বিকাল ৩:৫৯, বুধবার, ২১শে আগস্ট, ২০১৯ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / বাংলাদেশের হোয়াইটওয়াশের লজ্জা
বাংলাদেশের হোয়াইটওয়াশের লজ্জা
ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৯



ডানেডিনে তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে ৮৮ রানে হারিয়ে হোয়াইটওয়াশ করলো নিউজিল্যান্ড। আগে ব্যাট করে ৬ উইকেটে ৩৩০ রান তোলে কিউইরা। জবাবে, সাব্বির রহমানের প্রথম সেঞ্চুরির পর ২৪২-এ অলআউট হয় টাইগাররা। ছয় উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা টিম সাউদি আর সিরিজ সেরা হন মার্টিন গাপটিল।

বন্দুকের গুলির চাইতেও ক্রিকেট ব্যাট আরো ভয়ঙ্কর হতে পারে, যদি তা কোন ক্ষ্যাপাটের হাতে পড়ে। ব্রিটিশ লেখক প্রিন্স ফিলিপের সেই উক্তিটিই মনে করিয়ে দিলেন সাব্বির রহমান।

নিষোধাজ্ঞা কমিয়ে তাকে দলে নেয়ার যারা সমালোচনা করেছিলেন, ধ্বংসস্তুপের মাঝে সেঞ্চুরি হাঁকিয়ে তাদের উদ্দেশ্যে সাব্বির হুঙ্কার ছাড়লেন ‘এবার মুখ বন্ধ করো।’

দল হেরেছে তবু এমন উদযাপন। সমালোচনাকারীরা হয়তো প্রশ্ন তুলতে পারেন। তবে সেই প্রশ্নটা গুরুত্ব হারাবে যখন বাংলাদেশের ইনিংসে চোখ বুলানো হবে।

প্রথম তিন ওভার শেষে ডিজিটগুলো রীতিমতো ধাঁধায় ফেলার মতো। সত্য এটাই ২ রান তুলতেই তিন ব্যাটসম্যানকে হারায় সফরকারীরা। ২০১৫ এর পর টানা তিন ইনিংসে দুই অঙ্ক না ছোঁয়ার তিক্ত স্বাদ পেলেন তামিম। লিটন দাস তার ২৭ ওয়ানডেতে ১৬ বার ১০ রানের নিচে প্যাভিলিয়নে ফিরলেন। এরপর মুশফিক-মাহমুদউল্লাহর ব্যর্থতায় ৬১ রান তুলতেই মাঠ ছাড়েন ৫ ব্যাটসম্যান।

এমন অবস্থায় মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে নিয়ে ক্যারিয়ারে সেরা ইনিংসটি খেললেন সাব্বির। দুজনের জুটিতে ১০১ রান। যেখানে সাইফুদ্দিনের ব্যাটে আসে ৪৪। এরপর মিরাজের ৩৭ রানের ইনিংস দেখালো এই উইকেটেও রান তোলা যায়।

যেখানে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানরা ধুঁকলেন, সেখানে সাব্বির আউট হবার আগে খেললেন ১১০ বলে ১০২ রানের ইনিংস। টিম সাউদি একাই নেন ৬ উইকেট।

ব্যাটিং ব্যর্থতার দিনে, বাংলাদেশকে হতাশায় ডুবিয়েছেন বোলাররাও। ১০ ওভারে ৯৩ রান দিয়ে ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বাজে বোলিংয়ের রেকর্ড গড়েন মুস্তাফিজুর রহমান।

৬৯ রান করে দেশের হয়ে সবচেয়ে বেশি রানের মালিক বনে যাওয়া রস টেলরের সাথে ফিফটি তুলে কিউইদের ব্যাটিং তান্ডবে যোগ দেন হেনরি নিকোলস এবং টম লাথাম। তাতে কিউইরা পায় ৬ উইকেটে ৩৩০ রানের পুঁজি। যার পিছু নিয়ে বাংলাদেশ মাঠ ছাড়ে হোয়াইটওয়াশ হয়ে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :