পাকিস্তান সিরিজে নব রূপের বাংলাদেশ

পাকিস্তান সিরিজে নব রূপের বাংলাদেশ

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাজে পারফরমেন্সের পর দলে ব্যাপক পরিবর্তন এনেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। ঘরের মাঠে পাকিস্তানের বিপক্ষে আসন্ন তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য চার নতুন মুখসহ ছয়জন খেলোয়াড়কে দলে নেয়া হয়েছে।

বিসিবি জানিয়েছে, ইনজুরির কারণে দলে নেয়া হয়নি দুই অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান এবং মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনকে। বিশ্রাম দেয়া হয়েছে মুশফিকুর রহিমকে। দল থেকে বাদ পড়েছেন লিটন দাস, সৌম্য সরকার এবং পেসার রুবেল হোসেন। অথচ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে একটি ম্যাচও খেলেননি রুবেল।

বিশ্বকাপে খারাপ পারফরমেন্সের কারণে দলে জায়গা হয়নি লিটন ও সৌম্যের। তাদের পরিবর্তে দলে সুযোগ হয়েছে ব্যাটার নাজমুল হোসেন শান্ত ও লেগ-স্পিনার আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের। প্রথমবারের মতো দলে ডাক পেয়েছেন ব্যাটার সাইফ হাসান-ইয়াসির আলী চৌধুরী, পেসার শহিদুল ইসলাম এবং উইকেটরক্ষক আকবর আলী।

তারুণ্যনির্ভর এই ১৬ সদস্যের দলে দলে, অভিজ্ঞ খেলোয়াড় একজনই। তিনি হলেন- অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। বিশ্বকাপে দলের ব্যর্থতার পরও অধিনায়কত্ব ধরে রেখেছেন তিনি।

বাংলাদেশের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে ৯৯টি ম্যাচ খেলেছেন মুশফিকুর রহিম। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের পর দেশের হয়ে শততম ম্যাচ খেলার পথেই ছিলেন মুশি। তবে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানান, বাংলাদেশের আসন্ন ব্যস্ত আন্তর্জাতিক সূচির কারণে তাকে সতেজ রাখতে বিশ্রাম দেয়া হয়েছে।

আবেদিন বলেন, ‘মুশফিক আমাদের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়, বিশেষ করে বড় ফরম্যাটে এবং আমাদের পাকিস্তান ও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ব্যাক-টু-ব্যাক টেস্ট ম্যাচ রয়েছে। তাই আমরা তাকে বিশ্রাম দিয়েছি।’ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শ্রীলংকার বিপক্ষে ম্যাচে হাফ-সেঞ্চুরিতে সর্বমোট ৯৫ রান করেন মুশফিক। বিশ^কাপে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে যেভাবে আউট হয়েছেন তিনি, তাতে ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

আবেদিন বলেন, ‘যেহেতু তামিম ইকবাল ইতোমধ্যে ইনজুরিতে পড়েছেন, আমরা চাই আমাদের সেরা খেলোয়াড় মুশফিকুর রহিম টেস্ট সিরিজে সেরাটা দিবে। তাই টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনার পর আমরা তাকে বিশ্রাম দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তাকে পরে পাওয়া যাবে।’

আগামী ১৯ নভেম্বর থেকে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু করবে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান। দ্বিতীয় ও তৃতীয় টি-টোয়েন্টি হবে ২০ ও ২২ নভেম্বর। টি-টোয়েন্টি সিরিজের সবগুলো ম্যাচই হবে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এবং শুরু হবে বেলা ২টায়।

টি-টোয়েন্টি সিরিজ শেষে টেস্টের জন্য চট্টগ্রাম যাবে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান। সেখানে আগামী ২৬ নভেম্বর থেকে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু করবে দু’দল। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুুষ্ঠিত হবে প্রথম  টেস্টটি। দ্বিতীয় টেস্ট খেলতে এরপর  ঢাকায় ফিরবে বাংলাদেশ ও পাাকিস্তান। ৪ ডিসেম্বর থেকে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শুরু সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট।

বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দল : মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), সাইফ হাসান, নাইম শেখ, নাজমুল হোসেন শান্ত, আফিফ হোসেন, নুরুল হাসান সোহান, শেখ মাহেদি, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, মোস্তাফিজুর রহমান, শরিফুল ইসলাম, তাসকিন আহমেদ, শামীম হোসেন পাটোয়ারী, নাসুম আহমেদ, ইয়াসির আলি রাব্বি, শহিদুল ইসলাম এবং আকবর আলী।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD