রাত ১:০১, বুধবার, ২৬শে মার্চ, ২০১৯ ইং
/ এশিয়ান গেমস / ভারোত্তোলকের ধর্ষক গ্রেফতার
ভারোত্তোলকের ধর্ষক গ্রেফতার
ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৯



অবশেষে ভারোত্তোলক ধর্ষণ মামলার আসামি সোহাগ আলীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অনেক দিন ধরে পালিয়ে বেড়ানো ভারোত্তোলন ফেডারেশনের এই অফিস সহকারীকে গত সোমবার বিয়ের নাটকের ফাঁদে ফেলে আটক করা হয়েছে নেত্রকোনা থেকে। এরপর আদালতে পাঠিয়ে এক দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

কিছুদিন আগে, এক নারী ভারোত্তোলককে ধর্ষণের ঘটনা পত্রিকায় ছাপা হলে আলোচিত হয়। কিছুদিন পর সোহাগ আলীকে আসামি করে পল্টন থানায় মামলা করে ভারোত্তোলকের পরিবার। এরপরেই তিনি পালিয়ে বেরাচ্ছিলেন। এরই মধ্যে পল্টন থানায় করা সেই মামলার দায়িত্ব নেয় ‘ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টার’ এবং তদন্তের দায়িত্ব পড়ে ইন্সপেক্টর আমেনা খাতুনের ‌উপর। তার নেতৃত্বে সোহাগ আলীকে গ্রেপ্তার করা হয়, ‘কৌশলে আসামিকে ধরতে হয়েছে। এমন এক নাটক সাজানো হয়েছে যেন কেউ আগেভাগে বুঝতে না পারে। নইলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারত।’

ওই নারী ভারোত্তোলকের সঙ্গে তাঁর বিয়ের ফাঁদ পেতেছিল পুলিশ। পুলিশের লোকজন অভিভাবক সেজে বিয়ের জন্য মেয়েকে নিয়ে গিয়েছিল সোহাগের বাড়ি কেন্দুয়ায়। কাজিও ডাকা হয়েছিল। পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী কাবিনের টাকা নিয়ে মেয়েপক্ষ গণ্ডগোল পাকায় এবং একপর্যায়ে তারা সোহাগকে গাড়িতে তুলে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়। গ্রেপ্তার করে আদালতে হাজির করার পর এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হয় বলে জানান ইন্সপেক্টর আমেনা খাতুন। এই মামলায় নিপীড়িত নারী ভারোত্তোলককে আইনি সহযোগিতা দিচ্ছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র।

নির্যাতিতার দাবি অনুযায়ী, গত বছর ১৩ সেপ্টেম্বর জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের পুরনো ভবনে বাংলাদেশ ভারোত্তোলন ফেডারেশনে তিনি ধর্ষণের শিকার হন। অভিযুক্ত সোহাগ আলী ঐদিন সকালে অনুশীলনের কথা বলে তাঁকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এরপর মানসিক ভারসাম্য হারানো ঐ ভারোত্তোলককে ভর্তি করানো হয় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :