সন্ধ্যা ৭:১৯, বৃহস্পতিবার, ১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং
/ ফুটবল / অভিজ্ঞতা অর্জনই লক্ষ্য ছোটনের
অভিজ্ঞতা অর্জনই লক্ষ্য ছোটনের
নভেম্বর ৪, ২০১৮



স্পোর্টস রিপোর্টার

আগামী মাসেই শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে সিনিয়র নারী সাফ চ্যাম্পিয়নশীপ। আসন্ন এ আসরে অংশ নেয়ার আগে বাংলাদেশের মেয়েদের অংশ নিতে হবে ২০২০ সালের টোকিও অলিম্পিক গেমসের এশিয়া মহাদেশের বাছাইয়ে। আজ রোববার থেকে মিয়ানমারে শুরু হওয়া অলিম্পিক বাছাইকে নিজেদের সাফ প্রস্তুতি হিসেবেই দেখছে লাল-সবুজরা। যদিও গ্রুপ পর্বের বাঁধা টপকানোর সুযোগ আছে। তবুও গোলাম রব্বানী ছোটনের শিষ্যদের মূল লক্ষ্য সিনিয়র সাফের শিরোপা।

মিয়ানমারের রাজধানী ইয়াংগুনের থুউন্না স্টেডিয়ামে নিজেদের প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ মুখোমুখি হবে স্বাগতিক স্বাগতিকদের বিরুদ্ধে। আসন্ন এ আসরে অংশ নিতে আগামীকাল সকাল পোনে এগারটায় ঢাকা ছাড়বে সাবিনা-কৃষ্ণারা। ‘সি’ গ্রুপে থাকা লাল-সবুজ জার্সীধারীদের অপর দুই প্রতিপক্ষ দক্ষিণ এশিয়ার আরেক শক্তিশালী দল ভারত ও নেপাল। ভারতের বিরুদ্ধে ১১ নভেম্বর এবং গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ ১৩ নভেম্বর নেপালের বিরুদ্ধে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। চার গ্রুপ থেকে গ্রুপ চ্যাম্পিয়নসহ দুই সেরা রানার্স আপ দল দ্বিতীয় পর্বের টিকিট পাবে। আগামী বছরের এপ্রিলে চীন, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, উত্তর কোরিয়া ও থাইল্যান্ডের সঙ্গে যোগ দিবে বাছাইপর্ব থেকে সুযোগ পাওয়া দলগুলো।

একের পর এক আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলছে বাংলাদেশের মেয়েরা। গত তিন মাসে তিনটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নিজেদের অভিজ্ঞতার ঝুলিটা আরো সমৃদ্ধ করেছে মৌসুমী-আঁখিরা। অলিম্পিকের এই মিশনে তাজিকিস্তান মিশনের স্কোয়াডই অপরিবর্তিত থাকছে। শুধু দলের সঙ্গে যোগ দিচ্ছেন দলের অভিজ্ঞ ফুটবলার সাবিনা খাতুন। আসন্ন এ আসরে নিজেদের লক্ষ্য সম্পর্কে কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বলেন, ‘বাংলাদেশের জন্য কঠিন হবে। কারণ সবাই সিনিয়র দল। ভালো দল সবগুলো। আমরা অভিজ্ঞতা নিতে যাচ্ছি। সামনে সিনিয়র সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ আছে। সেটার প্রস্তুতি হবে এ বাছাইপর্বের মাধ্যমে। আসলে আমাদের দলের বেশিরভাগ ফুটবলারের বয়স আঠারোর নিচে। সাবিনা শুধু দলের সঙ্গে যোগ দিবেন। তাই কঠিন চ্যালেঞ্জই হবে আমাদের জন্য। আশা করবো ভালো খেলতে।’ দলের নতুন ফুটবলারদের সম্পর্কে কোচ বলেন, ‘তরুন ফুটবলাররা ভালো করছে। তারা এরইমধ্যে নিজেদের প্রমান করেছে। আশাকরি মিয়ানমারেও ভালো করবে। আমাদের হারানোর কোন ভয় নেই। সেখানে চাপহীন ফুটবল খেলে প্রতিপক্ষ দলগুলো সম্পর্কে বেশ ভালো ধারনা পাওয়া যাবে।’



লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন :