয়ারি ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ‌ওভালে দ্বিতীয় ‌ওয়ানডে এবং ২০ ফেব্রুয়ারি ডানেডিনের ‌ওটাগো ‌ওভালে হবে তৃতীয় ‌ও শেষ ওয়ানডে।

প্রথম টেস্ট শুরু হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি হ্যামিল্টনের সিডন পার্কে। ৮ মার্চ থেকে বেসিন রিজার্ভে দ্বিতীয় টেস্ট। ৮ মার্চ ‌ওয়েলিংটনের বেসিন রিজার্ভ পার্কে হবে দ্বিতীয় টেস্ট। ১৬ মার্চ ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ‌ওভালে তৃতীয় টেস্ট দিয়ে শেষ হবে টাইগারদের নিউজিল্যান্ড সফর।

এবার‌ বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি পরীক্ষা

নয় বছর পর বিদেশের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জয়ের অনুপ্রেরণা নিয়েই এবার ৩ ম্যাচের টি-টোয়েন্ট সিরিজের চ্যালেঞ্জে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নামছে বাংলাদেশ দল। আগামীকাল বুধবার সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৬টায়। ২০০৯ সালে এই ভেন্যুতেই টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হিসেবে যাত্রা শুরু করে ৫ উইকেটে স্বাগতিকদের বিপক্ষে হার দেখেছিলেন সাকিব। ৯ বছর পর সেখানেই প্রতিশোধ নেয়ার চ্যালেঞ্জ সাকিবের। বাকি দুই টি-টোয়েন্টি হবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায়। সেখানে ৫ ও ৬ আগস্ট সকাল ৬টায় বাকি দুই টি-টোয়েন্টি হবে সেন্ট্রাল ব্রোওয়ার্ড রিজিওনাল পার্ক স্টেডিয়াম টার্ফ গ্রাউন্ডে।

ব্যক্তিগত নৈপুণ্যে নিশ্চিতভাবেই দেশসেরা ক্রিকেটার সাকিব। ব্যাটে-বলে তার বিকল্প খুঁজে পায়নি বাংলাদেশ। কিন্তু অধিনায়ক হিসেবে এখন পর্যন্ত দলের জন্য আহামরি কোন সাফল্য বয়ে আনতে পারেননি তিনি। বিশেষ করে দ্বিতীয় দফায় জাতীয় দলের নেতৃত্ব পাওয়ার পর থেকে দলগত সাফল্য এনে দিতে হিমশিম খাচ্ছেন সাকিব। গত জুনে আফগানিস্তানের কাছে ৩-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশের লজ্জা পায় সাকিবের দল। দ্বিতীয় দফায় তিনি টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক হন গত বছর অক্টোবরে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে এবং ২-০ ব্যবধানে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার মধ্য দিয়ে তার যাত্রা শুরু হয়। তারপর থেকে সবমিলিয়ে ৭ ম্যাচে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে একটিই মাত্র জয় এনে দিতে পেরেছেন সাকিব। গত মার্চে শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজে লঙ্কানদের বিপক্ষে সেই জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজ জয় অনুপ্রেরণা হবে সাকিবদের। কিন্তু যে মাশরাফির নেতৃত্বে এমন অবিস্মরণীয় সাফল্য, তিনি তো টি-টোয়েন্টি সিরিজে নেই। তবে সাকিবের জন্য আশার কথা পেসস্তম্ভ মুস্তাফিজুর রহমানকে তিনি এই সিরিজে পাবেন তার সহযোদ্ধা হিসেবে। মুস্তাফিজ ইনজুরি কাটিয়ে ফিরে ওয়ানডে সিরিজে বেশ ভাল বোলিং করেছেন। এছাড়া সবশেষ সিরিজ খেলা দলটিতে আর কোন পরিবর্তন আসেনি। সাকিবের জন্য ট্রাম্পকার্ড হতে পারেন মুস্তাফিজই।

এখন পর্যন্ত ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৬ টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ দল। এর মধ্যে একটি পরিত্যক্ত হলেও দুটিতে জয় তুলে নিতে পেরেছিল বাংলাদেশ আর তিনটিতে হারতে হয়। ২০০৯ সালে এই সেন্ট কিটসে একবারই ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি খেলেছে বাংলাদেশ। সেই ম্যাচে‌ও উইন্ডিজের দ্বিতীয় সারির দলের কাছে ৫ উইকেটে হেরেছিল বাংলাদেশ দল। ৯ বছর পর একই ভেন্যুতে প্রতিশোধ নেয়ার ম্যাচ সাকিবের। সেজন্য ওয়ানডে সিরিজের জয় আত্মবিশ্বাসী রাখবে টাইগারদের। তবে টি-টোয়েন্টি ব্যর্থতা আবার চোখ রাঙ্গাচ্ছে সফরকারীদের। আর স্বাগতিক ক্যারিবীয়রা বর্তমান সময়ে যেকোন ফরমেটের চেয়ে টি-টোয়েন্টি অনেকটাই ভাল দল। নিজেদের মাঠে তারা আরও অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠবে এটাই স্বাভাবিক। ক্যারিবীয়রা বেশ ফর্মেও আছে টি-টোয়েন্টি ফরমেটে।

সে যাই হোক প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচেই জয়ের লক্ষ্য নিয়ে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজও ওয়ানডে সিরিজে পরাজয়ের গ্লানি ভুলে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয়েই মাঠে নামবে।

নেইমার ছাড়াই পিএসজির জয়

দলের সেরা তারকা নেইমারকে ছাড়াই ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদকে ৩-২ হারিয়েছে প্যারিস সেন্ট জার্মেই।

প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতির অংশ হিসেবে এই টুর্নামেন্টে, সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে, খেলার ৩২ মিনিটে ক্রিস্টোফার এনকানকু’র গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্সের চ্যাম্পিয়নরা। মুসা দিয়াবের গোলে ৭১ মিনিটে ২-০ ব্যবধানে লিড নেয় পিএসজি। ভিক্টর মোলেরো এবং বেরনাডের আত্মঘাতি গোলে ম্যাচে সমতা ফেরায় অ্যাথলেটিকো।

খেলা শেষের ইনজুরি টাইমের দ্বিতীয় মিনিটে পোস্টোলাচির কল্যাণে ৩-২ গোলের জয় পায়, পিএসজি। এতে নতুন কোচ থমাস টুসেলের অধীনে প্রথম জয় পায় ফ্রান্স সেরারা। এরআগে, বায়ার্ন মিউনিখ ও আর্সেনালের কাছে হেরেছিল টুসেলের শিষ্যরা।

জুভেন্টাসে আজ প্রথম অনুশীলন রোনালদোর

আজ সোমবার ইটালিয়ান জায়ান্ট জুভেন্টাসের হয়ে প্রথম অনুশীলনে নামছেন পর্তুগিজ মহাতারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। এই অনুশীলনে যোগ দিতেই তিনি তুরিনে ছুটে গেছেন।

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ‌ও রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক এই ফরোয়ার্ড ১০০ মিলিয়ন ইউরোতে, চলতি মাসের শুরুতে সিরিএ চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাসে যোগ দেন। এবার রাশিয়া বিশ্বকাপে দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে তার দল পর্তুগাল বিদায় নিয়েছিল।

অবশ্য প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে এখন যুক্তরাষ্ট্র সফর করছে জুভেন্টাস। সেই ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপের ম্যাচে ইতোমধ্যে তারা বায়ার্ন মিউনিখ ‌ও বেনফিকার সঙ্গে দুটি খেলা শেষ করেছে। আগামী বুধবার তারা এমএলএস অল স্টারের সঙ্গে আর শনিবার রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে আরো দুটো ম্যাচ খেলবে। তবে এই দুটো ম্যাচেই থাকছেন না রোনালদো।

ফুটবল দল এখন কোরিয়ায়

বাংলাদেশ ফুটবল দল এখন দক্ষিণ কোরিয়ায়। এশিয়ান গেমস ‌ও সাফ চ্যাম্পিয়নশীপের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে ফুটবল দল কোরিয়ায় পৌঁছেছে। দলের সবাই ভালো আছে। ভ্রমণজনিত ক্লান্তি থাকলে‌ও কারো বড় কোনো অসুবিধা নেই।

পরে অবশ্য বাংলাদেশ ফুটবল দল অনুশীলনে অংশ নেয়।

জাতীয় মহিলা বেসবলে আনসার চ্যাম্পিয়ন

ওয়ালটন দ্বিতীয় জাতীয় মহিলা বেসবল প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ আনসার। আজ রোববার ধানমন্ডির সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে, প্রতিযোগিতার ফাইনালে বাংলাদেশ পুলিশকে ১৭-৬ পয়েন্টের ব্যবধানে হারিয়ে শিরোপা জিতে নেয় আনসার। এ নিয়ে টানা দ্বিতীয়বারের মতো চ্যাম্পিয়ন হলো তারা। অন্যদিকে আরো একবার ফাইনালে এসেও শিরোপা বঞ্চিত রইলো পুলিশ।

চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স-আপ দলকে ট্রফি ও মেডেল দেওয়া হয়। এ ছাড়া ওয়ালটন গ্রুপের পক্ষ থেকে উভয় দলের খেলোয়াড়দের আকর্ষণীয় হোম অ্যাপ্লায়েন্স দিয়ে পুরস্কৃত করা হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব মাসুদ করিম।

টুর্নামেন্টে আটটি দল দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে। ‘এ’ গ্রুপে ছিল বাংলাদেশ আনসার, খুলনা বিভাগ, রংপুর বিভাগ ও ঢাকা বিভাগ। আর ‘বি’ গ্রুপে ছিল বাংলাদেশ পুলিশ, ময়মনসিংহ বিভাগ, চট্টগ্রাম বিভাগ ও রাজশাহী বিভাগ।

আজ সন্ধ্যায় সিরিজ নির্ধারণ

আগের ম্যাচেই সিরিজ জয়ের সুযোগ ছিল বাংলাদেশের। গায়ানায় দ্বিতীয় ওয়ানডে জিতলে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতত টাইগাররা। কিন্তু শেষ দিকে স্নায়ুর চাপ নিতে না পেরে হার সঙ্গী করে সফরকারীরা। তবে আজ শেষ সুযোগটা কাজে লাগাতে মরিয়া দল। এমনটাই জানিয়েছেন অফ স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ২৭১ রান তাড়ায় একটা সময় বাংলাদেশের দরকার ছিল ৩০ বলে ৪০ রান। হাতে ৭ উইকেট। পরে সমীকরণটা দাঁড়ায় ১৩ বলে ১৪ রানে। হাতে তখন ৬ উইকেট। এই ম্যাচও শেষ পর্যন্ত ৩ রানে হেরে যায় বাংলাদেশ।

১-১ সমতা নিয়ে আজ সেন্ট কিটসে তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

মিরাজ মানছেন, আগের ম্যাচে সিরিজ জয়ের সুযোগটা তাদের কাজে লাগানো উচিত ছিল। কিন্তু সুযোগ যে একেবারে শেষ হয়ে যায়নি, সেটাও মনে করিয়ে দিলেন তিনি।

ম্যাচের আগের দিন অনুশীলনের ফাঁকে মিরাজ বলেছেন, ‘আসলে অবশ্যই আমাদের সুযোগ ছিল। তারপরও আমি বলব, আমরা সিরিজ থেকে ছিটকে যাইনি। এখনো আমাদের সুযোগ আছে। আমাদের আরেকটা ম্যাচ সুযোগ আছে, জিততে পারলে আমরা সিরিজ জিতব।’

শেষ ওভারে যেনো ব্যাট করতেই ভুলে যায় বাংলাদেশ। অতীতে অনেকবারই এমন হার সঙ্গী হয়েছে। মিরাজ তাই ৩ রানের হারের কোনো অজুহাত দিচ্ছেন না। এটাকে নিজেদের ব্যর্থতা হিসেবেই দেখছেন। পরেরবার একইরকম ভুল আর করতে চান না বলেও জানান। ‘আমি বলব যে, আসলে এটা আমরা নিজেরাই ভুল করেছি, এটা আমাদেরই ব্যর্থতা ছিল। তবে আমরা সবাই নিজেরা নিজেদের মধ্যে কথা বলেছি, আলোচনা করেছি। পরেরবার এরকম পরিস্থিতি আসলে সুন্দরভাবে উত্তরণের চেষ্টা করব’।

সেন্ট কিটসের উইকেট গায়ানার মতো ধীরগতির হওয়ার সম্ভাবনা কম। মাঠও অনেক ছোট। যদিও গত দুই বছরে এখানে কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ হয়নি, সবশেষ ওয়ানডে ম্যাচটাও ২০১২ সালে।

সেন্ট কিটসের উইকেট নিয়ে মিরাজ বলেছেন, ‘উইকেট দেখেছি। আসলে আমার কাছে মনে হয়েছে, আল্লাহর রহমতে সবকিছু ঠিক থাকলে আমরা ভালো কিছু করব। আমি এখানে প্রথম এসেছি। যারা অভিজ্ঞ খেলোয়াড় আছে, তারা অনেক খেলেছে এখানে। আশা করি, ভালোই হবে।’

প্রস্তুতি ম্যাচে লিভারপুলের জয়

প্রাক-মৌসুম প্রস্তুতিমূলক টুর্নামেন্ট ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে জয় পেয়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড, লিভারপুল ও জুভেন্টাস।

এসি মিলানের বিপক্ষে ম্যাচের ১২ মিনিটেই অ্যালেক্সি সানচেজের গোলে এগিয়ে যায় ম্যান ইউ। তবে ৩ মিনিটের মধ্যেই সমতা ফেরান সুশো। বাকি সময়ে আর গোল না হলে পেনাল্টি শ্যুট আউটে ৯-৮ গোলে জয় পায় রেড ডেভিলরা।

এদিকে, দুই ইংলিশ ক্লাবের লড়াইয়ে পিছিয়ে পড়েও ম্যানচেস্টার সিটিকে ২-১ গোলে হারিয়েছে লিভারপুল। ৫৭ মিনিটে লেরয় সানে এগিয়ে দিয়েছিলেন ম্যান সিটিকে। তবে ৬৩ মিনিটে মোহাম্মদ সালাহ ম্যাচে সমতা ফেরানোর পর ইনজুরি সময়ে সাদিও মানের গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে লিভারপুল।

আর ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো এখনও দলের সাথে যোগ না দিলেও বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে ২-০ গোলের সহজ জয় পেয়েছে জুভেন্টাস। ৩২ ও ৪০ মিনিটে জোড়া গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেছেন আন্দ্রে ফাভিলি।

বিশ্বকাপের সেরা গোল পাভার্ডের

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে শেষ ষোলোর ম্যাচে ফ্রান্সের বেঞ্জামিন পাভার্ডের করা গোলটিকেই এবারের বিশ্বকাপের সেরা গোলের স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে।

ফিফার অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে ত্রিশ লাখেরও বেশি ভোটারের সিদ্ধান্তে ওই ম্যাচে এই ডিফেন্ডারের রকেট গতির গোলটিকেই বেছে নেয়া হয়েছে সেরা বলে।

গ্রুপ পর্বে জাপানের বিপক্ষে কলম্বিয়ার হুয়ান কুইন্টেরোর গোলকে বেছে নেয়া হয়েছে দ্বিতীয় আর আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ক্রোয়েশিয়ার লুকা মডরিচের গোলটি বিবেচিত হয়েছে তৃতীয় হিসেবে। সুইডেনের বিপক্ষে জার্মানির হয়ে টনি ক্রুসের জয়সূচক অবিশ্বাস্য গোলটি পেয়েছে দশম স্থান।

ওয়ালটন জাতীয় মহিলা বেসবল শুক্রবার

আটটি দল নিয়ে সুলতানা কামাল মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে আগামী শুক্রবার থেকে শুরু হচ্ছে ওয়ালটন দ্বিতীয় জাতীয় মহিলা বেসবল প্রতিযোগিতা।

এ উপলক্ষে আজ দুপুরে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে, এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিযোগিতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন বেসবল-সফটবল এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম লিটন। আটটি দলকে দুটি গ্র“পে ভাগ করে খেলা চলবে। দুই গ্র“পের চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দল আগামী শনিবার সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটনের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার ডন ও ডিএমপি’র উপ-পুলিশ কমিশনার এবিএম মাসুদ হোসেন। প্রতিযোগিতার মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলা।

ফারাজ গোল্ডকাপ ফুটবল শুরু

ফারাজ গোল্ডকাপ আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী দিনে আইইউবি ও ইউল্যাব জিতেছে। এর আগে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে, দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজিত এই প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব আসাদুল ইসলাম, প্রয়াত ফারাজের বড় ভাই জারেফ আয়াত হোসেন ও টুর্নামেন্ট কমিটির সদস্য সচিব শেখ মোহাম্মদ আসলাম।

উদ্বোধনী ম্যাচে ইউল্যাব টাইব্রেকারে ৫-৪ গোলে ফারইস্ট বিশ^বিদ্যালয়কে পরাজিত করে। অন্য ম্যাচে, আইইউবি বিশ^বিদ্যালয় ১১-০ গোলের বিশাল ব্যবধানে হারায় স্টেট বিশ^বিদ্যালয়কে।

সামার এ্যাথলেটিক্স শুক্রবার

শুক্রবার থেকে ট্র্যাকে গড়াবে চলতি বছরে প্রথম মিট ঢাকা সিটি এফসি সামার অ্যাথলেটিকস। পুরুষ ও নারী বিভাগে ৩৬টি ইভেন্টে অংশ নেবে বিভিন্ন জেলা, বিভাগ, বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বাহিনীর ক্রীড়াবিদরা। আজ বুধবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সভাকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু। তিনি আর‌ও জানান, আগামী অক্টোবর মাসে ঢাকায় হবে বঙ্গবন্ধু সাফ অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা। এ সময় সভাপতি এএসএম আলী কবির এবং পৃষ্ঠপোষক ঢাকা সিটি এফসির সম্পাদক সামসুদ্দোহা উপস্থিত ছিলেন।

ছয় আসরে দ্রুততম মানবের খেতাব জিতে আসছেন মেজবাহ আহমেদ। পাঁচ আসরে দ্রুততম মানবীর মুকুট ধরে রেখেছেন শিরিন আক্তার। কিন্তু তারা কেউই সাবেকদের রেকর্ড অতিক্রম করতে পারেননি। বরং দু’চার সেকেন্ড কমিয়ে নিজেদের রেকর্ডই ভাঙ্গছেন। তাইতো বছরের পর বছর ধরে প্রত্যেকটি মিটে বইয়ের পাতায় সেই নাজমুন নাহার বিউটি, জাকিয়া সুলতানা, শর্মিলা রায়, সুমিতা রানী, ফৌজিয়া হুদা, মাহবুব আলম, গোলাম আম্বিয়া, মিলজার হোসেন, মোস্তাক আহমেদের নাম এখনও ছাপা হচ্ছে।

২০০৯ সালে ১০০ মিটার হার্ডলসে রেকর্ড গড়া সুমিতা রানী আজও এই ইভেন্টের বড় রানী। সেখানে জায়গা করে নিতে পারছেন না নতুনরা। এখানেই অ্যাথলেটিকসের দৈন্যতা ফুটে ওঠছে। তবে এই অবস্থা থেকে বের হওয়ার চেষ্টা নাকি করছে ফেডারেশন। সাধারণ সম্পাদক জানান, আমরা চেষ্টা করছি অ্যাথলেটদের মান বৃদ্ধি করতে। তাইতো ঘরোয়া আসর বাদেও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক আসরে নিয়মিত অংশগ্রহন নিশ্চিত করছি। কোচ কিতাব আলী বলেন, বাংলাদেশ সরকার ও শুটিং ফেডারেশন গুলি আনার অনুমোদন দেয়নি। তাই কাঠ দিয়েই স্টার্টারের কাজ সারতে হবে এবারও। সেপ্টেম্বরে দু’দিনের জুনিয়র মিট এবং ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে তিন দিনব্যাপী সিনিয়র অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ। এবার ইলেক্ট্রোনিক্স টাইম না থাকলেও ফটোফিনিশিং থাকবে বলে জানানো হয়। পৃষ্ঠপোষক ঢাকা সিটি এফসি একটি ফুটবল ক্লাব। দেশব্যাপী প্রতিভা অন্বেষনের মাধ্যমে খেলোয়াড় বাছাই করে ১২ বছর মেয়াদী প্রশিক্ষণ দেবে। আগামীতে বিশ্বকাপ বাছাইয়েও খেলার জন্য দেশকে সহায়তা করতে চায়। এর জন্য ইউক্রেন থেকে দু’জন কোচও আনবে তারা।

২০১০ সালে ঢাকা এসএ গেমসের পর আন্তর্জাতিক কোন আসরের আয়োজন করতে পারেনি অ্যাথলেটিকস ফেডারেশন। প্রতিবছর জাতীয় সিনিয়র, জুনিয়র ও সামার মিট হয়েছে। বিদেশের মাটিতে গিয়ে আন্তর্জাতিক আসরেও অংশ নিয়েছে। কিন্তু দেশের মাটিতে আন্তর্জাতিক আসর গড়াতে পারেনি। আগামী বছর অক্টোবরে ঢাকায় বসবে বঙ্গবন্ধু সাউথ এশিয়ান অ্যাথলেটিকস চ্যাম্পিয়নশিপ। যে টুর্নামেন্টে অংশ নেবে দক্ষিণ এশিয়ার সাতটি দেশ।

আগামী বছরের মার্চে নেপালে অনুষ্ঠিত হবে সাউথ এশিয়ান (এসএ) গেমস। ওই গেমসে কি স্বর্ণখরা ঘুচতে পারে? এমন প্রশ্নের উত্তরে জাতীয় কোচ কিতাব আলীর কথা, র্স্বণের আশা করতে দোষ নেই। তবে সম্ভব নয়। কারণ এই আক্ষেপটি ঘুচাতে হলে ভালো মানের বিদেশী কোচ প্রয়োজন এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণের দরকার। উদাহরন হিসেবে বলবো, গৌহাটিতে শ্রীলংকা বিশাল বহর নিয়ে অ্যাথলেটিকসে এসেছিল। যে বহরে কোচই ছিলেন ২২ জন। একজন কোচের তত্বাবধানে থাকেন মাত্র দু’থেকে তিনজন অ্যাথলেট। চার বছর অনুশীলন করিয়েছেন তারা। যার ফলটাও অ্যাথলেটরা এনে দিয়েছেন। তবে আমরা আশা ছাড়ছি না। নেপালে ছেলে মেয়েরা চেষ্টা করবে স্বর্ণ জিততে।

সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রকিব মন্টু বলেন, ‘তাইওয়ানের সঙ্গে দু’জন কোচের বিষয়ে কথা হয়েছে। আমি আরও চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা বলেছে, ফেডারেশন পর্যায়ে এরচেয়ে বেশি কিছু করা সম্ভব নয়। সরকারী পর্যায়ে যোগাযোগ করা হলে আমরা অনেকজন কোচ দিতে পারবো। সঙ্গে সরঞ্জামাদিও দিতে পারবো। কিন্তু কিভাবে সরকারকে আমরা সম্পৃক্ত করবো বুঝতে পারছি না। আশাকরি এ উদ্যৌাগ সফল হবে।

ফিফা বর্ষসেরার তালিকায় মেসি-রোনালদো

ফিফা বর্ষসেরা (বেস্ট) ফুটবলারের দশজনের সংক্ষিপ্ত তালিকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লিওনেল মেসির নাম থাকলে‌ও ঠাঁই হয়নি ব্রাজিলের সেরা তারকা নেইমারের। তাকে বাদ দিয়েই সেরা দশ খেলোয়াড়ের সংক্ষিপ্ত তালিকা আজ মঙ্গলবার প্রকাশ করে ফিফা।

আগের দুই বছর ২৩ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করা হয়েছিল। এবারই প্রথম সংক্ষিপ্ত তালিকা ১০ জনে নামিয়ে আনা হয়েছে। পুরুষদের এই তালিকা প্রস্তুত করছেন ব্রাজিলের কিংবদন্তি রোনালদো, কাকা, ইংল্যান্ডের সাবেক মিডফিল্ডার ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড ও আইভরি কোস্টের সাবেক স্ট্রাইকার দিদিয়ের দ্রগবা। মেয়েদের ১০ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রস্তুত করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের কিংবদন্তি মিয়া হাম ও চীনের সাবেক স্ট্রাইকার সুন ওয়েন। এ বছরের ২৪ সেপ্টেম্বর লন্ডনে ফিফার ‘বেস্ট ফুটবল অ্যাওয়ার্ডস’ অনুষ্ঠানে বিজয়ীদের হাতে ট্রফি তুলে দেওয়া হবে।

সব মিলিয়ে ফিফা বর্ষসেরার পুরস্কার এ পর্যন্ত পাঁচবার করে জিতেছেন রোনালদো ও লিওনেল মেসি। ‘বেস্ট’ ট্রফি চালুর পর এবার রোনালদোর রাজত্বের অবসান ঘটার সম্ভাবনাই বেশি। কারণ তাঁর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন রাশিয়া বিশ্বকাপে ‘গোল্ডেন বুট’জয়ী হ্যারি কেন ও ‘গোল্ডেন বল’জয়ী লুকা মড্রিচ।

সেরা খেলোয়াড় (পুরুষ ও নারী) ও সেরা কোচ (পুরুষ ও নারী) ক্যাটাগরিতে মোট চারটি বিভাগে এই পুরস্কার দেওয়া হবে। ভোটের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হবে বিজয়ীকে। এবার সবার ভোটই নেওয়া হবে। জাতীয় দলগুলোর অধিনায়ক, কোচ আর সংবাদকর্মী ছাড়া ফুটবলপ্রেমীরাও এই ভোটে অংশ নিতে পারবেন।

পুরুষদের সংক্ষিপ্ত তালিকা: রোনালদো, কেভিন ডি ব্রুইন, আঁতোয়ান গ্রিজমান, এডেন হ্যাজার্ড, হ্যারি কেন, কিলিয়ান এমবাপে, লিওনেল মেসি, লুকা মড্রিচ, মোহাম্মদ সালাহ ও রাফায়েল ভারানে।

পুরুষদের সেরা কোচের তালিকা: মাসিমিলিয়ানো অ্যালেগ্রি (জুভেন্টাস), স্তানিস্লাভ চেরচেশভ (রাশিয়া), জ্লাতকো দালিচ (ক্রোয়েশিয়া), দিদিয়ের দেশাম (ফ্রান্স), পেপ গার্দিওলা (ম্যানচেস্টার সিটি), ইয়ুর্গেন ক্লপ (লিভারপুল), রবার্তো মার্টিনেজ (বেলজিয়াম), ডিয়েগো সিমিওনে (অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ), গ্যারেথ সাউথগেট (ইংল্যান্ড), আর্নেস্টো ভালভার্দে (বার্সেলোনা) ও জিনেদিন জিদান (রিয়াল মাদ্রিদ)।

ফিফার বর্ষসেরা পুরুষ ‌ও নারী কোচের সংক্ষিপ্ত তালিকা

বর্ষসেরা পুরুষ ‌ও নারী কোচদের সংক্ষিপ্ত তালিকা প্রকাশ করেছে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফা। তালিকায় আছেন, বিশ্বকাপে দলের দায়িত্বে থাকা ৫ কোচ।

তারা হলেন- চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের দিদিয়ের দেশম, রানার্সআপ ক্রোয়েশিয়ার জালাতকো দালিচ, বেলজিয়ামকে তৃতীয় স্থান এনে দেয়া রবার্তো মার্টিনেজ, ইংল্যান্ডের সাউথগেট এবং বিশ্বকে চমকে দেয় রাশান বস স্তানশিলাস চেরসেভ।

এছাড়া প্রাথমিক তালিকায় রাখা হয়েছে রিয়াল মাদ্রিদের সাবেক কোচ জিনেদিন জিদান, ইংলিশ চ্যাম্পিয়ন ম্যানচেস্টার সিটির পেপ গাদিওলা, আর্নেস্তো ভালভার্দে, ম্যাসিমিলানো এলেগ্রো, ইয়ুর্গেন ক্লপ এবং দিয়েগো সিমিওনের নামও।

এদিকে, পুরুষদের পাশাপাশি নারীদের কোচিং করানো সেরা দশজনের সংক্ষিপ্ত তালিকাও প্রকাশ করেছে ফিফা। সেখানে আছেন- এমা হায়েস, স্টিফেন লার্চ, মার্ক পারসনস, আসাকা তাকাকুরাদের নাম। গত বছরের ৩ জুলাই থেকে চলতি বছরের ১৫ জুলাই পর্যন্ত পারফরমেন্সের ভিত্তিতে ফিফা সেরা কোচদের এই সংক্ষিপ্ত তালিকা করে।

আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর লন্ডনে জমকালো এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দর্শক, সাংবাদিক, খেলোয়াড় ‌ও কোচদের ভোটে সেরা কোচের হাতে ‘ফিফা বেস্ট’ পুরস্কার দেয়া হবে।

কাল থেকে শুরু ফারাজ স্মৃতি ফুটবল

হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলায় নিহত ফারাজের স্মরণে আগামীকাল বুধবার থেকে দ্বিতীয়বারের মতো শুরু হচ্ছে আন্ত:বিশ্ববিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট। প্রতিযোগিতার আয়োজন করছে সোনালী অতীত ক্লাব।

এ উপলক্ষে আজ মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে টুর্নামেন্টের বিস্তারিত তুলে ধরেন সাবেক ফুটবলার শেখ মোহাম্মদ আসলাম। এবার ২০ টি বিশ্ববিদ্যালয় অংশ নেবে আট গ্রুপে ভাগ হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে তারা। প্রতি গ্রুপের সেরা দল খেলবে কোয়ার্টার ফাইনালে।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে, আগামীকাল বুধবার বিকেল সাড়ে তিনটায় ফারইষ্ট এবং ইউ ল্যাব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে ‘ফারাজ গোল্ডকাপ’। টুর্নামেন্টের পৃষ্ঠপোষকতা করছে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক।

নেইমারের ফাইভ এ সাইড ফুটবল

বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর ফাইভ এ সাইড ফুটবল নিয়ে মেতেছেন বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবল তারকা ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড নেইমার।

বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে পড়ার পর নিজ শহর সান্তোসে একটি ফাইভ এ সাইড ফুটবল টুর্নামেন্ট আয়োজন করেছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা নেইমার। সেখানেই খেলতে নেমে দারুণ এক গোলও করেছেন পিএসজির এই মহাতারকা।

অবশ্য এই টুর্নামেন্টেও ফাইনালের আগেই ছিটকে পড়েছে ব্রাজিল। সম্মিলিত টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতেছে মেক্সিকো। বিজয়ী দলের সামনে সুযোগ ছিলো নেইমার আর তার বন্ধুদের সাথে খেলার। বন্ধুদের নিয়ে গড়া দলটিতে পিএসজির আরেক খেলোয়াড় এরিকা এবং বার্সেলোনার আন্দ্রেসা আলভেজ ছিলেন।

মেক্সিকোকে ৫-২ গোলে হারালেও পরে ব্রাজিলিয়ানদের কাছে ২-১ গোলে হেরে গেছেন নেইমাররা। বিশ্বের ৬০টি দল অংশ নেয় এই ফাইভ এ সাইড ফুটবল টুর্নামেন্টে।

স্পেশাল অলিম্পিকস আন্তঃস্কুল স্পোর্টস

স্পেশাল অলিম্পিকসের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আজ সোমবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হলো স্পেশাল অলিম্পিকস আন্তঃস্কুল ইউনিফাইড স্পোর্টস টুর্নামেন্ট। দিনব্যাপি এই আয়োজনে চারটি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী দল অংশগ্রহণ করে। এতে অংশ নিয়ে ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত জানান, সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোকে এগিয়ে নিতে এমন আয়োজন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

১৯৬৮ সালে ২০ জুলাই ইউনিস কেনেডি শ্রীভার যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডে স্পেশাল অলিম্পিকসের প্রবর্তন করেন। সে হিসেব অনুযায়ী বিশ্বের ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিযোগিতা ৫০তম বছরে পা রেখেছে। অর্ধশতবার্ষিকীতে অন্যান্য দেশের মতো নানা আয়োজনে বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী এই প্রতিযোগিতা।

এ উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে সোমবার দিনব্যাপি স্পেশাল অলিম্পিকস আন্তঃস্কুল ইউনিফাইড স্পোর্টস টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রয়াস স্পেশাল স্কুল, কম্বাইন্ড স্পেশাল স্কুলসহ মোট চারটি বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলের ফুটবল দল অংশগ্রহণ করে। এর আগে সোমবার সকালে উদ্বোধনী আয়োজনে অংশ নিয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাট জানান, পিছিয়ে পড়া মানুষগুলোকে এগিয়ে নিতে এই আয়োজন ভূমিকা রাখবে।

১৯৯৪ সালে স্পেশাল অলিম্পিকের সদস্য হয় বাংলাদেশ। এখন পর্যন্ত ‘স্পেশাল অলিম্পিকস বাংলাদেশ’-এর পৃষ্ঠপোষকতায় হাজারো বুদ্ধিবৃত্তিক প্রতিবন্ধী ছেলে ও মেয়েদের প্রশিক্ষিত করা হয়েছে। এই কার্যক্রমের এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনার ফলস্বরুপ, বাংলাদেশ বর্তমানে স্পেশাল অলিম্পিকসের সবচেয়ে সফল দেশগুলির মধ্যে একটি। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ স্পেশাল অলিম্পিকস এর ক্রীড়াবিদরা ২৫০টিরও বেশি পদক জিতেছেন। এরমধ্যে স্বর্ণপদক ২০১টি।

খুলনায় নারী ক্রিকেটারদের সংবর্ধনা

নিজ বিভাগের কৃতি নারী ক্রিকেটারদের খেলোয়াড়দের সংবর্ধনা দিয়েছে খুলনা সিটি কর্পোরেশন। নগর ভবনে, জাতীয় নারী ক্রিকেট দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন, খেলোয়াড় রুমানা আহমেদ ও আয়শা রহমান শুকতারার হাতে ফুল, ক্রেস্ট ও নগদ অর্থ তুলে দেন সিটি মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান।

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পলাশ কান্তি বালা, বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বেগম ফেরদৌসি আলী অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

হকি ফেডারেশনের জিভি মিটিং

প্রস্তুতি ভালো হয়েছে, তাতে আসন্ন এশিয়ান গেমসে ভালো ফলাফলের আশা করছেন বাংলাদেশ হকি দলের খেলোয়াড় ও কর্মকর্তারা। এদিকে, হকি লিগের চ্যাম্পিয়নশীপ নির্ধারণ এবং নির্বাচন নিয়ে কোনো সিদ্ধান্তই হয়নি কার্যনির্বাহী কমিটির এই সভায়।

বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের নতুন সভাপতি ও বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার মার্শাল মাসিহুজ্জামান সেরনিয়াবাতের সঙ্গে পরিচিত পর্ব দিয়েই শুরু হয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা। এ সময় তিনি হকিকে নিয়ে আগামীদিনে তার পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন। তবে গত আগস্টে স্থগিত হয়ে যাওয়া নির্বাচন নতুন করে আয়োজনের কোনো তারিখ ঘোষণা কিংবা প্রথম বিভাগ হকি লিগের চ্যাম্পিয়নশীপ নির্ধারণ নিয়ে কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেনি ফেডারেশন।

তবে মিটিং শেষে ফেডারেশনের সহসভাপতি মমিনুল হক সাঈদ জানান, লিগ শিরোপা র্নিধারণের ব্যাপারে লিগ কমিটির মিটিংযে সিদ্ধান্ত হবে। তারা যদি না পারে তবে নির্বাহী কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হবে। এদিকে, গত আগস্টে নির্বাচন করার কথা থাকলেও স্থগিত হয়ে যাওয়া এই নির্বাচনের বিষয়ে সভাপতি ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে নির্বাচন আয়োজনের নতুন তারিখ ঘোষণা করবেন বলে জানান।

আসন্ন এশিয়ান গেমসের প্রস্তুতির অংশ হিসেবে দক্ষিণ কোরিয়ার বিভিন্ন দলের সঙ্গে পাঁচটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ হকি দল। গত এশিয়ান গেমসে অষ্টম হওয়া বাংলাদেশ এবার ইন্দোনেশিয়ায় আরো ভালো ফলের আশা করছে। দলের ফরোয়ার্ড রাসেল মাহমুদ জিমি বলেন, আমাদের লক্ষ্য ষষ্ঠস্থানে থাকা। তবে আমরা চেষ্টা করছি ফলাফলটা যেনো আরো ভালো হয়। ভারত কিংবা দক্ষিণ কোরিয়া সফর এশিয়ান গেমসে ভালো ফলাফলের জন্য কাজে আসবে। এদিকে, দলের হেড কোচ ইমান গোবিনাথান কৃষ্ণমূর্তি বলেন, ছেলেরা ধীরে ধীরে উন্নতি করছে। তবে তাদেরকে আরো সময় দিতে হবে। একটু সময় পেলে তারা দেশের জন্য আরো ভালো কিছু এনে দিতে পারবে।

কোরিয়া সফরের স্পন্সর অগ্রণী ব্যাংকের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক মো: শামস-উল ইসলাম বলেন, প্রস্তাব পেলে, দীর্ঘ মেয়াদে ফেডারেশনকে স্পন্সর করার বিষয়টি তারা বিবেচনা করবেন।

আগামীকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে এগারটায় বাংলাদেশ হকি দল প্রস্তুতি ম্যাচ খেলতে দক্ষিণ কোরিয়ার উদ্দেশ্যে যাত্রা করবে।

এশিয়ান গেমসের জন্য প্রস্তুত ইন্দোনেশিয়া

ইন্দোনেশিয়ায় আসন্ন এশিয়ান গেমসে অ্যাথলেট এবং অতিথিদের অভ্যর্থনা জানাতে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে আয়োজকরা।

গুলশানে নিজ দুতাবাসে, গেমস সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরতে গিয়ে এমনটা জানান ঢাকায় নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদুত রিনা সমারনো। এসময় তিনি বলেন, অ্যাথলেট এবং গেমসের সংবাদ সংগ্রহ করতে যাওয়া প্রত্যেকের জন্য তারা সর্বোচ্চ সুযোগ-সুবিধার ব্যাবস্থা করেছেন।

৪৫ টি দেশের প্রতিযোগী এবং কর্মকর্তা মিলিয়ে ১৬ হাজার অতিথি এবার এশিয়ান গেমস উপলক্ষ্যে ইন্দোনেশিয়ায় যাবেন। আগামী ১৮ আগস্ট থেকে ২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত জাকার্তা এবং পালেমবাঙ্গে হবে এবারের ১৮ তম এশিয়ান গেমস।

দায়িত্ব নে‌ওয়ার প্রথম ম্যাচেই ম্যারাডোনার দলের হার

বেলারুশের ক্লাব ডায়নামো ব্রেস্টের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিযে রাজার বেশেই মাঠে আসেন ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তি ডিয়াগো ম্যারাডোনা। ছাদ খোলা বিলাসবহুল এক গাড়িতে করে তিনি মাঠে আসেন। গ্যালারির দর্শকরা তাকে করতালি দিয়ে স্বাগত জানায়। কিন্তু কিংবদন্তি এই ফুটবলারের উপস্থিতি‌ও দলকে উজ্জ্বীবিত করতে পারেনি।

শাখতারের কাছে তার দল ডায়নামো ব্রেস্ট ৩-১ গোলে পরাজিত হয়। দলের খেলা দেখে তিনি রীতিমতো বিরক্ত। আর সেটা প্রকাশ করতে‌ও সময় নেননি ম্যারাডোনা।

তিন বছরের চুক্তিতে ক্লাবটির দায়িত্ব নেন এই আর্জেন্টাইন ফুটবলার। দু’বছর আগে দেউলিয়া হওয়া থেকে রক্ষা পেয়েছিলো ক্লাবটি। এই ক্লাবের দায়িত্ব নিতে সম্মত হওয়ার পরই বেলারুশে রীতিমত নায়কের আসনে বসে যান ম্যারাডোনা।

জাতীয় মহিলা উশু শুরু

দেশব্যাপি নারী খেলোয়াড় তৈরি এবং তাদেরকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে আজ থেকে শুরু হয়েছে ‘ওয়ালটন জাতীয় মহিলা উশু চ্যাম্পিয়নশিপ’।

তিনদিনের এই প্রতিযোগিতায় দেশের ১৫টি জেলা ও ক্লাবের খেলোয়াড়রা ৪০টি পদকের জন্য লড়াই করবেন। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের জিমনেশিয়ামে সকালে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)।

এ সময় উশু অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর শাহ ভূঁইয়া, টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান শামীম খান টিটো ও সদস্য সচিব রেহানা পারভীন উপস্থিত ছিলেন। প্রতিযোগিতার মিডিয়া পার্টনার এটিএন বাংলা।

রোনালদো এখন জুভেন্টাসের

জুভেন্টাসে আনুষ্ঠানিক পরিচিতি অনুষ্ঠানে পর্তুগিজ মহাতারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো বলেছেন, বয়স কোনো সমস্যা নয়। স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদ ছেড়ে ইতালিয়ান ক্লাবটিতে যোগ দেয়ার অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

গত সপ্তাহেই আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে রিয়াল জানায়, একশ ১৭ মিলিয়ন ডলারে জুভেন্টাসের কাছে রোনালদোকে বিক্রি করে দেয়ার কথা। স্পোর্টিং লিসবন, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড আর রিয়ালের হয়ে ক্যারিয়ারে সম্ভাব্য সব প্রাপ্তি থাকলেও আরো নতুন চ্যালেঞ্জ নিতে নিজের ক্ষুধার কথা সংবাদ সম্মেলনে তুলে ধরেন রোনালদো। তিনি জানান, যদিও তাঁর বয়স ৩৩; আর এ সময় সাধারণত খেলোয়াড়রা একটু নিরাপদ জীবনের আশায় কাতার বা চীনের দিকে ঝুঁকছেন।

কিন্তু আরামের জীবনের প্রতি অনীহা আর চ্যালেঞ্জের নেশা তাঁকে ওল্ড লেডিদের হয়ে আরো বেশি কিছু করার তাড়না দিয়েছে। চার বছরের চুক্তিতে জুভেন্টাসে যোগ দেয়া পাঁচবারের এই বিশ্বসেরা ফুটবলার আগামী ৩০ জুলাই প্রাক মৌসুম প্রস্তুতি ম্যাচ দিয়ে ক্যারিয়ারের নতুন অধ্যায় শুরু করবেন।

আবার‌ও কোচিংয়ে ম্যারাডোনা

বেলারুশের ক্লাব ডায়নামো ব্রেস্টের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিলেন ডিয়াগো ম্যারাডোনা। বিশ্বকাপে ফিফার দূত হিসেবে দায়িত্ব পালন শেষে সোমবার বেলারুশে গিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নেন তিনি।

তিন বছরের চুক্তিতে ক্লাবটির দায়িত্ব নেয়ার পরই আশাবাদ জানিয়েছেন, বেলারুশের রাষ্ট্রপতি আলেক্সান্ডার লুকাশেঙ্কো দ্রুতই এই ক্লাবের ভক্ত হয়ে পড়বেন। দু’বছর আগেই দেউলিয়া হওয়া থেকে রক্ষা পেয়েছিলো ক্লাবটি। এই ক্লাবের দায়িত্ব নিতে সম্মত হওয়ার পরই বেলারুশে রীতিমত নায়কের আসনে বসে যান ম্যারাডোনা।

সোমবার দেশটিতে পৌঁছে আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেয়ার পর ডায়নামো শহরজুড়ে স্থানীয় জনগণের শুভেচ্ছার জবাব দেন তিনি। ম্যারাডোনা যোগ দেয়ায় ক্লাবের জনপ্রিয়তা আরো বাড়বে বলে মনে করেন ক্লাবের উন্নয়ন পরিচালন ভিক্টর রাডকভ।

ফ্রান্স আবার‌ও বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন

ইতিহাসের পাতায় আবারো ফরাশিরা। দ্বিতীয়বারের মতো বিশ^কাপ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন। মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামের ফাইনালে তারা ৪-২ ব্যবধানে হারায়, ক্রোয়েশিয়াকে। এই জয়ে তৃতীয় খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার অনন্য রেকর্ড গড়লেন, ফ্রান্সের কোচ দিদিয়ের দেশাম।

বিশ্বকাপের শিরোপা লড়াইটা যেনো গ্রিজম্যান-এমবাপের সঙ্গে মড্রিচ-মাঞ্জুকিচের নয়, ছিল ফরাশি বিটোভেনের সঙ্গে ‘বলকান মোজার্টের’। মাঠে নেমে শৈল্পিক মূর্চ্ছনায় ক্রোয়েশিয়ার জয়রথ থামিয়ে দ্বিতীয়বার বিশ্বকাপ শিরোপা জেতে ফ্রান্স। এতে ২০ বছর পর পর বিশ^কাপে নতুন চ্যাম্পিয়ন হওয়ার রীতিটাও মিথ্যে করে দিলো ‘লা ব্লুজ’রা। জানিয়ে দিলো, পারফরমেন্স আর পরিকল্পনা কাজে লাগাতে পারলে যেকোনো সময় শিরোপা জেতো সম্ভব।

অবশ্য দিনটি যে ক্রোয়েশিয়ার নয়, খেলার ১৮ মিনিটেই বুঝা গিয়েছিল। মাঞ্জুকিচের আত্মঘাতি গোলে লিড পায় ফ্রান্স।

তবে নাটকীয়তার শুরু এর পরই। শিরোপা জয়ের অদম্য ইচ্ছায় ২৮ মিনিটে সমতায় ফেরে ক্রোয়েশিয়া, পেরিসিচের দারুণ গোলে। আনন্দ উপলক্ষ খুঁজে পায় ক্রোয়াট সমর্থকরা।

আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠে ফাইনাল। ফ্রান্সের আক্রমণ ঠেকাতে গিয়ে পেরিসিচ নিজেদের বিপদসীমায় হাতে বল ঠেকালে, ভিএআর’এর কল্যাণে পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। স্পটকিকে দলকে ২-১ এ এগিয়ে দেন, গ্রিজম্যান।

এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় ফরাসিরা। ১৯৭৪ সালের পর, এবারই বিশ^কাপের কোনো ফাইনালের প্রথমার্ধে তিন গোল হলো।

প্রথমার্ধে লিড পাওয়া বিশ^কাপে কোনো ম্যাচ হারেনি ফ্রান্স। এমন ইতিহাস নিয়ে বিরতি থেকে ফিরে পল পগবার গোলে ব্যবধান আরো বাড়িয়ে নেয়, লা ব্লুজ’রা।

রুদ্ধশ^াস থ্রিলারের মত ম্যাচকে একপেশে করে তুলে এমবাপে ম্যাজিকে ৪-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় ফ্রান্স।
পরে আর ক্রোয়াট শিবিরে খুব একটা আক্রমণে যায়নি ফ্রান্স। সে সুযোগে, ফ্রান্স গোলকিপার লরিসের ভুলে ব্যবধান ৪-২-এ নামিয়ে আনেন, মারিও মাঞ্জুকিচ।

গোল শোধের চেষ্টা করেও সফল হয়নি ক্রোয়েটরা। আর তাতে নতুন ইতিহাস লেখা হলোনা ক্রোয়েটদের। রানারআপ হয়েই বাড়ি ফিরতে হলো। অন্যদিকে, দুই যুগ পর আবারও বিশ^ সেরা ফ্রান্স।

বিশ্বকাপে তৃতীয়স্থান পেলো বেলজিয়াম

রাশিয়া বিশ্বকাপে তৃতীয় স্থান পেল বেলজিয়াম। আজ শনিবার সেন্ট পিটার্সবার্গে রেড ডেভিলরা ২-০ পরাজিত করে ইংল্যান্ডকে। বিশ্বকাপের ইতিহাসে এটাই বেলজিয়ামের সেরা সাফল্য। ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো বিশ্বকাপে চতুর্থ হয়েছিল তারা।

শুধু তৃতীয় স্থানই নয়, ইংল্যান্ড-ক্রোয়েশিয়া ম্যাচে অন্য আকর্ষণও ছিল। হ্যারি কেন বনাম রোমেলু লুকাকু, সোনার বুটের লড়াই। কিন্তু, দু’জনের কেউই গোল করতে পারেননি। লুকাকুকে তো ৬১ মিনিটে তুলেই নেওয়া হয়। ছয় গোল করে হ্যারি কেনই পাচ্ছেন সোনার বুট। আর লুকাকু থেকে গেলেন চার গোলেই।

বেলজিয়াম চার মিনিটেই গোল করে এগিয়ে গিয়েছিল। নাসের শাদলির ক্রস থেকে টোকায় গোল করেন সেমিফাইনাল মিস করা টমাস মুনিয়ের। প্রথম ২০ মিনিটে রেড ডেভিলরা দাপট দেখায়। ইংল্যান্ড ধীরে ধীরে লড়াইয়ে ফেরে। কিন্তু কাজের কাজ হয়নি।

ক্রমশ পাল্টা আক্রমণে তাদেরকে ধরাশায়ী করে বেলজিয়াম। তৈরি করতে থাকে গোলের সুযোগ। ৮২ মিনিটে ‘লাল শয়তান’দের অধিনায়ক এডেন হ্যাজার্ড ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। কেভিন ডি ব্রুইনের পাস থেকে দুরন্ত শটে গোল করেন তিনি।

প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

অতিরিক্ত সময়ে মারিও মানজুকিচের অসাধারণ এক গোলে ইংল্যান্ডকে ২-১ ব্যবধানে হারিয়ে প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া। খেলার ১০৯ মিনিটে অসাধারণ গোলটি করেন মারিও মানজুকিচ। তাই তো চলতি বিশ্বকাপে টানা চতুর্থ ম্যাচে প্রথমে এক গোল হজম করেও, পরে গোল দিয়ে ম্যাচে ফেরার নজির স্থাপন করল তারা। চলতি বিশ্বকাপে টানা চতুর্থ ম্যাচে প্রথমে গোল হজম করেও, ম্যাচ জয়ের রেকর্ড গড়লো ক্রোয়েশিয়া। আর তাতেই ফাইনালের টিকিট পেয়ে যায় ক্রোয়াটরা। এতে বিশ্বকাপ জয়ে ইংলিশদের প্রতীক্ষাটা আরো বাড়লো।

ইংল্যান্ডের বক্সের মধ্য থেকেই বলটা প্রথমে ফিরে আসে। লাফ দিয়ে আলতো করে হেডে আবারও ইংল্যান্ডের জালের সামনে বলটা ঠেলে দেন ইভান পেরিসিচ। জন স্টোন্সকে পেছনে ফেলে বলটির নিয়ন্ত্রণ নেন মারিও মানজুকিচ। গোলরক্ষক পিকফোর্ডও বলের কাছে আর পৌঁছাতে পারলেন না। তার আগেই মানজুকিচ বাম পায়ের অসাধারণ এক গোল।

অবশ্য তার আগে মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে, ৫২ বছর পর আবার‌ও বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে এসে ম্যাচের কেইরান ট্রিপারের গোলে ম্যাচের পঞ্চম মিনিটেই এগিয়ে যায় ইংল্যান্ড। খেলার ৫ মিনিটে ক্রোয়েশিয়ান অধিনায়ক লুকা মড্রিচ ডি বক্সের বাইরে ডালে আলিকে ফাউল করলে ফ্রি কিক পায় ইংল্যান্ড। সরাসরি শটে গোল করে নিজ দলকে এগিয়ে দেন ট্রিপার। ২০০৬ সালের পর এবারই প্রথম বিশ্বকাপে সরাসরি ফ্রি কিক থেকে গোল পায় ইংল্যান্ড। এছাড়া চলতি বিশ্বকাপে সেট পিসে করা তাদের নবম গোল এটি।

অন্যদিকে ১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপে সেমিফাইনাল খেলার সুখস্মৃতিকে আরো বাড়িয়ে নেয়ার লক্ষ্যে খেলতে নামা ক্রোয়েশিয়া, পিছিয়ে পড়ে হয়ে পড়ে ছন্নছাড়া। কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত দুর্দান্ত খেলা ক্রোয়েশিয়াকে তখন‌ও খুঁজে পাওয়া যায় নি। খেলার ধারার বিপরীতে ৬৮ মিনিটে পেরেসিচের লম্বা পায়ের ছোঁয়া থেকে বাচতে পারেনি ‘৬৬র বিশ্বকাপ জয়ীরা। ডি বক্সের বেশ বাইরে থেকে সিমে ভ্রাসালকোর ক্রসে ইংলিশ ডিফেন্ডার ওয়াকারের মাথার উপর পা তুলে দিয়ে বল জালে জড়ান পেরেসিচ। ম্যাচে ফেরে ১-১ গোলের সমতা। গোল দিয়ে যেন নিজেদের ফিরে পায় ক্রোয়েশিয়া। তবে নির্ধারিত সময়ে আর কোনো গোল হয়নি।

অতিরিক্ত সময়ের খেলা শুরুর পর শুরু থেকেই চাপ সৃষ্টি করে ইংলান্ড। ৯৯ মিনিটে প্রায় গোল দিয়েই বসেছিল তারা। কিন্তু নিশ্চিত এক গোল থেকে দলকে বাচান সিমো ভ্রাসালকো। কেইরান ট্রিপারের ক্রস থেকে ভেসে আসা বলে দারুণ হেড নিয়েছিলেন জন স্টোনস। গোলরক্ষককে ফাঁকি দিয়েছিল বলটি। জালে প্রবেশের মুহূর্তে দাঁড়িয়েছিলেন ভ্রাসালকো। অসাধারণ ক্ষিপ্রতায় হেড করে সেই বলটি ঠেকিয়ে দেন। নিশ্চিত গোল থেকে তিনি বাঁচিয়ে দেন ক্রোয়েশিয়াকে। সে সঙ্গে বেঁচে ক্রোয়েশিয়ার বিশ্বকাপ স্বপ্ন‌ও।

বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্স

বেলজিয়ামের স্বপ্নযাত্রা থামিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে পা রাখলো ১৯৯৮’র বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। স্যামুয়েল উমতিতির দেয়া একমাত্র গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে দিদিয়ের দেশমের দল। যদিও বল পজেশনে এগিয়ে ছিলো রেড ডেভিলসরা তবে ফ্রান্স দুর্গ ভেদ করতে পারেননি হ্যাজার্ড-লুকাকুরা। এতে প্রথম ফাইনালিস্ট‌ও পেয়ে গেল রাশিয়া বিশ্বকাপ। এই নিয়ে তৃতীয়বারের মতো বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল ‘লা ব্লু’রা। ২০০৬ সালে জার্মানি বিশ্বকাপে সবশেষ ফাইনালে ইতালির কাছে টাইব্রেকারে হেরেছিল ফরাসিরা।

বড় মঞ্চে একটা সুযোগকে কাজে লাগিয়েই উল্টে দেয়া যায় সব হিসেব-নিকেষ। এতো এতো স্ট্রাইকারের ভীড়ে সেই কাজটিই করলেন বার্সেলোনার ডিফেন্ডার স্যামুয়েল উমতিতি। ম্যাচের বয়স তখন ৫১ মিনিট। চলতি বিশ্বকাপে ১৫৮ টি গোলের ৬৯ টি হলো সেটপিস থেকে। আর শুধুমাত্র হেডের মাধ্যমে করা চলতি বিশ্বকাপে ৩২ তম গোলটি করেন ম্যাচ সেরা উমতিতি।

তবে এই গোল দিয়ে বিচার করা যাবেনা সেন্ট পিটার্সবার্গে দুই দলের ফাইনালে উঠার মহাযুদ্ধের চিত্র। প্রথম ৩০ মিনিটই ফ্রান্সের রক্ষণ কাঁপিয়েছে ‘রেড ডেভিল’রা। আরো নির্দিষ্ট করে বললে বা প্রান্ত থেকে এডেন হ্যাজার্ড।

২২ মিনিটে আল্ডারওয়ার্ল্ডের নেয়া পরীক্ষাতেও উতরে যান ফ্রান্স গোলরক্ষক হুগো লরিস। প্রথমার্ধে এরপরের সময়টা আবার আক্রমনে এগিয়ে ফ্রান্স। দুবার অলিভার জিরুদ পোস্টে বল পাঠাতে ব্যর্থ হন। পাভার্ডের দুরপাল্লার শট কর্তোয়া রুখে না দিলে তখনই এগিয়ে যেতে পারতো দিদিয়ের দেশামের দল।

মাঠের বাইরে থেকে দুই কোচও কৌশলের খেলায় জিততে চেয়েছেন। ফ্রান্সকে আক্রমনে উঠিয়ে এনে রক্ষণ খালি করার রবার্তো মার্টিনেজের ফাঁদে পা বাড়াননি দিদিয়ের দেশম। তার পাল্টা আক্রমনের কৌশলেই বরং বারে বারে খেই হারায় বেলজিয়ামের ‘সোনালী প্রজন্মের তারকারা।

পুরো ম্যাচে ডি ব্রুইনদের পায়ে বল ছিলো ৬০ শতাংশ। তবে পোস্টে ফ্রান্স যেখানে শট নিয়েছে পাঁচটি। লুকাকু-হ্যাজার্ডরা তা পেরেছেন তিনবার। আর সেই শটে গোল আসেনি লরিসের বিশ্বস্ত হাত দুর্ভেদ্য হওয়ায়।

আর তাতে থেমে যায় বেলজিয়ামের স্বর্নালী ফুটবলারদের বিশ্বজয়ের স্বপ্ন। অন্যদিকে, তৃতীয় ব্যাক্তি হিসেবে ফুটবলার এবং কোচ হিসেবে বিশ্বকাপ জয়ের মঞ্চ পেয়ে যান দিদিয়ের দেশম। ১৫ জুলাই ফাইনালের সেই মঞ্চেই নির্ধারন হবে বিশ্ব ফুটবলের রাজার আসন।

রোমাঞ্চকর জয়ে সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া

পেনাল্টি শ্যূট আউটে রাশিয়াকে ৪-৩ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া। আগামী বুধবার শেষ চারের লড়াইয়ে তাদের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড। সোচিতে নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ে ২-২ গোলে ড্রয়ের পর খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। ভাগ্য নির্ধারণে স্বাগতিকদের হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মত বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া।

রোমাঞ্চকর জয়ে, রাশিয়ান বিস্ময় থামিয়ে আবারও বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া। টানা দ্বিতীয় পেনাল্টি শ্যুট আউট জয়ে ১৯৯৮ সালের পর আবারও সেমিফাইনালে স্বাদ পেলো তারা। স্বাধীন দেশ হওয়ার পর পাঁচবার বিশ্বকাপে অংশ নিয়ে দুইবারই শেষচারে উঠে নিজেদের সামর্থ্যরে জানান দিলো ক্রোয়েশিয়া।

সোচিতে খেলার শুরু থেকেই রুশদের ওপর চড়াও হয় ক্রোয়াটরা। কিন্তু সবাইকে চমকে দিয়ে প্রথম সাফল্য পায় স্বাগতিকরা। ৩১ মিনিটে ডেনিশ চেরিশেভের দুর্দান্ত গোলে ১-০ তে লিড নেয় রাশিয়া। সমতায় ফিরতে‌ও বেশি দেরি করেনি ক্রোয়েশিয়া। ৩৯ মিনিটে আন্দ্রেস ক্রামারিচের গোলে সমতায় ফেরে তারা।

৬০ মিনিটে পেরিসিচের শট গোলবারে লেগে ফিরে আসলে ১-১ গোলের সমতায় শেষ হয় নির্ধারিত সময়ের খেলা। ১০০ মিনিটে দোমাগোজ ভিদার গোলে লিড নিয়ে সেমিফাইনালের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে ক্রোয়েশিয়া।
কিন্তু কে জানত আরেকটি রাশিয়ান চমক যে অপেক্ষা করছে। ১১৫ মিনিটে মারিও ফারনান্দেজের গোলে নাটকীয়ভাবে সমতায় ফেরে স্বাগতিকরা।

টাইব্রেকারেও নাটকের পর নাটক। রাশিয়ার পক্ষে স্মলভের প্রথম শটটাই ঠেকিয়েদেন ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক সুবাসিচ। ক্রোয়েশিয়ার পক্ষে কোভাসিচ পেনাল্টি মিস করলেও ভুল করেননি ব্রোজোভিচ, লুকা মডরিচ, ভিদা ও রাকিটিচ।

আর অতিরিক্ত সময়ে রাশিয়াকে সমতায় ফেরানোর নায়ক ফার্নান্দিনহো টাই মিস করে হয়ে গেলেন খলনায়ক। আর ঐ মিসেই কপাল পোড়ে রাশিয়ার। কোয়ার্টার ফাইনালেই থেমে যায় তাদের চমক।

বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড

সুইডেনকে ২-০ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপ ফুটবলের সেমিফাইনালে উঠেছে ইংল্যান্ড। এই জয়ে ২৮ বছর পর আবারো শেষ চারে উঠলো ১৯৬৬ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। হ্যারি মাগুয়েরা এবং ডালে আলি ইংলিশদের হয়ে গোল দু’টি করেন। এ নিয়ে তৃতীয়বার সেমিতে উঠলো ইংল্যান্ড।

ম্যাড়মেড়ে আর রক্ষণাত্মক কৌশলের ইংল্যান্ড-সুইডেনের খেলার ৩০ মিনিটে হ্যারি ম্যাগুয়েরা দারুণ হেডে লিড এনে দেন, তাতেই যে ইংলিশদের সেমিফাইনাল নিশ্চিত হবে তখনই বুঝা গিয়েছিল। এতে চলতি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের ১১ গোলের আটটিই এলো সেটপিস থেকে।

অবশ্য সামারায় রক্ষণাত্মক কৌশলের এই ম্যাচের আগে বিশ্বকাপে ইংলিশদের কাছে কখনো হারেনি সুইডিশরা। আগের দুটি ম্যাচই ড্র হয়েছিল। এবার সুইডিশদের রক্ষণপ্রাচীর ভাঙতে পারবে কিনা সাউদগেটের দল সে বিষয়েও ছিল সংশয়। তাছাড়া ২০১২’র ইউরোতে সুইডেনের কাছে পরাজয়ের ভীতি তো ছিলই।

গোল সংখ্যা বাড়াতে হ্যারি কেনের দল হানা দেয় সুইডিশ সীমানায়। রাহিম স্ট্রার্লিয়ের ব্যর্থতায় দ্বিতীয় গোল পাওয়া হয়নি ‘থ্রি লায়ন’দের।

বিরতি থেকে ফিরে গোল শোধের চেষ্টা করে সুইডেন। মার্কাস বার্গের হেড দারুণ ক্ষিপ্রতায় ঠেকিয়ে দলকে বাঁচান, পিকফোর্ড। পরিসংখ্যান জানায়, প্রথমার্ধে পিছিয়ে থেকে সুইডিশরা বিশ্বকাপের কোনো ম্যাচ জেতেনি। মার্কাস বার্গের ব্যর্থতা যেনো সেই কথাই জানিয়ে দেয়।

উল্টো ৫৮ মিনিটে লিংগার্ডের চিপে মাথা ছুঁইয়ে ডালে আলী ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। নির্ভার-নিশ্চিন্ত ইংলিশ শিবিরে তখন সেমিফাইনালে ওঠার আনন্দ।

তবে এখানেই খেলার শেষটা দেখে ফেলে নি সুইডেন। ভিক্টর ক্লাইসন ও মার্কাস বার্গ-রা ব্যর্থ না হলে, ম্যাচের ফলাফলটা অন্যরকমও হতে পারতো। হয় নি ইংল্যান্ডের গোলকিপার পিকফোর্ডের তিনটি দারুণ সেভের কারণে।

এই জয়ে ইংল্যান্ড ১৯৯০ সালের পর আবারও বিশ্বকাপ ফুটবলের সেমিফাইনালে। আর ১৯৯৪ সালের পর আবারও সেমির আগেই বিদায় নিতে হলো সুইডেনকে।

ব্রাজিলকে বিদায় করে সেমিতে বেলজিয়াম

ব্রাজিলকে কোয়ার্টার ফাইনালেই ছিটকে দিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে বেলজিয়াম। কাজান এরেনায় সেলেসাওদের কাঁদিয়ে ২-১ গোলের জয়ে শেষ চারে রেড ডেভিলরা। তাতে ১৯৮৬ সালের পর আবারও বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠলো বেলজিয়াম। সেখানে তাদের অপেক্ষায় দারুণ ছন্দে থাকা ফ্রান্স। অন্যদিকে, রক্ষণভাগের ব্যর্থতায় এবার কোয়ার্টার ফাইনালেই আটকে গেলো ব্রাজিলের হেক্সা জয়ের স্বপ্ন।

বাস্তবতাও যে কখনও কখনও কল্পনার চেয়ে বেশী সুন্দর। ব্রাজিলকে হারিয়ে এবার সেই অনুভূতিটাই পেল সোনালি প্রজন্মের দল বেলজিয়াম। অন্যদিকে টানা চারবার ইউরোপিয়ান কোনো দলের কাছে হেরেই হেক্সা জয়ের মিশন থমকে গেলো ব্রাজিলের।

অথচ খেলার শুরুতেই বেলজিয়ামের ওপর আধিপত্য বিস্তার করে সেলেসাওরা। কিন্তু ভাগ্য বিধাতা যে ব্রাজিলের সঙ্গে নেই তা বোঝা গেলো খেলার আট মিনিটেই। থিয়াগো সিলভার প্রচেষ্টা রুখে দেয় গোলবার। আর অপয়া সময়েই গোল খেয়ে বসে ব্রাজিল। ১৩ মিনিটে ফার্নান্দিহোর আত্মঘাতি গোলে পিছিয়ে পড়ে সেলেসাওরা। চলতি বিশ্বকাপে এটি ১১তম আত্মঘাতি গোল।

গোল পরিশোধে মরিয়া হয়ে ওঠে নেইমার-কুতিনহোরা। কিন্তু পাল্টা আক্রমনে ব্যবাধন দ্বিগুণ করে বেলজিয়াম। ৩১ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইনের দুর্দন্ত শটে সেমিফাইনালের স্বপ্নটা যেন হাতের মুঠোয় পেয়ে যায় বেলজিয়ামের। আর ২-০ গোলে পিছিয়ে চাপে পড়ে তিতের দল।

৭৬ মিনিটে কুতিনহোর দুর্দান্ত পাস থেকে গোল করে ব্রাজিলকে ম্যাচে ফেরার আশা জাগান আগুস্তো। পরের সময়টুকু একের পর এক আক্রমন চালিয়েও বেলজিয়ামের রক্ষণপ্রাচীর ভাঙ্গতে পারেনি নেইমার-কুতিনহোরা।

তাতে পুরো ম্যাচে ভালো খেলেও বিদায় নিতে হয় ব্রাজিলকে। আর একের পর এক বিশ্বকাপ থেকে বিদায় ঘন্টা বাজে ফেভারিটদের। এই জয়ে টানা ২৪ ম্যাচে অপরাজিত থাকা ‘সোনলি প্রজন্মের দল বেলজিয়াম’ ২০০২ সালে ব্রাজিলের কাছে পরজয়ের প্রতিশোধ নিলো।

সেমিফাইনালে ফ্রান্স

খেলার দুই অর্ধে দুই গোল করে উরুগুয়েকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়ে ২০০৬ সালের পর আবার‌ও বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ফ্রান্স। তাদের হয়ে গোল দুটি করেন করেছেন মাদ্রিদের দুই খেলোয়াড়। ৪০ মিনিটে রিয়ালের রাফায়েল ভারানে এবং ৬১ মিনিটে অ্যাটলেটিকোর আঁতোয়ান গ্রিজমান।

৪০ মিনিটে করা রাফায়েল ভারানের এই গোলটিই যে শেষ পর্যন্ত ফ্রান্সের সেমিফাইনালে ওঠার চাবিকাঠি হবে তখনও সেটা ভাবা যায়নি। গ্রিজম্যানের সেটপিসে দারুণ হেড ভারানের। বল খুঁজে পায় জালের ঠিকানা।

নিঝনি নভগ্রোদে, খেলার শুরুতে পরিচ্ছন্ন আক্রমণের চেয়ে ফাউল করাতেই বেশি মনোযোগী ছিল উরুগুয়ে। আর ফ্রান্স নিজেদেরকে গুছিয়ে নিতেই পারেনি।

ভারানের গোলের পর হুশ ফেরে উরুগুয়ের। চলে গোল শোধের চেষ্টা। ৪৪ মিনিটে দিয়েগো গোদিনের দারুণ ফ্রিকিক অসামান্য দৃঢ়তায় ঠেকান ফ্রান্সের গোলকিপার হুগো লরিস। ফিরতি বল বাইরে পাঠিয়ে যেনো ফ্রান্সকে বিপদমুক্ত করেন উরুগুয়ের ডিফেন্ডার মার্টিন সিজার্স।

এক গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় দিদিয়ের দেশামের দল।

প্রথমার্ধে এগিয়ে থাকা ফ্রান্স বিশ্বকাপে কখনো হারেনি। সেই রেকর্ডটা আরো বড় হবে কি হবে না তখনও ছিল সংশয়। তবে ইনজুরির কারণে কাভানি খেলতে না পারায় রীতিমতো নখদন্তহীন হয়ে যায় ‘লা সেলেস্তে’দের আক্রমণভাগ। ফ্রান্সের সীমানায় বেশ কয়েকবার আক্রমণ চালিয়েও সুয়ারেজরা কোন সুবিধা করতে পারেন নি।

উল্টো ৬২ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে দারুণ এক শটে গ্রিজম্যান ‘লা ব্লু’দের ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন। তবে এতে বিশ্বকাপে তৃতীয় গোল করা গ্রিজম্যানের যতটা না কৃতিত্ব, তারচেয়ে বেশি ব্যর্থতা উরুগুয়ের গোলকিপার ফার্নান্ডে মুসলেরার। তার হাত ফসকেই বল জালে জড়ায়।

বাকী সময়ে আর কোন গোল না হলে, ২-০ ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ফ্রান্স। এতে তারা ২০০৬ সালের পর আবারও বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠলো। জার্মানি, ব্রাজিল ও ইটালির পর চতুর্থ দল হিসেবে বিশ্বকাপে ষষ্ঠবার শেষ চারের টিকিট পেলো ফ্রান্স। আর প্রথমে গোল হজম করে আগের ১৬ ম্যাচে জয় না পাওয়া উরুগুয়ে। এবারও না পারার আক্ষেপ নিয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল।

২৪ বছর পর কোয়ার্টার ফাইনালে সুইডেন

সুইজারল্যান্ডকে ১-০ ব্যবধানে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলো সুইডেন। রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে দলের পক্ষে জয়সূচক গোলটি করেন এমিল ফোর্সবাগ। এতে ১৯৯৪ সালের পর আবারও তারা জায়গা করে নিলো বিশ্বকাপের শেষ আটে।

২৪ বছরের অপেক্ষার পালা ঘুচলো সুইডিশদের। শেষ ষোলর ম্যাচে সুইজারল্যান্ডকে একমাত্র গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট পাওয়ার আনন্দে তাই এমন উদযাপন সুইডিশদের। আর তাতেই গ্র“প পর্বে ব্রাজিলকে রুখে দেয়া শাকা-শাকিরিদের স্বপ্ন যাত্রা থামলো শেষ ষোলতেই।

বল পজিশনে সুইজারল্যান্ড এগিয়ে থাকলেও প্রথমার্ধে গোলের সুযোগ ছিলো দু’দলেরই। সুইজারল্যান্ডের সাকা-শাকিরিরা সুইডেনের ডি বক্সে গিয়েই খেঁই হারান। আর মার্কাস বার্গ কিংবা ফোর্সবার্গরা ক্রসবারের উপর দিয়ে বল পাঠিয়ে গোলের সুযোগ নষ্ট করেন। তাতে গোলশূন্য অবস্থায় বিরতিতে যায় দু’দল।

দ্বিতীয়ার্ধে তারা ফেরে নতুন উদ্যমে। শুরুতেই আক্রমণে আসে সুইজারল্যান্ড। কিন্তু শাকিরিকে সফল হতে দেননি সুইডিশ ডিফেন্ডাররা।

তবে খেলার ৬৬ মিনিটে টিভোনেনের কাছ থেকে বল পেয়ে দারুণ এক গোলে সুইডেনকে এগিয়ে দেন ফোর্সবার্গ। গোলকিপার সমারের দিকে বল যাচ্ছিল। কিন্তু রক্ষণভাগের খেলোয়াড় আকিনজির পায়ে লেগে দিক পরিবর্তন করে বল জালে জড়ায়। জয়ের আনন্দ নামে সুইডিশ শিবিরে।

বাকী সময়টা কেটেছে সুইডিশদের রক্ষণ আর সুইজারল্যান্ডের আক্রমণে। তবে শাকা-শাকিরিদের সেই আক্রমণগুলো বিফল হয় প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগে এসে।

রোমাঞ্চকর জয়ে কোয়ার্টারে বেলজিয়াম

ফারদিন আল সাজু

অবিস্মরণীয় এক ম্যাচে রোমাঞ্চকর জয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে 'সোনালী প্রজন্মের দল' বেলজিয়াম। তাতে দুই গোলে এগিয়ে থেকে‌ও বিদায় জাপানের। নকআউট পর্বে দুই গোলে পিছিয়ে থেকে‌ও ১৯৭০ সালের পর কোনো দল হিসেবে জিতলো বেলজিয়াম। তাদের ৩-২ গোলের জয়ে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের শেষ আটে খেলার স্বপ্নটা অধরাই রইলো এশিয়ার প্রতিনিধি জাপানের।

ইনজুরি টাইমে নাসির শাদলির গোলে বেলজিয়ামের অবিশ্বরণীয় জয়। ২-০ তে পিছিয়ে পড়ার ২২ মিনিটের মধ্যে সমতায় ফেরা আর ইনজুরি টাইমের গোলে নাটকীয় জয়ে টানা দ্বিতীয়বার কোয়ার্টার ফাইনালে ১৯৮৬ সালের সেমিফাইনালিস্টরা। অন্যদিকে, কোয়ার্টার ফাইনালের আশা জাগিয়েও, শেষ পর্যন্ত হতাশ করেছে বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ে ৬০ নম্বরে থাকা জাপান। তবে র‌্যাংকিংয়ের তিন নম্বর দলকে ঘাম ঝড়িয়ে ছেড়েছে তারা। এমনকি ব্লু-সামুরাইদের দাপটে ছিটকে পড়া ফেভারিটদের তালিকায় বেলজিয়ামকে দেখছিলো অনেকেই।

যার শুরুটা খেলার ৪৮ মিনিটে। হারাগুচির গোলে লিড নেয় জাপান। এর পাঁচ মিনিট পরেই বিশ্বকে আরো একবার অবাক করে দিয়ে দুর্দান্ত শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন তাকাশি ইনুই। বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালের স্বপ্ন দেখতে শুরু করে জাপান।

পিছিয়ে পড়েও আশা ছাড়েননি লুকাকু-হ্যাজার্ডরা। ৬৯ মিনিটে ভাগ্য সহায়তায় ভার্তোনের গোলে ব্যবধান কমায় বেলজিয়াম। আর ৭৪ মিনিটে গোল করে রেড ডেভিলদের সমতায় ফেরার স্বস্তি এনে দেন মারুয়ানে ফেলাইনি।

নির্ধারিত সময় শেষে, ইনজুরি টাইমও শেষের পথে, অতিরিক্ত সময়ে খেলার গড়ানো হিসেব কষছিলো ফুটবল ভক্তরা। তবে নাটকীয়তার অনেকটাই বাকী ছিলো তখনও। শেষ মুহূর্তে প্লাটা আক্রমনে বেলজিয়ামকে জয়সূচক গোল এনে দেন শাদলি। পিছিয়ে পড়েও শিহরণ জাগানো এই জয় ব্রাজিলের বিপক্ষে ম্যাচের নিশ্চই আত্মবিশ্বাস যোগাবে সোনলী প্রজন্মের বেলজিয়ামকে।

কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিল

নেইমারের নান্দনিক ফুটবলে মেক্সিকোকে ২-০ গোলে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলো বিশ্বকাপে ষষ্ঠ শিরোপা জয়ের মিশনে আসা ব্রাজিল। ৫১ মিনিটে সেলেসাওদের লিড এনে দেয়ার পর ৮৮ মিনিটে ফিরমিনোকে দিয়ে গোল করিয়েছেন বিশ্বের সবচেয়ে দামী ফুটবলার নেইমার। আর এই পরাজয়ে টানা সাত বিশ্বকাপের নকআউট পর্ব থেকেই বিদায় নিলো মেক্সিকো।

বিশ^বাসী আরো একবার দেখলো ল্যাটিন ফুটবলের মায়াবী সম্মেহন। মুগ্ধ হলো নেইমার-কুতিনহো-ফিরমিনোর পায়ের জাদুতে। মাঠ উন্মাতাল সাম্বার তাল-লয়-ছন্দে। তাতে কুপোকাত মেক্সিকো। আর অঘটনের সব আশঙ্কায় জল ঢেলে এখন শেষ আটে ব্রাজিল।

তবে খেলার প্রথম ২৫ মিনিট সামারায় খুঁজেই পাওয়া যায়নি ব্রাজিলকে। মেক্সিকান ওয়েভে বারবার দুলে ওঠে সেলেসাওদের রক্ষণপ্রাচীর।

এরপরই চেনা ছন্দে ফেরে ব্রাজিল। পায়ের জাদু দেখান বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় নেইমার। হেরেরা, মার্কুয়েজ ও ভেলাকে সম্মোহনে মুগ্ধ করতে পারলেও ওচোয়া থাকেন অজেয়। কুতিনহোকেও সফল হতে দেননি ওচোয়া। (৩৩) তার দৃঢ়তায় গোলশূন্য অবস্থাতেই বিরতিতে যায় দু’দল।

বিরতি থেকে ফিরেই মেক্সিকান শিবিরে সেলেসাওদের আক্রমণ। উইলিয়ানের পাসে দারুণ এক গোল করে দল এবং বিশ্বের সব ব্রাজিল সমর্থককে নির্ভার করেন নেইমার। উল্লাস ছড়িয়ে পড়ে সামারা থেকে পৃথিবীর আনাচে-কানাচে।

৬৩ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ ছিলো ব্রাজিলের, উইলিয়ানের চেষ্টায় বাধ সাধেন মেক্সিকোর গোলকিপার ওচোয়া।

তবে পিছিয়ে থাকা মেক্সিকো কাউন্টার অ্যাটাকে ভরসা করে গোল শোধের চেষ্টা করে। কিন্তু তাদেরকে সফল হতে দেননি সেলেসাও ডিফেন্ডাররা।

সমতায় তো ফিরতে পারেইনি, উল্টো নেইমারের পাসে বদলি খেলোয়াড় ফিরমিনো আরো এক গোল করলে ব্রাজিল ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায়।

কম গোলের এই জয়েও কোনো আক্ষেপ থাকার কথা নয় তিতের দলের। প্রথম ম্যাচে ড্র করার পর টানা তিন জয় নিশ্চয়ই আত্মবিশ^াস বাড়িয়েছে ব্রাজিলের। বিশ^কাপ শিরোপা যে এখন সেলেসাওদের হাতছোঁয়া দূরত্বে।

কোয়ার্টার ফাইনালে রাশিয়া

অধিনায়ক আকিনফেভের দৃঢ়তায় বিশ্বকাপের নকআউট পর্বের ঘটনাবহুল ম্যাচে ২০১০ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন স্পেনকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলো স্বাগতিক রাশিয়া। নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ের খেলা ১-১ গোলে ড্র থাকার পর, টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে স্পেনকে হারায় স্বাগতিকরা।

রাশিয়া বিশ্বকাপে প্রথমবার অতিরিক্ত সময়ে খেলা, প্রথমবার পেনাল্টি শ্যূটআউট। অধিনায়ক ইগর আকিনফেভের কৃতিত্বে ইতিহাস গড়ে ১৯৮২ সালের পর আবারও কোয়ার্টার ফাইনালে স্বাগতিকরা। তাতে গোল মিস আর টাই মিসের মহড়ায় টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নেয় আরেক ফেভারিট স্পেন।

অথচ লুঝনিকি স্টেডিয়ামে, খেলার শুরুতে স্পেনের আক্রমণ ঠেকাতেই হিমশিম খেতে হয় রাশিয়াকে। তেমনি এক আক্রমণ ঠেকাতে গিয়ে ১২ মিনিটে নিজেদের জালেই বল জড়িয়ে দেন, রাশান ডিফেন্ডার সের্গেই ইগনাসেভিচ। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে আত্মঘাতী গোল করার রেকর্ডও হয়ে যায় ৩৯ বছর বয়সী ইগনাসেভিচের।

এরপর নিজেদের মধ্যেই বল আদান-প্রদানে সময় কাটায় ‘লা রোজা’রা। সেই সুযোগে ৪১ মিনিটে স্পট কিকে ম্যাচে ১-১-এ সমতা ফেরান আরতেম ডিজুবা। ১৯৮৬ সালের পর বিশ্বকাপের নক আউট পর্বে প্রথম রুশ খেলোয়াড় হিসেবে গোল করলেন তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধে গোল সংখ্যা বাড়ানোর চেষ্টা করেও সফল হয়নি স্প্যানিশরা। ইনিয়েস্তা কিংবা আসপাস মাঠে নেমে ম্যাজিক দেখালেও সাফল্য আসেনি।
রীতিমতো মিলিটারিদের মতো নিজেদের রণসীমানা পাহাড়া দেন রাশান ফুটবলার। অতিরিক্ত সময়েও কাবু করা যায়নি রাশান রণপ্রাচীরকে। স্পেনের প্রচেষ্টাগুলো একাই সামাল দেন, ম্যাচ সেরা আকিনফেভ।

আর পেনাল্টি শ্যূটআউট হয়ে রইলো ফার্নান্ডো হিয়েরোর দলের কপাল পোড়ার গল্প।

উরুগুয়ে কোয়ার্টারে, মেসির পর রোনালদোর বিদায়

পর্তুগালকে ২-১ গোলে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে উরুগুয়ে। তাতে নকআউট পর্বের প্রথম দিনেই বিদায় নিলেন দুই মহাতরকা লি‌ওনেল মেসি ‌ও রোনালদো। জোড়া গোল করেন উরুগুয়ে স্ট্রাইকার এডিনসন কাভানি।

https://www.youtube.com/watch?v=zxn930F9vh4

আগের ম্যাচে বিদায় নিয়েছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো সমর্থকদের মনে তাই ভীতিটা ছিল। একই রাতে পর্তুগালকেও বিদায় নেতে না তো। শেষ পর্যন্ত এই ভীতিটাই সত্য হলো। এডিনসন কাভানির জোড়া গোলে মেসির পথেই হাঁটতে হলো রোনালদোকে। পর্তুগালকে ২-১ গোলে হারিয়ে উরুগুয়েও উঠে গেলো কোয়ার্টার ফাইনালে। আগামী শুক্রবার সেমিফাইনালে ‌ওঠার লড়াইয়ে ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে উরুগুয়ে।

প্রথমার্ধে উরুগুয়ের বক্সে রোনালদোকে বল ছুঁতে উরুগুয়ের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা। এই অর্ধেই সুয়ারেজ-কাভানি জুটিকে থামাতে ব্যর্থ পেপে-ফন্তেরা।

খেলার ৭ মিনিটেই সুয়ারেজের কাজ থেকে বল পেয়ে পর্তুগিজ রক্ষণকে বোকা বানিয়ে কাভানি দারুণ হেডে বল জালে জড়িয়ে দেন। এই গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় ‘লা সেলেস্তে’রা।

বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচে ফেরার জন্য প্রতিপক্ষের সীমানায় দারুণ আক্রমণ করে রোনালদোর পর্তুগাল। তাতে ৫৫ মিনিটে পেপে’র কল্যাণে ম্যাচে ১-১ এ সমতা ফেরে।

কিন্তু জয়ের নেশায় থাকা উরুগুয়েকে আর থামানো যায়নি। ৬২ মিনিটে আবারও পর্তুগালের এক ডিফেন্ডারের ভুলে বেনতাঙ্কুরের ডিফেন্স চেরা পাসকে কাভানি যেভাবে গোলে পরিণত করে দলকে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন।

ইনজুরি টাইমে‌ও বেশ কয়েকবার গোল শোধের সুযোগ পেয়েছিল পর্তুগাল। কিন্তু ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায় কোনো কাজে আসেনি।

শেষ পর্যন্ত ২-১ গোলের জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যায় কাভানি-সুয়ারেজের দল। আগামী শুক্রবার সেমিফাইনালে ‌ওঠার লড়াইয়ে তারা মুখোমুখি হবে ফ্রান্সের।

আর্জেন্টিনার বিদায় কোয়ার্টারে ফ্রান্স

সাত গোলের ক্ল্যাসিক ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে ৪-৩ ব্যবধানে হারিয়ে বিশ্বকাপ ফুটবলের কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেলো ১৯৯৮ সালের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। ‘লা ব্লু’দের জয়ে নেতৃত্ব দিয়ে ম্যাচ সেরা এমবাপে করেন দুই গোল। আর এতে ২০০২ সালের পর আবারও কোয়ার্টার ফাইনালের আগেই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিলো দুইবারের চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।

অগোছালো মাঝমাঠ আর ভঙ্গুর রক্ষণের কারণে দ্বিতীয় রাউন্ড থেকে বিদায় নিতে হলো আর্জেন্টিনাকে। আর সেই সুযোগে রাশিয়ার কাজানে ফরাশি বিপ্লবে নেতৃত্ব দিলেন, এমবাপে। তাতে বিশ্বকাপ শিরোপা অধরা মাধুরীই হয়ে রইলো পাঁচবারের বিশ্বসেরা খেলোয়াড় লিওনেল মেসির কাছে।

অবশ্য আর্জেন্টিনার পরাজয়ের চিত্রটা আরো করুণ, আরো অপমানের। তাদের এলোমেলো রক্ষণের সুযোগে ঝড়ের গতিতে একের পর এক করে ফ্রান্স। তাতে ১৩ মিনিটে স্পটকিকে ‘লা ব্লু’দের এগিয়ে দেন আতোয়ান গ্রিজম্যান।

গ্রিজম্যানের গোল করা ম্যাচে ফ্রান্স কখনও হারেনি, এই রেকর্ড যে মিথে পরিণত হবে সেটা তখনও বুঝা যায়নি। তবে ফ্রান্সের লং পাস এবং এমবাপের গতির কাছে পিছিয়ে পড়তে থাকে আর্জেন্টিনা। তবে ২৮ মিনিটে আর্জেন্টিনার আক্রমণ ফেরাতে উমিতি হাত দিয়ে বল ঠেকালেও এড়িয়ে যান, ইরানের রেফারি।
অবশেষে ৪১ মিনিটে ডি বক্সের উপর থেকে ডি মারিয়া বাম পায়ের দূরন্ত এক শটে ম্যাচে ১-১ গোলে সমতা ফেরান।

বিরতি থেকে ফিরেই ব্যবধান বাড়ায় আর্জেন্টিনা। বানেগার ফ্রিকিকে মেসির প্রচেষ্টা মার্কাদোর পায়ে লেগে জালে জড়ায়। ২-১-এ লিড পায় আলবিসেলেস্তেরা।

তবে এই লিডও বেশিক্ষণ ধরে রাখা সম্ভব হয়নি আর্জেন্টিনার। রক্ষণের ভুলে ম্যাচে সমতা ফেরান বেঞ্জামিন পাভার্ড।

পরে আর্জেন্টিনার রক্ষণভাগ নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করেন এমবাপে। ৬৪ থেকে ৬৮ চার মিনিটে দুই গোল করে, কিশোর খেলোয়াড় হিসেবে বিশ^কাপের এক ম্যাচে ১৯৫৮ সালে গড়া ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তি পেলের রেকর্ডে ভাগ বসান কিলিয়ান এমবাপে।

ম্যাচে সমতা ফেরাতে মরিয়া মেসির দল কয়েকবার ফ্রান্সের সীমানায় আক্রমণও চালায়। শেষে ইনজুরি টাইমে মেসির ক্রসে মাথা ছুঁইয়ে দারুণ এক গোলও করেন বদলি খেলোয়াড় অ্যাগুয়েরো। কিন্তু ফলাফলে কোনো পরিবর্তন আসেনি। তাতে ১৯৭৮ সালে বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার কাছে পরাজয়ের প্রতিশোধও নিলো ফ্রান্স।

আর বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে আসা পাঁচবারের বিশ্বসেরা খেলোয়াড় মেসি ট্র্যাজিক হিরো হিসেবেই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেন।

নকআউটে কলম্বিয়ার সঙ্গে জাপান

সেনেগালকে একমাত্র গোলে হারিয়ে ‘এইচ’ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে রাশিয়া বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে উঠে গেলো কলম্বিয়া। অন্য ম্যাচে, পোল্যান্ডের কাছে হেরে ১-০ গোলে হেরেও ফেয়ার প্লে পয়েন্টের সুবিধা নিয়ে শেষ ষোলতে জাপান। তাতে ২০০২ সালেরর পর আবারও বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠলো এশিয়ার এই দল।

ড্র করলেই বিশ্বকাপের নকআউট পর্ব নিশ্চিত এমন সমীকরনের ম্যাচে শুরুতেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ ছিল জাপানের কিন্তু ইউশিনি মুতার চেষ্টা বিফল করে দেন পোল্যান্ডের গোলকিপার।

অবশ্য পোলিশদের বিপক্ষে আগের দুই মোকাবেলায় জিতেছিল জাপানই। তবে ভলগোগ্রাদে, বল পজিশনে পোলিশরা এগিয়ে থাকলেও প্রথমার্ধে গোলে শট নেওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে থাকে ‘সামুরাই ব্লু’রা। কোনো দল গোলের মুখ খুলতে না পারায় গোলশূণ্য অবস্থায় বিরতিতে যায় দু’দল।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমনের ধার বাড়ায় জাপান। তবে তাদের প্রচেষ্টাগুলো সফল হয়নি। উল্টো খেলার ৫৯ মিনিটে রাফাল কুরজাওয়ার দারুণ ফ্রিকিক থেকে আনমার্কড জাঁ বেডনারেক এগিয়ে দেন পোল্যান্ডকে। তাতে ২০০২ সালের পর আবারও নকআউট পর্বে ওঠার আশা ক্ষীণ হতে থাকে জাপানের।

শেষ পর্যন্ত এক গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে পোল্যান্ড। তাতে বিশ্বকাপে গ্রুপে টানা তিন ম্যাচে না হারার রেকর্ডটা অক্ষন্ন রইলো রবার্ট লিওনডস্কির দলের। আর সমান গোল গড় হওয়ায় ‘ফেয়ার প্লে’ রেকর্ডে সেনেগালকে পেছনে ফেলে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌছে যায় এশিয়ান প্রতিনিধি জাপান।

সামারায় অন্য ম্যাচে, সেনেগালকে শেষ ষোলতে জায়গা করে নিতে কলম্বিয়ার সঙ্গে ড্র করলেই চলতো। খেলার গতি-প্রকৃতি তেমনই ছিল। গোল শূন্য অবস্থাতেই শেষ হয় প্রথমার্ধ। দ্বিতীয়ার্ধে দু’দলই গোলের চেষ্টা করতে থাকে।

খেলার ৭৪ মিনিটে ইয়েরে মিনা যে গোলেটি করেন তাতেই গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে মাঠ ছাড়ে কলম্বিয়া। আর তাতেই গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে শেষ ষোলয় জায়গা পাকা করে হামেস রড্রিগেজের দল। আর পয়েন্ট এবং গোল ব্যবধান সমান হলেও জাপানের চার হলুদ কার্ডের বিপরীতে ছয় হলুদ কার্ড পা‌ওয়ায় বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয়, সাদিও মানের দল সেনেগাল।

প্রথম রাউন্ডেই বিদায় জার্মানি

জার্মানিকে ২-০ গোলে হারিয়ে বিশ^কাপের প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় করে দিলো দক্ষিণ কোরিয়া। বিশ্বকাপের ইতিহাসে ৮০ বছর পর গ্র“প পর্ব থেকে বিদায় নিল জার্মানি। এর আগে, ১৯৩৮ সালে পেনাল্টি শ্যূট আউটে সুইজারল্যান্ডের কাছে হেরে এই লজ্জায় পড়েছিল তারা। ইনজুরি টাইমে দেয়া দুই গোলে বিশ^কাপে প্রথমবারের মতো জার্মানিকে পরাজিত করে কোরিয়ানরা।

অবিস্মরনীয় জয়ে একদিকে খুশির আমেজ, অন্যদিকে পরাজয়ের বেদনা। একপাশে আনন্দাশ্রু, অন্য পাশে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের টুর্নামেন্ট থেকে বিদায়ের কান্না।

জিতলেই নকআউট পর্ব নিশ্চিত এমন সমীকরণের ম্যাচে পাঁচটি পরিবর্তন নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার বিপক্ষে খেলতে নামে জার্মানি। বরাবরের মতো বল দখলে এগিয়েই ছিল। কিন্তু আক্রমণভাগের ব্যর্থতায় বারবার হতাশ হতে হয়েছে। উল্টো ১৯ মিনিটে কিম ইয়ংয়ের ফ্রিকিক দ্বিতীয় দফায় থামিয়ে দলকে রক্ষা করেন ম্যানুয়েল ন্যুয়ার। ২৪ মিনিটেও এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ কোরিয়ার। এবার ব্যর্থ সুন।

৭১ শতাংশ বল নিজেদের দখলে রাখলেও টিমো ওয়ার্নার, হ্যামেলস ও গোরেশকার ব্যর্থতায় প্রথমার্ধে এগিয়ে যাওয়া হয়নি, চারবারের বিশ^ চ্যাম্পিয়নদের। জোয়াকিম লোর সব পরিকল্পনা মুখ থুবড়ে পড়ে কখনো কোরিয়ার রক্ষন আবার গোলরক্ষক চোর দৃঢ়তায়। শূন্য অবস্থায় বিরতিতে যায় জার্মানি।

দ্বিতীয়ার্ধেও গোল মিসের মহড়ায় নাম লেখান টিমো ওয়ার্নার, মারিও গোমেজ ও কিমিচ। সময়ের সাথে সাথে ফিকে হতে থাকে নকআউট পর্বের আশা। ইনজুরি সময়ের তৃতীয় মিনিটে কিম ইয়ং গোল করলে সব আশাই শেষ হয়ে যায় বিশ্বকাপের অন্যতম সফল দলের।

এরপর জার্মানির ব্যর্থতার কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন সন। এই জয়ে বিশ^কাপ থেকে বিদায় করার পাশাপাশি ২০০৪ সালের পর আবারও জার্মানির বিপক্ষে জয় পায়, এশিয়ার প্রতিনিধি দক্ষিণ কোরিয়া। এতে গত পাঁচ বিশ^কাপের মধ্যে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নরা চারবারই প্রথম রাউন্ড থেকে বিদায়ের লজ্জায় ডুবলো।

রোনালদোকে ফিরিয়েই হিরো

পর্তুগালের বিরুদ্ধে প্রবল লড়েও ম্যাচটা জিততে পারেনি ইরান। ভাগ্য সহায় থাকলে পরের রাউন্ডে পৌঁছতেও পারতো তারা। তবে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেলেও রাশিয়া থেকে মাথা উঁচু করেই দেশে ফিরছেন আলি রেজারা। ইরানের মানুষজন বলতে শুরু করেছেন, পর্তুগাল, স্পেনের গ্রুপে না থাকলে অনেক দূর যেতেও পারত তাঁদের দল।

ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর পেনাল্টি বাঁচিয়ে এখন নায়ক ইরানের গোলকিপার আলি রেজা। লিওনেল মেসির পেনাল্টি থামিয়ে একইভাবে প্রচারের স্পটলাইট ছিলো আইসল্যান্ডের গোলকিপার হ্যানস হ্যাল্ডারসনের উপর। রোনালদোর পেনাল্টি নষ্টের রাতে বুক ভেঙেছে ইরানের।

তেহরান অবশ্য মাতোয়ারা গোলকিপার আলি রেজাকে নিয়ে। এই রাজধানী শহর থেকেই তো একদিন শুরু হয়েছিল আলি রেজার উত্থান। গরিব পরিবারে জন্ম তাঁর। পেট চালানোর জন্য একসময়ে গাড়ি ধোয়ামোছাও করতে হয়েছিল রেজাকে। রাস্তার ফুটপাথে ঘুমিয়ে পড়তেন তিনি। একদিন স্থির করলেন তেহরানে পালিয়ে যাবেন। স্বপ্ন দেখতেন একদিন বড় ফুটবলার হবেন।

দেশের হয়ে খেলবেন। সেই স্বপ্ন পূরণ করার জন্য আলি রেজা বাড়ি থেকে পালিয়ে যান তেহরানে। সেখানেই শুরু হয় তাঁর অনুশীলন। স্বপ্ন সত্যি করার জন্য নিজেকে ডুবিয়ে দিতেন অনুশীলনে। অনেকেই রেজাকে ফুটবল ক্লাবের সামনে শুয়ে থাকতে দেখেছেন। ভুল করে তাঁকে ভিক্ষাও দিয়েছেন অনেকে। গলি থেকে রাজপথে আজ উঠে এসেছেন ইরানের গোলকিপার। বিশ্বকাপ তাঁকে পরিচিতি দিয়েছে। রোনাল্ডোর পেনাল্টি বাঁচিয়ে আলি রেজা এখন সুপারস্টার।

শেষ ষোলতে আর্জেন্টিনা

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে নাইজেরিয়াকে হারিয়ে গ্রুপ-ডি’র দ্বিতীয় দল হিসেবে নক-আউট পর্বে উঠেছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। তিন ম্যাচে তাদের সংগ্রহ চার পয়েন্ট। সমান ম্যাচে নয় পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থেকে পরবর্তী পর্বে পৌঁছাল ক্রোয়েশিয়া।

আর্জেন্টিনার কোচ হোর্হে সাম্পাওলি এদিন প্রথম একাদশে ছয়টি পরিবর্তন করে দল মাঠে নামান। সবার সামনে মেসির পাশে গঞ্জালো হিগুয়েন। মাঝমাঠে জেভিয়ার মাসচেরানো, এভার বানেগা, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া ও এনজো পেরেজ। ম্যাচের শুরু থেকেই ‘প্রেসিং অ্যান্ড পজেশনাল’ ফুটবল উপহার দিয়ে প্রতিপক্ষ নাইজেরিয়াকে কোণঠাসা করে আর্জেন্টিনা। ১৪ মিনিটে দলকে কাঙ্ক্ষিত লিড এনে দেন মেসি। মাঝমাঠ থেকে এভার বানেগার বাঁ পায়ের উরুর পেলব স্পর্শে নামিয়ে, বাঁ পায়ের নিয়ন্ত্রণে নেন। দুরন্ত রিসিভেই তিনি পিছনে ফেলেন মার্কারকে। এরপর ডান পায়ের কোনাকুনি শটে দ্বিতীয় পোস্ট দিয়ে কাঁপিয়ে বল জড়িয়ে দেন জাল (১-০)। লক্ষ্যভেদের পরেই কর্নার ফ্ল্যাগের কাছে দৌড়ে গিয়ে হাঁটু মুড়ে দু’হাত আকাশের দিকে তুলে ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানান মেসি। সেই মুহূর্তে বিশেষ বক্সে থাকা দিয়েগো ম্যারডোনাকেও দেখা যায় দু’হাত কোনাকুনি করে কাঁধে রেখে চোখ বন্ধ করে বিড়বিড় করতে। আসলে উত্তরসূরির দুরন্ত গোলে স্বস্তি পেয়েছেন ১৯৮৬’র অবিসংবাদিত নায়ক।

শুরু থেকেই মেসি ছিলেন প্রাণবন্ত, চনমনে। এছাড়া বাকিদের মধ্যেও হার না মানা মনোভাব দেখা গিয়েছে। ২৮ মিনিটে মেসির বুদ্ধিদীপ্ত থ্রু খুঁজে নিয়েছিল গঞ্জালো হিগুয়েনকে। কিন্তু তাঁর দুর্বল পুশ রুখে দেন নাইজেরিয়ার গোলরক্ষক। এর মিনিট সাতেক পরে বিপজ্জনক হয়ে ওঠা অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়াকে বক্সের সামান্য বাইরে ফাউল করা হলে ফ্রি-কিক পায় আর্জেন্টিনা। মেসির বাঁ পায়ের অনবদ্য শট বিপক্ষ গোলরক্ষকের প্রসারিত হাতের নাগাল এড়িয়ে দ্বিতীয় পোস্টে প্রতিহত হয়।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সমতায় ফেরে আফ্রিকার দেশটি। কর্নার নেওয়ার সময় বক্সের মধ্যে বালোগানকে টেনে ফেলে দেন মাসচেরানো। তুরস্কের রেফারির তা চোখ এড়ায়নি। তিনি সঙ্গে সঙ্গে মাসচেরানোকে হলুদ কার্ড দেখান। এরপর ভার প্রযুক্তির সহযোগিতায় পেনাল্টির নির্দেশ বহাল রাখেন। স্পটকিক থেকে জাতীয় দলে অভিষিক্ত আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক আরমানিকে হার মানাতে অসুবিধা হয়নি মোজেসের (১-১)।

এই গোলের পর হঠাৎই ছন্দপতন সাম্পাওলির দলের। একাধিক ভুল পাস খেলে তারা প্রতিপক্ষ নাইজেরিয়াকে ম্যাচের রাশ ধরার সুযোগ করে দেয়। ৭৬ মিনিটে দুরন্ত প্রতি-আক্রমণে আর্জেন্টিনার গোলমুখ প্রায় খুলে ফেলেছিল নাইজেরিয়া। বাঁ দিক ভেসে আসা বল হেডে ক্লিয়ার করার সময় তা হাতে লাগে মার্কোস রোহোর। তবে এবার ভার প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে রেফারি হ্যান্ডবলের কারণে পেনাল্টির নির্দেশ দেননি।

দ্বিতীয় গোলের জন্য আবার‌ও দলে পরিবর্তন আনেন সাম্পাওলি। ৮১ মিনিটে বাঁ দিক থেকে রোহোর মাইনাস সুবিধাজনক অবস্থায় পেয়েও তা ক্রসবারের উপর দিয়ে উড়িয়ে দেন হিগুয়েন। তবে ৮৬ মিনিটে অতি মূল্যবান জয়সূচক গোল তুলে নেয় আর্জেন্টিনা। ডানদিক থেকে মার্কাদোর সেন্টার বক্সের মধ্যে পেয়ে রোহোর ডান পায়ের শট কাঁপিয়ে দেয় জাল (২-১)। এই গোলই নক-আউট পর্বে তুলে দেয় আর্জেন্টিনাকে। ম্যাচ শেষ হওয়ার বাঁশি বাজতেই মেসিকে জড়িয়ে ধরেন সহ-ফুটবলাররা। নিজের সঙ্গে বিশ্বের শত কোটি আর্জেন্টিনা ভক্তকে‌ও নির্ভার করার আনন্দ তখন তাদের।

শীর্ষদল হিসেবে নকআউটে ফ্রান্স

ডেনমার্কের সাথে গোলশূন্য ড্র করে তিন ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে ‘সি’ গ্রুপের শীর্ষ দল হিসেবে বিশ্বকাপের নক আউট পর্বে উঠেছে ফ্রান্স। আর সমান খেলায় ৫ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোলো নিশ্চিত করে ডেনমার্ক। আরেক খেলায় অস্ট্রেলিয়াকে ২-০ গোলে পরাজিত করে তিন পয়েন্ট নিয়েই বিশ্বকাপ মিশন শেষ করে পেরু।

জয় নয়, ড্র করলেই শীর্ষে; এমন সমীকরণের ম্যাচে, দলে ছ’টি পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে ফ্রান্স। তবু খেলার শুরুতে মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে, ফরাসীদের এ চেষ্টা সফল হলে ১৪ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো তারা। তাদের সফল হতে দেননি ডেনিস গোলকিপার স্মাইকেল।

উল্টো ৩০ মিনিটে পিছিয়ে পড়ার সম্ভাবনাও জাগে তাদের। কিন্তু গোলকিপার মান্দান্দার কল্যাণে সে যাত্রায় বেঁচে যায়, ‘লা ব্লুু’রা।

প্রথমার্ধে বারবার আক্রমণ করেও ডেনমার্কের কঠিণ রক্ষণে গোলের দেখা পায়নি ১৯৯৮ সালের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

দ্বিতীয়ার্ধে ফেভারিট ফ্রান্সের আক্রমণগুলো খেঁই হারায় ডেনমার্কের সীমানায়। কখনো আবার এলোমেলো শটে গোলের সুযোগ হারায় ফ্রান্স।

অন্যদিকে, দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের ধার বাড়ায় ডেনমার্ক। কিন্তু প্রতিপক্ষের রক্ষণ প্রাচীর ভাঙতে ব্যর্থ হয় তারা।

৮২ মিনিটে বদলি খেলোয়াড় ফেকিরের দারুণ প্রচেষ্টাও রুখে দেন ডেনমার্কের গোলকিপার। শেষ পর্যন্ত পয়েন্ট ভাগাভাগি করে মাঠ ছাড়ে দু’দল। তাতে চলতি বিশ্বকাপে এবারই প্রথম কোনো ম্যাচ গোল শূন্য অবস্থায় শেষ হয়।

এদিকে গ্রুপের অন্য ম্যাচে, প্রথমার্ধে ক্যারিল্লো এবং দ্বিতীয়ার্ধে গুয়েরোর দেয়া দুই গোলে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে নিজেদের শেষ ম্যাচে জয়ের আনন্দ নিয়েই ঘরে ফেরে, ৩৬ বছর পর বিশ্বকাপে খেলতে আসা পেরু।

স্পেন `বি’ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন

নাটকীয় ম্যাচে শেষ মুহূর্তে গোল করে মরক্কোর সাথে ২-২ সমতা নিয়ে মাঠ ছাড়লো স্পেন। আর তাতে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নকআউট পর্বে জায়গা করে নিলো তারা। আর অন্য ম্যাচে পর্তুগালের সাথে ১-১ গোলে ড্র করে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিলো ইরান। আর এতে গ্রুপ রানার্সআপ হিসেবে শেষ ষোলোতে উঠলো পর্তুগিজরা।

ইনজুরি সময়ের দুই মিনিট। কালিনিনগ্রাদে স্পেনের ভাগ্য তখন ভিভি‌ও অ্যাসিসটেন্ট রেফারির হাতে। সবুজ সংকেতে হারতে বসা ম্যাচে তারা বাঁচলো ড্র করে।

ইনজুরি সময়ের দুই মিনিট সারানস্কেও। এখানেও আলোচনায় ভিডিও অ্যাসিসটেন্ট রেফারি। এবার করিম আনসারির গোল ইরানকে ক্ষনিকের জন্যও আশা দেখালো।

নকআউট পর্বে জায়গা করে নিতে এই গ্রুপে তিন দলেরই সমান সুযোগ ছিলো। সেখানে স্পেনের বিপক্ষে ১৪ মিনিটেই লিড মরক্কোর।

রক্ষণের ভুলের মাশুল বেশীক্ষন গুনতে দেননি ইসকো। পাঁচ মিনিটের মাথায় সাবেক বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা সমতায় ফেরে তার গোলে।

পাসিং ফুটবল, বল পজিশন লা রোজারা খেলেছে তাদের নিজস্ব স্টাইলেই। আর মরক্কো চেয়েছে পাল্টা আক্রমনে কাঁপিয়ে দিতে। ৮১ মিনিটে বদলি খেলোয়াড় নেসাইরি সেই কাজটিই করলেন।

৭৫ ভাগ বল দখল। প্রতিপক্ষের জালে ১৮ শট। তারপরও ২-১ এ পিছিয়ে পড়া স্পেন তখন বাদ পড়ার শঙ্কায়। কারণ অন্য ম্যাচে ইরানের জয়ই পাল্টে দিতে পারে সব সমীকরণ।

তখনই মঞ্চে আসপাস। যদিও অফসাইডে শুরুতে বাতিল হয়ে যায় এই গোল। শেষ পর্যন্ত ভিএআরে রক্ষা স্পেনের।

তবে নিজেদের রক্ষা করতে পারেনি এশিয়ার প্রতিনিধি ইরান। ৯৪ মিনিটে মেহেদী তারেমি শেষ সুযোগটা কাজে লাগাতে পারলে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে পারতো তারা। কিন্তু তা হয়নি।

তবে মরদোভিয়া এরেনার এই ম্যাচের ৪৫ মিনিটে পর্তুগাল এগিয়ে যায় ডি বক্সের বাইরে থেকে রিকার্ডো ক্যারিজমার অবিশ্বাস্য এক শটে। এরপর আবার‌ও এগিয়ে যা‌ওয়ার সুযোগ ছিল পর্তুগিজদের। ৭২ মিনিটে পেনাল্টি পেয়েও তাকে কাজে লাগাতে পারেননি দলের প্রাণভোমরা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তাকে ফিরিয়ে দিয়ে চতুর্থ খেলোয়াড় হিসেবে অভিষেক বিশ্বকাপে পেনাল্টি ঠেকানোর রেকর্ড গড়েন ইরানের গোলকিপার ইশাম আল হাদারি।

আনসারির গোল শেষ পর্যন্ত ম্যাচে সমতায় ফেরালেও চার পয়েন্ট নিয়ে বাদ পড়ে ইরান। গ্যালারিতে তখন বিষাদের ছায়া। এত কাছে এসেও নকআউট পর্ব মিসের হতাশা। তবে এবারের আসরে দর্শকদের মন ভরিয়েই বিদায় নিলো তারা।

রাশিয়াকে হতাশ করে ‘এ গ্রুপ’ চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে

স্বাগতিক রাশিয়াকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ‘এ গ্রুপ’ চ্যাম্পিয়ন হিসেবে বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে উঠলো উরুগুয়ে। তিন ম্যাচ শেষে তাদের পয়েন্ট নয়। অন্যদিকে ছয় পয়েন্ট নিয়ে রাশিয়াও দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোলো নিশ্চিত করে। এদিকে, গ্রুপের অন্য ম্যাচে মিশরকে ২-১ গোলে হারিয়েছে সৌদি আরব।

সুয়ারেজের গোল করা বিশ্বকাপের আগের চার ম্যাচেই জিতেছে দুইবারের চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে। রাশিয়ার বিপক্ষেও গোল করলেন তিনি, আর কাঙ্খিত জয় পেলো ‘লা সেলেস্তে’রা। তাতে ‘এ’ গ্রুপের শীর্ষদল হিসেবে পৌঁছে গেলো উরুগুয়ে বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে।

উরুগুয়ে ও রাশিয়া দুই দলই নকআউট পর্বে পৌঁছে ছিল আগেই। গ্রুপের শেষ লড়াইটি ছিল শীর্ষস্থান দখলের। তাতে ১০ মিনিটেই দারুণ এক ফ্রিকিকে লুইস সুয়ারেজ উরুগুয়েকে এগিয়ে দেন। রাশিয়া বিশ^কাপে সরাসরি ফ্রিকিক থেকে এটি ষষ্ঠ গোল।

গোল শোধের সুযোগও ছিল রাশিয়ার। তবে ১৩ মিনিটে রাশান স্ট্রাইকার জিওবা’র সমতা আনার চেষ্টা ব্যর্থ করে দেন উরুগুয়ের গোলকিপার মুসলেরা।

রাশিয়ার ব্যর্থ হলেও, সাফল্যের ফুল ঠিকই ফোটায় উরুগুয়ে। ২৩ মিনিটে রাশিয়ার রক্ষণভাগের খেলোয়াড় চেরিসেভের উওন গোলে ২-০ তে লিড নেয় লা সেলেস্তেরা।

তবে স্বাগতিকদের দুর্ভাগ্যের এখানেই শেষ নয়, ৩৬ মিনিটে দুই হলুদ কার্ড পেয়ে স্মলিকভ মাঠ ছাড়লে বাকী সময়টা দশজন নিয়েই খেলতে হয় রাশিয়াকে। তাতে কমে যায় তাদের আক্রমণের ধার।

কাভানির গোল করা আগের দুই ম্যাচেই হেরেছিল ল্যাটিন আমেরিকার দলটি। ৯০ মিনিটে কাভানি এবার‌ও গোল করলেন। দল পেলো ৩-০ তে বড় জয় পায়। কাভানির অপয়া অববাদটা‌ও ঘুচলো এবার। তাতে ১৯৭০ সালের পর আবারও বিশ্বকাপের ম্যাচে রাশিয়াকে হারালো উরুগুয়ে।

এদিকে, গ্রুপের প্রথম দুই ম্যাচে পরাজয়ে আগেই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় ঘন্টা বেজে যায় মিশর এবং সৌদি আরবের। তবে মর্যাদার এই লড়াইয়ে ২২ মিনিটেই লিভারপুল তারকা সালাহ’র গোলে এগিয়ে যায় মিশর।

প্রথমার্ধের ইনজুরি টাইমে পেনাল্টি গোলে সৌদি আরবকে সমতায় ফেরান, সালমান। এখানেই থেমে থাকেনি তারা। খেলা শেষের ইনজুরি টাইমে সেলিমের দারুণ এক গোলে এবারের বিশ্বকাপে জয় নিয়েই ঘরে ফেরে সৌদি আরব।

লড়াইয়ে টিকে রইল কলম্বিয়া

পোল্যান্ডকে ৩-০ গোলে হারিয়ে এইচ গ্রুপ থেকে বিশ্বকাপের নকআউট পর্বের আশা বাঁচিয়ে রাখলো কলম্বিয়া। দুই ম্যাচে তাদের পয়েন্ট এখন তিন। আর এক ম্যাচ বাকী থাকতেই এই গ্রুপ থেকে বিদায় ঘন্টা বেজে গেল লেভানডস্কির দল পোল্যান্ডের।

হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সব ভবিষ্যতবাণী যে এভাবে ভুল মিথ্যে হবে কে ভেবেছিল? ৭৫ মিনিটে কুয়াদ্রাদোর গোলের পরেই নিশ্চিত হয়ে যায় এবারের মতো শেষ হচ্ছে পোলিশদের বিশ্বকাপ যাত্রা।

অথছ লড়াইটা ছিলো অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার। কাজানে, সেই ম্যাচে শুরু থেকেই দাপট ল্যাতিনদের। ৪০ মিনিটে ডিফেন্ডার ইয়েরি মিনার হেডে ভাঙ্গে পোলিশ রক্ষণ।

কলম্বিয়ার পাসিং, আর গতির কাছে অসহায়ই হয়ে পড়ে পোল্যান্ড। দুর্দান্ত হোসে প্যাকারম্যানের শিষ্যরা ব্যবধান ২-০ করে রাদামেল ফ্যালকাওয়ের গোলে। শেষ পর্যন্ত জয়টা ৩-০ তে। দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়ার পথে কলম্বিয়ার শেষ বাধা সেনেগাল।

সেনেগালের সঙ্গে ড্র জাপানের

গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পোল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্বার ছিল সেনেগাল। ইউরোপের দলটিকে ২-১ গোলে হারিয়ে দিয়ে বড় চমক দেখিয়েছিল তারা। দ্বিতীয় ম্যাচে ম্যাচে সেনেগালের সেই চমক আর থাকেনি। উল্টো তাদের কাছ থেকে এক পয়েন্ট ছিনিয়ে নিয়ে চমকে দিয়েছে জাপান। এই দুই দলের জমজমাট লড়াইটি শেষ হয় ২-২ গোলের সমতায়।

রোববার রাতে একাতেরিনবার্গে অবশ্য শুরুতেই এগিয়ে যায় সেনেগাল। ১১ মিনিটে ম্যাচ সেরা সাদিও মানে আফ্রিকার দেশটিকে লিড এনে দেন। কিন্তু এশিয়ার দল জাপান প্রথম ম্যাচের জয়ে আরো উজ্জীবিত তারা ছেড়ে কথা বলবে কেন। ৩৪ মিনিটেই গোল পরিশোধ করেন মিডফিন্ডার তাকাশি ইনুই।

বিরতি থেকে ফিরে আক্রমণ আর পাল্টা আক্রমণে খেলাটি আরো জমিয়ে তোলে দু’দল। খেলার ৭১ মিনিটে সাফল্য পায় সেনেগাল। পরিকল্পিত এক আক্রমণে মুসা উয়েগুর কল্যাণে আবার‌ও লিড পায় সেনেগাল।

তবে এই লিড বেশিক্ষণ ধরে রাখা যায়নি। ৭ মিনিট পর জাপানের অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার কেইসুকি হোন্ডা ম্যাচে ২-২ গোলে সমতা ফেরান। বাকী সময়ে কোনো দল গোলের দেখা পায়নি। শেষ পর্যন্ত পয়েন্ট ভাগাভাগি করে মাঠ ছাড়ে দু’দল।

এতে দুই ম্যাচে একটি জয় আর একটি ড্রতে ৪ পয়েন্ট করে সংগ্রহ করল দু’দল। গ্রুপের শেষ ম্যাচে আগামী ২৮ জুন সেনেগাল মুখোমুখি হবে কলম্বিয়ার এবং জাপান লড়বে পোল্যান্ডের বিপক্ষে।

হ্যারি কেনের হ্যাটট্রিকে নকআউটে ইংল্যান্ড

অধিনায়ক হ্যারি কেনের দারুণ হ্যাটট্রিকে নবাগত পানামাকে ৬-১ গোলে হারিয়ে ‘জি’ গ্রুপ থেকে বেলজিয়ামের পর বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে উঠলো ইংল্যান্ড। দুটি গোল করেন জন স্টোনস। বিশ্বকাপে এইটিই ১৯৬৬ সালের চ্যাম্পিয়নদের সবচেয়ে বড় জয়। বড় ব্যবধানে হারলেও পানামার ফিলিপে ব্যালয় বিশ্বকাপে চতুর্থ বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে গোল করে নিজেকে অমরত্ব দেন।

সবচেয়ে বড় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ার আনন্দ ইংলিশ শিবিরে। তবে অধিনায়ক হ্যারি কেনের উল্লাসটা একটু বেশিই। পানামার বিপক্ষে হ্যাটট্রিক করে তিনি যে এখন ইংলিশ লিজেন্ড জিওফ হাস্ট ও গ্যারি লিনেকারের কাতারে।

নিঝনি নভোগ্রোদ স্টেডিয়ামে, সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গেই গতি-স্কিল আর টার্গেটে বল পাঠানোর পাল্লায় ইংলিশদের চেয়ে পিছিয়ে পড়ে পানামা। তাতে ৮ মিনিটেই প্রতিপক্ষের রক্ষণভাগের ভুলে ইংলিশদের এগিয়ে নেন জন স্টোনস। আন্তর্জাতিক ম্যাচে এটি তার প্রথম গোল।

এরপর অ্যাকশনে নামেন ইংল্যান্ডের হ্যাটট্রিক হিরো অধিনায়ক হ্যারি কেন। প্রথম গোল ২২ মিনিটে স্পটকিকে। তাতে দলের লিড ২-০। এরপর প্রথমার্ধের শেষ নয় মিনিটে আরো তিন গোল করে ৫-০ তে এগিয়ে বিরতিতে যায় সাউদগেটের দল। যেখানে টটেনহাম তারকার অবদান আরো এক গোল।

ম্যাচের ৬২ মিনিটেই এবারের আসরে রোনালদোর পর হ্যাটট্রিকের দেখা পেয়ে যান কেন। বিশ্বকাপে তৃতীয় ইংলিশ হিসেবে এই গৌরবের ভাগীদার হলেন তিনি। তাতে দুই ম্যাচে পাঁচ গোল করে রোনালদো আর লুকাকুর সঙ্গে গোল্ডেন বুট জয়ের দাবীও জানিয়ে রাখলেন।

বিধ্বস্ত পানামার সান্তনা এক গোল শোধ দেয়া। ৭৮ মিনিটে বিশ্বকাপে চতুর্থ বেশি বয়সী খেলোয়াড় হিসেবে ফিলিপে ব্যালয় নাম লেখান স্কোরারের তালিকায়।

বিশ্বকাপে টিকে থাকলো জার্মানি

সুইডেনের বিপক্ষে নাটকীয় জয়ে বিশ্বকাপে টিকো রইলো বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। সোচিতে পিছিয়ে পড়েও সুইডিশদের ২-১ গোলে হারিয়েছে জোয়াকিম লো’র শিষ্যরা। ৮২ মিনিটে জেরোমি বোয়েটেংয়ের লালকার্ডে ১০ জনের দলে পরিণত হয় বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। তখনও খেলা ১-১ সমতায়। তবে ইনজুরি টাইমে টনি ক্রুসের দুর্দান্ত কিকে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানি।

উত্তেজনার বারুদে ঠাসা আর শিহরণ জাগানো ম্যাচে জার্মানির রোমাঞ্চকর এক জয়। সুইডেনের বিপক্ষে এই জয় বিশ্বকাপে টিকে থাকার, জার্মানির আত্মবিশ্বাস ফিরে পাওয়ারও। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে ঘুরে দাঁড়ানোর অসাধারণ এক উদাহরণ।

অথচ কঠিন এক সমীকরণ সামনে রেখে সুইসুদের বিপক্ষে মাঠে নামে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। হারলেই বিদায় আর ড্র করলে বিশ্বকাপের ভাগ্যটা ঝুঁলে থাকবে সুতোয়। নিজেদের সামর্থ্যে টিকে থাকতে জয়ের বিকল্প ছিলোনা জার্মানদের। তাই খেলার শুরু থেকেই সুইডেনের ওপর চড়াও হয় তারা।

পাল্টা আক্রমণে সুইডিশরাও দাঁত ভাঙা জবাব দেয় জার্মানদের। বর্তম্যান চ্যাম্পিয়নরা খেলায় আধিপত্য বিস্তার করলেও, প্রথমার্ধে চোখ রাঙিয়েছে সুইডেনই। ৩২ মিনিটে জার্মানদের বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে দেয়ার শঙ্কায় ফেলে দেন সুইডিশ স্ট্রাইকার ওলা তাইভোনেন।
বিরতি থেকে ফিরে পিছিয়ে থাকা জার্মানিকে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই সমতায় ফেরান মারকো রয়েস।

এরপর যতই সময় গড়িয়েছে জার্মানদের জয়ের স্বপ্ন ততই ফিঁকে হয়ে আসে। বারবার আক্রমনে সুইডেনকে কোনঠাসা করলেও লিড নিতে পারছিলনা বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। আর ৮২ মিনিটে বোয়েটেংয়ের দ্বিতীয় হলুদ কার্ডে ১০ জনের দলে পরিনত হয় তারা। তবে আক্রমনের ধার একটুও কমেনি। ফরোয়ার্ডের ব্যর্থতার সাথে সুইডিশ গোলরক্ষক ওলসেনের অপরাজেয় মানসিকতা, ক্রমেই হতাশ করে জার্মান ভক্তদের।

তবে শেষ নাটকীয়তা হয়ত টনি ক্রুসের কাছেই জমা ছিলো। ইনজুরি সময়ে পাওয়া ফ্রি কিকটার অসাধারণ ব্যবহার দেখালেন ক্রুস। তাতে বিশ্বকাপে বেঁচে থাকার রসদ পাওয়ার উল্লাসে মাতে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

নান্দনিক আর কুশলী ফুটবল দিয়ে পাহাড় সমান চাপকে কিভাবে জয় করতে হয় তারই যেন অনন্য একটা উদাহরণ তৈরী করলো জার্মানি।

নকআউটে সোনালী প্রজন্মের বেলজিয়াম

অধিনায়ক এডেন হ্যাজার্ড ও রোমেলু লুকাকু জোড়া গোলে তিউনিসিয়াকে ৫-২ ব্যবধানে হারিয়ে বিশ্বকাপ ফুটবলে ‘জি’ গ্রুপ থেকে নকআউট পর্বে উঠে গেলো ‘সুপারস্টারদের দল’ বেলজিয়াম। সেই সঙ্গে দুই ম্যাচে চার গোল করে ‘গোল্ডেন বুট’ জেতার দাবীটাও জানিয়ে রাখলেন লুকাকু।

গতিময় খেলা দিয়ে তিউনিসিয়াকে গোল বন্যায় ভাসিয়েছে ‘সোনালী প্রজন্মের দল’ বেলজিয়াম। তাতে বড় জয়ে টানা দুই ম্যাচ জিতে, জি গ্রুপের প্রথম দল হিসেবে নকআউট পর্বে উঠলো তারা। মস্কোর স্পার্টাক স্টেডিয়ামে, খেলার ছয় মিনিটে এডেন হ্যাজার্ডের পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যায়, বেলজিয়াম।

এরপর গোলের নেশায় থাকা বেলজিয়ামের খেলোয়াড়রা তিউনিসিয়ার জালে গোল উৎসবে মেতে ওঠে। দুটি গোল হজম করলেও হ্যাজার্ড আর লুকাকুর কল্যাণে, টুর্নামেন্টে সবচেয়ে বেশি গোলের ম্যাচে বড় জয় পায় রবার্টো মার্টিনেজের দল। আর টুর্নামেন্টে চার গোল করে পর্তুগিজ তারকা রোনালদোকে ‘গোল্ডেন বুট’ জয়ে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়েও দেন ‘রেড ডেভিল’ তারকা রোমেলু লুকাকু।

এই জয়ে ষষ্ঠবারের মত বিশ্বকাপের শেষ ষোলতে উঠল বেলজিয়াম। অন্যদিকে এই হারে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় ঘন্টা বাজল তিউনিশিয়ার। এই নিয়ে টানা ২১ ম্যাচে অপরাজিত রইলো `ডাই রটেন’রা। ২২ ম্যাচে অপরাজিত থেকে তাদের চেয়ে এগিয়ে আছে ইউরোপের আরেক দল স্পেন।

পিছিয়ে থেকে‌ও জিতল সুইজারল্যান্ড

পিছিয়ে থেকে‌ও জিতল সুইজারল্যান্ড। তাতে রাশিয়া বিশ্বকাপের ই গ্রুপ থেকে ব্রাজিলের সঙ্গে সুইসদেরই শেষ ১৬ তে যা‌ওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হলো। মিত্রোভিচের গোলে শুরুতেই পিছিয়ে পড়লে‌ও গ্রানিত জাকা ও জারদান সাকিরির কল্যাণে।

খেলার ৫ মিনিটেই মিত্রোভিচের দারুণ এক গোলে পিছিয়ে পড়ে ব্রাজিলকে চমকে দিয়ে ড্র করা সুইজারল্যান্ড। শুধু গোল করাই নয়, প্রথমার্ধে খুবই আক্রমণাত্মক ছিল সার্বিয়া। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে সার্বদের সেই লড়াকু মানসিকতা আর থাকে নি। মাঠের দখল নিয়ে নেয় সুইসরা। সার্বিয়াকে কোনো সুযোগই দেয়নি তারা। উল্টো বারবার হানা দিয়েছে প্রতিপক্ষ শিবিরে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে চমৎকার এক গোলে সমতা ফেরান জাকা। ৫৪ মিনিটে সাকিরির শট এক ডিফেন্ডারের মুখে লেগে ফেরে, ফিরতি বল বুলেট গতিতে জালে পাঠিয়ে ম্যাচে সমতা ফেরান তিনি।

খেলার ৯০ মিনিটে সুইজারল্যান্ডের হয়ে জয়সূচক গোলটি করেন জারদান সাকিরি। প্রতি আক্রমণ থেকে বল পেয়ে দ্রুত গতিতে এগিয়ে গিয়ে কোনাকুনি শটে বল জালে পাঠান স্টোক সিটির এই মিডফিল্ডার।

নিজেদের প্রথম ম্যাচে কোস্টারিকাকে পরাজিত করায় এই ম্যাচে জিতলেই নকআউট পর্বে উঠে যেতো সার্বিয়া। কিন্তু প্রথমে এগিয়ে গিয়ে‌ও তা ধরে রাখতে না পারায় অপেক্ষা এবং আক্ষেপটা আরো বাড়লো তাদের। কারণ আগামী বুধবার নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ব্রাজিলের বিপক্ষে খেলতে হবে সার্বিয়াকে। আর একই সময়ে অপেক্ষাকৃত সহজ প্রতিপক্ষে কোস্টারিকার মুখোমুখি হবে সুইজারল্যান্ড।

নাইজেরিয়ার জয়ে বাঁচল আর্জেন্টিনা

বিশ্বকাপ ফুটবলের নকআউট পর্বে আর্জেন্টিনার আশা বাঁচিয়ে রাখল নাইজেরিয়া। স্ট্রাইকার আহমেদ মুসার জোড়া গোলে প্রথম ম্যাচেই আর্জেন্টিনাকে ১-১ গোলে রুখে দিয়ে চমক দেখানো আইসল্যান্ডকে হারায় নাইজেরিয়া। এতে ‘সুপার ঈগল’দের‌ও সুযোগ থাকছে শেষ ১৬ তে ‌ওঠার।

আজ শুক্রবার খেলার দ্বিতীয়ার্ধে দুটি গোল করে লিস্টার সিটির স্ট্রাইকার আহমেদ মুসা বিশ্বকাপে নাইজেরিয়ার হয়ে সর্বোচ্চ চারটি গোল করার কৃতিত্ব দেখালেন।

তাছাড়া আহমেদ মুসাই হলেন প্রথম কোনো নাইজেরিয়ান খেলোয়াড় যিনি আলাদা দুটো বিশ্বকাপে গোল করার কৃতিত্ব দেখান। ২০১৪ সালে ব্রাজিল বিশ্বকাপে মুসা আর্জেন্টিনার বিপক্ষে দুটো গোল করেছিলেন। দলের হয়ে ৪৯ ‌ও ৭৫ মিনিটে গোল দুটি করেন ম্যাচ সেরা আহমেদ মুসা।

আর্জেন্টিনায় শোক

গ্রুপরের দ্বিতীয ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ২-০ গোলে পরাজয়ের পর আর্জেন্টিনার একটি টেলিভিশন শোকে-দু:খে এক মিনিট নীরবতা পালন করে। তাদের সব কার্যক্রম মিউট করে দেয় এক মিনিটের জন্য।

গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে বিশ্বকাপের শুরু থেকেই বেশ বেকায়দায় আছে হোর্হে সাম্পা‌ওলির দল। পরের ম্যাচে ক্রোয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে পরাজয়। তাতে ২০০২ সালের পর বিশ্বকাপের প্রথম পর্ব থেকেই ছিটকে পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয় লি‌ওনেল মেসির দলের। এই কারণে সেদেশের টেলিভিশন TyC-তে বিশ্বকাপ নিয়ে অনুষ্ঠান চলাকালে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

অবশ্য আজ শুক্রবারের ম্যাচে আইসল্যান্ড যদি নাইজেরিয়ার কাছে ২-০ গোলে না হেরে জিতে যেতো তবে মেসির দল এক ম্যাচ হাতে রেখেই টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পড়ে যেতো। নাইজেরিয়া জেতায় গ্রুপের শেষ ম্যাচে আফ্রিকান দলটিকে হারানোর পাশাপাশি অনেক সমীকরণ‌ও মেলাতে হবে সাম্পা‌ওলির দলের।

জয়ের পর‌ও নেইমারের কান্না

কোস্টারিকাকে ২-০ গোলে হারিয়ে ম্যাচ জিতল ব্রাজিল। গোল‌ও করলেন দলের মহাতারকা নেইমার। কিন্তু আনন্দের পরিবর্তে চোখ ভেঙে নামল জল। তা আড়াল করতেই মুখ ঢেকে বসে পড়লেন মাঠেই। কিন্তু পিছু ছাড়ল না সাংবাদিকের ক্যামেরা।

এই কান্না কেন নেইমারের। দীর্ঘদিন পর ইনজুরি থেকে ফিরে বিশ্বকাপে সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করা ম্যাচে তেমন ভালো খেলতে পারেননি। নেইমার। তাতে সমালোচনার তীরে বিদ্ধ হন তিনি। তাছাড়া কোস্টারিকান এক ডিফেন্ডার নিজেদের বিপদসীমায় নেইমারকে ফেলে দিলে রেফারি পেনাল্টির বাশি বাজান। নেইমার পেনাল্টি নিতে তৌরি হন। পরে ভার (ভিএআর) প্রযুক্তি সেই পেনাল্টি বাতিল করে। তাতে‌ও বিদ্রুপের শিকার হন নেইমার।

পরে কুতিনহোর পাশাপাশি নিজে‌ও এক গোল করে ব্রাজিলকে ২-০ ব্যবধানে জয় পাইয়ে দেন। সব মিলিয়ে আবেগে ভেঙে পড়েন নেইমার। তাই দল জিতলে‌ও কান্না থামেনি তার।

জিতেছে ব্রাজিল

বিশ্বকাপের ষষ্ঠ শিরোপা জয়ের মিশনে আসা ব্রাজিল গ্রুপে তাদের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় পেয়েছে। রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে ইনজুরি টাইমে দেয়া কুতিনহো এবং নেইমারের দেয়া গােলে জয় নিশ্চিত করে সেলেসা‌ওরা। দারুণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে‌ও ব্রাজিলের কাছ থেকে কোনো পয়েন্ট নিতে পারল না কোস্টারিকা। এর আগে ই গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করেছিল কোচ তিতের দল।

খেলার ১৩ মিনিটেই এগিয়ে যাওয়ার খুব সহজ সুযোগ নষ্ট হয় কোস্টারিকার। ডান দিক থেকে ক্রিস্তিয়ান গামবোয়ার কাছ থেকে পা‌ওয়া বল বাইরে মেরে সুযোগ নষ্ট করেন ফাঁকায় থাকা সেলসো বোর্হেস। বিশ্বের সবচেয়ে বেশি তারকা খচিত দল নিয়ে রাশিয়ায় আসা ব্রাজিল ২৭ মিনিটে গোলের সুযোগ তৈরি করে। ডি-বক্সে বল পেয়ে পিএসজির ফরোয়ার্ড নেইমার গোলবারে শট নে‌ওয়ার আগেই তাকে থামান কোস্টারিকার গোলকিপার কেইলর নাভাস।

দ্বিতীয়ার্ধে নিজেদের অর্ধে আরও গুটিয়ে যায় কোস্টারিকা। তাদের রক্ষণ কৌশরে আরও আক্রমণাত্মক হয়ে ‌ওঠে ব্রাজিল। ফাগনারের ক্রসে গাব্রিয়েল জেসুসের হেডে বল ক্রসবারে লাগলে গোল পায়নি সেলেসা‌ওরা। পরক্ষণেই কুতিনহোর জোরালো শট গোলের মুখে থেকে ফেরে ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে।

৫৬ মিনিটে নেইমারের খুব কাছ থেকে নেওয়া শটে গ্লাভস লাগিয়ে ক্রসবারের উপর দিয়ে পাঠান নাভাস। এরপর কুতিনহো, নেইমার কিংবা ব্রাজিলয়ানদের সব আক্রমণ এসে খেই হারায় কোস্টারিকার রক্ষণে। অভিনয় করে পেনাল্টি প্রায় পেয়ে গিয়েছিলেন নেইমার। রেফারি প্রথমে স্পটকিকের নির্দেশ দিয়েও পরে কোস্টারিকার খেলোয়াড়দের আপত্তির মুখে ভিডিও রিভিউ দেখে সিদ্ধান্ত পাল্টান।

অবশেষে যোগ করা সময়ে আসে গোল দুটি। প্রথম মিনিটে ফিরমিনোর হেড ডি-বক্সে পা দিয়ে নামিয়েছিলেন জেসুস। এগিয়ে এসে নিচু শটে নাভাসকে ফাঁকি দেন বার্সেলোনার মিডফিল্ডার কুতিনহো।

আর সপ্তম মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোলটি পান নেইমার। কাউন্টার অ্যাটাকে ডাগলাস কস্টার কাছ থেকে বল পেয়ে ফাঁকা জালে বল পাঠান বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় নেইমার। খেলা শেষ মুখ ঢাকেন তিনি গোল পাওয়ার কান্নায়।

আর্জেন্টিনার পরাজয় নকআউটে ক্রোয়েশিয়া

আর্জেন্টিনাকে ৩-০ গোলে হারিয়ে ইতিহাস গড়ার পাশাপাশি নকআউট পর্বেও উঠে গেলে ক্রোয়েশিয়া। এতে দক্ষিণ আমেরিকানদের বিপক্ষে বিশ্বকাপে প্রথম জয়ও পেলো ক্রোয়েশিয়া। এই পরাজয়ে উল্টো গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায়ের শঙ্কা এখন আর্জেন্টিনা শিবিরে। নকআউটের টিকিট পেতে, গ্রুপের শেষ ম্যাচে নাইজেরিয়ার সঙ্গে জেতার পাশাপাশি অনেক সমীকরণও মেলাতে হবে এখন মেসিদের।

অভাবনীয় আর অসামান্য এক কাজই করে দেখাল ক্রোয়েশিয়া। সুযোগ সদ্ব্যবহার করার ফসল ঘরে তুললো লুকা মড্রিচরা। আর গোল মিসের মাশুল দিয়ে মাথা নিচু করে মাঠ ছাড়লো আর্জেন্টিনা।

এরআগে, নিঝনি নভোগ্রোদ স্টেডিয়ামে, ক্রোয়েশিয়ার রক্ষণে বারবার হানা দেয় দুইবারের বিশ^ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা। কিন্তু কখনো ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতা আবার কখনো ক্রোয়েশিয়ার গোলরক্ষক সুবাসিচের হার না মানার মানসিকতা দৃঢ়তায় গোল বঞ্চিত হয় মেসিরা।

তাছাড়া সবার ব্যর্থতা একার পক্ষে কাটানো সম্ভব নয় মেসির পক্ষে। পারলেন না। মাঝমাঠ দখলে রেখে প্রথমার্ধে মেসি কিংবা অ্যাগুয়েরোকে বল দেয়া বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টায় সফল ক্রোয়েশিয়া। তাই প্রথমার্ধে আক্রমণ আর বল দখলে এগিয়ে থাকলেও গোল শূন্য অবস্থাতেই বিরতিতে যায় দু’দল।

বোকামীর মাশুল যে কতটা মারাত্মক হতে পারে, তা আর্জেন্টাইন গোলকিপার উইলি কাবায়েরো বুঝতে না পারলেও ভুগেছে পুরো দল। সারা বিশে^র আজেন্টাইন সমর্থকরা মরেছে হতাশায়। তাতে রেবিকের গোলে লিড পায় ক্রোয়েটরা।

তবে ক্রোয়েটদের নিশ্চিদ্র প্রহরা ভেঙে ম্যাচে ফেরার সুযোগও ছিল আলবিসেলেস্তেদের। দারুণ দক্ষতায় মেসি এবং মেজাকে ব্যর্থ করে দেন সুবাসিচ। সমতায় ফিরতে ব্যর্থ সাম্পাওলির দল।

আর্জেন্টিনার এই ব্যর্থতা আরো বাড়িয়ে দেন ক্রোয়েশিয়ার অধিনায়ক লুকা মড্রিচ, খেলার ৮০ মিনিটে দলকে ২-০ তে লিড এনে দিয়ে। ম্যাচ জয়ের আনন্দ তাদের।

হিগুয়েইন-দিবালাকে নামিয়েও ম্যাচে ফেরা হলো না আর্জেন্টিনার। উল্টো খেলা শেষের ইনজুরি টাইমের প্রথম মিনিটে ইভান রাকিটিচের গোলে ৩-০ ব্যবধানে জয় নিশ্চিত করে, বাঁধভাঙা আনন্দ নিয়ে মাঠ ছাড়ে ক্রোয়েশিয়া। আর পরাজয়ে ম্লান-নতমুখী আর্জেন্টিনা। এতে ১৯৫৮ সালে চেকোস্লোভাকিয়ার কাছে ৬-১ গোলে পরাজয়ের পর বিশ^কাপের গ্রুপ পর্বে এটাই সবচেয়ে বড় হার আর্জেন্টিনার।

বিশ্বকাপের নকআউটে ফ্রান্স

কিলিয়ান এমবাপের একমাত্র গোলে পেরুকে হারিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের নক আউট পর্ব নিশ্চিত করলো ফ্রান্স। আর এক ম্যাচ হাতে রেখেই বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিল পেরু।

টানা দুই ম্যাচ জিতে রাশিয়া বিশ্বকাপে গ্র“প ‘ডি’ থেকে একম্যাচ বাকি থাকতে শেষ ষোলে ১৯৯৮ সালের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। আর ৩৬ বছর পর বিশ্বকাপে ফিরে টানা দুই ম্যাচ হেরে টুর্নামেন্ট থেকে ছিটকে পড়লো পেরু।

একতারিনবার্গে খেলার শুরু থেকেই পেরুর ওপর চড়াও হয় ফরাসিদের তারকা খচিত আক্রমনভাগ। সফলতা আসে ৩৪ মিনিটে।

পিএসজি তারকা এমবাপের গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। তাতে ফরাসিদের হয়ে সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতা বনে যান, ১৯ বছর বয়সী এমবাপে।

https://www.youtube.com/watch?v=7BFenLEofm8

পিছিয়ে পড়ে গোল শোধে চেষ্টা চালায় পেরু। কিন্তু ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায় আর ম্যাচে ফেরা হয়নি তাদের। এই জয়ে ১৯৭৮ সাল থেকে ল্যাটিন আমেরিকান দলগুলোর বিপক্ষে অপরাজিত থাকার রেকর্ডটা ধরে রাখলো ফ্রান্স।

ডেনমার্কের সাথে ড্র বিশ্বকাপে টিকে রইল অস্ট্রেলিয়া

গ্রুপ ‘সি’র খেলায় ডেনমার্কের সাথে ড্র করে বিশ্বকাপে টিকে থাকলো অস্ট্রেলিয়া। সামরায় খেলার মাত্র ৭ মিনিটে ক্রিস্টিয়ান এরিকসনের গোলে এগিয়ে যায় ডেনমার্ক। প্রথমার্ধেই পেনাল্টি গোলে সমতায় ফেরে অস্ট্রেলিয়া।

খেলায় ডেনমার্কের বিপক্ষে কিছুটা চাপ নিয়েই ম্যাচ শুরু করে অস্ট্রেলিয়া। বিশ্বকাপে টিকে থাকতে হলে এই ম্যাচে অন্তত পরাজয় এড়াতে হতো সকারুদের। এমন সমীকরেণর ম্যাচে, শুরুতেই পিছিয়ে পড়ে অস্ট্রেলিয়া। সামরায়, খেলার মাত্র ৭ মিনিটে ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনের গোলে এগিয়ে যায় ডেনমার্ক।

বিশ্বকাপে টানা দুই ম্যাচ জয়ের রেকর্ড নেই ডেনমার্কের। দুর্ভাগ্য, এবারও টানা দুই ম্যাচে জয় না পা‌ওয়ার পুরণো সেই রেকর্ড অক্ষত থাকলো তাদের।

ভিএআর প্রযুক্তির সহযোগিতায় রেফারি নিশ্চিত করেন ডি-বক্সে হ্যান্ডবল হয়েছে ডেনমার্কের ইউসুফ পুলসেনের। ৩৭ মিনিটে পাওয়া পেনাল্টি থেকে দলকে সমতায় ফেরাতে ভুল করেননি অস্ট্রেলিয়ার মিডফিল্ডার মিলে জেডিনাক।

দ্বিতীয়ার্ধে জয়ের জন্য আপ্রাণ লড়াই করে অস্ট্রেলিয়া। তবে ডেনমার্কের রক্ষণভাগকে কোনঠাসা করে দিয়েও আর কোন সাফল্য পায়নি সকারুরা। শেষ পর্যন্ত পয়েন্ট ভাগাভাগি করেই মাঠ ছাড়ে দুদল।

ভাগ্যের জোরে নকআউটের পথে স্পেন

বিশ্বকাপে দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়ার সম্ভাবনা জিইয়ে রাখতে জিততেই হবে স্পেনকে। এমন কঠিন সমীকরণকে সামনে রেখে এশিয়ার পরাশক্তি ইরানের মুখোমুখি হয় স্পেন। ২০১৪ সালের পর যে দলটি কোন প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ হারেনি তাদের বিপক্ষে ম্যাচটি যে সহজ হবে না সেটা ভালো করেই জানতো ইনিয়েস্তারা।

ইরানের শক্ত রক্ষণভাগের মোকাবেলায় ডিয়েগো কস্তার ভাগ্যপ্রসূত এক গোলে ইরানকে ১-০ গোলে হারায় স্পেন। দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়ার সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখলো ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়নরা।

বল পজেশন আর গোলে শট নেওয়ার হিসেব স্পেনের কথাই বলবে কিন্তু দুর্দান্ত খেলেও ভাগ্য আর প্রযুক্তির কাছে হেরেছে ইরান। দিয়েগো কস্তার একমাত্র গোলে নক-আউট পর্বে ওঠার লড়াইয়ে এগিয়ে থাকলো ‘লা রোজা‘রা।

বিশ্বকাপে টিকে থাকতে হলে ইরানকে হারানোর বিকল্প ছিল না ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়নদের। কিন্তু ২০১৪ থেকে প্রতিযোগীতামূলক ম্যাচে অপরাজিত থাকা ইরানের বিপক্ষে জয় যে সহজ নয়, প্রথমার্ধেই হারে হারে টের পায় স্পেন। তবে ৫৪ মিনিটে রক্ষণভাগের অপ্রত্যাশিত ভুলে স্পেনকে এগিয়ে দেন দিয়েগো কস্তা।

৬৪ মিনিটে স্পেনের জালে বল পাঠিয়ে‌ও ছিলো ইরান। কিন্তু ভিএআরের সহযোগিতায় সেটিকে বাতিল করেন রেফারি। আক্রমন-পাল্টা আক্রমনে খেলা দারুণ জমে ওঠলেও শেষপর্যন্ত স্কোর লাইন অপরিবর্তিতই থাকে।

সৌদিকে বিদায় করে নকআউটে উরুগুয়ে

১০০ তম আন্তর্জাতিক ম্যাচে গোল উরুগুয়ের তারকা স্ট্রাইকার লুইস সুয়ারেজের। আর এই বিরল রেকর্ডের গোলেই বিশ্বকাপের নক আউট পর্বে উঠে গেলো দু’বারের চ্যাম্পিয়ন উরুগুয়ে। নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচেও হেরে এক ম্যাচ হাতে রেখেই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল সৌদি আরব।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে পাঁচ গোল খাওয়ার পর অনেকে ধরেই নিয়েছিলেন উরুগুয়ের বিরুদ্ধেও প্রচুর গোল হজম করতে হবে সৌদিকে। কিন্তু বুধবার সুয়ারেজ-কাভানিদের বিরুদ্ধে তুমুল প্রতিরোধ গড়ে তোলে সৌদি আরব। বল-দখলের লড়াইয়ে প্রথমার্ধে উরুগুয়েকে টেক্কা দিয়েছিল তারা। তবে সেই প্রথমার্ধেই দু’দলের পার্থক্য গড়ে দেন সুয়ারেজ।

২৩ মিনিটে কর্নার থেকে কার্লোস সানচেজের ক্রসে সুয়ারেজের সুযোগসন্ধানী শট এগিয়ে দেয় উরুগুয়েকে। শততম ম্যাচে তাঁর গোলের স্মৃতি হিসেবে ম্যাচ বলটি নিজেরে কাছে রেখে দিলেন উরুগুয়ের মহাতারকা। সেই সঙ্গে তাঁর দখলে গেল একমাত্র উরুগুয়ে ফুটবলার হিসেবে তিনটি আলাদা আলাদা বিশ্বকাপে গোল করার বিরল রেকর্ড।

একগোলে পিছিয়ে গিয়ে প্রথমার্ধের শেষ পর্যন্ত সৌদি আরব বেশ কয়েকবার আক্রমণ শানানোর চেষ্টা করলেও জালের ঠিকানা খুজে পাননি আরবের ফরোয়ার্ডরা। দ্বিতীয়ার্ধে‌ও খেলার ছবিটা ছিল একই রকম। দু’দলই বেশ কিছু ‘হাফ চান্স’ তৈরি করলে‌ও, তাতে অবশ্য খুব একটা সুবিধা হয়নি। ১৯৫৪-র পর এই প্রথম গ্রুপ পর্বে পরপর দুটি গোল করল উরুগুয়ে।

এই হারে টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় নিল সৌদি আরব। সেই সঙ্গে মোহম্মদ সালাহ-র মিশর‌ও। অন্যদিকে, রাশিয়ার সঙ্গে সঙ্গে নক আউটে চলে গেল উরুগুয়ে। আগামী ২৫ জুন রাশিয়া-উরুগুয়ে ম্যাচেই ঠিক হবে গ্রুপে শীর্ষস্থান দখল করছে কোন দল।

নেইমারের ইনজুরি নিয়ে আবার‌ও দু:শ্চিন্তা

এমনিতেই বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচ ড্র করে চাপে ব্রাজিল। মঙ্গলবার বিকেলে তাই কোস্টারিকা ম্যাচের প্রস্তুতি চলছিল জোরেশোরে। সেলেসাওদের প্র‌্যাকটিসে সবকিছু ঠিকঠাক চলছিল। কিন্তু সুইজারল্যান্ড ম্যাচের মতোই ব্রাজিল অনুশীলনের সেই তাল কাটতে বেশি সময় লাগল না। সামান্য একটা বল এসে লাগল নেমারের ডান পায়ে। মাসকয়েক আগেই অস্ত্রোপচার করা সেই ডান পায়ে! আর তারপরই যন্ত্রণায় কুঁকড়ে যান তিনি। তাতে নেইমারের বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যা‌ওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেয়।

এরপর বেশ কিছুক্ষণ বসে থাকার পর বেরিয়েই যান ব্রাজিলের মহাতারকা নেইমার। সাথে ছিলেন দলের ফিজিও। ডাক্তার রডরিগো লাসমার জানান, দু’দিন আগে প্রথম ম্যাচে নেইমারের ডান পায়ের এই জায়গাতেই দশবার মেরেছে সুইসরা। তারপর এদিন প্র‌্যাকটিসে ঠিক ওখানেই বল লাগায় যত বিপত্তি! তবে আসল কথাটা বললেন ব্রাজিল দলের ফিজিওথেরাপিস্ট ব্রুনো মাজ্জিওত্তি। জানান, এই নিয়ে চিন্তার কিছু নেই। বুধবার সকালের প্র‌্যাকটিসে তাঁকে বাকি দলের সঙ্গে যেমন দেখতে পাওয়ার কথা তেমনই দেখা যাবে।

সবার আগে দ্বিতীয় রাউন্ডে রাশিয়া

প্রথমার্ধে রাশিয়াকে ঠেকিয়ে রাখতে পারল মিশর। দ্বিতীয়ার্ধে উড়ে গেল সব প্রতিরোধ। দেনিস চেরিশেভ আর আর্তেম জুবার গোলে টানা দ্বিতীয় জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েছে স্বাগতিকরা।

সবার আগে বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে উঠে গেলো স্বাগতিক রাশিয়া। সেন্ট পিটার্সবার্গে, ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে ৩-১ গোলে পরাজিত করেছে তারা মোহাম্মদ সালাহর মিশরকে। নিজেদের প্রথম ম্যাচে সৌদি আরবকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করার পর এই জয়ে শেষ ১৬-র পথেই রইলো রাশিয়া। বড় কোনো অঘটন না ঘটলে তাদের বাদ পড়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। তাছাড়া ১৯৮২ আসরের পর বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে জিতল রাশিয়া।

আর টানা দুই পরাজয়ে ১৯৯০ সালের পর বিশ্বকাপে খেলতে এসে প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায়ের আশঙ্কা ফারা‌ওদের। যদি‌ও অংকের মারপ্যাচে এখনও সম্ভাবনা টিকে আছে তাদের।

রাশিয়ার বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে বিশ্বকাপে প্রথমবারের মত মিশর একাদশে ইনজুরি কাঁটিয়ে ফেরেন মোহামেদ সালাহ। কিন্তু তার উপস্থিতি শক্তি বাড়ালে‌ও প্রথমার্ধে গোল শূন্য থাকে খেলা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে রোমান জুভনিনের শট ঠেকাতে গিয়ে নিজেদের জালেই জড়িয়ে দেন মিশরের আহমেদ ফাতি। সেই আত্মঘাতী গোলেই পিছিয়ে পড়ে ফারা‌ওরা।

খেলায় আর ফিরতে পারেনি মিশর। ৫৯ মিনিটে ফার্নান্দেজের দুর্দান্ত ক্রসে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন চেরিশভ। টুর্নামেন্ট ৩ গোল করে যুগ্নভাবে রোনালদোর সঙ্গে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় শীর্ষে উঠে আসলেন তিনি।

এই গোলের রেশ না কাটতেই ৬২ মিনিটে রাশিয়াকে ৩-০ গোলে এগিয়ে দেন জিউবা। প্রথম ম্যাচেও গোল করেছিলেন এই স্ট্রাইকার।

তিন গোলে পিছিয়ে থাকলে খেলায় আর কিছু করার থাকে না। মোহাম্মদ সালাহর মিশরের‌ও করার কিছুই ছিল না। তবে ৭৩ মিনিটে স্পট কিকে বিশ্বকাপে মিশরের হয়ে প্রথম গোলটি করেন মোহামেদ সালাহ। তৃতীয় মিশরীয় হিসেবে বিশ্বকাপে গোল করার কৃতিত্ব দেখান তিনি।

সেনেগালের চমক লাগানো জয়

‘এইচ’ গ্রুপের খেলায় ২-১ গোলে জিতেছে ১৬ বছর পর বিশ্বকাপে ফেরা সেনেগাল। এবারের আসরে এটাই আফ্রিকার কোনো দলের প্রথম জয়। ২০০২ আসরে শিরোপাধারী ফ্রান্সকে হারিয়ে চমকে দিয়েছিল সেনেগাল। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম আসরে দলটি খেলেছিল কোয়ার্টার-ফাইনালে। এবারের আসর শুরু করল র‌্যাঙ্কিংয়ের ৮ নম্বর দলকে হারিয়ে। স্পার্তাক স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার প্রথমার্ধে মাঝমাঠের নিয়ন্ত্রণ নিতে পারেনি কোনো দলই। লেভানদোভস্কি কিংবা সাদিও মানে ভীতি ছড়াতে পারেননি প্রতিপক্ষের রক্ষণে।

৩৭তম মিনিটে এগিয়ে যায় সেনেগাল। ইদ্রিসা গেইয়ের শট ডিফেন্ডার তিয়াগো চনেকের পায়ে লেগে দিক পাল্ট জালে জড়ায়। বিশ্বকাপে পোল্যান্ডের কোনো ফুটবলারের এটাই প্রথম আত্মঘাতী গোল।

পোল্যান্ডের দুর্বলতা তার রক্ষণ। সেই দুর্বলতা কাজে লাগিয়ে ৬০ মিনিটে এমবে নিয়াংয়ের গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে সেনেগাল। জেগোস ক্রিখোভিয়াকের লক্ষ্যহীন ব্যাক পাস ক্লিয়ার করতে গোল পোস্ট ছেড়ে অনেকটা এগিয়ে আসেন ভয়চেখ স্ত্রেন্সনে। বল ক্লিয়ার করতে পারেননি পোলিশ গোলরক্ষক। ফাঁকা জালে বল পাঠান কয়েক সেকেন্ড আগে বদলি নামা নিয়াং। দেশের হয়ে এটাই তরুণ এই ফরোয়ার্ডের প্রথম গোল।

এই গোলের দায় যেন ৮৬তম মিনিটে শোধ করেন ক্রিখোভিয়াক। ফ্রি কিকে দারুণ এক হেডে বল জালে পাঠান এই মিডফিল্ডার। আগামী রোববার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে জাপানের বিপক্ষে খেলবে সেনেগাল। পর দিন কলম্বিয়ার মুখোমুখি হবে পোল্যান্ড।

জাপানের ইতিহাস গড়া জয়

রাশিয়া বিশ্বকাপে প্রথম লালকার্ডের দিনে কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারিয়ে রেকর্ড করলো এশিয়ার প্রতিনিধি জাপান। এতে দক্ষিণ আমেরিকার কোনো দেশের বিপক্ষে এশিয়ার প্রথম দল হিসেবে জয়ের ইতিহাস গড়লো ‘সামুরাই ব্লু’রা। তাতে রাশিয়া বিশ্বকাপে, ছোট দলগুলোর চমক দেখানোর তালিকায় যোগ হলো জাপানের নামও।

খেলার বয়স তখন মাত্র তিন মিনিট। সারানস্ক এরেনার দর্শকদের সবাই তখনও মাঠে ঢুকতে পারেনি। সিনঝি কাগাওয়ার শট জাল ছোঁয়ার মুখে গতি রোধ করেন, কলম্বিয়ার কার্লোস সানচেজ। সাথে সাথেই রেফারির লালকার্ড। ১০ জনের দলে পরিণত হয় কলম্বিয়া। আর কাগাওয়ার পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যাওয়া জাপানের।

১০ জন নিয়ে ১১ জনের বিপক্ষে সমতায় ফেরার লড়াই চালায়, প্যাকারম্যানের দল কলম্বিয়া। এক খেলোয়াড় বেশি থাকার সুবিধাও ধরে রাখতে পারেনি জাপানিরা। ৩৯ মিনিটে কুইনটেরো বিচক্ষণ ফ্রিকিকে ম্যাচে সমতা ফেরান। জাপানিরা আবেদন জানালেও ভিএআর প্রযুক্তি বহাল রাখে সেই গোল। ১-১ সমতায় বিরতিতে যায় দু’দল।

দ্বিতীয়ার্ধে ২০১৪ সালে গোল্ডেন বুট জয়ী হামেস রড্রিগেজ মাঠে নামলে আক্রমণের ধার আরও বাড়ে কলম্বিয়ার। জাপানও আক্রমণে একেবারে পিছিয়ে ছিলোনা। জয়ের রঙ তখন তাদের চোখে-মুখে। হোন্ডার দারুণ কর্নারে ৭৩ মিনিটে এফসি কোলনের ফরোয়ার্ড ওসাকা মাথা ছুঁইয়ে যে গোলটি করেন তাতেই এবারের বিশ^কাপে প্রথম জয় পায় জাপান।

বাকী সময়ে আর গোলের দেখা পায়নি কলম্বিয়া। এই জয়ে এইচ গ্রুপে সবচেয়ে পিছিয়ে থাকা জাপান ব্রাজিল বিশ্বকাপে কলম্বিয়ার কাছে ৪-১ গোলে পরাজয়ের প্রতিশোধও নিল। সেই সঙ্গে ফেভারিট আর নন-ফেভারিটের অচলায়তনও ভেঙে দিলো সামুরাই ব্লু’রা।

মিশর নয়, রাশিয়ার প্রতিপক্ষ সালাহ

মিশর নয়, নকআউট পর্বের টিকিট নিশ্চিত করতে আজ মঙ্গলবার রাতের ম্যাচে স্বাগতিক রাশিয়ার প্রতিপক্ষ মোহাম্মদ সালাহ। গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ইনজুরি আক্রান্ত সালাহকে বিশ্রামে রাখলে‌ও রাশিয়ার বিপক্ষ তাকে খুব করে চাইছেন কোচ হেক্টর কুপার। তবে সালাহ নিজেই তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে জানান, “Ready for tomorrow. 100 million strong.”

এদিকে মিশর দলের ডাক্তার জানিয়েছেন, দলের সেরা অস্ত্র এখন মাঠে নেমে ৯০ মিনিট খেলার মতো সুস্থ। কিন্তু তাঁর কথা কেউ বিশ্বাস করছেন না। কারণ মিশরের প্রথম ম্যাচের আগেও বলা হয়েছিল সালাহ খেলবেন। অবশ্য এবার অবিশ্বাস করার উপায়‌ও নেই এবার। কারণ স্পোর্টস অ্যায়ার প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান এডিডাস‌ও সালাহ একটি ভিডি‌ও পোস্ট করে টুইট বার্তায় জানায় “Tomorrow. 100 million strong.”

এই টুইট দেখার পরই মিশরের সমর্থকরা অ্যাডিডাসকে অভিনন্দিত করছেন বিভিন্নভাবে। আজ মঙ্গলবার রাত ১২টায় খেলাটি শুরু হবে সেন্ট পিটার্সবার্গে।

এদিকে প্রথম ম্যাচে সৌদি আরবকে ৫-০ হারিয়ে রাশিয়ায় নকআউটের পথে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। আর সালাহ বিহীন মিশর হেরেছে উরুগুয়ের কাছে।

কেন বাঁচালেন ইংল্যান্ডকে

ভোলগোগ্রাদে নির্ধারিত সময়ের খেলা শেষে অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন হোচট খাওয়া ফেভারিটদের তালিকায় নাম জমা পড়ছে ইংল্যান্ডেরও। কিন্তু শেষ পর্যন্ত অধিনায়ক হ্যারি কেইনের গোলে তিউনিসিয়ার বিপক্ষে পূর্ন পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়ে ইংলিশরা।

অথচ বিশ্বকাপে নিজেদের শেষ আট ম্যাচে মাত্র একটি জয় পাওয়া ইংল্যান্ডের শুরুটা ছিলো বেশ দাপুটে। খেলার ১১ মিনিটেই হ্যারি কেইনেই গোলে লিড ব্রিটিশদের।

তবে সমতায় ফিরতেও বেশি সময় নেয়নি, ১৯৭৮ সালের বিশ্বকাপে একমাত্র জয় পাওয়া তিউনিসিয়া। ৩৫ মিনিটে স্পট কিক থেকে দলকে সমতায় ফেরান ফেরজানি সাসি। শেষ পর্যন্ত এই উল্লাস ধরে রাখতে পারেনি রক্ষণাত্মক কৌশলে খেলা তিউনিসিয়া।

১৯৯৮ সালের পর আবারও ইংলিশদের কাছে পরাজয়ের লজ্জা নিয়ে মাঠ ছাড়ে তারা।

নামের সুবিচার করল বেলজিয়াম

নামের প্রতি সুবিচার করেই রাশিয়া বিশ্বকাপে বড় জয় দিয়ে নিজেদের প্রথম ম্যাচ উদযাপন করলো `সোনালি প্রজন্মের দল’ বেলজিয়াম। সোচির অলিম্পিক ফিস্ট স্টেডিয়ামে, ‘জি’ গ্রুপের ম্যাচ রোমেলু লুকাকুর জোড়া গোলে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়েছে তারা বিশ্বকাপে প্রথম খেলতে আসা পানামাকে।

টানা ১৯ ম্যাচ অপরাজিত থেকে পানামার মুখোমুখি হয়েছিল বেলজিয়াম। বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে খেলতে নামা পানামা প্রথমার্ধে বেলজিয়ামকে আটকেই দিয়েছিল। গোলকিপার জেমি পেনেদোর দৃঢ়তা বারবার বিপদ থেকে বাচিয়েছে পানামাকে। গোলে পেতে দেয়ননি তিনি সোনালি প্রজন্মের সেনানীদেরকে। তবে মুর্হূমূর্হু আক্রমণ ঠেকাতেই ব্যস্ত থেকেছে পানামা।

৪৭ মিনিটে চমৎকার এক ভলিতে ম্যার্টেন্স বেলজিয়ামকে এগিয়ে দ‌েওয়ার পর আর পেছনে তাকাতে হয়নি এডেন হ্যাজার্ডের দলকে। দারুণ ছন্দে থাকা লুকাকু ৬৯ মিনিটে ডি ব্রুইনের ক্রসে মাথা ছুইয়ে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন।

বাছাই পর্বে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ ১১ গোল করা লুকাকু ৭৫ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় এবং দলের পক্ষে তৃতীয় গোলটি করেন। বাকি সময়ে আর গোল পায়নি বেলজিয়াম। আর পানামা‌ও গোল শোধ করতে পারেনি।

আগামী শনিবার তিউনিশিয়ার বিপক্ষে খেলবে বেলজিয়ামা। পরেরদিন ইংল্যান্ডের মুখোমুখি হবে পানামা।

পেনাল্টিতে সুইডেনের জয়

১২ বছর পর বিশ্বকাপে ফিরেই জয় পেয়েছে সুইডেন। নিঝনি নভোগ্রোদে এফ গ্রুপের একপেশে ম্যাচে তারা পেনাল্টি গোলে হারিয়েছে এশিয়ার প্রতিনিধি দক্ষিণ কোরিয়াকে।

এরআগে দুই দলের চারবারের মোকাবেলায় সুইডিশরা হারেনি কখনো, আর কোরিয়ানদের জয়ের রেকর্ড‌ও নেই। দু’টি জয় আর সমান ড্রতে এগিয়েছিল সুইডেনই। তবে আক্রমণাত্মক মেজাজে থাকা সুইডিশদের প্রথমার্দে গোল বঞ্চিত রাখেন কোরিয়ার গোলকিপার চো হিয়ুন-উ একাই।

একের পর এক সুযোগ নষ্ট করা সুইডেন ৬৫ মিনিটে গ্রানক্রিস্তের পেনাল্টি গোলে এগিয়ে যায়। ডি বক্সে সুইডেনের ভিক্টর ক্লাসেন পড়ে যান কিম মিন-য়ুর স্লাইডিং ট্যাকলে। শুরুতে পেনাল্টি দেননি রেফারি, পরে ভিএআর প্রযুক্তি ব্যবহার করে স্পটকিকের সিদ্ধান্ত দেন তিনি।

সেই এক গোলের জয়েরই এবারের বিশ্বকাপে শুভ সূচনা করলো সুইডেন। আগামী শনিবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ জার্মানি। একই দিন মেক্সিকোর মুখোমুখি হবে দক্ষিণ কোরিয়া।

কষ্টের জয় জার্মানির

কষ্টের এক জয় দিয়ে বিশ্বকাপের নিজেদের প্রস্তুতি শেষ করল বর্তমান চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। লেভারকুজেনে শুক্রবার রাতে তারা ২-১ গোলে পরাজিত করে সৌদি আরবকে। গত শনিবার অস্ট্রিয়ার কাছে ২-১ গোলে হেরেছিল ইওয়াখিম লুভের দল।

নিজেদের মাঠে‌ও স্বরূপে দেখা যায়নি জার্মানিকে। বল পজেশন, আক্রমণ কিংবা পাসিং সবকিছুতে এগিয়ে থাকলে‌ও জার্মানি ঠিক নিজেদের মধ্যই ছিলনা। ঠিক কোথায় যেনো ছন্দহীন জোয়াকিম লো’র দল। তবে খেলার ৮ মিনিটেই তারা এগিয়ে যায়। ডান দিক থেকে সতীর্থের লম্বা উঁচু করে বাড়ানো বল ডি-বক্সে পেয়ে মার্কো রয়েস বক্সের মুখে বাড়ান টিমো ভেরনারকে। প্রথম ছোঁয়ায় বল জালে পাঠান লাইপজিগের এই ফরোয়ার্ড।

ধীরে ধীরে গুছিয়ে ওঠা সৌদি আরব মাঝে মধ্যে পাল্টা আক্রমণে উঠতে শুরু করে। কিন্তু আক্রমণভাগের ব্যর্থতায় সাফল্য অধরাই থাকে। উল্টো ৪৩ মিনিটে দ্বিতীয় গোল হজম করতে হয় অতিথিদের। ভেরনারের নীচু ক্রস ঠেকাতে গিয়ে নিজেদের জালে ঠেলে দেন সৌদির ডিফেন্ডার ওমার।

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথমভাগে আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণে লড়াই বেশ জমে ওঠে। গোলের সুযোগ মিস করেন মাটস হুমেলস ও ড্রাক্সলার। এবং সৌদি মিডফিল্ডার সালেম আল-দাওসারি।

৮৪ মিনিটে ঠিকই ব্যবধান কমিয়ে লড়াই জমিয়ে তোলে সৌদি আরব। তাদের মিডফিল্ডার আল-জসিমকে ডিফেন্ডার সামি খেদিরা ফাউল করলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। মোহাম্মদ আল-সাহলাইয়ের শট ডান দিয়ে ঝাঁপিয়ে ঠেকিয়ে দেন মানুয়েল নয়ার। ফিরতি বল ধরে গোলটি করেন মিডফিল্ডার আল জসিম। বিশ্বকাপ শুরুর আগের প্রস্তুতিপর্বটা খুব একটা ভালো কাটলো না জার্মানির।

আগামী ১৭ জুন মেক্সিকোর বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ে নামবে জার্মানি। ‘এফ’ গ্রুপে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের অন্য দুই প্রতিপক্ষ সুইডেন ও দক্ষিণ কোরিয়া।

এদিকে, সুইজারল্যান্ডের কাছে ২-০ গোলে হেরেছে জাপান। আরেক প্রস্তুতি ম্যাচে সেনেগালকে ২-১ গোলে হারিয়েছে ক্রোয়েশিয়া।

নেইমার-মড্রিচ জার্সি বিনিময়

প্রীতি ম্যাচে পরাজয়ের বেদনা ছিলই। কিন্তু যে সেরা তাকে তো স্বীকৃতি দিতেই হবে। এনফিল্ডে ব্রাজিলের কাছে ২-০ গোলে পরাজয়ের পর তেমনই এক কান্ড করলেন, ক্রোয়েশিয়া ‌ও রিয়াল মাদ্রিদের লুকা মড্রিচ। বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় নেইমারের জার্সিটা চেয়ে নিলেন। তবে নেইমার‌ও ভদ্রতা করতে ভুললেন না। তিনি‌ও চেয়ে নিলেন মড্রিচের জার্সিটি।

জার্সি বিনিময়ের সঙ্গে নিজেদের অটোগ্রাফ‌ও বিনিময় করেন দুই দেশের এই দুই তারকা। ব্রাজিলের ২-০ গোলের জয়ে নেতৃত্ব দেন, সেলেসা‌ওদের প্রাণ ভোমরা নেইমার। তিনি প্রথম গোলটি করেন।

ইনজুরি থেকে ফিরেই নেইমারের অ্যাকশন

ইনজুরি থেকে ফিরেই নেইমারের অ্যাকশন। তাতে প্রীতি ম্যাচে বিশ্বকাপের হেক্সা জয়ের মিশনে থাকা ব্রাজিলের কাছে ক্রোয়েশিয়ার পরাজয়। রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে লিভারপুলের মাঠ এনফিল্ডে ক্রোয়েশিয়াকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছে ব্রাজিল। সেলেসা‌ওদের মহাতারকা নেইমার করেন প্রথম গোল। অন্যটি রবার্টো ফিরমিনো।

প্রথমার্ধের খেলায় ব্রাজিলকে চেনাই যায়নি। পারফরম্যান্স ছিল হতাশাজনক। উল্টো ক্রোয়েশিয়া বেশ কয়েকটি আক্রমণে কাপিয়ে দিয়েছিল সেলেসা‌ওদের রক্ষণপ্রাচীর। বল পেতেই লড়তে হচ্ছিল বাছাইপর্ব পেরিয়ে সবার আগে রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকেট পা‌ওয়া দলটিকে। দূরপাল্লার শটে দুবার চেষ্টা চালান ফিলিপে কুটিনহো। কিন্তু কোনোবারই তা লক্ষ্যে থাকেনি। সাইড লাইনে বসে নিশপিস করছিলেন নেইমার সতীর্থদের ব্যর্থতা দেখে।

দ্বিতীয়ার্ধের প্রথম মিনিটেই ফের্নানদিনিয়োকে তুলে নেইমারকে নামান কোচ তিতে। আর ৬০ মিনিটে গাব্রিয়েল জেসুসের বদলি নামেন ফিরমিনো। ৬৯ মিনিটে গোলের দেখা মেলে। বার্সেলোনা তারকা কুটিনহোর বাড়ানো বল ধরে বাঁ-দিক দিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে কিছুটা এগিয়ে এক ঝটকায় দুজনের মধ্যে দিয়ে বেরিয়ে যান নেইমার। সঙ্গে থাকা আরেকজনকে কোনো সুযোগ না দিয়ে জোরালো শটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন বিশ্বের সবচেয়ে দামি ফুটবলার।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে নেইমারের এটি ৫৪তম গোল। আর একটি গোল করলেই দেশের পক্ষে সর্বোচ্চ গোলের তালিকায় তৃতীয় স্থানে থাকা রোমারিওকে স্পর্শ করবেন ২৬ বছর বয়সী নেইমার। ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ফিরমিনো। অনেক দূর থেকে ক্রস বাড়ান রিয়াল মাদ্রিদের ডিফেন্ডার কাসিমেরো। আর অফসাইডের ফাঁদ ভেঙে ডি-বক্সে ঢুকে বুক দিয়ে বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আগুয়ান গোলরক্ষকের মাথার উপর দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন লিভারপুল ফরোয়ার্ড ফিরমিনো।

আগামী ১৭ জুন সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শুরু হবে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ যাত্রা। ‘ই’ গ্রুপে তাদের অপর প্রতিপক্ষ কোস্টারিকা ও সার্বিয়া।

প্রীতি ম্যাচে জার্মানির পরাজয়

প্রীতি ম্যাচে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানিকে হারিয়ে চমকে দিয়েছে অস্ট্রিয়া। রাতে তারা অস্ট্রিয়ার ক্লাগেনফোর্ট স্টেডিয়ামে, ২-১ গোলে পরাজিত করে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের। অবশ্য দুর্যোগপূর্ণ আবহা‌ওয়ার কারণে নির্ধারিত সময়ের ১ ঘন্টা ৩৫ মিনিট পরে শুরু হয় খেলা। গত ৩২ বছরে অস্টিয়ার কাছে জার্মানির এটি প্রথম পরাজয়।

ইনজুরি থেকে পুর্ণবাসন প্রক্রিয়ায় থাকা জার্মানির সেরা গোলকিপার ম্যানুয়েল ন্যূয়ার অধিনায়কত্ব‌ও করলেন এই বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে; এমনকি প্রথমে গোল করে এগিয়ে‌ও গিয়েছিল জার্মানরা। তবু শেষ পর্যন্ত হারতে হলো তাদেরকে বিশ্বকাপের বাছাই পর্বেই বাদ পড়া অস্ট্রিয়ার কাছে।
খেলা শুরুর ১১ মিনিটেই মেসুত ‌ওজিলের কল্যাণে লিড নেয় জোয়াকিম লো’র দল।

বিরতি থেকে ফিরেই গোল পরিশোধের চেষ্টা করতে থাকে অস্ট্রিয়া। ৫৩ মিনিটে ম্যাচে সমতা ফেরান মার্টিন হিটারেজার। ডেভিড আলাবার কর্নার থেকে বল পেয়ে দারুণ শটে তিনি জালে জড়ান। ম্যানুয়েল ন্যূয়ার ‌ও জোনাস হেক্টরের তাকিয়ে দেখা ছাড়া করার কিছুই ছিলনা।

৬৯ মিনিটে অস্ট্রিয়াকে ২-১ গোলের লিড এনে দেন আলেসান্দ্রো স্কুপফ। জার্মান সীমানায় বাম প্রান্ত থেকে জুলিয়ান বল দেন স্টেফান লাইনারকে। তার কাছ থেকে স্কুপফ বল পেয়ে দলকে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে দেন। শেষ পর্যন্ত ২-১ ব্যবধানে জয় নিয়ে ঘরে ফেরে অস্ট্রিয়া।

প্রস্তুতি ম্যাচে রাশিয়ার পরাজয়

বিশ্বকাপ ফুটবলের প্রস্তুতি ম্যাচে অস্ট্রিয়ার কাছে ১-০ গোলে হেরেছে স্বাগতিক রাশিয়া। নিজেদের মাঠ ত্রিভোলি স্টেডিয়ামে, বিশ্বকাপের স্বাগতিকদের উপর চাপিয়ে খেলতে থাকে অস্ট্রিয়া। এতে নিজেদের রক্ষণভাগ সামাল দিতেই ব্যস্ত থাকে রাশিয়া।

খেলার ২৮ মিনিটে অস্ট্রিয়াকে এগিয়ে দেন, সালকের মিডফিল্ডার আলেসান্দ্রো শোপফ। এরপর গোল সংখ্যা বাড়ানোর সুযোগ পেয়েছিল বিশ^কাপের টিকিট না পাওয়া দলটি। কিন্তু ফরোয়ার্ডদের ব্যর্থতায় গোল পাওয়া হয়নি। আগামী মঙ্গলবার তুরস্কের বিপক্ষে নিজেদের শেষ প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে রাশিয়া। এদিকে, আগামী ১৪ জুন সৌদি আরবের বিপক্ষে বিশ^কাপের উদ্বোধনী ম্যাচ খেলবে তারা।

টিকিট বিক্রি শুরু ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ শুরুর এক বছর আগে থেকে শুরু হলো টিকিট বিক্রি কার্যক্রম। সেই সঙ্গে শুরু হয়েছে ৩৬৫ দিনের কাউন্টডাউন‌ও। লন্ডনের বিখ্যাত ব্রিকলেনে স্ট্রিট ক্রিকেট‌ খেলার আয়োজন করা যায়।

https://www.icc-cricket.com/video/694745?utm_campaign=9524013_One%20Year%20To%20Go%20-%2030%2F05%2F18&utm_medium=email&utm_source=Email_CWC19&dm_i=1HYE,5O4RX,87620C,M24TA,1

প্রস্তুতি ম্যাচে বড় জয় আর্জেন্টিনার

আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর ম্যাচে হ্যাটট্রিক করলেন লিওনেল মেসি। অধিনায়কের দারুণ হ্যাটট্রিকে হাইতিকে ৪-০ গোলে পরাজিত করেছে আর্জেন্টিনা। এই জয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের নিজেদের আক্রমণভাগের শক্তি যাচাই করে নিলেন আর্জেন্টাইন কোচ হোর্হে সাম্পাওলি।

বুয়েনস আইরেসে আজ বুধবার ভোরে শুরু হওয়া ম্যাচের শুরু থেকেই হাইতির ‌ওপর চাপিয়ে খেলে আর্জেন্টিনা। কিন্তু মেসি আর হিগুয়েনের চেষ্টাগুলোকে বার বার ব্যর্থ করে দেন হাইতির গোলকিপার। খেলার ১৭ মিনিটে এগিয়ে যায় দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ডি বক্সের ভেতরে জিওভানি লো সেলসো ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় আলবিসেলেস্তেরা। স্পটকিকে দলকে এগিয়ে দেন মেসি। বলের লাইনে ঝাঁপিয়ে পড়লেও মেসির শট ঠেকাতে পারেননি গোলরক্ষক।

প্রথমার্ধে আরো কয়েকবার প্রতিপক্ষের সীমানায় আক্রমণ করলে ব্যবধান বাড়তে দেননি হাইতির গোলকিপার।

দ্বিতীয়ার্ধে যেনো হাইতির জালে গোল উৎসব করে আর্জেন্টিনা। ৫৮ লি‌ওনেল মেসি ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। এই গোলের দুই মিনিট পর হিগুয়েনকে তুলে নিয়ে ম্যানচেস্টার সিটির ফরোয়ার্ড আগুয়েরোকে মাঠে নামান সাম্পাওলি। ৬৬ মিনিটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন মেসি। আর্জেন্টিনার হয়ে এটি তার ৬৪তম গোল।

খেলার ৬৯ মিনিটে আগুয়েরো গোল করে আর্জেন্টিনার ৪-০ ব্যবধানে জয় নিশ্চিত করেন। আগামী ৯ জুন ইসরায়েলের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে আরেক দফা দলকে পরখ করে নেওয়ার সুযোগ পাবেন কোচ সাম্পা‌ওলি।

রাশিয়া বিশ্বকাপে ‘ই’ গ্রুপে আর্জেন্টিনার সঙ্গে আছে আইসল্যান্ড, ক্রোয়েশিয়া ও নাইজেরিয়া। আগামী ১৬ জুন আইসল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে আলবিসেলেস্তেরা।

মেরিনারে ধরাশায়ী আবাহনী

গ্রীন ডেল্টা প্রিমিয়ার লিগের প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলায় আবাহনীকে ৫-১ গোলের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মেরিনার ইয়াংস ক্লাব।

মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে, শিরোপা প্রত্যাশি আবাহনীকে কোনো পাত্তাই দেয়নি মেরিনার। বিজয়ী দলের পক্ষে মইনুল ইসলাম কৌশিক দুটি এবং জুলহাইরি, পুস্কর খীসা মিমো ও নাইম উদ্দিন একটি করে গোল করেন। আবাহনীর পক্ষে গোল বালজিৎ সিং একটি গোল শোধ করেন।

এই জয়ে ১১ ম্যাচে ৩০ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে রইলো মেরিনার। আবাহনীর আছে তৃতীয় স্থানে। আর সমান ম্যাচে ৩৩ পয়েন্ট নিয়ে মোহামেডান আছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। অন্য ম্যাচে, বাংলাদেশ এসসি ৯-১ গোলে হারায় পুলিশ হকি ক্লাবকে।

দেরাদুন গেলো বাংলাদেশ

আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিনম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে ভারতের দেরাদুন গেলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। প্রথমে দিল্লী পরে দেরাদুনে যাবে টাইগাররা।

আজ মঙ্গলবার সকালে অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ‌ও ‘কাটার মাস্টার’ মুস্তাফিজুর রহমানকে ছাড়াই রওনা হয় গোটা দল। প্রতিটি ম্যাচই শুরু হবে বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে আটটা থেকে।

আইপিএল খেলে গতকালই দেশে ফেরা সাকিব দুদিন বিশ্রাম নিয়ে ৩১ মে যোগ দেবেন দলের সাথে। এছাড়া স্কোয়াডে মুস্তাফিজুর রহমানের নাম থাকলেও, শেষ মুহূর্তে পায়ের ইনজুরির কারণে ছিটকে পড়েন তিনি।

এই সিরিজে আফগানিস্তানকে ফেভারিট মেনে নিয়েও সিরিজ জয়ের লক্ষ্য টাইগারদের। ৩, ৫ ও ৭ জুন তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে টাইগাররা।

প্রস্তুতি ম্যাচে ফ্রান্সের জয়

বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে ফ্রান্স হারিয়েছে আয়ারল্যান্ডকে। প্যারিসে অলিভার জিরুদ ‌ও নাবিল ফ্যাকিরের গোলে ২-০ ব্যবধানে ম্যাচ জেতে ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপ জয়ী ফ্রান্স। কোচ দিদিয়ের দেশাম ২৩ জনের প্রাথমিক দল ঘোষণার পর প্রথম ম্যাচেই জয় পেলো ফ্রান্স। একচ্ছ্বত্র আধিপত্য ধরে রাখা খেলার ৪০ মিনিটে আইরিশ গোলকিপার কলিন ডোয়েলের ভুলে স্বাগতিকদের প্রথমে এগিয়ে দেন জিরুদ। প্রথমার্ধেই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ফ্যাকির।

২০১০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের ম্যাচ খেলার পর এবারই প্রথম আয়ারল্যান্ড ফ্রান্সে খেলতে যায়। তবে তারা স্বাগতিক শিবিরে কোনো গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। মুর্হূমুহু আক্রমণের বৃষ্টি বিঘ্নিত খেলার ৪০ মিনিটে জিরুদ এগিয়ে দেন ফ্রান্সকে। ফ্যাকিরের নেয়া কর্নারে হেড করে গোলের চেষ্টা করেন জিরুদ। আইরিশ গোলকিপার কলিন ডোয়েল ফিরিয়ে‌ও দেন। কিন্তু ফিরতি বল জালে পাঠিয়ে ‘লা ব্ল’দের ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেন জিরুদ।

জাতীয় দলের হয়ে এটি জিরুদের ৩১ তম গোল। থিয়েরি অরি (৫১), মিশেল প্লাটিনি (৪১) এবং ডেভিড ত্রেজেগে (৩৪) শুধু জাতীয় দলের হয়ে গোল সংখ্যায় তার চেয়ে এগিয়ে আছেন।

দ্বিতীয় গোলটি‌ও হয় গোলকিপারের ব্যর্থতায়। খেলার ৪৪ মিনিটে ডি বক্সের ঠিক কাছে থেকে গোলমুখে তীব্র গতির এক শট নেন ফ্যাকির। গোলকিপার ফিস্ট করার চেষ্টা করেন। বল চলে যায় জালে। ২-০ গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। বাকী সময়ে আর কোন গোল না হলে বৃষ্টিস্নাত ম্যাচে ২-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে দেশামের শিষ্যরা।

চলতি বছরের ২৩ মার্চ কলম্বিয়ার কাছে ২-৩ গোলে পরাজয়ের পর ফ্রান্স তাদের গত ৯ ম্যাচে আর হারেনি।

দেশে ফিরেছেন সাকিব

বাংলাদেশের বিপক্ষে টি টোয়েন্টি সিরিজে আফগানিস্তানকেই ফেবারিট বললেন সাকিব আল হাসান। আইপিএল খেলে দেশে ফিরে এমনটা জানান তিনি। এসময় বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার আরো বলেন, রশিদ খানকে নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে নিজেদের খেলার দিকেই মনোযোগ দেয়া উচিৎ তাদের।

কোর্টনি ওয়ালশ, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের মতো সাকিব আল হাসানও মেনে নিলেন ছোটো সংস্করনের ক্রিকেটে আফগানিস্তানই ফেবারিট। পরিসংখ্যানে একটু চোখ বুলালেই তাদের বক্তব্যকে অস্বীকার করার উপায় থাকবেনা কারো। এ পর্যন্ত ৬১ টি ম্যাচ খেলেছে আফগানরা। যেখানে তাদের জয় ৪১ ম্যাচে। অন্যদিকে ৭৪ ম্যাচ খেলে টাইগারদের হার ৫১ টিতেই। অনেক বেশী ম্যাচ খেলার অভিজ্ঞতাতেই তাই এগিয়ে থাকছে আফগানরা।

টি টোয়েন্টি ফরম্যাটে এই মুহুতে সেরা বোলার রশিদ খান। তবে আইপিএলে একই দলে খেলার অভিজ্ঞতা কাজে লাগবে বলে মনে করেন টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বাংলাদেশের এই ক্রিকেটের ফেরিওয়ালা।

আগামীকাল মঙ্গলবার সকালে দেরাদুনের উদ্দেশ্য দেশ ছাড়ছে টাইগাররা। তবে দু দিন বিশ্রাম নিয়ে পরে দলের সঙ্গে যোগ দেবেন সাকিব।

আইপিএলে যতো পুরস্কার

এবারের আইপিএল আসরে বেশকিছু পুরস্কার দেয়া হয়েছে। ফাইনাল শেষে এই পুরস্কারগুলো দেয়া হয়। যারা এই পুরস্কার পেয়েছেন তাদের নাম নিচে দে‌ওয়া হলো।

স্টাইলিশ প্লেয়ার: রিশাভ প্যান্ট (দিল্লি ডেয়ারডিয়াভিলস)।

ইমাজিং প্লেয়ার: রিশাভ প্যান্ট (দিল্লি ডেয়ারডিয়াভিলস)।

মোস্ট ভ্যালুয়েবল প্লেয়ার: সুনিল নারাইন (কলকাতা নাইট রাইডার্স)।

সেরা ক্যাচ: ট্রেন্ট বোল্ড (দিল্লি ডেয়ারডিয়াভিলষ)।

সুপার স্টাইকরেট: সুনিল নারাইন (কলকাতা নাইট রাইডার্স)।

সবচেয়ে বেশি উইকেট: অ্যান্ড্রু টাই (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব)।

সর্বোচ্চ রান: কেন উইলিয়ামসন (সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ)।

ফেয়ার প্লে: অদিত্য তাবে (মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স)।

তৃতীয়বার আইপিএল ট্রফি জিতল চেন্নাই

শেন ‌ওয়াটসেনর অপরাজিত সেঞ্চুরিতে তৃতীয়বার আইপিএল ট্রফি জিতল চেন্নাই সুপার কিংস। প্রতিযোগিতার ফাইনালে তারা ৯ বল হাতে রেখেই ৮ উইকেটে পরাজিত করে সাকিব আল হাসানের সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে। আর তিনবার ট্রফি জয় করে রোহিত শর্মার রেকর্ডও ছুঁয়ে ফেললেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি।

১৭৯ রানের টার্গেটে নেমে চেন্নাই দলের ১৬ রানেই হারায় ফ্যাফ ডু প্লেসিসের উইকেট। অন্য ওপেনার ওয়াটসন ১১ বলে প্রথম রান পেলে‌ও স্বমুর্তি ধারণ করতে সময় নেননি। ৫১ বলে করেন সেঞ্চুরি। এবারের আইপিএলে এটি ‌ওয়াটসেনর দ্বিতীয় শতরান। শেষ পর্যন্ত ৫৭ বলে ১১ চার আর ৮ ছক্কায় ১১৭ রানে শিরোপা জেতানো ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন এই অজি ব্যাটসম্যান। সুরেশ রায়না ৩২ রান করে সাজঘরে ফেরেন। আর অম্বাতি রাইডু ১৬ রানে অপরাজিত থাকেন।

https://www.iplt20.com/video/144838

মুম্বাইয়ের ‌ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে, ফাইনাল ম্যাচে টসে জিতে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠান ক্যাপ্টেন কুল মহেন্দ্র সিংহ ধোনি। ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে পরে ব্যাট করা দলের জেতার নিয়ম হয়ে গিয়েছে। ধোনিও সেই কারণেই প্রতিপক্ষকে ব্যাট করতে পাঠান।

ব্যাট করতে নেমে রান আউট হয়ে ফেরেন ফাইনালে সুযোগ পাওয়া শ্রীবৎস গোস্বামী। চোটের কারণে ঋদ্ধিমান সাহা খেলতে পারেননি। এর পর আক্রমণাত্মকভাবেই ইনিংসের হাল ধরেন শিখর ‌ও উইলিয়ামসন। উইলিয়ামসন ৪৭ রানে ফিরতেই রান রেট কিছুটা কমে যায় হায়দ্রাবাদের। আউট হয়ে যান শাকিবও(২৩)। কিন্তু ইউসুফ পঠানের মারকাটারি ৪৫ এবং কার্লোস ব্রাথওয়েটের ঝড়ো ২১ রান হায়দ্রাবাদকে ১৭৮ রানের একটি সম্মানজনক স্কোর এনে দেয়। এই রান যে শিরোপা জেতার জন্য যথেষ্ট ছিল না পরে চেন্নাইয়ের ব্যাটসম্যানরা তা প্রমান করেন।

রিয়াল মাদ্রিদের হ্যাটট্রিক শিরোপা

গ্যারেথ বেলের জোড়া গোলে লিভারপুুলকে ৩-১ গোলে হারিয়ে উয়েফা চ্যাম্পিয়নস লিগের হ্যাটট্রিক শিরোপা জিতলো রিয়াল মাদ্রিদ। ২৫ মিনিটে কাঁধে চোট পেয়ে মোহাম্মদ সালাহ মাঠ ছাড়ার পর প্রথমে বেনজেমা আর পরে বেলের দুর্দান্ত দুই গোলে শিরোপা ঘরে তোলে স্প্যানিশ জায়ান্টরা। আর এ নিয়ে একমাত্র ফুটবলার হিসেবে চ্যাম্পিয়নস লিগের পাঁচ শিরোপার স্বাদ পেলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

৩০ তম মিনিটের এই ছবিটিই যেনো গোটা ম্যাচের প্রতীক। ম্যাচ শেষে যে কান্নায় ভেসেছেন লিভারপুলেরর খেলোয়াড়রা, ওই সময় সে অনুভুতি নিয়ে মাঠ ছেড়ে গেছেন, তাদের শিরোপা স্বপ্নের সবচেয়ে বড় নিয়ামক মোহাম্মদ সালাহ।

অথচ বেশ সাধারণ এক ট্যাকেলই মনে হয়েছিলো সেটিকে। এমনকি ফাউলের বাঁশিও বাজান নি রেফারি। কিন্তু তাতেই কাঁধে আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন সালাহ, ম্যাচ শেষে যা জানালো, বিশ্বকাপটাই শেষ হয়ে যেতে পারে এই মিশরীয়র।

কিয়েভের ফাইনালে প্রথম মিনিট পনেরো মাঠে যেনো ছিলো কেবল লিভারপুলই। কিন্তু সালাহ মাঠ ছাড়ার পর টনক নড়ে রিয়ালের। রক্ষণাত্মক ভঙ্গি ছেড়ে নিজেদের সহজাত খেলায় মন দেয় স্প্যানিশ ক্লাবটি। তবু প্রথমার্ধ গোলশূণ্য।

৫১ মিনিটে লিভারপুলের জার্মান গোলরক্ষক ক্যারিয়াস রীতিমত থালায় সাজিয়ে গোল উপহার দেন রিয়ালকে। করিম বেনজামের এক টোকাতেই এগিয়ে যায় লা ব্লাঙ্কোরা।

তবে ৪ মিনিট পরই সমতা ফেরায় লিভারপুল। সালাহ না থাকায় আক্রমণের দায়িত্ব যেনো দ্বিগুণভাবে কাঁধে তুলে নেন সাদিও মানে।

৬১ মিনিটে ইসকোর বদলি হিসেবে মাঠে নেমে তিন মিনিট পরই অবিশ্বাস্য গোল করেন গ্যারেথ বেল। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে বাইসাইকেল কিকে আবারো এগিয়ে দেন রিয়াল মাদ্রিককে।

৭০ মিনিটে সাদিও মানের শট গোল পোস্টে লেগে বেরিয়ে না গেলে সমতায় ফিরতে পারত লিভারপুল।
৮২ মিনিটে ক্যারিয়াসের আরেকটি ভয়াবহ ভুল লিভারপুলকে হারিয়ে দেয়। ২৫ গজ দূর থেকে আচমকা নেয়া গ্যারেথ বেলের শট এই জার্মানের হাত ফসকে চলে যায় জালে।

তাতে পাঁচ বছরের চতুর্থ বার আর প্রথম দল হিসেবে টানা তিনবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের নজির গড়লো রিয়াল। এই টুর্নামেন্ট তো এখন সত্যিই রিয়ালের টুর্নামেন্ট।

রিপোর্ট করেছেন ৩২ ফুটবলার

এশিয়ান গেমস ও সাফ ফুটবলের জন্য প্রাথমিকভাবে ৪৪ জন ফুটবলারকে ডাকা হয়েছিল। আজ শনিবার ছিল বাফুফেতে তাদের রিপোর্টিংয়ের দিন। আগামীকাল থেকে বিকেএসপিতে শুরু হবে তাদের আবাসিক ক্যাম্প। সেখানে খেলোয়াড়দের একনিষ্ঠ অনুশীলনের দিকে জোর দিতে বললেন বাফুফের সহ-সভাপতি ও জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ। প্রথম দিন রিপোর্টিংয়ে সবাই হাজিরা দেননি। এসেছিলেন ৩২ জন খেলোয়াড়। সাত জন আছেন লন্ডনে এবং দুজন বিকেএসপিতেই। বাকী তিন জনের মধ্যে দুই জনের পরীক্ষা ও অন্য জনের ইনজুরি।

বাফুফের বোর্ড সভায় খেলোয়াড়দের সঙ্গে মতবিনিময়ের পর নাবিল সাংবাদিকদের বলেন, জাতীয় দলের আবাসিক ক্যাম্প বিকেএসপিতে হবে। জুনের প্রথম সপ্তাহের শেষে প্রধান কোচ আসবে। অন্য দুজনের নিয়োগ প্রক্রিয়াও শেষ হবে। এরপরই তারা আসবে। আগামী চার মাস খেলোয়াড়রা একই সঙ্গে থাকবেন। তাই বাফুফের এই কর্মকর্তা অনুশীলন ও খেলার প্রতি মনোযোগ দিতে বলেছেন খেলোয়াড়দের, আগামী ৪ মাস একসঙ্গে থাকতে হবে ও কাজ করতে হবে। খেলায় একাগ্রচিত্তে তাদের সব মনোযোগ দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছি। খেলোয়াড়দের মধ্যে কোনও অঙ্গীকারের অভাব দেখছেন না নাবিল, খেলোয়াড়দের মধ্যে অঙ্গীকারবোধের কোনও অভাব নেই। আমাদের ডাকে এসে রিপোর্ট করেছে। তাদের বলেছি, সবাই দেশের ও নিজের জন্য খেলে। নিজের সুনামের জন্যও খেলে। খেলার জন্য খেলে। সবকিছু মিলিয়ে তাদের খেলতে বলা হয়েছে। শুধু দেশের জন্য তাদের খেলতে বলা হয়নি।

সাফ ফুটবল হবে দেশের মাঠে। সেটি মনে করিয়ে এই কর্মকর্তার আহ্বান, দেশে খেলব। এর আগে বাইরে এশিয়ান গেমস খেলা হবে। আরও বেশি চ্যালেঞ্জিং হবে। সেপ্টেম্বরে সাফ ফুটবলের আসরে হোম ম্যাচ খেলার সুবিধা থাকবে। সেটা মাথায় রেখে সমর্থকরা বেশি থাকবে। খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স দেখানোর সুযোগ সবার সামনে আরেও বেশি থাকবে। সেটাই ধারণা দিয়েছি তাদের।

এশিয়ান গেমস ও সাফ ফুটবলের অনুশীলন একই সঙ্গে হচ্ছে। এটাকে ইতিবাচক দিক হিসেবে দেখছেন নাবিল, আরও বেশি ভালো ও বড় টিম নিয়ে কাজ করতে পারব তত প্রতিভা আমাদের মধ্যে প্রস্ফুটিত করতে পারব। তাদের মধ্যেও সারাক্ষণ প্রতিযোগিতা বিরাজ করবে। আর আমরা প্রস্তুতির দিক দিয়ে পিছিয়ে নেই। কাতারে ও থাইল্যান্ডে ক্যাম্প হয়েছে। আমার ধারণা এগিয়ে আছি। জাতীয় দলের সাত জন খেলোয়াড়ের লন্ডন সফর নিয়ে এই কর্মকর্তার ব্যাখ্যা, আগে থেকে তাদের প্রোগ্রাম ঠিক করা ছিল। সেখানে আমরা ব্যাঘাত করতে চাইনি। এখন চলবে অ্যাসেসমেন্ট ও ফিটনেস । এখনও প্রধান কোচ যোগ দেয়নি। এখন যদি কারও ব্যক্তিগত প্রোগ্রাম থাকে, তাহলে ব্যাঘাত করা ঠিক নয়। তারা প্রোগ্রাম করে স্বতঃস্ফূর্ত মনে এসে ক্যাম্পে যোগ দিক।

ফুটবল লটারির ড্র

বাংলাদেশ ফুুটবল ফেডারেশন লটারিতে ৩০ লাখ টাকার প্রথম পুরস্কার জেতেছে চ ৬৪১৮১০ নম্বরের টিকিট। ফুটবল উন্নয়ন তহবিল সংগ্রহের জন্য তৃতীয়বারের মতো লটারি ছাড়ে বাফুফে। মোট ৫০ লাখ টাকার ৬১০টি পুরস্কার রয়েছে লটারিতে।

বাফুফে ভবনে লটারির ড্র অনুষ্ঠানে জানানো হয়, লটারির টিকিট বিক্রিতে আগেরবারের চেয়ে ভাল সাড়া পাওয়া গেছে। প্রত্যাশা অনুযায়ী টিকিটি বিক্রি হয়েছে। লটারিতে ৫ লাখ টাকার দ্বিতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত নম্বর ঙ ২৬৭৭৭৩। তৃতীয় পুরস্কার ২ লাখ টাকার নম্বর ঘ ২৬১২৯৯। লটারি বিক্রি থেকে পাওয়া অর্থ দেশের ফুটবল উন্নয়নে ব্যয় করা হবে বলে জানান, ফেডারেশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী।

রাশিয়া বিশ্বকাপের থিম সং

রাশিয়া বিশ্বকাপের অফিসিয়াল থিম সং প্রকাশ করেছে ফিফা। ‘লিভ ইট আপ’ শিরোনামে এই গানটি আগামী কিছুদিন মাতিয়ে রাখবে ফুটবল ভক্তদেরকে। হলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা ও পপ শিল্পী উইল স্মিথ, নিকি জ্যাম, ইরা ইস্ত্রোফি এবং ডিজে ডিপলোর মিলিত চেষ্টায় তৈরি হয় এই গানটি। আগামী ১৫ জুলাই বিশ্বকাপের ফাইনালে শিল্পীরা থিম সং-টি পারফর্ম করবেন।

১৯৬২ সালে চিলি বিশ্বকাপ থেকে এ পর্যন্ত যেসব থিম সং প্রকাশ করে ফিফা তারমধ্যে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা পায়, দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপে ল্যাটিন শিল্পী শাকিরার ‘ওয়াকা ওয়াকা’ গানটি। ফিফার সবকটি থিম সং-ই আলোচনার উত্তাপ ছড়ালেও এখনও পর্যন্ত জনপ্রিয়তায় সব কটিকে ছাড়িয়ে গেছে ‘ওয়াকা ওয়াকা’।

এবার রাশিয়া বিশ্বকাপের ‘লিভ ইট আপ’ গানটি ইংলিশ এবং স্প্যানিশ এই দুই ভাষায় গাওয়া হয়েছে। গানটি বিশ্বকাপ পর্যন্ত মাতিয়ে বেরাবে পৃথিবী জুড়ে। হলিউড তারকা উইল স্মিথ তো বিশ্বকাপের থিম সং করতে পারায় নিজেকে ভাগ্যবানই মনে করছেন।

তারপর ডিজে ও গীতিকার ডিপলোর স্টুডিওতে চলে সঙ্গীত শিল্পীদের গানের রিহার্সাল এবং আড্ডাবাজি। হাসি-ঠাট্টা এবং তর্কে-বিতর্কে এগিয়ে চলে সময়। এক সময় রূপ পায় ‘লিভ ইট আপ’। এবারের রাশিয়া বিশ^কাপের অফিসিয়াল থিম সং।

তবে “One life, live it up, cause you don’t live twice,” থিম সংটি রিকি মার্টিনের ওলে ওলে কিংবা শাকিরার ওয়াকা ওয়াকার জনপ্রিয়তাকে ছাড়িয়ে যেতে পারবে কিনা সেটা জানা যাবে কিছুদিনের মধ্যেই।

জিমির হ্যাটট্রিকে মোহামেডানের জয়

গ্রীন ডেল্টা প্রিমিয়ার হকি লীগে জয় পেয়েছে মোহামেডান ও এ্যাজাক্স স্পোর্টিং ক্লাব। মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে, রাসেল মাহমুদ জিমির হ্যাটট্রিকে বাংলাদেশ এসসিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে টানা দশম জয় পেয়েছে মোহামেডান।

খেলার ১০, ১৬ ও ১৮ মিনিটে গোল করে হ্যাটট্রিক পুরণ করেন জাতীয় দলের ফরোয়ার্ড জিমি। এদিকে দিনের প্রথম খেলায়, এ্যাজাক্স স্পোর্টিং ক্লাব ৫-৩ ব্যবধানে পরাজিত করে সাধারণ বীমাকে।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনাল ভেন্যু

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে আগামীকাল রাতে রিয়াল মাদ্রিদের মুখোমুখি হবে লিভারপুল। শিরোপা দ্বৈরথে এই দুই দলকে লড়তে হবে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের এনএসকে অলিম্পিস্কি স্টেডিয়ামে।

এই স্টেডিয়ামটিকে আবার অলিম্পিক ন্যাশনাল স্পোর্টস কমপ্লেক্সও বলা হয়। এর আগে ২০১২ সালে ইউরো চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনাল হয়েছিল এখানে। স্টেডিয়ামের দর্শকধারণ ক্ষমতা ৫০ হাজার ৭০ জন।

অভিনেতা হবেন রোনালদো

ফুটবল থেকে অবসর নে‌ওয়ার পর অভিনেতা হবেন পর্তুগাল ‌ও রিয়াল মাদ্রিদের তারকা ফরোয়ার্ড ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। স্পেনের টেলিভিশন জাগনসে জোসেফ পেডরেরোলের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে তিনি গতকাল বৃহস্পতিবার একথা জানান।
http://www.lasexta.com/programas/jugones/viku_201805245b06d4d90cf2748acf96ca3f.html

সেই সাক্ষাতকারে পাচবারের বিশ্বসেরা খেলোয়াড় রোনালদো ভবিষ্যত পরিকল্পনার পাশাপাশি তার মায়ের সম্পর্কে‌ও জানান। তবে রোনালদো প্রধান কোনো চরিত্রে অভিনয় করতে চাননা। তিনি বলেন, ‘ফুটবল ছাড়ার পর আমি অভিনেতা হতে চাই। আমি এ ব্যাপারে অনুশীলন‌ও করেছি, কারণ বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে ঘোষকের দায়িত্বে ছিলাম। তবে অভিনয়ের বিষয়ে আমার কোনো পড়ালেখা নেই। তাছাড়া আমি তো প্রধান কোনো চরিত্রে‌ও অভিনয় করতে চাইনা।’

আর গোল করার পর পর জার্সি খুলে উদযাপন করতে ভালবাসেন রোনালদো। কারণ হিসেবে জানান, এটা নারীরা ভালোবাসে। তিনি বলেন, ‘এটা নারীদের পছন্দ। আমার গার্লফেন্ড বলে তখন নাকি দারুণ লাগে আমাকে।’ অবশ্য যারা এমনটা বলে তারাই জানে কেন বলে, এ বিষয়ে আমার কোনো পছন্দ-অপছন্দ নেই।’

হেলিকপ্টারে করে অনুশীলনে নেইমার

অনুশীলনে নেমেছে ব্রাজিল দলও। রিও ডি জেনিরোর গ্রাঞ্জা কোমারি ট্রেনিং কমপ্লেক্সে এক সপ্তাহের অনুশীলন করবে তিতের দল। এরপরই সেলেসাওরা জুন মাসে প্রীতি ম্যাচ খেলার জন্য বিশ্ব ভ্রমণে রওনা দেবে।

বিশ্বকাপের হেক্সা জয়ের মিশনে নামা সেলেসাওদের সবাই ছিলেন অনুশীলনে। বিশ্বের সবচেয়ে দামী খেলোয়াড় নেইমার হেলিকপ্টারে করে অনুশীলন ক্যাম্পে আসেন। সঙ্গে ছিলেন ডগলাম কস্টা, রেনাতো আউগাস্তো এবং থিয়াগো সিলভা। ফিটনেস পরীক্ষার মধ্যদিয়ে অনুশীলন শুরু হয়।

তবে দলের কোচ তিতে এবং সাপোর্টিং স্টাফদের নজর ছিলো নেইমারের দিকে। গত ফেব্রুয়ারিতে পায়ের ইনজুরিতে পড়ার পর থেকে এখনও খেলতে নামেননি এই ব্রাজিলিয়ান ও প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ের ফরোয়ার্ড। তবে গত সপ্তাহেই তিনি পিএসজির মাঠে বল পায়ে অনুশীলনে নেমেছিলেন।

বিশ্বকাপ দলের অনুশীলনে মেসি

আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দিয়েছেন অধিনায়ক ‌ও পাচবারের বিশ্বসেরা খেলোয়াড় লি‌ওনেল মেসি। বিশ্বকাপ দলের সঙ্গে বার্সেলোনার সুপারস্টারের যোগ দে‌ওয়ার বিষয়টি আর্জেন্টিনা আজ মঙ্গলবার নিশ্চিত করেছ। বুয়েন্স আইরেসে হোর্হে সাম্পা‌ওলির দল শুরু করেছে এই অনুশীলন ক্যাম্প।

নিজের ক্লাব বার্সেলোনাকে ঘরোয়া ফুটবলে দুটি শিরোপা এনে দেয়া আর্জেন্টিনার মহাতারকা মেসি ৩৪ গোল করে রেকর্ড পঞ্চমবারের মতো ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শ্যূ জেতেন। বুয়েন্স আইরেসের এজাইজাতে আগে থেকেই বিশ্বকাপ দলের ১৬ খেলোয়াড় নিয়ে অনুশীলন ক্যাম্প পরিচালনা করছিলেন কোচ সম্পাওলি। মেসি যোগ দেওয়ায় ক্যাম্প আরো প্রাণ পেলো।

আগামী ১৬ জুন গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নবাগত আইসল্যান্ডের বিপক্ষে লড়বে লি‌ওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। ডি গ্রুপে ২০১৪ সালের ফাইনালিস্টদের অন্য প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া ‌ও নাইজেরিয়া।

রাশিয়া বিশ্বকাপে বল গার্ল

রাশিয়া বিশ্বকাপে ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েরা‌ও বল বয়ের কাজ করবে। এবার উদ্বোধনী ম্যাচেই বল বয়ের মতো বল গার্লের কাজ করবে তাতারিস্তানের আগরিজের (Agryz) ফুটবল দলের মেয়েরা। বিশ্বকাপের উদ্বোধনী খেলা দিয়েই প্রথমবারের মতো নারীরা, ছেলেদের মতো মাঠের বাইরে বল কুড়িয়ে ফেরত দেবে।

উদ্বোধনী ম্যাচের জন্য বাছাই করা সেই বালিকারা গত বৃহস্পতিবার কাজানে ট্রফি ট্যুরে অংশ নেয়। দেশব্যাপি এক প্রতিযোগিতার মধ্য থেকে এইসব বালিকাদের বল বয় হিসেবে বাছাই করা হয়। ১৩ থেকে ১৬ বছর বয়সী অপেশাদার নারী ফুটবল খেলোয়াড়দের মধ্য থেকে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। আর গত সপ্তাহের শুরুতে ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

অবশ্য সাধারণ ছেলেরাই বল বয়ের কাজ করে আসে। কিন্তু এবার বিশ্বকাপ ফুটবলের উদ্বোধনী দিনে দেখা যাবে নতুন দৃশ্য। আগামী ১৪ জুন লুঝনিকি স্টেডিয়ামে, স্বাগতিক রাশিয়া এবং সৌদি আরবের মধ্যকার খেলার দিয়ে নতুন ইতিহাস রচিত হবে ফুটবলে। তা হলো, প্রথমবারের মতো নারীরা নামবে বল বয় হিসেবে।

পৃথিবীর ছয়টি মহাদেশের ৫১টি দেশের ৯১টি শহরে তিনমাসের ভ্রমণ শেষে রাশিয়ায় পৌছেছে ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি। তাছাড়া স্বাগতিক রাশিয়ার ১৬টি শহর এবং ১৬ হাজার কিলোমিটার (৯,৯০০ মাইল) ঘুরেছে বিশ্বকাপ ট্রফি। মেয়েদের বল বয়ের কাজ করার মতো স্বাগতিক দেশে দীর্ঘ ট্রফি ট্যুর করে নতুন রেকর্ড‌ও গড়ে এবারের ফিফা বিশ্বকাপ ট্রফি।

শিরোপা উল্লাস করছে অ্যাথলেটিকো

ফ্রান্সের লিওঁতে গত বুধবার রাতে ইউরোপা লিগের ফাইনাল ৩-০ গোলে জিতেছে দিয়েগো সিমেওনের দল অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। শেষ নয় বছরে এই নিয়ে তৃতীয়বার ইউরোপিয় ক্লাব ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হলো অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। ২০০৯-১০ ও ২০১১-১২ মৌসুমে আগের শিরোপা দুটি জিতেছিল মাদ্রিদের দলটি। দেশে ফিরে গিয়ে এখন তারা শিরোপা উল্লাস করছে।

ইউরোপা চ্যাম্পিয়ন অ্যাথলেটিকো

ফ্রান্সের লিওঁতে বুধবার রাতে ইউরোপা লিগের ফাইনাল ৩-০ গোলে জিতেছে দিয়েগো সিমেওনের দল। শেষ নয় বছরে এই নিয়ে তৃতীয়বার ইউরোপিয় ক্লাব ফুটবলের দ্বিতীয় সেরা প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হলো অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। ২০০৯-১০ ও ২০১১-১২ মৌসুমে আগের শিরোপা দুটি জিতেছিল মাদ্রিদের দলটি।

গ্রিজম্যান: ইউরোপা লিগ জয়ের পর স্ত্রীকে আদর করছেন

প্রতিপক্ষের ভুলে খেলার ২১ মিনিটে গোল পায় অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ। নিজেদের ডি-বক্সের সামনে গোলরক্ষকের পাস মিডফিল্ডার জাম্বো আগিসা নিয়ন্ত্রণে নিতে ব্যর্থ হলে গাবি বল ধরে বাড়ান গ্রিজমানকে। দ্রুত ডি-বক্সে ঢুকে নিচু শটে দলকে এগিয়ে দেন ফরাসি এই ফরোয়ার্ড।

দ্বিতীয়ার্ধের চতুর্থ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন গ্রিজমান। কোকের পাস ডি-বক্সে পেয়ে কিছুটা এগিয়ে সঙ্গে লেগে থাকা ডিফেন্ডারকে কোনো সুযোগ না দিয়ে আগুয়ান গোলরক্ষকের ওপর দিয়ে জালে বল পাঠান তিনি। চলতি মৌসুমে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে গ্রিজমানের এটা ২৯তম গোল।

৮৯ মিনিটে কোকের পাস ডি-বক্সে পেয়ে নিখুঁত কোনাকুনি শটে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে শিরোপা নিশ্চিত করেন অ্যাথলেটিকোর অধিনায়ক গাবি।

নিষেধাজ্ঞার কারণে ডাগআউটে ছিলেন না দলের কোচ দিয়েগো সিমিওনে। তবে ম্যাচ শেষের সঙ্গে সঙ্গে নেমে আসেন মাঠে, যোগ দেন শিরোপা উৎসবে। ২০১২ সালে তার অধীনেই এই প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় শিরোপাটি জিতেছিল অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ।

প্রীতি ম্যাচে বার্সেলোনার জয়

প্রীতি ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকার দল মামেলোডি সানডাউনকে ৩-১ গোলে পরাজিত করেছে স্প্যানিশ চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা। নেলসন ম্যান্ডেলার জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আয়োজিত এই প্রীতি ম্যাচটি খেলতে বুধবার সকালে দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে পৌছায় কাতালানরা।

দারুণ নৈপুণ্যে স্বাগতিকদের মামেলোডি সানডাউনকে ধরাশায়ী করে আবার রাতেই স্পেনে ফেরে বার্সেলোনা।

এফএনবি স্টেডিয়ামে, খেলার তিন মিনিটে বার্সাকে এগিয়ে দেন উসমান দেম্বেলে। ১৯ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন লুইস সুয়ারেজ। ৬৭ মিনিটে আন্দ্রে গোমেজ বার্সেলোনাকে ৩-০ গোলে এগিয়ে দেন।

খেলার ৭৬ মিনিটে মামেলোডি সানডাউনের পক্ষে একটি গোল শোধ করেন শিবুসিশো ভিলাকাজি। আর এই ম্যাচটি উপভোগ করার জন্য স্টেডিয়ামে উপস্থিত ছিলেন ৭৬ হাজার দর্শক।

জেমকন গলফে সেরা জামাল হোসেন মোল্লা

১১ লাখ টাকা প্রাইজমানির জেমকন প্রফেশনাল গলফ টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছেন জামাল হোসেন মোল্লা। তিনি পারের চেয়ে ১২ শট কম খেলে ২৭৬ স্কোর করে শিরোপা জয় করেন। ৫ আন্ডার পারে ২৮৩ স্কোর করে রানার্সআপ হন বাদল হোসেন।

চারদিনের এই প্রতিযোগিতা শেষে কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বিরেন শিকদার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিপিজিএ’র সভাপতি আসিফ ইব্রাহিম ও মহাসচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) কামরুল ইসলাম। এবারের প্রতিযোগিতায় ৭৮ জন প্রফেশনাল এবং ১২ জন অ্যামেচার মিলিয়ে মোট ৯০ জন গলফার অংশ নেন।

এ বছর হচ্ছেনা বিপিএল

জাতীয় নির্বাচনের কারণে এ বছর আর হচ্ছেনা বিপিএলের ষষ্ঠ আসর। রাজধানীর এক হোটেলে আনুষ্ঠানিকভাবে এ কথা জানান, বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক।

তিনি বলেন, সরকারের নিরাপত্তা সংস্থাগুলোর সাথে কথা বলে আগামী বছরের জানুয়ারীতে বিপিএল আয়োজন করতে চান তারা। সেক্ষেত্রে ঐ সময়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের সূচী থাকলেও তাতে পরিবর্তন আসবে বলে‌ও জানান ইসমাইল হায়দার মল্লিক।

গর্ডন গ্রিনিজ সংবর্ধিত

খেলোয়াড়দের অদম্য ইচ্ছে শক্তি আর তাদের প্রতি দেশের মানুষের অগাধ আস্থার কারণেই ১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জিতে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে খেলা নিশ্চিত করেছিলো বাংলাদেশ। এমনটাই মনে করেন কিংবদন্তি ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যান ও সে সময়ে বাংলাদেশ দলের হেড কোচ গর্ডন গ্রিনিজ।

পাঁচ দিনের সফরে ঢাকায় আসা এই সাবেক কোচ জানালেন, বাংলাদেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের খেলাটির প্রতি চরম ভালোবাসাই এদেশে ক্রিকেটের অগ্রযাত্রায় বড় বূমিকা রাখছে। তাই সমর্থকদের কাছ থেকে তার প্রত্যাশা অনেক। দুপুরে রাজধানীতে গর্ডন গ্রিনিজের সম্মানে আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা জানান তিনি।

সুইডেনের ম্যালকম কোকোসিনস্কি চ্যাম্পিয়ন

সুইডেনের পেশাদার গলফার ম্যালকম কোকোসিনস্কি তিন লাখ ডলারের বাংলাদেশ ওপেন গলফ চ্যাম্পিয়নশীপের শিরোপা জিতেছেন। প্রতিযোগিতার শেষে দিনে পারের চেয়ে ছয় শট কম খেলেন তিনি।

চার রাউন্ড মিলিয়ে পারের চেয়ে ১৪ শট কম খেলে ২৭০ স্কোর করে চ্যাম্পিয়ন হন, ম্যালকম। ইংল্যান্ডের জ্যাক হ্যারিসন ও নিউজিল্যান্ডের বেন ক্যাম্পবেল পারের চেয়ে ১১ শট কম খেলে যৌথভাবে দ্বিতীয় হন। বাংলাদেশের জামাল হোসেন মোল্লা ও যুক্তরাষ্ট্রের জন ক্যাটলিন পারের চেয়ে ৯ শট কম খেলে মিলিতভাবে তৃতীয় হন।

কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে খেলা শেষে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করেন, সেনাবাহিনী প্রধান ও বাংলাদেশ গলফ ফেডারেশনের সভাপতি জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন গলফ ফেডারেশনের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর জেনারেল একেএম আব্দুল্লাহিল বাকী, মহাসচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কাজী শামসুল ইসলাম ও অন্যান্য কর্মকর্তারা।

মিডিয়া কাপ ফুটবলে ঢাকা ট্রিবিউন চ্যাম্পিয়ন

ওয়ালটন-বিএসজেসি মিডিয়া কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় আসরে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ঢাকা ট্রিবিউন। আজ শনিবার প্রতিযোগিতার ফাইনালে ৪-২ গোলে বিডিনিউজকে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো শিরোপা জিতে নেয় তারা।

হ্যান্ডবল স্টেডিয়ামে, ম্যাচের শুরুতে কিক অফেই রিয়েলের গোলে এগিয়ে যায় ঢাকা ট্রিবিউন। প্রথম মিনিটে রিয়েল আরও একটি গোল করলে ২-০ তে পিছিয়ে পড়ে খেই হারায় বিডিনিউজ। প্রথমার্ধের শেষ মিনিটে হ্যাটট্রিক পুর্ন করেন রিয়েল। অবশ্য মাইদুল একটি গোল করলে ৩-১ এ এগিয়ে বিরতিতে যায় উভয় দল।

দ্বিতীয়ার্ধে মরিয়া হয়ে গোল পরিশোধের চেষ্টা করে বিডিনিউজ। কিন্তু অপ্রতিরোধ্য রিয়েল নিজের চতুর্থ গোল করলে আরো এগিয়ে যায় ঢাকা ট্রিবিউন। নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার মিনিট খানেক আগে মাইদুল তার দ্বিতীয় গোল করে শুধু ব্যবধানই কমান। শেষ পর্যন্ত ৪-২ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ঢাকা ট্রিবিউন।

চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলকে ট্রফির পাশাপাশি ৩০ ও ২০ হাজার টাকার প্রাইজমানি দেয়া হয়। ফাইনাল সেরা ঢাকা ট্রিবিউনের রিয়েলকে ট্রফি ও ৫ হাজার টাকা এবং বিডিনিউজের মাইদুলকে টুর্নামেন্ট সেরার ট্রফি ও ৫ হাজার টাকা অর্থপুরস্কার দেয়া হয়।

খেলা শেষে বিজযী ‌ও বিজিত দলকে পুরস্কৃত করেন যুব ও ক্রীড়া উপমন্ত্রী আরিফ খান জয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএসজেসি সভাপতি আসিফ ইকবাল, ওয়ালটনের সিনিযর অপারেটিভ ডিরেক্টর এফ এম ইকবাল বিন আনোয়ার ডন, জাতীয় দলের সাবেক ফুটবলার ইকবাল হোসেন, জাতীয় ব্যাডমিন্টনের সাবেক চ্যাম্পিয়ন এনায়েত উল্লাহ খান ‌ও বিএসজেসির সাধারণ সম্পাদক সাকির রুবেন।

প্রীতি ম্যাচে টাঙ্গাইলের জয়

প্রীতি ফুটবল ম্যাচে টাঙ্গাইল অনূর্ধ্ব-১৪ দল ৪-০ গোলে ঠাকুরগাঁও জেলা মহিলা ফুটবল দলকে পরাজিত করেছে। আজ শুক্রবার বিকেলে টাঙ্গাইলের গোসাই জোয়াইর আজিম মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে, জেএফএ অনূর্ধ্ব-১৪ জাতীয় নারী ফুটবল টুর্নামেন্টের দুই ফাইনালিস্ট টাঙ্গাইল জেলা নারী ফুটবল দল ও ঠাকুরগাঁও জেলা নারী ফুটবল দলকে নিয়ে প্রীতি ম্যাচের আয়োজন করে ‌ওয়ালটন।

খেলার শুরুতে ওয়ালটন গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান এস.এম নূরুল আলম রেজভী, টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক নেছার উদ্দিন জুয়েল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আহাদুজ্জামান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম ‌ও ওয়ালটন গ্রুপের সিনিয়র অপারেটিভ ডিরেক্টর ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন) উপস্থিত থেকে খেলার উদ্বোধন করেন।

এসময় আয়োজকরা বলেন, দেশের নারী ফুটবলকে আরো ছড়িয়ে দিতেই তাদের এমন আয়োজন। শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলায় মনোনিবেশ করার জন্যও তাদের এমন আয়োজন অব্যাহত থাকবে।

পুরস্কারে ভাসছেন সালাহ

পুরস্কারে ভাসছেন লিভারপুলের মিশরীয় স্ট্রাইকার মোহাম্মদ সালাহ। চলতি মৌসুমে লিভারপুলের হয়ে ৫০ ম্যাচে ৪৩ গোল করে পুরো ফুটবল বিশ্বকে অবাক করে দেন মিশরীয় কিং। পুরো মৌসুমে দারুণ খেলেছেন। অসাধারণ পারফরম্যান্সে লিভারপুলকে ইংলিশ লিগের শিরোপা জেতাতে না পারলেও সেরাদের লড়াইয়ে রেখেছেন। তবে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে তুলেছেন। ভাগ্য সহায়তা করলে মোহাম্মদ সালাহর হাতে উঠতেও পারে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা।

গ্যারি লিনেকারের সঙ্গে মোহাম্মদ সালাহ

চেলসির প্রাক্তন এ ফরোয়ার্ড সাফল্যের পুরস্কার পাচ্ছেন প্রতিটি মুহূর্তে। বৃহস্পতিবার রাতে তার হাতে উঠেছে তিনটি পুরস্কার। লিভারপুলের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি, খেলোয়াড়দের ভোটে প্লেয়ার্স প্লেয়ার অব দ্য সিজনের পুরস্কার পান সালাহ।

লিভারপুলের অনুষ্ঠান শেষ করে লন্ডনে উড়াল দেন সালাহ। সেটাও প্রাইভেট জেটে। লন্ডনে তাকে পুরস্কৃত করে ফুটবল রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশন। রেকর্ড ভোট পেয়ে ফুটবল রাইটার্স অ্যাসোসিয়েশনের বর্ষসেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন সালাহ। এ পুরস্কার পেতে সালাহ পিছনে ফেলেছেন ম্যানচেস্টার সিটির কেভিন ডি ব্রুইন এবং টটেমহ্যাম হটস্পারের হ্যারি কেনকে। এর আগে এপ্রিলে পেশাদার ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও পেয়েছেন সালাহ।

চলতি মৌসুমেই রোমা থেকে ৩৬.৯৬ মিলিয়ন ইউরোতে লিভারপুলে যোগ দেন মিশরীয় কিং মোহাম্মদ সালাহ।

দ্বিতীয় রাউন্ড শেষে শীর্ষে বাংলাদেশের জামাল

বাংলাদেশ ওপেন আন্তর্জাতিক গলফ টুর্নামেন্টর দ্বিতীয় রাউন্ড শেষে শীর্ষে উঠে এসেছেন বাংলাদেশের গলফার জামাল হোসেন। পারের চেয়ে ৮ শট কম খেলেছেন তিনি।

দিন শেষে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন আত্মবিশ্বাস ছিল তাই ভাল করতে পেরেছেন তিনি। তৃতীয় রাউন্ডেও এই ফললাফল ধরে রাখতে চান জামাল হোসেন। ১০ নম্বর হোলে পারের সমান শট খেললেও ১১, ১২ ও ১৩ নম্বরে পারের চেয়ে এক শট কম খেলে দারুণ সূচনা করেন জামাল।

এদিকে, সুইডেনের গলফার ম্যালকম কোকোসিনস্কিও পারের চেয়ে ৮ শট কম খেলে যৌথভাবে শীর্ষে রয়েছেন। বাংলাদেশের প্রথম পেশাদার গলফার সিদ্দিকুর রহমান পারের চেয়ে দুই শট কম খেলে আছেন ২৫ নম্বরে।

স্টেফানের মিয়ামি জয়

ইউএস ‌ওপেন চ্যাম্পিয়ন স্লোয়ানি স্টেফান এবার মিয়ামি ‌ওপেন টেনিসের শিরোপা জিতলেন। প্রতিযোগিতার ফাইনালে লাটভিয়ার জেলেনা ‌ওস্তাপেঙ্কোকে ৭-৬, ‌ও ৬-১ গেমে পরাজিত করে স্ল‌োয়ানি মিয়ামি ‌ওপেনে প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন হলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টেফান শুরুর দিকে কিছুটা টেনসনে ছিলেন। তাতে প্রথম সেটে আটবার ‌ওস্তাপেঙ্কো এগিয়‌েও যান। তবে শেষ পর্যন্ত তিনি টাইব্রেকারে ৭-৬ গেমে প্রথম সেট জেতেন।

দ্বিতীয় সেটে পুরো ছন্দে ফেরেন স্লোয়ানি। ‌ওয়ার্ল্ড নাম্বার ‌ফাইভ ‌ওস্তাপেঙ্কোকে তিনি কোনো পাত্তাই দেননি আর। ৬-১ গেমের জয়ে শিরোপা জেতেন।

অবশ্য এই দুই গ্র্যান্ডস্ল্যাম জয়ীর এটাই প্রথম সাক্ষাত ছিল। মিয়ামি ‌ওপেন শিরোপা জেতার পথে স্লোয়ানি সাবেক তিনজন গ্র্যান্ডস্ল্যাম চ্যাম্পিয়নকে পরাস্ত করেন।

বাংলাদেশের ইব্রাহিমের প্রথম স্বর্ন জয়

তৃতীয় দক্ষিণ এশিয়ান আরচ্যারী চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ দিনে স্বাগতিক বাংলাদেশের ইব্রাহিম প্রথম স্বর্ন জিতলেন। বিকেএসপিতে, আজ মঙ্গলবার পুরুষ ব্যাক্তিগত রিকার্ভ ইভেন্টে, স্বাগতিক দলের আরেক প্রতিযোগী রুমান সানাকে ৬-২ সেট পয়েন্টে পরাজিত করে স্বর্ন পদক জেতেন, ইব্রাহিম শেখ রেজওয়ান।

সাউথ এশিয়ান আরচারী চ্যাম্পিয়নশিপে ইব্রাহিম শেখ রেজওয়ান

প্রথম স্বর্ণ জয়ের অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে ইব্রাহিম বলেন, প্রতিটা তীর মারার সময় বুকের মধ্যে কাঁপ ছিলো। রুমান ভাইকে হারাতে পারবো ভাবতেও পারিনি। গতকাল থেকেই ভাবছিলাম আমি আমার মত খেলবো এবং রৌপ্য পদক পাবো। কিন্তু মাঠে ঘটনা বদলে যায়। খুব ভাল লাগছে ভাল লাগছে যে আমার হাত দিয়ে এবারের ৩য় সাউথ এশিয়ান আরচারী চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম স্বর্ণটি পেল বাংলাদেশ।
খেলা শেষে দুজনকেই অভিনন্দন জানান ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক কাজী রাজিব উদ্দিন আহমেদ চপল।

দক্ষিণ এশিয়ান আরচ্যারী চ্যাম্পিয়নশিপের শেষ দিনে ১০টি স্বর্ণ, ১০টি রৌপ্য ও ১০ ব্রোঞ্জ পদক জয়ের লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের প্রতিযোগিতা।

প্রীতি ম্যাচে ব্রাজিলের জয়

১৩ মিনিটে তিন গোলে, শুক্রবার রাতে মস্কোয় প্রীতি ম্যাচে এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের স্বাগতিক রাশিয়াকে ৩-০ ব্যবধানে পরাজিত করেছে সবার আগে বিশ্বকাপের মূল পর্বে ওঠা ব্রাজিল। গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর মিরান্দা, কুটিনহো এবং পাওলিনহোর কল্যাণে জয় পায় সেলেসা‌ওরা। চলতি বছর এটি ব্রাজিলের প্রথম জয়।

শুরুতে কিছুটা ছন্দহীন ব্রাজিল দ্রুতই নিজেদের খুঁজে পায়। একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে তারা; কিন্তু শেষটা ভালো হচ্ছিল না। প্রথমার্ধে দুই-তৃতীয়াংশের বেশি সময় বল দখলে রেখেও তাই প্রতিপক্ষের গোলরক্ষককে বড় কোনো পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি তিতের দল।

২৫ মিনিটে ডি-বক্সের বাইরে থেকে কুটিনহোর জোরালো ঠেকিয়ে দিতে কোন সমস্যাই হয়নি রাশিয়ান গোলরক্ষকের। দুই মিনিট পর গোল করার সুযোগ পেয়ে ব্যর্থ হন উইলিয়ান।

বিরতির আগে সেরা সুযোগটি অবশ্য পায় স্বাগতিকরা। ৩৭ মিনিটে ১০ গজ দূর থেকে উড়িয়ে মারেন মিডফিল্ডার আলেকসেই মিরানচুক।

দ্বিতীয়ার্ধের তৃতীয় মিনিটে ডি-বক্সের মধ্যে থেকে পাওলিনহোর নেওয়া শট ঠেকান ইগর আকিনফিভ। চার মিনিট পর ব্রাজিলের আরেকটি প্রচেষ্টা গোলরক্ষকের মাথায় লেগে বাইরে চলে যায়।

৫৩ মিনিটে অপেক্ষা শেষ হয় ব্রাজিলের। ডান দিক থেকে উইলিয়ানের ক্রসে সিলভার হেড ঝাঁপিয়ে ঠেকান গোলরক্ষক; কিন্তু ফিরতি বল জালে জড়িয়ে ব্রাজিলকে ১-০ গোলে এগিয়ে দেন ইন্টার মিলানের ডিফেন্ডার মিরান্দা।

৬২ মিনিটে পেনাল্টি থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন বার্সেলোনার মিডফিল্ডার কুটিনহো। নিজেদের ডি-বক্সে পাওলিনহোকে রাশিয়ান খেলোয়াড় ফাউল করলে, পেনাল্টি পায় অতিথিরা। স্পট কিকে দলকে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে দেনকুটিনহো।

এই গোলের চার মিনিট পর উইলিয়ানের ক্রসে মাথা ছুইয়ে দলের পক্ষে তৃতীয় গোলটি করেন বার্সেলোনার আরেক মিডফিল্ডার পাওলিনহো।

বিশ্বকাপ ফুটবলের পরবর্তী প্রীতি ম্যাচে আগামী মঙ্গলবার বার্লিনে, ব্রাজিল মুখোমুখি হবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানির। আর সেন্ট পিটার্সবার্গে একই দিনে রাশিয়া লড়বে ফ্রান্সের বিপক্ষে।

চেলসিকে বিদায় করে কোয়ার্টারে বার্সা

চ্যাম্পিয়ন্স লিগে লি‌ওনেল মেসির শততম গোলের দিনে চেলসিকে বিদায় করে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠেছে স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনা। ন্যূ কাম্পে, মেসির জোড়া গোলে ইংলিশ দল চেলসিকে হারায় তারা ৩-০ ব্যবধানে। তাতে ৪-১ গোল গড়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার-ফাইনালে উঠলো বার্সেলোনা।

অবশ্য কোয়ার্টার ফাইনালে ‌ওঠার সমীকরণটা ছিলো খুব সোজা। চেলসির ম্যাঠে ১-১ গোলে প্রথম পর্বে ড্র করায় যে দল জিতবে সে-ই পাবে শেষ আটের টিকিট। এমন হিসেবের ম্যাচে, মাত্র তৃতীয় মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন মেসি। ডান দিক থেকে আক্রমণে ওঠা এই তারকা ফরোয়ার্ড দেম্বেলের সঙ্গে পাস দেওয়া-নেওয়ার চেষ্টায় ছিলেন; কিন্তু সতীর্থের বাড়ানো বল মার্কো আলোনসোর পায়ে লেগে চলে যায় সুয়ারেসের কাছে। উরুগুয়ে স্ট্রাইকারের ফিরতি পাস পেয়ে বাইলাইনের কাছ থেকে ডান পায়ে শট নেন মেসি। বল গোলরক্ষকের দুপায়ের মধ্যে দিয়ে জড়ায় জালে।

দ্বিতীয় গোলও নিজেদের ভুলে হজম করে চেলসি। খেলার ২০ মিনিটে মাঝমাঠে সেস ফাব্রেগাসের ভুলে বল পেয়ে যান মেসি। একজনকে কাটিয়ে, আরেক জনকে দারুণ ক্ষিপ্রতায় এড়িয়ে ডি-বক্সে ঢুকে ডান দিকে ডেম্বেলেকে পাস দেন। জোরালো শটে দূরের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ফরাসি ফরোয়ার্ড। বার্সেলোনার হয়ে এটাই তার প্রথম গোল।

বিরতির ঠিক আগে ব্যবধান কমাতে পারত চেলসি। কিন্তু মার্কো আলোনসোর নেওয়া ফ্রি-কিক পোস্টে লাগলে আর ফেরা হয়নি তাদের।

উল্টো বিরতি থেকে ফিরে খেলার ৬৩ মিনিটে সুয়ারেসের কাছ থেকে বল পেয়ে কোনাকুনি শটে আবার‌ও চেলসির গোলকিপার কর্তোয়ার দুপায়ের ফাঁক দিয়ে বল জালে পাঠান পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের এবারের আসরে এটা তার ষষ্ঠ ও সব মিলিয়ে ১০০তম গোল।

বার্সেলোনা ছাড়া‌ও কোয়ার্টার-ফাইনালে ওঠা বাকি দলগুলো হলো-গত দুবারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ, গতবারের রানার্সআপ জুভেন্টাস, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার সিটি, সেভিয়া, বায়ার্ন মিউনিখ ও রোমা।

শেষ আটে বায়ার্ন মিউনিখ

বড় জয় দিয়েই উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের শেষ আটে পৌছে গেলো বায়ার্ন মিউনিখ। বেসিকতাসের মাঠে বুধবার রাতে, ৩-১ ব্যবধানে হারায় তারা স্বাগতিক দলকে। অবশ্য প্রথম লেগে নিজেদের মাঠ আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায়, ৫-০ গোলের জয়ে কোয়ার্টার-ফাইনালের পথে এক পা দিয়েই রেখেছিলো তারা। এতে দুই লেগে ৮-১ ব্যবধানে জিতে কোয়ার্টার ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করলো জার্মান জায়ান্টরা। সেই সঙ্গে চলতি মৌসুমে শত গোল করার রেকর্ড‌ও ছুইলো বায়ার্ন।

খেলার ১৮ মিনিটে টমাস মুলারের বাড়ানো ক্রস ধরে নিখুঁত শটে লক্ষ্যভেদ করেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড চিয়াগো আলকানতারা।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুর দিকে আত্মঘাতী গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ হয়। বিপদমুক্ত করতে গিয়ে গোখান গোনুল নিজেদের জালেই বল জড়িয়ে দেন। ৫৯ মিনিটে ভাগনার লাভের গোলে ব্যবধান কমায় বেসিকতাস।

তবে খেলার ৮৪ মিনিটের গোলে জয় নিশ্চিত হয়ে যায় বায়ার্নের। সতীর্থের বাড়ানো ক্রস প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের গায়ে লাগার পর পেয়ে যান সান্ড্রো ভাগনার। ডি-বক্সের মাঝামাঝি থেকে দলকে তৃতীয় গোলটি পাইয়ে দেন জার্মানির এই ফরোয়ার্ড।

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালে ‌ওঠার পাশাপাশি জার্মান জায়ান্টরা সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে শত গোলের মাইলফলক‌ও স্পর্ম করলো। ৩৯ ম্যাচে তাদের গোল সংখ্যা বেড়ে এখন হলো ১০২ টি। তারমধ্যে ৬৫টি বুন্দেস লিগায়, ১৮টি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে, ১৪টি DFB Pokal কাপে, এবং DFL-Supercup ফাইনালে করেছে ২টি গোল। অবশ্য সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মোট ২৯টি গোল হজম করতে হয়েছে জাপ হেইঙ্কসের দলকে।

এবার ব্যাঙ্গালুরুর কাছে আবাহনীর হার

http://https://www.youtube.com/watch?v=NI1R7YlxlE8

ব্যাঙ্গালুরুর বিপক্ষে‌ও পারলো না আবাহনী। নিউ রেডিয়েন্টের মতো ব্যাঙ্গালুরু এফসি বিপক্ষেও পা‌ওয়া সুযোগগুলোর সঠিক ব্যবহার করতে না পারায় পরাজয় নিয়েই দেশে ফেরার টিকিট কাটতে হয় সাইফুল বারী টিটুর দলের। এএফসি কাপের ‘ই’ গ্রুপের ম্যাচে শ্রী কান্তেরাভা স্টেডিয়ামে ব্যাঙ্গালুরুর কাছে ১-০ গোলে পরাজিত হয় বাংলাদেশর দল আবাহনী।

নিজেদের মাঠ এএফসি কাপে গত নয় ম্যাচে আট জয় ও এক ড্রয়ের আত্মবিশ্বাস নিয়ে খেলতে নামা ব্যাঙ্গালুরু শুরু থেকে বলের নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে ছিল। কিন্তু পোস্টে শট নেওয়ার ক্ষেত্রে এগিয়ে ছিল গত এএফসি কাপে বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ভারতের দলটিকে ২-০ গোলে হারানো আবাহনী।

খেলার ১৪ মিনিটে ৪০ গজেরও বেশি দূর থেকে নেওয়া মামুন মিয়ার জোরালো শট অল্পের জন্য ক্রসবারের ওপর দিয়ে যায়। দুই মিনিট পর মামুনের ক্রসে জাপানি মিডফিল্ডার সেইয়া কোজিমার হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে আবাহনীর হতাশা বাড়ে।

প্রথমার্ধের শেষ দিকে ওয়ালী ফয়সালের ক্রসে আবাহনীর নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড এমেকা ডারলিংটনের হেড গোলের ঠিকানা খুঁজে পায়নি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে আবাহনীর রক্ষণে চাপ দিতে থাকে ব্যাঙ্গালুরু। ৪৯ মিনিটে ড্যানিয়েল লালহিলিমপুইয়ার শট ফেরান গোলরক্ষক শহিদুল ইসলাম সোহেল। ৫৩ মিনিটে ভিক্টর পেরেসের প্রচেষ্টা‌ও সফল হয়নি।

এলিসন উডোকার দুটি হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে আবাহনীর হতাশা আরও বাড়ে। ৫৮ মিনিটে ওয়ালীর ক্রসে এবং ৬৩ মিনিটে রুবেল মিয়ার বাড়ানো বলে হেড করেছিলেন নাইজেরিয়া এই ডিফেন্ডার।

৭২ মিনিটের সুযোগ কাজে লাগিয়ে এগিয়ে যায় ব্যাঙ্গালুরু। ড্যানিয়েল সেগোভিয়ার হেড করে বাড়ানো বল ডান পায়ের শটে জালে জড়িয়ে দেন ২০ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড লালহিলিমপুইয়া। শেষ পর্যন্ত এ গোলেই এএফসি কাপে শুভসূচনা করে ব্যাঙ্গালুরু। এর আগে, মালদ্বীপের দল নিউ রেডিয়েন্টের কাছে নিজেদের প্রথম ম্যাচে‌ও ১-০ ব্যবধানে হেরেছিল বাংলাদেশের জায়ান্ট আবাহনী।

থাইল্যান্ডকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিল বাংলাদেশ

ওমান থেকে এস এম আশরাফ

ওমানে এশিয়ান গেমস হকির বাছাইপর্বে থাইল্যান্ডকে ৫-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। ম্যাচের প্রথমার্ধে ২-০ গোলে এগিয়ে ছিলো মাহবুব হারুনের দল।

যতই ফেবারিটের তকমা থাকুক না কেনো। প্রথম ম্যাচে স্নায়ুর পরীক্ষা থেকেই যায়। সেই পরীক্ষায় ম্যাচের প্রথম মিনিট থেকেই বাংলাদেশ এগিয়ে গেলো দুর্বার গতিতে। ১৪ মিনিটে সরোয়ারের স্টিকে প্রথম আর ২৭ মিনিটে নিলয় দিলেন দ্বিতীয় গোল।

একদিকে আক্রমন অন্যদিকে প্লেসিং এই দুইয়ের মিশেলে দিশেহারা থাইল্যান্ডের রক্ষলভাগ। মিলন আর রোমানের স্টিক কথা বললে ৪৭ মিনিটে চার গোলে এগিয়ে যায় লাল সবুজের দল।

প্রথম আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা ইমন  প্রতিপক্ষকে কাপিয়েছেন। গোল পাননি তবে যোগান দিয়ে নেতৃত্ব দিয়েছেন জিমি। কথা বলেছে অভিজ্ঞ চয়নের স্টিকও। গোল হতে পারতো আরো গোটা চারেক। শেষ পর্যন্ত চয়নের স্টিকে বাংলাদেশ সন্তষ্ট ৫-০ ব্যবধান নিয়েই।

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি

তবু প্রথম ম্যাচ জয়ে সন্তষ্ট ম্যাচ সেরা জিমি। বললেন, আমরা একটি দল হিসেবে খেলতে চেয়েছি। মাঠে সেটা করে দেখাতে পেরেছি বলেই সবচেয়ে বেশি ভাল লাগছে। আমরা আসলে এমনটাই চেযেছিলাম। আর প্রথম ম্যাচ বলেই হয়তো সবার কাছে একটু অন্যরকম লাগছিল। তবে আমরা আরো ভাল খেলার আশা রাখি।

আগামীকাল রোববার দ্বিতীয় ম্যাচে হংকংয়ের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।

এজবাস্টনের বাংলাদেশের অনুশীলন

এজবাস্টনে আজ অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। কারণ বার্মিংহামের এই এজবাস্টন স্টেডিয়ামেই আগামীকাল প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে বাংলাদেশ দল মুখোমুখি হবে পাকিস্তানের। আগামী ৩০ মে দ্বিতীয় ও শেষ প্রস্তুতি ম্যাচে টাইগাররা মুখোমুখি হবে ভারতের। ম্যাচটি হবে লন্ডনের কেনিংটন ওভালে। এরপর আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির উদ্বোধনী ম্যাচে কেনিংটন ওভালেই স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচ খেলবে মাশরাফিরা।

*** বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের ভিডিও ফুটেজ ও মাশরাফির ইন্টারভিউ সংযুক্ত করা হলো। ***