সন্ধ্যা ৬:৪৮, বুধবার, ১৭ই জুলাই, ২০১৯ ইং
/ video / ভারতের জয়
সামির হ্যাটট্রিকে
ভারতের জয়
জুন ২৩, ২০১৯



সাউদাম্পটনে বোলাররা ভারতকে এনে দিলেন দারুণ এক জয়। আগের ম্যাচগুলোতে ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা পাহাড়প্রমাণ রান করেছিলেন। তাতে বোলারদের কাজ‌ও সহজ হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু শনিবার ভারতের ব্যাটসম্যানরা বড় রানের বোঝা চাপাতে পারেননি আফগানিস্তানের উপরে। উল্টো চাপটা ছিল বোলারদের উপরেই। বল করতে নেমে যাসপ্রীত বুমরা, মোহাম্মদ সামি ‌ও চাহালরা হতাশ করেননি কোহালিকে। সামি তো ভারতকে জেতাতে গিয়ে এবারের বিশ্বকাপে প্রথম হ্যাটট্রিক করার নজির‌ও গড়ে ফেলেন।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য আফগানদের দরকার ছিল ১৬ রান। কোহালি বল তুলে দেন সামির হাতে। বিপজ্জনক মোহম্মদ নবী (৫২), আফতাব আলম (০) এবং মুজিব উর রহমানকে (০) পর পর তিন বলে ফিরিয়ে ভারতকে জয় এনে দেন শামি। ১৯৮৭ সালের বিশ্বকাপে ভারতের চেতন শর্মা হ্যাটট্রিক করেছিলেন। তার পরে সাকলাইন মুস্তাক, চামিন্দা ভাস, ব্রেট লি, লাসিথ মালিঙ্গা-সহ অনেকেই হ্যাটট্রিক করেছেন। চলতি বিশ্বকাপের প্রথম হ্যাটট্রিকটি করলেন বাংলার পেসার। তাঁর শেষ ওভারে দাপটেই আফগানিস্তান শেষ হয়ে গেল ২১৩ রানে। আর কোহালিরা পেলেন ১১ রানের দারুণ এক জয়।

অথচ ভারতের রান তাড়া করতে নেমে একটা সময়ে জয়ের পথেই ছিল আফগানিস্তান। রহমত শাহ ও শাহিদি শুরুর ধাক্কা সামলে ধীরে ধীরে ইনিংস গড়ছিলেন। সেই সময়ে উইকেটের দরকার ছিল কোহালির। বুমরা ঠিক সময়ে দু’ জনকে তুলে ভারতকে ম্যাচে ফেরান। নবী ঠাণ্ডা মাথায় আফগানিস্তানকে জয়ের লক্ষ্যে নিয়ে যাচ্ছিলেন। অন্য প্রান্ত থেকে তাঁর সতীর্থরা ফিরে গেলেও নবীর মধ্যে টেনশনের লেশমাত্র ছিল না। কিন্তু, শেষ রক্ষা হলো না। বিশ্বকাপে এ পর্যন্ত ছ’টি ম্যাচই হারলো আফগানরা।

সাউদাম্পটনের রোজ বউল স্টেডিয়ামে, টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন বিরাট কোহালি। উদ্দেশ্য রানের পাহাড় তুলবে টিম ইন্ডিয়া। তার পরে যাসপ্রীত বুমরা, মোহাম্মদ সামিরা দ্রুত মুড়িয়ে দেবেন আফগানিস্তানের ব্যাটিং লাইন আপ। উল্টো আফগান-বোলাররা ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপের পরীক্ষা নিলেন। পিচ মন্থর হওয়ায় তাঁদের কাজটা সহজ হয়।

বল পড়ে ঠিক মতো ব্যাটে আসছিল না। শট খেলতে সমস্যায় পড়তে হয় ভারতীয়দের। মহেন্দ্র সিংহ ধোনির মতো মারকুটে ব্যাটসম্যানও পারলেন না দ্রুতগতিতে রান তুলতে। বিরাট কোহালি আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন, তখন ভারতের সংগ্রহ চার উইকেটে ১৩৫ রান (৩০.৩ ওভার)। ধোনি নিজের খেলাটাই খেলতে পারলেন না। বল নষ্ট করলেন। শেষে রশিদ খানকে মারতে গিয়ে স্টাম্পড হলেন। ৫২ বলে ২৮ রান করেন তিনি। কেদার যাদব ৬৮ বলে করেন ৫২ রান।

রোহিত শর্মা চলতি বিশ্বকাপে স্বপ্নের ফর্মে রয়েছেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সেঞ্চুরি করা হয়ে গিয়েছে তাঁর। এদিন মুজিব উর রহমানের বলটাই ঠিক মতো বুঝতে পারলেন না। বলের লাইন মিস করে বোল্ড হলেন শর্মা। ভারতের রান তখন এক উইকেটে সাত। রোহিত টিকলেন মাত্র ১০ বল। রোহিত দ্রুত ফেরায় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহালি ইনিংস গড়ার কাজ করেন লোকেশ রাহুলের সঙ্গে। রাহুল ৩০ রান করে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে আউট হন। কোহালি ৪৮ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেন। কিন্তু, কোহালির ব্যাটে যখন বড় রানের গন্ধ পাওয়া যাচ্ছে, তখনই ছন্দপতন। নবির বলটা হঠাৎই লাফিয়ে ওঠে। কাট করতে গিয়ে পয়েন্টে ধরা পড়েন কোহালি (৬৭)। আফগান বোলাররা রীতিমতো পরীক্ষা নিচ্ছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের।

বিজয় শঙ্কর নিজের নামের প্রতি সুবিচার করতে পারলেন না। রহমত শাহের বলে এলবিডব্লিউ হন শঙ্কর (২৯)। ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে রশিদ খান ৯ ওভারে ১১০ রান দিয়েছিলেন। আর ভারতের বিপক্ষে ১০ ওভারে খরচ করেন মাত্র ৩৮ রান। ধোনির উইকেট নেন তিনি। তাতে ২২৪ রানে থামে ৮ উইকেট হারানো ভারতের ইনিংস।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :