বিকাল ৫:১২, বুধবার, ২২শে মে, ২০১৯ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / রানের পাহাড়ে চড়েও ভারতের হার
রানের পাহাড়ে চড়েও ভারতের হার
মার্চ ১০, ২০১৯



রানের পাহাড়ে চড়েও হারতে হলো ভারতকে। উসমান খাজা (৯১), পিটার হ্যান্ডসকম্ব (১১৭) ও টার্নারের (৮৪ অপরাজিত) ব্যাটিংয়ে সিরিজে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ২-২-এ সমতা ফিরিয়ে আনল অজিরা। হেরে হতাশ টিম ইন্ডিয়া। এই ম্যাচও যে হারতে হবে, তা রীতিমতো অবিশ্বাস্য বিরাট কোহলির দলের কাছে।

মোহালিতে, ভারতের বিশাল ৩৫৮ রান তাড়া করতে নেমে দ্রুত ফিরেই সাজঘরে ফেরেন অ্যারন ফিঞ্চ ও শন মার্শ। অস্ট্রেলিয়ার ইনিংস গড়ার কাজ করেন উসমান খাজা ও হ্যান্ডসকম্ব। তাঁরা ১৯২ রানের জুটি গড়ে দলকে লড়াইয়ে রাখেন। খাজা যখন ফেরেন তখন অস্ট্রেলিয়ার রান ৩ উইকেটে ২০৪। ম্যাক্সওয়েল করেন ২৩ রান। হ্যান্ডসকম্ব আউট হওয়ার পরে টার্নারের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ম্যাচের রাশ নিজেদের হাতে তুলে নেয় অস্ট্রেলিয়া। টার্নার-ক্যারি ৪২ বলে ৮৬ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। মোক্ষম সময়ে কেদার যাদব ও শিখর ধাওয়ান ক্যাচ ফেললে ম্যাচ জেতা সহজ হয়ে যায় অজিদের। শেষ পর্যন্ত ১৩ বল বাকি থাকতে ৪ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় টিম অস্ট্রেলিয়া।

চতুর্থ ওয়ানডেতে ফর্মে ফেরেন শিখর ধাওয়ান। ১১৫ বলে ১৪৩ রান করে শিখর যখন ফিরছেন, ভারতের স্কোরে তখন পর্বত ছোঁয়ার ইঙ্গিত। ৫০ ওভারের শেষে তাদের সংগ্রহ ৯ উইকেটে ৩৫৮ রান।

আগের তিনটি ম্যাচে ধাওয়ানের ব্যাটে ছিল রান খরা। অথচ আজ রোববার এই বাঁহাতি ওপেনার রীতিমতো রানের খই ফোটান ব্যাটে। মোহালির সবুজ গালিচায় ওয়ানডে ক্যারিয়ারে সর্বোচ্চ ১৪৩ রান করেন। এই মোহালিতেই অভিষেক টেস্টে শিখর ধাওয়ান খেলেছিলেন ১৮৭ রানের রাজকীয় ইনিংস।

ধাওয়ানের মতোই আরেক ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মাও নিন্দুকদের মুখবন্ধ করে দেন এদিন। শেষ তিনটি ওয়ানডে থেকে ‘হিটম্যান’ করেছিলেন মাত্র ৫১ রান। এদিন গর্জে উঠেন তিনি। রোহিত ও ধাওয়ান অজি বোলিংকে তুলোধুনো করে উদ্বোধনী জুটিতে দলের সংগ্রহে যোগ করেন ১৯৩ রান। অল্পের জন্য শতরান হাতছাড়া করেন রোহিত (৯৫)। কিন্তু ধাওয়ান ঠিকই তুলে নেন সেঞ্চুরি (১১৫ বলে ১৪৩ রান)।

তিন নম্বরে নেমে লোকেশ রাহুল ২৬ রানের বেশি করতে পারেন নি। রোহিত-ধাওয়ানের বিস্ফোরণের পরে বাকিরা জ্বলে উঠতে না পারায়, বেশি রান সংগ্রহ করতে না পারলে‌ও পুঁজিটা ফুলেফেপে ‌ওঠে তাদের। পরে অবশ্য অস্ট্রলিয়ান ব্যাটসম্যানরা সেটা মামুলি স্কোরে নামিয়ে আনেন।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :