রাত ১২:১৯, রবিবার, ২৪শে আগস্ট, ২০১৯ ইং
/ ফুটবল / ভালো খেলার প্রত্যাশা বাংলাদেশের
এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ
ভালো খেলার প্রত্যাশা বাংলাদেশের
আগস্ট ৭, ২০১৯



এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে ভাল খেলার প্রত্যাশা বাংলাদেশ দলের। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে থাইল্যান্ডে শুরু হবে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপের চূড়ান্ত পর্বের খেলা। এশিয়ার সেরা আটটি দলের মধ্যে বাংলাদেশ একটি। এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো এই টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে কিশোরীরা। ‘এ’ গ্রুপে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থাইল্যান্ড, ১৮ সেপ্টেম্বর জাপান এবং ২১ সেপ্টেম্বর অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হবে লাল-সবুজের দল।

গতবার এই আসরে খেলার অভিজ্ঞতার আলোকে এবার কেমন মনে হচ্ছে? বাংলাদেশ দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বলেন, ‘এই আসরে খেলাটাই অনেক বড় ব্যাপার। কেননা এই আসরে দুই কোরিয়া, চীন, জাপান, অস্ট্রেলিয়াসহ এশিয়ার সাতটি শক্তিশালী দল খেলে। এই দেশগুলো যুব পর্যায়ে শুধু এশিয়ারই নয়, বিশ্ব পর্যায়েরই সেরা দলগুলোর মধ্যে অন্যতম। তাদের তুলনায় আমরা নবীন ও অনভিজ্ঞ। তারপরও ২০১৭ সালে প্রথমবার খেলতে গিয়ে আমরা তেমন খারাপ করিনি। অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ৮০ মিনিট পর্যন্ত এগিয়েছিলাম ২-১ গোলে। তখন আমাদের কৃষ্ণা অনাকাঙ্খিতভাবে লাল কার্ড পেলে ওরা আরও দুটো গোল করে ম্যাচ জিতে যায় ৩-২ ব্যবধানে। নইলে ওই ম্যাচে আমরাই স্মরণীয় এক জয় পেতে পারতাম।’

ছোটন আরও যোগ করেন, ‘আমাদের দলের ফুটবলাররা ২০১৭ সালের পর আরও বেশকিছু আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট ও ম্যাচ খেলেছে। এতে তাদের আত্মবিশ্বাস, ম্যাচ টেম্পারমেন্ট এবং অভিজ্ঞতার ভান্ডার সমৃদ্ধ হয়েছে। সবদিক দিয়েই তারা ধারাবাহিকভাবে উন্নতি করেছে।’

আগের আসরে দল কম থাকায় এই আসরের মূলপর্বে যেতে দলগুলোকে একটি বাছাইপর্ব খেলতে হয়েছিল। এবার দলের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় মূলপর্বে যেতে দলগুলোকে খেলতে হয়েছে দুটি বাছাইপর্ব। বাংলাদেশ দুটি পর্বেই কোয়ালিফাই করে চূড়ান্তপর্বে নাম লেখায় সাফল্যের সঙ্গে। এশিয়ার ৪৭টি দেশের মধ্যে সেরা আটটি দল চূড়ান্তপর্বে খেলবে। এদেরই একটি লাল-সবুজের বাংলাদেশ।

ছোটন বলেন, ‘আপনারা জানেন, শক্তিমত্তা এবং অবকাঠামোগতভাবে বাংলাদেশের চেয়ে বাকি ৭টি দেশই অনেক এগিয়ে। তবে আমাদের মেয়েদের ওপর আমার আস্থা আছে। বিগত বছরগুলোতে তারা অনেক বয়সভিত্তিক আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলেছে এবং সাফল্যও পেয়েছে। অন্য যেকোন সময়ের চেয়ে তাদের ফিটনেস, টিম কম্বিনেশন, কনফিডেন্স বেশি। তাই আমি মনে করি গতবারের চেয়ে এবার আমাদের মেয়েরা আরও অনেক বেশি ভাল খেলবে।’

২০১৭ আসরের চূড়ান্তপর্বে খেলেছে এমন অনেকের বয়স বেড়ে যা‌ওয়ায় ২০১৯ আসরে খেলতে পারবে না। তবে ২০১৭ আসরে খেলেছে এবং এখনও বয়স আছে এমন ১০-১১ খেলোয়াড় খেলবে। নতুন যোগ হয়েছে আরও জনা বিশেক।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :