সন্ধ্যা ৬:৪৮, বুধবার, ১৭ই জুলাই, ২০১৯ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / রানীর শহরে বাংলাদেশের জেতার লড়াই
রানীর শহরে বাংলাদেশের জেতার লড়াই
জুলাই ২, ২০১৯



রানীর শহর বার্মিংহামে বিশ্বকাপের গুরুত্বপূর্ণ ম্য়াচে কাল বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত। ইংল্যান্ডের কাছে হারের ধাক্কা কাটিয়ে নামছে টিম ইন্ডিয়া। আর হারলেই বিদায় নিতে হবে এমন সমীকরণ বাংলাদেশের সামনে। সাকিবদের হারালেই কাল সেমিফাইনাল সম্পূর্ণ নিশ্চিত হয়ে যাবে ভারতের।
তেমনিভাবে ভারতকে পরাজিত করলেই বিশ্বকাপে টিকে থাকবে বাংলাদেশ (৭ ম্যাচে ৭)। ভারত, পাকিস্তান- পরপর দুটি ম্যাচে জিতলে, সেমিফাইনালে ওঠার একটা সম্ভাবনা‌ও তৈরি হবে টাইগারদের। কাজটা কঠিন, তবে একেবারে অসম্ভব নয়।

বিশ্বকাপে ৩টি জয় ও অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড-ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তিনটি ম্যাচে লড়ে হারলেও মন জিতেছে বাংলাদেশ। তবে আগামী দুটি ম্যাচের ওপরেই নির্ভর করছে সাকিব-মাশরাফীদের বিশ্বকাপ ভাগ্য। টাইগাররা অবশ্য একটা একটা ম্য়াচ ধরে এগিয়ে যেতে চায়। তবে ইংল্যান্ড রোববার ভারতকে হারিয়ে দেওয়ায় বাংলাদেশের কাজটা কঠিন হয়ে গেছে।

ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ নিয়ে দু’দেশের সমর্তকদের মধ্যে উত্তেজনা চরমে। ইদানিং ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের আবেগেকে পেছনে ফেলে দিয়েছে বাংলাদেশ-ভারত ম্য়াচ। সাম্প্রতি ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে কোহলিরা যতটা একপেশেভাবে জিতেছেন, ঠিক উল্টোটা হয়েছে বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচে। গত বিশ্বকাপে ২০১৫ সালের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের কাছে হেরেই বিদায় নিয়েছিল বাংলাদেশ। ধোনিদের বিরুদ্ধে সেই ম্য়াচে বেশ লড়াই করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু আম্পায়ারদের পক্ষপাতিত্বে জয় পায়নি টাইগাররা।

এই ম্য়াচটি তাই ২০১৫-র বিশ্বকাপের বদলা হিসেবে দেখছে মাশরাফীবাহিনী। তবে টুর্নামেন্টে টানা ৬টা ম্য়াচে জেতা ভারতের বিজয়রথ আটকে সাকিবদের সামনে কিছু জেতার রাস্তা খুলে গিয়েছে ইংল্যান্ড। আর সেটা হল ভারতীয় ব্যাটিং অনেকটাই রোহিত, কোহলি নির্ভরশীল। ভারতীয় পেসারদের প্রথমে উইকেট না দিলে, আর স্পিনারদের পরে আক্রমণ করলে ভারতীয় বোলিং একেবারে সাদামাটা দেখায়। তামিম-সাকিবরা তেমনটাই চাইছেন।

৭ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট পেয়ে সেমিফাইনালের একেবারে দোরগড়ায় দাঁড়িয়ে কোহলিরা কালই বাংলাদেশকে হারিয়ে শেষ চার সম্পূর্ণ নিশ্চিত করতে চাইছেন। শেষ ম্য়াচে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্য়াচটাকে সেমিফাইনালের প্রস্তুতি হিসেবেই রাখতে চান কোহলিরা। বাংলাদেশের বিরুদ্ধে কোহলিদের মূলত তিনটি লক্ষ্য থাকবে-১) ইংল্য়ান্ডের কাছে হারের পর আবার নিজেদের গুছিয়ে নেওয়া। ২) সেমিফাইনাল নিশ্চিত করা, ৩) মিডল অর্ডার ও স্পিনারদের ফর্মে ফেরা। খারাপ ব্য়াটিং করা ধোনির উপরেও নজর থাকবে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :