ক্রোয়েশিয়াকে ২-১ গোলে পরাজিত করেছে ফ্রান্স

ক্রোয়েশিয়াকে ২-১ গোলে পরাজিত করেছে ফ্রান্স

ম্যাচের শেষ দিকে কিলিয়ান এমবাপ্পের গোলে বুধবার জাগ্রেবে নেশন্স লিগের ম্যাচে ক্রোয়েশিয়াকে ২-১ গোলে পরাজিত করেছে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স।

পিএসজি তারকা এমবাপ্পে এর আগে ম্যাচের শুরুতে গোলের সুযোগ নষ্ট করেছিলেন। কিন্তু ম্যাচ শেষের ১১ মিনিট আগে তার গোলেই ফরাসীদের জয় নিশ্চিত হয়। এর আগে ৮ মিনিটে আঁতোয়ান গ্রীজম্যানের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল সফরকারী ফ্রান্স। ৬৪ মিনিটে অবশ্য নিকোলা ভ্লাসিচ ক্রোয়েটদের হয়ে সমতা ফেরান।

দুই বছর আগে মস্কোতে বিশ্বকাপের ফাইনালে এই ক্রোয়েশিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়ে শিরোপা জিতেছিল ফ্রান্স। গত মাসে নেশন্স লিগের ম্যাচে প্যারিসে এই দুই দল যখন প্রথম মুখোমুখি হয়েছিল তখনো ফ্রান্স ৪-২ গোলে জয়ী হয়েছিল। রাশিয়া ফাইনালে পর এখনো পর্যন্ত ক্রোয়েশিয়ার কাছে কোন ম্যাচে পরাজিত হয়নি ‘লা ব্লু’রা। এই জয়ে ৪ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে এ- লিগের ৩ নম্বর গ্রুপে পর্তুগালের সাথে সমান পয়েন্ট সংগ্রহ করেছে ফ্রান্স। কিন্তু গোল ব্যবধানে এগিয়ে গ্রুপের শীর্ষস্থানটা ধরে রেখেছে পর্তুগীজরা।

গত বছরের নেশন্স লিগের চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল করোনায় আক্রান্ত তারকা ফরোয়ার্ড ক্রিস্টিয়ানো রোনাল্ডোকে ছাড়া কাল গ্রুপের আরেক ম্যাচে লিসবনে সুইডেনকে ৩-০ গোলে পরাজিত করেছে।

এখন বর্তমান ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল ও বিশ^ চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের মধ্যে গ্রুপের শীর্ষস্থানটি দখলের লড়াই চলবে। গ্রুপের শীর্ষস্থান নিশ্চিত হলেই আগামী বছর চার দলের ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জিত হবে। গত সপ্তাহে প্যারিসে গোলশুণ্য ড্র করার পর ফিরতি ম্যাচে আগামী ১৪ নভেম্বর পর্তুগালে মুখোমুখি হবে এই দুই দল।

ফরাসী কোচ দিদিয়ের দেশ্যম গত ম্যাচের থেকে ৬টি পরিবর্তন করে কাল মূল একাদশ সাজিয়েছিলেন। পল পগবা ও অলিভার জিরুদের স্থানে মূল দলে জায়গা করে নিয়েছিলেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের এন্থনি মার্শাল ও রিয়াল মাদ্রিদের ফুল-ব্যাক ফারল্যান্ড মেন্ডি। আট মিনিটে গ্রীজম্যানের গোলের পিছনে মেন্ডির অবদান রয়েছে। তার ক্রসেই বার্সেলেনো ফরোয়ার্ড গ্রীজম্যান খুব কাছে থেকে বল জালে জড়ালে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। কিছুক্ষন পরেই মার্শালের এসিস্ট থেকে এমবাপ্পে ব্যবধান দ্বিগুন করার সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন।

দ্বিতীয়ার্ধে ক্রোয়েশিয়া দারুনভাবে লড়াইয়ে ফিরে আসে। গোল পরিশোধে মরিয়া হয়ে ওঠা ক্রোয়েট ফরোয়ার্ডদের আটকাতে রীতিমত হিমশিম খেতে হয়েছে ফরাসী রক্ষনভাগকে। তারই ধারাবাহিকতায় ৬৫ মিনিটে অধিানয়ক লুকা মড্রিচ ও বদলী খেলোয়া জোসিপ ব্রেকালোর যৌথ সহযোগিতায় ভ্লাসিচ গোল করে ক্রোয়েটদের সমতায় ফেরান। কাল মাঠে উপস্থিত ছিলেন প্রায় ৭ হাজার ক্রোয়েট সমর্থক। সেপ্টেম্বরে প্যারিসের ম্যাচটিতে করোনার কারনে খেলতে না পারা এমবাপ্পেই শেষ পর্যন্ত ফ্রান্সের জয় নিশ্চিত করেন। বদলী হিসেবে খেলতে নামা পগবা দারুন একটি পাস দেন লুকাস ডিগনেকে। এভারটনের এই ফুল-ব্যাকের প্রথম প্রচেষ্টার ক্রসেই এমবাপ্পে গোল করে দলকে গুরুত্বপূর্ণ তিন পয়েন্ট উপহার দেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




bangladesherkhela.com 2019
Developed by RKR BD