রাত ৪:২৫, সোমবার, ২৪শে মার্চ, ২০১৯ ইং
/ আর্ন্তজাতিক / ভারতীয় নারী ক্রিকেটের নতুন হার্টথ্রব
ভারতীয় নারী ক্রিকেটের নতুন হার্টথ্রব
জানুয়ারি ৩, ২০১৯



খেলার সাথে দর্শক-সমর্থকদের মন ভোলাতে‌ও এবার হাজির ভারতীয় নারী ক্রিকেটার প্রিয়া পুনিয়া। ২২ বছরের এই তরুণী ইতোমধ্যেই ক্রিকেট ফ্যানদের মধ্যে ঝড় তুলেছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল‌ও হয়েছেন তিনি। ভারতীয় নারী ক্রিকেট দলে আঞ্জুম চোপড়া, মিতালি রাজ কিংবা স্মৃতি মন্ধনার মতো সুন্দরী ক্রিকেটার থাকলেও তাঁরা কোনওদিন হার্টথ্রব হয়ে উঠতে পারেননি। এরা থেকেছেন মিষ্টিমেয়ের তালিকাতেই। কিন্তু ২২ বছরের তরুণী দিল্লীর ক্রিকেটের প্রিয়া পুনিয়া ইতিমধ্যেই ফ্যানদের হার্টথ্রব হয়ে উঠেছেন।

বাঁহাতি এই ক্রিকেটার টপ অর্ডারে ব্যাট করেন। ২০১৯ সালে নিউজিল্যান্ডে টি-টোয়েন্টি সিরিজে দলে সুযোগ‌ও পেয়েছেন তিনি। ঘরোয়া ক্রিকেটে অসাধারণ পারফরম্যানসের জন্যই জাতীয় দলের দরজা খুলেছে এই তরুণীর। তবে এই জায়গায় পৌঁছনোর জন্য তাঁকে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। দলে সুযোগ পাওয়ার পরেই তাঁর বাবার লড়াইয়ের কাহিনী তাঁকে খবরের কেন্দ্রে এনে দেয়। ২০১০ সালে জয়পুরের একটি ক্রিকেট প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে ভর্তি করতে গিয়েছিলেন। কিন্তু প্রিয়া মেয়ে হওয়ার জন্য সুরেন্দ্র পুনিয়াকে অপমান করা হয় ওই কোচিং সেন্টার থেকে। তখনই জয়পুরের শহরতলি হর্মদা অঞ্চলে ২২ লক্ষ টাকা দিয়ে দেড় বিঘা জমি কেনেন তিনি। এর জন্য তাঁকে সম্পত্তি বিক্রি করা ছাড়াও ঋণ নিতে হয়। যদিও তাঁর প্রথমে স্পোর্টস কমপ্লেক্স গড়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু ক্রিকেটের প্রতি মেয়ের ভালবাসা দেখে ক্রিকেট মাঠ এবং তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেন। সেখানেই মেয়েকে খেলা শেখান। প্রতি মাসে মাঠ সংরক্ষণের জন্য খরচ হত ১৫ হাজার টাকা। সংসারের খরচ সামলে সেই টাকাটাও জোগাড় করতেন সুরেন্দ্র।

অবশেষে প্রিয়া পুনিয়ার বাবার পরিশ্রম সার্থক হয়েছে। গত দুই মৌসুম ধরে তিনি দিল্লির সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীদের অন্যতম। ভারতীয় ‘এ’ দলের হয়েও ভালো পারফরমেনস করেছেন এই ব্যাটসম্যান। তবে ব্যাটে-বলের লড়াইয়ে নয়, এবার আলোচনার কেন্দ্রে প্রিয়া নিজ রূপে।



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :